শনিবার, ২ জুলাই 2022 বাংলার জন্য ক্লিক করুন
  
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   আইন - অপরাধ -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
সানফ্লাওয়ার ইন্সুরেন্সের প্রতারণা, বীমার টাকার দাবিতে ঘেরাও

স্বাধীন বাংলা প্রতিনিধি
নোয়াখালীতে সানফ্লাওয়ার লাইফ ইন্সুরেন্সের লিমিটেড সার্ভিস সেল অফিসে বীমার মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়ার পরও টাকা না পাওয়ায় হাজার হাজার গ্রাহক পাওনা টাকার দাবিতে ঘেরাও করে রাখে এবং তালা ঝুলিয়ে দেয়।

বৃহস্পতিবার দুুপুর থেকে রাত সাড়ে ১১টা পর্যন্ত তারা মাইজদী অফিসের সামনে অবস্থান করে। এ সময় অফিসে তালা ঝোলানো দেখা যায়। অফিসের মধ্যে পুলিশের হস্তক্ষেপে কর্মকর্তারা অবস্থান করেছে।

গ্রাহকরা অভিযোগ করেন, কর্মকর্তারা টাকা না দিয়ে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে এবং টাকা দিতে টালবাহানা করে। প্রায় একহাজার গ্রাহক এ কর্মসূচি পালন করে।

সুধারাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো.আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, ঘটনাস্থলে পুলিশ রয়েছে। বৃহস্পতিবার রাতে কিছু কিছু বীমা গ্রাহকের টাকা দেওয়া হচ্ছে বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

সানফ্লাওয়ার ইন্সুরেন্সের প্রতারণা, বীমার টাকার দাবিতে ঘেরাও
                                  

স্বাধীন বাংলা প্রতিনিধি
নোয়াখালীতে সানফ্লাওয়ার লাইফ ইন্সুরেন্সের লিমিটেড সার্ভিস সেল অফিসে বীমার মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়ার পরও টাকা না পাওয়ায় হাজার হাজার গ্রাহক পাওনা টাকার দাবিতে ঘেরাও করে রাখে এবং তালা ঝুলিয়ে দেয়।

বৃহস্পতিবার দুুপুর থেকে রাত সাড়ে ১১টা পর্যন্ত তারা মাইজদী অফিসের সামনে অবস্থান করে। এ সময় অফিসে তালা ঝোলানো দেখা যায়। অফিসের মধ্যে পুলিশের হস্তক্ষেপে কর্মকর্তারা অবস্থান করেছে।

গ্রাহকরা অভিযোগ করেন, কর্মকর্তারা টাকা না দিয়ে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে এবং টাকা দিতে টালবাহানা করে। প্রায় একহাজার গ্রাহক এ কর্মসূচি পালন করে।

সুধারাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো.আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, ঘটনাস্থলে পুলিশ রয়েছে। বৃহস্পতিবার রাতে কিছু কিছু বীমা গ্রাহকের টাকা দেওয়া হচ্ছে বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

বান্ধবীর কাছে হিরো সাজতে শিক্ষককে মারধর করে জিতু
                                  

মো: আজমাইন মাহতাব:

হিরোইজম দেখাতে গিয়ে স্ট্যাম্প দিয়ে আঘাত করে শিক্ষক উৎপল কুমার সরকারকে হত্যা করে জিতু বলে জানিয়েছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)। বৃহস্পতিবার (৩০ জুন) দুপুরে র‌্যাবের মিডিয়া সেন্টারে এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানান র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার প্রধান কমান্ডার খন্দকার আল মঈন।

তিনি বলেন, বুধবার (২৯ জুন) সন্ধ্যায় র‌্যাব-১ এবং র‌্যাব-৪ এর যৌথ অভিযানে গাজীপুরের শ্রীপুর এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে জিতুকে গ্রেপ্তার করা হয়। জিতু দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী ছিল। সে শিক্ষা জীবনে বিরতি দিয়ে প্রথমে স্কুল, পরে মাদরাসা ও সর্বশেষ পুনরায় স্কুলে ভর্তি হয়। স্কুলে সবার কাছে একজন উচ্ছৃঙ্খল ছাত্র হিসেবেই পরিচিত ছিল সে।

খন্দকার আল মঈন বলেন, সহপাঠীদের সঙ্গে প্রায়ই সে মারামারি করত এবং ছাত্রীদের ইভটিজিং করত। স্কুল প্রাঙ্গণে সবার সামনে ধুমপান, স্কুল ইউনিফর্ম ব্যতিত স্কুলে আসা-যাওয়া, মোটরসাইকেল নিয়ে বেপরোয়াভাবে চলাফেরা করত। স্কুলের পরিবেশ নষ্টের জন্য তার বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে।

মঈন আরও বলেন, তার নেতৃত্বে এলাকায় একটি কিশোর গ্যাং গড়ে ওঠে। বিভিন্ন সময় গ্যাং সদস্যদের নিয়ে মাইক্রোবাসে করে যত্রতত্র আধিপত্য বিস্তার করত। পরিবারের কাছে তার বিরুদ্ধে কেউ অভিযোগ করলে জিতু তার গ্যাং সদস্যদের সঙ্গে নিয়ে তাদের ওপর চড়াও হতো ও বিভিন্ন সময় এলাকায় ত্রাস সৃষ্টির লক্ষ্যে হামলা ও ভয়-ভীতি দেখিয়ে শোডাউন দিত। জিতু এলাকার কিশোরদের কাছে ‘দাদা’ হিসেবে পরিচিত ছিল।

র‌্যাব জানায়, স্কুলের এক ছাত্রীর সঙ্গে জিতু অযাচিতভাবে ঘোরাফেরা করলে বিষয়টি শিক্ষক উৎপলের নজরে আসে। তিনি জিতুকে বারণ করলে সে শিক্ষকের প্রতি ক্ষুব্ধ হয়। ওই ছাত্রীর কাছে নিজের হিরোইজম প্রদর্শন করার জন্য পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী ২৫ জুন একটি ক্রিকেট খেলার স্ট্যাম্প স্কুলে নিয়ে আসে এবং তা শ্রেণিকক্ষের পেছনে লুকিয়ে রাখে। পরবর্তীতে কলেজ মাঠে ছাত্রীদের ক্রিকেট টুর্নামেন্ট চলাকালীন মাঠের এক কোণে শিক্ষক উৎপল কুমারকে একা পেয়ে স্ট্যাম্প দিয়ে বেধড়ক আঘাত করতে থাকে। জিতু শিক্ষককে প্রথমে পেছন থেকে মাথায় আঘাত করে এবং পরবর্তীতে শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাত করে গুরুতরভাবে জখম করে।

এরপর ২৭ জুন এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান শিক্ষক উৎপল কুমার সরকার।
এ ঘটনায় ২৬ জুন উৎপলের ভাই বাদী হয়ে আশুলিয়া থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। ওই মামলায় জিতুকে প্রধান আসামি করা হয়। এ ছাড়াও কয়েকজনকে অজ্ঞাতনামা পরিচয়ে আসামি করা হয়।

মামলার পর মঙ্গলবার (২৯ জুন) রাতে কুষ্টিয়া থেকে অভিযুক্ত জিতুর বাবা উজ্জ্বল হোসেনকে আটক করে পুলিশ। ওই রাতেই তাকে আশুলিয়া থানায় আনা হয়। এরপর তাকে ওই মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়।

হবিগঞ্জের একজনের মৃত্যুদণ্ড, ৩ জনের আমৃত্যু কারাদণ্ড
                                  

স্বাধীন বাংলা প্রতিবেদক ডেস্ক
একাত্তরের মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় হবিগঞ্জের একজনকে মৃত্যুদণ্ড ও তিন জনকে আমৃত্যু কারাদণ্ড দিয়েছেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল।

বৃহস্পতিবার ট্রাইব্যুনালের চেয়ারম্যান বিচারপতি মো. শাহিনুর ইসলামের নেতৃত্বাধীন তিন সদস্যদের আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল এ রায় ঘোষণা করেন। ট্রাইব্যুনালের অন্য সদস্যরা হলেন- বিচারপতি আবু আহমেদ জমাদার ও বিচারপতি কেএম হাফিজুল আলম।

অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় একজনকে খালাস দিয়েছেন আদালত।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত মাওলানা মো. শফি উদ্দিন হবিগঞ্জের লাখাই উপজেলার বাসিন্দা।

আমৃত্যু কারাদণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন- তাজুল ইসলাম, মো. জাহেদ মিয়া, ছালেক মিয়াকে। আর খালাস পেয়েছেন সাব্বির আহমেদ।

গত মঙ্গলবার (২৮ জুন) ট্রাইব্যুনাল এ মামলার রায় ঘোষণার জন্যে বৃহস্পতিবার দিন ধার্য করেন।

গত ১৭ মে প্রসিকিউশন ও আসামিপক্ষের যুক্তিতর্ক শুনানির পর ট্রাইব্যুনাল এ মামলাটির রায়ের জন্য অপেক্ষায় রেখেছিলেন। ওইদিন আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন প্রসিকিউটর সুলতান মাহমুদ সিমন। আসামিপক্ষে শুনানি করেন আব্দুস সাত্তার পালোয়ান, গাজী তামিম।

২০১৮ সালের ২১ মার্চ এ মামলায় পাঁচ জনের বিরুদ্ধে তদন্ত শেষ করে প্রসিকিউশনে প্রতিবেদন দাখিল করে তদন্ত সংস্থা। যাচাই-বাছাই শেষে আসামিদের বিরুদ্ধে দুটি অভিযোগ আনতে ট্রাইব্যুনালে আনুষ্ঠানিক অভিযোগপত্র জমা দেয় প্রসিকিউশন।

এরপর পাঁচ আসামির বিরুদ্ধে লুটপাট, অগ্নিসংযোগ, অপহরণ, আটক, নির্যাতন ও হত্যার মতো বিভিন্ন মানবতাবিরোধী অপরাধের দুটি অভিযোগ গঠন করে বিচার শুরু করেন ট্রাইব্যুনাল।

মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত আসামী গুলশান থেকে গ্রেফতার
                                  

মো: আজমাইন মাহতাব:

মানিকগঞ্জ সদর এলাকার আজাহার হত্যা মামলার দীর্ঘ ৩১ বছর বিভিন্ন ছদ্মবেশে পলাতক মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত আসামী মোঃ কাওছারকে রাজধানীর গুলশান এলাকা থেকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব।

 মানিকগঞ্জের চাঞ্চল্যকর আজাহার (৪০) হত্যা মামলার দীর্ঘ ৩১ বছর ধরে পলাতক আসামীকে গ্রেফতার করার জন্য গতকাল রাতে রাজধানীর গুলশান থানাধীন বারিধারা এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে র‌্যাব। অভিযানে মৃত্যুদন্ড প্রাপ্ত পলাতক আসামী মোঃ কাওছারকে (৬৩) গ্রেফতার করতে সমর্থ হয়।

জানা যায় যে, গ্রেফতারকৃত আসামী মোঃ কাওছার (৬৩) ও ভিকটিম আজাহার (৪০) মানিকগঞ্জ জেলার চর হিজুলী গ্রামে বসবাস করত এবং একই এলাকায় চাষাবাদ করতো এবং একসাথে ইরি ধানের ক্ষেতে পানি সেচের ব্যবসা করতো। সেই সুবাদে তাদের মধ্যকার ভালো সম্পক ছিলো। এক পর্যায়ে ভিকটিমের বিবাহিত বোন অবলার সাথে আসামী কাওছারের পরকীয়া প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। বিষয়টি জানাজানি হলে ঘটনার দিন দুজনের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। কথাকাটাকাটির একপর্যায়ে আসামীর লাঠির আঘাতে আজহারের মৃত্যু হয়। পরে মৃতের আপন ছোট ভাই মোঃ আলী হোসেন (বর্তমানে মৃত) বাদী হয়ে আসামী কাওছারসহ সর্বমোট ৭ জনকে আসামী করে একই দিন মানিকগঞ্জ সদর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলা চলাকালীন একপর্যায়ে কাওসার আত্মগোপনে চলে যান।

পরবর্তীতে আজাহার হত্যাকান্ডে সরাসরি সম্পৃক্ত থাকার অপরাধে ১৯৯২ সালের শেষের দিকে মানিকগঞ্জ জেলার জেলা ও দায়রা জজ মোঃ কাওছারকে মৃত্যুদন্ড, অপর আসামী ওমর, রুহুল আমিন, আসমান ও রফিজ প্রত্যেককে যাবজ্জীবন সাজা প্রদান করেন। যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামীগণ ৫ বছর সাজাভোগের পরে উচ্চ আদালতে আপিল করে বর্তমান আদালতের নির্দেশে জামিনে আছে। পলাতক আসামী মোঃ কাওছার মামলা বিচারাধীন থাকাবস্থায় ২ মাস হাজতে থেকে জামিনে বের হওয়ার পর থেকেই গত ৩১ বছর পলাতক ছিল।  গ্রেফতারকৃত আসামীকে সংশ্লিষ্ট থানায় হস্তান্তর কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন।

রূপসী বাংলার ভ্যাট ফাঁকি ১৮.৮৩ কোটি
                                  

স্বাধীন বাংলা প্রতিবেদক
অভিজাত হোটেল প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁওয়ের পর ভ্যাট ফাঁকির প্রমাণ পাওয়া গেছে দেশের স্বনামধন্য পাঁচ তারকা হোটেল রূপসী বাংলার (বর্তমানে ইন্টারকন্টিনেন্টাল, ঢাকা) বিরুদ্ধেও। তাদের বিরুদ্ধে ১৮ কোটি ৮৩ লাখ টাকার সম্পূরক শুল্কসহ মূসক বা ভ্যাট ফাঁকির তথ্য উদঘাটন করে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) বৃহৎ করদাতা ইউনিট বা ভ্যাট বিভাগ। এ নিয়ে আদালতে মামলা গড়ায় এবং সেখানেও হেরে যায় রূপসী বাংলা। এখন পর্যন্ত ওই ভ্যাট পরিশোধ করেনি তারা।

আদালতের আদেশ অনুযায়ী ২০০৫ সালের জুলাই থেকে ২০০৯ সালের জানুয়ারি পর্যন্ত সময়ে অপরিশোধিত সম্পূরক শুল্কসহ মূসক বাবদ ওই টাকা নিরঙ্কুশ বকেয়া প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। পানশালা (মদের বার) ও ড্যান্স ফ্লোরের বিভিন্ন সেবায় প্রযোজ্য ওই শুল্ক ও ভ্যাট পরিশোধে পাঁচ তারকা হোটেল কর্তৃপক্ষকে দফায় দফায় চিঠি ও নোটিশ দিয়ে যাচ্ছে ভ্যাট বিভাগ।


সর্বশেষ গত ৭ জুন বৃহৎ করদাতা ইউনিট থেকে সাত কর্মদিবসের মধ্যে বকেয়া ভ্যাট সরকারের কোষাগারে জমা দেওয়ার জন্য মূল্য সংযোজন কর বিধিমালা ১৯৯১ এর ৪৩ বিধি অনুযায়ী প্রথম দফা নোটিশ দেওয়া হয়েছে। আদায় না হলে দ্বিতীয় দফায় নোটিশ দেওয়া হবে। এনবিআরের বৃহৎ করদাতা ইউনিট সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

দেশের স্বনামধন্য পাঁচ তারকামানের হোটেল রূপসী বাংলা বা ইন্টারকন্টিনেন্টাল, ঢাকার ১৮ কোটি ৮৩ লাখ টাকার সম্পূরক শুল্কসহ মূসক বা ভ্যাট ফাঁকির চূড়ান্ত প্রমাণ পেয়েছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) বৃহৎ করদাতা ইউনিট বা ভ্যাট বিভাগ
এর আগে ১৮ মে বৃহৎ করদাতা ইউনিটের (এলটিইউ) ভ্যাট বিভাগের কমিশনার ওয়াহিদা রহমান চৌধুরীর সই করা চিঠিতে ১৫ কর্মদিবসের মধ্যে ট্রেজারি চালানের মাধ্যমে শুল্কসহ ভ্যাটের ১৮ কোটি ৮৩ লাখ ৯০ হাজার ৯৯৪ টাকা সরকারি কোষাগারে জমা দিতে হোটেল কর্তৃপক্ষকে অনুরোধ জানানো হয়। তবে ফাঁকি দেওয়া টাকা এখনো জমা হয়নি।

এ বিষয়ে জানতে এলটিইউ-এর ভ্যাট বিভাগের কমিশনার ওয়াহিদা রহমান চৌধুরীর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি কোনো বক্তব্য দিতে রাজি হননি।

গত ৭ জুন বৃহৎ করদাতা ইউনিট থেকে সাত কর্মদিবসের মধ্যে বকেয়া ভ্যাট সরকারের কোষাগারে জমা দেওয়ার জন্য প্রথম দফায় মূল্য সংযোজন কর বিধিমালা ১৯৯১ এর ৪৩ বিধি অনুযায়ী নোটিশ দেওয়া হয়েছে। আদায় না হলে দ্বিতীয় দফায় নোটিশ দেওয়া হবে বলে জানা গেছে অন্যদিকে, ভ্যাট ফাঁকির বিষয়ে জানতে চাইলে হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টাল, ঢাকার জনসংযোগ বিভাগের কর্মকর্তা ফারিকা ফারিয়া ঢাকা পোস্টকে বলেন, ‘বিষয়টি জানা নেই।’ এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য বা তথ্য দিয়ে সহযোগিতা করতে পারবেন না বলেও জানান তিনি।

এনবিআরের ভ্যাট বিভাগের ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করে বলেন, রাজধানীর অভিজাত শ্রেণির মাস্তি ও বিনোদনের কেন্দ্র হিসেবে পরিচিত বিলাসবহুল হোটেলগুলো। এর মধ্যে অন্যতম পাঁচ তারকামানের হোটেল রূপসী বাংলা (বর্তমানে হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টাল)। অভিজাত হোটেলটির পানশালা ও ড্যান্স ফ্লোরের ওপর ১০ শতাংশ সম্পূরক শুল্কসহ ভ্যাট প্রযোজ্য ছিল। ২০০৫ সালের জুলাই থেকে ২০০৯ সালের জানুয়ারি পর্যন্ত শুল্ক ও ভ্যাট পরিশোধ করেনি হোটেল কর্তৃপক্ষ। বৃহৎ করদাতা ইউনিটের ভ্যাট বিভাগ রাজস্ব ফাঁকির এ তথ্য উদঘাটন করে। তবে ফাঁকি দেওয়া ভ্যাট পরিশোধের আশ্বাস পাওয়া গেছে।

বিষয়টি জানা নেই। এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য বা তথ্য দিয়ে সহযোগিতা করতে পারব না ফারিকা ফারিয়া, জনসংযোগ কর্মকর্তা, ইন্টারকন্টিনেন্টাল, ঢাকা


অনুসন্ধানে দেখা গেছে, পানশালা ও ড্যান্স ফ্লোরে মদসহ বিভিন্ন সেবাবাবদ রূপসী বাংলা হোটেল (বর্তমানে ইন্টারকন্টিনেন্টাল) ১৮ কোটি ৮৩ লাখ ৯০ হাজার ৯৯৪ টাকা শুল্কসহ ভ্যাট ফাঁকি দিয়েছে। বিপুল অঙ্কের এ রাজস্ব আদায়ে এনবিআর দাবিনামা জারি করলেও তা দিতে অস্বীকৃতি জানায় হোটেল কর্তৃপক্ষ। এ অবস্থায় বকেয়া রাজস্ব আদায়ে তাদের বিরুদ্ধে আদালতে সরকারের পক্ষে মামলা করে এলটিইউ ভ্যাট বিভাগ। মামলার রায় সরকারের পক্ষে আসায় হোটেল কর্তৃপক্ষ উচ্চ আদালতে রিট করে। ২০১৭ সালের ১২ জুলাই আপিল বিভাগ একই রায় দেন। রায়ে শুল্কসহ ভ্যাট ফাঁকির অভিযোগ প্রমাণিত হয়। কিন্তু মামলার চূড়ান্ত রায়ের পরও হোটেলটি রাজস্ব পরিশোধ না করে আপিল করে। সেখানেও তারা হেরে যায়। পরে অপরিশোধিত রাজস্ব আদায়ে চিঠি দেওয়া হয়।


গত ১৮ মে রূপসী বাংলা হোটেল ও সাবেক বাংলাদেশ সার্ভিসেস লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) বরাবর দেওয়া চিঠিতে বলা হয়, রূপসী বাংলা হোটেলের (সাবেক বাংলাদেশ সার্ভিসেস লিমিটেড) সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগে দায়েরকৃত রিট পিটিশন ও সিভিল রিভিউ পিটিশন (রিট পিটিশন নং- ৩৮৮৮/২০০৯, সিপি নং- ১৪২৫/২০১৭, সিভিল রিভিউ পিটিশন নং- ৫৪৪/২০১৭) মামলার রায় সরকারের পক্ষে জারি হয়েছে। অর্থাৎ আপনাদের প্রতিষ্ঠান থেকে সুপ্রিম কোর্টের আপিল ডিভিশনে দায়েরকৃত সিভিল রিভিউ পিটিশন মামলাটি ডিসমিসড হয়েছে। সুতরাং আদালতের প্রদত্ত আদেশ অনুযায়ী ২০০৫ সালের জুলাই থেকে ২০০৯ সালের জানুয়ারি পর্যন্ত সময়কালের অপরিশোধিত সম্পূরক শুল্কসহ মূসক বাবদ ১৮ কোটি ৮৩ লাখ ৯০ হাজার ৯৯৪ টাকা বর্তমানে নিরঙ্কুশ বকেয়া হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। অতএব উক্ত সরকারি বকেয়া আগামী ১৫ কার্যদিবসের মধ্যে ট্রেজারি চালানের মাধ্যমে সরকারি কোষাগারে জমা দানপূর্বক ট্রেজারি চালানের মূল কপি এনবিআরের বৃহৎ করদাতা ইউনিটের মূল্য সংযোজন কর বিভাগে দাখিলের জন্য অনুরোধ করা হলো।

অভিজাত হোটেলটির পানশালা ও ড্যান্স ফ্লোরেরওপর ১০ শতাংশ সম্পূরক শুল্কসহ ভ্যাট প্রযোজ্য ছিল। ২০০৫ সালের জুলাই থেকে ২০০৯ সালের জানুয়ারি পর্যন্ত শুল্ক ও ভ্যাট পরিশোধ করেনি হোটেল কর্তৃপক্ষ। বৃহৎ করদাতা ইউনিটের ভ্যাট বিভাগ রাজস্ব ফাঁকির এ তথ্য উদঘাটন করে। তবে ফাঁকি দেওয়া ভ্যাট পরিশোধের আশ্বাস পাওয়া গেছে এনবিআরের ভ্যাট বিভাগের ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা (নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক)

প্রথম দফায় দেওয়া নোটিশে অর্থ আদায় না হলে দ্বিতীয় দফায় নোটিশ দেওয়া হবে বলে জানিয়েছে এনবিআর
ইন্টারকন্টিনেন্টাল, ঢাকা একটি বিলাসবহুল হোটেল। ঢাকার রমনায় এর অবস্থান। এটি ঢাকার প্রথম পাঁচ তারকামানের হোটেল। হোটেলটি চালু হয় ১৯৬৬ সালে ইন্টারকন্টিনেন্টাল, ঢাকা নামে। এর স্থপতি ছিলেন উইলিয়াম বি. ট্যাবলার। ১৯৭১-এ মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন আন্তর্জাতিক রেড ক্রস এটিকে নিরপেক্ষ স্থান হিসেবে ঘোষণা করে। ১৯৮৩-এর আগ পর্যন্ত ইন্টারকন্টিনেন্টাল হোটেল গ্রুপ এটি পরিচালনা করতো, এরপর এটি শেরাটন নিয়ে নেয়। তখন এর নাম হয় শেরাটন, ঢাকা। ২০১১ সালে শেরাটন বাংলাদেশে তাদের কার্যক্রম শেষ করবে বলে ঘোষণা দেয় এবং বাংলাদেশ সরকারকে এটি পরিচালনার দায়িত্ব দেয়। এরপর এটির নাম হয় রূপসী বাংলা হোটেল। ২০১৩ সালে ইন্টারকন্টিনেন্টাল হোটেল গ্রুপ (ICHG) আবারও ফিরে আসবে বলে ঘোষণা দেয়। এরপর হোটেলটির সংস্কার কাজ শুরু হয়। ২০১৬ সালে ইন্টারকন্টিনেন্টাল, ঢাকা নামে এর কার্যক্রম চালু করার কথা থাকলেও সংস্কারকাজ শেষ না হওয়ায় এটি তখন উদ্বোধন করা সম্ভব হয়নি। পরে ২০১৮ সালের ১৩ সেপ্টেম্বর আনুষ্ঠানিকভাবে এর উদ্বোধন করা হয়।

মামলার রায় সরকারের পক্ষে আসায় হোটেল কর্তৃপক্ষ উচ্চ আদালতে রিট করে। ২০১৭ সালের ১২ জুলাই আপিল বিভাগ একই রায় দেন। রায়ে শুল্কসহ ভ্যাট ফাঁকির অভিযোগ প্রমাণিত হয়। কিন্তু মামলার চূড়ান্ত রায়ের পরও হোটেলটি রাজস্ব পরিশোধ না করে আপিল করে। সেখানেও তারা হেরে যায় একই ধরনের ভ্যাট বকেয়া রয়েছে রাজধানীর অভিজাত হোটেল প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁওয়ের। বিলাসবহুল হোটেলটির কাছে ভ্যাট বিভাগের পাওনা ২০ কোটি ৭৪ লাখ ৯২ হাজার টাকা। প্রায় ছয় বছরে পানশালা (মদের বার) ও ড্যান্স ফ্লোরের বিভিন্ন সেবায় প্রযোজ্য ওই শুল্ক ও ভ্যাট পরিশোধে পাঁচ তারকা এ হোটেল কর্তৃপক্ষকে দুই দফায় চিঠি দিয়েছে এনবিআরের বৃহৎ করদাতা ইউনিটের মূল্য সংযোজন কর বা ভ্যাট বিভাগ। তবে ফাঁকি দেওয়া ভ্যাট এখনও আদায় হয়নি বলে জানা গেছে।

৭দিন ঘরে পুঁতে রাখা যুবকের মৃতদেহ উদ্ধার
                                  

নওগাঁ প্রতিনিধি ঃ নওগাঁর রাণীনগরে নিখোঁজের ৭ দিন পর ঘরের মেঝেতে পুঁতে রাখা এক যুবকের মৃতদেহ উদ্ধার করে থানা পুলিশ। বৃহস্পতিবার (৯ জুন) বিকেলে হযরত আলী নামে ওই যুবকের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে তিনজনকে আটক করেছে পুলিশ। আটকরা হলেন নাহিদ, রবিউল ও শাহিন।

নিহত ওই যুবক হযরত আলী উপজেলা সদরের পূর্ব বালুভরা গ্রামের জমসেদ আলীর ছেলে।

পুলিশ জানায়, পারিবারিক দ্বন্দ্বের জেরে হযরত আলী বেশ কিছু দিন থেকেই পার্শ্ববর্তী বন্ধু নাহিদের বাড়িতে থাকেন। গত ৩ জুন থেকে হঠাৎ নিখোঁজ হন তিনি। এমতাবস্থায় বৃহস্পতিবার দুপুরে হযরতের বাবা জমসেদ আলী রাণীনগর থানায় সাধারণ ডায়রি করেন। জমসেদ আলী ডায়রি ও তথ্যের ভিত্তিতে পুলিশ সন্দেহজনকভাবে নাহিদকে আটক করে। পরে তার দেয়া তথ্য মতে নাহিদের বাড়ির একটি ঘরের মেঝের মাটির নিচে পুঁতে রাখা অবস্থায় হযরতের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

রাণীনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শাহিন আকন্দ জানান, নাহিদের দেয়া তথ্য মতে হযরতকে হত্যা করে তার (নাহিদ) বাড়ির একটি ঘরের মেঝের মাটির নিচে পুঁতে রাখা হয়েছে। এমন তথ্যের ভিত্তিতে নাহিদের ঘরের মেঝেতে পুতে রাখা অবস্থায় মরদেহ উদ্ধার করা হয়। মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নওগাঁ সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

ওসি আরও জানান, নাহিদের দেয়া তথ্যমতে একই গ্রামের রবিউল ও শাহিন নামে আরও দুই যুবককে আটক করা হয়েছে। কী কারণে এই হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে তার সঠিক কারণ বের করতে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। এ ঘটনায় থানায় মামলা দায়েরের প্রক্রিয়া চলছে।

শিশু ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে বৃদ্ধ জেলহাজতে
                                  

মেহেরপুর প্রতিনিধি:

মাত্র ৯ বছর বয়সী এক শিশুকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে খলিলুর রহমান (৬৫) নামে এব বৃদ্ধকে মেহেরপুর জেলহাজতে পাঠিয়েছে পুলিশ। বৃহষ্পতিবার সকালে খলিলুর রহমানকে  মেহেরপুর আদালতে প্রেরণ করলে আদালত তাকে জেলহাজতে প্রেরণের নির্দেশ দেন।

ঘটনাটি গাংনী উপজেলার রাইপুর ইউনিয়নের হাড়িয়াদহ গ্রামের। খলিলুর রহমান ওই  গ্রামের দক্ষিণপাড়ার মৃত পাতান শেখের ছেলে।  তিনি পেশায় একজন আইসক্রীম ব্যবসায়ী।

গাংনী থানার ওসি আব্দুর রাজ্জাক জানান, বুধবার দুপুরের দিকে খলিরুর রহমান তার প্রতিবেশীর ওই শিশুকে আইসক্রিম দেয়ার প্রলোভনে ডেকে নেন। পরে নিজ বাড়িতে নির্জন কক্ষে ধর্ষণের চেষ্টা করেন। শিশুটির চিৎকারে বাড়ির আশে-পাশের মানুষ ছুটে এসে শিশুটিকে উদ্ধার করেন। স্থানীয়রা খলিলকে আটকে রাখে ৯৯৯ ফোন করে।

গাংনী থানা পুলিশ সংবাদ পেয়ে ওই ব্যক্তিকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে। রাতেই শিশুটির বাবা বাদী হয়ে গাংনী থানায় একটি ধর্ষণের চেষ্টা মামলা দায়ের করলে ওই মামলায় খলিলুর রহমানকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়।

শীর্ষ ঋণখেলাপী আরএসআরএমের এমডি আটক
                                  

স্বাধীন বাংলা প্রতিবেদক
দেশের অন্যতম শীর্ষ ঋণখেলাপী ও ওয়ারেন্টভুক্ত আসামি রতনপুর স্টিল রি-রোলিং মিলস লিমিটেডের (আরএসআরএম) ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মাকসুদুর রহমানকে আটক করেছে র‍্যাব। বুধবার (৮ জুন) রাতে রাজধানীর গুলশানে পরিচালিত এক অভিযান শেষে তাকে আটক করা হয়।

র‍্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের সিনিয়র সহকারী পরিচালক (এএসপি) আ ন ম ইমরান খান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।তিনি জানান,বুধবার (৮ জুন) রাতে এই অভিযান শুরু হয়। মাকসুদুর রহমানকে রাজধানীর গুলশান আটক করা হয়েছে।

এ বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে জানানো হবে।

জানা গেছে, খেলাপি ঋণ আদায়ের জন্য ২০১৮ সালের ২৯ মার্চ মাকসুদুর রহমানের বিরুদ্ধে মামলা করে জনতা ব্যাংক আগ্রাবাদ শাখা। ওই শাখায় ৩১২ কোটি ৮২ লাখ ৩৩ হাজার টাকা ঋণ খেলাপি আরএসআরএম। তবে ঋণের বিপরীতে প্রয়োজনীয় জামানত অত্যন্ত নগণ্য।

মামলা দায়েরের পর বিপুল পরিমাণ খেলাপি ঋণ সম্পূর্ণ অনাদায়ী থাকা সত্ত্বেও মামলা দ্রুত নিষ্পত্তির জন্য ব্যাংক যত্নশীল ছিল না। সাড়ে তিন বছর পর বিষয়টি আদালতের নজরে এলে পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রচারের মাধ্যমে সমন জারি করা হয়।

মাকসুদুর রহমানের মালিকানাধীন বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে চট্টগ্রাম অর্থ ঋণ আদালতে বেশ কয়েকটি মামলা বিচারাধীন রয়েছে। এসব প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে প্রায় এক হাজার ৫০০ কোটি টাকার ঋণ খেলাপি রয়েছে। এর আগে এই আদালতে বিচারাধীন অনেক মামলার আসামি অর্থ পাচার করে দেশত্যাগ করেছেন।

খুলনায় আলোচিত কলেজছাত্রী ধর্ষণ মামলায় পুলিশ কর্মকর্তা মাসুদ কারাগারে
                                  

খুলনা প্রতিনিধি:

খুলনায় আলোচিত কলেজ ছাত্রী ধর্ষণ মামলার আসামি পিবিআই পরিদর্শক মঞ্জুর হাসান মাসুদকে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত। খুলনার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল ১ এর বিচারক মোসাঃ দিলরুবা সুলতানা বুধবার তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। এর আগে মাসুদ আদালতে জামিন প্রার্থনা করলে তা নামঞ্জুর করা হয়। ওই আদালতের রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী অলোকা নন্দ দাস এ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

আদালত সূত্র জানায়, আসামি মাসুদ ২৬ মে উচ্চ আদালত থেকে এ মামলায় ১৪ দিনের অন্তবর্তী জামিন লাভ করেন। বুধবার উচ্চ আদালতের জামিন মেয়াদের শেষ দিন ছিল। নিম্ন আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিনের আবেদন করলে তা নামঞ্জুর করে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়।

এর আগে গত ১৫ মে এক কলেজছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ ওঠে পিবিআই ইন্সপেক্টর মঞ্জুরুল আহসান মাসুদের বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটে খুলনা মহানগরীর ছোট মির্জাপুরস্থ একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে। ঐদিন দুপুরে কলেজ পড়ুয়া ভিকটিমকে নিয়ে সেখানে অভিযান পরিচালনা করে পুলিশ।

খুলনা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) হাসান আল মামুন সাংবাদিকদের ওই সময় জানান, কলেজছাত্রী ওই মেয়েটি পিবিআই ইন্সপেক্টর মাসুদের কাছে মোবাইল বা ফেসবুকে ছবি সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে ৫ দিন আগে আসে। এ সুযোগে তাকে সহযোগিতা করার কথা বলে ১৫ মে দুপুর সাড়ে বারোটার দিকে ছোট মির্জাপুরের কাগজী হাউজের ওই অফিসে নিয়ে যায় মাসুদ। সেখানেই তাকে ধর্ষণ করে। ঘটনার সত্যতা যাচাইয়ের জন্য উক্ত অফিসের তালা ভেঙ্গে সেখানে অভিযান পরিচালনা করা হয়। অভিযানে নেতৃত্ব দেন কেএমপ ‘র উপ-পুলিশ কমিশনার সোনালী সেন।

খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওসিসিতে ওই কলেজছাত্রীর মেডিকেল পরীক্ষা সম্পন্নের পর এঘটনায় থানায় মামলা হয়। মামলা নং ১৫ (তাং ১৫-০৫-২২)।

কুষ্টিয়া পাসপোর্ট অফিসে এমআরপি পাসপোর্ট প্রদানে ব্যাপক জালিয়াতি
                                  

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি:

কুষ্টিয়া পাসপোর্ট অফিসের সহকারী পরিচালক মোহাম্মদ জাহিদুল হক গত বছরের ১২ই মে কুষ্টিয়াতে যোগদান করেন। যোগদানের পর থেকে এ পর্যন্ত ৩৩০৬টি এমআরপি পাসপোর্ট অবৈধ এবং নিয়ম বর্হিভূত ভাবে প্রদান করেছেন বলে জানা যায়।

কুষ্টিয়া পাসপোর্ট অফিসের সহকারী পরিচালক মোহাম্মদ জাহিদুল হক রাঙামটিতে চাকুরীতে থাকাকালীন তার বিরুদ্ধে মোটা টাকার বিনিময়ে রোহিঙ্গা পাসপোর্ট ইস্যু এবং সেবা নিতে আসা যুবককে মারধর সহ একাধিক অভিযোগ রয়েছে।

পাসপোর্ট সংক্রান্ত তথ্য উপাত্ত থেকে জানা যায়, ২২ জানুয়ারি থেকে রাজধানীর আগারগাঁও, যাত্রাবাড়ী এবং উত্তরা পাসপোর্ট অফিস থেকে ই-পাসপোর্ট বিতরণ হয়। যা একযোগে দেশের অভ্যন্তরে ৬৪টি জেলার ৬৯টি পাসপোর্ট অফিস, ৩৩টি ইমিগ্রেশন চেকপোস্ট, বিদেশস্থ ৭৫টি বাংলাদেশ মিশনে চালু করা হয়। কিন্তু কিছু শর্ত সাপেক্ষে পূর্বের এমআরপি পাসপোর্ট সেবাও চলমান রাখা হয়।

এমআরপি পাসপোর্টের পরিবর্তে ই-পাসপোর্ট চালুর পর থেকে শুধুমাত্র বিদেশে অবস্থানরত শ্রমিক যারা এনআইডি এবং ডিজিটাল জন্ম সনদ করতে পারেনি শুধুমাত্র তাদের জন্য বিশেষ বিবেচনায় এমআরপি পাসপোর্ট ইস্যু করার কথা বলা হয়।

এক্ষেত্রে শর্ত হিসেবে বলা আছে, আবেদনকারীর পূর্বের পাসপোর্টে অবস্থানকারী দেশের মেয়াদসম্পন্ন বৈধ ভিসা থাকতে হবে, থাকতে হবে কনফার্ম এয়ার টিকেট, বৈধ ওয়ার্কপারমিট অথবা ঐ দেশে অবস্থিত বাংলাদেশ হাই কমিশন থেকে ট্রাভেল পাস, হালনাগাদ ডিজিটাল জন্মনিবন্ধন সনদ, এনআইডি করতে দেওয়ার বৈধ প্রমান পত্র এবং এই সমস্ত ডকুমেন্টস এর সাথে পাসপোর্ট ইস্যু করতে অবশ্যই বিভাগিয় পাসপোর্ট কর্মকর্তার অনুমোদন লাগবে। যাদের ভোটার আইডি কার্ডে সমস্যা আছে তাদের ক্ষেত্রে অবশ্য আবেদনকৃত অফিসের জেলায় ঠিকানা ব্যবহার করতে হবে।

কুষ্টিয়া পাসপোর্ট অফিসের সূত্র থেকে জানা যায় জাহিদুল হক যোগদানের পর থেকে একবছরে সমগ্র বাংলাদেশের প্রায় সব জেলার ৩৩০৬টি এমআরপি পাসপোর্ট কোন প্রকার এসবি ভেরিফিকেশন এবং বিভাগীয় কর্মকর্তার অনুমোদন ছাড়াই কুষ্টিয়া আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস থেকে ইস্যু করা হয়েছে। সূত্রের দেওয়া তথ্য মতে, এর মধ্যে রোহিঙ্গা এবং ভারতীয় নাগরিকও থাকতে পারে।

এই ৩৩০৬টি পাসপোর্টের মধ্যে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক অল্প বয়স্ক নারীও রয়েছে। সংশ্লিষ্টরা ধারণা করছেন কোন নারী পাচারকারী চক্রও জড়িত থাকতে পারে এই সমস্ত কর্মকান্ডের সাথে।

সরেজমিনে কুষ্টিয়ায় আবেদনকৃত এমআরপি পাসপোর্টের কিছু আবেদন যাচাই বাছাই করে দেখা যায়, তারা কুষ্টিয়া জেলার যে ঠিকানা ব্যবহার করেছে, তারা অদৌও সেখানে কোন সময় বসবাস করনেনি। যা সম্পূর্ণ ভূয়া। জাহিদুল হকের নিয়োগের পর থেকে প্রাায় ৩৩০৬টি এমআরপি পাসপোর্ট নিয়ে ইতিমধ্যে ধ্রুমজাল সৃষ্টি হয়েছে। যা তদন্ত করলে প্রকৃত সত্য বেরিয়ে আসবে বলে মনে করেন সাধারণ মানুষ। উল্লেখ্য পাসপোর্ট অফিসের সহকারী পরিচালক মোহাম্মদ জাহিদুল হকের বিরুদ্ধে ইতিপূর্বে রোহিঙ্গাদের পাসপোর্ট ইস্যু করারও অভিযোগ আছে।

বর্তমানে কুষ্টিয়া পাসপোর্ট অফিসের সহকারী পরিচালক মোহাম্মদ জাহিদুল হকের চাকুরী জীবণের অতীত রেকর্ড থেকে জানা যায়, কুষ্টিয়াতে আসার পূর্বে তিনি রাঙামাটি পাসপোর্ট অফিসে কর্মরত ছিলেন। যেখানে তার বিরুদ্ধে পাসপোর্ট নবায়নে একাধিকবার ঘুষ না দেওয়ার কারণে বিদেশগামী যুবককে মারধরের অভিযোগ উঠেছিলো। যার একটি ভিডিও এই প্রতিবেদকের নিকট সংগৃহিত আছে।

এসব বিষয়ে জাহিদুল হক চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিয়ে বলেন তাকে কেউ কিছু করতে পারবে না, কারন তার মামা আছে পাসপোর্ট অফিসে বড় কর্মকর্তার পদে।

এছাড়াও সময় টিভির একটি প্রতিবেদনেও উঠে এসেছে মোহাম্মদ জাহিদুল হকের দুর্নীতির বিষয় যা সেই সময় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী ক্ষতিয়ে দেখার নির্দেশ দেন। সময় টিভির ঐ প্রতিবেদনে দেখা যায়, খাগড়াছড়িতে কর্মরত অবস্থায় তার বিরুদ্ধে লাখ টাকার বিনিময়ে তিনি রোহিঙ্গাদের পাসপোর্ট ইস্যুর অভিযোগ উঠেছেছিলো এবং যার বিভাগীয় তদন্ত চলমান। সেই প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, টাকার বিনিময়ে পাসপোর্ট দ্রুত ডেলিভারী দেওয়াসহ বিভিন্ন অনিয়মের সত্যতা পায় কেন্দ্রীয় পাসপোর্ট অফিস। যার প্রেক্ষিতে ২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারী মাসে তাকে চাকুরী থেকে কেন বরখাস্ত করা হবে না মর্মে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয় মন্ত্রণালয়।

কুষ্টিয়া পাসপোর্ট অফিস থেকে ৫০০১০০০০০৩৮০৭১৩ এনরোলমেন্ট আইডির এমআরপি পাসপোর্ট গ্রহীতা ঢাকা নবাবগঞ্জের আরমিন আক্তার পাসপোর্ট করার সময় পাসপোর্ট ফরমে যে ফোন নাম্বার ব্যবহার করে কুষ্টিয়া পাসপোর্ট অফিস থেকে পাসপোর্ট করেছেন সেই ফোন নাম্বারে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন আমি পাসপোর্ট কুষ্টিয়া থেকে করিনি। ফিঙ্গার প্রিন্টের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি ঢাকাতে ফিঙ্গার প্রিন্ট দিয়েছি।

কুষ্টিয়া পাসপোর্ট অফিস থেকে ৫০০১০০০০০৩৮০৭১৩ এনরোলমেন্ট আইডির এমআরপি পাসপোর্ট গ্রহিতা মোঃ জাহাঙ্গীর হোসেন পাসপোর্ট করার সময় পাসপোর্ট ফরমে যে দুইটা ফোন নাম্বার ব্যবহার করে কুষ্টিয়া পাসপোর্ট অফিস থেকে পাসপোর্ট করেছেন, সেই ফোন নাম্বারে যোগাযোগ করা হলে ব্রাক্ষণবাড়িয়ার বাঞ্চারামপুরের এক মহিলা ফোন ধরেন এবং অপর ফোন নাম্বারে যোগাযোগ করা হলে সাতক্ষীরার একজন ফোন ধরেন। তারা কেউই মোঃ জাহাঙ্গীর হোসেনকে চিনেন না বলে জানান। অথচ মোঃ জাহাঙ্গীর হোসেন কুষ্টিয়া থেকে পাসপোর্ট করার সময় চাঁদপুরের ঠিকানা ব্যবহার করেছেন।

কুষ্টিয়া পাসপোর্ট অফিস থেকে ৫০০১০০০০০৩৮০৭১৪ এনরোলমেন্ট আইডির এমআরপি পাসপোর্ট গ্রহিতা মোছাঃ শিলা খাতুন নাটোরের যে ঠিকানা এবং ফোন নাম্বার ব্যবহার করে কুষ্টিয়া পাসপোর্ট অফিস থেকে পাসপোর্ট করেছেন, সেই ঠিকানায় যোগাযোগ করে তাকে পাওয়া যাওয়ানি। ফোন নম্বারে যোগাযোগ করা হলে মোছাঃ শিলা খাতুন এর স্বামী মোঃ আজিজুল হাকিম বলেন, গত তিন বছরের অধিক সময় তার সাথে আমার কোন যোগাযোগ নাই । সে যদি আমার ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার ব্যবহার করে পাসপোর্ট করে থাকে তাহলে প্রতারণা করেছে।

এদিকে ৩৩০৬টি এমআরপি পাসপোর্ট কোন জেলার মানুষকে প্রদান করা হয়েছে মর্মে জানতে চাইলে পাসপোর্ট অফিসের সহকারী পরিচালক মোহাম্মদ জাহিদুল হক সেই তথ্য দিতে অপরগতা প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, সাধারণ মানুষের তথ্য দিতে আমি বাধ্য নই। এছাড়াও তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় তদন্তের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, তদন্ত ইতিমধ্যে শেষ হয়ে গেছে।

রাঙামটিতে থাকাকালীন মারধরের বিষয়ে মুঠোফোনে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আপনি কিছু বলতে চাইলে আমার সামনে এসে বলেন। এরপর তিনি ফোনটি কেটে দেন।

ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মোহাম্মদ আইয়ুব চৌধুরীর (এসজিপি, পিবিজিএমএস, এনডিসি, পিএসসি) মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি ডকুমেন্টস এবং সিরিয়াল নাম্বার তার অফিসে দেওয়ার জন্য বলেন।

কাঁঠালিয়ায় শিক্ষকের বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা
                                  

কাঠালিয়া প্রতিনিধি:

ঝালকাঠির কাঁঠালিয়ায় চাকুরির প্রলোভন দেখিয়ে এক বিধবা নারীকে ধর্ষণ করেছেন উপজেলা চেচঁরী রামপুর হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষক মেহেদী হাসান বলে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।  ভুক্তভোগী নারী বাদী হয়ে ঝালকাঠি নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনাল-১ এর আদালতে শিক্ষক মেহেদী হাসানের বিরুদ্ধে গত সোমবার মামলা দায়ের করেন।
 
বিচারক মামলাটি আমলে নিয়ে কাঁঠালিয়া উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের উপর তদন্তভার অর্পণ করেন৷ আসামী মেহেদী হাসান উপজেলা মরিচবুনিয়া গ্রামের মৃত কাঞ্চন আলী হাওলাদারের ছেলে।
 
মামলার বাদী ভুক্তভোগী নারীর অভিযোগ, চেচরী রামপুর এম এল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের নৈশ প্রহরী চাকুরী অবস্থায় তার স্বামী আলতাফ হোসেন খান ২০১৯ সালের ৬জুন মারা যায়।  স্বামীর বেতন ভাতার পাওনা টাকার জন্য বিভিন্ন সময় প্রধান শিক্ষকের কাছে যান ওই নারী।  স্বামীর পদে চাকরী দেওয়ার কথা বলে, অস্থায়ী হিসেবে নারীকে দিয়ে স্কুলের কাজ করায় প্রধান শিক্ষক। স্বামীর পাওনা টাকা এবং চাকুরী স্থায়ী করার প্রলোভন দেখিয়ে কুপ্রস্তাব দিয়ে আসছিলেন প্রধান শিক্ষক।  

এতে রাজি না হলে গত ২৭ মে ১১টার দিকে প্রধান শিক্ষক মেহেদী হাসান ওই নারীর বাড়িতে গিয়ে ঘরে একা পেয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ করেন। বিষয়টি জানাজানি করলে স্বামীর পাওনা টাকা ফেরত পাবে না এবং তার চাকুরী ও স্থায়ী হবেনা বলে হুমকি দেন প্রধান শিক্ষক।  

এ ব্যাপারে প্রধান শিক্ষক মেহেদী হাসানের মুঠোফোনে কল দিলে তার মুঠোফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়।

অবৈধভাবে ধান মজুদ করায় এক লক্ষ টাকা জরিমানা
                                  

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি:

অবৈধভাবে ধান মজুদ করার অপরাধে ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার রহিমানপুর ইউনিয়নের ছিট চিলারং গ্রামে এক ব্যবসায়ীকে এক লক্ষ টাকা জরিমানা করেছে প্রশাসন।

গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে  ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন সহকারি কমিশনার ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট মো. হাসিব-উল-আহসান। এ সময় অবৈধভাবে ধান মজুদ করার অপরাধে রাজীব আলী নামে এক ব্যবসায়ীকে ১ লক্ষ টাকা জরিমানা করা হয়।

সহকারি কমিশনার ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট মো. হাসিব-উল-আহসান বলেন, অভিযুক্ত ব্যবসায়ী দীর্ঘদিন ধরে নিজ গুদামে অনেক ধান মজুদ করে রাখে। এভাবে ধান মজুদ করে রাখা আইনত অপরাধ। তাই ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে ওই ব্যবসায়ীকে এক লক্ষ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

ধর্ষণের পর কিশোরীকে আগুনে পুড়িয়ে হত্যার চেষ্টা, গ্রেপ্তার ১
                                  

মোঃ ইদ্রিছ মিয়া নোয়াখালী:

নোয়াখালী সদর উপজেলায় মানসিক প্রতিবন্ধী এক কিশোরীকে (১৭) ধর্ষণের পরে শরীরে আগুন দিয়ে হত্যার চেষ্টার অভিযোগে যুবককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গ্রেফতারকৃত ইব্রাহিম খলিল(১৯) নোয়াখালী পৌরসভার ১নং ওয়ার্ডের ঘড়ি মেকারের আব্দুর রহিমের ছেলে এবং পেশায় একজন অটোরিকশা চালক।
 
গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে গ্রেপ্তারকৃত আসামিকে বিচারিক আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়।  এর আগে গত সোমবার নোয়াখালী পৌরসভা এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।  

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, ঘটনাটি ঘটে গত মে মাসের ১২ তারিখে। দীর্ঘদিন মানসিক প্রতিবন্ধী ওই মেয়ের সাথে অভিযুক্ত যুবকের প্রেমের সম্পর্ক ছিলো। গত মাসে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে প্রাইম হাসপাতালের পিছনে হাউজিং বাউন্ডারি ওয়ালের ভিতরে প্রতিবন্ধী কিশোরীকে ধর্ষণ করে যুবক। পরে হত্যার উদ্দেশ্যে ঘটনা ধামাচাপা দেওয়ার জন্য ভিকটিমকে কেরোসিন ঢেলে শরীরে আগুন লাগিয়ে দেয় ওই যুবক। আগুনে শরীরের কিছু অংশ পুড়ে যায়। পরে বিষয়টি স্থানীয়ভাবে মীমাংসার জন্য মামলা করতে দেরি হয় বলে জানান ভিকটিমের মা।

সুধারাম মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো.আনোয়ারুল ইসলাম জানান, এ ঘটনায় গত সোমবার ওই কিশোরীর মা বাদী হয়ে নারীও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেন।  ওই মামলায় অভিযুক্ত যুবককে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। ভিকটিমকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বেপরোয়া ভূয়া সিআইডি
                                  

মোঃ রেজাউল, ব্রাহ্মণবাড়িয়া:

তিনি কখনো সিআইডি কখনো সাংবাদিক আবার কখনো বড় ব্যবসায়ী। এ পরিচয় দিয়ে তিনি আয় রোজগার করেন আর নিঃস্ব করেন সাধারণ মানুষকে। তার বিরুদ্ধে নারী নির্যাতন ও প্রতারণা করে টাকা হাতিয়ে নেওয়ার মামলা রয়েছে। অভিযুক্তের নাম ইফরেখারুল  ইসলাম নাইম (৩০)। তিনি নরসিংদী জেলা সদরের বাগদী মার্কাজ মসজিদ এলাকার সফিকুল ইসলামের ছেলে। তবে তার মা ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরে দীর্ঘদিন যাবৎ নার্সের চাকরি করার সুবাধে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় নাইম অতীতে বসবাস করেছেন। ফলে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় তার বন্ধু-বান্ধব রয়েছে। আর এদের সহযোগীতায় নাইম এই প্রতারণা করে চলেছেন দিনের পর দিন।

অনুসন্ধান করে নাইমের বিরুদ্ধে হওয়া একটি মামলা থেকে জানা গেছে, ২০২১ সালের ২২ অক্টোবর ব্রাহ্মণবাড়িয়া  সদরের জগৎসার (ভাদুঘর) গ্রামের মৃত আবুল কাশেমের মেয়ে সুমিকে (কমলা) সিআইডি পরিচয়ে বিয়ে করেন নাইম। তখন পাঁচ লক্ষ টাকা দেনমোহর ধার্য করা হয়। এছাড়াও ৪ লক্ষ টাকার স্বর্ণালঙ্কার ও আসবাবপত্র দিয়ে দেওয়া হয়। তারপরও নাইম যৌতুকের জন্য তার স্ত্রী সুমিকে মারধর করতেন।  সবশেষ গত ১৪ জানুয়ারী নাইম তার শশুর বাড়িতে এসে তার স্ত্রী সুমিকে মারপিট করে মারাত্মক আহত করেন। এরই প্রেক্ষিতে স্বামী নাইমের বিরুদ্ধে নারী নির্যাতন মামলা করেন সুমি। বিয়ের দুই মাসের মাথায় এই ঘটনা ঘটে। মামলায় বাদি সুমি নাইমকে জুয়াড়ি ও নেশাখোর বলে উল্লেখ্য করেন।

এর আগে ২০২১ সালের ১৫ জুন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সিআইডির এসআই পরিচয় দিয়ে জনৈক এক ব্যক্তির (নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক) মোবাইল থেকে তার ব্যক্তিগত  ভিডিও জোর করে নিয়ে তা ফাঁস করার ভয় দেখিয়ে চার লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেন। এ ঘটনায় ওই ব্যক্তি ব্রাহ্মণবাড়িয়া চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা দায়ে করেন। ওই মামলায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরের কাজীপাড়া এলাকার নুরু মিয়ার ছেলে সুমন নূরকে  (ডিস সুমন) ২ নম্বর আসামী করেন। বলা হয়, সুমন নূরের সহযোগীতায় নাইম দিনের পর দিন বেপরোয়া হয়ে উঠেছেন। তবে এই ঘটনায় সুমন নূর প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে এই ঘটনায় জড়িত বলেও উল্লেখ্য করা হয়।

অনুসন্ধানে আরও দেখা গেছে, তার একটি মোবাইল নম্বরে ফোন করলে ট্রু কলার এ্যাপে “ইন্সপেক্টর” নাম ভেসে উঠতো। এছাড়াও তার বন্ধু সুমন নূর তাকে সিআইডির সাব-ইন্সপেক্টর হিসেবেই পরিচয় করিয়ে দিত মানুষের কাছে। কিন্তু এসব বিষয় নিয়ে ভূয়া সিআইডি নাইম ও সুমন নূরের মুখোমুখি হলে তারা সিআইডির কোন অফিসার নয় বলে জানান। তবে অনেক আগে তিনি ঢাকার সিআইডির কোন এক অফিসে ডাটা এন্ট্রি অপারেটর হিসেবে কাজ করতেন বলে জানিয়েছেন। তবে এর পক্ষে তিনি কোন প্রমান দিতে পারেনি। এসময় নাইম জানিয়েছে, এ ঘটনায় জনৈক ব্যক্তিকে ব্ল্যাকমেইল করে টাকা নেওয়ার জন্য সুমন নূর তাকে পরামর্শ দিয়েছিলো বলে জানিয়েছে নাইম। বর্তমানে ভূয়া সিআইডির মা রৌশনা বেগম ব্রাহ্মণবাড়িয়া মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নার্স হিসেবে নিয়োজিত আছেন বলে জানিয়েছে নাইম।

৫ হাজার ১২৪ টন চাল মজুত মামলায় স্কয়ারের অঞ্জন চৌধুরীর জামিন
                                  

স্বাধীন বাংলা প্রতিবেদক
দিনাজপুর সদরে স্কয়ার ফুড অ্যান্ড বেভারেজের গুদামে অভিযান চালিয়ে ৫ হাজার ১২৪ টন আতপ চাল জব্দের ঘটনায় দায়ের হওয়া মামলায় স্কয়ার গ্রুপের অঞ্জন চৌধুরীকে ৬ সপ্তাহের আগাম জামিন দিয়েছেন হাইকোর্ট। ৬ সপ্তাহ পর তাকে নিম্ন আদালতে আত্মসমর্পণ করতে হবে।

সোমবার (৬ জুন) বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেন ও বিচারপতি সাহেদ নুরউদ্দিনের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন। আদালতে জামিন আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী ব্যারিস্টার শফিক আহমেদ ও ব্যারিস্টার মাহবুব শফিক। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল সারওয়ার হোসেন বাপ্পী।

এর আগে গত ১ জুন দিনাজপুর সদরে স্কয়ার ফুড অ্যান্ড বেভারেজের গুদামে অভিযান চালিয়ে ৫ হাজার ১২৪ টন আতপ চাল জব্দ করে প্রশাসন। এ ঘটনায় করা মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে মিলের ইনচার্জকে।

দিনাজপুর সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ও ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মর্তুজা আল মঈদ বলেন, উপজেলার ১ নম্বর চেহেলগাজী ইউনিয়নের গোপালগঞ্জ বাজারে কোম্পানিটির ছয়টি গুদামে গত ৩১ মে বিকেল থেকে রাত আড়াইটা পর্যন্ত এই অভিযান চালানো হয়।

এ সময় মিলের ছয়টি গুদামে ৫ হাজার ১২৪ টন আতপ চাল পাওয়া যায়। তবে মিলের অনুমোদন রয়েছে মাত্র ৩১২ টন। সে হিসেবে মিলে বেশি মজুত ছিল চার হাজার টনের বেশি চাল।

‘এ সময় কাগজপত্র ও মিলে চাল মজুতের হিসাব চাওয়া হলে মিলের ইনচার্জ জায়েদ হোসেন সময়ক্ষেপণ করতে থাকেন। পরে ভ্রাম্যমাণ আদালত চলাকালে মিলের কর্মকর্তারা বৈদ্যুতিক সংযোগ বন্ধ করে পালানোর চেষ্টা করেন। এ সময় পুলিশ সদস্যরা তাদের ধরে নিয়ে আসেন। পরে রাত আড়াইটার দিকে মিলের ছয়টি গুদামে রাখা চাল উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রকের জিম্মায় দেওয়া হয়।’

তিনি আরও বলেন, ‘এ ব্যাপারে দিনাজপুর সদর উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক বিপ্লব কুমার সিংহ রায় বাদী হয়ে মিলের স্বত্বাধিকারী অঞ্জন চৌধুরী ও মিলের ইনচার্জ জায়েদের নামে একটি অভিযোগ দিয়েছেন। মিলের ইনচার্জকে পুলিশে দেওয়া হয়েছে। এত পরিমাণ চাল জব্দ হওয়ায় এটির বিচার ভ্রাম্যমাণ আদালতে করা সম্ভব নয়। অভিযোগটি কোতোয়ালি থানায় নিয়মিত মামলা হিসেবে রেকর্ড করার জন্য পাঠানো হয়েছে। এ ছাড়া মিলের ইনচার্জ জায়েদকে পুলিশের হেফাজতে নেওয়া হয়েছে। জব্দ চালের বাজার মূল্য প্রায় ৪১ কোটি টাকা।’

কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোজাফ্ফর হোসেন বলেন, ‘সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অভিযান চলাকালে ইনচার্জ জায়েদকে পুলিশের কাছে সোপর্দ করেছেন। স্কয়ার কোম্পানিতে অবৈধভাবে চাল মজুতের ব্যাপারে একটি অভিযোগ এসেছে। তা আমরা মামলা হিসেবে নিয়েছি।

নৌকার প্রার্থীর কাছ থেকে ২৬ লাখ টাকা নিলেন ওসি!
                                  

মাহমুদ হাসান, সাতক্ষীরা :

২৬ লক্ষ টাকা নিয়েও গত ইউপি নির্বাচনে নৌকার প্রার্থীকে হারানোর অভিযোগ পাওয়া গেছে সদ্য বিদায়ী সাতক্ষীরা সদরের অফিসার ইনচার্জ গোলাম কবিরের বিরুদ্ধে। তিনি আশাশুনি থানার ওসি থাকাকালিন সময়ে এ টাকা নিয়েছিলেন বলে অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগী সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান ও আওয়ামীলীগ নেতা এস. এম জাকির হোসেন। তবে, এ অভিযোগ অস্বীকার করেছেন সদ্য বিদায়ী ওসি গোলাম কবির।
 
আশাশুনি উপজেলার প্রতাপনগর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি এস. এম জাকির হোসেন অভিযোগ করে বলেন, গত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে তিনি প্রতাপনগর ইউনিয়ন পরিষদের নৌকা প্রতীক নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেন। তভিন্ন পন্থায় নির্বাচনে জয়লাভের উদ্দেশ্যে তৎকালিন আশাশুনি থানার ওসি গোলাম কবিরের সাথে যোগাযোগ করলে ওসি তার কাছে ৩০ লক্ষ টাকা দাবি করেন। সে অনুযায়ী বিভিন্ন সময়ে তিনি সর্বমোট ২৬ লক্ষ ২০ হাজার টাকা ওসি গোলাম কবিরের কাছে প্রদান করেন। কিন্তু ওসি টাকা নেয়ার পরও নির্বাচনে তাকে পরিকল্পিতভাবে হারিয়ে দেওয়া হয়েছে বলে তিনি অভিযোগ করেন। পরে ওসির কাছে টাকা ফেরত চাইলে বিভিন্ন সময়ে তালবাহানা করতে থাকেন বলে তিনি আরো জানান।

এ বিষয়ে ওসির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য তিনি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীসহ বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন বলে জানান।

তবে এ ব্যাপারে সদ্য বিদায়ী পুলিশ পরিদর্শক গোলাম কবির জানান, তিনি কোন টাকা নেননি।  


   Page 1 of 159
     আইন - অপরাধ
সানফ্লাওয়ার ইন্সুরেন্সের প্রতারণা, বীমার টাকার দাবিতে ঘেরাও
.............................................................................................
বান্ধবীর কাছে হিরো সাজতে শিক্ষককে মারধর করে জিতু
.............................................................................................
হবিগঞ্জের একজনের মৃত্যুদণ্ড, ৩ জনের আমৃত্যু কারাদণ্ড
.............................................................................................
মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত আসামী গুলশান থেকে গ্রেফতার
.............................................................................................
রূপসী বাংলার ভ্যাট ফাঁকি ১৮.৮৩ কোটি
.............................................................................................
৭দিন ঘরে পুঁতে রাখা যুবকের মৃতদেহ উদ্ধার
.............................................................................................
শিশু ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে বৃদ্ধ জেলহাজতে
.............................................................................................
শীর্ষ ঋণখেলাপী আরএসআরএমের এমডি আটক
.............................................................................................
খুলনায় আলোচিত কলেজছাত্রী ধর্ষণ মামলায় পুলিশ কর্মকর্তা মাসুদ কারাগারে
.............................................................................................
কুষ্টিয়া পাসপোর্ট অফিসে এমআরপি পাসপোর্ট প্রদানে ব্যাপক জালিয়াতি
.............................................................................................
কাঁঠালিয়ায় শিক্ষকের বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা
.............................................................................................
অবৈধভাবে ধান মজুদ করায় এক লক্ষ টাকা জরিমানা
.............................................................................................
ধর্ষণের পর কিশোরীকে আগুনে পুড়িয়ে হত্যার চেষ্টা, গ্রেপ্তার ১
.............................................................................................
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বেপরোয়া ভূয়া সিআইডি
.............................................................................................
৫ হাজার ১২৪ টন চাল মজুত মামলায় স্কয়ারের অঞ্জন চৌধুরীর জামিন
.............................................................................................
নৌকার প্রার্থীর কাছ থেকে ২৬ লাখ টাকা নিলেন ওসি!
.............................................................................................
অধ্যাপকের হাতের কব্জি কর্তন মামলার ৭ আসামী গ্রেফতার : অস্ত্র উদ্ধার
.............................................................................................
মায়ের অনৈতিক কর্মকাণ্ড দেখে ফেলায় মেয়েকে হত্যা, ঘাতক মা আটক
.............................................................................................
ডাকাতচক্রের ১১ সদস্য গ্রেফতার
.............................................................................................
রাজশাহী শিক্ষা বোর্ডে চাকুরী বিধি লংঘন: ২৫ লক্ষ টাকা ক্ষতির অভিযোগ
.............................................................................................
যাত্রাবাড়ীতে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণের অভিযোগ
.............................................................................................
রুম দখলে ছাত্রলীগ সভাপতির হামলা, একাধিক শিক্ষার্থী আহত
.............................................................................................
শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষায় প্রশ্নফাঁস চক্রের মূলহোতাসহ ১৩ জনের জেল জরিমানা
.............................................................................................
হোমনায় ৪ বছরের শিশু ধর্ষণ মামলায় যুবক গ্রেফতার
.............................................................................................
কিশোর গ্যাংয়ের কিল-ঘুষিতে দুই পুলিশ হাসপাতালে
.............................................................................................
বিমান অফিসে দুদকের হানা
.............................................................................................
বিএনপির ৪৩৩ জনের বিরুদ্ধে আ.লীগ নেতার মামলা
.............................................................................................
কলেজ অধ্যাপকের হাতের কব্জি কেটে বিচ্ছিন্ন করে দিল দুর্বৃত্তরা
.............................................................................................
শিশু সন্তানের দুধ কিনে ফেরার পথে যুবককে কুপিয়ে খুন
.............................................................................................
ঝিকরগাছার ওসি সুমন ভক্তকে এসএম আহসান স্মৃতি পুরস্কার প্রদান
.............................................................................................
আসামীর হামলায় দুই পুলিশ সদস্য আহত
.............................................................................................
স্ত্রীর বড় বোনকে ধর্ষণ করে ভিডিও ধারণ: ছোট বোনের জামাই গ্রেফতার
.............................................................................................
১০দিনেও উদ্ধার হয়নি স্কুল ছাত্রী রেশমা
.............................................................................................
আত্মসমর্পণের পর কারাগারে প্রদীপের স্ত্রী চুমকি
.............................................................................................
এখানেই রাত কাটিয়েছেন নর্থ সাউথের চার ট্রাস্টি
.............................................................................................
হাজী সেলিম কারাগারে, পাবেন ডিভিশন সুবিধা
.............................................................................................
কলেজ ছাত্রীকে উত্যক্ত করার অভিযোগে দু’জন আটক
.............................................................................................
জামিন মঞ্জুর না হলে কারাগারে ডিভিশন নেবেন হাজী সেলিম
.............................................................................................
ছেলের পিটুনিতে পিতা নিহত
.............................................................................................
সংঘবদ্ধ ধর্ষণের শিকার কলেজছাত্রী
.............................................................................................
বাগেরহাটে ভূয়া ডাক্তারকে লাখ টাকা জরিমানা
.............................................................................................
হত্যা মামলার ২৪ ঘন্টার মধ্যে চার্জশিট দিল সাটুরিয়া থানা পুলিশ
.............................................................................................
জামিন বাতিল সম্রাটের
.............................................................................................
কবজি জোড়া লাগানো হল পুলিশ কনস্টেবল জনি খানের
.............................................................................................
কলেজছাত্রীকে ধর্ষণ করলেন পুলিশ কর্মকর্তা
.............................................................................................
সাঁথিয়ায় মৃত গরুর মাংস বিক্রির দায়ে কসাই’র কারাদণ্ড
.............................................................................................
শিশু ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে ২ শিশু আটক
.............................................................................................
অনৈতিক সম্পর্ক: গ্রাম্য সালিশে জরিমানা আদায়
.............................................................................................
দুর্নীতির অভিযোগে ২ শিক্ষককে দুদকে তলব
.............................................................................................
সাতক্ষীরায় খাল দখলের স্থাপনা নির্মাণ বন্ধ করে দিল প্রশাসন
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

সম্পাদক ও প্রকাশক : মোহাম্মদ আখলাকুল আম্বিয়া
নির্বাহী সম্পাদক: মাে: মাহবুবুল আম্বিয়া
যুগ্ম সম্পাদক: প্রদ্যুৎ কুমার তালুকদার

সম্পাদকীয় ও বাণিজ্যিক কার্যালয়: স্বাধীনতা ভবন (৩য় তলা), ৮৮ মতিঝিল বাণিজ্যিক এলাকা, ঢাকা-১০০০। Editorial & Commercial Office: Swadhinota Bhaban (2nd Floor), 88 Motijheel, Dhaka-1000.
সম্পাদক কর্তৃক রঙতুলি প্রিন্টার্স ১৯৩/ডি, মমতাজ ম্যানশন, ফকিরাপুল কালভার্ট রোড, মতিঝিল, ঢাকা-১০০০ থেকে মুদ্রিত ও প্রকাশিত ।
ফোন : ০২-৯৫৫২২৯১ মোবাইল: ০১৬৭০৬৬১৩৭৭

Phone: 02-9552291 Mobile: +8801670 661377
ই-মেইল : dailyswadhinbangla@gmail.com , editor@dailyswadhinbangla.com, news@dailyswadhinbangla.com

 

    2015 @ All Right Reserved By dailyswadhinbangla.com

Developed By: Dynamic Solution IT