বৃহস্পতিবার, ৮ ডিসেম্বর 2022 বাংলার জন্য ক্লিক করুন
  
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   সিলেট -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
বন্যার ক্ষতি কাটিয়ে সিলেটে আমনের বাম্পার ফলন

সিলেট ব্যুরো : সিলেট বিভাগে স্মরণকালের ভয়াবহ বন্যায় কৃষিখাতে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। ভয়াবহ বন্যায় জমির ফসল হারিয়ে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েন কৃষকরা। ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে আমন চাষে মাঠে ফেরেন চাষিরা। কৃষকের স্বপ্ন এবার বাঁচিয়েছে সোনালি আমন। বিভাগের চার জেলায়ই আমন ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। লক্ষ্যমাত্রার চেয়েও আমন উৎপাদন বেশি হবে বলে জানিয়েছে কৃষি বিভাগ।

এ বছল সিলেট বিভাগে জুড়েই ছিল প্রাকৃতিক দুর্যোগ। কখনো বন্যা, অতিবৃষ্টি, আবার কখনো বা অনাবৃষ্টি। তবে সব দুর্যোগ অতিক্রম করে এবার অগ্রাহয়ণ মাসে আমনের বাম্পার ফলন দেখে কৃষক-কৃষাণীর মুখে এখন আনন্দের হাসি ফুটেছে। তারা মেতে উঠেছেন ফসল তোলা উৎসবে। ইতোমধ্যে আমন ধান কাটা ও মাড়াইয়ের কাজ উৎসবমুখর পরিবেশে চলছে।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সিলেট বিভাগীয় কার্যালয় সূত্র জানায়, চার জেলার মধ্যে সবেচেয়ে বেশী আমনের ফলন হয়েছে সিলেট জেলায়। এরপর যথাক্রমে মৌলভীবাজার, সুনামগঞ্জ ও হবিগঞ্জে আমনের বাম্পার ফলন হয়েছে। বিভাগের চার জেলায় এ বছর রোপা আমন ধান আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৪ লাখ ৩ হাজার ২৮০ হেক্টর জমিতে। আর আবাদ হয়েছে ৪ লাখ ১৫ হাজার ৫৪৬ হেক্টর জমি। এ বছর হাইব্রিড, উফশী ও স্থানীয় জাতের ধান মিলে বিভাগে ১০ লাখ ৭৪ হাজার ৮০০ মেট্রিক টন চাল উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে।

বিভাগের চার জেলার মধ্যে সিলেটে চলতি বছর ১ লাখ ৪০ হাজার ৫০০ হেক্টর জমিতে আমন ধান আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ছিল। আর চাষ করা হয়েছে ১ লাখ ৪৩ হাজার ৪৭৩ হেক্টর জমি। এবছর চাল উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ৩ লাখ ৫৭ হাজার ৯৩০ মেট্রিক টন। তবে তা ছাড়িয়ে যাবে বলে আশা করা হচ্ছে।

মৌলভীবাজার জেলায় এ বছর আমন চাষাবাদে লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল ১ লাখ ১৪ হাজার ৫৫ হেক্টর জমিতে। আর চাষ করা হয়েছে ১ লাখ ১৬ হাজার হেক্টর জমি। চাল উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ২ লাখ ৯৭ হাজার ৪৬৩ মেট্রিক টন।

হবিগঞ্জ জেলায় এ বছর লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল ৮০ হাজার ২১০ হেক্টর জমিতে। আর চাষ করা হয়েছে ৮৮ হাজার ২৫৮ হেক্টর জমি। চাল উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ২ লাখ ২০ হাজার ৩৭১ মেট্রিক টন।

সুনামগঞ্জ জেলায় এ বছর লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল ৮১ হাজার ১১৫ হেক্টর জমিতে। আর চাষ করা হয়েছে ৮২ হাজার ২১৫ হেক্টর জমি। চাল উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ১ লাখ ৯৯ হাজার ৩৬ মেট্রিক টন।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সিলেট জেলার উপপরিচালক মোহাম্মদ খয়ের উদ্দিন মোল্লা বলেন, বন্যার পর সিলেটে অনুকূল আবহাওয়া থাকায় আমন ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। আগামী ১৫ দিনের মধ্যে জেলার সব ধান কাটা হয়ে যাবে। সিলেট জেলায় এরই মধ্যে আমন চাষের লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে গেছে। চাল উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ৩ লাখ ৫৭ হাজার ৯৩০ টন থাকলেও আশা করছি এবার তা ছাড়িয়ে যাবে। কৃষকদের সহায়তায় কৃষি যান্ত্রিকীকরণ প্রকল্পের ধান কাটার মেশিন ও বিনামূল্যে উন্নত জাতের বীজ ও সার দেওয়া হয়েছে।

কৃষি সম্প্রসারন অধিদফতর সুনামগঞ্জের উপ পরিচালক বিমল চন্দ্র সোম জানান, সুনামগঞ্জ জেলায় মোট কৃষি জমির ৩০ ভাগ জমিতে আমন ধানের চাষ করা হয়েছে। বাকি জমিতে নীচু এলাকায়, সেগুলোতে বোরো চাষ করা হয়ে থাকে। জেলায় ইতোমধ্যে প্রায় ৫৫ শতাংশ জমিত আমন ধান কাটা সম্পন্ন হয়েছে। বাকি জমিতে ধান কাটতে আরও ৮-১০ দিন সময়। সুনামগঞ্জে এবছর আমন ধানের ফলন প্রতি হেক্টরে সোয়া ৪ মেট্রিক টন ধান উপাদন হয়েছে- যা বিগত ৩০ থেকে ৩৫ বছরের মধ্যে সর্বাধিক।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের সিলেট বিভাগীয় অতিরিক্ত পরিচালক মো. মোশাররফ হোসেন খান জানান, সিলেট, সুনামগঞ্জ, মৌলভীবাজার ও হবিগঞ্জে জেলাতে এবার রোপা আমন ধান চাষের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৪ লাখ ৩ হাজার ৫৬০ হেক্টর জমি। এতে ৪ লাখ ১৫ হাজার ৪৫৬ হেক্টর জমিতে আমন চাষ করা হয়েছে। চলতি বছর হাইব্রিড, উফশী ও স্থানীয় জাতের ধান মিলে বিভাগে ১০ লাখ ৭৪ হাজার ৮০০ মেট্রিক টন চাল উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে। তবে এবার চাল উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে যাবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

এদিকে, আমন ধানের বাম্পান ফলনে কৃষকের মুখে হাসি ফুটলেও ন্যায্য দাম পাওয়া নিয়ে কিছুটা চিন্তার ভাঁজ কপালে থেকেই যাচ্ছে। অনেকে আবার ধান কাটার জন্য শ্রমিক সংকটেও ভুগছেন বলে জানিয়েছেন।

সিলেট সদর উপজেলার ধুপাগুল এলাকার কৃষক সবর আলী জানান, এ বছর কয়েকবার বন্যার পরও জমিতে আমন ধানের চাষ করেছি। আমাদের এলাকার সবার জমিতে ফলন ভালো হয়েছে; ধান কাটাও শুরু হয়েছে। প্রতি বছরের মতো এবার ধান কাটার শ্রমিক কম, তাই জমির ধান উঠাতেও দেরি হচ্ছে। তবে মেশিন দিয়েও চলছে ধান কাটা।

সিলেটের সীমান্তবর্তী এলাকা গোয়াইনঘাটের দ্বারিখেল এলাকার কৃষক মোঃ জমসেদ আলী বলেন, এ বছর ভয়াবহ বন্যা ও প্রাকৃতিক দুর্যোগের পর ধানের যে ফলন হয়েছে- তাতে আমরা খুশি। এ বছর বন্যা ও প্রাকৃতিক দুর্যোগে ইরি ফসলের যে পরিমান ক্ষতি হয়েছে- এরপর এ ফসল পেয়ে কিছুটা স্বস্তি পেয়েছি। সরকারের যান্ত্রিক সহায়তায় ফসল কাটতে এবং তুলতে খুবই সহায়ক হয়েছে বলে মন্তব্য করে এজন্য তিনি সরকার ও কৃষি বিভাগকে ধন্যবাদ জানান। একই সাথে তিনি কৃষকের উৎপাদিত ধানের ন্যায্য মূল্য নিশ্চিত করতে সরকারের নিকট দাবি জানান।

বন্যার ক্ষতি কাটিয়ে সিলেটে আমনের বাম্পার ফলন
                                  

সিলেট ব্যুরো : সিলেট বিভাগে স্মরণকালের ভয়াবহ বন্যায় কৃষিখাতে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। ভয়াবহ বন্যায় জমির ফসল হারিয়ে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েন কৃষকরা। ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে আমন চাষে মাঠে ফেরেন চাষিরা। কৃষকের স্বপ্ন এবার বাঁচিয়েছে সোনালি আমন। বিভাগের চার জেলায়ই আমন ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। লক্ষ্যমাত্রার চেয়েও আমন উৎপাদন বেশি হবে বলে জানিয়েছে কৃষি বিভাগ।

এ বছল সিলেট বিভাগে জুড়েই ছিল প্রাকৃতিক দুর্যোগ। কখনো বন্যা, অতিবৃষ্টি, আবার কখনো বা অনাবৃষ্টি। তবে সব দুর্যোগ অতিক্রম করে এবার অগ্রাহয়ণ মাসে আমনের বাম্পার ফলন দেখে কৃষক-কৃষাণীর মুখে এখন আনন্দের হাসি ফুটেছে। তারা মেতে উঠেছেন ফসল তোলা উৎসবে। ইতোমধ্যে আমন ধান কাটা ও মাড়াইয়ের কাজ উৎসবমুখর পরিবেশে চলছে।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সিলেট বিভাগীয় কার্যালয় সূত্র জানায়, চার জেলার মধ্যে সবেচেয়ে বেশী আমনের ফলন হয়েছে সিলেট জেলায়। এরপর যথাক্রমে মৌলভীবাজার, সুনামগঞ্জ ও হবিগঞ্জে আমনের বাম্পার ফলন হয়েছে। বিভাগের চার জেলায় এ বছর রোপা আমন ধান আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৪ লাখ ৩ হাজার ২৮০ হেক্টর জমিতে। আর আবাদ হয়েছে ৪ লাখ ১৫ হাজার ৫৪৬ হেক্টর জমি। এ বছর হাইব্রিড, উফশী ও স্থানীয় জাতের ধান মিলে বিভাগে ১০ লাখ ৭৪ হাজার ৮০০ মেট্রিক টন চাল উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে।

বিভাগের চার জেলার মধ্যে সিলেটে চলতি বছর ১ লাখ ৪০ হাজার ৫০০ হেক্টর জমিতে আমন ধান আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ছিল। আর চাষ করা হয়েছে ১ লাখ ৪৩ হাজার ৪৭৩ হেক্টর জমি। এবছর চাল উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ৩ লাখ ৫৭ হাজার ৯৩০ মেট্রিক টন। তবে তা ছাড়িয়ে যাবে বলে আশা করা হচ্ছে।

মৌলভীবাজার জেলায় এ বছর আমন চাষাবাদে লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল ১ লাখ ১৪ হাজার ৫৫ হেক্টর জমিতে। আর চাষ করা হয়েছে ১ লাখ ১৬ হাজার হেক্টর জমি। চাল উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ২ লাখ ৯৭ হাজার ৪৬৩ মেট্রিক টন।

হবিগঞ্জ জেলায় এ বছর লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল ৮০ হাজার ২১০ হেক্টর জমিতে। আর চাষ করা হয়েছে ৮৮ হাজার ২৫৮ হেক্টর জমি। চাল উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ২ লাখ ২০ হাজার ৩৭১ মেট্রিক টন।

সুনামগঞ্জ জেলায় এ বছর লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল ৮১ হাজার ১১৫ হেক্টর জমিতে। আর চাষ করা হয়েছে ৮২ হাজার ২১৫ হেক্টর জমি। চাল উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ১ লাখ ৯৯ হাজার ৩৬ মেট্রিক টন।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সিলেট জেলার উপপরিচালক মোহাম্মদ খয়ের উদ্দিন মোল্লা বলেন, বন্যার পর সিলেটে অনুকূল আবহাওয়া থাকায় আমন ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। আগামী ১৫ দিনের মধ্যে জেলার সব ধান কাটা হয়ে যাবে। সিলেট জেলায় এরই মধ্যে আমন চাষের লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে গেছে। চাল উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ৩ লাখ ৫৭ হাজার ৯৩০ টন থাকলেও আশা করছি এবার তা ছাড়িয়ে যাবে। কৃষকদের সহায়তায় কৃষি যান্ত্রিকীকরণ প্রকল্পের ধান কাটার মেশিন ও বিনামূল্যে উন্নত জাতের বীজ ও সার দেওয়া হয়েছে।

কৃষি সম্প্রসারন অধিদফতর সুনামগঞ্জের উপ পরিচালক বিমল চন্দ্র সোম জানান, সুনামগঞ্জ জেলায় মোট কৃষি জমির ৩০ ভাগ জমিতে আমন ধানের চাষ করা হয়েছে। বাকি জমিতে নীচু এলাকায়, সেগুলোতে বোরো চাষ করা হয়ে থাকে। জেলায় ইতোমধ্যে প্রায় ৫৫ শতাংশ জমিত আমন ধান কাটা সম্পন্ন হয়েছে। বাকি জমিতে ধান কাটতে আরও ৮-১০ দিন সময়। সুনামগঞ্জে এবছর আমন ধানের ফলন প্রতি হেক্টরে সোয়া ৪ মেট্রিক টন ধান উপাদন হয়েছে- যা বিগত ৩০ থেকে ৩৫ বছরের মধ্যে সর্বাধিক।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের সিলেট বিভাগীয় অতিরিক্ত পরিচালক মো. মোশাররফ হোসেন খান জানান, সিলেট, সুনামগঞ্জ, মৌলভীবাজার ও হবিগঞ্জে জেলাতে এবার রোপা আমন ধান চাষের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৪ লাখ ৩ হাজার ৫৬০ হেক্টর জমি। এতে ৪ লাখ ১৫ হাজার ৪৫৬ হেক্টর জমিতে আমন চাষ করা হয়েছে। চলতি বছর হাইব্রিড, উফশী ও স্থানীয় জাতের ধান মিলে বিভাগে ১০ লাখ ৭৪ হাজার ৮০০ মেট্রিক টন চাল উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে। তবে এবার চাল উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে যাবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

এদিকে, আমন ধানের বাম্পান ফলনে কৃষকের মুখে হাসি ফুটলেও ন্যায্য দাম পাওয়া নিয়ে কিছুটা চিন্তার ভাঁজ কপালে থেকেই যাচ্ছে। অনেকে আবার ধান কাটার জন্য শ্রমিক সংকটেও ভুগছেন বলে জানিয়েছেন।

সিলেট সদর উপজেলার ধুপাগুল এলাকার কৃষক সবর আলী জানান, এ বছর কয়েকবার বন্যার পরও জমিতে আমন ধানের চাষ করেছি। আমাদের এলাকার সবার জমিতে ফলন ভালো হয়েছে; ধান কাটাও শুরু হয়েছে। প্রতি বছরের মতো এবার ধান কাটার শ্রমিক কম, তাই জমির ধান উঠাতেও দেরি হচ্ছে। তবে মেশিন দিয়েও চলছে ধান কাটা।

সিলেটের সীমান্তবর্তী এলাকা গোয়াইনঘাটের দ্বারিখেল এলাকার কৃষক মোঃ জমসেদ আলী বলেন, এ বছর ভয়াবহ বন্যা ও প্রাকৃতিক দুর্যোগের পর ধানের যে ফলন হয়েছে- তাতে আমরা খুশি। এ বছর বন্যা ও প্রাকৃতিক দুর্যোগে ইরি ফসলের যে পরিমান ক্ষতি হয়েছে- এরপর এ ফসল পেয়ে কিছুটা স্বস্তি পেয়েছি। সরকারের যান্ত্রিক সহায়তায় ফসল কাটতে এবং তুলতে খুবই সহায়ক হয়েছে বলে মন্তব্য করে এজন্য তিনি সরকার ও কৃষি বিভাগকে ধন্যবাদ জানান। একই সাথে তিনি কৃষকের উৎপাদিত ধানের ন্যায্য মূল্য নিশ্চিত করতে সরকারের নিকট দাবি জানান।

হবিগঞ্জে ঘুমন্ত অবস্থায় আগুনে পুড়ে কনস্টেবলের মৃত্যু
                                  

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি : হবিগঞ্জে ঘুমন্ত অবস্থায় আগুনে পুড়ে রুবেল আহমদ মন্টি (৩২) নামে ট্রাফিক পুলিশের এক কনস্টেবলের মৃত্যু হয়েছে।

মঙ্গলবার ভোরে পৌর শহরের ২ নম্বর পুল এলাকায় এ অগ্নিকাণ্ড ঘটে। নিহত রুবেল জেলা ট্রাফিক পুলিশ অফিসে কনস্টেবল হিসেবে কর্মরত ছিলেন। তিনি সিলেটের জৈন্তাপুরের আসামপাড়া এলাকার বাসিন্দা আব্দুল মালেকের ছেলে।

স্থানীয়রা জানায়, রুবেল মিয়াসহ কয়েকজন শহরের ২ নম্বর পুল এলাকায় সিরাজ উদ্দিন খান নামে এক ব্যক্তির বাসায় ভাড়া নিয়ে থাকতেন। ভোরে স্থানীয়রা ওই ঘরে আগুন দেখতে পেয়ে ফায়ার সার্ভিসে খবর দেন। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা ঘটনাস্থলে গিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন। তালাবদ্ধ ঘর থেকে আগুনে ঝলসে যাওয়া কনস্টেবল রুবেল মিয়ার মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

হবিগঞ্জ ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের উপ-সহকারী পরিচালক সাকরিয়া হায়দার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। এ ঘটনায় অপর একজন জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। তাকে সদর আধুনিক হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। তবে অগ্নিকাণ্ডের সঠিক কারণ জানা যায়নি। ধারণা করা হচ্ছে, গভীর রাত পর্যন্ত বিশ্বকাপ ফুটবল খেলা দেখে তিনি ঘুমিয়েছিলেন। যে কারণে তিনি আগুন লেগেছে বুঝতে পারেননি।

ব্রিটেনে মৌলভীবাজারের মেয়ে সালেহা সুলতানার ‘বার এট ল’ ডিগ্রী অর্জন
                                  

জিতু তালুকদার, মৌলভীবাজার:

ব্রিটেনে ‘বার এট ল’ ডিগ্রী অর্জন করেছেন মৌলভীবাজারের মেয়ে সালেহা সুলতানা। ব্রিটেনে বিদেশী শিক্ষার্থীদের মধ্যে অভাবনীয় সাফল্য অর্জন করেছে নতুন প্রজন্মের বাংলাদেশী শিক্ষার্থীরা। বর্তমান ব্রিটেনের বিভিন্ন ক্ষেত্রে অধ্যয়নরত বিদেশী শিক্ষার্থীদের মধ্যে সবচেয়ে এগিয়ে আছে বাংলাদেশী শিক্ষার্থীরা। এরই ধারাবাহিকতায় দেশটির লন্ডনের ‘লিনকনস ইন’ এ কৃতিত্বের সাথে ‘বার এট ল’ ডিগ্রী অর্জন করেছেন মৌলভীবাজারের মেয়ে বাংলাদেশী ব্রিটিশ শিক্ষার্থী সালেহা সুলতানা।

তিনি গত পহেলা ডিসেম্বর বৃহষ্পতিবার লিনকনস ইন থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে ‘বার এট ল’ ডিগ্রী পাসের সনদপত্র গ্রহণ করেছেন। ইতিপূর্বে তিনি এলএলবি, এলএলএম ও এলপিসি ডিগ্রী সম্পন্ন করেন। অনুষ্ঠানে লিনকনস ইন কিং কাউন্সিল ট্রেজারার জনাথন ক্রো তার হাতে ‘বার এট ল’ ডিগ্রী পাসের সনদপত্র তুলে দেন। সনদপত্র প্রদান অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে সালেহা সুলতানার মাতা ফারহানা বেগম চৌধুরী ও দাদী মোছাঃ ময়মনা খাতুন উপস্থিত ছিলেন।
 
ব্রিটেন প্রবাসী বিশিষ্ট সমাজসেবী, শিক্ষানুরাগী, ব্রিটেন ও বাংলাদেশের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী, রাজনগর ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস গ্রুপ ইউকে, এমবিএম বিজনেস গ্রুপ বিডি ও ড. মৌলা ফাউন্ডেশন’র চেয়ারম্যান, ইউকে-বাংলাদেশ ক্যাটালিস্ট অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রী (ইউকে-বিসিসিআই) ও মৌলভীবাজার জেলা জনসেবা সংস্থা মিডল্যান্ডস-ইউকে’র প্রেসিডেন্ট এবং মৌলভীবাজার থেকে প্রকাশিত সাপ্তাহিক সুরমার ঢেউ (website: www.surmardhau.com) পত্রিকার প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক ও প্রকাশক ড. এম জি মৌলা মিয়া এবং ফারহানা বেগম চৌধুরী’র কন্যা ও জুনেদ হোসেনের স্ত্রী সালেহা সুলতানা বাংলাদেশের সিলেট বিভাগের মৌলভীবাজার জেলাধীন রাজনগর উপজেলার পাঁচগাঁও ইউনিয়নস্থিত বাহাদুরগঞ্জ গ্রামের মেয়ে। তার স্বামী ব্রিটেন প্রবাসী জুনেদ হোসেনও এলএলবি, এলএলএম ও এলপিসি ডিগ্রী সম্পন্ন করে বর্তমানে সলিসিটর পেশায় নিয়োজিত।
 
ড. এম জি মৌলা মিয়া ও মিসেস ফারহানা বেগম চৌধুরী’র ২ কন্যা ও ২ পুত্রের মধ্যে কন্যা সালেহা সুলতানা সবার বড় সন্তান। দ্বিতীয় সন্তান কন্যা ফাবিহা সুলতানা ফ্যাশন ও টেক্সটাইলসে ব্যাচেলর ও মাস্টার্স সম্পন্ন করে ক্লোথিন ব্র্যান্ডের ডাইরেক্টর হিসেবে নিয়োজিত রয়েছেন। তৃতীয় সন্তান পুত্র তাওসিফুর রহমান বিএ (অনার্স), পিপিই এবং ইনভেস্টমেন্টে এমএসসি সম্পন্ন করে কেপিএমজি চার্টার্ড একাউন্ট্যান্ট প্রশিক্ষণ নিচ্ছেন। চতুর্থ সন্তান পুত্র মোস্তাফিজুর রহমান এস্টন বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্যামিকেল ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ছেন। দাদী ময়মনা খাতুনসহ পরিবারের সবাই ড. এম জি মৌলা মিয়া ও ফারহানা বেগম চৌধুরীর সন্তানদের জন্য সকলের দোয়া/আশীর্বাদ কামনা করেছেন। ড. এমজি মৌলা মিয়া তার চার সন্তানকে উচ্চশিক্ষায় শিক্ষিত করতে পেরে মহান আল্লাহর তায়ালার প্রতি শুকরিয়া আদায় করছেন এবং নিজেকে সৌভাগ্যবান মনে করছেন সন্তানদের এ সাফল্যে।

কানাইঘাটে ইউএনও বরাবরে স্মারকলিপি প্রদান
                                  

কানাইঘাট (সিলেট) প্রতিনিধি:
 
সিলেট জেলা অটোরিক্সা শ্রমিক ইউনিয়ন-৭০৭ শাখার অর্ন্তভুক্ত কানাইঘাট উত্তর বাজার উপ-পরিষদের সাধারণ সম্পাদক তাজুল ইসলাম ও কোষাধ্যক্ষ বশির আহমদ বিরুদ্ধে স্ট্যান্ডের শ্রমিকদের জমানো প্রায় ৭ লক্ষ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ তুলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার বরাবরে স্মারকলিপি প্রদান করেছেন ৭০৭ শাখার অর্ন্তভুক্ত কানাইঘাট উপজেলার বিভিন্ন উপ-পরিষদের নেতৃবৃন্দ। গত রবিবার বিকেল ৪টায় নির্বাহী কর্মকর্তা সুমন্ত ব্যানার্জি বরাবরে এ স্মারকলিপি প্রদান করা হয়

স্মারকলিপিতে উল্লেখ করা হয়, কানাইঘাট উত্তর বাজার উপ-পরিষদের সাধারণ সম্পাদক তাজুল ইসলাম ও কোষাধ্যক্ষ বশির আহমদ দায়িত্ব পালনকালে বিভিন্ন প্রতারণার আশ্রয় নিয়ে স্ট্যান্ডের শ্রমিকদের দৈনিক জমানো ৩ লক্ষ ৬৭ হাজার টাকা সহ বিভিন্ন খাতের মোট ৭ লক্ষ টাকার হিসাব না দিয়ে সমূহ টাকা সংগঠনের একাউন্ট থেকে জালিয়াতির মাধ্যমে উত্তোলন করে নিয়েছেন। শ্রমিকদের দাবী-দাওয়ার প্রেক্ষিতে উক্ত উপ-পরিষদের সভাপতি সহ অন্যান্য দায়িত্বশীলরা সাধারণ সম্পাদক ও কোষাধ্যক্ষের নিকট সংগঠনের হিসাব-নিকাশ চাইলে তারা কোন কর্ণপাত না করায় সংগঠনের দায়িত্বশীলরা সিলেট জেলা শাখার নেতৃবৃন্দকে অবহিত করলে জেলা শাখার নেতৃবৃন্দ সাধারণ সভার মাধ্যমে উভয়ের নিকট হিসাব-নিকাশ চাওয়ার পরও তারা কোন হিসাব-নিকাশ বুঝাইয়া না দেয়ায় জেলা শাখার নেতৃবৃন্দ উপ-পরিষদের কমিটিকে স্থগিত করে কানাইঘাট বাজার বণিক সমিতির সভাপতি, সেক্রেটারী, অটোরিক্সা শ্রমিক ইউনিয়নের জেলা শাখার সদস্য ও কানাইঘাট দক্ষিণ বাজার উপ-পরিষদের সভাপতি জুনেদ হাসান জীবান সহ ৫ সদস্যের একটি কমিটি করে স্থগিত উপ-পরিষদের সাধারণ সম্পাদক ও কোষাধ্যক্ষ হতে হিসাব-নিকাশ সহ টাকা উদ্ধারের দায়িত্ব দেয়া হয়। পরবর্তীতে তারাও একাধিকবার বৈঠক করলেও উপ-পরিষদের হিসাব-নিকাশ ও চেকপাতা উদ্ধার করতে পারেন নাই। শ্রমিক ইউনিয়ন কানাইঘাট উত্তর বাজার উপ-পরিষদের নিয়ম অমান্য করে রেজুলেশন খাতায় জাল-জালিয়াতি করে অনিয়ম-দুর্নীতির আশ্রয় নিয়া শ্রমিকদের জমানো প্রায় ৭ লক্ষ টাকা আত্মসাত করেছে বলে স্মারকলিপিতে বলা হয়। শ্রমিকদের জমানো টাকা উদ্ধার সহ আত্মসাতকারীদের বিরুদ্ধে দ্রুত প্রশাসনিক ব্যবস্থা নেওয়া না হলে কানাঘাটের শ্রমিকরা যে কোন ধরনে কর্মসূচি গ্রহণ করবেন বলে হুশিারী উচ্চারণ করেন।

স্মারকলিপি প্রদানকালে উপস্থিত ছিলেন, ৭০৭ শাখার জেলা কমিটির সদস্য ও কানাইঘাট দক্ষিণ বাজার উপ-পরিষদের সভাপতি জুনেদ হাসান জীবান, সাধাণ সম্পাদক উদ্দিন জিয়া উদ্দিন, কানাইঘাট উত্তর বাজার উপ-পরিষদের সভাপতি সভাপতি মোঃ জাকারিয়া, যুগ্ম সম্পাদক হারুন রমীদ, রাজাগঞ্জ উপ-পরিষদের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল হামিদ, শহর উল্লাহ উপ-পরিষদের সভাপতি আনোয়ার হোসেন, সাধারণ সম্পাদক এখলাছ উদ্দিন, গাছবাড়ী চৌমুহনী উপ-পরিষদের সভাপতি সালেহ আহমদ, সাধারণ সম্পাদক ওয়ারিছ উদ্দিন, চতুল বাজার উপ-পরিষদের সভাপতি মোঃ আলমগীর। সাধারণ সম্পাদক সেলিমুর রহমান, চতুল ঈদগাহ উপ- পরিষদের সভাপতি আলমাছ, সাধারণ সম্পাদক ফয়ছল আহমদ, সুরইঘাট উপ-পরিষদের সভাপতি মামুন আহমদ, বড়বন্দ বাজার- উপ-কমিটির সভাপতি আলমাছ উদ্দিন সহ বিভিন্ন স্ট্যান্ডের নেতৃবৃন্দ।

সিলেটে অজ্ঞান পার্টির দৌরাত্ম্য, সর্বস্ব হারাচ্ছেন মানুষ
                                  

মুফিজুর রহমান নাহিদ : সিলেটে বেপরোয়া হয়ে উঠেছে  অজ্ঞান পার্টির সদস্যরা । প্রতিদিনই নগরীর কোথাও না কোথাও সর্বস্ব খোয়ানোর খবর আসছে। হঠাৎ করে অজ্ঞান পার্টির তৎপরতা বেড়ে যাওয়ায় গণপরিবহন থেকে শুরু রাস্তায় চলাচলকারী মানুষ উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছেন।

গত কয়েক বছরে সিলেটে অজ্ঞান পার্টির কর্মকাণ্ডের কথা খুব বেশি শোনা যায়নি। তবে ইদানীং প্রায়ই অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে পড়ে অনেকেই হারাচ্ছেন সর্বস্ব। অজ্ঞান পার্টি দমনে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নজরদারি ও গোয়েন্দা কার্যক্রম বাড়ানোর তাগিদ দিয়েছেন সচেতন নগরবাসী।

অজ্ঞান পার্টির সদস্যরা সাধারণত বাস টার্মিনাল ও রেলস্টেশনের মতো জনবহুল স্থানে ঘুরে বেড়ায়। চেতনানাশক মেশানো পানীয় বা খাবার খাইয়ে কিংবা হকার, সহযাত্রী-বন্ধু সেজে সাধারণ মানুষের সব কিছু কেড়ে নিচ্ছে অজ্ঞান পার্টির সদস্যরা। আবার কখনো বাস, অটোরিকশা, ট্রেনের যাত্রীদের পাশে বসে তাদের নাকের কাছে চেতনানাশক মেশানো রুমাল ধরে অজ্ঞান করে সবকিছু লুটে নেয়।

সম্প্রতি সিলেটে এ ধরনের বেশ কয়েকটি ঘটনা ঘটেছে। সর্বশেষ সোমবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে সিলেট শহরতলির বটেশ্বর এলাকা থেকে এমসি কলেজের এক ছাত্রীকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করেছে পুলিশ। এসময় ওই ছাত্রীর কাছে ও আমাদের শিকার নয় টিস্যুতে লেখা একটি চিরকুট পাওয়া যায়। তার বাড়ি সিলেটের দক্ষিণ সুরমা উপজেলায়।

চেতনা ফেরার পর ওই কলেজছাত্রী পুলিশকে জানায়, সকালে বাড়ি থেকে পরীক্ষা দিতে বের হয়েছিলেন। বেলা ১১টার দিকে নগরের বন্দরবাজার এলাকায় একটি সিএনজিচালিত অটোরিকশায় ওঠেন। এসময় তার দুই পাশে দুই নারীও উঠেছিলেন। এরপর আর কিছু বলতে পারেননি। হাসপাতালে তার চেতনা ফেরে।

পুলিশ বলছে, বটেশ্বর এলাকার গ্রিন লঙ্কা রেস্তোরাঁর সামনে থেকে অচেতন অবস্থায় কলেজ ছাত্রীকে দেখতে পেয়ে স্থানীয়রা বিষয়টি পুলিশকে জানালে তাকে উদ্ধার করা হয়। এসময় কাছ থেকে কলেজের একটি রেজিস্ট্রেশন কার্ড পাওয়া গেছে। রেজিস্ট্রেশন কার্ড রাখার ফাইলে টিস্যুতে কলম দিয়ে লেখা, ও আমাদের শিকার নয়। আমাদের গাড়িতে সিগন্যাল দিছে, এর লাগি আমরা পুরিরে (সিগন্যাল দেওয়ায় মেয়েকে) গাড়িত তুলতে বাধ্য হইছি। কোনো ভালো মানুষ পাইলে পৌঁছায় দিও এমন চিরকুট পাওয়া যায়।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে শাহপরান (রহ.) থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সৈয়দ আনিসুর রহমান বলেন, ধারণা করা হচ্ছে কলেজছাত্রী অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে পড়েছিলেন। তার সাথে মোবাইল কিংবা মূল্যবান তেমন কিছু না থাকায় সম্ভবত তাকে রেখে গেছে।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ঊর্ধ্বতন কয়েকজন কর্মকর্তা বলছেন, ব্যবসায়ী, চাকরিজীবী, বাড়ি ফেরাসহ বিভিন্ন পেশার লোকদের টার্গেট করে তৎপরতা চালায় অজ্ঞান পার্টির সদস্যরা। তারা টার্গেট করা ব্যক্তিকে চেতনাকাশক কিছু খাইয়ে বা ঘ্রাণ শুঁকিয়ে অজ্ঞান করে সর্বস্ব নিয়ে পালিয়ে যায়। এতে গুরুতর অসুস্থ হয়ে অনেকের মৃত্যুও ঘটে।

অপরাধ বিশেষজ্ঞ ও ভুক্তভোগীরা বলছেন, কাউকে টার্গেট করার পর তার পাশে বসে বা কথা বলে ভাব জমিয়ে বিশ্বাসযোগ্যতা তৈরি করে। এভাবে আলাপের ফাঁকে কোমলপানীয় বা অন্য কিছুর সঙ্গে বিষাক্ত চেতনানাশক খাওয়ানো হয়। চক্রের সদস্যরা বিভিন্ন গ্রুপে ভাগ হয়ে কেউ অজ্ঞান করে আবার কেউ সর্বস্ব কেড়ে নিয়ে সটকে পড়ে। এর বাইরে কোনো কোনো চক্র চেতনানাশক মাদক ব্যবহার করেও সর্বস্ব কেড়ে নেয়।

এদিকে যারা অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে পড়েছে তাদের বেশিরভাগই ঝামেলা এড়াতে অনেকে মামলা করেন না। আবার মামলা বা গ্রেফতার হলেও স্বল্প সাজা ও জামিনে বের হয়ে যায়। এসব প্রতারণায় আইন কঠোর হওয়া উচিত বলে মনে করেন ভুক্তভোগি ও অপরাধ বিশেষজ্ঞরা। আবার আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ঝিমিয়ে যাওয়ায় অজ্ঞান পার্টির তৎপরতা বেড়ে গেছে।

এ ব্যাপারে সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের মুখপাত্র অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার সুদীপ দাস দৈনিক স্বাধীন বাংলাকে বলেন, অজ্ঞান পার্টি, মলম পার্টি ছিনতাইকারীদের দৌরাত্ম্য থামাতে পুলিশের বিশেষ দল মাঠে কাজ করছে। অনেককে ধরে আইনের আওতায় আনা হয়েছে। তবে এদের কোনোভাবেই নির্মূল করা যাচ্ছে না। এ জন্য পথচারী ও যাত্রী সবাইকে সতর্ক হতে হবে।

শেভরনের অর্থায়নে সিলেটে উদ্যোক্তা মেলা অনুষ্ঠিত
                                  

সিলেট ব্যুরো:

উদ্যোক্তা প্রকল্পের পক্ষ থেকে আইডিই বাংলাদেশ সিলেটের ময়ুর কুঞ্জ কনভেনশন হলে ‘উদ্যোক্তা মেলা’র আয়োজন করে। মেলাটি ছিল দিনব্যাপী একটি ইভেন্ট যার লক্ষ্য ছিল প্রকল্পের কার্যক্রমের ফলাফল সম্পর্কে সকলকে অবগত করা এবং উদ্যোক্তাদের অভিজ্ঞতা বিনিময়ের মাধ্যমে তাদের ও গ্রাম উন্নয়ন সংগঠনগুলির (ভিডিও) ব্যবসায়িক মুনাফা বৃদ্ধিতে সহযোগিতা করা। এই মেলার মাধ্যমে বাজার ব্যবস্থাপনার সাথে সংশ্লিষ্ট সকল এক্টরদের (সরকারী এবং বেসরকারী খাত সহ) একটি প্ল্যাটফর্মের অধীনে নিয়ে আসা।

উদ্যোক্তা প্রকল্প একটি তিন বছরের (২০২০-২০২২) প্রকল্প যা শেভরনের বাংলাদেশ পার্টনারশিপ ইনিশিয়েটিভের (দ্বিতীয় পর্যায়) অধীনে ডিসেম্বর ২০১৯ সালে শেভরন এবং আইডিই বাংলাদেশের মধ্যে একটি অংশীদারিত্ব চুক্তি স্বাক্ষরের মাধ্যমে চালু হয়েছিল।  অংশীদারিত্বটি সিলেট বিভাগের শেভরন বিপিআই অধীনস্থ এলাকায়: সিলেট, মৌলভীবাজার এবং হবিগঞ্জে উদ্যোক্তাদের ব্যবসার উন্নয়ন, স্থানীয় উদ্যোক্তা তৈরি এবং বাজার ব্যবস্থাকে শক্তিশালী করে গ্রামীণ জনগোষ্ঠীর আয় ও জীবিকার উন্নতির মাধ্যমে বাংলাদেশে শেভরনের বিনিয়োগকে প্রসারিত করতে চায়।

উদ্যোক্তা মেলা দু’ভাগে বিভক্ত ছিল। প্রথম পর্বে সিলেট জেলার জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ মজিবর রহমান প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে উদ্যোক্তা মেলার উদ্বোধন করেন এবং মেলার উদ্বোধনী অধিবেশনে সভাপতিত্ব করেন। পরবর্তী পর্বে বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিচালক (পরিদর্শন) একেএম এহসান প্রধান অতিথি হিসেবে মেলার সমাপনী অধিবেশনে সভাপতিত্ব করেন।

মেলায় সম্মানিত অতিথিরা ছিলেন ডি বোরবন, সিনিয়র সামাজিক বিনিয়োগ উপদেষ্টা, ওপিজি কর্পোরেট অ্যাফেয়ার্স, শেভরন কর্পোরেশন;  টিফানি উইঞ্চ-বুইস্ট, হাব ম্যানেজার, ওপিজি কর্পোরেট অ্যাফেয়ার্স, শেভরন কর্পোরেশন, তুষারুজ্জামান খন্দকার, সোশ্যাল ইনভেস্টমেন্ট ম্যানেজার, শেভরন বাংলাদেশ, হাসান ইমাম আকন, ফিল্ড কর্পোরেট অ্যাফেয়ার্স ম্যানেজার, শেভরন বাংলাদেশ।

মেলায় আরও উপস্থিত ছিলেন মোহাম্মদ মোবারক হোসেন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক এবং রাজস্ব), সিলেট;  ফারুক হোসেন, অতিরিক্ত সহকারী পরিচালক (শস্য), ডিএই, সিলেট; ডঃ মোহাম্মদ শহিদুল্লাহ, ডিএলএস, অতিরিক্ত জেলা প্রানিসম্পদ অফিসার, সিলেট; আলীমুস সাদাত চৌধুরী, চেয়ারম্যান, আলিম ইন্ডাস্ট্রিজ লি.; আইডিই প্রতিনিধি, এবং প্রিন্ট-ইলেকট্রনিক ও অনলাইন মিডিয়ার প্রতিনিধিরা।

উদ্যোক্তা মেলার উদ্বোধনী অধিবেশনে স্বাগত বক্তব্য দেন আইডিই-এর হেড অব স্ট্র্যাটেজিক পার্টনারশিপ মোঃ আফজাল হোসেন ভূঁইয়া।

উল্লেখ্য, দু’শতাধিক উদ্যোক্তা মেলায় অংশ নিয়েছিলেন, যারা এখানে বিভিন্ন সরকারী ও বেসরকারী খাতের সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির সাথে ব্যবসায়িক সম্পর্ক স্থাপনের দুর্দান্ত সুযোগ পেয়েছিলেন। উদ্যোক্তা মেলায় ২৬টি স্টলের মাধ্যমে বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠান, বেসরকারি প্রতিষ্ঠান, ব্যাংক এবং ব্যক্তিবর্গ তাদের পণ্য ও সেবার প্রতিনিধিত্ব করেন। উদ্যোক্তা প্রকল্পের উদ্যোক্তারা এমন একটি আকর্ষণীয় অভিজ্ঞতার অংশ হওয়ার জন্য কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন।

শেভরন বাংলাদেশ সর্বস্তরেই সমাজের মানুষজনকে নিয়ে কাজ কওে, যেন তাদের সাথে দীর্ঘস্থায়ি সম্পর্ক স্থাপন করা যায় যা তাদেরকে অর্থনৈতিকভাবে সমৃদ্ধ এবং স্বাবলম্বী হতে সাহায্য করে। বিশ্বব্যাপীই এ ধরণের সামাজিক বিনিয়োগ শেভরন কর্পোরেশনের অন্যতম প্রধান লক্ষ্য। বাংলাদেশে শেভরন ২০০৬ সাল থেকে সামাজিক বিনিয়োগের কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে। শেভরন বাংলাদেশ মূলত এমন কার্যক্রম এবং প্রোগ্রামগুলিতে বিনিয়োগ করে যা প্রাথমিকভাবে কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে সহায়তা, শিক্ষার অধিকার নিশ্চিতকরণ, প্রাথমিক স্বাস্থ্যসেবা সুবিধা, দক্ষতা উন্নয়ন এবং উদ্যোক্তাদের সহযোগিতার উপর প্রাধান্য দেয়। এই প্রকল্পগুলির বেশিরভাগই শেভরন নেতৃস্থানীয় বেসরকারী সংস্থাগুলির সাথে অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে পরিচালনা করে। আইডিই একটি আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থা যারা নিম্ন আয়ের মানুষদেরকে অর্থনৈতিক ও সামাজিকভাবে শক্তিশালী করতে কাজ করে যেন তারা বহুবিধ প্রতিকূলতা মোকাবেলায় পারদর্শী হয়ে ওঠে। বাংলাদেশে আইডিই তার প্রথম কান্ট্রি প্রোগ্রাম হিসেবে যাত্রা শুরু করে ১৯৮৪ সালে।

চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন সাংবাদিক রুবেল
                                  

দিরাই(সুনামগঞ্জ)প্রতিনিধি:
হাজারো মানুষের ভালবাসা নিয়ে দ্বিতীয় দফা জানাজা শেষে নিজ গ্রামের কবরস্থানে চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলার করিমপুর ইউনিয়নের সাবেক ইউপি সদস্য ও অনলাইন সংবাদমাধ্যম দৈনিক ভাটির দর্পন ২৪ ডটকম এর উপদেষ্টা রুবেল মিয়া।

গত ২৪ নভেম্বর বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ সময় রাত ১০ ঘটিকার সময় মাল্টার একটি হাসপাতালে তিনি ইন্তেকাল করেন। ৩৬ বছর বয়সী এই সাবেক জনপ্রতিনিধি ও অনলাইন সংবাদমাধ্যম দৈনিক ভাটির দর্পন ২৪ ডটকম এর উপদেষ্টা রুবেল মিয়া  স্ত্রী, এক ছেলে, দুই মেয়ে, আত্মীয়স্বজনসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।
জানা গেছে, দীর্ঘদিন যাবৎ তিনি ইউরোপ (মাল্টায়) বসবাস করছিলেন হটাৎ করে ২৪ নভেম্বর বৃহস্পতিবার রাতে পৃথিবীর মায়া ছেড়ে চিরদিনের জন্য চলে যান তিনি। তার মৃত্যুর সংবাদ ছড়িয়ে পড়লে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুক ও দিরাই উপজেলায় নেমে আসে শোকের ছায়া।

মৃত্যুর পর পহেলা ডিসেম্বর সন্ধ্যা মাল্টার একটি মসজিদে প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। জানাজা শেষে মরহুমের লাশ তার গ্রামের বাড়ি উপজেলার করিমপুর ইউনিয়নের নাগের গাঁও গ্রামে নিয়ে আসা হয়। পরে আজ ৪ ডিসেম্বর রবিবার সকাল ১১টায় দ্বিতীয় জানাজা শেষে গ্রামের কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়।

এদিকে রুবেল মিয়ার মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন দিরাই উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মঞ্জুর আলম চৌধুরী, দিরাই পৌরসভার সাবেক মেয়র মোশাররফ মিয়া, সাবেক ইউপি সদস্য রিপন মিয়া, জাবিরনূর আহমদ চৌধুরী জাবেদ প্রমুখ।

নতুন বছরে অর্থনৈতিক চাপ থাকবে না : পরিকল্পনামন্ত্রী
                                  

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি : পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেছেন, নতুন বছরে দেশে কোনো অর্থনৈতিক চাপ থাকবে না। এ মুহূর্তে সোনালী ফসলে ভরপুর, খাদ্য গুদামে চালের জায়গা হচ্ছে না। বাজারে মাছ-মাংসের অভাব নেই।

রবিবার বেলা সাড়ে ১১টায় সুনামগঞ্জের মল্লিকপুর ব্যাটালিয়নে ২৮ বিজিবির মাদকদ্রব্য ধ্বংস অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, ‌‌‌মানুষের আয় ক্রমান্বয়ে বাড়ছে। নতুন নতুন মানুষ বাজারে প্রবেশ করছে। মানুষের চাহিদা ও জোগানের মধ্যে একটি গ্যাপ সৃষ্টি হয়েছে। এটি বিশ্বের সকল দেশে হয়।

তিনি বলেন, মাদক দ্রব্য যেসব রুটে আসে সেগুলো চিহ্নিত করা হবে। সব সীমান্ত রোডের উন্নয়ন করা হবে। তবে বুঝতে হবে দেশের সম্পদ সীমিত, দেশের উন্নয়নের জন্য সামাজিক শান্তি-শৃঙ্খলা-স্থিতিশীলতা সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন।

তিনি আরও বলেন, আমনের ভালো ফলনের জন্য নতুন বছর ভালো হবে। গুদামে চালের জায়গা হচ্ছে না। আমরা চাল আমিদানি করতে চাই না। আগামী পাঁচ বছর দেশের উন্নয়নে কী কাজ করতে হবে তা প্রধানমন্ত্রীর মাথায় প্ল্যানিং করা আছে। বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের তথ্যের ভিত্তিতে উন্নয়ন পরিকল্পনা করা হয়।

বিজিবির মাদকদ্রব্য ধ্বংস অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সুনামগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোয়াজ্জেম হোসেন রতন, জেলা প্রশাসক জাহাঙ্গীর হোসেন, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ এহসান শাহ, ২৮ বিজিবির পরিচালক মাহবুবুর রহমান প্রমুখ।

এ সময় বিজিবি সদস্যরা ৪৫ হাজার ৬৮১ বোতল ভারতীয় মদ, ১ হাজার ৭৩৭ বোতল বিয়ার, ৪৪৫ কেজি গাঁজাসহ বিভিন্ন প্রকার মাদক ধ্বংস করেন।

জৈন্তাপুরে রাতের আঁধারে যুবককে কুপিয়ে হত্যা
                                  

এম এম রুহেল, জৈন্তাপুর (সিলেট) : সিলেটের জৈন্তাপুরে মোক্তার হোসেন নামে এক যুবককে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। রবিবার সকালে উপজেলার দরবস্ত ইউনিয়নের তেলিজুরি রাস্তার পাশ থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়।

মোক্তার হোসেন উপজেলার দরবস্ত ইউনিয়নের তেলিজুরি গ্রামের রহমত উল্লাহর ছেলে।

পুলিশ ও গ্রামবাসীর সূত্রে জানা যায়- মোক্তার হোসেন গৃহ শিক্ষক ছিলেন। প্রতিদিনের মত শনিবার সন্ধায় বাড়ি বের হয়ে আসেননি। তার পরিবারের অনেক খোঁজাখুঁজির পর লাশের সন্ধান পান।

জৈন্তাপুর মডেল থানার ওসি গোলাম দস্তগীর আহমদ জানান, হত্যাকাণ্ডের খবর পেয়ে আমি দ্রুত ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করি এবং অধিকর তদন্তের জন্য নিহতের লাশ সিলেট ওসমানি হাসপালের মর্গে পাটানো হয়।

এদিকে ঘটনাস্থল পরির্দশন করেছেন জৈন্তাপুর উপজেলা চেয়ারম্যান কামাল আহমদ, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্জ জয়নাল আবেদীন, ৪নং দরবস্ত ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বাহারুল আলম বাহারসহ নেতৃবৃন্দ।

সিলেটে নগরীতে নির্মিত হচ্ছে হাইরাইজ বিল্ডিং, আগুন নিয়ন্ত্রণে গ্যাড়াকলে ফায়ার সার্ভিস
                                  

সিলেট ব্যুরো:

সিলেট অঞ্চলসিলেটে নগরীতে একরে পর এক ছোট বড় জলাশয় মাটি ভরাট করে নির্মাণ করা হচ্ছে উচু উচু বিল্ডিং। যার ফলে সিলেট নগরী থেকে কমে গেছে জলাশয়ের সংখ্যা। কিন্তু বড় সমস্যা দাঁড়িয়েছে, নগরীর কোথাও বড় ধরনের অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটলে পানির জন্য আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে ফায়ার সার্ভিসকে বেগ পেতে হচ্ছে।

স্থানীয় বাসিন্দাদের তথ্যমতে, সিলেট নগরে এক সময় দিঘিসহ ছোট-বড় পুকুর প্রায় অর্ধশতাধিক ছিল। এসবের নামে বিভিন্ন এলাকার নামকরণও হয়। এদিকে নগরায়ণের ফলে এলাকার নাম থাকলেও সেই পুকুর-দিঘির সিংহভাগই ভরাট হয়ে গেছে, নির্মাণ করা হয়েছে বাসাবাড়ি। অপরিকল্পিত নগরায়ণের ফলে রামের দিঘি, লালদিঘি, মাছুদিঘি, সাগরদিঘি, চারাদিঘি নামের সঙ্গে ‘পার’ যুক্ত হয়ে শুধু টিকে আছে এলাকার নাম গুলো। অন্যদিকে ভরাট করে গড়ে তোলা বহুতল ভবনের প্রায় ৭০ শতাংশ ভবনেই নেই অগ্নি নির্বাপণ ব্যবস্থা। ফলে অগ্নিকাণ্ডের সময় ফায়ার সার্ভিসকে পানি সংকটে পড়তে হয়। পানির যোগান দিতে ফায়ার সার্ভিস হাইড্রেন্ট পয়েন্ট তৈরির সুপারিশ করলেও বাসা-বাড়িতে হাইড্রেন্ট রিজার্ভ নিশ্চিতকে গুরুত্ব দিচ্ছে সিটি করপোরেশন।

বিশেষজ্ঞদের মতে, শুধু ফায়ার হাইড্রেন্ট পয়েন্ট হলেই হবে না। পরিকল্পনা আর ইমারত নির্মাণ আইনের বাস্তবায়ন খুব জরুরী। কারণ এখন অধিকাংশ বাসা তৈরি হচ্ছে যেগুলোর রাস্তা একেবারেই ছোট। এতে আগুন লাগলে দ্রুত ফায়ার সার্ভিসের গাড়ি ঘটনাস্থলে যেতে বাধাপ্রাপ্ত হবে। ভবন নির্মাণে পর্যাপ্ত রাস্তাসহ সঠিক পরিকল্পনার অভাবে দেখা দিতে পারে মহাবিপদ।

সিলেট ফায়ার সার্ভিস এন্ড সিভিল ডিফেন্সের সহকারী পরিচালক মো. শফিকুল ইসলাম ভূঁইয়া জানান, আগুন নেভানোর জন্য সবচেয়ে জরুরী পানি। কিন্তু মহানগরের অধিকাংশ এলাকাতে পানির উৎস নেই। ফলে  কোথাও অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটলে পানির তীব্র সমস্যায় পড়তে হয়। এজন্য গত দু’বছর আগে ফায়ার হাইড্রেন্ট পয়েন্ট নির্মাণের জন্য সিটি কর্পোরেশনের কাছে প্রস্তাবনা দিয়েছি। এটি বাস্তবায়ন করা খুবই জরুরী।

সিলেট সিটি কর্পোরেশনের প্রধান প্রকৌশলী নূর আজিজুর রহমান বলেন, হাইড্রেন্ট পয়েন্ট খুব কার্যকরী হবে বলে মনে হচ্ছে না। কারণ আমাদের এখানে পানির প্রেসার সব সময় সমান থাকে না। তাই আমরা হাইড্রেন্ট পয়েন্ট নির্মাণের বদলে বাসাবাড়িতে হাইড্রেন্ট রিজার্ভ নিশ্চিত করার বিষয়টিতে গুরুত্ব দিচ্ছি।

ছাতকে ভয়াবহ নদী ভাঙনে শতাধিক পরিবার বিলীন
                                  

সেলিম মাহবুব, ছাতক:
ছাতকে ভয়াবহ নদী ভাঙ্গনে অর্ধ শতাধিক বসত ও প্রায় অর্ধ শতাধিক একর ফসলী জমি নদী গর্ভে বিলিন হয়ে গেছে। নদীর তীর সংলগ্ন একটি পাড়ায় বসবাসকৃত মুচি সম্প্রদায়ের লোকজন বসত ভিটা হারিয়ে হয়ে পড়েছে অস্থিত্বহীন। প্রায় অর্ধ কিলোমিটার পাকা সড়ক গিলে খেয়েছে খরস্রোতা বটেরখাল নদী। ফসলি জমি, অগনিত বাঁশ ঝাড় ও গাছ-গাছড়া ইতিমধ্যেই চলে গেছে নদী গর্ভে। নদী ভাঙ্গনের হুমকীর মুখে রয়েছে একটি মাদ্রাসা, একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়, শতাধিক পাকা-আধাপাকা বাড়ি, মসজিদ সহ বিভিন্ন স্থপনা।

এছাড়া গোবিন্দগঞ্জ-বিনোদনগর সড়কের আরো প্রায় অর্ধ কিলোমিটার সড়ক নদীগর্ভে বিলিন হওয়ার অপেক্ষার প্রহর গুনছে। সড়কটি নদী ভাঙ্গনের শিকার হলে এ সড়ক ব্যবহার করা অন্তত ৭৫টি গ্রামের লক্ষাধিক মানুষ যাতায়াতের ক্ষেত্রে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হবে। বর্তমানে প্রতি দিন-রাত নদী ভাঙ্গনের আতংকে কাটে এসব এলাকার মানুষের।

স্থানীয়রা জানান, সিলেট-সুনামগঞ্জ মহাসড়কের গোবিন্দগঞ্জ ডিগ্রি কলেজের মুখ হতে বিনোদনগর পর্যন্ত পাকা সড়ক দিয়ে অত্র এলাকার ৭৫টি গ্রামের লক্ষাধিক মানুষের যাতায়াত। এ সড়ক অন্যান্য সড়কের সাথে সংযুক্ত হয়ে উপজেলা সদর, জেলা ও বিভাগের সাথে সহজ সড়ক যোগাযোগ সৃষ্টি করেছে। অপর দিকে গোবিন্দগঞ্জ বাজার ও সড়কের পাশ দিয়ে বয়ে গেছে ভটেরখাল নামক নদী। শুষ্ক মৌসুমে নদীটি শান্ত থাকলেও বর্ষায় ভটেরখাল নদী ভয়াবহ রূপ ধারণ করে। খরস্রোতা ভটেরখাল নদীর ভাঙ্গনের মুখে পড়ে গোবিন্দগঞ্জ বাজার সহ গোবিন্দনগর গ্রাম। দীর্ঘদিন ধরে চলে আসা নদী ভাঙ্গনে ভটেরখাল নদীর মুল চিত্র বলে যায়। গোবিন্দগঞ্জ বাজার হতে গোবিন্দনগর মাদ্রাসা সংলগ্ন এলাকা পড়ে ভয়াবহ ভাঙ্গনের মুখে। ফসলী জমি, অগনিত বাঁশ ঝাড়, গাছ-গাছড়া তলিয়ে যায় নদী গর্ভে। সড়ক সংলগ্ন নদীর তীর এলাকায় যুগ-যুগ ধরে বসবাসরত মুচি সম্প্রদায়ের বসতভিটা কেড়ে নিয়েছে ভটরখাল নদী। ভিটে-মাটি হারিয়ে হত দরিদ্র মুচি সম্প্রাদয়ের ১০-১২টি পরিবার এখন খোলা আকাশের নিচে দিনানিপাত করছে। তাদের অসহায়ত্বে সাহায্যের হাত বাড়িয়েছেন সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান অলিউর রহমান চৌধুরী বকুল, স্থানীয় মুজিবুর রহমান সহ এলাকার ধনাঢ্য ব্যক্তিরা। সরকারী সহায়তা বঞ্চিত মুচি সম্প্রদায়ের বসবাসের জন্য সামান্য ভূমি ক্রয়ের উদ্যোগ নিয়েছেন তারা। এদিকে সম্প্রতি ঘটে যাওয়া স্মরণকালের ভয়াবহ বন্যায় গোবিন্দগঞ্জ-বিনোদনগর সড়কের মারাত্মক ক্ষতি সাধিত হয়েছে।

গোবিন্দনগর মাদ্রাসার সহশ্রাধিক শিক্ষার্থী, গোবিন্দনগর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের আরো কয়েক শ’ ছাত্র-ছাত্রী, ব্যবসায়ী ও এলাকার হাজার-হাজার মানুষ নিয়মিত যাতায়াত করছে এ সড়ক দিয়ে। বর্তমানে নদী ভাঙ্গনের মারাত্মক হুমকীর মুখে রয়েছে গোবিন্দগঞ্জ বাজার, গোবিন্দনগর মাদ্রাসা, প্রাথমিক বিদ্যালয় সহ গোবিন্দনগর গ্রাম। ভটেরখাল নদীর ভয়াবহ ভাঙ্গনের হাত থেকে মাদ্রাসা, স্কুল, গোবিন্দগঞ্জ বাজার, গোবিন্দনগর গ্রাম সহ অত্র এলাকা রক্ষার দাবী তুলেছেন এলাকাবাসী। পাশাপাশি সরকারী সুবিধা বঞ্চিত মুচি সম্প্রদায়ের লোকজনদের পূনর্বাসে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন তারা।

বুধবার নদী ভাঙ্গন রোধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনে প্রধান মন্ত্রীর হস্থক্ষেপ কমনা করে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে গোবিন্দনগর গ্রামের মুজিবুর রহমান বলেন, বর্তমানে যেখানে এখন নদী দেখা যাচ্ছে, এখানে ছিল এলাকার মানুষের ফসলী জমি, বসতঘর ও গাছ-গাছড়া। ভাঙ্গন রোধ না করলে গোটা এলাকা এক সময় নদী গর্ভে বিলিন হয়ে যাবে। গোবিন্দনগর মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওলানা আব্দুস ছালাম আল মাদানী বলেন, নদী ভাঙ্গনের হুমকির মুখে পড়েছে দ্বীন শিক্ষার প্রতিষ্ঠান গোবিন্দনগর মাদ্রাসা। মাদ্রাসার পাশ দিয়ে চলে যাওয়া গোবিন্দগঞ্জ-বিনোদনগর সড়কটি বিভিন্ন অংশে নীচের মাটি সরে গেছে। বিপদজনক অবস্থায় এ সড়ক দিয়ে এখন যান চলাচল করছে। সড়কটি রক্ষা করা হলেই মাদ্রাসা, স্কুল সহ গোটা এলাকা রক্ষা হবে। ছাতক উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান অলিউর রহমান চৌধুরী বকুল বলেন, ভটেরখাল নদীর ভাঙ্গনে ভিটে-মাটি হারা মুচি সম্প্রদায়ের লোকজন মানবেতর জীবন যাপন করছে। প্রায় অর্ধ কিঃমিঃ পাকা সড়ক চলে গেছে নদী গর্ভে এবং আরো প্রায় অর্ধ কিঃমিঃ সড়ক বিলিন হওয়ার উপক্রম। এ সড়ক সুরক্ষা ও মুচি সম্প্রদায়ের পূনর্বাসনে মানবতার মা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কৃপা দৃষ্টি কামনা করেছেন তিনি। এসময় মাদ্রাসার উপাধ্যক্ষ মাওলানা আবু সালেহ আব্দুস সোবহান, মাওলানা আব্দুল হাকিম, মাওলানা দ্বীন ইসলাম, প্রভাষক মাওলানা মঈনুল হক মুমিন, কাউসার আহমদ, শাহজাহান আলী, মনসুর আহমদ, ছালিক আহমদ সহ এলাকার লোকজন উপস্থিত ছিলেন।

জৈন্তাপুরে যুবকের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার
                                  

সিলেট ব্যুরো:

সিলেটের জৈন্তাপুর থেকে এক যুবকের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। নিহত যুবকের নাম রুহুল আমিন (২৫)। নিহত রুহুল আমিন উপজেলার নিজপাট ইউনিয়নের টিপরাখলা গ্রামের খোকন আহমদেও ছেলে।

মঙ্গলবার (২৯ নভেম্বর) দিবাগত রাত ১টার দিকে পরাখলা গ্রাম থেকে মরদেহ উদ্ধার করা হয়। বুধবার (৩০ নাবেম্বর) সকালে মরদেহ ময়না তদন্তের জন্য ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।

পুলিশ জানায়, রাত সাড়ে ১১টায় খাওয়া দাওয়া শেষে শয়ন কক্ষে ঘুমাতে যায় রুহুল আমিন। কিছুক্ষণ পর ঘরে লোকজন কক্ষে ঢুকে দেখতে পান তীরের সঙ্গে তার নিথর দেহ ঝুলন্ত অবস্থায় রয়েছে। তা দেখে পরিবারের লোকজনের আর্তচিৎকারে আশপাশের লোকজন জড়ো হন।

খবর পেয়ে তাৎক্ষণিক থানা পুলিশকে ঘটনাটি অবহিত করলে রাতেই মরদেহ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসেন।

দিরাইয়ে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে ২০ দোকান পুড়ে ছাই
                                  

দিরাই(সুনামগঞ্জ)প্রতিনিধি:

সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলার শ্যামারচর বাজারে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। মঙ্গলবার ২৯ নভেম্বর দিবাগত রাত ২ টার দিকে এ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। রাত ২টা ৪৫ মিনিটের সময় খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে গিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্স চারটি ইউনিটের সদস্যরা। এ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় কমপক্ষে ২০টি দোকান ভষ্মিভূত হয়েছে বলে জানা গেছে।

দিরাই ফায়ার সার্ভিস সিভিল ডিফেন্সের স্টেশনের ভারপ্রাপ্ত অফিসার মো. ইন্দুল হক জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে গিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করেন সুনামগঞ্জ সদর ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের একটি ইউনিট, শান্তিগঞ্জের একটি ইউনিট ও দিরাই ফায়ার সার্ভিস দুইটি ইউনিট সহ মোট চারটি ইউনিটের চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে। এ ঘটনায় ২০টি দোকানঘর ভস্মিভূত হয়ে যায় বলে জানান তিনি। এসময় জেলা কর্মকর্তা মোঃ তারেক হোসেন ভূইয়া উপস্থিত ছিলেন। এদিকে আগুনের সূত্রেপাতের বিষয়ে জানতে চাইলে দিরাই ফায়ার সার্ভিস ভারপ্রাপ্ত অফিসার মোঃ ইন্দুল হক বলেন বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিটের কারনে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে বলে প্রাথমিক ভাবে ধারণা করা যাচ্ছে।

ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে মহাদেব ষ্টোর, সরবিন্দু ষ্টোর, সেবিকা ষ্টোর, রাজধানী রেস্টুরেন্ট, আরাফাত এন্টারপ্রাইজ, রাহুল এন্টারপ্রাইজ, মুদি দোকান, মেশিনারী দোকান, ইলেকট্রনিক্সের দোকান, জুতার দোকান  কাঁচা মালের দোকান ছোট বড় দোকানও রয়েছে বলে স্থানীয়রা জানিয়েছেন। এদিকে আগুন নেভানোর কাজে স্থানীয়দের সঙ্গে জনপ্রতিনিধিরাও সহয়তা করেন। স্থানীয় বাসিন্দা ও ব্যবসায়ীরা জানান, অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় কমপক্ষে ২০টি ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান পুড়ে গেছে। যেখানে প্রায় কয়েক কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে প্রাথমিক ভাবে ধারণা করা হচ্ছে। ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন দিরাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহমুদুর রমান মামুন ও উপজেলা চেয়ারম্যন মনজুর আলম চৌধুরী।

বিয়ের আগের দিন লন্ডন প্রবাসী তরুণীর মর্মান্তিক মৃত্যু
                                  

বিশ্বনাথ প্রতিনিধি:

বাড়িতে যখন চলছে বিয়ের আয়োজন, গেইট ও রঙিন বাতিতে সাজানো হয়েছে পুরো বাড়ি, চলছে বিয়ের ধুমধান আয়োজন, আর ঠিক তখনই বিয়ের মাত্র দু’দিন আগে বাড়ির পুকুরের পানিতে পড়ে লন্ডন প্রবাসী এক তরুণীর মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে।

হৃদয় বিদারক এ ঘটনাটি সোমবার (২৮ নভেম্বর) বিশ্বনাথ পৌরসভার ৬নং ওয়ার্ডের চরচন্ডি গ্রামে ঘটেছে। ২৬ বছর বয়সী নিহত ওই তরুণীর নাম রুকেয়া খাতুন। তিনি চরচন্ডী গ্রামের যুক্তরাজ্য প্রবাসী ছুরাব আলীর মেয়ে।

জানা যায়, চাচাতো ভাইয়ের সঙ্গে বিয়ে ঠিক হলে বধূ হবার স্বপ্ন নিয়ে সম্প্রতি স্বপরিবারে যুক্তরাজ্য থেকে দেশে ফিরেন রুকেয়া খাতুন।

আগামীকাল বুধবার (৩০ নভেম্বর) ছিলো বিয়ের অনুষ্ঠান। ধুমধাম করে বাড়িতে বিয়ের সকল আয়োজন সম্পন্ন করা হয়। ৪ বোন ও ১ ভাইয়ের মধ্যে রুকেয়া সবার বড় হওয়ায় পরিবারের কাছে বিয়ের আনন্দটাই ছিলো অন্যরকম। কিন্ত সকল আনন্দকে ম্লান করে না ফেরার দেশে চলে যেতে হলো রুকেয়াকে।

তাই বধূবেশে স্বামীর ঘরে যাওয়া হলো না প্রবাসী এই তরুণীর। বাড়িতে আনন্দের পরিবর্তে এখন বিরাজ করছে শোকের ছায়া। রুকেয়ার চাচা তালেব আহমদ গোলাপ জানান, রুকেয়া ছিলেন বুদ্ধি প্রতিবন্ধী।

সোমবার (২৮ নভেম্বর) সকাল সাড়ে ৮টার দিকে মায়ের সাথে বাড়ির পুকুর ঘাটে যান রুকেয়া। তখন অসাবধানতাবশত রুকেয়া পুকুরের পানিতে পড়ে গেলে তার পায়ে ধরে তাকে পানি থেকে তুলার চেষ্টা করেন মা। তখন রুকেয়ার সাথে তার মাও পানিতে ডুবে যেতে থাকেন। তখন চিৎকার শুনে দৌড়ে এসে মা ও মেয়েকে উদ্ধার করতে পানিতে ঝাঁপ দেন তালেব আহমদ গোলাপ ও তার স্ত্রী।

তারা রুকেয়ার মাকে জীবিত উদ্ধার করতে পারলেও ততক্ষণে পানিতে ডুবে গিয়ে ভেঁসে উঠেন রুকেয়া। তখন সঙ্গাহীন অবস্থায় রুকেয়াকে উদ্ধার করে সিলেট নর্থ ইস্ট মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

দিরাই আ.লীগের সভাপতি বিএনপি সমর্থিত কামাল, পদ বাতিলের দাবীতে মানববন্ধন
                                  

দিরাই(সুনামগঞ্জ)প্রতিনিধি:

সুনামগঞ্জের দিরাইয়ে গত ১৪ নভেম্বর আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে বিএনপি সমর্থিত যুবদল নেতা কামাল উদ্দিনকে প্রস্তাবিত সভাপতি পদ বাতিলের দাবীতে মানববন্ধন পালিত হয়। ২৯ নভেম্বর মঙ্গলবার দুপুর ১২টার দিকে দিরাই পৌর শহরের থানা পয়েন্টে উপজেলা আওয়ামীলীগ ও অঙ্গসংগঠন একাংশের উদ্যোগে এ কর্মসূচি পালিত হয়।   

এর আগে গত ১৬ নভেম্বর দিরাই উপজেলা আওয়ামী লীগের দুই সদস্যের কমিটি ঘোষণা করা হয়। এতে দিরাই বাজার মহাজন সমিতির সভাপতি কামাল উদ্দিনকে সভাপতি ও প্রদীপ রায়কে ফের সাধারণ সম্পাদক করা হয়।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, কামাল উদ্দিন বিএনপির সমর্থক ছিলেন। তিনি জলমহাল ব্যবসায়ী। জলমহাল কেন্দ্রিক খুনের মামলার আসামী। বিগত উপনির্বাচনে নৌকা প্রতীকের বিরুদ্ধে কাজ করেছেন। উপজেলা আওয়ামী লীগের কোনো পর্যায়ের সদস্যও নন কামাল উদ্দিন। হঠাৎ করেই তাঁকে সভাপতি করায় তৃণমূলের নেতাকর্মীরা বিষয়টি প্রত্যাখ্যান করেছেন।

রাতের অন্ধকারে হঠাৎ এই বিতর্কিত কমিটি গঠন করায় উপজেলাজুড়ে ত্যাগী ও তৃণমূল আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা ক্ষোভে ফুঁসে উঠেছেন। অবিলম্বে সভাপতি পদ থেকে কামাল উদ্দিনকে অব্যাহতি না দিলে কঠোর আন্দোলনের ডাক দিতে বাধ্য হবেন বলেও হুঁশিয়ারি দেন বক্তারা।

দিরাই উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা শামসুল ইসলাম মংলা মিয়ার সভাপতিত্বে ও যুবলীগ নেতা রুবেল সরদারের সঞ্চালনায় মানববন্ধন কর্মসূচিতে বক্তব্য দেন, দিরাই উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মোহন চৌধুরী, জেলা পরিষদ সদস্য রায়হান মিয়া, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক করম উদ্দিন, প্রচার সম্পাদক হাজী ইদন মিয়া, সদস্য ধনীর রঞ্জন রায়, আব্দুল হান্নান, সাবেক পৌর কাউন্সিলর এনামূল হক, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহসভাপতি আব্দুল হাইয়ুমসহ যুবলীগ ছাত্রলীগের নেতারা। নবগঠিত কমিটির সভাপতি কামাল মিয়া মামলার আসামী হয়ে আত্মগোপনে থাকায় অভিযোগের বিষয়ে তাঁর বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

মৌলভীবাজারে বিমান বাহিনীর প্রশিক্ষণ সমাপনী কুচকাওয়াজ
                                  

মৌলভীবাজার প্রতিনিধি : বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর ৫০তম নব বিমানসেনা দলের প্রশিক্ষণ সমাপনী কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

মঙ্গলবার সকাল ১০ টায় মৌলভীবাজার জেলাধীন বা বি বা স্টেশন শমশেরনগরে অবস্থিত রিক্রুটস্ ট্রেনিং স্কুল গ্রাউন্ডে এ কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠিত হয়।

বাংলাদেশ বিমান বাহিনী প্রধান এয়ার চীফ মার্শাল শেখ আব্দুল হান্নান, বিবিপি, বিইউপি, এনএসডব্লিউসি, এফএডব্লিউসি, পিএসসি প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে কুচকাওয়াজ পরিদর্শন এবং মার্চ পাস্ট এর অভিবাদন গ্রহণ করেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিমান বাহিনীর প্রধান রিক্রুটদেরকে উদ্দেশ্যে বলেন, জাতির পিতার স্বপ্ন ছিল আধুনিক শক্তিশালী ও পেশাদার বিমানবাহীনি গঠন। জাতির পিতার অপরিসিম প্রজ্ঞা, দুরদৃষ্টি ও তার সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দিক নির্দেশনায় বিমানবাহিনীর উন্নয়ন ও আধুনিকায়নে আমরা নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছি।

বিমানবাহিনী প্রধান বলেন, ইতিমধ্যে বিমানবাহিনীতে সংযোজিত হয়েছে অত্যাধনিক যুদ্ধ বিমান, পরিবহন বিমান, হেলিকপ্টর, উচ্চ ক্ষমতা সম্পন্ন বিভিন্ন ধরণের র‌্যাডার, ক্ষেপনাস্ত্র ও গুরুত্বপূর্ণ সামরিক সরঞ্জাম। এর পাশাপাশি সংযোজিত হয়েছে নতুন নতুন ঘাটি, ইউনিট প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠান এবং বৃদ্ধি পেয়েছে জনবল কাঠামো। বিমান বাহিনীর ভবিষ্যত প্রজন্মের জন্য যুগপোযগী প্রশিক্ষনে বাংলাদেশ বিমান বাহিনী একাডেমিতে নির্মাণ করা হয়েছে বঙ্গবন্ধু কমপ্লেক্স।

বিমান বাহিনী প্রধান এয়ার চীফ মার্শাল শেখ আব্দুল হান্নান বলেন, নারীর ক্ষমতায়ন প্রক্রিয়ায় বাংলাদেশ পৃথিবীর যে কোন উন্নয়নশীল দেশের তুলনায় রোল মডেল। সর্ব ক্ষেত্রে নারীর অধিকার প্রতিষ্ঠায় অংশগ্রহন নিশ্চিত করতে মাননীয় প্রধানমনন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা মোতাবেক ২০০০ সাল থেকে বাংলাদেশ বিমানবাহিনীতে নিয়মিত নারী কর্মকর্তা নিয়োগ করা হচ্ছে।

বিমান বাহিনী প্রধান সততা, একাগ্রতা ও নিষ্ঠার সঙ্গে কাজ করে বিমানবাহিনীর যোগ্য বিমানসেনা হিসেবে নিজেদেরকে গড়ে তোলার আহ্বান জানান। এ সময় তিনি আশা প্রকাশ করেন, নব বিমানসেনা তারা অকৃত্রিম দেশপ্রেমের প্রেরণায় উজ্জীবিত হয়ে বাংলার আকাশ মুক্ত রাখার দৃঢ় অঙ্গীকার বাস্তবায়নে সক্রিয় অবদান রাখবে।

এ কুচকাওয়াজের মধ্যে দিয়ে মোট ২৫২ দিনের প্রশিক্ষণ সম্পন্ন করে ৪৩৬ জন রিক্রুট বাংলাদেশ বিমানবাহীনিতে অন্তর্ভুক্ত করা হয়। এর মধ্যে ১৯জন নারী রয়েছেন। এসি-২ জিদান এবং এসি-২ কামরুজ্জামান যথাক্রমে শিক্ষা ও জেনারেল সার্ভিস ট্রেনিং এ সেরা রিক্রুট বিবেচিত হন। এসি-২ জিদান সার্বিক বিষয়ে কৃতিত্বের জন্য শ্রেষ্ঠ রিক্রুট হওয়ার গৌরব অর্জণ করেন। বিমান বাহিনী প্রধান কৃতি রিক্রুটদের মাঝে ট্রফি বিতরণ করেন।

এর আগে বিমানবাহিনী প্রধান প্যারেড গ্রাউন্ডে এসে পৌঁছালে বিমান বাহিনী ঘাঁটি বাশার এর এয়ার অধিনায়ক এয়ার ভাইস মার্শাল মো. জাহিদুর রহমান, বিবিপি বিএসপি, জিইউ, এনএসডাব্লিউ, পিএসসি এবং রিক্রুট ট্রেনিং স্কুলের অধিনায়ক এয়ার কমডোর মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন জিইউপি, পিএসসি তাঁকে স্বাগত জানান। অনুষ্ঠানে বিমানবাহিনীর উর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ এবং স্থানীয় সামরিক ও অসামরিক গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।


   Page 1 of 119
     সিলেট
বন্যার ক্ষতি কাটিয়ে সিলেটে আমনের বাম্পার ফলন
.............................................................................................
হবিগঞ্জে ঘুমন্ত অবস্থায় আগুনে পুড়ে কনস্টেবলের মৃত্যু
.............................................................................................
ব্রিটেনে মৌলভীবাজারের মেয়ে সালেহা সুলতানার ‘বার এট ল’ ডিগ্রী অর্জন
.............................................................................................
কানাইঘাটে ইউএনও বরাবরে স্মারকলিপি প্রদান
.............................................................................................
সিলেটে অজ্ঞান পার্টির দৌরাত্ম্য, সর্বস্ব হারাচ্ছেন মানুষ
.............................................................................................
শেভরনের অর্থায়নে সিলেটে উদ্যোক্তা মেলা অনুষ্ঠিত
.............................................................................................
চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন সাংবাদিক রুবেল
.............................................................................................
নতুন বছরে অর্থনৈতিক চাপ থাকবে না : পরিকল্পনামন্ত্রী
.............................................................................................
জৈন্তাপুরে রাতের আঁধারে যুবককে কুপিয়ে হত্যা
.............................................................................................
সিলেটে নগরীতে নির্মিত হচ্ছে হাইরাইজ বিল্ডিং, আগুন নিয়ন্ত্রণে গ্যাড়াকলে ফায়ার সার্ভিস
.............................................................................................
ছাতকে ভয়াবহ নদী ভাঙনে শতাধিক পরিবার বিলীন
.............................................................................................
জৈন্তাপুরে যুবকের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার
.............................................................................................
দিরাইয়ে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে ২০ দোকান পুড়ে ছাই
.............................................................................................
বিয়ের আগের দিন লন্ডন প্রবাসী তরুণীর মর্মান্তিক মৃত্যু
.............................................................................................
দিরাই আ.লীগের সভাপতি বিএনপি সমর্থিত কামাল, পদ বাতিলের দাবীতে মানববন্ধন
.............................................................................................
মৌলভীবাজারে বিমান বাহিনীর প্রশিক্ষণ সমাপনী কুচকাওয়াজ
.............................................................................................
সিলেটে এসএসসির ফলাফলে বন্যার প্রভাব
.............................................................................................
দিরাইয়ে এসএসসি পরীক্ষায় জিপিএ ৫ পেয়েছে ১১২ জন
.............................................................................................
হামলায় আহত বিএনপির সাবেক এমপি শাহজাহান খান মারা গেছেন
.............................................................................................
জৈন্তাপুরের দরবস্ত বাজারে তুলার গোডাউনে আগুন, ৫ দোকান পুড়ে ছাই
.............................................................................................
আজমিরীগঞ্জে পাসের হার ৮৬. ১৮
.............................................................................................
সিলেট বোর্ডে পাসের হার কমলেও জিপিএ-৫ বেড়েছে
.............................................................................................
সিলেটে বাড়ানো হয়েছে গোয়েন্দা নজরদারী
.............................................................................................
সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত মহিলা কলেজ পরিদর্শন করলেন ড.জয়া সেনগুপ্তা
.............................................................................................
জগন্নাথপুর সংঘর্ষে ৩ নির্মাণ শ্রমিক আহত
.............................................................................................
দিরাই আ.লীগের সম্মেলনে সংঘর্ষ, এবার পাল্টা মামলা দায়ের
.............................................................................................
দিরাইয়ে আ.লীগের সম্মেলনে সংঘর্ষের ঘটনায় গ্রেপ্তার ৪
.............................................................................................
আজমিরীগঞ্জে পৌরসভার নগর উন্নয়ন কাজের উদ্বোধন
.............................................................................................
নাশকতা এড়াতে সিলেটের বিভিন্ন পয়েন্টে পুলিশের তল্লাশী
.............................................................................................
মৌলভীবাজারে সৈয়দ আব্দুল মুক্তাদির সড়কের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন
.............................................................................................
দোয়ারাবাজারের সুরমা ইউনিয়নে উপ-নির্বাচন ২৯ ডিসেম্বর
.............................................................................................
ফেস্টুনে ছবি: যুবদল নেতা ও দিরাই পৌর কাউন্সিলর জুয়েল বহিষ্কার
.............................................................................................
ছাতকে ইউনিয়ন বিএনপির প্রস্তুতি সভা
.............................................................................................
শাল্লায় বিদ্যুৎস্পৃষ্টে নির্মাণ শ্রমিকের মৃত্যু
.............................................................................................
মহাসমাবেশ ঘিরে সিলেটে কমিউনিটি সেন্টার বুকিং দিয়েছে বিএনপি
.............................................................................................
হবিগঞ্জে পাচারের সময় ৩০০ বস্তা সার জব্দ
.............................................................................................
গোলাপগঞ্জে টিলা কাটার অপরাধে ৪ লক্ষ টাকা জরিমানা
.............................................................................................
দিরাইয়ে আ.লীগের সম্মেলনে দু’পক্ষে সংঘর্ষ, আহত ২০
.............................................................................................
সিলেটে প্রয়াত জাতীয় পার্টির নেতা কুনু মিয়ার স্মরণে সভা
.............................................................................................
স্মরণকালের বড় সমাবেশের টার্গেট নিয়ে এগুচ্ছে বিএনপি
.............................................................................................
সিলেটের সড়ক-মহাসড়ক যেন লাশ কাটা ঘর!
.............................................................................................
দিরাইয়ে মেধা বৃত্তি পরীক্ষা সম্পন্ন
.............................................................................................
সিলেটে প্রতিপক্ষের হামলায় নিহত ১, আহত ৫
.............................................................................................
স্পীকার হুমায়ুন রশীদ চৌধুরীর ৯৪তম জন্মবার্ষিকীতে শ্রদ্ধা নিবেদন, ফাতেহা পাঠ ও রক্তদান কর্মসূচী পালন
.............................................................................................
শ্রীমঙ্গলে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণ গেল যুবকের
.............................................................................................
ছাতকে ডিজিটাল উদ্ভাবনী মেলা অনুষ্ঠিত
.............................................................................................
অচল পাথর কোয়ারী পরিদর্শনে গোয়াইনঘাটে উচ্চ পর্যায়ের টিম
.............................................................................................
হুমায়ুন রশিদ চৌধুরীর ৯৪তম জন্মবার্ষিকীতে ‘স্পীকার হুমায়ুন রশীদ চৌধুরী স্মৃতি পরিষদ’র কর্মসূচী
.............................................................................................
বিএনপি নেতা কামাল হত্যার ঘটনায় মামলা, আটক ১
.............................................................................................
এড. শাহিনের পিএইচ.ডি ডিগ্রি অর্জন, বিভিন্ন মহলের শুভেচ্ছা
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

সম্পাদক ও প্রকাশক : মোহাম্মদ আখলাকুল আম্বিয়া
নির্বাহী সম্পাদক: মাে: মাহবুবুল আম্বিয়া
যুগ্ম সম্পাদক: প্রদ্যুৎ কুমার তালুকদার

সম্পাদকীয় ও বাণিজ্যিক কার্যালয়: স্বাধীনতা ভবন (৩য় তলা), ৮৮ মতিঝিল বাণিজ্যিক এলাকা, ঢাকা-১০০০। Editorial & Commercial Office: Swadhinota Bhaban (2nd Floor), 88 Motijheel, Dhaka-1000.
সম্পাদক কর্তৃক রঙতুলি প্রিন্টার্স ১৯৩/ডি, মমতাজ ম্যানশন, ফকিরাপুল কালভার্ট রোড, মতিঝিল, ঢাকা-১০০০ থেকে মুদ্রিত ও প্রকাশিত ।
ফোন : ০২-৯৫৫২২৯১ মোবাইল: ০১৬৭০৬৬১৩৭৭

Phone: 02-9552291 Mobile: +8801670 661377
ই-মেইল : dailyswadhinbangla@gmail.com , editor@dailyswadhinbangla.com, news@dailyswadhinbangla.com

 

    2015 @ All Right Reserved By dailyswadhinbangla.com

Developed By: Dynamic Solution IT