মঙ্গলবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি 2020 | বাংলার জন্য ক্লিক করুন
  
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   কৃষি
  সুনামগঞ্জে পাউবো’র দূর্নীতিতে তলিয়ে গেছে ২হাজার কোটি টাকার ফসল
  4, May, 2016, 5:17:22:PM


নুর উদ্দিন, ছাতক, (সুনামগঞ্জ): লক্ষ্যমাত্রা ছিল ২ হাজার ৮শ’ কোটি টাকার ফসল ঘরে তুলবেন সুনামগঞ্জের কৃষক। ২ হাজার কোটি টাকার ফসলই তলিয়ে গেছে পানিতে। শনির হাওরেই তলিয়ে গেছে আড়াই শ’ কোটি টাকার ফসল। অসময়ের বৃষ্টি যতটা না দায়ী তার চেয়ে বেশি দায় সংশ্লিষ্ট সরকারি কর্তৃপক্ষের। তাদের গাফিলতির কারণেই সুনামগঞ্জে কৃষকের ঘরে ঘরে হাহাকার। নিজেদের লাভের হিসাব মেলাতে গিয়ে তারা পানিতে ভাসিয়ে দিয়েছেন সুনামগঞ্জের স্বপ্ন, বেঁচে থাকার অবলম্বন। কাঁচা টাকায় কর্তাদের পকেট ভারি হয়েছে কিন্তু চোখে ঘোর অন্ধকার দেখছেন সুনামগঞ্জের ১২০টি হাওরকে কেন্দ্র করে বেঁচে থাকা ২০ লাখ মানুষ। সময়মতো বাঁধের কাজ শেষ না হওয়ায় হাওরে পানি ঢুকে সর্বনাশ ঘটেছে এক ফসল নির্ভর হাওর বেষ্টিত এ জনপদের। হাওর রক্ষার উদ্যোগ যথাসময়ে শুরু হলেও কর্তৃপক্ষের গাফিলতির কারণে এ চরম সর্বনাশ ঘটেছে। হাওর রক্ষার্থে ২০১৫ সালের ১৭ আগস্ট থেকে ৮ই সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সময়ে সুনামগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) পর্যায়ক্রমে ৮২টি গ্রুপে ৩৯ কোটি টাকার দরপত্র আহ্বান করে। প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির (পিআইসি) মাধ্যমে ১৫ কোটি টাকার বাঁধ নির্মাণের কাজ করানো হয়। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানগুলো নির্ধারিত সময়ের মধ্যে দরপত্র দাখিল করলেও কার্যাদেশের সিদ্ধান্ত দিতে কালক্ষেপন করতে থাকে পাউবো। এ সময়ের মধ্যে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চলে কাজ প্রদানের ‘দরদাম’। প্রতিটি কাজের বিপরীতে অর্থ দিয়ে কার্যাদেশের ছাড়পত্র নিতে হয় ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানগুলোকে। দরদামে ৪-৫ মাস সময় চলে যায়। ২০শে জানুয়ারি কাজের ছাড়পত্র দিলেও নিজেদের বাঁচাতে পাউবো কর্তারা কার্যাদেশে পেছনের তারিখ দেখান। সংবাদ সম্মেলনের পাশাপাশি বিভিন্ন উপায়ে পাউবোর এ সকল অনিয়মের প্রতিবাদ করেন ঠিকাদাররা। পাউবোর নির্বাহী প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে অর্থের বিনিময়ে কাজ দেয়ার অভিযোগ উঠে। এরই মাঝে পাউবো ৩১শে জানুয়ারি থেকে ৪ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত সময়ে পর্যায়ক্রমে আরও ২৮টি গ্রুপের দরপত্র আহ্বান করে। এই দরপত্রের সিদ্ধান্ত নিতে নিতেই বৃষ্টি শুরু হয় এবং একে একে হাওরে পানি ঢুকতে থাকে। সে পানিই গিলে খেতে থাকে হাওরের সোনালি ফসল। একের পর এক তলিয়ে যেতে থাকে হাওরের ধান। হাওর অধ্যুষিত এলাকা হওয়ায় সুনামগঞ্জে বোরো ফসলই বেঁচে থাকার একমাত্র অবলম্বন। সুনামগঞ্জের বেঁচে থাকার এ অবলম্বনকে রক্ষা করতে না পারায় পাউবো, বাঁধের কাজের ঠিকাদার ও পিআইসির অনিয়ম-দুর্নীতিকে দায়ী করছেন স্থানীয় কৃষকরা। নিজেদের লাভের হিসাব মেলাতে গিয়ে কার্যাদেশ দিতে বিলম্ব করে পাউবো। এ কারণে কাজ শুরুতেই দেরি হয়ে যায় আর শেষ করার আগেই পানি ঢুকে পড়ে হাওরে হাওরে। অভিযোগ আসে ঠিকাদাররা নিয়ম না মেনে বাঁধের গোড়া থেকে মাটি তুলে ফেলায় সর্বনাশ আরো তরান্বিত হয়। বাঁধ নির্মাণে অনিয়ম ও দুর্নীতি হয়েছে সরকার দলীয় নেতারাই তা স্বীকার করছেন। সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মতিউর রহমান নিজের বাসায় সংবাদ সম্মেলন ডেকে বাঁধ নির্মাণে সংশ্লিষ্টদের অনিয়ম-দুর্নীতি ও গাফিলতির অভিযোগ করেন। তিনি কাজে ব্যাপক দুর্নীতির অভিযোগ এনে বলেন, সুনামগঞ্জে বাঁধের কাজে এবারই বরাদ্দ সবচেয়ে বেশি এসেছে, কিন্তু কাজ হয়েছে সবচেয়ে কম। তিনি এ সকল দুর্নীতি ও অনিয়মের তদন্ত দাবি করেন। বাঁধ ভেঙে পানি ঢুকে পড়ায় জামালগঞ্জ ও তাহিরপুর এ দুই উপজেলাজুড়ে বিস্তৃত শনির হাওর, দিরাই উপজেলার চাপতির হাওর, উদগল, কালিকোটা, কেজাউড়া, জামালগঞ্জ উপজেলার হালির হাওর, পাকনার হাওর, জগন্নাথপুর উপজেলার নলুয়ার হাওর, ধর্মপাশা উপজেলার চন্দ্রসোনারতাল, শাল্লা উপজেলার ছায়ার হাওর, ছাতক ও দোয়ারাবাজার উপজেলাজুড়ে বিস্তৃত দেখার হাওরসহ জেলার বেশিরভাগ হাওরের ফসলই কমবেশি তলিয়ে গেছে। কৃষক ও ক্ষতিগ্রস্থদের দাবি হাওরে পানি প্রবেশের ফলে সুনামগঞ্জের ৬০ থেকে ৭০ ভাগ ফসলই ধ্বংস হয়ে গেছে। তবে নিজেদের দায় কমাতে পাউবো ও কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের হিসাবে ফসলের ক্ষতির পরিমাণ দেখানো হচ্ছে ২০ থেকে ৩০ ভাগ। শনির হাওরের ঝালখালী ও লালুর গোয়ালাবাঁধ ও পাউবোর হাওর রক্ষা বাঁধ ভেঙে তলিয়ে গেছে ১২ হাজার হেক্টর ভূমির বোরো ফসল। পানিতে শনির হাওরের ৯৯ ভাগ ফসলই তলিয়ে গেলেও পাউবো বলছে অন্য কথা। হাওর পরিদর্শন করে সিলেটের বিভাগীয় কমিশনার মোহাম্মদ জামাল উদ্দিন আহমদও ক্ষতির পরিমাণ বিশাল বলেই মন্তব্য করেছেন। তার হিসেবে ক্ষতির পরিমাণ আড়াই শ’ কোটি টাকা। জামালগঞ্জ ও তাহিরপুর দুই উপজেলাজুড়ে বিস্তৃত শনির হাওরের ফসল রক্ষার লক্ষ্যে বাঁধ মেরামত ও নির্মাণে পিআইসির মাধ্যমে বরাদ্দ ছিল ৪১ লাখ এবং দরপত্রের মাধ্যমে কাজ দেয়া হয় ১ কোটি ১০ লাখ টাকার। তবে ক্ষতিগ্রস্থরা বলছেন শনির হাওরে সব মিলিয়ে অর্ধকোটি টাকার বেশি কাজ হয়নি। জামালগঞ্জের হালির হাওরের বাঁধ মেরামত ও নির্মাণের জন্য দরপত্র ও পিআইসির মাধ্যমে দুই কোটি ৬১ লাখ টাকা বরাদ্দ এলেও ব্যয় হয়নি ১ কোটি টাকাও। একই উপজেলার পাকনার হাওরের ১ কোটি ৯০ লাখ টাকা বরাদ্দের বিপরীতে ৫০ লাখ টাকার কাজ হয়নি। দিরাই উপজেলার বরাম হাওরে ১ কোটি ৯০ লাখ টাকা বরাদ্দের বিপরীতে কাজ হয়েছে ৫০ লাখেরও কম টাকার। একই উপজেলার চাপতির হাওর রায় ১ কোটি এক লাখ টাকা বরাদ্দ থাকলেও কাজ হয়নি অর্ধেক টাকারও। আর অসময়ে কাজ করায় এ টাকাগুলোও গচ্ছা গেছে।



সংবাদটি পড়া হয়েছে মোট : 560        
   শেয়ার করুন
Share Button
   আপনার মতামত দিন
     কৃষি
সমন্বিত সবজি চাষে সচ্ছল কৃষক
.............................................................................................
উচ্চ ফলনশীল ধানের ৩ টি নতুন জাত উদ্ভাবন করেছে ‘ব্রি’
.............................................................................................
দিনাজপুরে ধান কাটা শুরু
.............................................................................................
অভয়নগরে বোরো বীজ ধানের সংকট
.............................................................................................
লংগদুতে কৃষি প্রনোদনা প্রদান
.............................................................................................
হাওরে ছত্রাকজনিত ব্লাস্টের আক্রমণ, দিশেহারা কৃষক
.............................................................................................
ক্ষুদ্র কৃষি ঋণ নিয়ে বিপাকে কৃষক ও সংশ্লিষ্ট ব্যাংক
.............................................................................................
ছাতকে টমেটো চাষে সফল ‌‌টমেটো বক্কর
.............................................................................................
পলাশে সোনালী ধানের মৌ মৌ গন্ধ
.............................................................................................
গোপালগঞ্জে আমন ধানের বাম্পার ফলন: কৃষকের মুখে সোনালী হাসি
.............................................................................................
বরিশালের সাতলা-বাগধা সেচ প্রকল্প এখন কৃষকের গলার কাঁটা
.............................................................................................
বরিশালে আমড়ার বাম্পার ফলন
.............................................................................................
পার্বতীপুরে প্রান্তিক কৃষকদের মাঝে বিনামূল্যে বীজ ও সার বিতরণ
.............................................................................................
পার্বতীপুরে আগাম হাইব্রীড এসিআই আমন ধান কাটা শুরু
.............................................................................................
পাট নিয়ে বিপাকে নীলফামারীর চাষিরা
.............................................................................................
পাটের মূল্য ২হাজার ৫শত টাকার দাবিতে ঝিনাইদহে মানববন্ধন
.............................................................................................
পাটের বাম্পার ফলন: পাবনায় ফিরে আসছে পাটের হারানো ঐতিহ্য
.............................................................................................
ছাতকের মানিকপুরে লিচুর বাম্পার ফলন
.............................................................................................
ব্রাহ্মণবাড়ীয়ায় লিচু উৎপাদনে বিপর্যয়; চাষীরা বিপাকে
.............................................................................................
ভুরুঙ্গামারীতে কৃষক ফলন দিবস অনুষ্টিত
.............................................................................................
নিম্নমানের বীজ: ডিমলায় সহস্রাধিক বিঘা জমিতে ভুট্টার গাছ আছে, দানা নেই
.............................................................................................
নোয়াখালীর হাতিয়া ও সূবর্ণচরে অর্ধলক্ষ হেক্টর রোপা আমন নষ্ট
.............................................................................................
ভিটামিন ‘এ’ সমৃদ্ধ সোনালী ধান উৎপাদনে বাংলাদেশ
.............................................................................................
পাবনায় এ বছর রোপা আমনের বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা
.............................................................................................
ছাতকের লিচুর গ্রাম মানিকপুর: বাম্পার ফলনে খুশি চাষীরা
.............................................................................................
সুনামগঞ্জে পাউবো’র দূর্নীতিতে তলিয়ে গেছে ২হাজার কোটি টাকার ফসল
.............................................................................................
দেশে আলুর বাম্পার ফলন কোটি টন উৎপাদন সম্ভাবনা
.............................................................................................
ধানের দাম কম হওয়ায় দুশ্চিন্তায় হাওরের কৃষকরা
.............................................................................................
নাটোরে মসুরের বাম্পার ফলন
.............................................................................................
বোদায় পিয়াজ চাষ বৃদ্ধি পেয়ে
.............................................................................................
চন্দনাইশে আলুর বাম্পার ফলন
.............................................................................................
মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে বারটি গ্রামে বোরো আবাদ অনিশ্চিত
.............................................................................................
মানসম্মত রেনুর ঘাটতি: গলদার উৎপাদন ব্যাহত
.............................................................................................
আমন ধানের বাম্পার ফলনেও কৃষকের মুখে হাসি নেই
.............................................................................................
কৃষকের কাছ থেকে ধান কেনার দাবিতে মানববন্ধন
.............................................................................................
শেষ সময়ে আলুর দাম বৃদ্ধিতে কৃষকের মুখে হাসি
.............................................................................................
ধানের ন্যায্য দাম নিয়ে দুশ্চিন্তায় কৃষকরা
.............................................................................................
আধুনিক বোরো ধানের চাষ
.............................................................................................
ডিমের উৎপাদন বাড়ানোর কলাকৌশল
.............................................................................................
ঝালকাঠিতে আমন ধানে পাতাবটা পোকার আক্রমণ
.............................................................................................
ধান গাছে পোকা: কৃষকের মাথায় হাত
.............................................................................................
কুড়িগ্রামের আদর্শ খামারী প্রকৃতি প্রেমিক আব্দুল হামিদ
.............................................................................................
শীতের সবজিতেই ঘুরে দাঁড়াতে চান বগুড়ার কৃষকরা
.............................................................................................
ঝিনাইগাতীর উত্তরে আমন ধানের বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা
.............................................................................................
বোরো চাল উৎপাদনে রেকর্ড
.............................................................................................
কলার বাম্পার ফলনে চাষী লতিফের পরিবারে আনন্দের বন্যা
.............................................................................................
দেড় লাখ হেক্টর জমির শস্য পানির নিচে
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

সম্পাদক ও প্রকাশক : মোহাম্মদ আখলাকুল আম্বিয়া
নির্বাহী সম্পাদক: মাে: মাহবুবুল আম্বিয়া
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক: প্রদ্যুৎ কুমার তালুকদার

সম্পাদকীয় ও বাণিজ্যিক কার্যালয়: স্বাধীনতা ভবন (৩য় তলা), ৮৮ মতিঝিল বাণিজ্যিক এলাকা, ঢাকা-১০০০। Editorial & Commercial Office: Swadhinota Bhaban (2nd Floor), 88 Motijheel, Dhaka-1000.
সম্পাদক কর্তৃক রঙতুলি প্রিন্টার্স ১৯৩/ডি, মমতাজ ম্যানশন, ফকিরাপুল কালভার্ট রোড, মতিঝিল, ঢাকা-১০০০ থেকে মুদ্রিত ও প্রকাশিত ।
ফোন : ০২-৯৫৫২২৯১ মোবাইল: ০১৬৭০৬৬১৩৭৭

Phone: 02-9552291 Mobile: +8801670 661377
ই-মেইল : dailyswadhinbangla@gmail.com , editor@dailyswadhinbangla.com, news@dailyswadhinbangla.com

 

    2015 @ All Right Reserved By dailyswadhinbangla.com

Developed By: Nytasoft