বৃহস্পতিবার, ৮ ডিসেম্বর 2022 বাংলার জন্য ক্লিক করুন
  
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   আইন - অপরাধ -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
দুর্নীতির মামলায় হাজী সেলিমের জামিন

আদালত প্রতিবেদক : দুর্নীতির মামলায় দণ্ডিত হাজী সেলিমকে জামিন দিয়েছেন আপিল বিভাগ। একইসঙ্গে ১০ বছর দণ্ডের বিরুদ্ধে হাজী সেলিমকে আপিলের অনুমতি দেওয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকীর নেতৃত্বে পাঁচ সদস্যের পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

বেঞ্চের অন্য চার বিচারপতি হলেন, বিচারপতি মো. নুরুজ্জামান, বিচারপতি ওবায়দুল হাসান, বিচারপতি বোরহানউদ্দিন ও বিচারপতি এম এনায়েতুর রহিম।

আদালতে আবেদনের পক্ষে ছিলেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী সাঈদ আহমেদ রাজা। দুদকের পক্ষে ছিলেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী খুরশীদ আলম খান।

হাজী সেলিমের আইনজীবী অ্যাডভোকেট এম সাঈদ আহমেদ রাজা সাংবাদিকদের বলেন, আপিল আবেদন নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত তার জামিন মঞ্জুর করে আদেশ দিয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ।

উল্লেখ্য, সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে জরুরি অবস্থার মধ্যে ২০০৭ সালের ২৪ অক্টোবর হাজী সেলিমের বিরুদ্ধে লালবাগ থানায় অবৈধভাবে সম্পদ অর্জনের অভিযোগে মামলা করে দুদক। এরপর দুদক মামলার চার্জশিট দাখিল করে।

চার্জশিটে বলা হয়, হাজী সেলিম জ্ঞাত আয়বহির্ভূতভাবে প্রায় ২৬ কোটি ৯২ লাখ ৮ হাজার টাকার সম্পদ অর্জন করেছেন। এছাড়া সম্পদ বিবরণীতে প্রায় ১০ কোটি ৪ লাখ টাকার সম্পদের তথ্য গোপনের অভিযোগ আনা হয়েছিল। হাজী সেলিম তার সম্পদ বিবরণীতে প্রায় ৫৯ কোটি ৩৭ লাখ টাকার হিসাব বিবরণী দাখিল করেছিলেন।

বিচারিক আদালত ২০০৮ সালের ২৭ এপ্রিল রায় দেন। রায়ে জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের দায়ে তাকে ১০ বছরের কারাদণ্ড এবং ১০ লাখ টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও ১ বছর কারাদণ্ড দেওয়া হয়। সম্পদের তথ্য গোপনের দায়ে তিন বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়। উভয় দণ্ড একসঙ্গে চলবে বলা হয়। অবৈধ সম্পদ অর্জনে হাজী সেলিমকে সহযোগিতা করার দায়ে তার স্ত্রী গুলশান আরাকে তিন বছরের কারাদণ্ড, এক লাখ টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও ছয় মাসের কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

২০০৯ সালের ২৫ অক্টোবর হাজী সেলিম ও তার স্ত্রী গুলশান আরা বেগম এ রায়ের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে আপিল করেন। ২০১১ সালের ২ জানুয়ারি হাইকোর্ট ১৩ বছরের সাজা বাতিল করে রায় দেন।

হাইকোর্টের এ রায়ের বিরুদ্ধে সর্বোচ্চ আদালতে আপিল করে দুদক। আপিলের শুনানি শেষে ২০১৫ সালের ১২ জানুয়ারি হাইকোর্টের রায় বাতিল হয়ে যায়। সেই সঙ্গে হাজী সেলিমের আপিল পুনরায় হাইকোর্টে শুনানির নির্দেশ দেন দেশের সর্বোচ্চ আদালত। সে নির্দেশনার আলোকে ২০২০ সালের ৯ নভেম্বর দুদক হাজী সেলিমের আপিল দ্রুত শুনানির জন্য আবেদন করে।

সেই আবেদনের শুনানি করে হাইকোর্ট ১১ নভেম্বর এ মামলার বিচারিক আদালতের নথি তলব করেন। নথি আসার পর গত ৩১ জানুয়ারি আপিলের শুনানি শুরুর পর গত বছর ৯ মার্চ রায় ঘোষণা করেন উচ্চ আদালত। সে রায়ের পূর্ণাঙ্গ অনুলিপি গত ১০ ফেব্রুয়ারি প্রকাশ করা হয়। হাইকোর্ট রায়ের অনুলিপি পাওয়ার ৩০ দিনের মধ্যে হাজী সেলিমকে বিচারিক আদালতে আত্মসমর্পণ করতে নির্দেশ দেওয়া হয়।

এদিকে, হাজী সেলিমের স্ত্রী গুলশান আরা বেগম মারা যাওয়ায় তার আপিলটি বাতিল ঘোষণা করা হয়। এ মামলায় জামিনে ছিলেন হাজী সেলিম।

২২ মে বিচারিক আদালতে আত্মসমর্পণ করেন হাজী সেলিম। আদালত জামিন নামঞ্জুর করে তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

দুর্নীতির মামলায় হাজী সেলিমের জামিন
                                  

আদালত প্রতিবেদক : দুর্নীতির মামলায় দণ্ডিত হাজী সেলিমকে জামিন দিয়েছেন আপিল বিভাগ। একইসঙ্গে ১০ বছর দণ্ডের বিরুদ্ধে হাজী সেলিমকে আপিলের অনুমতি দেওয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকীর নেতৃত্বে পাঁচ সদস্যের পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

বেঞ্চের অন্য চার বিচারপতি হলেন, বিচারপতি মো. নুরুজ্জামান, বিচারপতি ওবায়দুল হাসান, বিচারপতি বোরহানউদ্দিন ও বিচারপতি এম এনায়েতুর রহিম।

আদালতে আবেদনের পক্ষে ছিলেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী সাঈদ আহমেদ রাজা। দুদকের পক্ষে ছিলেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী খুরশীদ আলম খান।

হাজী সেলিমের আইনজীবী অ্যাডভোকেট এম সাঈদ আহমেদ রাজা সাংবাদিকদের বলেন, আপিল আবেদন নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত তার জামিন মঞ্জুর করে আদেশ দিয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ।

উল্লেখ্য, সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে জরুরি অবস্থার মধ্যে ২০০৭ সালের ২৪ অক্টোবর হাজী সেলিমের বিরুদ্ধে লালবাগ থানায় অবৈধভাবে সম্পদ অর্জনের অভিযোগে মামলা করে দুদক। এরপর দুদক মামলার চার্জশিট দাখিল করে।

চার্জশিটে বলা হয়, হাজী সেলিম জ্ঞাত আয়বহির্ভূতভাবে প্রায় ২৬ কোটি ৯২ লাখ ৮ হাজার টাকার সম্পদ অর্জন করেছেন। এছাড়া সম্পদ বিবরণীতে প্রায় ১০ কোটি ৪ লাখ টাকার সম্পদের তথ্য গোপনের অভিযোগ আনা হয়েছিল। হাজী সেলিম তার সম্পদ বিবরণীতে প্রায় ৫৯ কোটি ৩৭ লাখ টাকার হিসাব বিবরণী দাখিল করেছিলেন।

বিচারিক আদালত ২০০৮ সালের ২৭ এপ্রিল রায় দেন। রায়ে জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের দায়ে তাকে ১০ বছরের কারাদণ্ড এবং ১০ লাখ টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও ১ বছর কারাদণ্ড দেওয়া হয়। সম্পদের তথ্য গোপনের দায়ে তিন বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়। উভয় দণ্ড একসঙ্গে চলবে বলা হয়। অবৈধ সম্পদ অর্জনে হাজী সেলিমকে সহযোগিতা করার দায়ে তার স্ত্রী গুলশান আরাকে তিন বছরের কারাদণ্ড, এক লাখ টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও ছয় মাসের কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

২০০৯ সালের ২৫ অক্টোবর হাজী সেলিম ও তার স্ত্রী গুলশান আরা বেগম এ রায়ের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে আপিল করেন। ২০১১ সালের ২ জানুয়ারি হাইকোর্ট ১৩ বছরের সাজা বাতিল করে রায় দেন।

হাইকোর্টের এ রায়ের বিরুদ্ধে সর্বোচ্চ আদালতে আপিল করে দুদক। আপিলের শুনানি শেষে ২০১৫ সালের ১২ জানুয়ারি হাইকোর্টের রায় বাতিল হয়ে যায়। সেই সঙ্গে হাজী সেলিমের আপিল পুনরায় হাইকোর্টে শুনানির নির্দেশ দেন দেশের সর্বোচ্চ আদালত। সে নির্দেশনার আলোকে ২০২০ সালের ৯ নভেম্বর দুদক হাজী সেলিমের আপিল দ্রুত শুনানির জন্য আবেদন করে।

সেই আবেদনের শুনানি করে হাইকোর্ট ১১ নভেম্বর এ মামলার বিচারিক আদালতের নথি তলব করেন। নথি আসার পর গত ৩১ জানুয়ারি আপিলের শুনানি শুরুর পর গত বছর ৯ মার্চ রায় ঘোষণা করেন উচ্চ আদালত। সে রায়ের পূর্ণাঙ্গ অনুলিপি গত ১০ ফেব্রুয়ারি প্রকাশ করা হয়। হাইকোর্ট রায়ের অনুলিপি পাওয়ার ৩০ দিনের মধ্যে হাজী সেলিমকে বিচারিক আদালতে আত্মসমর্পণ করতে নির্দেশ দেওয়া হয়।

এদিকে, হাজী সেলিমের স্ত্রী গুলশান আরা বেগম মারা যাওয়ায় তার আপিলটি বাতিল ঘোষণা করা হয়। এ মামলায় জামিনে ছিলেন হাজী সেলিম।

২২ মে বিচারিক আদালতে আত্মসমর্পণ করেন হাজী সেলিম। আদালত জামিন নামঞ্জুর করে তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

মানবপাচার চক্রের মূল হোতাসহ গ্রেপ্তার ২
                                  

মো:আজমাইন মাহতাব

সৌদি আরবে মানবপাচার চক্রের মূল হোতা জাহাঙ্গীর হোসেনকে এক সহযোগীসহ গ্রেপ্তার করেছে র‍্যাব-৩। বৃহস্পতিবার (১ ডিসেম্বর) তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

শুক্রবার (২ ডিসেম্বর) র‍্যাব-৩ এর স্টাফ অফিসার (মিডিয়া) সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার ফারজানা হক এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

ফারজানা হক বলেন, গ্রেপ্তার জাহাঙ্গীর জনশক্তি রপ্তানির কোনো লাইসেন্স না থাকা নিয়ে সৌদি আরবে উচ্চ বেতন ও নানা সুবিধার কথা বলে অনেক মানুষের কাছ থেকে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়। পরে ভিকটিমদের সৌদি আরবে পাঠিয়ে সেখানে জিম্মি করে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করে আবার পরিবারের কাছ থেকে মুক্তিপণ আদায় করত। সুনির্দিষ্ট তথ্যের ভিত্তিতে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

জয়পুরহাটে হত্যা মামলায় ৩ জনের যাবজ্জীবন
                                  

রাকিবুল হাসান রাকিব,জয়পুরহাট:

জয়পুরহাটে গভীর নলকুপের ড্রেনম্যান ইউনুস আলী সরকার হত্যা মামলায় তিনজনের যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদন্ড দিয়েছেন আদালত। এছাড়া তাদের ৫০ হাজার টাকা করে জরিমানা অনাদায়ে আরও দুই বছরের কারাদন্ড দেওয়া হয়। সোমবার দুপুরে অতিরিক্ত দায়রা জজ নুরুল ইসলাম এ রায় দেন। আদালতের কৌঁসুলি নৃপেন্দ্রনাথ মন্ডল বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

দন্ডপ্রাপ্তরা হলেন, সদর উপজেলার রশিদার বম্বুর মৃত সিরাজ প্রধানের ছেলে মদন, বাচ্চা মিয়ার ছেলে সাদ্দাম হোসেন ও আব্দুল মোতালেবের ছেলে দেলোয়ার হোসেন।

মামলার বিবরণে জানা গেছে, জয়পুরহাট সদর উপজেলার রশিদার বম্বুর মৃত দুুদু মিয়ার ছেলে ইউনুস আলী গ্রামের একটি গভীর নলকূপের ড্রেনম্যান হিসেবে কাজ করতেন। ২০০৯ সালের ২৭ ফেব্রুয়ারি প্রতিদিনের মতো রাতের খাবার খেয়ে তিনি কাজে যান। সেই রাতে আসামীরা ইউনুসকে হত্যা করে পাশের একটি বাঁশ ঝাড়ের পানি সেচার ভাতির মধ্যে লাশ ফেলে পালিয়ে যায়। পরের দিন সকালে স্থানীয়রা তার লাশ দেখতে পেয়ে পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতালের মর্গে পাঠায়। এ ঘটনায় নিহতের ছোট ভাই আলম হোসেন সরকার ১ মার্চ বাদী হয়ে সদর থানায় একটি মামলা করেন। এ মামলার দীর্ঘ শুনানি শেষে আসামীদের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় আদালত আজ এ রায় দেন।

নর্থ সাউথের ট্রাস্টি এম এ কাশেমের জামিন বহাল
                                  

স্বাধীন বাংলা রিপোর্ট : ৩০৩ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রাস্টি বোর্ডের সাবেক সদস্য এম এ কাশেমকে হাইকোর্টের দেওয়া জামিন বহাল রেখেছেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ।

সোমবার বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকীর নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগের বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

আদালতে এম এ কাশেমের পক্ষে শুনানি করেন সাবেক অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল ও সিনিয়র আইনজীবী মুরাদ রেজা। আর দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) পক্ষে ছিলেন আইনজীবী মো. খুরশীদ আলম খান।

এর আগে ৪ আগস্ট এম এ কাশেম ও রেহেনা রহমানকে জামিন দেন হাইকোর্ট। জামিনের শর্তে বলা হয়, তারা আদালতের অনুমতি ছাড়া দেশের বাইরে যেতে পারবেন না ও অনুমতি ছাড়া বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে যেতে পারবেন না।

এরপর ১৩ নভেম্বর এম এ কাশেমের জামিন স্থগিত করে আদেশ দেন চেম্বারজজ আদালত। একই সঙ্গে শুনানির জন্য আপিল বিভাগে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। তবে রেহেনা রহমানের জামিন বহাল রাখেন। আপিল বিভাগের বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম এ আদেশ দিয়েছিলেন। সবশেষ আপিল বিভাগ এম এ কাশেমের জামিন বহাল রাখলেন।

এর আগে ২ আগস্ট অর্থ আত্মসাতের মামলায় এম এ কাশেম ও রেহেনা রহমানকে কেন জামিন দেওয়া হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছিলেন হাইকোর্ট। বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি খিজির হায়াতের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এ রুল জারি করেছিলেন।

নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের জমি কেনা বাবদ অতিরিক্ত ৩০৩ কোটি ৮২ লাখ টাকা ব্যয় দেখিয়ে তা আত্মসাতের অভিযোগে ১২ মে বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যানসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে মামলা করে দুদক। সংস্থাটির উপ-পরিচালক মো. ফরিদ আহমেদ পাটোয়ারী এ মামলা করেন।

আসামিরা হলেন- নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান আজিম উদ্দিন আহমেদ, বোর্ডের চার সদস্য এম এ কাশেম, বেনজীর আহমেদ, রেহানা রহমান ও মোহাম্মদ শাহজাহান এবং আশালয় হাউজিং অ্যান্ড ডেভেলপার্স লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আমিন মো. হিলালী।

পররাষ্ট্রমন্ত্রীর পদত্যাগ চেয়ে করা রিট খারিজ
                                  

স্বাধীন বাংলা অনলাইন : পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন কোন কর্তৃত্ববলে পদে আছেন তার বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে দায়ের হওয়া রিট খারিজ করে দিয়েছেন আদালত।

সোমবার বিচারপতি মো. মজিবুর রহমান মিয়া ও বিচারপতি কাজী মো. ইজারুল হক আকন্দের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন। আদালত বলেছেন, এ রিটের কোনো সারবত্তা (মেরিট) নেই।

আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট মোস্তাফিজুর রহমান আহাদ ও অ্যাডভোকেট এরশাদ হোসেন রাশেদ। রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিন, ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল অরবিন্দ কুমার রায়। সঙ্গে ছিলেন সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল মোহাম্মদ আব্বাস উদ্দিন ও সামসুন নাহার লাইজু।

এর আগে গতকাল পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেনের মন্ত্রী পদে থাকার বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে রিটের শুনানি শেষ হয়।

গত ৫ সেপ্টেম্বর পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেনের মন্ত্রী পদে থাকার বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে রিট দায়ের করা হয়। রিটকারীর অভিযোগ, আব্দুল মোমেন ‘বিতর্কিত’ বক্তব্য দিয়ে শপথ ভঙ্গ করেছেন এবং সংবিধান লঙ্ঘন করেছেন।

সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী এরশাদ হোসেন রাশেদের পক্ষে রিটটি দায়ের করেন অ্যাডভোকেট মোস্তাফিজুর রহমান আহাদ।

আইনজীবী এরশাদ হোসেন রাশেদ বলেছিলেন, নোটিশের জবাব না পেয়ে হাইকোর্টে রিট করেছি। রিটে মন্ত্রিপরিষদ সচিব, সংসদ সচিবালয়ের সচিব ও পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে বিবাদী করা হয়েছে।

গত ২১ আগস্ট একই অভিযোগে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেনকে লিগ্যাল নোটিশ পাঠান সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মো. এরশাদ হোসেন রাশেদ।

নোটিশে বলা হয়, শেখ হাসিনাকে ক্ষমতায় টিকিয়ে রাখতে আপনি ভারত সরকারকে যে অনুরোধ করেছেন, এটা আপনি করতে পারেন না। কারণ সংবিধানে বলা হয়েছে, জনগণই সব ক্ষমতার উৎস। আপনি সংবিধানবিরোধী বক্তব্য দিয়েছেন। আপনি মন্ত্রী পদে থাকার যোগ্যতা হারিয়েছেন।

দেশের সব আদালতে নিরাপত্তা বাড়ানোর নির্দেশ
                                  

স্বাধীন বাংলা রিপোর্ট : আদালত মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত দুই জঙ্গিকে ছিনতাই করে নিয়ে যাওয়ার ঘটনায় সারাদেশের আদালতে নিরাপত্তা বাড়ানোর নির্দেশ দিয়েছেন সুপ্রিম কোর্ট প্রশাসন।

রবিবার সুপ্রিম কোর্টের মুখপাত্র মোহাম্মদ সাইফুর রহমান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

জজ আদালত থেকে জঙ্গি ছিনতাইয়ের ঘটনা প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকীর নজরে এলে তিনি এই নির্দেশনা দেন।

এর আগে দুপুর ১২টার দিকে ঢাকার চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত প্রাঙ্গণ থেকে পুলিশের চোখে স্প্রে করে প্রকাশক দীপন হত্যা মামলার মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত দুই আসামিকে ছিনিয়ে নিয়ে যায় জঙ্গিরা।

ছিনিয়ে নেওয়া দুই আসামি হলেন- মইনুল হাসান শামীম ও আবু সিদ্দিক সোহেল। শামীমের বাড়ি সুনামগঞ্জের ছাতকের মাধবপুর গ্রামে। সোহেলের বাড়ি লালমনিরহাটের আদিতমারীর ভেটোশ্বর গ্রামে।

জানা গেছে, পলাতক দুইজন দীপন হত্যা মামলার মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি। রাজধানীর মোহাম্মাদপুর থানার সন্ত্রাসবিরোধী আইনের মামলায় আজকে হাজিরা ছিল ওই দুই আসামির। সন্ত্রাসবিরোধ ট্রাইব্যুনালে হাজির করে হাজত খানায় নেওয়ার সময় চারজনের মধ্যে দুইজনকে ছিনিয়ে নেয় জঙ্গিরা। ছিনিয়ে নিতে আসা বাকি চারজন দুটি মোটরসাইকেল করে আদালতে এসেছিলেন।

২০২১ সালের ১০ ফেব্রুয়ারি জাগৃতি প্রকাশনীর প্রকাশক ফয়সল আরেফিন দীপন হত্যা মামলায় ৮ আসামির মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত। দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিদের মধ্যে ইনুল হাসান শামীম ওরফে সামির ওরফে ইমরান ও আবু সিদ্দিক সোহেল ওরফে সাকিব ওরফে সাজিদ ওরফে শাহাব রয়েছেন।

তুরাগে ইয়াবাসহ কারবারি আটক
                                  

মোল্লা তানিয়া ইসলাম তমা:

রাজধানীর  তুরাগে  ১৬শ’ পিস ইয়াবা ট্যাবলেটসহ চিহ্নিত মাদক কারবারিকে আটক করেছে পুলিশ। শুক্রবার (১৮ই নভেম্বর) দিন গত রাত সাড়ে ৯টার দিকে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে কামারপাড়া সাহেব আলী মাদ্রাসার সামনে থেকে মোঃ রিপন চৌধুরী (৫০) নামে চিহ্নিত এই মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করে তুরাগ থানা পুলিশ। এসময় তার দেহ তল্লাশি করে ১৬শ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করা হয়।

আটককৃত মোঃ রিপন চৌধুরী কক্সবাজার জেলার পেকুয়া  থানার মগনামা এলাকার মৃত হাবিবুর রহমানের ছেলে। তার বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে পূর্বের একাধিক মামলা রয়েছে বলেও জানায় পুলিশ।

ঘটনার সত্যতা  নিশ্চিত করে তুরাগ থানার উপ-পরিদর্শক (এস আই) টিপু সুলতান জানান, আটককৃত ব্যক্তির বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

ফারদিন হত্যা : বান্ধবী বুশরা কারাগারে
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ফারদিন নূর পরশের মরদেহ উদ্ধারের ঘটনায় তার বান্ধবী আমাতুল্লাহ বুশরাকে রিমান্ড শেষে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

বুধবার পাঁচদিনের রিমান্ড শেষে বুশরাকে আদালতে হাজির করে পুলিশ। এরপর মামলার তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত তাকে কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ডিবি পুলিশের পরিদর্শক মজিবুর রহমান। অন্যদিকে আসামি পক্ষের আইনজীবী জামিনের আবেদন করেন।

উভয় পক্ষের শুনানি শেষে ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আতাউল্লাহ তার জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

‘হত্যা করে লাশ গুম’ করার অভিযোগে ফারদিন নূর পরশের বাবার করা মামলায় গত ১০ নভেম্বর সকালে রাজধানীর রামপুরা এলাকার একটি বাসা থেকে বুশরাকে গ্রেফতার করা হয়। ওইদিনই তাকে আদালতে হাজির করে মামলার সুষ্ঠু তদন্তের জন্য সাতদিনের রিমান্ড আবেদন করে রামপুরা থানা পুলিশ। শুনানি শেষে ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মেহেদী হাসান পাঁচদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

বুয়েট শিক্ষার্থী ফারদিন গত ৫ নভেম্বর থেকে নিখোঁজ ছিলেন। ওইদিনই রাজধানীর রামপুরা থানায় এ বিষয়ে সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন তার বাবা কাজী নূর উদ্দিন। নিখোঁজের দুদিন পর ৭ নভেম্বর সন্ধ্যা ৬টার দিকে নারায়ণগঞ্জের শীতলক্ষ্যা নদী থেকে ফারদিন নূর পরশের মরদেহ উদ্ধার করে নৌ-পুলিশ। ৮ নভেম্বর সন্ধ্যা পৌনে ৭টায় পরিবারের সদস্যদের উপস্থিতিতে ফারদিনের মরদেহ নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার দেউলপাড়া কেন্দ্রীয় কবরস্থানে দাফন করা হয়।

এ ঘটনায় বুশরাসহ অজ্ঞাতদের বিরুদ্ধে ‘হত্যা করে লাশ গুম’ করার অভিযোগে মামলা করা হয়। রামপুরা থানায় নিহত ফারদিনের বাবা নূর উদ্দিন রানা বাদী হয়ে এ মামলা করেন।

অর্থ আত্মসাতের মামলায় চীনা নাগরিকসহ ৬ জনের কারাদণ্ড
                                  

আদালত প্রতিবেদক : অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে দুদকের করা মামলার দ্য সিনফা নিটার্স লিমিটেডের চেয়ারম্যান চীনা নাগরিক ইয়াং ওয়াং চুংসহ ছয় জনকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

বুধবার ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৫-এর বিচারক ইকবাল হোসেন এ আদেশ দেন।

দণ্ডপ্রাপ্তদের মধ্যে দি সিনফা নিটার্স লিমিটেডের চেয়ারম্যান চীনা নাগরিক ইয়াং ওয়াং চুং ও পরিচালক খসরু আল রহমান ১৩ বছর, দি সিনফা নিটার্স লিমিটেডের পরিচালক মনসরুল হক ও মো. গোলাম মোস্তফার ১০ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

এছড়া ন্যাশনাল ব্যাংকের দিলকুশা শাখার তৎকালীন সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট (এক্সপোর্ট) আব্দুল ওয়াদুদ খান ও তৎকালীন এক্সিকিউটিভ ভাইস প্রেসিডেন্ট শাহাবুদ্দিন চৌধুরীকে ছয় বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়। এই দুই জন ছাড়া বাকিরা পলাতক রয়েছেন।

এর আগে ২৬ অক্টোবর ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৫ এর বিচারক ইকবাল হোসেনের আদালতে মামলার রায় ঘোষণার জন্য দিন ধার্য করেন। এদিন মামলার রায় ঘোষণার জন্য ধার্য ছিল। রায় প্রস্তুত না হওয়ায় ১৬ নভেম্বর নতুন দিন ধার্য করেন বিচারক।

মামলার অভিযোগে বলা হয়, আসামিরা পরস্পর যোগসাজশে প্রতারণা ও জালিয়াতির মাধ্যমে একটি দলিল তৈরি করে তা ব্যাংক হিসাবে বন্ধক রাখেন। দীর্ঘদিন ব্যাংকের কাছ থেকে ব্যাক টু ব্যাক এলসি খোলার নিশ্চয়তা নিয়ে ব্যবসা পরিচালনা করেন।

এরপর ব্যাংকের দায়দেনা বাবদ ২ কোটি ৫৯ লাখ ৪০ হাজার ১৪৮ টাকা পরিশোধ না করে আত্মগোপন করেন, যাতে ব্যাংক জাল-জালিয়াতির কাগজপত্র দিয়ে গ্রহণ করা বন্ধকি জমি বিক্রি করে তাদের টাকা উদ্ধার করতে না পারে বা তাদের কোনও হদিস করতে না পারে। এর ফলে প্রকৃত জমির মালিক হয়রানির শিকার হন।

এ ঘটনায় দুদকের উপ-পরিচালক জাহাঙ্গীর হোসেন ২০১৭ সালের ১৭ জানুয়ারি মতিঝিল থানায় মামলাটি করেন। একই কর্মকর্তা মামলাটি তদন্ত করে পাঁচ জনকে অভিযুক্ত করে ২০১৮ সালের ২৪ জুন অভিযোগপত্র দাখিল করেন আদালতে। ২০১৯ সালের ১৮ সেপ্টেম্বর আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন আদালত। বিচার চলাকালীন ১৩ জন সাক্ষীর মধ্যে বিভিন্ন সময়ে ১১ জন আদালতে সাক্ষ্য দেন।

প্রাথমিকের শিক্ষকদের ১০ম গ্রেড কেন নয় : হাইকোর্ট
                                  

আদালত প্রতিবেদক : সারাদেশের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকদের ১০ম গ্রেড কেন দেওয়া হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট।

সোমবার বিচারপতি মো. আশফাকুল ইসলামের নেতৃত্বাধীন হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিবসহ সংশ্লিষ্ট বিবাদীদের এ রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

আদালতে রিটের পক্ষে শুনানিতে ছিলেন ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন। অন্যদিকে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল কাজী মাইনুল হাসান।

এর আগে গত ১০ নভেম্বর জয়পুরহাটের প্রাথমিকের সহকারী শিক্ষক মো. মাহববুর রহমানসহ বিভিন্ন জেলার ১৫ জন শিক্ষক হাইকোর্টে রিটটি দায়ের করেন। ওই রিট আবেদনে রিটকারীরা তাদেরকে দশম গ্রেড দেওয়ার নির্দেশনা চান। পরে সে রিটের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে বিবাদীদের প্রতি রুল জারি করলেন হাইকোর্ট।

অর্থ আত্মসাৎ মামলায় পেটেলকো’র মাইনুল রিমান্ডে
                                  

নিজস্ব প্রতিবেদক:

পেটেলকো লিমিটেডের প্রায় ৯ কোটি টাকা আত্মসাতের মামলায় মাইনুল ইসলামকে রিমান্ড এনেছে মতিঝিল থানা পুলিশ। বৃহস্পতিবার রাজধানীর বাসাবো এলাকার বাসা থেকে পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে। শুক্রবার সিএমএম আদালতের বিচারকের নিকট ৭ দিনের রিমান্ড চাইলে  বিচারক একদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

মামলার অভিযোগে জানাগেছে,  ২০১৭ সালের ১২ জুলাই তাকে ২৫ হাজার টাকা বেতনে পেটেলকো লিমিটেডের এজিএম পদে কোম্পানিতে নিয়োগ দেয়া হয় মাইনুল ইসলামকে। নিয়োগের পর বিভিন্ন সময়ে কোম্পানির গ্রাহকদের প্রদেয় বিপুল পরিমাণ টাকা আত্মসাৎ করে আত্মগোপনে যান। এদিকে আসামি মাইনুল ইসলাম কোম্পানির বিরাট অংকের টাকা হাতিয়ে নিয়ে নারায়ণগঞ্জ জেলার ফতুল্লা এলাকার ভুইঘর পুরাতন বাজার এলাকায় বেস্ট পাওয়ার নামে নিজে আরেকটি কোম্পানি খুলে ব্যবসা শুরু করেন।

মামলার বাদি কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোঃ মাসুদ খান আসামি মাইনুল ইসলামের বিরুদ্ধে ৮ কোটি ৬২ লাখ ৮১ হাজার সাতশত ৯০ টাকা আত্মসাৎ করেন মর্মে কোম্পানির বোর্ড সভায় এ তথ্য নিশ্চিত হন।

কোম্পানি বোর্ডের সিদ্ধান্ত মোতাবেক তিনি ৭ নভেম্বর মতিঝিল থানায় প্রতারণা ও আত্মসাতের ঘটনায় একটি অভিযোগ দাখিল করেন। পুলিশ আসামির বিরুদ্ধে ৪০৮/৪২০ ধারায় একটি মামলা (১৪) দায়ের করেন। মামলাটি মতিঝিল থানার উপ-পুলিশ পরিদর্শক শফিকুল ইসলাম আকন্দ তদন্ত করছেন।

বনজ কুমারের মামলায় কারাগারে বাবুল আক্তার
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : পিবিআই প্রধান বনজ কুমার মজুমদারের করা ডিজিটাল নিরাপত্তা ও বিশেষ ক্ষমতা আইনের মামলায় পুলিশের সাবেক এসপি বাবুল আক্তারকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন আদালত। আজ শনিবার ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মামুনুর রশীদ তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

ধানমন্ডি থানার আদালতের সাধারণ নিবন্ধন কর্মকর্তা পুলিশের উপ-পরিদর্শক শরিফুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, শুক্রবার একদিনের রিমান্ড শেষে বাবুল আক্তারকে আদালতে হাজির করে কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা। আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে বিচারক তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

গত বৃহস্পতিবার আদালতে বাবুল আক্তারের উপস্থিতিতে পুলিশের করা সাতদিনের রিমান্ড আবেদনের ওপর শুনানি শুরু হলে আসামিপক্ষের আইনজীবী রিমান্ড বাতিল চেয়ে জামিন আবেদন করেন। এসময় উভয়পক্ষের শুনানি শেষে বিচারক জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে একদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

ওইদিন সকালে কেরানীগঞ্জ কারাগার থেকে বাবুল আক্তারকে ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করা হয়। পরে এ মামলায় তাকে গ্রেফতার দেখানোর আবেদন মঞ্জুর করেন ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আশেক ইমাম।

এর আগে মামলার সুষ্ঠু তদন্তসহ তিনটি কারণ দেখিয়ে গত বুধবার বাবুল আক্তারের সাতদিনের রিমান্ড চেয়ে আবেদন করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ধানমন্ডি থানার পরিদর্শক (অপারেশন) রবিউল ইসলাম। আদালত আসামির উপস্থিতিতে এ বিষয়ে শুনানির জন্য বৃহস্পতিবার দিন ধার্য করেন। ওইদিনই তাকে গ্রেফতার দেখানোর পর রিমান্ডে পাঠানোরও আদেশ দেন আদালত।

এর আগে গত ২৭ সেপ্টেম্বর সাংবাদিক ইলিয়াস হোসাইন ও পুলিশের সাবেক এসপি বাবুল আক্তারসহ চারজনের বিরুদ্ধে রাজধানীর ধানমন্ডি থানায় পিবিআই প্রধান বনজ কুমার মজুমদার বাদী হয়ে মামলা করেন। মামলায় অভিযোগ আনা হয়েছে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন ও বিশেষ ক্ষমতা আইনে। মামলার অন্য দুই আসামি হলেন- বাবুল আক্তারের ভাই মো. হাবিবুর রহমান লাবু (৪৫) ও বাবা মো. আব্দুল ওয়াদুদ মিয়া (৭২)। মামলাটি বর্তমানে তদন্তাধীন।

চারা বিতরণের টাকা কর্মকর্তার পকেটে
                                  

রবিউল ইসলাম লাভলু, রংপুর:

রংপুরের গঙ্গাচড়ায় বসতবাড়ির আঙ্গিনায় পারিবারিক পুষ্টি বাগান স্থাপন প্রকল্পের আওতায় প্রশিক্ষণ কর্মশালায় অংশ নেওয়া প্রশিক্ষণার্থীদের জন্য গাছের চারা বরাদ্দ থাকলেও তা বিতরণ করা হয়নি। বরাদ্দকৃত গাছের চারা বিতরণ না করে চারা কেনার অর্থে পকেট ভরেছেন উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শরিফুল ইসলাম। শুধু তাই নয়, প্রশিক্ষণার্থীদের মাঝে নিম্নমানের খাবার পরিবেশন করা হয়েছে বলেও অভিযোগ উঠেছে।

জানা গেছে, চলতি বছরের গত ২৬ ও ২৭ জুন গঙ্গাচড়া উপজেলা কৃষি কর্মকর্তার কার্যালয়ে ‘অনাবাদি পতিত জমি ও বসতবাড়ির আঙ্গিনায় পারিবারিক পুষ্টি বাগান স্থাপন’ প্রকল্পের আওতায় দুই দিনব্যাপী প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত হয়। এ প্রশিক্ষণে ৩০ জন অংশগ্রহণ করেন। প্রশিক্ষণে ৩০ জন অংশগ্রহণকারীর জন্য মোট বরাদ্দ ছিল ৮১ হাজার টাকা। এর মধ্যে অংশগ্রহণ প্রশিক্ষণার্থীদের প্রত্যেককে সম্মানি বাবদ ১ হাজার করে দেওয়া হয়।

এছাড়া গাছের চারা বাবদ বরাদ্দ ধরা হয় ১৫ হাজার টাকা। এই ১৫ হাজার টাকা থেকে প্রতিজনকে ৫০০ টাকার বারি আম, বারি মালটা, লিচু ও পেয়ারা গাছের চারা বিতরণের কথা থাকলেও তা করা হয়নি।

উপজেলার বড়বিল ইউনিয়নের মারুফা, নোহালী ইউনিয়নের ফারহানা, বেতগাড়ী ইউনিয়নের শিমু আক্তার এবং মর্নেয়া ইউনিয়নের আব্দুল লতিফসহ প্রশিক্ষণে অংশ নেওয়া অনেকেই জানান, দুই দিনব্যাপী প্রশিক্ষণে অংশ নিয়ে সম্মানি বাবদ শুধুমাত্র এক হাজার করে টাকা পেয়েছেন তারা। গাছের চারা দেওয়ার কথা থাকলেও তাদের কাউকে চারা দেওয়া হয়নি। দুই দিনের ওই প্রশিক্ষণে যে খাবার দেওয়া হয়েছিল তাও ছিল নিম্নমানের।

বরাদ্দকৃত গাছের চারা বিতরণ না করে পুরো টাকাই আত্মসাৎ করা হয়েছে বলে অভিযোগ তুলে ক্ষুব্ধ প্রশিক্ষণার্থীরা বলেন, সরকার যে লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য নিয়ে প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে চায়, তা এমন অসৎ কর্মকর্তাদের কারণে ভেস্তে যায়। যদি ওই দিন চারা গাছ দেওয়া হতো, এতদিনে সেগুলো কিছুটা হলেও বড় হতো।
 
এসব অভিযোগ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শরিফুল ইসলাম বলেন, প্রশিক্ষণের সময় চারা গাছ পাওয়া যায়নি বলে তখন দেওয়া হয়নি। যেহেতু এটি একটি প্রক্রিয়া, এ কারণে অংশগ্রহণকারীদের হতাশ হবার কিছু নেই। আমি তাদের বলে দিয়েছি সময় করে সবাইকে চারা গাছ দেওয়া হবে।

বুয়েটছাত্র ফারদিন হত্যা মামলায় বান্ধবী বুশরা গ্রেফতার
                                  

স্বাধীন বাংলা রিপোর্ট:

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষার্থী ফারদিন নূও পরশের মৃত্যুর ঘটনায় তার বন্ধবী বুশরাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার (১০ নভেম্বর) সকালে রাজধানীর রামপুরার নিজ বাসা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

ফারদিনের বাবা নূর উদ্দিন রানা বাদী হয়ে ছেলে হত্যার অভিযোগে ছেলের বান্ধবী বান্ধবী বুশরাসহ অজ্ঞাতপরিচয় বেশ কয়েকজনের নামে রামপুরা থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলার প্রেক্ষিতে পুলিশ বুশরাকে গ্রেফতার করেছে। বুধবার রাতে তিনি এ মামলাটি করেন।

ডিএমপির মতিঝিল বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) হায়াতুল ইসলাম খান জানান, বুয়েট শিক্ষার্থী ফারদিন নূর পরশের মরদেহ উদ্ধারের ঘটনায় তার বান্ধবী বুশরাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাকে এ বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।

এর আগে, ৪ নভেম্বর রাতে রাজধানীর রামপুরা এলাকায় বান্ধবী বুশরাকে বাসায় যাওয়ার জন্য এগিয়ে দেন ফারদিন। এরপর থেকেই নিখোঁজ হন ফারদিন। ৭ নভেম্বর সন্ধ্যায় নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জের শীতলক্ষ্যা নদী থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

সংশ্লিষ্টরা জানান, গত চার বছর ধরে ওই তরুণীর সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক রয়েছে ফারদিনের। ফারদিন বুয়েটের সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ছিলেন। আর তার বান্ধবী ছিলেন একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের শিক্ষার্থী। ৪ নভেম্বর ঘোরাফেরার পর রাত সোয়া ১০টায় বাসায় ফিরে যান বলে পুলিশকে জানান ওই তরুণী।

চাটখিলে ড্রিংকিং ওয়াটারের ৪ প্রতিষ্ঠানকে অর্থদণ্ড ও সিলগালা
                                  

চাটখিল (নোয়াখালী) প্রতিনিধি:

নোয়াখালী  চাটখিল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মুহাম্মদ ইমরানুল হক ভূঁইয়া মোবাইল কোর্ট পরিচালনার মাধ্যমে বিএসটিআই লাইসেন্স গ্রহণ না করে মান-নিয়ন্ত্রণ বিহীন পানি সরবরাহের অপরাধে ড্রিংকিং ওয়াটারের সরবরাহকারী ৪ টি প্রতিষ্ঠানের অর্থদণ্ড ও সিলগালা করেন। বুধবার (০৯ নভেম্বর) অভিযান চালিয়ে এসব প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেয়া হয়।

ভ্রাম্যমান আদালত সূত্রে জানা যায়, দূষিত পানি সরবরাহ করার অভিযোগে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করা হয়। চাটখিলে পিএস ড্রিংকিং ওয়াটারের লাইসেন্স না থাকায় তাদেরকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করে প্রতিষ্ঠানটি সিলগালা করে দেওয়া হয়। প্রবাহ ড্রিংকিং ওয়াটারের কাউকে খুঁজে না পাওয়ায় প্রতিষ্ঠানটিকে সিলগালা করা হয়। খিলপাড়ায় ফাতেমা ড্রিংকিং ওয়াটারকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা ও সিলাগালা করা হয়। জমজম ড্রিংকিং ওয়াটার অভিযানের খবর পেয়ে পালিয়ে যাওয়ায় তাদের পানি সরবরাহের সব লাইন বিচ্ছিন্ন করে প্রতিষ্ঠানটি বন্ধ করে দেওয়া হয়।

পিএস ড্রিংকিং ওয়াটারের মালিক মানিক দেবনাথ অভিযোগ করে বলেন, লাইসেন্স করতে বিএসটিআইতে মোটা অংকের টাকা খরচ হয়। এই কারণে চাটখিলে ৪টি প্রতিষ্ঠানের কেউ লাইসেন্স করতে পারছে না।

উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা মুহাম্মদ ইমরানুল হক ভুঁইয়া বলেন, ‘বিশুদ্ধ পানির অপর নাম জীবন। অস্বাস্থ্যকর ও ক্ষতিকারক পানি সকলেরই জন্য বিপদজনক। বিশুদ্ধ পনি সরবরাহে আগ্রহী প্রতিষ্ঠানগুলোকে বিএসটিআই এর অনুমোদনের জন্য আমরা প্রয়োজনীয় সহযোগিতা করবো।’

ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনায় সহযোগিতা করেন, বিএসটিআই এর ফিল্ড অফিসার মো: শাহিদুল ইসলাম, স্যানেটারি ইন্সপেক্টর মো: নুরুল ইসলাম ও চাটখিল থানা পুলিশ।

নোয়াখালীতে শিক্ষার্থীকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে দপ্তরি গ্রেফতার
                                  

নোয়াখালী প্রতিনিধি:

নোয়াখালীর সোনাইমুড়ীতে শিশু শ্রেণির এক শিক্ষার্থীকে(৬) ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ বিদ্যালয়ের দপ্তরিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গ্রেফতারকৃত তাহের হোসেন রাজু (২৫) উপজেলার দেওটি ইউনিয়নের ঘাসেরখিল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দপ্তরি এবং একই গ্রামের মো. নুরুল হুদার ছেলে।  

বুধবার (৯ নভেম্বর) সকালে অভিযুক্ত দপ্তরিকে স্থানীয়রা আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে। এর আগে, গত রোববার ৩ নভেম্বর দুপুর ১২টার দিকে এ  ঘটনা ঘটে।।  

স্থানীয়রা সূত্রে জানা যায়, গত রোববার দুপুরের দিকে ওই শিক্ষার্থীকে যৌন হয়রানি করে অভিযুক্ত রাজু। পরে বিষয়টি প্রথমে স্থানীয় ভাবে মীমাংসা করার চেষ্টা করা হয়। একপর্যায়ে স্থানীয় এলাকাবাসী তাকে পুলিশে সোপর্দ করে।

সোনাইমুড়ী উপজেলা প্রাথমিক কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, ঘটনাটি জানাজানি হলে ঘটনাস্থলে লোক পাঠানো হয়। তারা তদন্ত করে প্রতিবেদন দিলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সোনাইমুড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হারুন অর রশীদ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন, এ ঘটনায় ভুক্তভোগী শিশুর মা বাদী হয়ে বুধবার সকালে নারীও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেন। ওই মামলায় আসামিকে একই দিন দুপুরে নোয়াখালী চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে সোপর্দ করা হয়। পরে আদালত তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেয়।  


   Page 1 of 162
     আইন - অপরাধ
দুর্নীতির মামলায় হাজী সেলিমের জামিন
.............................................................................................
মানবপাচার চক্রের মূল হোতাসহ গ্রেপ্তার ২
.............................................................................................
জয়পুরহাটে হত্যা মামলায় ৩ জনের যাবজ্জীবন
.............................................................................................
নর্থ সাউথের ট্রাস্টি এম এ কাশেমের জামিন বহাল
.............................................................................................
পররাষ্ট্রমন্ত্রীর পদত্যাগ চেয়ে করা রিট খারিজ
.............................................................................................
দেশের সব আদালতে নিরাপত্তা বাড়ানোর নির্দেশ
.............................................................................................
তুরাগে ইয়াবাসহ কারবারি আটক
.............................................................................................
ফারদিন হত্যা : বান্ধবী বুশরা কারাগারে
.............................................................................................
অর্থ আত্মসাতের মামলায় চীনা নাগরিকসহ ৬ জনের কারাদণ্ড
.............................................................................................
প্রাথমিকের শিক্ষকদের ১০ম গ্রেড কেন নয় : হাইকোর্ট
.............................................................................................
অর্থ আত্মসাৎ মামলায় পেটেলকো’র মাইনুল রিমান্ডে
.............................................................................................
বনজ কুমারের মামলায় কারাগারে বাবুল আক্তার
.............................................................................................
চারা বিতরণের টাকা কর্মকর্তার পকেটে
.............................................................................................
বুয়েটছাত্র ফারদিন হত্যা মামলায় বান্ধবী বুশরা গ্রেফতার
.............................................................................................
চাটখিলে ড্রিংকিং ওয়াটারের ৪ প্রতিষ্ঠানকে অর্থদণ্ড ও সিলগালা
.............................................................................................
নোয়াখালীতে শিক্ষার্থীকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে দপ্তরি গ্রেফতার
.............................................................................................
আশুলিয়ায় ভুয়া জজ গ্রেফতার
.............................................................................................
জড়িতদের বিরুদ্ধে কী ব্যবস্থা জানতে চান হাইকোর্ট
.............................................................................................
ইমো হ্যাকার চক্রের মূল হোতাসহ ৬ জন জন গ্রেফতার
.............................................................................................
ধর্ষণ মামলার প্রতিশোধ নিতে ইউপি সদস্যকে খুন
.............................................................................................
নগদের মোবাইল ব্যাংকিং কার্যক্রম কেন অবৈধ নয় : হাইকোর্ট
.............................................................................................
খালাস চেয়ে ডিআইজি প্রিজন বজলুর রশিদের আপিল
.............................................................................................
বিশ্বজিৎ হত্যা : ১০ বছর পর যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামি গ্রেপ্তার
.............................................................................................
প্রধানমন্ত্রীকে কটূক্তি : রাজবাড়ী মহিলা দল নেত্রী স্মৃতির জামিন
.............................................................................................
মিছিল-সমাবেশ নিষিদ্ধে পুলিশের ক্ষমতা কেন সংবিধান পরিপন্থি নয় : হাইকোর্ট
.............................................................................................
র‌্যাবের জালে ধরা পড়ল হত্যা মামলার পলাতক আসামী
.............................................................................................
সমাবেশ-মিছিল নিষিদ্ধ ঘোষণার বিধান চ্যালেঞ্জ করে রিট
.............................................................................................
সাবেক ডিআইজি প্রিজন বজলুরের ৫ বছর কারাদণ্ড
.............................................................................................
সমবায় সমিতির নামে কোটি টাকা আত্মসাৎ, চক্রের মূলহোতা গ্রেফতার
.............................................................................................
মুনিয়া হত্যা মামলা : বসুন্ধরা এমডিসহ ৮ জনকে অব্যাহতির সুপারিশ
.............................................................................................
১০ ট্রাক অস্ত্র মামলা : ডেথ রেফারেন্স ও আপিল শুনানি ৩ জানুয়ারি
.............................................................................................
বিশ্বজিৎ হত্যা : ১০ বছর পর যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামি গ্রেফতার
.............................................................................................
ফেনীতে ছেলের হাতে বাবা খুন, গ্রেফতার ২
.............................................................................................
কখনো ম্যাজিস্ট্রেট কখনো এসপি, অবশেষে খুলনায় গ্রেফতার
.............................................................................................
সারাদেশে নিরুদ্দেশ ৫৫ তরুণ, ৩৮ জনের তালিকা দিল র‌্যাব
.............................................................................................
শুভ্র হত্যা : ৭ জনের মৃত্যুদণ্ড, যাবজ্জীবন ৩
.............................................................................................
আশুলিয়ায় ধর্ষণের অভিযোগে আটক ২
.............................................................................................
বগুড়ায় ১৮ টন সার আত্মসাৎ: মূলহোতাসহ গ্রেফতার ৫
.............................................................................................
‘জঙ্গি সম্পৃক্ততায়’ বাড়িছাড়া চারজনসহ গ্রেফতার ৭
.............................................................................................
৮ বছরের শিশুকে ধর্ষণ চেষ্টা মামলার আসামী গ্রেপ্তার
.............................................................................................
চৌগাছায় মাদক ব্যবসার নিরাপদ বাহন শিক্ষার্থীরা
.............................................................................................
পাবনায় বন্ধুকে হত্যার দায়ে তিন বন্ধুকে যাবজ্জীবন
.............................................................................................
দুদকের মামলায় হুদার বিরুদ্ধে পেছালো সাক্ষ্যগ্রহণ
.............................................................................................
আশুলিয়ায় সংঘবদ্ধ ধর্ষণের ঘটনায় গ্রেপ্তার ৫
.............................................................................................
সাতক্ষীরা পাসপোর্ট অফিসের সাজাহান কবির ও দালালদের দৌরাত্মে অতিষ্ট মানুষ
.............................................................................................
বিআরটিএ’র সহকারী পরিচালকের সাড়ে ৪ কোটি টাকার অবৈধ সম্পদ!
.............................................................................................
মসজিদের ইমাম আর গৃহবধূ আপত্তিকর অবস্থায় আটক!
.............................................................................................
জি কে শামীম ও তার সাত দেহরক্ষীসহ ৮ জনের যাবজ্জীবন
.............................................................................................
হোশি কুনিও হত্যা : ৪ জঙ্গির মৃত্যুদণ্ড বহাল
.............................................................................................
চেয়ারম্যান সেলিম খানের জামিন স্থগিত, আত্মসমর্পণের নির্দেশ
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

সম্পাদক ও প্রকাশক : মোহাম্মদ আখলাকুল আম্বিয়া
নির্বাহী সম্পাদক: মাে: মাহবুবুল আম্বিয়া
যুগ্ম সম্পাদক: প্রদ্যুৎ কুমার তালুকদার

সম্পাদকীয় ও বাণিজ্যিক কার্যালয়: স্বাধীনতা ভবন (৩য় তলা), ৮৮ মতিঝিল বাণিজ্যিক এলাকা, ঢাকা-১০০০। Editorial & Commercial Office: Swadhinota Bhaban (2nd Floor), 88 Motijheel, Dhaka-1000.
সম্পাদক কর্তৃক রঙতুলি প্রিন্টার্স ১৯৩/ডি, মমতাজ ম্যানশন, ফকিরাপুল কালভার্ট রোড, মতিঝিল, ঢাকা-১০০০ থেকে মুদ্রিত ও প্রকাশিত ।
ফোন : ০২-৯৫৫২২৯১ মোবাইল: ০১৬৭০৬৬১৩৭৭

Phone: 02-9552291 Mobile: +8801670 661377
ই-মেইল : dailyswadhinbangla@gmail.com , editor@dailyswadhinbangla.com, news@dailyswadhinbangla.com

 

    2015 @ All Right Reserved By dailyswadhinbangla.com

Developed By: Dynamic Solution IT