শনিবার, ২৪ জুলাই 2021 বাংলার জন্য ক্লিক করুন
  
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   আইন - অপরাধ -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
ধর্ষণের পর প্রেমিকার ভিডিও ভাইরাল, ধর্ষক গ্রেফতার

বরিশাল প্রতিনিধি :
প্রেমিকাকে ধর্ষণ করে তার ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছেড়ে দেওয়ার অভিযোগে প্রেমিককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ধর্ষক প্রেমিকের নাম রণজিত মধু (২৭)। বরিশাল জেলার আগৈলঝাড়ায় এ ঘটনা ঘটেছে।  

শুক্রবার (২৩ জুলাই) আগৈলঝাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোলাম ছরোয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

তিনি জানান, বৃহস্পতিবার (২২ জুলাই) অভিযান চালিয়ে অভিযুক্ত রণজিত মধুকে গ্রেফতার করা হয়।

এজাহারের বরাত দিয়ে ওসি জানান, উপজেলার দক্ষিণ বড় মগড়া গ্রামের রমেশ মধুর ছেলে রণজিত মধু একই গ্রামের বাসিন্দা ঢাকায় একটি কলেজের নার্সিং দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রীর (১৯) সঙ্গে দুই বছর আগে প্রেমের সর্ম্পক গড়ে তোলেন।  

রণজিত মধু বিয়ের প্রলোভনে ওই ছাত্রীর সঙ্গে বিভিন্ন সময়ে শারীরিক সর্ম্পক স্থাপন করেন এবং গোপনে তা নিজের মোবাইলে ভিডিও ধারণ করে রাখেন।

কিছুদিন আগে রণজিত মধু অন্যত্র বিয়ে করলেও তার নার্সিং পড়ুয়া প্রেমিকাকে আগের শারীরিক সর্ম্পকের ভিডিও দেখিয়ে জিম্মি করেন। এছাড়া তার সঙ্গে শারীরিক সর্ম্পক স্থাপন না করলে সেই ভিডিও ফেসবুকে ছেড়ে ভাইরাল করে দেওয়ার হুমকি দেন।

বিষয়টি ওই ছাত্রী রণজিত মধুর অভিভাবককে জানালে তারা নার্সিং পড়ুয়া ছাত্রীকে অন্যত্র বিয়ে করার পরামর্শ দেন। আশ্বাস পেয়ে ছাত্রীর অভিভাবক ভারতে বসবাসকারী সুমন সরকার নামে এক যুবকের সঙ্গে বিয়ে ঠিক করেন।  

এই খবর জানতে পেয়ে রণজিত মধু ফেসবুকে ‘ভোরের পাখি’ নামে ফেক আইডি খুলে সুমন সরকারের কাছে ভুক্তভোগীর শারীরিক সর্ম্পকের ভিডিও পাঠান। তা দেখে সুমন সরকার বিষয়টি হবু স্ত্রী নার্সি পড়ুয়া ছাত্রীর কাছে জানতে চান। এরপরই জানাজানি হয় রণজিত মধু তাদের শারীরিক সর্ম্পকের ভিডিও বিভিন্ন মাধ্যমে প্রকাশ করে দিয়েছেন।  

এ ঘটনায় ওই ছাত্রী বাদী হয়ে বৃহস্পতিবার দুপুরে রণজিত মধুর বিরুদ্ধে ধর্ষণ ও পর্নোগ্রাফি আইনে মামলা দায়ের করেন।

ধর্ষণের পর প্রেমিকার ভিডিও ভাইরাল, ধর্ষক গ্রেফতার
                                  

বরিশাল প্রতিনিধি :
প্রেমিকাকে ধর্ষণ করে তার ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছেড়ে দেওয়ার অভিযোগে প্রেমিককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ধর্ষক প্রেমিকের নাম রণজিত মধু (২৭)। বরিশাল জেলার আগৈলঝাড়ায় এ ঘটনা ঘটেছে।  

শুক্রবার (২৩ জুলাই) আগৈলঝাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোলাম ছরোয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

তিনি জানান, বৃহস্পতিবার (২২ জুলাই) অভিযান চালিয়ে অভিযুক্ত রণজিত মধুকে গ্রেফতার করা হয়।

এজাহারের বরাত দিয়ে ওসি জানান, উপজেলার দক্ষিণ বড় মগড়া গ্রামের রমেশ মধুর ছেলে রণজিত মধু একই গ্রামের বাসিন্দা ঢাকায় একটি কলেজের নার্সিং দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রীর (১৯) সঙ্গে দুই বছর আগে প্রেমের সর্ম্পক গড়ে তোলেন।  

রণজিত মধু বিয়ের প্রলোভনে ওই ছাত্রীর সঙ্গে বিভিন্ন সময়ে শারীরিক সর্ম্পক স্থাপন করেন এবং গোপনে তা নিজের মোবাইলে ভিডিও ধারণ করে রাখেন।

কিছুদিন আগে রণজিত মধু অন্যত্র বিয়ে করলেও তার নার্সিং পড়ুয়া প্রেমিকাকে আগের শারীরিক সর্ম্পকের ভিডিও দেখিয়ে জিম্মি করেন। এছাড়া তার সঙ্গে শারীরিক সর্ম্পক স্থাপন না করলে সেই ভিডিও ফেসবুকে ছেড়ে ভাইরাল করে দেওয়ার হুমকি দেন।

বিষয়টি ওই ছাত্রী রণজিত মধুর অভিভাবককে জানালে তারা নার্সিং পড়ুয়া ছাত্রীকে অন্যত্র বিয়ে করার পরামর্শ দেন। আশ্বাস পেয়ে ছাত্রীর অভিভাবক ভারতে বসবাসকারী সুমন সরকার নামে এক যুবকের সঙ্গে বিয়ে ঠিক করেন।  

এই খবর জানতে পেয়ে রণজিত মধু ফেসবুকে ‘ভোরের পাখি’ নামে ফেক আইডি খুলে সুমন সরকারের কাছে ভুক্তভোগীর শারীরিক সর্ম্পকের ভিডিও পাঠান। তা দেখে সুমন সরকার বিষয়টি হবু স্ত্রী নার্সি পড়ুয়া ছাত্রীর কাছে জানতে চান। এরপরই জানাজানি হয় রণজিত মধু তাদের শারীরিক সর্ম্পকের ভিডিও বিভিন্ন মাধ্যমে প্রকাশ করে দিয়েছেন।  

এ ঘটনায় ওই ছাত্রী বাদী হয়ে বৃহস্পতিবার দুপুরে রণজিত মধুর বিরুদ্ধে ধর্ষণ ও পর্নোগ্রাফি আইনে মামলা দায়ের করেন।

মুফতি মাহমুদুল গুনবী র‌্যাবের হাতে গ্রেফতার
                                  

স্বাধীন বাংলা প্রতিবেদন :
মুফতি মাহমুদুল হাসান গুনবীকে গত ৫ জুলাই আইনশৃঙ্খলাবাহিনীর পরিচয়ে তুলে নেয়ার অভিযোগ করে তার পরিবার। তবে আজ শুক্রবার র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখা থেকে গুনবীকে গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়।

র‌্যাব জানিয়েছে, গ্রেফতার মাওলানা মাহমুদুল নিষিদ্ধঘোষিত জঙ্গি সংগঠন আনসার আল ইসলামের আধ্যাত্মিক নেতা।

র‌্যাবের বলছে, মাহমুদুল হাসান গুনবী ওয়াজ করে পরিচিতি লাভ করলেও তিনি বর্তমানে আনসার আল ইসলামের আধ্যাত্মিক নেতা। তিনি ‘মানহাজি’ নামের একটি গ্রুপের অন্যতম ব্যক্তি হিসেবে কাজ করছিলেন। তার সঙ্গে মাওলানা হারুন ইজহার ও আলী হাসান ওসামা নামে আরও দুজন দায়িত্বশীল হিসেবে কাজ করতেন। এই দুজন আগেই গ্রেফতার হয়ে কারাগারে আছেন।

কালিয়াকৈরে কারখানায় হামলা ও ম্যানেজারকে প্রাণনাশের হুমকি
                                  

কালিয়াকৈর (গাজীপুর) প্রতিনিধি
গাজীপুরের কালিয়াকৈরে কারখানায় হামলা ও জেনারেল ম্যানেজারকে প্রাণ নাশের হুমকি দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় কালিয়াকৈর থানায় অভিযোগের পর দুদিন পেরিয়ে গেলেও বুধবার পর্যন্ত কোনো পদক্ষেপ নেয়নি পুলিশ।

কারখানা কর্তৃপক্ষ ও অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, কালিয়াকৈর উপজেলার বড়ইছুটি এলাকায় চন্দ্রা স্পিনিং লিমিটেড কারখানায় এ ঘটনা ঘটেছে। ওই কারখানায় দলীয় প্রভাব খাটিয়ে দীর্ঘদিন ধরে কালিয়াকৈর পৌর আওয়ামীলীগের সাবেক যুগ্ম আহবায়ক আনোয়ার হোসেন ঝুট ব্যবসা করে আসছিলেন। কিন্তু তিনি ওই কারখানার কিছু অসাধু কর্মকর্তাদের যোগসাজসে সিন্ডিকেট করে ঝুটের কম মূল্য নির্ধারণ করে বেশি ব্যবসা করছিলেন। বিষয়টি জানাজানি হলে ওই কারখানার ৪/৫ জন কর্মকর্তাকেও অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। এছাড়া একই কারণে পৌর আওয়ামীলীগের সাবেক ওই নেতাকে ঝুট দিতে অস্বীকৃতি জানায় কারখানা কর্তৃপক্ষ। পরে জেনারেল ম্যানেজার হাজী মোঃ শাহজাহান মিয়া কারখানা কর্তৃপক্ষের নির্দেশে মেসার্স এসএন এন্টারপ্রাইজকে ঝুট সরবরাহের লিখিত অনুমতি দেওয়া হয়। ওই  অনুমতি ক্রমে গত সোমবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে এসএন এন্টারপ্রাইজের মালিক রুবেল পারভেজ কারখানায় ঝুট বের করতে যান। খবর পেয়ে পৌর আওয়ামীলীগের সাবেক যুগ্ম আহবায়ক আনোয়ার হোসেন ও তার ভাই নজরুল ইসলাম এবং তাদের সহযোগী মাজহারুল ইসলাম, আমিনুর ইসলাস, সুরুজ মিয়া, রিপন মিয়াসহ অজ্ঞাত নামা আরো ১০/১২ জন বহিরাগত লোক দা, লাঠি, রড, চুরি নিয়ে বেআইনীভাবে কারখানা ফটকে হামলা চালায়। পরে তারা প্রধান গেটে লাঠি দিয়ে আঘাত করে ও কুপিয়ে ক্ষতি সাধন করে এবং ঝুট সরবারহে বাধা প্রদান করে। এ সময় কারখানার নিরাপত্তা প্রহরীদের বাধার মুখে তারা ভিতরে ঢুকতে না পেরে কারখানার জেনারেল ম্যানেজারকে প্রকাশ্যে প্রাণ নাশের হুমকি দেয়। পরে তারা কারখানার বড় ধরণের ক্ষতি সাধনের হুমকি দিয়ে চলে যায়।

এ ঘটনায় ওই কারখানার জেনারেল ম্যানেজার হাজী মোঃ শাহজাহান মিয়া বাদী হয়ে গত সোমবার রাতে কালিয়াকৈর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন। কিন্তু ঘটনার দুদিন পেরিয়ে গেলেও বুধবার পর্যন্ত কোনো পদক্ষেপ নেয়নি পুলিশ। এতে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন কারখানার ওই কর্মকর্তা। এ বিষয়ে জানতে অভিযুক্ত কালিয়াকৈর পৌর আওয়ামীলীগের সাবেক যুগ্ম আহবায়ক আনোয়ার হোসেনের মোবাইল ফোনে একাধিকবার ফোন দিলেও তিনি ধরেননি।

ওই কারখানার জেনারেল ম্যানেজার হাজী মোঃ শাহজাহান মিয়া জানান, আমার প্রাণ নাশের ও কারখানার ক্ষতির হুমকি দিলে কর্তৃপক্ষের নির্দেশে থানায় অভিযোগ করেছি।

কালিয়াকৈর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মনোয়ার হোসেন চৌধুরী জানান, এ ঘটনায় একটি অভিযোগ পাওয়া গেছে। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

মাত্র ৫০ টাকার জন্য মাকে হত্যা, ছেলে গ্রেফতার
                                  

রংপুর প্রতিনিধি :
মাত্র ৫০ টাকার জন্য মাকে হত্যায় অভিযুক্ত ছেলে সাজ্জাদুলকে গ্রেফতার করেছে রংপুর র‌্যাব-১৩। আজ বুধবার (১৪ জুলাই) দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানায় র‌্যাব।

র‌্যাব জানায়, গাইবান্ধার থানসিংপুর বোয়ালী গ্রামের সাবেক এক পুলিশ সদস্যের ছেলে সাজ্জাদুল ছিল মাদকাসক্ত। টাকার জন্য প্রায়ই সে তার মাকে মারধর করত। গত সোমবার (১২ জুলাই) সাজ্জাদুল ৫০ টাকার জন্য তার মা খাদিজা বেগমকে বেধড়ক পেটায়। এতে খাদিজা বেগম অসুস্থ হয়ে পড়েন। গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে হাসপাতালে নেয়া হলে সেখানে তিনি মারা যান।

এ ঘটনায় গাইবন্ধার সদর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করা হয়।

ময়মনসিংহে ধর্ষণ মামলার পর ফের ধর্ষণ: ভয়ে গ্রাম ছাড়া ধর্ষিতার পরিবার
                                  

তানভীর হোসাইন:
ময়মনসিংহের ফুলবাড়ীয়া উপজেলায় এক অসহায় যুবতী দু’দফা ধর্ষণের শিকার হয়েছেন। এ ঘটনায় আপোষ মিমাংসার জন্য স্থানীয় প্রভাবশালীদের চাপে গ্রাম ছাড়া হয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছে ধর্ষিতার পরিবার। বিষয়টি উপজেলার ২নং কুশমাইল ইউনিয়নের রঘুনাথপুর গ্রামের।

এ ঘটনায় স্থানীয়দের মাঝে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। সংশ্লিষ্ট থানা-পুলিশের ভূমিকায় অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন ভুক্তভোগী পরিবার ও সচেতন মহল।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, গত বছরের ১০ অক্টোবর দোকান থেকে ফেরার পথে উপজেলার কুশমাইল ইউনিয়নের রঘুনাথপুর গ্রামের দিনমুজুর গিয়াস উদ্দিনের এক কন্যাকে(১৫) অপহরণপূর্বক ধর্ষণ করে প্রতিবেশী প্রভাবশালী সুবেদ আলীর পুত্র হান্নান(২৭)। এ ঘটনায় ভিকটিমের মাতা হাসিনা খাতুন বাদি হয়ে থানায় অভিযোগ দায়ের করলেও ঘটনার প্রায় ১০ মাসেও গ্রেফতার হয়নি ধর্ষক হান্নান। উল্টো অসহায় ভুক্তভোগী বাদি পরিবারকে বিষয়টি আপোষ-মিমাংসা করার জন্য চাপ প্রয়োগ করা হচ্ছিলো। কিন্তু আপোষ না হওয়ায় চলতি বছরের ৪ জুলাই বাদির বাড়ীঘরে স্বশস্ত্র হামলা চালিয়ে ভিকটিমের পিতা, ভগ্নিপতি ও ভাইকে মারপিট করে ধর্ষক হান্নানের লোকজন। এমন দাবি ভিকটিমের বড় বোন রোজিনা আক্তারের।

ভুক্তভোগী পরিবার আরো জানায়, হামলার কয়েক দিন পর ভিকটিমকে আবারও অপহরণ করে ধর্ষণ করে মুরাদ হাসান নামের অপর এক যুবক। এ ঘটনায় ভিকটিম বাদি হয়ে ফুলবাড়ীয়া থানায় মামলা দায়ের করলে ধর্ষককে গ্রেফতার করে আদালতে প্রেরণ করা হয় বলে নিশ্চিত করেছেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ফুলবাড়ীয়া থানার এস.আই জালাল।
 
অভিযোগ উঠেছে, ধর্ষক হান্নানের মামা পৌরসভার কাউন্সিলর এবং হান্নানের পিতা স্থানীয় প্রভাবশালী ব্যক্তি। ফলে ওই প্রভাবশালী মহল আপোষ-মিমাংসার জন্য সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ডের আবুল কালাম মেম্বারের মাধ্যমে ভিকটিম পরিবারে চাপ সৃষ্টি করে। এতে অসহায় ভিকটিম পরিবার গ্রামছাড়া হয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে।

ভিকটিমের ভগ্নিপতি জাফর মোহাম্মদ জানান, স্থানীয় চেয়ারম্যান ও মেম্বারের চাপে এখন গ্রামছাড়া ভিকটিম পরিবার। শুনেছি কালাম মেম্বার ভিকটিম পরিবারকে গ্রাম ছাড়া করার জন্য সাধারণ মানুষদের ভুল বুঝিয়ে গণস্বাক্ষর সংগ্রহ করছে। তিনি আরো বলেন, ধর্ষণের বিচার চেয়ে মামলা করেও বিচার পাচ্ছি না। এখন পরিকল্পিত ভাবে আবার ধর্ষণের ঘটনায় আমাদের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে। তিনি প্রশ্ন রাখেন, ‘আমরা কি বিচার পাবো না ???

এ বিষয়ে স্থানীয় ৪নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আবুল কালাম বলেন, ‘প্রথম ধর্ষণ ঘটনায় আপোষের জন্য বসা হয়েছিল কিন্তু বাদি পরিবার রাজী হয়নি। এরপর থেকে আমি আর যাইনি, চাপও দেইনি। এখন ওই মেয়ে আবার ঘটনা ঘটাইছে। পরে এক লাখ বিশ হাজার টাকা রফা করে আপোষের জন্য আবার শালিসে বসা হয়েছিল।’

তিনি জানান, বিবাদি পক্ষ আমার কাছে ৯০ হাজার টাকা জমাও দিয়েছিল, কিন্তু আপোষ না হওয়ায় টাকা ফেরত দেয়া হয়েছে। এখন বিবাদি পক্ষ যদি গণস্বাক্ষর নেয়, তাহলে আমিও স্বাক্ষর দেব।’

ইউপি সদস্য আরো দাবি করেন- ভিকটিম পরিবার খারাপ, জঘন্য। এদেরকে এখন গ্রাম থেকে উচ্ছেদ করার জন্য লোকজন চেয়ারম্যানের কাছে গিয়েছিল। আলোচনা চলছে, ইউএনও এবং ডিসির সাথে কথা বলা হবে উচ্ছেদ বিষয়ে।

তবে স্থানীয় ২নং কুশমাইল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শামসুদ্দিন আহম্মেদ বলেন, ধর্ষণের ঘটনা শুনেছি। কিন্তু আপোষ-মিমাংসার জন্য বাদি পরিবারকে চাপ দেয়ার বিষয়টি আমি জানি না।

এ বিষয়ে ফুলবাড়ীয়া থানার এস.আই মুক্তাদিরুল হাসান জানান, প্রথম ধর্ষণের ঘটনায় মামলা হয়েছে, তবে আসামি এখনো গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি। ভিকটিমের মেডিকেল রিপোর্ট হাতে পেয়েছি কিন্তু এখনো সিআইডি রিপোর্ট না পাওয়ায় মামলার চার্জসীট দেয়া সম্ভব হচ্ছে না।

অপর মামলার তদন্ত কর্মকর্তা জালাল জানান, ভিকটিম বাদি হয়ে থানায় মামলা করার পর ধর্ষক মুরাদ হাসানকে গ্রেফতার করে আদালতে পাঠানো হয়েছে। তবে ভিকটিমের বাড়ীঘরে হামলা এবং প্রভাবশালীদের চাপে বাদি পরিবার গ্রাম ছেড়ে পালিয়ে বেড়ানোর বিষয়টি জানা নেই।

সিরাজগঞ্জে রেলের জমি দখল করে মার্কেট নির্মাণ চলছে, নির্বাক কর্তৃপক্ষ
                                  

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি :
বিভিন্ন মিডিয়ায় সংবাদ প্রকাশের পর সিরাজগঞ্জের কামারখন্দে রেলওয়ের জমিতে মার্কেট নির্মাণ বন্ধ হয়নি। অবসরপ্রাপ্ত এক পুলিশ কর্মকর্তার নেতৃত্বে চলছে মার্কেট নির্মাণ কাজ। তবে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ স্বাধীন বাংলাকে জানিয়েছে, কয়েকদিনের মধ্যেই সেখানে অভিযান চালানো হবে।

রোববার (১১ জুলাই) খোঁজ নিয়ে জানা যায়, উপজেলার ঝাঐল ইউনিয়নের ঝাঐল ওভার ব্রীজ এলাকায়  রেলওয়ের মালিকানাধীন ক্যানেল খাল ভরাট করে ইট-সিমেন্ট দিয়ে মার্কেট নির্মাণকাজ পুরোদমে চালিয়ে যাচ্ছেন অবসরপ্রাপ্ত ওই পুলিশ কর্মকর্তা।

স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা যায়, উপজেলার চালা শাহবাজপুর গ্রামের এক সাবেক  পুলিশ পরিদর্শকের নেতৃত্বে মার্কেট নির্মাণকাজ চলছে। ইতিমধ্যে ঝাঐল ওভার ব্রীজ সংলগ্ন খালের দক্ষিণের অংশ বালু দিয়ে ভরাট করা হয়েছে। সেখানে ইট-বালুর স্থাপনা নির্মাণকাজ চলছে। নিজে অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ কর্মকর্তা হওয়ায় কোন কিছু তোয়াক্কা না করে পুরোদমে মার্কেট নির্মাণকাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। এ নিয়ে  বিভিন্ন জাতীয় ও স্থানীয় দৈনিক পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশের পরও রেলওয়ে বিভাগ কোন ব্যবস্থা না নেয়ায় এলাকাবাসীর মাঝে তীব্র ক্ষোভ বিরাজ করছে। রেলওয়ে কর্তৃপক্ষকে ম্যানেজ করেই তারা এই মার্কেট নির্মাণ করছে বলে এলাকাবাসীর অভিযোগ।

এ ব্যাপারে পাকশী রেলওয়ের উর্ধ্বতন উপ-সহকারি প্রকৌশীল (ওয়ার্ক) আহসানুর রহমান স্বাধীন বাংলাকে বলেন, উর্ধতন কর্মকর্তাদের সাথে আলোচনা করে কাজ বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। ইতিমধ্যে তারা আবেদন করেছে। আবেদনটি পাওয়ার পর কানুনগো পরিদর্শন করেছেন। করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

কর্তৃপক্ষকে ম্যানেজ করে মার্কেট নির্মাণ প্রসঙ্গে তিনি এ প্রতিবেদককে বলেন, এগুলো কানুনগোরা করতে পারেন। কারণ কানুনগো তদন্ত করে রিপোর্ট দিলেই লিজ দেয়া না দেয়ার বিষয়টি আসে।

তবে রেলওয়ে বিভাগের কানুনগো মো. আব্দুল কাদের বলেন, মার্কেট নির্মাণের বিষয়টি আমার জানা নেই। আমি খোঁজ নিয়ে দেখছি।

পাকশী রেলওয়ের বিভাগীয় প্রকৌশলী আব্দুর রহিম স্বাধীন বাংলাকে বলেন, বিষয়টি সাংবাদিকদের মাধ্যমে জানার পর স্থানীয় কর্মকর্তাকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছিল। দু-একদিনের মধ্যেই সেখানে অভিযান চালিয়ে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হবে।

প্রধানমন্ত্রীর সহকারী পরিচয় দিয়ে বাড়ি দখলের চেষ্টা, আটক-৬
                                  

মোহাম্মদ ইয়াসিন:
সাভারে প্রধানমন্ত্রীর ব্যাক্তিগত সহকারীর ভূয়া পরিচয় দিয়ে অসহায় নারীর ৯তলা বাড়ি দখলের সময় ছয় প্রতারককে আটক করেছে সাভার মডেল থানা পুলিশ। আজ রোববার (১১জুলাই) সকালে বিষয়টি নিশ্চিত করেছে সাভার মডেল থানা পুলিশ।

আটককৃতরা হচ্ছেন- রাকিউল ইসলাম, নুর উদ্দিন ওমর, ইসরাফিল, রাজু ইসলাম, হাসান মেহেদী ও মমিন।

পুলিশ জানায়, শনিবার গভীর রাতে সাভারের টিয়াবাড়ি এলাকায় মঞ্জুআরা বেগম নামের এক নারীর ৯তলা বাড়িতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ব্যক্তিগত সহকারী এসাইনমেন্ট অফিসার পরিচয় দিয়ে রাকিউল ইসলাম নামের এক প্রতারক অস্ত্রধারী লোকজন সাথে নিয়ে বাড়ি দখলের চেষ্টা করে।

এ সময় ওই বাড়িতে সাইনবোর্ড দেয়ারও চেষ্টা করে তারা। রাকিউল ইসলামের পরিচয়ে সন্দেহ হলে এবং ঘটনা বেগতিক দেখে ভুক্তভোগী পুলিশে খবর দেন। ঘটনাস্থলে পুলিশ আসার বিষয়টি টের পেয়ে পালিয়ে যায় প্রতারকরা। রাতেই সাভার মডেল থানায় প্রতারক রাকিউল ইসলামকে প্রধান আসামী ও আরো ছয় জনের নাম উল্লেখ করে দ্রুত বিচার আইনে মামলা দায়ের করেন মঞ্জুআরা।

পুলিশ রাত থেকে সকাল পর্যন্ত রাজধানীর ভাটারাসহ বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে প্রতারক চক্রের প্রধান রাকিউলসহ ছয়জনকে আটক করে। রবিবার দুপুরে তাদেরকে আদালতে প্রেরণ করা হয়। এসময় আটকৃতদের কাছ থেকে দলিল, মোবাইল ফোন, এটিএম কার্ডসহ নানা সরঞ্জামদী উদ্ধার করা হয়।

এ ব্যাপারে সাভার মডেল থানার ওসি কাজী মাইনুল ইসলাম বলেন, এই প্রতারক চক্রের সাথে অন্যকেউ জড়িত আছে কিনা তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

আটকৃত প্রতারক চক্রের মুল হোতা রাকিউল ইসলামের বাড়ি লালমনিরহাট জেলায় বলে জানিয়েছে পুলিশ।

রূপগঞ্জে অগ্নিকাণ্ড : শ্রমিকদের জন্য ক্ষতিপূরণ চেয়ে হাইকোর্টে রিট
                                  

স্বাধীন বাংলা রিপোর্ট : নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে হাসেম ফুডস লিমিটেডের সেজান জুসের কারখানায় অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় নিহত শ্রমিকদের পরিবারকে কোটি টাকা করে এবং আহতদের ৩৫ লাখ টাকা করে ক্ষতিপূরণ দেওয়ার নির্দেশনা চেয়ে হাইকোর্টে আবেদন করা হয়েছে।

আইন ও সালিশ কেন্দ্র (আসক), বাংলাদেশ লিগ্যাল অ্যান্ড সার্ভিসেস ট্রাস্ট, বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবিদ সমিতি (বেলা) এবং সেফটি অ্যান্ড রাইটস সোসাইটির পক্ষ থেকে শনিবার রিট আবেদনটি করা হয়।

বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিমের একক ভার্চুয়াল হাইকোর্ট বেঞ্চের কার্যতালিকায় রোববার আবেদনটির শুনানির জন্য রাখা হয়েছে বলে আইন ও সালিশ কেন্দ্রের আইনজীবী মো. শাহীনুজ্জামান জানান।  

শ্রম ও কর্মসংস্থান সচিব, স্বরাষ্ট্র সচিব, বাংলাদেশ ব্যাংক, পুলিশের মহাপরিদর্শক,রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ, ডিআইজি (ঢাকা রেঞ্জ), নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপার,রুপগঞ্জের উপজেলা নির্বাহী অফিসার, থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা, সিভিল সার্জন, ফায়ার সার্ভিস, হাসেম ফুডস লিমিটেড এবং হাসেম ফুডস লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালককে বিবাদী করা হয়েছে।

আবেদনে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় নিহত শ্রমিকদের প্রত্যেকের পরিবারকে এক কোটি টাকা এবং আহত শ্রমিকদের প্রত্যেককে ৩৫ লাখ টাকা করে ক্ষতিপূরণ দেওয়া নির্দেশনা চাওয়া হয়েছে। এর মধ্যে অন্তর্র্বতীকালীন ক্ষতিপূরণ হিসেবে নিহত শ্রমিকদের প্রত্যেকের পরিবারকে ১০ লাখ এবং আহতদের ৫ লাখ টাকা করে দেওয়ার নির্দেশনা চাওয়া হয়েছে আবেদনে।

এছাড়া রিট আবেদনে হাসেম ফুড লিমিটেড ও এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. আবুল হাসেম এবং তার পারিবারের অন্য সদস্যদের ব্যাংক হিসাব চিহ্নিত করে তা জব্দ করতে বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতি নির্দেশনাও চাওয়া হয়েছে।

আহতদের দ্রুত চিকিৎসা ও চিকিৎসা খরচ দিতে সংশ্লিষ্টদের প্রতি নির্দেশনা চাওয়ার পাশাপাশি প্রতি মাসে হাই কোর্টে আহতদের চিকিৎসা সংক্রান্ত প্রতিবেদন দিতে নারায়ণগেঞ্জের সিভিল সার্জনের প্রতি নির্দেশনা চাওয়া হয়েছে রিট আবেদনে।

গত ৮ জুলাই সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় রূপগঞ্জ উপজেলার কর্ণগোপ এলাকায় অবস্থিত ওই কারখানায় অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। এতে ডেমরা, কাঞ্চনসহ ফায়ার সার্ভিসের ১৮টি ইউনিট আগুন নেভাতে কাজ করে। ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় ২৯ ঘণ্টা পর নিয়ন্ত্রণে আসে। তবে এ সময়ের মধ্যে ঝরে গেছে ৫২ প্রাণ।

এ ঘটনায় হত্যা ও হত্যার অভিযোগে ৩০২, ৩২৬, ৩২৫, ৩২৩, ৩২৪, ৩০৭ ধারায় একটি মামলা করা হয়েছে। ওই মামলায় সজীব গ্রুপের চেয়ারম্যান মো. আবুল হাসেমসহ আটজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। পরে ১০ জুলাই শনিবার আট জনের চার দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন নারায়ণগঞ্জের আদালত।

গ্রেফতার আটজন হলেন- সজীব গ্রুপের চেয়ারম্যান মো. আবুল হাসেম (৭০), তার ছেলে হাসীব বিন হাসেম ওরফে সজীব (৩৯), তারেক ইব্রাহীম (৩৫), তাওসীব ইব্রাহীম (৩৩), তানজীম ইব্রাহীম (২১), শাহান শান আজাদ (৪৩), মামুনুর রশিদ (৫৩) ও মো. সালাউদ্দিন (৩০)।

সাভারে মা’কে উত্ত্যক্তের প্রতিবাদ করায় ছেলের চুল কেটে নির্যাতন
                                  

সাভার প্রতিনিধি :
সাভারে মা’কে উত্ত্যক্ত করার প্রতিবাদ করায় ছেলেকে মারধর করে মাথার চুল কেটে দেওয়াসহ অর্থ দন্ড করেছে এলাকার চিহ্নিত চাঁদা বজরা। এ ঘটনায় ভুক্তভোগী নারী সাভার মডেল থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন।

শুক্রবার (৯ জুলাই) দুপুরে সাভার মডেল থানায় এই অভিযোগ দায়ের করেন ভুক্তভোগীর মা। এতে চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন বলেও দাবি করেছেন তিনি।

অভিযুক্তরা হলেন- সাভারের ভাটপাড়া এলাকার সিকম আলীর ছেলে মো. হাকিম (৪০) ও তার গাড়ির চালক শামসুল ইসলাম (৩৫)। তারা বিভিন্ন সময় ভুক্তভোগীর মাকে মোবাইল ফোন করে কু-প্রস্তাব দিতেন।

ভুক্তভোগী নারী জানান, পারিবারিক সমস্যার কারণে ৩ বছর আগে স্বামীর সাথে ডিভোর্স হয় তার। পরে একমাত্র ছেলে রাসেলকে নিয়ে সাভারের ওই এলাকায় বাসা ভাড়া নিয়ে মানুষের বাড়িতে কাজ করে সংসার চালাতেন। বাসা বাড়িতে কাজ করার সূত্র ধরে প্রথমে শামসুল ও হাকিম এর সাথে পরিচয় হয় তার। পরে বিভিন্ন সময়ে তার মোবাইলে ফোন করে কুপ্রস্তাব দেয় শামসুল ও হাকিম। এ ঘটনায় অভিযুক্তদের মোবাইল নাম্বার বব্ল করে রাখলে গত ৭ জুলাই উত্তেজিত হয়ে ভুক্তভোগীর বাড়িতে আসে হাকিম সহ তার গাড়ি চালক শামসুল। এসময় খারাপ উদ্দেশ্যে ভুক্তভোগীকে জড়ায়ে ধরলে তার চিৎকারে ভুক্তভোগীর ছেলে রাসেল লাঠি দিয়ে হাকিম ও শামসুলকে আঘাত করে। এসময় অভিযুক্তরা পালিয়ে যায়। পরে হাকিমের অফিসে ভুক্তভোগির ছেলেকে নিয়ে ব্যাপক মারধর করে তার চুল কেটে দেয় হাকিমসহ ১০ থেকে ১৫ জন।

ভুক্তভোগী ওই নারীর ছেলে রাসেল জানায়, আগের দিন রাতে মা’কে উত্ত্যক্তের প্রতিবাদ করে সে। পরদিন বন্ধু সহ ভাটপাড়া বাজারে যাওয়ার পথে তাকে হাকিমের অফিসে জোরপূর্বক ধরে নিয়ে যায়। পরে তাকে ১০-১৫ জন মিলে মারধর করে তার চুল কেটে দেয়। পরে তার মাকে অফিসে ডেকে নিয়ে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে ১০ হাজার টাকা দাবি করে। এসময় রাসেলের থেকে ২৩০০ টাকা ও রাসেলের বন্ধু সিহারুলের থেকে ২৪০০ এভাবে মোট ৪৭০০ টাকা নেওয়া হয়। পুরো টাকা দিতে ব্যর্থ হওয়ায় ভুক্তভোগীর একটি ১৫ হাজার টাকা মূল্যের মোবাইল কেড়ে নেয় তারা।

বিচারে হাকিমের অফিসে উপস্থিত বৃদ্ধ শাহজাহান বলেন, আমি হাকিমের অফিসে ছিলাম। সেখানে গিয়ে দেখি গন্ডগোল। বিচার করেছে হাকিম, ইয়াছিন মাতবর ও রায়হানসহ আরও কয়েকজন। আমি জিজ্ঞেস করলাম কি হয়েছে। তারা বলে একটা দুর্ঘটনা ঘটিয়েছে। এক ছেলেকে মেরেছে তার জন্য রাসেলকে ধরে মারছি চুলও কেটে দিয়েছি। তারা ২০ হাজার টাকা জরিমানা করেছে। আমি বললাম তারা গরিব মানুষ এতো টাকা কিভাবে দেবে? পরে দিয়েছে ৪ হাজার ৭০০ টাকা এবং তার মোবাইলটাও রেখে দিয়েছে।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত হাকিম বলেন- আমি চুল কাটি নাই, মাদবররা কাটছে। সে মারামারি করেছিল তাই তার বিচার করা হয়েছে। অভিযোগ রয়েছে, অভিযুক্ত হাকিম ওই এলাকায় মাদক সিন্ডিকেট, বিচারের নামে জরিমানা আদায়, চাঁদাবাজিসহ নানা অপকর্ম করে এলাকায় প্রভাব বিস্তার করে আসছে, এজন্য তার নিজস্ব একটি বাহিনীও রয়েছে।

সাভার মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) কামাল হোসেন বলেন, এ ধরনের ঘটনা ঘটে থাকলে তদন্ত করে অবশ্যই ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বগুড়ায় গরু চুরির মামলায় যুবলীগ নেতা গ্রেফতার
                                  

বগুড়া প্রতিনিধি :
বগুড়ার ধুনট উপজেলার বিভিন্ন গ্রাম থেকে ৭টি গরু চুরির মামলায় সাজিদুল ইসলাম সুজন (৩৫) নামে যুবলীগের এক নেতাকে গ্রেফতা করেছে পুলিশ। সুজন উপজেলার কৈয়াগাড়ি গ্রামের রেফাজ উদ্দিনের ছেলে। সুজন ভান্ডারবাড়ি ইউনিয়ন যুবলীগের সাবেক আহ্বায়ক। বৃহস্পতিবার রাতে অভিযান চালিয়ে উপজেলার গোসাইবাড়ি বাজার এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। শুক্রবার দুপুরের পর ধুনট থানা থেকে তাকে আদালতের মাধ্যমে বগুড়া জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, সাজিদুল ইসলাম সুজন দীর্ঘদিন ধরে এলাকায় চুরি, ছিনতাইসহ বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকান্ডের সঙ্গে জড়িত। গত ২৪ মে রাতে উপজেলা উল্লাপাড়া থেকে দুটি, এলাঙ্গী থেকে দুটি ও পাকুড়িহাটা গ্রাম থেকে তিনটি গরু চুরি করে সুজন। এ ঘটনায় উল্লাপাড়া গ্রামের আশাদুল হক বাদী হয়ে ২৭ মে থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

এছাড়াও ভান্ডারবাড়ি ইউনিয়ন এলাকা থেকে তিনটি দোকানের মালামাল ও স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের একটি কম্পিউটার, একটি ল্যাপটপ, দুটি প্রিন্টার এবং আইপিএসের ব্যাটারীসহ প্রায় তিন লাখ টাকার সামগ্রী চুরির ঘটনায় সন্দেহের তীর সুজনের দিকে।

পুলিশ গত ২২ জুন সুজনের বাড়ি থেকে বিভিন্ন স্থান থেকে চুরি করা বেশ কিছু মালামাল জব্দ করেছে। এ ঘটনার পর থকে সুজন পলাতক ছিল।

উপজেলার ভান্ডারবাড়ি ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রশিদ বলেন, অনেক দিন আগে মোটরসাইকেল ছিনতাইয়ের অভিযোগে সাজিদুল ইসলাম সুজনকে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। বর্তমানে দলের সঙ্গে সুজন জড়িত নেই।

ধুনট থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) কৃপা সিন্ধু বালা বলেন, গরু চুরির মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে সুজনকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। তবে এলাকার অন্যান্য চুরির ঘটনার সাথে জড়িত আছে কিনা তা খাতিয়ে দেখা হচ্ছে।

ইন্টারন্যাশনাল লিজিং : ৫ পরিচালক নিয়োগ দিলেন হাইকোর্ট
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : ইন্টারন্যাশনাল লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স সার্ভিসেস লিমিটেডের অর্থ আত্মসাতের ঘটনায় দুর্নীতি দমন কমিশন-দুদকের করা মামলায় প্রতিষ্ঠানের সাবেক পরিচালনা পর্ষদের অভিযুক্তদের বাদ দিয়ে নতুন পাঁচ জনকে স্বাধীন পরিচালক হিসেবে নিয়োগ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

এ আর্থিক কোম্পানিটির চেয়ারম্যান (আদালত নিযুক্ত) এন আই খান ছাড়া বাকি পরিচালকরা মামলায় অভিযুক্ত। এ কারণে আদালত এ পাঁচজন ব্যক্তিকে স্বাধীন পরিচালক হিসেবে নিয়োগ দিয়েছেন।

তারা হলেন- অগ্রণী ব্যাংক, প্রাইম ব্যাংক ও সাউথ ইস্ট ব্যাংকের সাবেক সিইও সৈয়দ আবু নাসের বখতিয়ার, অবসরপ্রাপ্ত সিনিয়র জেলা ও দায়রা জজ এবং দুদকের সাবেক পরিচালক মো. শফিকুল ইসলাম, অবসরপ্রাপ্ত বিগ্রেডিয়ার জেনারেল মো. মিটফুল করিম, ব্যারিস্টার মো. আশরাফ আলী ও এনামুল হাসান এফসিএ।

এ পরিচালকদের নামের তালিকা বাংলাদেশ ব্যাংকে পাঠাতে ও প্রত্যেক বোর্ড মিটিংয়ে যোগদানের জন্য তাদের সম্মানী হিসেবে ২৫ হাজার টাকা করে দিতে ইন্টারন্যাশনাল লিজিংকে নির্দেশ দেন  হাইকোর্ট।

মঙ্গলবার সুপ্রিম কোর্টের ওয়েবসাইটে বিচারপতি মুহাম্মদ খুরশীদ আলম সরকারের এ আদেশ প্রকাশিত হয়েছে। আদালতে কোম্পানিটির পক্ষে ছিলেন আইনজীবী মাহফুজুর রহমান মিলন। দুদকের পক্ষে ছিলেন মো. খুরশীদ আলম খান।

পটুয়াখালীতে বিধবা নারীকে ধর্ষণ, অন্ত:সত্তা হয়ে হাসপাতালে ভর্তি
                                  

দুলাল কৃষ্ণ নন্দী, পটুয়াখালী প্রতিনিধি :
পটুয়াখালীতে আরিফ (২৮) নামের এক যুবকের বিরুদ্ধে চার সন্তানের জননী বিধবা এক নারীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় ওই নারী অন্ত:সত্তা হয়ে বর্তমানে পটুয়াখালী সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রয়েছেন।

ওই নারী জানান, প্রায় দুই বছর আগে ঢাকার নারায়নগঞ্জ থেকে স্বামী মারা যাওয়ার পর তিনি পটুয়াখালীর জেলগেট এলাকার একটি ভাড়া বাড়িতে সন্তানদের নিয়ে বসবাস শুরু করেন। প্রায় ৮ মাস আগে আরিফ নামের ওই যুবক তার বাড়িতে ঢুকে তাকে অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে হাত পা বেধে ধর্ষণ করে। পরে তাকে পালাক্রমে বেশ কয়েকবার ধর্ষণের ফলে তিনি অন্ত:সত্তা হয়ে পড়েন।

পটুয়াখালী সদর থানার ওসি আখতার মোর্শেদ জানান, ওই নারী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছে। তার খোজ খবর রাখা হচ্ছে। অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হইবে।

জেলে বসে ডেসটিনির রফিকুলের জুম মিটিং: ৪ কারারক্ষী বরখাস্ত
                                  

স্বাধীন বাংলা অনলাইন :
ডেসটিনির এমডি রফিকুল আমিন কারাগারে বন্দি থাকাবস্থায় হাসপাতালে থেকে জুম মিটিং করার ঘটনায় ১৩ কারারক্ষীর বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা করা হয়েছে। এছাড়া সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে ৪ কারারক্ষীকে।

শুক্রবার (২ জুলাই) সন্ধ্যায় কারা মহাপরিদর্শক (আইজি প্রিজন) ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. মোমিনুর রহমান মামুন জানান, এই কারারক্ষীরা বিভিন্ন সময়ে বিএসএমএমইউর প্রিজন সেলে ডেসটিনির পরিচালকের নিরাপত্তায় নিয়োজিত ছিল। এজন্য তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। ১৩ কারারক্ষীর বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা ও চার কারারক্ষীকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

ঘটনা তদন্তে ঢাকা জেলার ডিআইজি প্রিজন তহিদুল ইসলামকে প্রধান করে একটি তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। সাত কার্যদিবসের তারা রিপোর্ট দেবেন। পরবর্তীসময়ে রিপোর্টের ভিত্তিতে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

যাদেরকে বরখাস্ত করা হয়েছে তারা হলেন- প্রধান কারারক্ষী নম্বর- ১১৫৫১- মো. ইউনুস আলী মোল্লা, প্রধান কারারক্ষী নম্বর-১১৪৭৪- মীর বদিউজ্জামান, প্রধান কারারক্ষী নম্বর-১১৪৪৮- মো. আব্দুস সালাম, প্রধান কারারক্ষী নম্বর- ১১৫২৪- মো. আনোয়ার হোসেন।

এছাড়া যে ১৩ জনের বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা হয়েছে তারা হলেন- সহ-প্রধান কারারক্ষী নম্বর- ১২০১৮- মো. জসিম উদ্দিন, সহ-প্রধান কারারক্ষী নম্বর-১২০০১- সাইদুল হক খান, সহ-প্রধান কারারক্ষী নম্বর-১১৬১৬- মো. বিল্লাল হোসেন, সহ-প্রধান কারারক্ষী নম্বর-১১৯৭৫-ইব্রাহিম খলিল, সহ-প্রধান কারারক্ষী নম্বর-১১৯৮৭- মো. বরকত উল্লাহ, সহ-প্রধান কারারক্ষী নম্বর-১২১২১- মো. এনামুল হক, সহ-প্রধান কারারক্ষী নম্বর-১১৬৩২- মো. সরোয়ার হোসেন, কারারক্ষী নম্বর-১২৫৩৬- মোজাম্মেল হক, কারারক্ষী নম্বর-১৪৯৭৪-জাহিদুল ইসলাম, কারারক্ষী নম্বর-২২১৫৯-আমির হোসেন, কারারক্ষী নম্বর-১২৩৮২-কামরুল ইসলাম, কারারক্ষী নম্বর-১৫০৩৫-শাকিল মিয়া, নবীন কারারক্ষী-আব্দুল আলীম।

দেবরের পুরুষাঙ্গ কেটে দিলেন ভাবী
                                  

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি :
সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া উপজেলার  কয়ড়া ইউনিয়নের রতনদিয়ার দিয়ারপাড়া গ্রামে  আকরাম হোসেন নামের এক যুবকের পুরুষাঙ্গ কর্তন করে দিয়েছে ভাবী মমতা খাতুন। জানা গেছে এঘটনার পূর্বে ও এক যুবকের পুরুষাঙ্গ কেটে দিয়েছিলেন তিনি।  
 
রোববার (২৭ জুন) গভীর রাতে উপজেলার কয়ড়ার রতনদিয়া দায়ারপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

গুরুতর আহত আকরাম হোসেন (২০) কে বগুড়া জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অভিযুক্ত মমতা খাতুন ওই গ্রামের নবির হোসেনের স্ত্রী।

আহতের পিতা আব্দুল কাদের বলেন, রোববার (২৭ জুন) রাত সাড়ে ১০টার দিকে মোবাইল সারানোর কথা বলে ছোট দেবর আকরাম হোসেনকে ঘরে ডেকে নিয়ে যায় মমতা খাতুন। এ সময় কাচি দিয়ে তার পুরুষাঙ্গ কর্তন করে দেয়। রক্তক্ষরণ হলে আহত দেবর আকরাম হোসেনের আর্তচিৎকারে তাকে উদ্ধার করে তাৎক্ষকিভাবে উল্লাপাড়া ২০ শয্যা হাসপাতালে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক অবস্থার বেগতিক দেখে তাকে বগুড়া জিয়া মেডিকেল হাসপাতালে স্থানান্তর করেন। ওই রাতেই তাকে বগুড়া জিয়া মেডিকেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বর্তমানে তিনি চিকিৎসাধীন রয়েছে। তবে কি কারণে পুরুষাঙ্গ কর্তন করা হলে তার প্রকৃত কারণ এখনও জানা যায়নি। এ ঘটনায় উল্লাপাড়া মডেল থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।
 
তিনি আরও বলেন, এর আগেও গত ২৭ মার্চ একই গ্রামের প্রতিবেশী হায়দার আলীর পুত্র নোমানের পুরুষাঙ্গ কর্তন করেছিল মমতা খাতুন। বিষয়টি স্থানীয়ভাবে মিমাংসরা করা হয়েছিল।

উল্লাপাড়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দীপক কুমার দাস এ তথ্য নিশ্চিত করে জানান, দেবরের পুরুষাঙ্গ কর্তনের কথা শুনে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। ভিকটিম হাসপাতালে ভর্তি থাকায় কি কারণে এ ঘটনা ঘটেছে তা সুনির্দিষ্টভাবে বলা যাচ্ছে না। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত কোন অভিযোগ থানায় দেয়নি। অভিযোগ পেলে তদন্তপূর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। ওসি আরও বলেন, এর আগেও ওই নারী আরও একজন যুবকের পুরুষাঙ্গ কর্তন করেছিল বলে শুনেছি। ওই সময়েও বিষয়টি পুলিশকে না জানিয়ে স্থানীয়ভাবে মিমাংসা করা হয়।

কুষ্টিয়ায় হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে দুদকের মামলা
                                  

আকরামুজ্জামান আরিফ, কুষ্টিয়া প্রতিনিধি :
প্রায় কোটি টাকা জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগে হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মামলা করেছে কুষ্টিয়া দুদক। একই সাথে তার স্কুল শিক্ষিকা স্ত্রীর বিরুদ্ধেও মামলা করেছে দুদক।

রবিবার (২৭ জুন) দুপুরে দুর্নীতি দমন কমিশন সমন্বিত জেলা কার্যালয় কুষ্টিয়ার সহকারী পরিচালক আলমগীর হোসেন বাদী হয়ে জেলা হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তা আশরাফুল আলম ও তার স্ত্রী স্কুলশিক্ষিকা মোছা. আয়েশা খাতুনের বিরুদ্ধে পৃথক দুটি মামলা করেছেন।

মামলার এজাহার নামীয় আসামিরা হলেন- রংপুর তারাগঞ্জ উপজেলার ইকরচালী গ্রামের বাসিন্দা আব্দুস সাত্তার মিয়ার ছেলে সাবেক কুষ্টিয়া জেলা হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তা বর্তমানে রংপুরে কর্মরত আশারাফুল আলম এবং তার স্ত্রী রংপুর সদর উপজেলার রাধাকৃষ্ণপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা মোছা. আয়শা খাতুন।

মামলার এজাহার সূত্রের বিবরণ দিয়ে দুদকের কৌঁসুলি অ্যাড. আল-মুজাহিদ মিঠু জানান, প্রথম মামলায় আনীত অভিযোগে সাবেক জেলা হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তা আশরাফুল আলম তার কর্মজীবনের ১৯৮৯ সাল হতে ২০১৯ সাল সময়কালের মধ্যে জ্ঞাত আয় বহির্ভূত প্রায় ৩৬ লাখ টাকার সম্পদ অর্জনের অভিযোগ।

২য় মামলায় আশরাফুল আলম ও তার স্ত্রী আয়শা খাতুন যৌথভাবে কর্মজীবনের ১৯৯৫ সাল হতে ২০১৯ সাল সময়কালের মধ্যে প্রায় ২১ লাখ টাকার জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদ আহরণ করেছেন বলে দুদকের প্রাথমিক অনুসন্ধান ও তদন্তে সত্যতা পাওয়া যায়।

আসামিদের দখলে থাকা প্রায় দুই কোটি টাকার সম্পত্তির মধ্যে প্রায় অর্ধকোটি টাকার সম্পত্তি জ্ঞাত আয় বহির্ভূত। যা ২০০৪ সালের দুদক আইনের দ:বি: ২৬(২) ও ২৭(১) ধারা এবং ২০১২ সালের মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ আইনের ৪(২ ও ৩) তৎসহ ১০৯ ধারায় অপরাধ সংগঠিত হয়েছে বলে প্রতীয়মান হওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে পৃথক দুটি মামলা দায়ের করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন দুদক সমন্বিত জেলা কার্যালয়।

ব্যাংক কর্মকর্তা প্রতারক চক্রের নিয়ন্ত্রক!
                                  

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি :
চাঁপাইনবাবগঞ্জে অভিনব কৌশলে প্রতারণা নিয়ন্ত্রণ করেছে একটি প্রতারক চক্র। আর প্রতারণার মাধ্যমে হাতিয়ে নেয়া টাকা দিয়ে বিলাসী জীবনযাপন করছে প্রতারক চক্রের সব সদস্যরা। সম্প্রতি ওই প্রতারক চক্রের বিরুদ্ধে মামলা হওয়ার পর প্রতারণার সব তথ্য ফাঁস হয়েছে। প্রতারক চক্রের এক নারী সদস্যের অডিও রেকডিংয়ে সংঘবদ্ধ চক্রের প্রতারণার সত্যতা মিলেছে। ভুক্তভোগিদের দাবী- প্রতারণার টাকায় রেজাউল ইসলাম রেজা আজ কোটিপতি। প্রতারক রেজা চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌর এলাকার চর মোহনপুর দক্ষিণপাড়ার মৃত নৈয়মুদ্দিন মাস্টারের ছেলে।
 
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ইসলামী ব্যাংকের এক কর্মকর্তা এ প্রতারক চক্রের নিয়ন্ত্রক। তিনি বর্তমানে ঢাকার এলিফ্যান্ট রোড নিউমার্কেট শাখায় কর্মরত। প্রতারণায় অভিযুক্ত ব্যাংক কর্মকর্তার স্ত্রী একজন উপ সচিব। এ প্রতারক চক্রের আরেক নিয়ন্ত্রকের নাম রেজাউল ইসলাম (রেজা)। তার আপন ভাই পুলিশের উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তা। বর্তমানে তিনি রাজশাহী মেট্রোপলিটন পুলিশে কর্মরত। রেজার আরেক সহযোগী কাবিরও এ চক্রের সদস্য। প্রতারক চক্রে পুরুষদের পাশাপাশি নারী সদস্যও রয়েছেন। রেজাউল এবং ওই ব্যাংক কর্মকর্তার অন্যতম নারী সহযোগীর নাম বিউটি। এছাড়াও কুষ্টিয়া এ চক্রের আরেক নারী সদস্য রয়েছেন। প্রতারক চক্রের সদস্য বিউটির ভাষ্যমতে কুষ্টিয়ায় তাদের যে সদস্য রয়েছেন তিনি হলেন, পুলিশের উপ-পরিদর্শক।  
জানা গেছে, সংঘবদ্ধ এ চক্র কৌশলে মানুষের কাছ থেকে হাতিয়ে নিয়েছে প্রায় ২ কোটি। কিছু বুঝে ওঠার আগেই এদের ফাঁদে পড়ে সর্বস্ব হারিয়ে এখন দিশেহারা একাধিক পরিবার। প্রায় দুই বছর ধরে বিভিন্ন প্রলোভনে এসব টাকা হাতিয়ে নিয়েছে প্রতারক চক্রটি। চাঁপাইনবাবগঞ্জ, রাজশাহী, নওগাঁ ও কুষ্টিয়ার বিভিন্ন এলাকায় বিস্তৃত এদের প্রতারণার জাল। প্রতারণার বাণিজ্যে ব্যাংক কর্মকর্তা সরাসরি জড়িত থাকার পাশাপাশি এনজিও কর্মী, বিদেশী দাতা সংস্থার প্রতিনিধি ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পরিচয়সহ নানা পরিচয় ব্যবহার করেছেন তারা। প্রতারণার শিকার মাত্র একজন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর দ্বারস্থ হয়েছেন। আবার অনেকেই লোকলজ্জা, কেউ বাড়তি ঝামেলার জন্য নীরব  আছেন।

মামলার সূত্র ধরে অনুসন্ধানে জানা গেছে, সংঘবদ্ধ প্রতারক চক্রের খপ্পরে পড়ে সর্বর্স্ব হয়েছেন চাঁপাইনবাবগঞ্জের ১০ পরিবার। প্রতারণার ফাঁদে ফেলে সহজ-সরল মানুষের প্রায় ২ কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে চক্রটি। ভুক্তভোগীদের রাতারাতি ধনী হওয়ার স্বপ্নকে পুঁজি করে প্রতারণা করে চক্রটি। চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌর এলাকার নামোশংকরবাটি, নতুনহাট, চর মোহনপুর ও টিকরামপুর এলাকার ১০টি পরিবার জমানো টাকা হারিয়ে এখন নিঃস্ব। কয়েকটি পরিবার আবার ধারদেনা করেও চক্রটিকে টাকা দিয়েছে। এ চক্রের প্রতারণার শিকার হয়ে সর্বস্ব হয়ে পড়েছেন অনেকে। বিশেষ করে নিরক্ষর, অসচেতন মানুষ তাদের ফাঁদে পা দিয়ে টাকা হারিয়েছেন। প্রায় ৩০ জন এ চক্রের ফাঁদে পা দিয়েছেন।
এ ঘটনায় মামলা হওয়ার পর এলাকা ছেড়ে পালিয়েছে প্রতারক চক্রের সদস্যরা। মামলা হওয়ার পর প্রতারক চক্রের প্রধান আসামী রেজাউল ইসলামকে গ্রেফতার করে আদালতে সোপার্দ করে সদর মডেল থানা পুলিশ। তবে বাদীর সঙ্গে সমন্বয় করে মিমাংসার শর্তে জামিন নেন তিনি। তবে জামিন নেয়ার দীর্ঘ সময় পেরিয়ে গেলেও মিমাংসার কোন উদ্যোগ নেননি। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের মিমাংসার উদ্যোগ অনিশ্চয়তার মধ্যে রয়েছে। এ প্রতারক সিন্ডিকেট পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগে (সিআইডি) তদন্তাধিন মামলাটি প্রভাবিত করার চেষ্টা করছেন।
     
আইনশৃঙ্খলা বাহীনি সদস্যরা বলছেন, এ প্রতারকরা খুবই চতুর। এরা নানা কৌশলে ফাঁদে ফেলে কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। তবে এদের বিরুদ্ধে প্রমাণের অভাবে ব্যবস্থা নেয়া কঠিন হয়। এদের খপ্পর থেকে নিজেকে মুক্ত রাখতে হলে সব সময় সচেতন থাকতে হবে।

মামলার আইনজীবী শফিক এনায়েতুল্লাহ বলেন, প্রতারকরা পার পেয়ে যাওয়ার জন্য কৌশল অবলম্বন করেই প্রতারণা করে। ফলে আদালতে এদের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য-প্রমাণ নিশ্চিত করা কঠিন হয়ে পড়ে। তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহারসহ বিজ্ঞানভিত্তিক তদন্ত ছাড়া এসব মামলার আসামিদের শনাক্ত করা কঠিন। পুলিশ চাইলে এ মামলার রহস্য উদঘাটন করা সম্ভব।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সিআইডির এসআই মো. ফজলু জানান, এ মামলা প্রধান অভিযুক্ত বিউটি। তাকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। তদন্তাধীন বিষয়ে এখনই বিস্তারিত বলা যাবে না।


   Page 1 of 143
     আইন - অপরাধ
ধর্ষণের পর প্রেমিকার ভিডিও ভাইরাল, ধর্ষক গ্রেফতার
.............................................................................................
মুফতি মাহমুদুল গুনবী র‌্যাবের হাতে গ্রেফতার
.............................................................................................
কালিয়াকৈরে কারখানায় হামলা ও ম্যানেজারকে প্রাণনাশের হুমকি
.............................................................................................
মাত্র ৫০ টাকার জন্য মাকে হত্যা, ছেলে গ্রেফতার
.............................................................................................
ময়মনসিংহে ধর্ষণ মামলার পর ফের ধর্ষণ: ভয়ে গ্রাম ছাড়া ধর্ষিতার পরিবার
.............................................................................................
সিরাজগঞ্জে রেলের জমি দখল করে মার্কেট নির্মাণ চলছে, নির্বাক কর্তৃপক্ষ
.............................................................................................
প্রধানমন্ত্রীর সহকারী পরিচয় দিয়ে বাড়ি দখলের চেষ্টা, আটক-৬
.............................................................................................
রূপগঞ্জে অগ্নিকাণ্ড : শ্রমিকদের জন্য ক্ষতিপূরণ চেয়ে হাইকোর্টে রিট
.............................................................................................
সাভারে মা’কে উত্ত্যক্তের প্রতিবাদ করায় ছেলের চুল কেটে নির্যাতন
.............................................................................................
বগুড়ায় গরু চুরির মামলায় যুবলীগ নেতা গ্রেফতার
.............................................................................................
ইন্টারন্যাশনাল লিজিং : ৫ পরিচালক নিয়োগ দিলেন হাইকোর্ট
.............................................................................................
পটুয়াখালীতে বিধবা নারীকে ধর্ষণ, অন্ত:সত্তা হয়ে হাসপাতালে ভর্তি
.............................................................................................
জেলে বসে ডেসটিনির রফিকুলের জুম মিটিং: ৪ কারারক্ষী বরখাস্ত
.............................................................................................
দেবরের পুরুষাঙ্গ কেটে দিলেন ভাবী
.............................................................................................
কুষ্টিয়ায় হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে দুদকের মামলা
.............................................................................................
ব্যাংক কর্মকর্তা প্রতারক চক্রের নিয়ন্ত্রক!
.............................................................................................
তালাকপ্রাপ্ত স্ত্রীর সাজানো মামলায় স্বামী কারাগারে
.............................................................................................
কুষ্টিয়ায় রেজিস্ট্রি অফিসে ঘুষ গ্রহণ: কর্মচারী মুকুল বরখাস্ত
.............................................................................................
বগুড়ায় হত্যাকান্ডের ১০ বছর পর আসামী গ্রেফতার
.............................................................................................
বাবা-মা-বোনকে হত্যা : মেহজাবিন ও তার স্বামীর বিরুদ্ধে মামলা
.............................................................................................
গাইবান্ধায় আত্মগোপনে ছিলেন ত্ব-হা : ডিবি
.............................................................................................
বগুড়ায় ৪১টি চোরাই মোবাইল ফোন উদ্ধার: গ্রেওফতার ৪
.............................................................................................
এখনও খোঁজ মেলেনি ইসলামি বক্তা আবু ত্ব-হার
.............................................................................................
জামিন পেলেন বিএনপি নেত্রী নিপুণ রায়
.............................................................................................
‘এনা’ পরিবহনের মালিক এনায়েত উল্লাহর সম্পদের হিসাব চায় দুদক
.............................................................................................
পরীমনিকে ধর্ষণ চেষ্টা: ব্যবসায়ী নাসিরসহ গ্রেফতার ৫
.............................................................................................
পরীমনিকে ধর্ষণচেষ্টা: ব্যবসায়ী নাসির গ্রেফতার
.............................................................................................
সাংবাদিক মুজাক্কির হত্যা: আসামিকে জামিন দেননি হাইকোর্ট
.............................................................................................
কুষ্টিয়া চিনিকলের গুদাম থেকে ৫৩ টন চিনি গায়েব
.............................................................................................
রিমান্ড শেষে নারায়ণগঞ্জ কারাগারে মামুনুল হক
.............................................................................................
৬ বছরের সেই শিশুর ডাক্তারী পরীক্ষায় ধর্ষণের আলামত
.............................................................................................
কচুয়ায় হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে তদন্ত কার্যক্রম শুরু
.............................................................................................
অনিয়মের অভিযোগে পল্লীবিদ্যুৎ সমিতির পরিচালক অপসারণ
.............................................................................................
স্বাস্থ্যমন্ত্রীর বোনের বিরুদ্ধে কুষ্টিয়ায় একাধিক প্রতারণার মামলা: গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি
.............................................................................................
পর্নোগ্রাফি মামলায় যুবলদ নেতা সোহাগ গ্রেফতার
.............................................................................................
শাহজাদপুরে চাঞ্চল্যকর আব্দুর রহমান হত্যা রহস্য উদঘাটন
.............................................................................................
লাঠি হাতে মিছিলে কাদের মির্জা, ডিসি-এসপির চামড়া তুলে নেয়ার স্লোগান
.............................................................................................
৪র্থ শ্রেণির শিক্ষার্থী ধর্ষণ, মোড়ল আটক
.............................................................................................
স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে সাবেক ছাত্রলীগ নেতা আটক
.............................................................................................
মাদরাসায় গাঁজা সেবনে বাধা দেয়ায় নৈশ প্রহরী খুন, পুলিশের কাছে স্বীকারোক্তি
.............................................................................................
আশুলিয়ায় চলন্ত বাসে নারী ধর্ষণ: ৫ আসামি রিমান্ডে
.............................................................................................
পূর্বাঞ্চল রেলের অডিটর ফয়সাল ৭২ লাখ টাকা আত্মসাত করেছেন, তদন্তে প্রমাণিত
.............................................................................................
ভারতে তরুণীকে নির্যাতন: টিকটক হৃদয়ের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে পুলিশ
.............................................................................................
আবারো ৩ দিনের রিমান্ডে রফিকুল ইসলাম মাদানি
.............................................................................................
মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার ফল বাতিলের রিট খারিজ
.............................................................................................
৮৩ বছরের বৃদ্ধা গণধর্ষণের শিকার
.............................................................................................
প্রধানমন্ত্রীর সই জাল কারী সেলিমের জামিন বাতিল
.............................................................................................
জামিন পেলেন সাংবাদিক রোজিনা ইসলাম
.............................................................................................
জামিন হয়নি সাংবাদিক রোজিনার, আদেশ রোববার
.............................................................................................
হত্যা মামলায় সাবেক এমপি আউয়াল গ্রেফতার
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

সম্পাদক ও প্রকাশক : মোহাম্মদ আখলাকুল আম্বিয়া
নির্বাহী সম্পাদক: মাে: মাহবুবুল আম্বিয়া
যুগ্ম সম্পাদক: প্রদ্যুৎ কুমার তালুকদার

সম্পাদকীয় ও বাণিজ্যিক কার্যালয়: স্বাধীনতা ভবন (৩য় তলা), ৮৮ মতিঝিল বাণিজ্যিক এলাকা, ঢাকা-১০০০। Editorial & Commercial Office: Swadhinota Bhaban (2nd Floor), 88 Motijheel, Dhaka-1000.
সম্পাদক কর্তৃক রঙতুলি প্রিন্টার্স ১৯৩/ডি, মমতাজ ম্যানশন, ফকিরাপুল কালভার্ট রোড, মতিঝিল, ঢাকা-১০০০ থেকে মুদ্রিত ও প্রকাশিত ।
ফোন : ০২-৯৫৫২২৯১ মোবাইল: ০১৬৭০৬৬১৩৭৭

Phone: 02-9552291 Mobile: +8801670 661377
ই-মেইল : dailyswadhinbangla@gmail.com , editor@dailyswadhinbangla.com, news@dailyswadhinbangla.com

 

    2015 @ All Right Reserved By dailyswadhinbangla.com

Developed By: Dynamic Solution IT