মঙ্গলবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৮ | বাংলার জন্য ক্লিক করুন
  
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   পরিবেশ
  শব্দ দূষণ মানব দেহের জন্য নিরব ঘাতক
  7, November, 2017, 7:47:57:PM

মো: হাসিবুর রহমান: সুস্থভাবে বেঁচে থাকার জন্য প্রয়োজন পরিবেশবান্ধব একটি সুন্দর নির্মল পরিবেশ। বিশ্বব্যাপী আজ পরিবেশ দূষণ সমস্যা ও তার বিরূপ প্রতিক্রিয়া এক প্রকট আকার ধারণ করেছে। ফলে সৃষ্টি হচ্ছে সমগ্র মানব জাতির জন্য ভয়াবহ স্বাস্থ্য সমস্যা, সেই সাথে বাংলাদেশেও তার প্রতিক্রিয়া লক্ষ্য করা যাচ্ছে। ক্রমাগত পরিবেশ দূষণের ফলে পৃথিবীর জীব-বৈচিত্রের অস্তিত্ব আজ হুমকির সম্মুখীন। মানবজাতি নিজেদের প্রয়োজনে এবং প্রয়োজনের অতিরিক্ত ভোগ-বিলাসিতার জন্য প্রকৃতিকে ধ্বংসের ফলে পরিবেশ দূষণের মাত্রা আজ অসহনীয় পর্যায়ে এসে দাঁড়িয়েছে। ক্রমবর্ধমান শিল্প-কারখানা থেকে নির্গত কালো ধূয়া, বিষাক্ত র্বজ্য, শব্দ ও যানবহনের কালো ধূয়ার পাশাপাশি উচ্চমাত্রার শব্দের কারণে মানব দেহে বিভিন্ন ক্ষতিকর প্রতিক্রিয়া লক্ষ্য করা যায়। মানব দেহে শব্দের সহনশীল মাত্রা হচ্ছে ৫০ থেকে ৭০ ডেসিবল পর্যন্ত। কিন্তু যানবাহনের উচ্চ শব্দ ও হাইড্রোলিক হর্ণের শব্দের মাত্রা ১২০ থেকে ১৮০ ডেসিবল পর্যন্ত হতে পারে। পরিবেশ অধিদপ্তর কর্তৃক যানবাহনে হাইড্রোলিক হর্ণের ব্যবহার নিষিদ্ধ করেছে ও বর্তমান সরকার হাইড্রোলিক হর্ণের উপর সর্বোচ্চ নিষেদ্ধাজ্ঞা জারী করেছে ও কার্যক্রম ভুমিকা পালনের পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। তবু দেখা যায় কিছু কিছু ট্রাক ও বাসে আজও হাইড্রোলিক হর্ণের ব্যবহার অব্যাহত আছে। এক সমীক্ষায় জানা যায় যে, কোন ব্যক্তি প্রতিনিয়ত ৮ ঘন্টা ৮০ থেকে ৯০ ডেসিবল মাত্রার শব্দের মধ্যে বসবাস করে তবে সে ২৪ বছরের মধ্যে বধির হয়ে যাবে এবং ১২৫ ডেসিবল মাত্রার শব্দের মধ্যে বসবাস করে তবে মস্তিকে ও চোখের মারাত্মক ক্ষতি হয়ে থাকে। এছাড়া র্নাভ সিস্টেম প্রংিতক্রিয়ায় হৃদরোগ, মানসিক ভারসাম্য ও লিভার সেরোসিস হয়ে ধীরে ধীরে মৃত্যুর পথে ধাবিত হতে পারে। দেখা যায়, এয়ার র্পোট কিংবা রেললাইনের সন্নিকটে বসবাসকারী জনগোষ্টির অনেকেই হৃদরোগ ও ঘুমের ব্যঘাত জনিত রোগে ভোগে। তাই অতি সহজেই বোঝা যায় যে, উচ্চ শব্দ মানব দেহে কি পরিমাণ ক্ষতিকর প্রভাব ফেলতে পারে। শহরের বহু বিপনীতে, রেকডিং সেন্টারে ও বিভিন্ন পণ্যের বিজ্ঞাপনের উচ্চ শব্দে মাইকিং এর কারণে সৃষ্ট শব্দ দুষণ মানব স্বাস্থ্যের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর প্রভাব ফেলে।

জনসংখ্যা বৃদ্ধির ফলে সুজলা শ্যামলা গ্রাম বাংলা আজ ব্যস্ত জনপদে পরিণত হয়েছে। তাই বর্তমানে গ্রাম-গঞ্জের আবাসিক এলাকায় ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান চলাকালীন সময়ে মাইকে উচ্চস্বরে বিজ্ঞাপনের শব্দ ও বিভিন্ন পণ্য বিক্রির জন্য মাইকিং তথা মাইকের ভলিয়ম বাড়িয়ে সবার দৃষ্টি আর্কষণ করে। শ্যালো মেশিনদ্বারা তৈরীকৃত অবৈধ নছিমন, করিমন আর ফিটনেস বিহীন বাস-ট্রাক, ট্রাকটরের শব্দে গ্রামবাসী আজ অতীষ্ট। পরিবেশ অধিদপ্তর কর্তৃক শব্দ দুষণ এর জন্য আইন আছে কিন্তু বাস্তবে তার তেমন কোন প্রয়োগ না থাকায় দিন দিন বেড়েই চলছে উচ্চশব্দে মাইকিং ও নছিমন-করিমনের দৌরাত্ম্য। উচ্চশব্দে মাইক বাজানোর শব্দ দূষণে অতিদ্রুত শিশুদের শ্রবণ সমস্যা দেখা দেয়। কানের রোগে আক্রান্ত হয়ে স্কুল-কলেজ পড়ুয়া শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্য সম্যসা হয়। তাছাড়া অসহনীয় উচ্চস্বরে মাইকিংয়ের কারণে প্রতিনিয়ত ছাত্র-ছাত্রীদের লেখাপড়ার ব্যাঘাত ঘটে। তাই অবিলম্বে শব্দ দুষণ রোধে যথাযথ আইনের প্রয়োগ করে নিয়ম বর্হিভূত এসব মাইকিংসহ শ্যালো মেশিদ্বারা তৈরীকৃত নছিমন ও করিমন বন্ধ করা প্রয়োজন। তাছাড়া, বড় বড় ইমারত তৈরী করার সময় মেশিনে ইট ভাংগানো হয় এবং পাথর ভাংগানোর শব্দে কর্মরত শ্রমিকদের শ্রবণশক্তি ও ধীরে ধীরে জীবনীশক্তি কমে যায়। তাই বলা যায় এই কোলাহলপূর্ণ শব্দ দুষণ এলাকায় কর্মরত ব্যক্তিদের জন্য এ যেন এক অশনি সংকেত, এ যেন এক নিরব ঘাতক।

আকস্মিক উচ্চ শব্দের ফলে মানব দেহে উচ্চ রক্তচাপ, মাংসপেশীর খিচুনী, হজম শক্তির ব্যাঘাতসহ হৃদপিন্ডের কম্পন শিশুদের মানসিক ভারসাম্যের উপর বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করে। বিশেষ করে, প্রসূতি মায়ের গর্ভে ভ্রুণের জন্য শব্দ দুষণ মারাত্মক ক্ষতি সাধন করে থাকে। শব্দ দুষণ প্রতিরোধে সরকারিভাবে পরিবেশ মন্ত্রণালয় ও পরিবেশ অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে জোরালো পদক্ষেপ গ্রহণ করা প্রয়োজন। তাছাড়া, সুস্থ্য পরিবেশ রক্ষায়, শব্দ দূষণরোধে ও পরিবেশ সংরক্ষণে সমাজের সকলস্তরের জনসাধারনের সম্পৃক্ততা ও প্রত্যক্ষ অংশগ্রহণের প্রয়োজন রয়েছে। ভবিষ্যৎ প্রজন্মদের জন্য একটি সুস্থ্য পরিবেশ উপহার দেওয়ার লক্ষ্যে বর্তমান প্রজন্মের পক্ষ থেকে সঠিক দিক-নির্দেশনা তৈরী করে পরিকল্পিতভাবে একটি টেকসই পরিবেশ তৈরী করা আমাদের সকলের দায়িত্ব।
লেখক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন কর্মকর্তা ও পিএইচডি গবেষক।



সংবাদটি পড়া হয়েছে মোট : 467        
   শেয়ার করুন
Share Button
   আপনার মতামত দিন
     পরিবেশ
লক্ষীপুরে পরিবেশ দূষণকারী ইটভাটার ছড়াছড়ি
.............................................................................................
শব্দ দূষণ মানব দেহের জন্য নিরব ঘাতক
.............................................................................................
বায়ুমণ্ডলে কার্বন ডাই অক্সাইডের পরিমাণ ৮ লাখ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ
.............................................................................................
বাংলাদেশের জাতীয় দুর্যোগ নদীভাঙন: পর্ব- ২
.............................................................................................
‘নদী রক্ষায় ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে’
.............................................................................................
একূল ভাঙে ওকূল গড়ে এইতো নদীর খেলা
.............................................................................................
গাজীপুরে জয়দেবপুর পিটিআই-এ বৃক্ষরোপন কর্মসূচি পালন
.............................................................................................
পরিবেশ রক্ষায় ১০ বছর ধরে কাজ করছে চীনের কুকুর
.............................................................................................
সেন্টমার্টিনের আবাসিক হোটেল মালিকদের তলব
.............................................................................................
বিশ্বে বায়ু দূষণে দ্বিতীয় ঢাকা
.............................................................................................
রাজধানীর পরিবেশ দূষণেও যানবাহন
.............................................................................................
সুন্দরবনে শেলা নদীতে কোস্টার ডুবি: তদন্ত কমিটি গঠন
.............................................................................................
সুন্দরবন রক্ষায় ২১ মার্চ দেশব্যাপী অর্ধদিবস হরতাল
.............................................................................................
বরিশালে কীর্তনখোলা নদী দখলের প্রতিবাদে মানববন্ধন
.............................................................................................
রামপাল বিদ্যুৎ প্রকল্প বাতিলের দাবিতে সুন্দরবন অভিমুখে জনযাত্রা শুরু
.............................................................................................
ছাতকে সুরমা নদীর পানি দূষন তদন্তে টালবাহানা
.............................................................................................
সিলেটে অবৈধ ১৩শ’ স্টোন ক্রাশার মেশিন চলছে
.............................................................................................
জলবায়ু রক্ষায় বেসরকারি খাতকে কাজে লাগানোর পরামর্শ আইএফসি’র
.............................................................................................
বরিশালে অবৈধ ইটভাটায় জরিমানা
.............................................................................................
ব্রাক্ষণবাড়ীয়ার সরাইলে ব্যাঙের ছাতার মতো গড়ে উঠেছে ইটভাটা
.............................................................................................
পরিবেশ দূষণ ও শিশুরোগ
.............................................................................................
সড়ক পরিবহন আইন ২০১৫: সংশ্লিষ্টদের মতামত গুরুত্ব না পেলে রিট করবে বাপা
.............................................................................................
সুন্দরবন রক্ষায় খাগড়াছড়িতে মানববন্ধন
.............................................................................................
আগৈলঝাড়ায় পরিবেশ অধিদপ্তর থেকে একটি স-মিল বন্ধ করলেও অজ্ঞাতকারণে অন্যগুলো এখনও চালু
.............................................................................................
পশুর নদীতে কার্গোডুবি: চালকের গাফিলতি ও অদক্ষতাই দায়ী
.............................................................................................
পাবনায় পদ্মা থেকে অবাধে বালু উত্তোলন
.............................................................................................
বরিশাল নগরীর অসংখ্য পুকুর ও খাল ভরাট হয়ে যাচ্ছে
.............................................................................................
রামপাল বিদ্যুৎ প্রকল্প বাতিলের দাবিতে বাম মোর্চার রোডমার্চ
.............................................................................................
চলুন, ৫ মিনিটেই হয়ে যাই তুলসী বিশারদ !
.............................................................................................
সাপের চেয়েও বিষধর ব্যাঙ!
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

সম্পাদক ও প্রকাশক : মোহাম্মদ আখলাকুল আম্বিয়া
নির্বাহী সম্পাদক: মাে: মাহবুবুল আম্বিয়া

সম্পাদকীয় ও বাণিজ্যিক কার্যালয়: স্বাধীনতা ভবন (৩য় তলা), ৮৮ মতিঝিল বাণিজ্যিক এলাকা, ঢাকা-১০০০। Editorial & Commercial Office: Swadhinota Bhaban (2nd Floor), 88 Motijheel, Dhaka-1000.
সম্পাদক কর্তৃক রঙতুলি প্রিন্টার্স ১৯৩/ডি, মমতাজ ম্যানশন, ফকিরাপুল কালভার্ট রোড, মতিঝিল, ঢাকা-১০০০ থেকে মুদ্রিত ও প্রকাশিত ।
ফোন : ০২-৯৫৫২২৯১ মোবাইল: ০১৬৭০৬৬১৩৭৭

Phone: 02-9552291 Mobile: +8801670 661377
ই-মেইল : dailyswadhinbangla@gmail.com , editor@dailyswadhinbangla.com, news@dailyswadhinbangla.com

 

    2015 @ All Right Reserved By dailyswadhinbangla.com

Developed By: Nytasoft