বৃহস্পতিবার, ২৯ অক্টোবর ২০২০ বাংলার জন্য ক্লিক করুন
  
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   আন্তর্জাতিক
  ভারতের `গোপন` সেনাবাহিনীতে কাজ করেন যেসব তিব্বতী
  17, October, 2020, 12:32:58:PM

স্বাধীন বাংলা ডেস্ক :  কয়েক দশক ধরে পাহাড়ি উচ্চতায় যুদ্ধ করার জন্য ভারত তিব্বতী শরণার্থীদের `গোপন` এক ইউনিটে নিয়োগ করছে। সম্প্রতি বাহিনীর এরকম একজন সৈন্যর মৃত্যুর পর এই ইউনিট নিয়ে ব্যাপক আলোচনা হচ্ছে বলে জানাচ্ছেন বিবিসির সংবাদদাতা আমির পীরজাদা।

মৃত সেই সৈনিক নিইমা তেনজিনের পরিবার ঘরের এক কোণে তার ফটোর চারপাশ দিয়ে তেলের বাতি জ্বালিয়ে রেখেছিল, যার উষ্ণ আলোয় আলোকিত তার ছবি। পাশের ঘরে পরিবারের সদস্য, আত্মীয়স্বজন এবং বৌদ্ধ ভিক্ষুরা প্রার্থনা মন্ত্র উচ্চারণ করছিলেন।

কয়েকদিন আগেই ভারতের উত্তর সীমান্তে লাদাখের প্যাংগং সো লেকের কাছে একটি ভূমিমাইন বিস্ফোরণে ৫১ বছর বয়সী এই সৈনিক মারা যান।

এই এলাকায় সাম্প্রতিক কয়েক মাসে ভারতীয় ও চীনা সৈন্যের মধ্যে মুখোমুখি সংঘাত হয়েছে। ভারতীয় সেনা বাহিনীর সূত্রগুলো বিবিসিকে বলেছে যে ১৯৬২ সালে ভারত ও চীনের মধ্যে যখন যুদ্ধ হয়েছিল, সেসময়কার একটি পুরনো মাইন বিস্ফোরিত হয়ে এই ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে।

``অগাস্ট মাসের তিরিশ তারিখ রাত প্রায় সাড়ে দশটার সময় আমি একটা টেলিফোন পাই। আমাকে বলা হয় সে আহত,`` বলছিলেন তেনজিনের ভাই নামদাখ। ``ওরা আমাকে জানায়নি যে তেনজিন মারা গেছে। একজন বন্ধু পরে আমাকে তার মারা যাবার খবরটা নিশ্চিত করে।``

তেনজিনের পরিবারের সদস্যরা বিবিসিকে জানান, তেনজিন ভারতীয় সেনা বাহিনীর বিশেষ একটি গোপন ইউনিট স্পেশাল ফ্রন্টিয়ার ফোর্স (এসএফএফ) এর সদস্য ছিলেন।

এই সীমান্ত বাহিনী গঠিত হয়েছে মূলত তিব্বতী শরণার্থীদের নিয়ে এবং খবরে যা জানা যায় এই বাহিনীর সদস্য সংখ্যা প্রায় সাড়ে তিন হাজার।

নিইমা তেনজিনও একজন তিব্বতী শরণার্থী ছিলেন এবং ভারতীয় সেনা বাহিনীতে তিরিশ বছরের বেশি কাজ করেছেন বলে তার পরিবার জানিয়েছে।

`গোপন` বাহিনী এসএফএফ

এই এসএফএফ সম্পর্কে খুব বেশি জানা যায় না। ভারতীয় কর্মকর্তারা কখনই এই বাহিনীর অস্তিত্বের কথা স্বীকার করেননি।

কিন্তু এটা এমনই একটা গোপন বিষয় যার কথা অনেকেই ভালমত জানেন- বিশেষ করে সামরিক ও পররাষ্ট্র নীতি বিষয়ক বিশেষজ্ঞরা এবং যেসব সাংবাদিক ওই এলাকার খবরাখবর দেন তারা এই `গোপন` বাহিনী সম্পর্কে জানেন।

অথচ, ভারত ও চীনের মধ্যে সংঘাত নিয়ে ক্রমবর্ধমান উত্তেজনার মধ্যে|ই অগাস্টের শেষে তেনজিনের মৃত্যুর পর ভারতীয় সামরিক বাহিনীতে তিব্বতীদের জড়িত থাকার বিষয়টি এই প্রথম প্রকাশ্যে স্বীকার করা হয়েছে।

লাদাখের রাজধানী লে-তে থাকতেন নিইমি তেনজিন। লে-র মানুষ এবং সেখানকার তিব্বতী সম্প্রদায় একসাথে মিলে তেনজিনকে শেষ বিদায় জানিয়েছে। একুশ বার তোপধ্বনিসহ পূর্ণ সামরিক মর্যাদায় বিশালভাবে তার শেষকৃত্য সম্পন্ন হয়েছে।

বিজেপির উর্ধ্বতন নেতা রাম মাধব এই শেষকৃত্য অনুষ্ঠানে যোগ দেন এবং তেনজিনের কফিনের ওপর পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন।

ওই কফিন ভারত ও তিব্বতের পতাকা দিয়ে ঢাকা ছিল এবং সেনাবাহিনীর ট্রাকে করে কফিনটি তার বাসায় নিয়ে যাওয়া হয়।

মি. মাধব এমনকি টুইট করে মি. তেনজিনকে এসএফএফ-এর সদস্য হিসাবে বর্ণনা করেছিলেন এবং তার বার্তায় বলেছিলেন লাদাখে ভারতীয় সীমান্ত "প্রতিরক্ষায় জীবন দিলেন একজন তিব্বতী"। তবে পরে তিনি এই টুইটটি মুছে দেন। মুছে দেয়া টুইটে তিনি ওই সীমান্ত এলাকাকে ভারত-চীন সীমান্ত এলাকা না বলে ভারত-তিব্বত সীমান্ত বলে উল্লেখ করেছিলেন।

সরকার এবং সেনাবাহিনী আনুষ্ঠানিকভাবে কোন বিবৃতি না দিলেও ওই শেষকৃত্য অনুষ্ঠানের খবর ভারতের জাতীয় সংবাদমাধ্যমে ব্যাপকভাবে প্রকাশ করা হয়েছে। অনেক সংবাদমাধ্যম একে উল্লেখ করেছে চীনের উদ্দেশ্যে ``কঠোর ইঙ্গিত`` এবং ``জোরালো বার্তা`` হিসাবে।

``এতদিন পর্যন্ত এর (এসএফএফ) কথা গোপন ছিল, কিন্তু এখন যে এটা স্বীকার করা হলো তাতে আমি খুবই খুশি,`` বলেন নামদাখ তেনজিন।

``যারা সেনা বাহিনীতে কাজ করছে তাদের নাম জানানো এবং তাদের সমর্থন করা উচিত।"

``আমরা ১৯৭১ সালেও যুদ্ধ করেছি, তখনও আমাদের কথা গোপন রাখা হয়েছিল, এরপর ১৯৯১ সালে কারগিলে আমরা পাকিস্তানের বিরুদ্ধে লড়াই করেছি, সে কথাও গোপন রাখা হয়। কিন্তু এখন এই প্রথমবারের মত বিষয়টা স্বীকার করা হলো। আমি এতে খুবই খুশি হয়েছি।``

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ১৯৬২ সালে ভারত ও চীনের মধ্যে যুদ্ধের পরই এই এসএফএফ বাহিনী গড়ে তোলা হয়।

``উদ্দেশ্য ছিল যেসব তিব্বতী ভারতে পালিয়ে গিয়েছিল, যাদের উঁচু পাহাড়ে গেরিলা যুদ্ধের অভিজ্ঞতা ছিল, বা যারা `চুশি গানদ্রুক` নামে তিব্বতের গেরিলা বাহিনীর সদস্য ছিল তাদের ভারতীয় বাহিনীতে নিয়োগ করা। এই বাহিনী ১৯৬০এর দশকের গোড়ার দিক পর্যন্ত চীনের বিরুদ্ধে গেরিলা যুদ্ধ চালিয়েছে,`` বলছেন তিব্বতী সাংবাদিক ও চিত্র নির্মাতা কালসাং রিনচেন।

১৯৫৯ সালে চীন-বিরোধী এক ব্যর্থ অভ্যুত্থানের পর ১৪-তম দালাই লামা তিব্বত থেকে ভারতে পালিয়ে যান এবং ভারতে একটি নির্বাসিত সরকার গড়ে তোলেন। তিনি এখনও ভারতেই বসবাস করেন। হাজার হাজার তিব্বতী তাকে অনুসরণ করে তিব্বত থেকে ভারতে পালিয়ে যান এবং ভারতে শরণার্থী হিসাবে আশ্রয় নেন।

এসএফএফ ও আমেরিকা

দালাই লামা এবং তার সাথে ভারতে পালিয়ে যাওয়া তিব্বতী শরণার্থীদের প্রতি ভারতের সমর্থন দ্রুতই ভারত ও চীনের মধ্যে দ্বন্দ্বের জন্ম দেয়।

১৯৬২ সালে চীন-ভারত যুদ্ধে ভারতের শোচনীয় পরাজয় উত্তেজনা আরও বাড়িয়ে তোলে।

ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থার তৎকালীন প্রধান বি এন মল্লিক সিআইএ-র সহায়তায় এই এসএফএফ বাহিনী গড়ে তোলেন বলে খবরে জানা যায়।

এই বাহিনী গড়ে তোলার পেছনে আমেরিকার ভূমিকা কতটা ব্যাপক ছিল তা নিয়ে বিতর্ক রয়েছে।

কোন কোন সূত্র বলে, এটা পুরোই ভারতীয় উদ্যোগ ছিল, কিন্তু এর পেছনে আমেরিকার "পূর্ণ অনুমোদন" ছিল। অন্যরা বলে থাকেন, প্রায় ১২ হাজার তিব্বতীকে আমেরিকার বিশেষ বাহিনী প্রশিক্ষণ দিয়েছিল এবং এই বাহিনী গঠনের আংশিক তহবিল জুগিয়েছিল আমেরিকা।

"বেশিরভাগ প্রশিক্ষণ আমেরিকানরা দিয়েছিল," বিবিসিকে বলেছেন জাম্পা নামে একজন তিব্বতী শরণার্থী, যিনি ১৯৬২ সালে এসএফএফ-এ যোগ দিয়েছিলেন।

"সেখানে সিআইএ-র একজন ছিলেন, যিনি ভাঙা ভাঙা হিন্দি বলতেন। তিনি আমাদের মধ্যে চারজন হিন্দি জানত, তাদের ট্রেনিং দিয়েছিলেন। আমরা বেশিরভাগই হিন্দি বুঝতাম না। ওই চারজন পরে আমাদের ট্রেনিং দেয়।"

প্রথম দিকে এই বাহিনীতে শুধু তিব্বতীদেরই নিয়োগ করা হয়েছিল। পরে তিব্বতী নয়, এমন লোকও বাহিনীতে নেয়া হয়। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বরাবরই এই ইউনিট সরাসরি কেন্দ্রীয় ক্যাবিনেটের অধীন ছিল এবং সবসময়ই বাহিনীর প্রধান ছিলেন একজন উচ্চপদস্থ সামরিক কর্মকর্তা।

চীন থেকে গোয়েন্দা তথ্য সংগ্রহ

"বাহিনী মূল উদ্দেশ্য ছিল চীনের সাথে চোরাগোপ্তা লড়াই করা এবং চীন থেকে গোয়েন্দা তথ্য সংগ্রহ," বলছেন মি. রিনচেন।

চীন এসএফএফ-এর অস্তিত্ব অস্বীকার করে।

"ভারতীয় সশস্ত্র বাহিনীতে নির্বাসিত তিব্বতীরা আছে এমন তথ্য আমাদের জানা নেই। ভারতীয়দের এ প্রশ্ন করতে পারেন," সম্প্রতি এক সংবাদ সম্মেলেনে একথা বলেছেন চীনা মুখপাত্র হুয়া চুনইং।

"চীনের অবস্থান খুবই পরিষ্কার। তিব্বতের স্বাধীনতার জন্য কোন বাহিনীকে বিচ্ছিন্নতাকামী কার্যকলাপ চালাতে কোনরকম সুবিধা করে দেবার কোন প্রচেষ্টা কোন দেশ নিলে আমরা দৃঢ়তার সাথে তার বিরোধিতা করব," ওই মুখপাত্র বলেন।

চীন এখনও তিব্বতকে চীনের অধীনে একটি স্বায়ত্ত্বশাসিত এলাকা বলে বিবেচনা করে। জুন মাসে চীন ও ভারতের মধ্যে সীমান্ত সংঘাতে বিশ জন ভারতীয় সেনা নিহত হবার পর থেকে ভারতের সাথে চীনের সম্পর্কের অবনতি হয়েছে । ভারত বলেছে, ওই সংঘাতে চীনা সৈন্যও মারা গেছে, কিন্তু চীন এ বিষয়ে কোন মন্তব্য করেনি।

দুই দেশের মধ্যে স্পষ্টভাবে চিহ্ণিত সীমানা না থাকার কারণে দুই দেশের দীর্ঘ সীমান্ত সংঘাত থেকে থেকেই মাথা চাড়া দিয়ে ওঠে।

নিইমি তেনজিনের মৃত্যুর পর সামরিক মর্যাদায় তার শেষকৃত্য আয়োজন করে এসএফএফ বাহিনীর অস্তিত্বকে যে প্রচ্ছন্নভাবে স্বীকৃতি দিয়েছে তার প্রভাব কী হবে এবং চীনের সাথে ভারতের দীর্ঘদিনের বৈরি সম্পর্কের ওপরই বা তার কী প্রভাব পড়বে - সেটা স্পষ্ট নয়।

তবে ভারতে যে ৯০ হাজার তিব্বতী বাস করেন তার মধ্যে এই ঘটনার পর উদ্বেগ বেড়েছে।

তেনজিনের পরিবারের সদস্যরা এই স্বীকৃতি পাওয়ায় খুশি হলেও, যেসব তিব্বতী একদিন স্বদেশভূমিতে ফিরে যেতে চান, তারা এই স্বীকৃতির দীর্ঘমেয়াদী প্রভাব কী হয়, তা নিয়ে কিছুটা অস্বস্তির মধ্যে রয়েছে। সূত্র : বিসিসি

স্বাধীন বাংলা/জ উ আহমাদ



   শেয়ার করুন
   আপনার মতামত দিন
     আন্তর্জাতিক
অবৈধ ইহুদি বসতি নির্মাণে আমেরিকার বিনিয়োগ নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার
.............................................................................................
পশ্চিমারা আবার ক্রুসেড শুরু করতে চায় : এরদোগান
.............................................................................................
চীনা ভ্যাকসিন হাতে পেয়েছে মোসাদ : ইসরাইলি গণমাধ্যম
.............................................................................................
পদত্যাগের দাবি উপেক্ষা করে ক্ষমতায় থাকবেন থাই প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
চীন-ভারত বিবাদে তৃতীয় পক্ষের জায়গা নেই : আমেরিকাকে চীন
.............................................................................................
আমেরিকা-ভারত সামরিক চুক্তি করেছে, পাকিস্তানের হুঁশিয়ারি
.............................................................................................
আফগানিস্তানে ৯ মাসে ছয় হাজার বেসামরিক নাগরিক হতাহত
.............................................................................................
আজারবাইজান-আর্মেনিয়া সীমান্তে ইরানের ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা
.............................................................................................
আজারবাইজানের হামলায় কারাবাখের প্রতিরক্ষামন্ত্রী আহত
.............................................................................................
এবার শার্লি এব্দোর প্রচ্ছদে এর্দোয়ানের কার্টুন
.............................................................................................
সৌদি কারাগার : নারী মানবাধিকার নেত্রীর আমরণ অনশন
.............................................................................................
করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাব : জার্মানিতে আবার লকডাউন?
.............................................................................................
ম্যাকরনকে মুসলিম বিশ্বের কাছে ক্ষমা চাওয়ার আহ্বান লিবিয়ার
.............................................................................................
‘নিষেধাজ্ঞা দিয়ে ইরানের তেল শিল্পের ক্ষতি করা যাবে না’
.............................................................................................
‘ফরাসি পণ্য বয়কট করুন’ : তুর্কি জনগণের প্রতি এরদোগান
.............................................................................................
ফ্রান্স যেন আরো কঠিন প্রতিক্রিয়ার অপেক্ষায় থাকে : আইআরজিসি
.............................................................................................
ইসলাম নিয়ে ম্যাক্রঁর মন্তব্যে বাংলাদেশে কি ফরাসীদের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ হবে?
.............................................................................................
মাক্রোঁর সমালোচনায় ইরান
.............................................................................................
সৌদি আরবের আবহা বিমানবন্দরে আবারো ড্রোন হামলা
.............................................................................................
ফ্রান্স সরকার আরেকবার শয়তানি চরিত্র স্পষ্ট করেছে : ইরানের সংসদ
.............................................................................................
আরও একটি শহর উদ্ধারের দাবি করল আজারবাইজান
.............................................................................................
সৌদি নেতৃত্বাধীন জোট আল-কায়েদার সঙ্গে কাজ করছে : ইয়েমেন
.............................................................................................
সিবিএস নিউজের সাক্ষাৎকারে ৬০ মিনিটে ১৬টি মিথ্যা বলেছেন ট্রাম্প : সিএনএন
.............................................................................................
মার্কিন নির্বাচন : প্রচারের শেষ সপ্তাহে মরিয়া ট্রাম্প-বাইডেন
.............................................................................................
ম্যাক্রনকে কঠোর সমালোচনা করলেন ইমরান খান
.............................................................................................
ম্যাকরনের ইসলামবিদ্বেষী বক্তব্যের জবাব দিল ইরান
.............................................................................................
মহানবী (স)-কে অবমাননা করা বাকস্বাধীনতা নয় : হিজবুল্লাহ
.............................................................................................
কোরআনে অগ্নিসংযোগ ও কার্টুন প্রকাশ ইউরোপে ইসলাম বিদ্বেষের বহিঃপ্রকাশ
.............................................................................................
ভারতে করোনায় আক্রান্ত আরও ৫০ হাজার, পশ্চিমবঙ্গে এ পর্যন্ত ৫৭ চিকিৎসকের মৃত্যু
.............................................................................................
ম্যাক্রঁকে `মানসিক চিকিৎসা` করাতে বলায় এরদোয়ানের প্রতি ফ্রান্সের ক্ষোভ
.............................................................................................
`এতকিছুর পরেও ঝুলে থাকলো আমিরাত`
.............................................................................................
বেলফোর ঘোষণার জন্য ব্রিটেনের বিরুদ্ধে মামলা করেছে ফিলিস্তিন
.............................................................................................
সিরিয়ায় মার্কিন ড্রোন হামলা, নিহত ১৭
.............................................................................................
স্যামসাং ইলেকট্রনিকসের চেয়ারম্যান লি কুন-হি মারা গেছেন
.............................................................................................
মহিলাকে ধর্ষণ করে খুনের চেষ্টা, শ্রীঘরে যুবক ও কিশোর
.............................................................................................
তুরস্কে যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তাদের সন্ত্রাসী হামলার ব্যাপারে হুঁশিয়ারি
.............................................................................................
মহানবীকে(সা.) অবমাননা: ফ্রান্সের পণ্য বর্জনের ডাক কুয়েতে
.............................................................................................
কাশ্মীর সীমান্তে পাকিস্তানের কপ্টার ভূপাতিত করল ভারতীয় বাহিনী
.............................................................................................
তুরস্ককে মারাত্মক পরিণতি বরণ করতে হবে : আমেরিকার হুঁশিয়ারি
.............................................................................................
ব্যারিস্টার রফিক-উল হকের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক
.............................................................................................
শীতকালে আমেরিকায় মারা যেতে পারে লাখ লাখ মানুষ
.............................................................................................
‘আর্মেনিয়া ও আজারবাইজান সীমান্তে নিরাপত্তা জোরদার করেছে ইরান’
.............................................................................................
আমেরিকার রাজনৈতিক লড়াইয়ে নারীদের সামনে যে সব সমস্যা
.............................................................................................
শুধুমাত্র আত্মরক্ষার উদ্দেশ্যেই কোনো দেশ ইরান থেকে অস্ত্র কিনতে পারবে
.............................................................................................
আজারবাইজানের কাছে আত্মসমর্পন করল আর্মেনিয়ার মেজর
.............................................................................................
ইরানে অনুষ্ঠিত হচ্ছে বিশাল আকাশ প্রতিরক্ষা মহড়া
.............................................................................................
‘আজারবাইজান ও আর্মেনিয়া চাইলেই তুরস্ক মধ্যস্থতায় আসতে পারে’
.............................................................................................
নাগর্নো-কারাবাখ : যুদ্ধে নিহত অন্তত ৫ হাজার
.............................................................................................
মার্কিন অভিযোগের জবাব দিতে তেহরানে নিযুক্ত সুইস রাষ্ট্রদূতকে তলব
.............................................................................................
ইরান সম্পর্কে আবার বিলাসী চিন্তা উগড়ে দিলেন ট্রাম্প
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

সম্পাদক ও প্রকাশক : মোহাম্মদ আখলাকুল আম্বিয়া
নির্বাহী সম্পাদক: মাে: মাহবুবুল আম্বিয়া
যুগ্ম সম্পাদক: প্রদ্যুৎ কুমার তালুকদার

সম্পাদকীয় ও বাণিজ্যিক কার্যালয়: স্বাধীনতা ভবন (৩য় তলা), ৮৮ মতিঝিল বাণিজ্যিক এলাকা, ঢাকা-১০০০। Editorial & Commercial Office: Swadhinota Bhaban (2nd Floor), 88 Motijheel, Dhaka-1000.
সম্পাদক কর্তৃক রঙতুলি প্রিন্টার্স ১৯৩/ডি, মমতাজ ম্যানশন, ফকিরাপুল কালভার্ট রোড, মতিঝিল, ঢাকা-১০০০ থেকে মুদ্রিত ও প্রকাশিত ।
ফোন : ০২-৯৫৫২২৯১ মোবাইল: ০১৬৭০৬৬১৩৭৭

Phone: 02-9552291 Mobile: +8801670 661377
ই-মেইল : dailyswadhinbangla@gmail.com , editor@dailyswadhinbangla.com, news@dailyswadhinbangla.com

 

    2015 @ All Right Reserved By dailyswadhinbangla.com

Developed By: Dynamic Solution IT