বৃহস্পতিবার, ৮ ডিসেম্বর 2022 বাংলার জন্য ক্লিক করুন
  
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   রাজনীতি -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
গ্রহণযোগ্য প্রস্তাব না দিলে নয়াপল্টনে সমাবেশ হবে : মির্জা আব্বাস

স্টাফ রিপোর্টার : বিএনিপর স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস বলেছেন, আগামী ১০ ডিসেম্বর ঢাকা বিভাগীয় গণসমাবেশ নয়াপল্টনে করতে দেওয়া না হলে সরকারকেই গ্রহণযোগ্য বিকল্প প্রস্তাব দিতে হবে। তিনি বলেছেন, সরকার যদি বিকল্প গ্রহণযোগ্য প্রস্তাব না দেয় তাহলে নয়াপল্টনেই আমাদের সমাবেশ হবে।

বুধবার দুপুরে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।

মির্জা আব্বাস বলেন, আমাদের কর্মসূচি হবে শান্তিপূর্ণ। আমরা নয়াপল্টনে সমাবেশের কথা বলেছি। এখন বিকল্প প্রস্তাব দিতে হলে সরকারকে দিতে হবে। সরকারকে গ্রহণযোগ্য বিকল্প প্রস্তাব দিতে হবে।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, পুলিশ তাদের দায়িত্ব পালন করবে, আমরা আমাদের কাজ করব। তবে আশা করব প্রশাসন দলীয় আচরণ করবে না। সব ভয় উপেক্ষা করে আমাদের নেতাকর্মীরা পল্টনে আসছেন।

মির্জা আব্বাস বলেন, আওয়ামী লীগের সমাবেশের সময় গুলিস্তান অফিসের সামনের সড়ক বন্ধ থাকে। পুলিশ তখন জনগণের চলাচলের জন্য রাস্তার ম্যাপ দিয়ে দেয়। আমাদের সমাবেশেও পুলিশ সেরকম ম্যাপ দিয়ে দেবে।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও ঢাকা উত্তরের আহ্বায়ক আমান উল্লাহ আমান, ঢাকা দক্ষিণের আহ্বায়ক আব্দুস সালাম, যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী, সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সালাম আজাদ, স্বেচ্ছাসেবক বিষয়ক সম্পাদক মীর শরাফত আলী সপু প্রমুখ।

গ্রহণযোগ্য প্রস্তাব না দিলে নয়াপল্টনে সমাবেশ হবে : মির্জা আব্বাস
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : বিএনিপর স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস বলেছেন, আগামী ১০ ডিসেম্বর ঢাকা বিভাগীয় গণসমাবেশ নয়াপল্টনে করতে দেওয়া না হলে সরকারকেই গ্রহণযোগ্য বিকল্প প্রস্তাব দিতে হবে। তিনি বলেছেন, সরকার যদি বিকল্প গ্রহণযোগ্য প্রস্তাব না দেয় তাহলে নয়াপল্টনেই আমাদের সমাবেশ হবে।

বুধবার দুপুরে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।

মির্জা আব্বাস বলেন, আমাদের কর্মসূচি হবে শান্তিপূর্ণ। আমরা নয়াপল্টনে সমাবেশের কথা বলেছি। এখন বিকল্প প্রস্তাব দিতে হলে সরকারকে দিতে হবে। সরকারকে গ্রহণযোগ্য বিকল্প প্রস্তাব দিতে হবে।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, পুলিশ তাদের দায়িত্ব পালন করবে, আমরা আমাদের কাজ করব। তবে আশা করব প্রশাসন দলীয় আচরণ করবে না। সব ভয় উপেক্ষা করে আমাদের নেতাকর্মীরা পল্টনে আসছেন।

মির্জা আব্বাস বলেন, আওয়ামী লীগের সমাবেশের সময় গুলিস্তান অফিসের সামনের সড়ক বন্ধ থাকে। পুলিশ তখন জনগণের চলাচলের জন্য রাস্তার ম্যাপ দিয়ে দেয়। আমাদের সমাবেশেও পুলিশ সেরকম ম্যাপ দিয়ে দেবে।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও ঢাকা উত্তরের আহ্বায়ক আমান উল্লাহ আমান, ঢাকা দক্ষিণের আহ্বায়ক আব্দুস সালাম, যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী, সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সালাম আজাদ, স্বেচ্ছাসেবক বিষয়ক সম্পাদক মীর শরাফত আলী সপু প্রমুখ।

জয়পুরহাটে যুবদলের বিক্ষোভ মিছিল
                                  

রাকিবুল হাসান রাকিব, জয়পুরহাট:
বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী যুবদলের কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সভাপতি সুলতান সালাউদ্দিন টুকু ও সহ-সভাপতি নূরুল ইসলাম নয়নকে গ্রেফতারের প্রতিবাদে জয়পুরহাট জেলা যুবদল  বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে।
 
মিছিলটি স্টেশন চত্বর থেকে শুরু করে শহরের প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে জেলা বিএনপির কার্যালয়ের সামনে এক প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

সমাবেশে জেলা যুবদলের আহবায়ক এটিএম শাহনেওয়াজ কবির শুভ্র এর সভাপতিত্বে প্রতিবাদ সভায় উপস্থিত ছিলেন জয়পুরহাট জেলা যুবদল এর সিনিয়র যুগ্ন-আহবায়ক আবু রায়হান উজ্জল প্রধান, যুগ্ন-আহবায়ক শরিফুল ইসলাম, তৌফিক এলাহী, জুয়েল, গোলাম রাব্বানী রাব্বি, সদস্য সোহেল, এফতাদুল, সেনজু, রতন, মুনির, উজ্জ্বল, কিবরিয়া, লিটন সহ জেলা যুবদল এর বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ।

প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তারা যুবদলের কেন্দ্রীয় সভাপতি ও সহ সভাপতির নিঃশর্ত মুক্তির দাবি জানান।

খেলা হবে, হবে খেলা, এই ডিসেম্বরে খেলা হবে: কাদের
                                  

নোয়াখালী প্রতিনিধি

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের দলীয় নেতাকর্মিদের উদ্দেশ্যে বলেছে- ঐক্যের কোন বিকল্প নেই, আমাদের অস্তিত জন্য। আমি কারো অন্ধ সমর্থক নই। কাজ করে যারা আমি তাদের পক্ষ বলি। আমি নোয়াখালীর স্বার্থে, রাজনীতির স্বার্থে আমার ভাই আব্দুল কাদের মির্জা ও একরামুল করিম চৌধুরী এমপিকে ক্ষমা করে দিয়েছি। নোয়াখালীতে আমি কোন কলহ রাখতে চাইনা। আমি কলহ মুক্ত আওয়ামী লীগ চাই।  

সোমবার (৫ ডিসেম্বর) দুপুর ১টার দিকে নোয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।  

সেতুমন্ত্রী বলেন- খেলা হবে, হবে খেলা, এই ডিসেম্বরে খেলা হবে, আগামী নির্বাচনে খেলা হবে, আন্দোলনে খেলা হবে, অর্থ পাচারের বিরুদ্ধে খেলা হবে। টাকা চুরির বিরুদ্ধে, ভোট চুরির বিরুদ্ধে খেলা হবে, হাওয়া ভবনের বিরুদ্ধে, দুর্নীতির বিরুদ্ধে খেলা হবে। দুঃশাসনের বিরুদ্ধে খেলা হবে।  

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুলের প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেন, খেলা হবে স্লোগান মির্জা ফখরুলের পছন্দ নয়। আরো কারো কারো পছন্দ  নয়।  কিন্তু যে স্লোগান জনগণ পছন্দ  করে সেই স্লোগান আমি দিয়েই যাবো। খেলা হবে।   

ফখরুলকে উদ্দেশ্য করে কাদের আরও বলেন, আগামী ১০ ডিসেম্বর বিএনপি নাকি রাজপথ ও ঢাকা দখল করবে। ফখরুল সাহেব আমি বলতে চাই আমাদের নেতাকর্মিরা মহানগর জেলা, উপজেলা, ওয়ার্ড, পাড়া মহল্লায় পাহারায় থাকবে। বিএনপি বিআরটিসির বাস পুড়িয়েছে। এর মধ্যে ঢাকা-সিলেট সড়কে শেখ হাসিনার ভিত্তি প্রস্তর রাতের অন্ধকারে পুড়িয়েছে। তারা আগুন, লাঠি নিয়ে আসবে এজন্য তারা পার্টি অফিসে সমাবেশ করতে চায়। বিশাল সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ফখরুল বলে খাঁচা।   

লোডশেডিং হচ্ছে বলে স্বীকার করে সেতুমন্ত্রী বলেন, এখন একটু লোডশেডিং হচ্ছে। মানুষ কষ্টে আছে। নেত্রীর চোখে ঘুম নেই। ফখরুলের জ্বালারে অন্তর জ্বালা।      

 দুপুর ১২টার দিকে সম্মেলনের উদ্বোধনে ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন এমপি না আসায় ওবায়দুল কাদের সম্মেলনের উদ্বোধন  করেন।
সম্মেলনে প্রধান বক্তা হিসেবে বক্তব্য রাখেন, আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ।  

উদ্বোধনী বক্তৃতায় সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের নেতা কর্মীদের উদ্দেশ্য করে বলেন,  স্লোগান যদি দিতে হয় তাহলে বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নামে স্লোগান দিন। তিনি বলেন, অনেক অত্যাচার নির্যাতনের মধ্য দিয়ে বেড়ে উঠেছি। আজকের সাম্প্রদায়িকতা, জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধ লড়াই করে উন্নয়নের সড়ক বেয়ে প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সামনের দিকে এগিয়ে চলছে।

সম্মেলনে বর্তমান জেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক অধ্যক্ষ এএইচ এম খায়রুল আনম চৌধুরী সেলিমকে সভাপতি হিসেবে নাম ঘোষণা করেন সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। সাধারণ সম্পাদক পদে একাধিক প্রার্থী থাকায় আগামী ১৬ ডিসেম্বর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পদে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

সমাবেশের নামে নৈরাজ্য করলে সমুচিত জবাব দেব : ওবায়দুল কাদের
                                  

নিজস্ব প্রতিবেদক : আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বিএনপি হচ্ছে গণতন্ত্রের সবচেয়ে বড় বাধা, তারা সন্ত্রাসীদের পৃষ্ঠপোষক। তাদের সমাবেশ নিয়ে মানুষ আতঙ্কে রয়েছে। সমাবেশের নামে নৈরাজ্য করলে রাজপথেই মোকাবিলা করবে আওয়ামী লীগ।

সোমবার সকাল ৮টায় বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট সংলগ্ন হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর মাজারে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে এসব কথা বলেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক।

গণতন্ত্র বিকাশে সরকারের সঙ্গে বিরোধীদলের ভূমিকা অত্যন্ত জরুরি বলে উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, নির্বাচন হচ্ছে গণতন্ত্রের প্রাণ। সেই নির্বাচন আমরা জানি কী ভাবে হয়েছে। ১ কোটি ২৩ লাখ ভুয়া ভোটার, ১৫ ফেব্রুয়ারির সে প্রহসনের নির্বাচন।

তিনি আরও বলেন, এগুলো এ দেশের ইতিহাসে আছে। আমরা ভুলে যাইনি। এখনও সাম্প্রদায়িক অশুভ শক্তি, জঙ্গিবাদী শক্তি গণতন্ত্রের বিরুদ্ধে সক্রিয়। এদের পৃষ্ঠপোষক হচ্ছে বিএনপি। বিএনপি হচ্ছে সাম্প্রদায়িকতা, অগণতান্ত্রিক বিশ্বাসযোগ্য ঠিকানা। গণতন্ত্র বিকাশে অন্তরায়।

ওবায়দুল কাদের বলেন, হোসেন সোহরাওয়ার্দীর ৫৯তম মৃত্যুবার্ষিকী। তার মৃত্যু নিয়ে রহস্য, এর পেছনে কোনো ষড়যন্ত্র আছে কি না সেটা আমরা আজও জানি না। কোনোদিন জানা যাবে সেটাও এই মুহূর্তে বলা যাবে না। হোসেন সোহরাওয়ার্দী গণতন্ত্রের মানুষপুত্র। গণতন্ত্রই তার জীবনের মূলভৌত। সোহরাওয়ার্দী বলেছেন, ‘শাসনতন্ত্রের পাশে জনগণের রায়ই শেষ কথা।’ আজ জনগণই হচ্ছে আমাদের ক্ষমতার উৎস।

বাংলাদেশে গণতন্ত্র বিকাশে পদে পদে বাধার সম্মুখীন হয়েছে উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা ১৯৮১ সালে স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের পর গণতন্ত্রের জন্য লড়াই শুরু করেন। সারাদেশ ঘুরে ঘুরে মুক্তিযুদ্ধের মূল্যবোধের পক্ষে, স্বাধীনতার আদেশের পক্ষে, গণতন্ত্রের পক্ষে ক্যাম্পিং করেন। জনগণকে ঐক্যবদ্ধ করে গণতন্ত্রের শৃঙ্খল মুক্তি ঘটিয়েছেন।

বিএনপির ১০ ডিসেম্বরের সমাবেশ প্রসঙ্গে তিনি আরও বলেন, ১০ ডিসেম্বর তারা সমাবেশ করবে, যে দিন বুদ্ধিজীবী হত্যার নীলনকশা বাস্তবায়ন শুরু হয়। শহীদ সিরাজ উদ্দিন ও শহীদ নিজাম উদ্দিন দুইজনেই সাংবাদিক। এই দুইজনকে কিন্তু আলবদর বাহিনী উঠিয়ে নিয়ে যায় ১০ ডিসেম্বর। বিএনপি তাদের আন্দোলন করার জন্য, কর্মসূচি ঘোষণার জন্য, ঢাকা দখল করার জন্য এই দিনটি কেন বেছে নিল আমরা জানি না।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, তারা (বিএনপি) শান্তিপূর্ণভাবে সমাবেশ করুক। সমাবেশ করার অধিকার আছে। তারা কর্মসূচি ঘোষণা করুক। কিন্তু মানুষ আতঙ্কে আছে কেন? এই আতঙ্কে মানুষ থাকবে কেন? মানুষের আতঙ্ক দূর করতে হবে। বিরোধী দলের অধিকার আছে, তাই আমরা ছাড় দিয়েছি। এত দিন ছাড় দিচ্ছি কিন্তু তারা যদি বেশি বাড়াবাড়ি করে, বিশৃঙ্খলা করে, জনগণের জানমালের প্রতি হুমকি সৃষ্টি করে সে অবস্থায় আমরা ছেড়ে দেব না। সমুচিত জবাব দেব।

এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ড. আব্দুর রাজ্জাক, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, এসএম কামাল হোসেন, আফজাল হোসেন, সংস্কৃতিবিষয়ক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল, তথ্য ও গবেষণাবিষয়ক সম্পাদক ড. সেলিম মাহমুদ, মহিলাবিষয়ক সম্পাদক জাহানারা বেগম, শিক্ষা ও মানবসম্পদবিষয়ক সম্পাদক শামসুন নাহার চাপা, উপ-দপ্তর সম্পাদক সায়েম খান, কার্যনিবাহী সদস্য আনোয়ার হোসেন, সাহাবুদ্দিন ফরাজি, আজিজুস সামাদ আজাদ (ডন) ও সৈয়দ আবদুল আউয়াল শামীম প্রমুখ।

ফরিদপুরে ইসলামী আন্দোলনের বিক্ষোভ মিছিল
                                  

ফরিদপুর জেলা প্রতিনিধি:

ফরিদপুরে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের উদ্যোগে পাবলিক পরীক্ষায় ধর্মশিক্ষা পূর্বের ন্যায় বহাল, শিক্ষার সর্বস্তরে ধর্মশিক্ষা বাধ্যতামূলক করা, শিক্ষা সিলেবাস থেকে ঈমান-আকিদা বিধ্বংসী অবৈজ্ঞানিক ডারউনিনের বিবর্তনবাদ বাদ দেয়ার দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল ও জেলা প্রশাসকের কাছে স্মারক লিপি প্রদান করা হয়।

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ ফরিদপুর জেলা শাখার উদ্যোগে রবিবার বেলা পৌনে বারোটায় সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক মুফতি মিজানুর রহমানের সভাপতিত্বে ফরিদপুর শহরের কাঠপট্টি থেকে জেলা প্রশাসকের কার্যালয় পর্যন্ত পাবলিক পরীক্ষায় ধর্মশিক্ষা পূর্বের ন্যায় বহাল, শিক্ষার সর্বস্তরে ধর্মশিক্ষা বাধ্যতা মূলক করা, শিক্ষা সিলেবাস থেকে ঈমান-আকিদা বিধ্বংসী অবৈজ্ঞানিক ডারউনিনের বিবর্তনবাদ বাদ দেয়ার দাবিতে একটি বিক্ষোভ মিছিল ও জেলা প্রশাসকের কাছে স্মারক লিপি প্রদান অনুষ্ঠিত হয়।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন  বাংলাদেশ কোরআন শিক্ষা বোর্ড ফরিদপুর জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক জনাব খন্দকার ওহিদুজ্জামান,  ইসলামী শ্রমিক আন্দোলন ফরিদপুর জেলা শাখার সভাপতি মোঃ ইমরান নাজির, ইসলামী যুব আন্দোলন ফরিদপুর জেলা শাখার সভাপতি মাওলানা মোফাজ্জল হোসাইন সহ ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ ফরিদপুর জেলা শাখার অন্যান্য নেতাকর্মী। বিক্ষোভ মিছিল শেষে নেতৃবৃন্দ ১০ দফা দাবিতে ফরিদপুরের জেলা প্রশাসক বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করেন।

দুপুরে বিএনপির জরুরি সংবাদ সম্মেলন
                                  

স্বাধীন বাংলা অনলাইন : আজ জরুরি সংবাদ সম্মেলনে ডেকেছে বিএনপি। রবিবার দুপুর ২টায় নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এ সংবাদ সম্মেলন হবে। এতে বক্তব্য রাখবেন দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

বিএনপি চেয়ারপারসনের মিডিয়া উইংয়ের সদস্য শামসুদ্দিন দিদার জানান, আজ দুপুর ২টায় নয়াপল্টনে বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে জরুরি সংবাদ সম্মেলন করবেন দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

বিএনপির সূত্র জানায়, সংবাদ সম্মেলনে যুবদলের সভাপতির গ্রেপ্তার এবং বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার গুলশানের বাসভবন সামনে পুলিশ চেকপোস্ট বসানো নিয়ে কথা বলবেন তিনি। এছাড়া বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়েও কথা বলবেন।

অষ্টগ্রামে জেলা প্রশাসকের বিদায় সংবর্ধনা
                                  

মো.নজরুল ইসলাম, অষ্টগ্রাম (কিশোরগঞ্জ)প্রতিনিধি:
 
কিশোরগঞ্জের হাওর উপজেলা অষ্টগ্রামে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে কিশোরগঞ্জের জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ শামীম আলমকে বিদায়ী সংবর্ধনা প্রদান করা হয়েছে। শনিবার (৩ ডিসেম্বর) বিকেলে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ অডিটরিয়ামে সহকারী প্রোগ্রামার আনোয়ার হোসেনের সঞ্চালনায় উক্ত সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. হারুন-অর-রশিদ।
 
বিদায়ী জেলা প্রশাসক তার বক্তব্যে বলেন, আমি অত্যন্ত সৌভাগ্যবান যে, কিশোরগঞ্জের মত ভিআইপি জেলায় কাজ করার সুযোগ আমার হয়েছে। এখানে আমি সরাসরি মহামান্য রাষ্ট্রপতি মহোদয়ের তত্ত্বাবধানে কাজ করার সুযোগ পেয়েছি। তিনি অত্যন্ত আন্তরিক ভাবে আমাকে সার্বিক সহযোগিতা করেছেন। তিনি সব সময় হাওরবাসীকে নিয়ে চিন্তা করেন।  কিশোরগঞ্জ আমার কর্ম এলাকা না হলে মহামান্য রাষ্ট্রপতির এত স্নেহ, এত ভালোবাসা পাওয়ার সুযোগ আমার  হতনা। হাওরের মানুষের হৃদয় অনেক বড়, অতিথি পরায়ণ। আপনাদের সাথে এখানে কাজ করতে পেরে সত্যিই আমি ধন্য। সবশেষে তিনি বলেন, কিশোরগঞ্জ থেকে যারা বিদায় নেন, তারা কখনো কিশোরগঞ্জবাসীকে ভূলতে পারেনা। আমিও আপনাদের কখনো ভূলতে পারবোনা।

খুলনা নগর ছাত্রলীগের প্রস্তুতি সভা
                                  

খুলনা প্রতিনিধি:
বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ৩০তম জাতীয় সম্মেলন সফল করার লক্ষ্যে প্রস্তুতি সভা করেছে খুলনা মহানগর ছাত্রলীগ। শনিবার (৩ ডিসেম্বর) বেলা ১২ টায় দলীয় কার্যালয় এ প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত হয়।

খুলনা মহানগর ছাত্রলীগের ছাত্রলীগের সভাপতি শেখ শাহাজালাল হোসেন সুজনের সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান রাসেলের পরিচালনায় অন্যানের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সাবেক ছাত্রনেতা মশিউর রহমান সুমন, নগর ছাত্রলীগ নেতা রণবীর বাড়ই সজল, মাসুদ হোসেন সোহান, জব্বার আলী হীরা, দিদারুল আলম, মাহামুদুল হাসান সুজন, সোহান হোসেন শাওন, তায়েজুল ইসলাম তাজ, মাহামুদুর রহমান রাজেস, আব্দুল কাদির সৈকত, বায়েজিদ সিনা, জোয়েব সিদ্দিকী, মো: সুমন শেখ, আহনাফ অর্পন, শংকর কুন্ডু, শাহ্ আরাফাত রাহীব, তৌহিদুল ইসলাম সানি, মো: গালিব হোসেন, মেহেদী হাসান সজিব, অভিজিৎ সরকার রাহুল, নিশাত ফেরদৌস অনি, রুমান আহমেদ, শোভন হাওলাদার, তুরাণ, মুরাদ হাওলাদার, ফাহিম ফয়সাল ওপল, আবু রাসেল, রাহুল শাহরিয়ায়, রায়হান শিকদার, তামিম হোসেন, সজল হোসেন তালুকদার, শেখ ইমন হোসেন, আল আমিন, ইয়াসিন আরাফাত, শোভন, রাজু, শিপন প্রমুখ।

কানাইঘাটের জিলানী কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক
                                  

মুফিজুর রহমান নাহিদ:

বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সহ-সম্পাদক হিসেবে মনোনীত হয়েছেন সিলেটের কানাইঘাট উপজেলার আব্দুল কাদির জিলানী। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগে মাস্টার্সে অধ্যয়নরত আব্দুল কাদির জিলানী স্যার এফ রহমান হলের আবাসিক শিক্ষার্থী।
 
অতি সম্প্রতি কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় ও সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য্য স্বাক্ষরিত চিঠিতে তাকে সহ-সম্পাদক হিসেবে মনোনীত করা হয়।

স্বাক্ষরিত চিঠিতে বলা হয়, ‘জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শ ধারণ করে উন্নত ও সমৃদ্ধশালী বাংলাদেশ বিনির্মাণের স্বপ্নদ্রষ্টা দেশরত্ন শেখ হাসিনার রুপকল্প ২০৪১ ও চতুর্থ শিল্পবিপ্লব বাস্তবায়নে আপনার সপ্রতিভ পদচারণা প্রশংসনীয়। আপনাকে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সম্পাদক হিসেবে মনোনীত করা হলো।

কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সদস্য মনোনীত হওয়ায় তিনি প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা এবং বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সভাপতি আল-নাহিয়ান খান জয় ও সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য সহ সংশ্লিষ্ট নেতৃবৃন্দের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন এবং সকলের আশির্বাদ কামনা করেন।

আব্দুল কাদিরের গ্রামের বাড়ি সিলেট জেলার কানাইঘাট উপজেলার গাছবাড়ী এলাকার ভদ্রছটি গ্রামে। তিনি দীর্ঘদিন থেকে ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত  আছেন। ইতোপূর্বে আব্দুল কাদির জিলানী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্যার এ এফ রহমান হল ছাত্রলীগের আন্তর্জাতিক বিষয়ক উপ-সম্পাদক ছিলেন। পরবর্তীতে একই হল ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী ছিলেন। দীর্ঘ ২৮ বছর পর অনুষ্ঠিত ডাকসু নির্বাচনেও হল সংসদে প্রার্থী ছিলেন। পরবর্তীতে ডাকসুতে হল সংসদে ছাত্রলীগ প্যানেলকে সমর্থন জানিয়ে মনোনয়ন প্রত্যাহার করেন। তিনি বিশ্ববিদ্যালয় এবং নিজ এলাকায় বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের সাথে জড়িত আছেন।

রাজশাহীতে বিএনপির গণসমাবেশ শুরু
                                  

রাজশাহী ব্যুরো

রাজশাহীতে বিএনপির গণসমাবেশ দুপুর ২টায় সমাবেশ শুরু হওয়ার কথা থাকলেও সকাল সাড়ে ১০টার দিকে জাতীয় সংগীত পরিবেশনের মধ্য দিয়ে গণসমাবেশের কার্যক্রম শুরু হয়। গণসমাবেশ আয়োজন কমিটির দলনেতা বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা মিজানুর রহমান মিনু জানান, বেলা ২টা থেকে গণসমাবেশ শুরুর পূর্বনির্ধারিত সময় ছিল। কিন্তু নেতাকর্মীরা চলে আসায় আগেই গণসমাবেশ শুরু হয়।

এ গণসমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন বিএনপি মহাসচিব মীর্জা ফখরুল ইসলাম। বিশেষ অতিথি থাকবেন- বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান, সেলিমা রহমান, ইকবাল মাহমুদ হাসান টুকু, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা মিজানুর রহমান মিনু, বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর আসনের এমপি হারুন অর রশিদ, বিএনপির রাজশাহী বিভাগের সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু। সভাপতিতত্ব করবেন রাজশাহী মহানগর বিএনপির সভাপতি এরশাদ আলী ঈশা।

শনিবার সকাল ৭টা থেকেই নেতাকর্মীরা মাঠে ঢুকতে শুরু করেন। সকাল ১০টার দিকে বেশকিছু নেতাকর্মী মাঠে ছিলেন। মাঠের মধ্যে নেতাকর্মীরা মঞ্চ ঘুরে দেখছেন। কেউ কেউ শীতের সকালে রোদের উত্তাপ নিচ্ছেন। রাজশাহী বিভাগের আট জেলার বিএনপি নেতাকর্মীরা গত চারদিন আগে থেকেই মাদ্রাসা ময়দানে আসতে শুরু করেছেন।



রংপুর সিটি নির্বাচনে ১০ প্রার্থীর মনোনয়ন বৈধ
                                  


রবিউল ইসলাম লাভলু, রংপুর:

রংপুর সিটি করপোরেশন (রসিক) নির্বাচনে মেয়র পদে ১০ প্রার্থীর দাখিল করা মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করা হয়েছে। এদের মধ্যে আওয়ামী লীগ ও জাতীয় পার্টিসহ সাতজন দলীয় এবং বাকি তিনজন স্বতন্ত্র প্রার্থী। বৃহস্পতিবার (১ ডিসেম্বর) দুপুরে মনোনয়নপত্র বাছাই কার্যক্রম শেষে রসিক নির্বাচনের দায়িত্বে থাকা রিটার্নিং কর্মকর্তা ও নির্বাচন কমিশনের যুগ্ম সচিব আবদুল বাতেন এ ঘোষণা দেন।
 
তিনি জানান, নির্বাচনে অংশ নিতে দাখিল করা মনোনয়নপত্র যথাযথভাবে পূরণ করা, হলফনামায় কোনো ত্রুটি না থাকা, মামলা সংক্রান্ত তথ্য, শিক্ষাগত যোগ্যতার সঠিক তথ্য প্রদানের পাশাপাশি দলীয় প্রত্যয়নপত্র নির্ভুল থাকায় মেয়র পদে ১০ জন প্রার্থীর মনোনয়ন বৈধ ঘোষণা করা হয়েছে।

মেয়র পদে মনোনয়নপত্রের বৈধতা পাওয়া প্রার্থীরা হলেন- আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী অ্যাডভোকেট হোসনে আরা লুৎফা ডালিয়া, জাতীয় পার্টির মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা,  ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আমিরুজ্জামান পিয়াল, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদের শফিয়ার রহমান, খেলাফত মজলিশের তৌহিদুর রহমান মণ্ডল রাজু, জাকের পার্টির খোরশেদ আলম, বাংলাদেশ কংগ্রেসের আবু রায়হান, স্বতন্ত্র প্রার্থী মেহেদী হাসান বনি, লতিফুর রহমান মিলন  ও আতাউর জামান বাবু।

এর আগে মেয়র পদে ১৩ জন মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করলেও গত মঙ্গলবার (২৯ নভেম্বর) মনোনয়ন জমা দেওয়ার শেষ দিনে তিন প্রার্থী মনোনয়ন জমা করেননি। এদের মধ্যে জাতীয় পার্টির বহিষ্কৃত সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান ও সাবেক পৌর মেয়র একেএম আবদুর রউফ মানিক, জাতীয় শ্রমিক লীগের রংপুর মহানগরের সাধারণ সম্পাদক এম এ মজিদ এবং জামায়াতে ইসলামী বাংলাদেশের রংপুর মহানগরের সাবেক আমির অধ্যাপক মাহবুবার রহমান বেলাল।

এদিকে বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে নয়টায় রংপুর জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে প্রার্থীদের জমা করা মনোনয়ন বাছাই কার্যক্রম শুরু হয়। এসময় মেয়র প্রার্থীসহ কাউন্সিলর প্রার্থী ও তাদের সমর্থকরা উপস্থিত ছিলেন।

নির্বাচনে অংশ নিতে মেয়র পদে ১০ প্রার্থীসহ মোট ২৭৭ জন মনোনয়ন জমা দেন। এদের মধ্যে ১১টি সংরক্ষিত আসনের বিপরীতে ৬৯ জন কাউন্সিলর প্রার্থী এবং ৩৩ সাধারণ আসনের বিপরীতে ১৯৮ জন কাউন্সিলর প্রার্থী মনোনয়ন জমা করেছেন।
মনোনয়নপত্র বাছাই কার্যক্রমে রিটার্নিং কর্মকর্তা ও নির্বাচন কমিশনের যুগ্ম সচিব আবদুল বাতেন, আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা জিএম সাহাতাব উদ্দিন, সিনিয়র জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ফরহাদ হোসেনসহ সংশ্লিষ্ট সহকারি রিটার্নিং কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

প্রসঙ্গত, এবার তৃতীয়বারের মতো রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। নির্বাচন কমিশন ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী বৃহস্পতিবার ১ ডিসেম্বর মনোনয়নপত্র বাছাই এবং ৮ ডিসেম্বর মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ তারিখ। প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হবে ৯ ডিসেম্বর। প্রতীক বরাদ্দের পর প্রার্থীরা ১৭ দিন প্রচার-প্রচারণার সুযোগ পাবেন। ২৭ ডিসেম্বর ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনের (ইভিএম) মাধ্যমে সকাল সাড়ে ৮টা থেকে বিকেল সাড়ে ৪টা পর্যন্ত একটানা ভোটগ্রহণ করা হবে।

পাবনা জেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক বাবু গ্রেফতার
                                  

জেলা প্রতিনিধি, পাবনা:

পাবনা জেলা বিএনপির যুগ্ম-আহ্বায়ক আনিসুল হক বাবুকে গ্রেফতার পুলিশ। পাবনা শহরে ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়ে জনমনে আতঙ্ক ও নাশকতার অভিয়োগে দায়ের করা মামলায় তাকে গ্রেফতার দেখিয়েছে পুলিশ।

বুধবার সন্ধ্যার দিকে পাবনা শহরের কালাচাঁদ পাড়ার নিজ বাসা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন পাবনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) মাসুদ আলম।

তিনি জানান, সন্ধ্যার দিকে তাকে পাবনা শহর থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তিনি সম্প্রতি পাবনা শহরের আলিয়া মাদ্রাসা সড়কের খেয়াঘাটস্থ জেলা বিএনপির অস্থায়ী কার্যালয়ের সামনে ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনায় দায়ের করা মামলার আসামি।  আগামীকাল আদালতের মাধ্যমে তাকে কারাগারে পাঠানো হবে।

এদিকে ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনায় মামলা ও আনিসুল হক বাবুর গ্রেফতারের পর নেতাকর্মীদের মাঝে আতঙ্ক বিরাজ করছে। তাদের ধারণা- আগামী ৩ ডিসেম্বর বিএনপির সমাবেশকে কেন্দ্র করে পুলিশ নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করতে পারেন। অনেকেই আগেভাগেই রাজশাহীতে চলে গেছেন। কিন্তু শীর্ষ পর্যায়ের অনেক নেতাই পাবনায় রয়েছেন।  শহর এবং উপজেলা পর্যায়ে বিএনপির নেতাকর্মীদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে ভয়ভীতি দেখানো হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন নেতাকর্মীরা।

এবিষয়ে পাবনা জেলা বিএনপির সদস্য সচিব অ্যাডভোকেট মাসুদ খন্দকার বলেন, ‘শেখ হাসিনা জবরদস্তি করে, জোর করে বাংলাদেশে ক্ষমতায় থাকার জন্য নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করছে, ৩ তারিখের জনসমাবেশ যাতে না হয়, ১০ তারিখের ঢাকার গণসমাবেশ যাতে না হয় এই জন্য নেতাকর্মীদের মিথ্যা মামলা দিয়ে গ্রেফতার করা হচ্ছে।’

নেতাকর্মীদের মাঝে গ্রেফতার আতঙ্ক বিরাজ করছে কিনা এমন প্রশ্নে পাবনা আইনজীবী সমিতির এই সভাপতি বলেন, ‘আতঙ্ক তো কাজ করছেই। আমাকেও গ্রেফতারের চেষ্টা করা হয়েছে। কিন্তু নেতাকর্মীদের বাধায় আমাকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে। নেতাকর্মীরা গণসমাবেশে যাওয়ার জন্য উদগ্রীব হয়ে আছেন। গ্রেফতার হলে গ্রেফতার হবে সমস্যা নাই, আমরা সেই সিস্টেমেই আছি।’

উল্লেখ্য, গত ২০ নভেম্বর বিকেলে পাবনা শহরের আলিয়া মাদ্রাসা সড়কের খেয়াঘাটস্থ জেলা বিএনপির অস্থায়ী কার্যালয়ের সামনে ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়ে জনমনে আতঙ্ক ও নাশকতার অভিযোগে জেলা বিএনপি, যুবদল ও ছাত্রদলের ১৫০ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেছে পাবনা সদর থানা পুলিশ।

তাড়াশে বিএনপির ৫ নেতাকর্মী আটক
                                  

তাড়াশ প্রতিনিধি:
 
সিরাজগঞ্জের তাড়াশে ককটেল বিস্ফোরনের মামলায় বিএনপি’র ৫ নেতাকর্মীকে আটক করেছেন থানা পুলিশ। মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে উপজেলার তাড়াশ-রানীরহাট আঞ্চলিক সড়কের লাউতা চার মাথা আকবর আলী বাজারে ককটেল বিস্ফোরণ হলে তাদেরকে আটক করে। জানা গেছে এ ঘটনায় তালম ইউনিয়ন ২নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. মোজ্জামেল হক মজনু বাদী হয়ে অজ্ঞাত ১২০ জনকে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করেন। পরে পুলিশ রাতভর উপজেলার বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে ৫ বিএনপির নেতাকর্মীকে আটক করে।

আটককৃত আসামীরা হলেন, উপজেলার তালম ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি সোহরাব হোসেন (৫৫), ইউনিয়ন যুব দলের আহ্বায়ক দিদার খাঁন (৪২), তাড়াশ উপজেলা যুব দলের যুগ্ম আহ্বায়ক রাজিব আহম্মেদ মাসুম (৩৮), বারুহাস ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডের সাধারণ সম্পাদক ডা. মুক্তার হোসেন সরকার (৪৫) ও মাধাইনগর ইউনিয়নের ৮ নং ওয়ার্ডের সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ (৪০)। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন তাড়াশ থানার ওসি শহিদুল ইসলাম।

থানা পুলিশ সূত্রে জানা যায়, মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে বিএনপির নেতা কর্মীরা উপজেলার তাড়াশ-রানীরহাট আঞ্চলিক সড়কের লাউতা চার মাথা আকবর আলী বাজার এলাকায় ককটেল বিস্ফোরন ঘটিয়ে পালিয়ে যান।
 
এ ঘটনায় তালম ইউনিয়ন ২নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. মোজ্জামেল হক মজনু বাদী হয়ে অজ্ঞাত ১শ২০ জনকে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করেন। পরে তাড়াশ থানা পুলিশ বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে ওই ৫ নেতা কর্মীকে আটক করেন।
 
তাড়াশ উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম টুটুল বলেন, আগামী ৩ ডিসেম্বর রাজশাহী বিভাগীয় সমাবেশকে সামনে রেখে ভয়ভীতি দেখাতে এ ধরনের গায়াবী মামলা করেছেন। বিএনপির নেতা কর্মীরা রাজশাহী বিভাগীয় সমাবেশে যেতে না পারে এটি সরকারের দমন-পিড়নের একটি কৌশলমাত্র।  

এ প্রসঙ্গে তাড়াশ থানার ওসি শহিদুল ইসলাম বলেন, আটককৃত আসামীদের সিরাজগঞ্জ আদালতে পাঠানো হয়েছে।

তারেক রহমান অচিরেই দেশে ফিরবে: শাহজান
                                  

মোঃ ইদ্রিছ মিয়া নোয়াখালী:
বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান শখ করে লন্ডন যায়নি বলে মন্তব্য করেছেন, দলটির জাতীয় নির্বাহী কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান মো. শাহজান। তিনি বলেন, তারেক রহমানকে মিথ্যা মামলা দিয়ে উনার উপর অত্যাচার করে ১/১১ সরকার। জিয়াউর রহমানের আদর্শ, খালদো জিয়ার আদর্শকে ধ্বংস করে দেওয়ার জন্য তার উপর এই অত্যাচার চালানো হয়। তিনি চিকিৎসার জন্য লন্ডনে গিয়েছেন। এখন পর্যন্ত ফিরে আসতে পারেনি।    

মঙ্গলবার (২৯ নভেম্বর) দুপুর আড়াইটার দিকে নোয়াখালীল কোম্পানীগঞ্জের বসুরহাট পৌরসভা বিএনপির দ্বি-বার্ষিক সম্মেলনে সরকারি মুজিব কলেজ মাঠে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।  
 
তারেক রহমানের সমালোচনাকারীদের উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, যারা তারেক রহমানের নাম নিয়ে বিভিন্ন কথা বার্তা বলেন আপনাদের কথা আপনারে মুখেই থেকে যাবে। ক্ষমতার দাপটে সাময়িক ভাবে হয়তো আপনারা কিছু করতে পারবেন। তারেক রহমান যে ভাবে অগ্রসর হয়ে যাচ্ছে।   জনগণ যে ভাবে তার ডাকে সাড়া দিচ্ছে, বিএনপি যে ভাবে সংঘটিত হচ্ছে দেখবেন অল্প দিনের মধ্যেই তারেক রহমান দেশে ফিরে আসবে এবং দেশের দায়িত্ব নিয়েই রাজনীতি করবে। খালেদা জিয়ার অবর্তমানে সে দেশকে এগিয়ে নিতে পারবে। ইতিমধ্যে তিনি তার সে যোগ্যতার প্রমাণ রেখেছেন বলেও মন্তব্য করেন এ নেতা।    

ক্ষমতাসীন দলকে ইঙ্গিত করে শাহজান বলেন, আমরা কারো সমালোচনা করে আমাদের দলকে বড় করতে চাইনা। আমাদের এতো বেশি কর্ম আমরা কর্ম দিয়েই মানুষের কাছে প্রিয় হতে চাই।  

বসুরহাট পৌরসভা বিএনপির আহ্বায়ক আবদুল মতিন লিটনের সভাপতিত্বে এ সময় আরো বক্তব্য রাখেন , বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির চট্রগ্রাম বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুবের রহমান শামীম, জেলা বিএনপির সভাপতি গোলাম হায়দার বিএসসি, সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট আবদুর রহমান, কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক নুরুল আলম সিকদার। এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন, বসুরহাট পৌরসভা যুবদলের আহ্বায়ক ওবায়দল হক রাফেল, কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা জাসাসের সাধারণ সম্পাদক নুর হোসেন সীমান্ত, বসুরহাট পৌরসভা স্বেচ্ছাসেবকদলের সাধারণ সম্পাদক নুর উদ্দিন ফাহাদ প্রমূখ।

উল্লেখ্য, সম্মেলনের প্রথম অধিবেশন শেষে দ্বিতীয় অধিবেশনে বসুরহাট পৌরসভার বিএনপির বর্তমান আহ্বায়ক আবদুল মতিন লিটন ও সদস্য সচিব আবদুল্লাহ আল মামুনকে সভাপতি-সাধারণ করে নতুন কমিটি ঘোষণা করা হয়।  

বগুড়ায় আসামীদের মারপিটে সাক্ষী নিহত, আটক ৫
                                  

বগুড়া প্রতিনিধি:
 
বগুড়ার ধুনট উপজেলায় আদালতে সাক্ষী দিতে যাওয়ার পথে মামলার আসামীদের মারপিটে আব্দুল খালেক (৬৫) নামের এক  ব্যক্তি নিহত  হয়েছের। তিনি কালেরপাড়া ইউনিয়নের  কোদলাপাড়া গ্রামের মৃত আজাহার আলীর ছেলে। মঙ্গলবার সকাল ৮টার দিকে   কোদলাপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় পুলিশ ৫ জনকে আটক করেছে।

থানা পুলিশ ও নিহতের পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, কোদলাপাড়া কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের কোষাধ্যক্ষের কাছ থেকে কয়েকদিন আগে মুষ্ঠির (গচ্ছিত) ১ মন চাল বাকিতে কিনে নেন আব্দুস সাত্তার নামের এক ব্যক্তি। কিন্তু টাকা দিতে তালবাহানা করায় ৩ নভেম্বর তার সাথে  কোষাধ্যক্ষ মোজাম্মেল হকের মারপিটের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় আব্দুস সাত্তার বাদি হয়ে  কোষাধ্যক্ষ মোজাম্মেল হক ও তার ছেলে ফজলুল হক সহ ৭ জনকে আসামী করে বগুড়ার আদালতে মামলা দায়ের করেন। ওই মামলার সাক্ষী ছিলেন নিহত আব্দুল খালেক। মঙ্গলবার বগুড়া আদালতে তার মামলার হাজিরা ছিল। মামলার বাদি আব্দুস ছাত্তার ও তার ভাই স্বাক্ষী আব্দুল খালেক মঙ্গলবার সকালের দিকে আদালতের উদ্দেশ্যে বাড়ি থেকে বের হন। পথিমধ্যে আসামীদের বাড়ির পাশের রাস্তায় তাদের উপর হামলা চালায় মামলার ১ নম্বর আসামী ফজলুল হক ও তার লোকজন। এতে আহত হন আব্দুস সাত্তার ও আব্দুল খালেক। পরে আব্দুল খালেককে অচেতন অবস্থায় বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

ধুনট থানার ওসি রবিউল ইসলাম বলেন, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করা হয়েছে।  নিহত আব্দুল খালেকের লাশ তার স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে ৫ জনকে আটক করেছে পুলিশ। সন্ধার পর লাশ দাফন করা হয়।

রসিক নির্বাচনে ফুরফুরে জাপা, আ.লীগে বিদ্রোহ
                                  

রবিউল ইসলাম লাভলু, রংপুর:

রংপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে জাতীয় পার্টিতে (জাপা) রওশনপন্থি হিসেবে গুঞ্জনে থাকা আব্দুর রউফ মানিক মনোনয়নপত্র কিনলেও একক প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন জমা দিয়েছেন মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা। আব্দুর রউফ মানিক শেষ পর্যন্ত মনোনয়ন জমা না দেওয়ায় জাতীয় পার্টিতে স্বস্তি বিরাজ করছে।

তবে নৌকার প্রার্থী হিসেবে অ্যাডভোকেট হোসনে আরা লুৎফা ডালিয়া থাকলেও স্বতন্ত্র হিসেবে মনোনয়ন জমা দিয়েছেন কোতোয়ালি থানা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার লতিফুর রহমান মিলন এবং মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি আতাউর জামান বাবু। ফলে রংপুর সিটি নির্বাচনে একক প্রার্থী নিয়ে জাতীয় পার্টি ফুরফুরে থাকলে বিদ্রোহীর কারণে অস্বস্তি বিরাজ করছে আওয়ামী লীগে।

জাতীয় পার্টির নেতারা জানান, সোমবার (২৮ নভেম্বর) রাতে রাজধানীর একটি হোটেলে মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফাকে সমর্থন দিয়েছেন রওশন এরশাদ। ফলে ফুরফুরে মেজাজে রয়েছেন জাতীয় পার্টির নেতাকর্মীরা। মনোনয়ন জমার শেষ দিন মঙ্গলবার (২৯ নভেম্বর) দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে ফরম জমা দেন মোস্তফা। ফলে জাপার একক প্রার্থী হিসেবে মাঠে থাকছেন সাবেক মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা।

মনোনয়ন জমার দেয়ার পর মোস্তফা স্বাধীন বাংলার প্রতিবেদককে বলেন, রংপুরের মানুষ অতীতে যেমন সিদ্ধান্ত নিতে ভুল করেনি তেমনি এবারও ভুল করবে না। ২৭ ডিসেম্বর লাঙল প্রতীকে ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করবে বলে প্রত্যাশা করি। এসময় ইভিএম নিয়ে বাইরের কেউ যেন কোনো কারসাজি করতে না পারে সেজন্য নির্বাচন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সজাগ থাকারও আহ্বান জানান মোস্তফা।

এদিকে, আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য অ্যাডভোকেট হোসনে আরা লুৎফা ডালিয়া মঙ্গলবার দুপুর ২টায় দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে মনোনয়ন জমা দেন। এছাড়া স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন জমা দিয়েছেন কোতোয়ালি থানা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার লতিফুর রহমান মিলন এবং মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি আতাউর জামান বাবু।

মনোনয়ন জমা দিয়ে হোসনে আরা লুৎফা ডালিয়া স্বাধীন বাংলার প্রতিবেদককে বলেন, রংপুরের মানুষ নৌকা মার্কায় ভোট দিতে উদগ্রীব হয়ে আছেন। ২৭ ডিসেম্বর হবে নৌকা মার্কার বিজয়ের দিন। রংপুরবাসী এদিন বিজয় ছিনিয়ে আনবে।

ডালিয়া আরও বলেন, রংপুর জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগসহ অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা ঐক্যবদ্ধ। তাদের সবার সহযোগিতা, সাধারণ মানুষের দোয়া এবং সমর্থন নিয়ে এবার নৌকা মার্কার জয় হবে ইনশাআল্লাহ। বিদ্রোহী হিসেবে অপর প্রার্থীদের মনোনয়ন জমা দেওয়ার বিষয়ে ডালিয়া বলেন, এ বিষয়ে এখনই কিছু বলার নেই। সময় এখনও আছে। শেষ পর্যন্ত তারা নাও থাকতে পারেন। বিষয়টি কেন্দ্র অবগত আছে। এ বিষয়ে কেন্দ্র ব্যবস্থা নেবে।
রসিক নির্বাচনে অংশ না নেওয়ার কথা আগেই জানিয়েছে বিএনপি। তবে জামায়াতে ইসলামীর রংপুর মহানগরের সাবেক আমির মাহবুবুর রহমান বেলাল এতদিন প্রচার প্রচারণা চালালেও শেষ পর্যন্ত মনোনয়ন জমা দেননি।

এছাড়া জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ-ইনু) শফিয়ার রহমান, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আমিরুজ্জামান পিয়াল, খেলাফত মজলিশের তৌহিদুর রহমান মণ্ডল রাজু, জাকের পার্টির খোরশেদ আলম খোকন, বাংলাদেশ কংগ্রেস পার্টির আবু রায়হান এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মেহেদী হাসান বনি মনোনয়ন জমা দিয়েছেন।

ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী আগামী ২৭ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হবে রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচন। পহেলা ডিসেম্বর মনোনয়নপত্র বাছাই এবং মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন ৮ ডিসেম্বর। প্রতীক বরাদ্দ হবে ৯ ডিসেম্বর।

রংপুর সিটি নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা আবদুল বাতেন জানান, উৎসবমুখর পরিবেশে মেয়র পদে ১০, ১১ সংরক্ষিত নারী আসনে ৬৯ এবং ৩৩ সাধারণ ওয়ার্ডে ১৯৮ জনসহ মোট ২৭৭ প্রার্থী মনোনয়ন জমা দিয়েছেন। নিয়ম অনুযায়ী মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই শেষে প্রার্থীদের চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশ করা হবে।


   Page 1 of 132
     রাজনীতি
গ্রহণযোগ্য প্রস্তাব না দিলে নয়াপল্টনে সমাবেশ হবে : মির্জা আব্বাস
.............................................................................................
জয়পুরহাটে যুবদলের বিক্ষোভ মিছিল
.............................................................................................
খেলা হবে, হবে খেলা, এই ডিসেম্বরে খেলা হবে: কাদের
.............................................................................................
সমাবেশের নামে নৈরাজ্য করলে সমুচিত জবাব দেব : ওবায়দুল কাদের
.............................................................................................
ফরিদপুরে ইসলামী আন্দোলনের বিক্ষোভ মিছিল
.............................................................................................
দুপুরে বিএনপির জরুরি সংবাদ সম্মেলন
.............................................................................................
অষ্টগ্রামে জেলা প্রশাসকের বিদায় সংবর্ধনা
.............................................................................................
খুলনা নগর ছাত্রলীগের প্রস্তুতি সভা
.............................................................................................
কানাইঘাটের জিলানী কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক
.............................................................................................
রাজশাহীতে বিএনপির গণসমাবেশ শুরু
.............................................................................................
রংপুর সিটি নির্বাচনে ১০ প্রার্থীর মনোনয়ন বৈধ
.............................................................................................
পাবনা জেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক বাবু গ্রেফতার
.............................................................................................
তাড়াশে বিএনপির ৫ নেতাকর্মী আটক
.............................................................................................
তারেক রহমান অচিরেই দেশে ফিরবে: শাহজান
.............................................................................................
বগুড়ায় আসামীদের মারপিটে সাক্ষী নিহত, আটক ৫
.............................................................................................
রসিক নির্বাচনে ফুরফুরে জাপা, আ.লীগে বিদ্রোহ
.............................................................................................
যে বুলেট শেখ হাসিনাকে এতিম করেছে, সেই বুলেট খালেদাকে বিধবা করেছে: কাদের
.............................................................................................
কারা আসছেন ছাত্রলীগের নেতৃত্বে?
.............................................................................................
লালপুরে বিএনপির অফিস থেকে ককটেল-পেট্রোল বোমা উদ্ধার: পৃথক মামলা
.............................................................................................
পুলিশের গুলিতে ছাত্রদল নেতা নিহতের প্রতিবাদে পটুয়াখালীতে বিক্ষোভ
.............................................................................................
তত্ত্বাবধায়ক সরকার ছাড়া দেশে নির্বাচন নয়: মির্জা ফখরুল
.............................................................................................
গাজীপুর মহানগর আ.লীগের সভাপতি আজমত উল্লাহ, সম্পাদক আতাউল্লাহ
.............................................................................................
জয়পুরহাটে ৪ ছাত্রদল-যুবদল নেতাকর্মী গ্রেফতার
.............................................................................................
সাভারে জামায়াত-শিবিরের রুকন সম্মেলন থেকে ৬৬ নেতাকর্মী আটক
.............................................................................................
উপদেষ্টাদের নিয়ে বৈঠকে আওয়ামী লীগ সভাপতি
.............................................................................................
সিলেটে জনতার ঢল, সমাবেশ শুরুর অপেক্ষায় বিএনপি নেতাকর্মীরা
.............................................................................................
সেক্রেটারী থেকে পদত্যাগ করে চাটখিল আ.লীগ নেতার সংবাদ সম্মেলন
.............................................................................................
যুবদল নেতা ইউসুফকে তুলে নেওয়ার অভিযোগ রিজভীর
.............................................................................................
পটুয়াখালী জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সাইফুল, সম্পাদক আরিফ
.............................................................................................
গাজীপুরে যুবলীগের কর্মী ও প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত
.............................................................................................
জেলা আ.লীগ কার্যালয়ে তালা, সভাপতির বিরুদ্ধে স্লোগান
.............................................................................................
ঝিনাইদহে বিএনপি-ছাত্রলীগের সংঘর্ষ, আহত ১০
.............................................................................................
জয়পুরহাটে জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস পালন করল বিএনপি
.............................................................................................
সিলেটে বিএনপির বিভাগীয় গণসমাবেশ একদিন এগিয়ে ১৯ নভেম্বর
.............................................................................................
জবি শাখা ছাত্রলীগের উপর আরোপিত স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার
.............................................................................................
ঘাটাইলে কমিটি গঠনে জেলা বিএনপির সতর্কবার্তা
.............................................................................................
ডিসেম্বরে খেলা হবে-ফাইনাল খেলা : ওবায়দুল কাদের
.............................................................................................
বরিশাল বিএনপির সমাবেশ যাওয়ার পথে মোটরসাইকেল বহরে হামলা, আহত ৫
.............................................................................................
বিএনপির আন্দোলনের পতন ধ্বনি শোনা যাচ্ছে : ওবায়দুল কাদের
.............................................................................................
বিচারপতি মানিকের ওপর হামলার ঘটনায় গ্রেফতার ৪
.............................................................................................
সন্ত্রাস ও রাজনৈতিক ষড়যন্ত্রের মূলহোতা বিএনপি : ওবায়দুল কাদের
.............................................................................................
খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা সাবিহ উদ্দিনের মৃত্যুবরণ
.............................................................................................
আওয়ামী লীগ পাল্টাপাল্টি সমাবেশ করে না : ওবায়দুল কাদের
.............................................................................................
রংপুরে স্মরণকালের সর্ববৃহৎ সমাগম হয়েছে: মির্জা ফখরুল
.............................................................................................
রংপুরে সমাবেশস্থলে যুবদল নেতার মৃত্যু
.............................................................................................
রংপুরে বিএনপির গণসমাবেশ: পায়ে হেটে-অটো রিকশাযোগে যাচ্ছেন নেতাকর্মীরা
.............................................................................................
রংপুরে বিএনপির সমাবেশ: রাতেই মাঠ ভরে যাচ্ছে
.............................................................................................
বিএনপির সঙ্গে এখনই জোট নয়: জিএম কাদের
.............................................................................................
রাঙ্গাকে রাজপথে মোকাবিলার চ্যালেঞ্জ রসিক মেয়রের
.............................................................................................
বীর মুক্তিযোদ্ধাদের নাম স্বর্ণাক্ষরে লেখা থাকবে: ডেপুটি স্পীকার
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

সম্পাদক ও প্রকাশক : মোহাম্মদ আখলাকুল আম্বিয়া
নির্বাহী সম্পাদক: মাে: মাহবুবুল আম্বিয়া
যুগ্ম সম্পাদক: প্রদ্যুৎ কুমার তালুকদার

সম্পাদকীয় ও বাণিজ্যিক কার্যালয়: স্বাধীনতা ভবন (৩য় তলা), ৮৮ মতিঝিল বাণিজ্যিক এলাকা, ঢাকা-১০০০। Editorial & Commercial Office: Swadhinota Bhaban (2nd Floor), 88 Motijheel, Dhaka-1000.
সম্পাদক কর্তৃক রঙতুলি প্রিন্টার্স ১৯৩/ডি, মমতাজ ম্যানশন, ফকিরাপুল কালভার্ট রোড, মতিঝিল, ঢাকা-১০০০ থেকে মুদ্রিত ও প্রকাশিত ।
ফোন : ০২-৯৫৫২২৯১ মোবাইল: ০১৬৭০৬৬১৩৭৭

Phone: 02-9552291 Mobile: +8801670 661377
ই-মেইল : dailyswadhinbangla@gmail.com , editor@dailyswadhinbangla.com, news@dailyswadhinbangla.com

 

    2015 @ All Right Reserved By dailyswadhinbangla.com

Developed By: Dynamic Solution IT