বুধবার, ১৭ এপ্রিল 2024 বাংলার জন্য ক্লিক করুন
  
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   আইন - অপরাধ -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
ড. ইউনূসের জামিনের মেয়াদ বাড়ালো শ্রম আদালত

স্বাধীন বাংলা প্রতিবেদন:
ড. মুহাম্মদ ইউনূস ও গ্রামীণ টেলিকমের ৩ শীর্ষ কর্মকর্তার জামিনের মেয়াদ ২৩ মে পর্যন্ত বৃদ্ধি করলো শ্রম আদালত। শ্রম আইন লঙ্ঘনের দায়ে তাদের বিরুদ্ধে এ মামলা চলমান।

মঙ্গলবার (১৬ এপ্রিল) সকাল সাড়ে ১১টার দিকে গ্রামীণ টেলিকমের চেয়ারম্যান ড. ইউনূসসহ প্রতিষ্ঠানটির তিন শীর্ষ কর্মকর্তার জামিনের মেয়াদ বৃদ্ধি করেন ঢাকার শ্রম আপিল ট্রাইব্যুনাল।

গ্রামীণ টেলিকমের ওই তিন শীর্ষ কর্মকর্তা হলেন প্রতিষ্ঠানটির পরিচালক আশরাফুল হাসান, নুরজাহান বেগম ও মোহাম্মদ শাহজাহান। আজ সকালে আদালতে উপস্থিত হয়ে তারা স্থায়ী জামিনের আবেদন করেন।

ড. মুহাম্মদ ইউনূসের আইনজীবী আবদুল্লাহ আল মামুন গণমাধ্যমকে জানান, তারা আদালতে উপস্থিত হয়ে এই মামলায় আপিল নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত অস্থায়ী জামিনের মেয়াদ বাড়ানোর আবেদন করেন। পরে আদালত জামিনের মেয়াদ ২৩ মে পর্যন্ত বৃদ্ধি করেন।

এর আগে গত ৩ মার্চ এই মামলায় তাদের জামিনের মেয়াদ বাড়ান আদালত। সেদিন পরবর্তী শুনানির জন্য ১৬ এপ্রিল দিন ধার্য করেন আদালত।

শ্রম আইন লঙ্ঘনের দায়ে গত ১ জানুয়ারি ঢাকার শ্রম আদালত-৩ ড. ইউনূসসহ চারজনকে ছয় মাসের কারাদণ্ড ও ৩০ হাজার টাকা করে জরিমানা করেন।

ড. ইউনূসের জামিনের মেয়াদ বাড়ালো শ্রম আদালত
                                  

স্বাধীন বাংলা প্রতিবেদন:
ড. মুহাম্মদ ইউনূস ও গ্রামীণ টেলিকমের ৩ শীর্ষ কর্মকর্তার জামিনের মেয়াদ ২৩ মে পর্যন্ত বৃদ্ধি করলো শ্রম আদালত। শ্রম আইন লঙ্ঘনের দায়ে তাদের বিরুদ্ধে এ মামলা চলমান।

মঙ্গলবার (১৬ এপ্রিল) সকাল সাড়ে ১১টার দিকে গ্রামীণ টেলিকমের চেয়ারম্যান ড. ইউনূসসহ প্রতিষ্ঠানটির তিন শীর্ষ কর্মকর্তার জামিনের মেয়াদ বৃদ্ধি করেন ঢাকার শ্রম আপিল ট্রাইব্যুনাল।

গ্রামীণ টেলিকমের ওই তিন শীর্ষ কর্মকর্তা হলেন প্রতিষ্ঠানটির পরিচালক আশরাফুল হাসান, নুরজাহান বেগম ও মোহাম্মদ শাহজাহান। আজ সকালে আদালতে উপস্থিত হয়ে তারা স্থায়ী জামিনের আবেদন করেন।

ড. মুহাম্মদ ইউনূসের আইনজীবী আবদুল্লাহ আল মামুন গণমাধ্যমকে জানান, তারা আদালতে উপস্থিত হয়ে এই মামলায় আপিল নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত অস্থায়ী জামিনের মেয়াদ বাড়ানোর আবেদন করেন। পরে আদালত জামিনের মেয়াদ ২৩ মে পর্যন্ত বৃদ্ধি করেন।

এর আগে গত ৩ মার্চ এই মামলায় তাদের জামিনের মেয়াদ বাড়ান আদালত। সেদিন পরবর্তী শুনানির জন্য ১৬ এপ্রিল দিন ধার্য করেন আদালত।

শ্রম আইন লঙ্ঘনের দায়ে গত ১ জানুয়ারি ঢাকার শ্রম আদালত-৩ ড. ইউনূসসহ চারজনকে ছয় মাসের কারাদণ্ড ও ৩০ হাজার টাকা করে জরিমানা করেন।

খালেদা জিয়া সাজা স্থগিত হচ্ছে আরও ৬ মাস, তবে...
                                  

স্বাধীন বাংলা প্রতিবেদন:

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সাজা স্থগিতের মেয়াদ আরও ৬ মাস বাড়ানের হয়েছে বলে জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। তবে চিকিৎসার জন্য তার বিদেশে যাওয়ার সুযোগ নেই বলেও জানান তিনি। আজ বুধবার (২০ মার্চ) দুপুরে সচিবালয়ে গণমাধ্যমকর্মীদের প্রশ্নের জবাবে এ তথ্য দেন আইনমন্ত্রী।

আইনমন্ত্রী বলেন, আগের শর্তে (বিদেশে যাওয়া যাবে না এবং দেশে চিকিৎসা নিতে হবে) তার মুক্তির মেয়াদ আরও ৬ মাস বাড়ানোর জন্য মতামত দেওয়া হয়েছে। এ নিয়ে দণ্ডপ্রাপ্ত খালেদা জিয়ার মুক্তির মেয়াদ নির্বাহী আদেশে আটবারের মতো বাড়ানো হচ্ছে।

তিনি বলেন, ২০২০ সালের ২৫ মার্চ খালেদা জিয়ার ভাইয়ের যে আবেদন ছিল ফৌজদারি কার্যবিধির ৪০১ ধারা মতে, তার (খালেদা জিয়া) সাজা স্থগিত রেখে দুটি শর্তে যে মুক্তি দেওয়া হয়েছিল। সেটা সাতবার বাড়ানো হয়েছে। আজ একই শর্তে সাজা স্থগিত রেখে মুক্তির আদেশ আরও ছয় মাসের জন্য বাড়ানো হচ্ছে। আমি এ মতামত দিয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে এখনই ফাইল পাঠিয়ে দিচ্ছি।

বেগম জিয়ার পরিবারের আবেদনে ছিল তার স্থায়ী মুক্তি ও বিদেশে নিয়ে চিকিৎসা- এ বিষয় দৃষ্টি আকর্ষণ করলে আনিসুল হক বলেন, আমি এ ব্যাপারে দু-দিন আগেও আপনাদের বলেছি। যেহেতু ফৌজদারি কার্যবিধির ৪০১ ধারায় যে আবেদন ছিল সেটি নিষ্পত্তি হয়েছে। এখন সে আবেদনের ওপরে আর কোনো পদক্ষেপ নেওয়ার সুযোগ নেই, শুধু মেয়াদ বাড়ানো ছাড়া। ঠিক সে কারণে আমি মেয়াদ বাড়ানোর কথা বলে সুপারিশ করে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে ফাইল পাঠাচ্ছি।

মানবিক কারণে খালেদা জিয়াকে বিদেশে পাঠানো যাবে কি না, জানতে চাইলে আইনমন্ত্রী বলেন, না, যাই করতে হবে আইনের মাধ্যমে করতে হবে। যে আইনে তাকে বের করা হয়েছে, সে আইনে এ (বিদেশে পাঠানো) সুযোগ নেই।

উল্লেখ্য, গত ৬ মার্চ খালেদা জিয়ার মুক্তির মেয়াদ বাড়াতে তার ছোট ভাই শামীম ইস্কান্দার ৬ মার্চ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে আবেদন করেন।

আবেদনে তাকে বিদেশে নিয়ে চিকিৎসার অনুমতি চাওয়া হয়েছে। পরে সে আবেদনের বিষয়ে মতামত নিতে সেটি আইন মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়।

আইন মন্ত্রণালয়ের মতামতের পর স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগ থেকে এ বিষয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করা হবে।

সর্বশেষ গত বছরের ২৪ সেপ্টেম্বর থেকে খালেদা জিয়ার দণ্ড স্থগিত করে মুক্তির মেয়াদ ছয় মাস বাড়ানো হয়েছিল। সেই মেয়াদ আগামী ২৪ মার্চ শেষ হবে।

রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালে স্বাস্থ্যের কিছু পরীক্ষা শেষে গত ১৪ মার্চ গুলশানের বাসায় ফেরেন খালেদা জিয়া। এর আগে ১৩ মার্চ রাতে স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল।

খালেদা জিয়া দীর্ঘদিন ধরে আর্থরাইটিস, ডায়াবেটিস, কিডনি, লিভার, ফুসফুস, চোখের সমস্যাসহ নানা শারীরিক জটিলতায় ভুগছেন। অসুস্থতা বাড়লে মাঝে মাঝে তাকে হাসপাতালে নিতে হচ্ছে।

প্রসঙ্গত, দুটি মামলায় দণ্ডপ্রাপ্ত খালেদা জিয়া কারাবন্দি ছিলেন। নির্বাহী আদেশে খালেদা জিয়ার দণ্ড স্থগিত রয়েছে।

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় ২০১৮ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি খালেদা জিয়াকে পাঁচ বছরের কারাদণ্ড দেন বকশীবাজার আলিয়া মাদরাসা মাঠে স্থাপিত ঢাকার ৫ নম্বর বিশেষ আদালত। রায় ঘোষণার পর খালেদাকে পুরান ঢাকার নাজিমউদ্দিন রোডে অবস্থিত পুরোনো কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দি রাখা হয়।

এরপর ৩০ অক্টোবর এই মামলায় আপিলে তার আরও পাঁচ বছরের সাজা বাড়িয়ে ১০ বছর করেন হাইকোর্ট।

একই বছরের ২৯ অক্টোবর জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলায় খালেদা জিয়াকে সাত বছরের সশ্রম কারাদণ্ডের আদেশ দেন একই আদালত। রায়ে সাত বছরের কারাদণ্ড ছাড়াও খালেদা জিয়াকে ১০ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। জরিমানা অনাদায়ে আরও ৬ মাসের কারাদণ্ডের আদেশ দেন।

এরপর ২০২০ সালের মার্চে করোনা মহামারি শুরু হলে পরিবারের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে নির্বাহী আদেশে দণ্ড স্থগিত করে কারাবন্দি খালেদা জিয়াকে সরকার শর্তসাপেক্ষে ছয় মাসের জন্য মুক্তি দেয়।

তিনি অভিজাত চোর, ১২ বছর ধরেই এ কাজ করছেন
                                  

স্বাধীন বাংলা প্রতিবেদন :

তিনি অভিজাত চোর। জন্ম ও বেড়ে ওঠা অভিজাত পরিবারে। বাবা ছিলেন সাবেক যুগ্ম সচিব। তবে, তার পেশা চুরি। নাম তার জুবাইদা সুলতানা। বর্তমানে তার বয়স ৪৪। বিভিন্ন সময় রাজধানীর অভিজাত পাড়ায় ভুয়া পরিচয়ে হোটেল, ক্লাবে সেমিনার ও বিভিন্ন অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করে দামি জিনিসপত্র চুরি করতেন। গত ১২ বছর ধরে তিনি এভাবে চুরি করে আসছিলেন। এ পর্যন্ত প্রায় সাতশ থেকে আটশ মোবাইল, ল্যাপটপ ও দামি ভ্যানিটি ব্যাগ চুরি করেছেন অভিজাত এলাকা থেকে।

গত ৩ মার্চ ঢাকা ক্লাবে গাইনোকোলজিক্যাল অনকোলজিবিষয়ক এক সিমিনারে অংশগ্রহণ করে জুবাইদা চুরি করেন ডা. ফারহানা হকের মোবাইল, ব্যাগ ও গয়না। ডা. ফারহানা হক গাইনোকোলজিক্যাল অনকোলজি বিভাগের চিকিৎসক। চুরির জিনিসপত্র বিক্রি করে দিলেও তার হোয়াটসঅ্যাপ নম্বরটি নিজের মোবাইলে হস্তান্তর করে নেন জুবাইদা। সেই থেকে ডা. ফারহানা সেজে ব্যবস্থাপত্র দিয়ে যাচ্ছিলেন বিভিন্ন রোগীদের এবং হাতিয়ে নিচ্ছিলেন মোটা অংকের টাকা।

এ বিষয়ে গত ১২ মার্চ রমনা মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের হয়। মামলা হওয়ার পর থেকে এ বিষয়ে ছায়াতদন্ত শুরু করে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। তদন্তের এক পর্যায়ে শুক্রবার জুবাইদা সুলতানাকে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতারের সময় তার কাছ থেকে নারীদের ১৬টি হ্যান্ডব্যাগ, ৪টি মোবাইল, ৫টি বিভিন্ন ব্যাংকের ক্রেডিট কার্ড, অলংকার, বিভিন্ন সুপার শপের কার্ড, ৪টি পেনড্রাইভ জব্দ করা হয়।

ডিবি জানায়, জুবাইদা সুলতানা গত ১২ বছর ধরে রাজধানীর বিভিন্ন অভিজাত ক্লাব ও হোটেলে চুরি করে আসছিলেন। এ পর্যন্ত প্রায় সাত থেকে আটশ মোবাইল, ল্যাপটপ ও দামি ভ্যানিটি ব্যাগ চুরি করেছেন অভিজাত এলাকা থেকে।

শনিবার দুপুরে রাজধানীর মিন্টু রোডে নিজ কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ।

তিনি বলেন, জুবাইদা অভিজাত চোর। তার টার্গেট চাকরিজীবী নারী ও বিশ্ববিদ্যালয় পড়া নারী শিক্ষার্থীরা। তিনি ঢাকা ক্লাব, গুলশান ক্লাব, রেডিসন এবং সোনারগাঁওয়ের মতো অভিজাত হোটেলে বিভিন্ন সভা-সেমিনারে অংশ নিয়ে চুরি করতেন। চোরাই জিনিস ব্যবহার করে যাপন করতেন বিলাসী জীবন।

তিনি বলেন, গ্রেফতার জুবাইদা বিভিন্ন পাঁচ-তারকা হোটেলে ও রেস্টুরেন্টে পেশাজীবী বিভিন্ন সংগঠনের সভা-সিম্পোজিয়াম, সেমিনারে ভুয়া নাম-ঠিকানা ব্যবহার করে অনলাইন রেজিস্ট্রেশন করে অংশগ্রহণ করতেন। সারাদিন গুরু-গম্ভীর আলোচনার ফাঁকে ফাঁকে চুরি করে সটকে পড়তেন এই নারী।

ডিবিপ্রধান বলেন, গত ১২ বছর ধরে জুবাইদা চুরি করে আসছিলেন। নিজেকে রাখতেন পরিমিতভাবে গুছিয়ে। রেজিস্ট্রেশন করে অংশ নিতেন বড় বড় সভা-সেমিনার ও ওয়ার্কশপে। এসব অনুষ্ঠানে গিয়ে সুকৌশলে চুরি করতেন বিভিন্ন দামি দামি জিনিসপত্র। তার নিয়মিত যাতায়াত ছিল ঢাকা-ক্লাব, গুলশান-ক্লাব, উত্তরা ক্লাবসহ বিভিন্ন পাঁচ-তারকা হোটেল ও রেস্ট্যুরেন্টে। জুবাইদা সুলতানা প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করেছেন এসব তথ্য।

হারুন অর রশীদ আরও বলেন, জুবাইদার বাবা একজন অবসরপ্রাপ্ত যুগ্ম সচিব। তার বোন গ্রামীণফোনের একজন বড় কর্মকর্তা। তার এসব খারাপ অভ্যাসের জন্য তাকে পরিবার থেকে বিতারিত করা হয়েছে। জুবাইদা বিয়ে করেছেন দুটি। তার বর্তমান স্বামীর চতুর্থ স্ত্রী তিনি। তার স্বামী বর্তমানে সৌদি প্রবাসী। স্বামী সৌদিতে থাকলেও জুবাইদার চুরি করা জিনিসপত্র বিক্রি করে দেওয়ার ব্যবস্থা করে দিতেন।

অপহরণের ৩ দিন পর ছাত্রীকে উদ্ধার
                                  

রাজশাহী প্রতিনিধি:

রাজশাহীর বাঘা উপজেলায় এসএসসি পরীক্ষা দিয়ে বাড়ি ফিরছিলেন এক ছাত্রী। পথিমধ্যে তাকে অপহরণ করে নিয়ে যায় বখাটেরা। অবশেষে অপহরণের ৩ দিন পর ওই শিক্ষার্থীকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। একই সাথে অপহরণকারী পিয়াস আলীকেও গ্রেফতার করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

গত ১০ মার্চ বাঘা উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে এসএসসি পরীক্ষা দিয়ে বাড়ি ফিরছিল ওই স্কুলছাত্রী। সে হরিরামপুর এলাকায় পৌঁছলে হরিরামপুর গ্রামের আফিদুল মৃধার ছেলে পিয়াস আলীসহ তিন বন্ধুর সহায়তায় ছাত্রীকে সিএনজিতে জোরপূর্বক তুলে নিয়ে যায়। এ ঘটনায় ছাত্রীর বাবা বাদী হয়ে ওই দিন পিয়াস আলীকে প্রধান আসামি করে বাঘা থানায় মামলা করেন।

বাঘা থানা পরিদর্শক (তদন্ত) সোহেব খান বলেন, ছাত্রীকে উদ্ধার ও গ্রেফতার অপহরণকারীকে বৃহস্পতিবার সকালে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। ছাত্রীকে পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ানস্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে (ওসিসি) পাঠানো হয়েছে।

উপজেলা চেয়ারম্যান ও তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে দুদকের মামলা
                                  

আকরামুজ্জমান আরিফ, কুষ্টিয়া প্রতিনিধি:

কুষ্টিয়ায় জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগে কুষ্টিয়া সদর উপজেলা চেয়ারম্যান মো: আতাউর রহমান আতা ও তার স্ত্রী কুষ্টিয়া পৌর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মোছা: সাম্মিয়ারা পারভীনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

সোমবার (১১ মার্চ) কুষ্টিয়ার সমন্বিত জেলা কার্যালয়ে মামলাটি দায়ের করেন দুদকের সহকারী পরিচালক নীল কমল পাল। যার মামলা নং-০২।

মামলার এজাহারে জানা যায়, কুষ্টিয়া সদরের ৪ নম্বর পৌর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মোছা: সাম্মিয়ারা পারভীন (৪২) দুদকে দাখিল করা তার সম্পদ বিবরণীতে তিন লাখ ৬৫ হাজার ৪৬৮ টাকার সম্পদের ভিত্তিহীন বা মিথ্যা তথ্য দিয়ে গোপন করেছেন এবং জ্ঞাত আয়ের সঙ্গে ৬৩ লাখ ৬৬ হাজার ৫৭৪ টাকার অসঙ্গতিপূর্ণ সম্পদ অর্জন ও দখলে রেখে দুর্নীতি দমন কমিশন আইনে শাস্তিযোগ্য অপরাধ করেছেন। এ ধরণের অপরাধ সংঘটনে সাম্মিয়ারা পারভীনের স্বামী কুষ্টিয়া সদর উপজেলা চেয়ারম্যান মো: আতাউর রহমান আতা (৪৭) সহায়তা করে দণ্ডবিধির ১০৯ ধারায় শাস্তিযোগ্য অপরাধ করেছেন। যে কারণে তাদের দুজনকে আসামি করে মামলাটি দায়ের করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন দুদকের উপ-পরিচালক ও জনসংযোগ কর্মকর্তা মো: আকতারুল ইসলাম।

সুপ্রিম কোর্ট বারের ভোট গণনার সময় আ.লীগের দু’পক্ষের মারামারি
                                  

স্বাধীন বাংলা প্রতিবেদন:

সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির ভোট গণনাকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগের ২ গ্রুপের মধ্যে মারামারির ঘটনা ঘটেছে। এতে বেশ কয়েকজন আইনজীবী আহত হয়েছেন। আজ শুক্রবার সকালে এ ঘটনা ঘটে।

শুক্রবার সকালে ভোট গণনার পর নির্বাচন কমিশনার নাহিদ সুলতানা যুথীকে সম্পাদক ঘোষণা করলে বহিরাগতরা হামলা চালায়। হামলা চালানোর পাশাপাশি ব্যালট ছিনতাইয়ের ঘটনাও ঘটে। এসময় সাইফ নামে এক সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেলকে বেধড়ক পেটায়। তাকে মারার ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে।

এর আগে সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতির ২০২৪-২৫ মেয়াদের কার্যনির্বাহী কমিটির দুদিনব্যাপী বার্ষিক নির্বাচনে বুধবার ও বৃহস্পতিবার ভোটগ্রহণ হয়। দুদিনই সকাল ১০টা থেকে শুরু হয়ে মাঝে এক ঘণ্টা বিরতি দিয়ে বিকাল ৫টা পর্যন্ত ভোটগ্রহণ চলে। বৃহস্পতিবার রাত ১০টার পর ভোট গণনা শুরু হওয়ার কথা থাকলেও তা হতে দেয়নি বহিরাগতরা। এ হামলায় আওয়ামী লীগের সম্পাদক প্রার্থী শাহ মঞ্জুরুল হক আহত হয়েছেন। বহিরাগতরা সবাই একজন নারী সম্পাদক প্রার্থীর অনুসারী বলে জানা গেছে।

সভাপতি, সহসভাপতি (দুটি), সম্পাদক, কোষাধ্যক্ষ, সহসম্পাদক (তিনটি) ও সদস্য ৭টিসহ মোট ১৪টি পদে এক বছর মেয়াদের জন্য এ নির্বাচন হয়ে থাকে। ১৪টি পদের বিপরীতে এবার নির্বাচনে ৩৩ প্রার্থী হয়েছেন।

এবারের নির্বাচনে বিএনপি সমর্থিত নীল প্যানেল থেকে ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন সভাপতি পদে, ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজল সম্পাদক পদে লড়ছেন। আওয়ামী লীগ সমর্থিত বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ থেকে সভাপতি পদে লড়ছেন আবু সাঈদ সাগর, সম্পাদক পদে লড়ছেন ব্যারিস্টার শাহ মঞ্জুরুল হক।

এ ছাড়া যুবলীগ সভাপতির স্ত্রী নাহিদ সুলতানা যুথী সম্পাদক পদে লড়ছেন। প্রবীণ আইনজীবী, সাবেক অতিরিক্ত অ্যার্টনি জেনারেল এমকে রহমানও লড়ছেন সভাপতি পদে।

দুদিনব্যাপী নির্বাচনে এবারের ভোটার সাত হাজার ৮৮৩ জন। প্রথম দিনে ভোট পড়েছিল ৩ হাজার ২৬১টি।

ইভ্যালির রাসেল-শামীমার বিরুদ্ধে আবারো গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি
                                  

স্বাধীন বাংলা প্রতিবেদন:

আবারো গ্রেফতারি পরোয়না জারি করা হয়েছে ইভ্যালির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ রাসেল ও চেয়ারম্যান শামীমা নাসরিনের বিরুদ্ধে। চেক প্রতারণার পৃথক তিন মামলায় তাদের বিরুদ্ধে এ গ্রেফতারি পরোয়ানা বলে জানা যায়।

সোমবার (৪ মার্চ) ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট বেগম ফারাহ দিবা ছন্দা এ আদেশ দেন।

বাদীপক্ষের আইনজীবী সাকিবুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, তানভীর আহমেদ, মোহাম্মদ মঈন উদ্দিন ও তৌফিক মাহমুদ নামে তিন ব্যক্তি মামলা করেন। এরপর তাদের আদালতে হাজির হতে সমন জারি করা হয়। তবে সমনে আসামিরা হাজির না হওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন আদালত।

মামলাগুলোর অভিযোগে বলা হয়, বিজ্ঞাপন দেখে তারা মোটরসাইকেল কেনা বাবদ মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে নির্ধারিত পরিমাণ টাকা পরিশোধ করেন। ৪৫ দিনের মধ্যে পণ্য সরবরাহের কথা থাকলেও আসামিরা তা সরবরাহ করতে ব্যর্থ হন।

পরে ইভ্যালি তাদের পণ্যের সমমূল্যের চেক দেয়। চেকগুলো নগদায়নের জন্য একাধিক ব্যাংকে জমা দিলে তা ডিজঅনার হয়।

এ বিষয়ে তাদেরকে লিগ্যাল নোটিশ পাঠানো হয়। নোটিশের জবাব না দেওয়ায় এবং কোনো পদক্ষেপ না নেওয়ায় শামীমা নাসরিন ও রাসেলের বিরুদ্ধে বাদীরা প্রতারণার মামলা করেন।

জামিনের মেয়াদ বাড়লো ড. ইউনূসের
                                  

স্বাধীন বাংলা প্রতিবেদন:

শ্রম আইনে কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান অধিদপ্তরের করা মামলায় নোবেলজয়ী ড. ইউনূসহ ৪ আসামিকে জামিন দিয়েছেন শ্রম আপিল ট্রাইব্যুনাল। তবে জামিনের মেয়াদ কতদিন তা পরে জানানো হবে বলে জানিয়েছেন বিচারক। পরবর্তী শুনানির দিন ১৬ই এপ্রিল ধার্য করা হয়েছে। রোববার শ্রম আপিল ট্রাইব্যুনালের বিচারক এম এ আউয়াল এ আদেশ দেন।

আদালতে আজ ড. ইউনূসসহ চারজনের পক্ষে ছিলেন ব্যারিস্টার মো. আব্দুল্লাহ আল মামুন। তার সঙ্গে ছিলেন ব্যারিস্টার খাজা তানভীর আহমেদ ও এস এম মিজানুর রহমান।

অপরদিকে কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান অধিদপ্তরের পক্ষে শুনানিতে ছিলেন সিনিয়র অ্যাডভোকেট মো. খুরশীদ আলম খান ও আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের দায়িত্বরত চিফ প্রসিকিউটর সৈয়দ হায়দার আলী। এ সময় ড. ইউনূসসহ অন্য তিন বিবাদী গ্রামীণ টেলিকমের এমডি মো. আশরাফুল হাসান, পরিচালক নুরজাহান বেগম ও মো. শাহজাহান আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

ড. মুহাম্মদ ইউনূসের আইনজীবী ব্যারিস্টার আবদুল্লাহ আল মামুন সাংবাদিকদের জানান, শ্রম আইন লঙ্ঘনের মামলায় ড. ইউনূসসহ ৪ জনের জামিনের মেয়াদ বাড়িয়েছেন শ্রম আপিল ট্রাইব্যুনাল। এর আগে বেলা পৌনে ১১টার দিকে গ্রামীণ টেলিকমের মামলায় জামিনের মেয়াদ বাড়ানোর আবেদন নিয়ে শ্রম আপিল ট্রাইব্যুনালে হাজির হন ড. ইউনূস।

এ সময় সঙ্গে ছিলেন এই মামলায় ৬ মাসের কারাদণ্ডের সাজাপ্রাপ্ত অপর আাসামি গ্রামীণ টেলিকমের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক আশরাফুল হাসান এবং পরিচালক নূরজাহান বেগম ও মো. শাহজাহান।

অপহৃত শিক্ষার্থী উদ্ধার, শিক্ষক গ্রেপ্তার
                                  

নিজস্ব সংবাদদাতা:

রাজধানীর ডেমরার বাঁশেরপুল এলাকার একটি বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির শিক্ষার্থীতে অপহরণ করে নিয়ে যান একই বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক সুজন সরদার আব্দুল্লাহ(৩০)। এ বিষয়ে অপহৃতের বাবা ডেমরা থানায় সুজনের বিরুদ্ধে মামলা করেন।

গতকাল শনিবার(২ মার্চ) পুলিশ অপহৃত ওই শিক্ষার্থীকে নরসিংদী থেকে উদ্ধার করে। একইসাথে অপহরণকারী শিক্ষককেও গ্রেপ্তার করে।

অপহরণকারী শিক্ষক সুজন মিয়া বরিশালের মুলাদী থানার লক্ষীপুর গ্রামের মৃত শহিদুল সরদারের ছেলে।

ডেমরা থানার পরিদর্শক অপারেশন সুব্রত কুমার পোদ্দার বলেন, অপহৃত শিক্ষার্থীকে গত ৮ মাস যাবৎ বাসায় প্রাইভেট পড়াতেন সুজন। স্কুল ছুটি হলেই ফোন করে ভুক্তভোগীর বাবাকে জানাতেন ওই সহকারী প্রধান শিক্ষক। এ সুবাদে সুজন ওই পরিবারে বিশ্বাস অর্জন করেন।

এর সুযোগে গত ২৮ জানুয়ারি স্কুল ছুটি শেষে বাসায় যাওয়ার পথে বাঁশেরপুল ব্রিজ সংলগ্ন থেকে সুজন পূর্ব পরিকল্পিতভাবে মেয়েটিকে অপহরণ করে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে যান।

পুলিশ পরিচয়ে ছিনতাই করতে গিয়েছিলো, অতপর...
                                  

আশুলিয়া (সাভার) প্রতিনিধি:

সাভারের আশুলিয়ায় পুলিশ পরিচয়ে যুবককে তুলে নিয়ে যাওয়ার সময় প্রাইভেটকারের পিছনে ধাওয়া করে ৪ ছিনতাইকারীকে আটক করেছে পুলিশ। এ সময় তাদের প্রাইভেটকার থেকে মোঃ আশিক (২৪) নামের এক ভুক্তভোগীসহ দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করা হয়। শনিবার (০২ মার্চ) ভোর রাতে আশুলিয়ার ঘোষবাগ এলাকা থেকে তাদেরকে আটক করা হয়।

আটককৃতরা হলো- যশোর জেলার কোতয়ালী থানার কদমতলা এলাকার জাহিদ হাসানের ছেলে মোঃ ফয়সাল (২৯), শেরপুর জেলার সদর থানার চাপাজোরা এলাকার আব্দুল হাকিমের ছেলে শফিক (২১) এবং মানিকগঞ্জ জেলার দৌলতপুর থানার বাচামারা এলাকার মৃত সালামের ছেলে মোঃ হাবিব (৩৩) ও একই থানার উত্তরখন্ড এলাকার ইউনুস শেখের ছেলে মোঃ আরিফ (২৪)। তারা সবাই আশুলিয়ার পলাশবাড়ীসহ বিভিন্ন এলাকায় ভাড়া বাসায় থাকতো বলে যায়।

ভুক্তভোগী মোঃ আশিক শরিয়তপুর জেলার সখিপুর থানার বাহাদিকান্দি এলাকার আবুল হোসেনের ছেলে। বর্তমানে আশুলিয়ার গাজীরচট সোনিয়া মার্কেট এলাকায় ভাড়া বাসায় থাকতেন বলে জানা যায়।

পুলিশ জানায়, শনিবার ভোররাতে আশুলিয়ার নরসিংহপুর এলাকায় ডিউটিরত অবস্থায় একটি প্রাইভেটকারের (ঢাকা মেট্রো গ-১৪-৮২৩০) ভেতর থেকে একজনের চিৎকার শুনতে পেয়ে পেছনে পেছনে ধাওয়া করে আশুলিয়ার ঘোষবাগ এলাকা গিয়ে প্রাইভেটকারটি আটক করতে সক্ষম হই। এ সময় প্রাইভেটকারের ভেতর থেকে পুলিশ পরিচয়ে তুলে নেওয়া আশিক নামের এক ভুক্তভোগীকে উদ্ধার করা হয়। পরে ভিতরে থাকা ৪ জনকে আটক করা হয় এবং তাদের হেফাজতে থেকে বিভিন্ন ধরনের দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করা হয়।

ভুক্তভোগীর বরাত দিয়ে পুলিশ জানায়, ভোররাতে আশিক বগাবাড়ী এলাকা দিয়ে হেটে বাসায় যাওয়ার সময় আটককৃতরা এসে নিজেদরকে পুলিশ পরিচয় দিয়ে তাকে জোরপূর্বক প্রাইভেটকারে তুলে নেয়। পরে ভুক্তভোগীর নিকট থাকা ১৫ হাজার ২০০ টাকা নিয়ে তাকে নিয়ে বাইপাইল-আবদুল্লাহপুর সড়ক দিয়ে নরসিংপুর যাওয়ার সময় সে চিৎকার করে। এসময় তাদের পিছনে ধাওয়া করে ৪ জনকে আটক করা হয়।

এ বিষয়ে আশুলিয়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আবুল হাসান বলেন, আটককৃতদের বিরুদ্ধে থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। সেই সাথে আজ সকালে তাদেরকে আদালতে পাঠানো হয়েছে।

গর্ভের শিশুর লিঙ্গ পরিচয় প্রকাশ নিয়ে যে নির্দেশ দিল হাইকোর্ট
                                  

স্বাধীন বাংলা প্রতিবেদন:

মায়ের গর্ভে থাকা শিশুর লিঙ্গ পরিচয় প্রকাশ করা যাবেনা বলে রায় দিয়েছেন হাইকোর্ট। সেই সঙ্গে হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলোকে কঠোরভাবে এ নির্দেশ মানার কথা বলা হয়েছে। আজ রোববার বিচারপতি নাইমা হায়দার ও বিচারপতি কাজী জিনাত হকের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ রায় দেন।

আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট ইশরাত হাসান। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী তীর্থ সলিল রায়। রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল অমিত দাশগুপ্ত।

এর আগে গত ২৯ জানুয়ারি মাতৃগর্ভে থাকা অবস্থায় অনাগত শিশুর লিঙ্গ প্রকাশ করা যাবে না মর্মে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের গঠিত কমিটির প্রতিবেদন হাইকোর্টে দাখিল করা হয়।

এই নীতিমালা অনুযায়ী কোনো ব্যক্তি, হাসপাতাল, ডায়াগনস্টিক সেন্টার বা ল্যাবরেটরি কোনো লেখা বা চিহ্ন বা অন্য কোনো উপায়ে শিশুর লিঙ্গ প্রকাশ করতে পারবে না।

পরে ১৯ ফেব্রুয়ারি বিচারপতি নাইমা হায়দার ও বিচারপতি কাজী জিনাত হকের হাইকোর্ট বেঞ্চে এ নীতিমালা দাখিল করে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। এ বিষয়ে আজ রায় দেন হাইকোর্ট।

রুল জারির পর রিটকারী আইনজীবী ইশরাত হাসান বলেছিলেন, ভারতে আইন করে গর্ভজাত সন্তানের লিঙ্গ নির্ধারণ নিষিদ্ধ করা হয়েছে। গর্ভের শিশুর লিঙ্গ নির্ধারণ করা হলে প্রসূতি মায়ের মানসিক চাপ তৈরি হয়। অনেক ক্ষেত্রে পারিবারিক চাপে গর্ভপাত করার ঘটনাও ঘটে।

২০২০ সালের ২৬ জানুয়ারি গর্ভের শিশুদের লিঙ্গ পরিচয় জানার উদ্দেশে পরীক্ষা ও লিঙ্গ পরিচয় প্রকাশ বন্ধের নির্দেশনা চেয়ে জনস্বার্থে রিট করেন অ্যাডভোকেট ইশরাত হাসান।

ছাত্রলীগ নেতার হাতে খু/ন: ৬ স্থান থেকে যুবকের ৯ খন্ড লা/শ উদ্ধার
                                  

আকরামুজ্জামান আরিফ, কুষ্টিয়া:

কুষ্টিয়ায় অভিযান চালিয়ে শহরতলী হাটশ হরিপুর পদ্মা নদীর চর থেকে মিলন আলী (২৪) নামের এক যুবকের খন্ডিত লা/শ উদ্ধার করেছে পুলিশ। লাশের নয়টি খন্ড পৃথক ছয় জায়গায় পুঁতে রাখা হয়েছিল। শনিবার (০৩ ফেব্রুয়ারি) সকালে সদর উপজেলার হাটশ হরিপুর ইউনিয়নের কান্তিনগর বোয়ালদহ সংলগ্ন পদ্মার চর থেকে লাশের টুকরোগুলো উদ্ধার করা হয়।

পুলিশ জানিয়েছে, চাঁদার দাবিতে কুষ্টিয়া জেলা ছাত্রলীগের বহিস্কৃত সাবেক সহ সভাপতি এস কে সজিবের নেতৃত্ব এই হ/ত্যাকান্ডটি ঘটানো হয়েছে। পুলিশ সজিবসহ পাঁচজনকে আটক করেছে।

নিহত যুবকের নাম মিলন হোসেন (২৪)। তিনি দৌলতপুর উপজেলার পূর্ব বাহিরমাদি গ্রামের মওলা বক্সের ছেলে। তিনি পরিবার নিয়ে কুষ্টিয়া শহরের হাউজিং ই ব্লকের ভাড়া বাসায় থাকতেন।

কুষ্টিয়ার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক্রাইম এন্ড অপস্) পলাশ কান্তি নাথ জানান, ৩১ জানুয়ারি (বুধবার) সকালে মিলন বাড়ি থেকে বের হয়ে নিখোঁজ হয়। ঐ দিন সন্ধ্যায় তার স্ত্রী মুমো খাতুন কুষ্টিয়া মডেল থানায় জিডি করেন। জিডির প্রেক্ষিতে তদন্ত শুরু করে পুলিশ। মুঠোফোনের একটি কল লিস্টের সূত্রধরে প্রথমে মিলনের এক বন্ধুকে আটক করা হয়। তার স্বীকারোক্তিতে জানা যায় আরেক বন্ধু সজিবের নেতৃত্বে মিলনকে হত্যা করা হয়েছে। পরবর্তীতে শুক্রবার বিকেলে অভিযান চালিয়ে সজিবসহ আরো চারজনকে আটক করা হয়।

জিজ্ঞাসাবাদে তারা মিলনকে হত্যা করে তার লাশ টুকরো টুকরো করে নদীর চরে পুতে রাখার বিষয়টি স্বীকার করে। এরপর শুক্রবার দিবাগত রাত ২টার দিকে তাদেরকে নিয়ে হাটশ হরিপুর ইউনিয়নের কান্তিনগর বোয়ালদহ পদ্মা নদীর চরে অভিযানে যায় পুলিশ। রাতভর অভিযান চালিয়ে নদীর চরের ছয়টি স্থান থেকে মিলনের খন্ডিত লাশ উদ্ধার করা হয়। এছাড়া হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত অস্ত্র বাঁধ বাজার এলাকা থেকে উদ্ধার করেছে পুলিশ।

তিনি আরো জানান, জিজ্ঞাসাবাদে জানা গেছে, টাকার দাবিতে মিলনকে হত্যা করা হয়েছে। জড়িতরা সবাই একে অপরের পরিচিত। মিলন বাড়ি থেকে অনলাইনে কাজ করতো। নিখোঁজের দিন তাকে মুঠোফোনে ডেকে হাউজিং এলাকার একটি বাড়িতে আটকে রেখে নির্যাতন করা হয়। ঐদিন রাতেই তাকে হত্যা করা হয়। এরপর লাশ গুম করার সুবিধার্থে ধারালো অস্ত্র দিয়ে লাশ টুকরো টুকরো করে নদীর চরে পুতে রাখা হয়েছিল। আর এই পুরো হত্যাকান্ডটির নেতৃত্ব দিয়েছে তারই বন্ধু সজিব। এর সাথে অন্যকোন ঘটনা আছে কিনা তা নিয়ে আরো তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

স্থানীয় সুত্রে জানা গেছে, এস কে সজিব কুষ্টিয়া জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ সভাপতি ছিলেন। কুষ্টিয়া ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের ভাংচুর ও ইন্টার্ণ চিকিৎসকদের মারধরের অভিযোগে তাকে বহিস্কার করা হয়। সেই মামলায় জেল খেটেছে সে। এছাড়া তার নামে চাঁদাবাজিসহ বেশ কিছু মামলাও রয়েছে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক হাউজিং এলাকার বাসিন্দারা জানিয়েছে, সজিবের নামে অনেক অভিযোগ রয়েছে। তার নেতৃত্বে একটি কিশোর গ্যাং পরিচালিত হয়। মিলন নামে যাকে হত্যা করা হয়েছে সেও তাদের মতোই ছিল। তাদের কাজ ছিল ছেলে মেয়েদের ব্ল্যাকমেইল করে চাঁদা দাবি করা।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় হ/ত্যা মামলায় ১ জনের ফাঁসি
                                  

হালিমা খানম, স্টাফ রিপোর্টার:

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবায় পুলিশকে আসামি দেখিয়ে দেওয়ায় দিনমজুর রহিজ মিয়া হ/ত্যা মামলায় একজনের ফাঁসি ও ৬ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা প্রদান করেছেন আদালত। মঙ্গলবার (৩০ জানুয়ারি) দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়া অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ প্রথম আদালতের বিচারক আয়েশা আক্তার সুমি এই আদেশ দেন।

সাজাপ্রাপ্তদের মধ্যে উপজেলার নিমবাড়ির জমসিদ মিয়ার ছেলে জজ মিয়াকে মৃত্যুদণ্ড ও এক লাখ টাকা জরিমানা করেছেন আদালত। এছাড়া জমসিদ মিয়ার আরও ৪ ছেলে ইয়াছিন মিয়া, খোকন মিয়া, পারভেজ মিয়া ও মনির মিয়া এবং স্থানীয় আওয়াল মিয়া ও তার ছেলেকে ৬ মাসের সশ্রম কারাদণ্ডাদেশের পাশাপাশি দুই হাজার টাকা করে জরিমানা অনাদায়ে এক মাসের কারাদণ্ড প্রদান করেন আদালত।

একই মামলায় জমসিদ মিয়াসহ ৯ জনকে বেকসুর খালাস প্রদান করা হয়। ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত জজ মিয়া পলাতক রয়েছেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া আদালতের পুলিশ পরিদর্শক কাজী দিদারুল আলম।

আদালত ও মামলা সূত্রে জানা যায়, কসবা উপজেলার মূলগ্রাম ইউনিয়নের নিমবাড়ি গ্রামের জমসিদ মিয়ার ছেলে মনিরের বিরুদ্ধে ওয়ারেন্ট থাকায় পুলিশ তাকে খুঁজছিল। পুলিশের কাছে মুনিরের তথ্য দেওয়ার অভিযোগ ছিল রহিজ মিয়ার বিরুদ্ধে। এরই জেরে ২০১৭ সালের ১০ এপ্রিল সকালে বাজার থেকে চাচা নাবাক সর্দার ও বড় ভাই ফায়েজ মিয়াসহ বাড়িতে ফেরার পথে রহিজের ওপর দেশীয় অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে হামলা করেন জমসিদ মিয়ার পক্ষের লোকজন। এই ঘটনায় তিনজনকে কুপিয়ে রক্তাক্ত করা হয়। পরে তাদেরকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে রহিজ মিয়াকে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসক।

এ ঘটনায় রহিজ মিয়ার স্ত্রী নার্গিস বেগম বাদী হয়ে ১৭ জনের নাম উল্লেখ করে হত্যা মামলা দায়ের করেন। ওই মামলায় একই বছরের ২৬ অক্টোবর পুলিশ ১৬ জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। সকল যুক্তি তর্ক ও সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে আদালত আসামি জজ মিয়াকে ফাঁসি ও এক লাখ টাকা জরিমানা করেন। এছাড়া মামলার প্রধান আসামি জমসিদ মিয়ার ছেলে আসামি খোকন মিয়াকে এক বছরের সশ্রম কারাদণ্ড ও ৫ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও দুই মাসের কারাদণ্ড প্রদান করা হয়। পাশাপাশি জমসিদ মিয়ার ৪ ছেলে ইয়াছিন মিয়া, খোকন মিয়া, পারভেজ মিয়া, মনির মিয়া এবং স্থানীয় আওয়াল মিয়া ও তার ছেলে আশরাফুলকে ৬ মাস করে সশ্রম কারাদণ্ড ও দুই হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও একমাসের কারাদণ্ড প্রদান করেন। মামলার প্রধান আসামি জমসিদ মিয়াসহ ৯ আসামিকে বেকসুর খালাস প্রদান করেন আদালত।

স্ত্রী হ/ত্যার দায়ে স্বামী রুবেল গ্রেফতার
                                  

হাসমত, স্টাফ রিপোর্টার:

রাজশাহীর বাগমারায় চাঞ্চল্যকর স্ত্রী হ/ত্যা মামলার পলাতক আসামী স্বামী রুবেল হোসেনকে(২৪) ২৪ ঘন্টার মধ্যে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব।

গতকাল( ২৯ জানুয়ারি ২০২৪) রাত ১১টার দিকে রাজশাহী মহানগরীর কাটাখালী থানাধীন মাসকাটাদীঘি পূর্বপাড়ায় অভিযান চালিয়ে চাঞ্চল্যকর স্ত্রী হ/ত্যা মামলার মূলহোতা পলাতক আসামী মোঃ রুবেল হোসেনকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয় র‌্যাব। রুবেল বাগমারার গনিপুর ইউপির ওমতৃ ওসমান আলীর ছেলে।

র‌্যাব-৫ এর প্রেস ব্রিফিং সূত্রে জানা যায়, রুবেল পেশায় একজন রডমিস্ত্রী। সে প্রায় ৭ বছর পূর্বে পারিবারিকভাবে ভিকটিম ঝর্ণা আক্তার লিপিকে (২৫) বিয়ে করে। তাদের ১টি ছেলে সন্তান রয়েছে। আসামী রুবেল একজন মাদকাসক্ত। তার গ্রামীণ ব্যাংক ও ব্যুরো বাংলাদেশ এনজিও হতে বিভিন্ন অংকের ঋণ নেয়া ছিল বিধায় হতাশাগ্রস্থ ছিল। যার প্রেক্ষিতে সংসারের তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে প্রায়ই স্ত্রীকে শারীরিক ও মানসিকভাবে নির্যাতন করত। এছাড়াও ভিকটিমকে অন্য কারও সাথে সম্পর্ক আছে বলে সন্দেহ করত যার ফলে সার্বক্ষণিক পারিবারিক কলহ লেগে থাকতো। গত ২৯ তারিখ ভোর ৪.৩০ ঘটিকার দিকে আসামী তার মা ও বোনকে অন্য একটি ঘরে তালাবদ্ধ করে আটকে রেখে লোহার ধারালো শাবল দিয়ে ভিকটিমের গলা, বুক ও থুতনিতে গুরুতর আঘাত করে নৃশংসভাবে খু/ন করে সকলের অগোচরে আসামী অন্যত্র পালিয়ে যায়।

র‌্যাব জানায় পরবর্তীতে ভিকটিমের বড় ভাই মোঃ জাহাঙ্গীর আলম বাদী হয়ে রাজশাহী জেলার বাগমারা থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করে।

এ ঘটনার প্রেক্ষিতে র‌্যাব তার ছায়া তদন্ত শুরু করে ও গোয়েন্দা নজরদারী বৃদ্ধি করে রাজশাহী মহানগরীর কাটাখালী থানাধীন মাসকাটাদীঘি পূর্বপাড়া হতে তাকে আটক করে। উক্ত ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্যকর পরিবেশ সৃষ্টি হয়।

গ্রেফতারকৃত আসামীর বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলে জানায় র‌্যাব-৫।

‘গণহারে আসামীদের ডান্ডাবেড়ি পরানো যাবে না’
                                  

স্বাধীন বাংলা প্রতিবেদন:

গণহারে আসামীদের ডান্ডাবেড়ি পরানো যাবে না বলে মন্তব্য করেছেন হাইকোর্ট। হাইকোর্ট আদেশে বলেছেন- শীর্ষ সন্ত্রাসী, জঙ্গি ও দুর্ধর্ষ আসামি ছাড়া গণহারে আসামিদের ডান্ডাবেড়ি পরানো যাবে না। এ সংক্রান্ত স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পরিপত্র কঠোরভাবে অনুসরণ করতে বলা হয়েছে।

আজ মঙ্গলবার(৩০ জানুয়ারি) বিচারপতি মোস্তফা জামান ইসলাম ও বিচারপতি মো. আতাবুল্লাহর হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

গত ১৫ জানুয়ারি বাবার জানাজায় ছাত্রদলের এক নেতাকে ডান্ডাবেড়ি পরিয়ে আনার বিষয়টি হাইকোর্টের নজরে আনেন ব্যারিস্টার কায়সার কামাল। সেদিন আদালত এ বিষয়ে রিট করার পরামর্শ দেন। পরে গত ১৬ জানুয়ারি বাবার জানাজায় ছাত্রদলের এক নেতাকে ডান্ডাবেড়ি পরিয়ে আনার ঘটনা চ্যালেঞ্জ করে রিট করা হয়। রিটে দেশের সব কারাগারে গণহারে ডান্ডাবেড়ি পরানো বন্ধ চাওয়া হয়।

‘ডান্ডাবেড়ি পায়ে বাবার জানাজা পড়লেন ছাত্রদল নেতা’ শিরোনামে গত ১৩ জানুয়ারি গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হয়।

প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়, প্যারোলে মুক্তি পেয়ে ডান্ডাবেড়ি পরা অবস্থায় বাবার জানাজায় অংশ নিয়েছেন ছাত্রদল নেতা মো. নাজমুল মৃধা। সময় সংক্ষিপ্ত হওয়ার কারণে নির্ধারিত জানাজার আগেই আয়োজন করা হয় বিশেষ জানাজার। পটুয়াখালীর মির্জাগঞ্জ উপজেলার পশ্চিম সুবিদখালী গ্রামে ওই জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। জানাজার সময় নাজমুলের হাতকড়া খুলে দেওয়া হলেও খোলা হয়নি পায়ের ডান্ডাবেড়ি। মো. নাজমুল মৃধা পটুয়াখালীর মির্জাগঞ্জ উপজেলা ছাত্রদলের যুগ্ম আহ্বায়ক। জানাজা শেষে তাকে আবার পটুয়াখালী জেলা কারাগারে পাঠায় পুলিশ।

আট বছরের শিশুকে বলাৎকারের চেষ্টা, যুবক গ্রেপ্তার
                                  

আব্দুল গাফ্ফার, শেরপুর (বগুড়া) প্রতিনিধি:

বগুড়ার শেরপুরে আট বছরের এক শিশুকে বলাৎকারের চেষ্টার ঘটনায় সুমন মিয়া (৩৫) নামের এক যুবককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। শুক্রবার (১৯জানুয়ারি) সকালে উপজেলার শাহবন্দেগী ইউনিয়নের নওদাপাড়া এলাকা থেকে অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করা হয়। এরআগে বৃহস্পতিবার দুপুরে নওদাপাড়া গ্রামে এই ঘটনাটি ঘটে।

গ্রেপ্তার হওয়া সুমন মিয়া পাশ্ববর্তী খানপুর ইউনিয়নের ভদ্রপাড়া গ্রামের ওয়াজেদ আলীর ছেলে।

এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার (১৮জানুয়ারি) রাতেই ভুক্তভোগী শিশুটির বাবা মো. আসলাম হোসেন বাদি হয়ে শেরপুর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

মামলা সূত্রে জানা যায়, অভিযুক্ত সুমন মিয়া পেশায় একজন চাতাল শ্রমিক। নওদাপাড়া এলাকার একটি বাড়ি ভাড়া নিয়ে বসবাস করেন। ভুক্তভোগী শিশুটির পরিবারও পাশের বাসায় থাকেন। বৃহস্পতিবার দুপুর একটার দিকে শিশুটি বাড়ির উঠানে খেলা করছি। এসময় টিভি দেখার কথা বলে ওই শিশুকে তার ঘরের ভেতরে নিয়ে বলাৎকারের চেষ্টা চালায় সুমন মিয়া। একপর্যায়ে শিশুটি চিৎকার করে ঘর থেকে বের হয়ে এসে ঘটনাটি তার মাকে জানায়। এরই ফাকে অভিযুক্ত সুমন দৌড়ে পালিয়ে যায় বলে মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে।

জানতে চাইলে শেরপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রেজাউল করিম রেজা ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, এই ঘটনায় থানায় একটি মামলা নেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি অভিযান চালিয়ে মামলায় অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। শুক্রবার দুপুরের পর গ্রেপ্তারকৃতকে বগুড়ায় আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে বলে জানান তিনি।


   Page 1 of 124
     আইন - অপরাধ
ড. ইউনূসের জামিনের মেয়াদ বাড়ালো শ্রম আদালত
.............................................................................................
খালেদা জিয়া সাজা স্থগিত হচ্ছে আরও ৬ মাস, তবে...
.............................................................................................
তিনি অভিজাত চোর, ১২ বছর ধরেই এ কাজ করছেন
.............................................................................................
অপহরণের ৩ দিন পর ছাত্রীকে উদ্ধার
.............................................................................................
উপজেলা চেয়ারম্যান ও তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে দুদকের মামলা
.............................................................................................
সুপ্রিম কোর্ট বারের ভোট গণনার সময় আ.লীগের দু’পক্ষের মারামারি
.............................................................................................
ইভ্যালির রাসেল-শামীমার বিরুদ্ধে আবারো গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি
.............................................................................................
জামিনের মেয়াদ বাড়লো ড. ইউনূসের
.............................................................................................
অপহৃত শিক্ষার্থী উদ্ধার, শিক্ষক গ্রেপ্তার
.............................................................................................
পুলিশ পরিচয়ে ছিনতাই করতে গিয়েছিলো, অতপর...
.............................................................................................
গর্ভের শিশুর লিঙ্গ পরিচয় প্রকাশ নিয়ে যে নির্দেশ দিল হাইকোর্ট
.............................................................................................
ছাত্রলীগ নেতার হাতে খু/ন: ৬ স্থান থেকে যুবকের ৯ খন্ড লা/শ উদ্ধার
.............................................................................................
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় হ/ত্যা মামলায় ১ জনের ফাঁসি
.............................................................................................
স্ত্রী হ/ত্যার দায়ে স্বামী রুবেল গ্রেফতার
.............................................................................................
‘গণহারে আসামীদের ডান্ডাবেড়ি পরানো যাবে না’
.............................................................................................
আট বছরের শিশুকে বলাৎকারের চেষ্টা, যুবক গ্রেপ্তার
.............................................................................................
স্থায়ী জামিন পেলেন সম্রাট
.............................................................................................
ইভ্যালির রাসেল-শামীমার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি
.............................................................................................
সমকামী বান্ধবীকে বিয়ে করতে সিলেটের গোয়াইনঘাটের তরুণী সাতক্ষীরায়
.............................................................................................
জামায়াত নেতা শফিকুল ইসলাম মাসুদের কারাদণ্ড
.............................................................................................
মুক্তি পেলেন মাওলানা আমির হামজা
.............................................................................................
ভারত সফরে প্রধান বিচারপতি ওবায়দুল হাসান
.............................................................................................
সাভারে ৮ জুয়াড়ীকে আটক করেছে ডিবি
.............................................................................................
পৌর মেয়রের উপর হামলা: আ.লীগ নেতাদের নামে চার্জশীট
.............................................................................................
জামিন পেলেন অধিকারের আদিলুর রহমান
.............................................................................................
মা শিখিয়েছেন চুরি, ছিনতাইয়ের আগে করেন রূপচর্চা
.............................................................................................
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ভুয়া সিআইডির মূলহোতা জেলহাজতে
.............................................................................................
শিকলবন্দী কৃষককে উদ্ধার, সুদ কারবারি আটক
.............................................................................................
সাংবাদিক নাদিম হত্যা : প্রধান আসামি বাবুর জামিন স্থগিত
.............................................................................................
জঙ্গি ছিনতাই মামলার প্রতিবেদন ১৬ অক্টোবর
.............................................................................................
চেম্বার আদালতেও জামিন পাননি বিএনপি নেতা আমান
.............................................................................................
এএসপি আনিসুল হত্যায় ১৫ জনের বিচার শুরু
.............................................................................................
বিএনপি নেতা আমানকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ
.............................................................................................
দুর্নীতি মামলা : বিএনপি নেতা আমানের স্ত্রীর জামিন
.............................................................................................
সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণের বাইরে বিএনপিপন্থিদের কালো পতাকা মিছিল
.............................................................................................
খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে নাইকো দুর্নীতি মামলা চলবে: হাইকোর্ট
.............................................................................................
জামায়াতের মিছিল-সমাবেশে নিষেধাজ্ঞা বহাল
.............................................................................................
১ লাখ টাকার জাল নোট বিক্রি করতো ২০ হাজার টাকায়
.............................................................................................
সেই যুব মহিলা লীগ নেত্রী মিশুর ৩ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর
.............................................................................................
খালেদার নাইকো মামলায় সাক্ষ্যগ্রহণ পিছিয়ে ১২ সেপ্টেম্বর
.............................................................................................
শিক্ষককে হত্যার পর টাকা লুট, সমকামিতার নাটক সাজিয়ে চিরকুট
.............................................................................................
জামায়াত-শিবিরের ৬ নেতাকর্মীর কারাদণ্ড
.............................................................................................
রিজেন্ট সাহেদের ৩ বছরের কারাদণ্ড
.............................................................................................
শাহবাগ থানায় জামায়াত-শিবিরের কয়েক হাজার নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা
.............................................................................................
পুলিশের ওপর হামলা, জামায়াতের ১১৬ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে পল্টনে মামলা
.............................................................................................
প্রধানমন্ত্রীকে হত্যার হুমকি: বিএনপি নেতা চাঁদ আবারও রিমান্ডে
.............................................................................................
রিমান্ড শেষে ফের কারাগারে ছাত্র অধিকার সভাপতি ইয়ামিন
.............................................................................................
সাঈদীর লাশের পাহারায় কেন হাজারো পুলিশ, প্রশ্ন বিচারপতির
.............................................................................................
পরকীয়ার সন্দেহে ভগ্নীপতিসহ স্ত্রীকে হত্যা
.............................................................................................
কুবি সাংবাদিক ইকবালের বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহার চেয়ে আইনি নোটিশ
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
    2015 @ All Right Reserved By dailyswadhinbangla.com

Developed By: Dynamic Solution IT