বৃহস্পতিবার, ৮ ডিসেম্বর 2022 বাংলার জন্য ক্লিক করুন
  
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   অর্থ-বাণিজ্য -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
অগ্রণী ব্যাংকের উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক পারভীন আকতারের যোগদান

স্বাধীন বাংলা ডেস্ক: সম্প্রতি পদোন্নতিপ্রাপ্ত হয়ে অগ্রণী ব্যাংক লিমিটেডের উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসেবে  যোগদান করেছেন পারভীন আকতার। পদোন্নতির পূর্বে তিনি হাউজ বিল্ডিং ফ্যাইন্যান্স কর্পোরেশন এ মহাব্যবস্থাপক হিসেবে সুনাম ও দক্ষতার সাথে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি হাউজ বিল্ডিং ফাইন্যান্স কর্পোরেশন এর প্রধান কার্যালয়ে  হিসাব ও অর্থ, আইসিটি এবং আইন বিভাগে মহাব্যবস্থাপক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি কৃষি ব্যাংকেও প্রধান কার্যালয়ের কেন্দ্রীয় হিসাব বিভাগ, আইসিসি, আইসিটি এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং ডিভিশন এবং ফরিদপুর ও কুমিল্লা বিভাগে মহাব্যবস্থাপক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। এছাড়াও হাউজ বিল্ডিং ফাইন্যান্স কর্পোরেশনের রিজিওনাল ম্যানেজার হিসেবে কুমিল্লা, জোনাল ম্যানেজার হিসেবে ময়মনসিংহ এবং জোন-৪(মিরপুর) এ দায়িত্বে ছিলেন। তিনি দেশে-বিদেশে অনুষ্ঠিত বিভিন্ন  প্রশিক্ষণ ও কর্মশালায় অংশগ্রহন করেন।


উল্লেখ্য, তিনি অফিস ব্যবস্থাপনা শীর্ষক প্রশিক্ষণে অংশগ্রহন করে  হাউজ বিল্ডিং ফাইন্যান্স কর্পোরেশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক কর্তৃক প্রশংসাপত্র অর্জন করেন। পারভীন ১৯৯৬ সালে  হাউজ বিল্ডিং ফ্যাইন্যান্স কর্পোরেশন এর নিয়োগ পরীক্ষায় সারা বাংলাদেশে প্রথম হয়ে সিনিয়র অফিসার হিসেবে যোগদান করেন। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় হতে অর্থনীতিতে  স্নাতক(সম্মান) ও ১৯৯৩ সালে স্নাতকোত্তর  ডিগ্রী অর্জন করেন।

উচ্চমাধ্যমিকে মেধাতালিকায় পঞ্চম স্থান অধিকার করা বাবা মো. হাফিজ উদ্দীন এবং মা মালেকা বেগমের সন্তান পারভীন আকতার জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জ উপজেলাধীন রামপুরা গ্রামে জন্মগ্রহন করেন। তার একমাত্র কন্যা আদৃতা রহমান খেয়া সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজের ডেন্টাল সার্জারী বিভাগে অধ্যয়নরত।

অগ্রণী ব্যাংকের উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক পারভীন আকতারের যোগদান
                                  

স্বাধীন বাংলা ডেস্ক: সম্প্রতি পদোন্নতিপ্রাপ্ত হয়ে অগ্রণী ব্যাংক লিমিটেডের উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসেবে  যোগদান করেছেন পারভীন আকতার। পদোন্নতির পূর্বে তিনি হাউজ বিল্ডিং ফ্যাইন্যান্স কর্পোরেশন এ মহাব্যবস্থাপক হিসেবে সুনাম ও দক্ষতার সাথে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি হাউজ বিল্ডিং ফাইন্যান্স কর্পোরেশন এর প্রধান কার্যালয়ে  হিসাব ও অর্থ, আইসিটি এবং আইন বিভাগে মহাব্যবস্থাপক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি কৃষি ব্যাংকেও প্রধান কার্যালয়ের কেন্দ্রীয় হিসাব বিভাগ, আইসিসি, আইসিটি এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং ডিভিশন এবং ফরিদপুর ও কুমিল্লা বিভাগে মহাব্যবস্থাপক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। এছাড়াও হাউজ বিল্ডিং ফাইন্যান্স কর্পোরেশনের রিজিওনাল ম্যানেজার হিসেবে কুমিল্লা, জোনাল ম্যানেজার হিসেবে ময়মনসিংহ এবং জোন-৪(মিরপুর) এ দায়িত্বে ছিলেন। তিনি দেশে-বিদেশে অনুষ্ঠিত বিভিন্ন  প্রশিক্ষণ ও কর্মশালায় অংশগ্রহন করেন।


উল্লেখ্য, তিনি অফিস ব্যবস্থাপনা শীর্ষক প্রশিক্ষণে অংশগ্রহন করে  হাউজ বিল্ডিং ফাইন্যান্স কর্পোরেশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক কর্তৃক প্রশংসাপত্র অর্জন করেন। পারভীন ১৯৯৬ সালে  হাউজ বিল্ডিং ফ্যাইন্যান্স কর্পোরেশন এর নিয়োগ পরীক্ষায় সারা বাংলাদেশে প্রথম হয়ে সিনিয়র অফিসার হিসেবে যোগদান করেন। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় হতে অর্থনীতিতে  স্নাতক(সম্মান) ও ১৯৯৩ সালে স্নাতকোত্তর  ডিগ্রী অর্জন করেন।

উচ্চমাধ্যমিকে মেধাতালিকায় পঞ্চম স্থান অধিকার করা বাবা মো. হাফিজ উদ্দীন এবং মা মালেকা বেগমের সন্তান পারভীন আকতার জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জ উপজেলাধীন রামপুরা গ্রামে জন্মগ্রহন করেন। তার একমাত্র কন্যা আদৃতা রহমান খেয়া সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজের ডেন্টাল সার্জারী বিভাগে অধ্যয়নরত।

অগ্রণী ব্যাংকের উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক পারভীন আকতারের যোগদান
                                  

স্বাধীন বাংলা ডেস্ক:

সম্প্রতি পদোন্নতিপ্রাপ্ত হয়ে অগ্রণী ব্যাংক লিমিটেডের উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসেবে  যোগদান করেছেন পারভীন আকতার। পদোন্নতির পূর্বে তিনি হাউজ বিল্ডিং ফ্যাইন্যান্স কর্পোরেশন এ মহাব্যবস্থাপক হিসেবে সুনাম ও দক্ষতার সাথে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি হাউজ বিল্ডিং ফাইন্যান্স কর্পোরেশন এর প্রধান কার্যালয়ে  হিসাব ও অর্থ, আইসিটি এবং আইন বিভাগে মহাব্যবস্থাপক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি কৃষি ব্যাংকেও প্রধান কার্যালয়ের কেন্দ্রীয় হিসাব বিভাগ, আইসিসি, আইসিটি এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং ডিভিশন এবং ফরিদপুর ও কুমিল্লা বিভাগে মহাব্যবস্থাপক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

এছাড়াও হাউজ বিল্ডিং ফাইন্যান্স কর্পোরেশনের রিজিওনাল ম্যানেজার হিসেবে কুমিল্লা, জোনাল ম্যানেজার হিসেবে ময়মনসিংহ এবং জোন-৪(মিরপুর) এ দায়িত্বে ছিলেন। তিনি দেশে-বিদেশে অনুষ্ঠিত বিভিন্ন  প্রশিক্ষণ ও কর্মশালায় অংশগ্রহন করেন।

উল্লেখ্য, তিনি অফিস ব্যবস্থাপনা শীর্ষক প্রশিক্ষণে অংশগ্রহন করে  হাউজ বিল্ডিং ফাইন্যান্স কর্পোরেশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক কর্তৃক প্রশংসাপত্র অর্জন করেন।
 
মিজ পারভীন ১৯৯৬ সালে  হাউজ বিল্ডিং ফ্যাইন্যান্স কর্পোরেশন এর নিয়োগ পরীক্ষায় সারা বাংলাদেশে প্রথম হয়ে সিনিয়র অফিসার হিসেবে যোগদান করেন। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় হতে অর্থনীতিতে  স্নাতক(সম্মান) ও ১৯৯৩ সালে স্নাতকোত্তর  ডিগ্রী অর্জন করেন।

উচ্চমাধ্যমিকে মেধাতালিকায় পঞ্চম স্থান অধিকার করা বাবা মো. হাফিজ উদ্দীন এবং মা মালেকা বেগমের সন্তান পারভীন আকতার জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জ উপজেলাধীন রামপুরা গ্রামে জন্মগ্রহন করেন। তার একমাত্র কন্যা আদৃতা রহমান খেয়া সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজের ডেন্টাল সার্জারী বিভাগে অধ্যয়নরত।

অসচ্ছল ও মেধাবী শিক্ষার্থীদের মাঝে শাহ্জালাল ইসলামী ব্যাংকের বৃত্তি প্রদান
                                  

স্বাধীন বাংলা ডেস্ক:

দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের ৫শ’ অসচ্ছল ও মেধাবী ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে বৃত্তি প্রদান করেছে শাহ্জালাল ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড। শনিবার ব্যাংকের করপোরেট প্রধান কার্যালয়ে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে আনুষ্ঠানিকভাবে এ বৃত্তির চেক প্রদান করা হয়। একশ’ জন বৃত্তিপ্রাপ্ত ছাত্র-ছাত্রী স্বশরীরে অনুষ্ঠানে উপস্থিত থেকে বৃত্তির অর্থগ্রহণ করেন। অবশিষ্ট ৪শ’ ছাত্র-ছাত্রীর বৃত্তির অর্থ নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে তাদের স্ব-স্ব ব্যাংক অ্যাকাউন্টে প্রদান করা হবে।

বৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ব্যাংকের পরিচালক পর্ষদের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ইউনুছ এবং অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন শাহ্জালাল ইসলামী ব্যাংকের পরিচালক ও ব্যাংক ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান ড. আনোয়ার হোসেন খান, এমপি।

বৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত অতিথি হিসেবে শাহ্জালাল ইসলামী ব্যাংকের পরিচালক এবং নির্বাহী কমিটির চেয়ারম্যান আলহাজ্জ আক্কাচ উদ্দিন মোল্লা এবং ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও জনাব মোসলেহ উদ্দীন আহমেদ বক্তব্য রাখেন।

ফরিদপুরে আড়ংয়ের ২৬তম আউটলেট উদ্বোধন
                                  

ফরিদপুর জেলা প্রতিনিধি:

 ফরিদপুরে উদ্বোধন হয়ে গেলো দেশের বৃহত্তম লাইফস্টাইল আড়ংয়ের ২৬তম আউটলেট। শনিবার সকাল সাড়ে দশটায় প্রতিষ্ঠানের উদ্বোধন করা হয়। অত্যাধুনিক নির্মাণশৈলীর ১২৫০০ বর্গফুটের দুই তলা বিশিষ্ট আউটলেটে পোশাক, বাড়ির সাজসজ্জা, গহনাসহ আড়ং এর সাব ব্র্যান্ড ভাগা, তাগা ম্যান এবং আর্থ এর পণ্যগুলো পাওয়া যাবে।

আড়ংয়ের চিফ অপারেটিং অফিসার, মোহাম্মদ আশরাফুল আলম আউটলেটটির উদ্বোধন করেন। এসময় আড়ং ও ব্র্যাকের অন্যান্য কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

গ্রাহকরা আড়ং ফরিদপুর আউটলেটে সীমিত সময়ের জন্য ৫ হাজার টাকা বা তার বেশি কেনাকাটা করে ‘মাই আড়ং রিওয়ার্ডস কার্ড’ এর সদস্য হতে পারবেন এবং সারা বছরব্যাপী বিশেষ সুযোগ সুবিধা উপভোগ করতে পারবেন।

বৈশ্বিক সঙ্কটের মধ্যেও রপ্তানি আয়ে সাফল্য
                                  

স্বাধীন বাংলা রিপোর্ট:
করোনা মহামারির পর রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে চরম বৈশ্বিক সঙ্কট সৃষ্টি হয়েছে। বিশ্বজুড়ে মন্দাভাব দেখা দিয়েছে। এর মধ্যেও বাংলাদেশ রপ্তানি আয় লক্ষ্য ছুঁয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১ ডিসেম্বর) রাতে রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) প্রকাশিত তথ্যে দেখা যায়, চলতি ২০২২-২৩ অর্থবছরের জুলাই-নভেম্বর পাঁচ মাসে রপ্তানি আয় এসেছে ২১ দশমিক ৯৪৬ বিলিয়ন ডলার। যা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ১৭৬ মিলিয়ন ডলার বেশি।

করোনা মহামারির পর বৈশ্বিক অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধার কার্যক্রম শুরু হলে দেশের রপ্তানি আয় বৃদ্ধি পাওয়া শুরু হয়। রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ শুরুর কয়েক মাস পরও রপ্তানি আয় অব্যাহতভাবে বাড়তে থাকে।

কিন্তু চলতি বছরে এসে ঝুঁকি তৈরি হয়। রপ্তানির কার্যাদেশ কমে যায়, রপ্তানিও কিছুটা শ্লথ হয়ে আসে। ধারণা করা হচ্ছিল ইউরোপ-আমেরিকার মূল্যস্ফীতির কারণে ক্রয়ক্ষমতা কমবে। এর ধাক্কা লাগবে তৈরি পোশাকসহ রপ্তানি পণ্যের চাহিদায়। রপ্তানির কার্যাদেশে তার লক্ষণও কিছুটা ফুটে উঠে।

কিন্তু নভেম্বরে রপ্তানি আয়ের চিত্রে সে আশঙ্কা দূর হয়। রপ্তানি আয়ে সুবাতাস ফিরেছে।

ইপিবি’র দেওয়া তথ্যে দেখা যায়, জুলাই-নভেম্বর পাঁচ মাসে পোশাক রপ্তানি থেকে আয় হয়েছে ১৮ দশমিক ৩৩১ বিলিয়ন ডলার। এটি পাঁচ মাসের কৌশলগত লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ৭৬৫ মিলিয়ন ডলার বেশি। পাঁচ মাসে কৌশলগত লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১৭ দশমিক ৫৬৬ বিলিয়ন ডলার।

একইসঙ্গে গত বছরের তুলনায় এ বছর তৈরি পোশাক রপ্তানি আয় বেশি হয়েছে। গত বছরে একই সময়ে তৈরি পোশাক রপ্তানি করে আয় এসেছিল ১৫ দশমিক ৮৫৬ বিলিয়ন ডলার।

আয়কর রিটার্ন দাখিলের সময় বাড়ল
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : আয়কর রিটার্ন দেওয়ার সময় এক মাস বাড়ানো হয়েছে। নতুন সময় অনুযায়ী আয়কর দেওয়া যাবে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত।ব্যবসায়ী ও করদাতাদের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে এ সময় বৃদ্ধি করা হয়েছে।

বুধবার এনবিআরের সম্মেলন কক্ষে এনবিআর চেয়ারম্যান আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিম সময় বাড়ানোর এ ঘোষণা দিয়েছেন। আগের ঘোষণা অনুযায়ী রিটার্ন দাখিলের শেষ দিন ছিল আজ ৩০ নভেম্বর।

এনবিআর চেয়ারম্যান বলেন, বিভিন্ন ব্যবসায়ী সংগঠনের দাবি ও করদাতাদের কষ্টের কথা বিবেচনা করে রিটার্ন দাখিলের সময় বৃদ্ধি করা হয়েছে। আশা করছি করদাতারা সহজেই রিটার্ন দাখিল করতে পারবেন।

‘যথাযথ কর প্রদানের মাধ্যমে করদাতাদের রাষ্ট্রের উন্নয়নে অংশগ্রহণ নিশ্চিতকরণ’ শীর্ষক সেমিনারে প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশের মহাহিসাব নিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রক মোহম্মদ মুসলিম চৌধুরী।

করোনা মহামারি বিবেচনায় এ বছর আয়কর মেলা না হলেও এনবিআরের আওতাধীন সারা দেশে ৩১টি কর অঞ্চলে মেলার মতো সেবা দেওয়া হচ্ছে। প্রতিটি কর অঞ্চলে জোনভিত্তিক বুথ, ই-টিআইএন ও তথ্যসেবা বুথ রাখা হয়েছে।

দেশে বর্তমানে ৮২ লাখের বেশি কর শনাক্তকারী নম্বরধারী (টিআইএন) করদাতা রয়েছেন। তবে এখন পর্যন্ত ২২ লাখের মতো রিটার্ন দাখিল করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

আইএমএফ থেকে ৪৫০ কোটি ডলার ঋণ পাচ্ছে বাংলাদেশ : অর্থমন্ত্রী
                                  

নিজস্ব প্রতিবেদক : আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ) বাংলাদেশের প্রত্যাশা অনুযায়ী ঋণ দিচ্ছে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। তিনি বলেছেন, আইএমএফ থেকে ৪৫০ কোটি মার্কিন ডলার ঋণ পেতে যাচ্ছে বাংলাদেশ।

সচিবালয়ে আজ বুধবার সফররত আইএমএফের প্রতিনিধিদলের সঙ্গে বৈঠকের পর সংবাদিকদের এ কথা জানান অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন গভর্নর আব্দুর রউফ তালুকদার ও অর্থসচিব ফাতেমা ইয়াসমিন।

অর্থমন্ত্রী বলেন, আমরা যেভাবে চেয়েছিলাম, সেভাবে আইএমএফের ঋণ পেতে যাচ্ছি। অনেকের অনুমান ছিল, আমরা আইএমএফের ঋণ পাব না কিংবা তারা কঠিন শর্ত দেবে। তেমন কিছুই হয়নি। তবে তারা শর্ত দিয়েছে। রাজস্ব আয় বৃদ্ধির জন্য আইএমএফের কিছু পরামর্শ আছে। আমরাও সেভাবে কাজ করছি।

অর্থমন্ত্রী জানান, আইএমএফ তিন মাসের মধ্যে এই ঋণের আনুষ্ঠানিকতা চূড়ান্ত করবে। সাত কিস্তিতে এই ঋণ দেবে তারা। প্রথম কিস্তির ঋণ মিলবে আগামী ফেব্রুয়ারিতে। আর সর্বশেষ কিস্তির ঋণ পাওয়া যাবে ২০২৬ সালের ডিসেম্বরে। আইএমএফের ঋণের সুদহার হবে বাজারদর অনুযায়ী। তাতে গড় সুদহার হবে ২ দশমিক ২ শতাংশ।

অক্টোবরেও রেমিট্যান্ট প্রবাহ নিম্নগামী, কমল ৭.৯%
                                  

স্বাধীন বাংলা ডেস্ক:

গত অক্টোবর মাসেও প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্ট প্রবাহে নিম্নমুখি ধারা লক্ষ্য করা গেছে। এমনি গত ৮ মাসের মধ্যে সর্বনিম্ন রেমিট্যান্ট এসেছে অক্টোবর মাসে। অক্টোবরে প্রায় ৭.৯ শতাংশ কমে ১.৫২ বিলিয়ন ডলার হয়েছে। আগের অর্থবছরের একই সময় যা ছিল ১.৬৪ বিলিয়ন ডলার। গতকাল মঙ্গলবার বাংলাদেশ ব্যাংক প্রকাশিত হালনাগাদ প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে।

তথ্য অনুযায়ী, অক্টোবর মাসে রেমিট্যান্স এসেছে ১৫২ কোটি ৫৪ লাখ ডলার। বাংলাদেশি মুদ্রায় (প্রতি ডলার ১০৪ টাকা হিসাবে) এর পরিমাণ ১৫ হাজার ৮৬৪ কোটি টাকা। গত আট মাসের মধ্যে এটিই (অক্টোবরের রেমিট্যান্স) প্রবাসীদের পাঠানো এক মাসে সর্বনিম্ন রেমিট্যান্স।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, চলতি ২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রথম দুই মাসে (জুলাই ও আগস্ট) প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্স এসেছিল গড়ে ২০০ কোটি ডলার করে। এর পরের মাস সেপ্টেম্বরে তা কমে ১৫৩ কোটি ৯৫ লাখ বা ১.৫৪ বিলিয়ন ডলারে নেমেছে। সদ্যোবিদায়ি অক্টোবর মাসে রেমিট্যান্সের এ ধারা আরো নিম্নগামী।

চলতি অর্থবছরের অক্টোবরে রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন পাঁচ বাণিজ্যিক ব্যাংকের মাধ্যমে রেমিট্যান্স এসেছে ৩০ কোটি ৭২ লাখ ডলার। আর বেসরকারি ব্যাংকের মাধ্যমে রেমিট্যান্স এসেছে ১১৮ কোটি ৬০ লাখ ডলার। বিদেশি ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে এসেছে ৭১ লাখ ডলার এবং বিশেষায়িত একটি ব্যাংকের মাধ্যমে এসেছে দুই কোটি ৫০ মার্কিন ডলার।

পঞ্চগড়ে তিন ব্যাংকের গণশুনানি
                                  

পঞ্চগড় প্রতিনিধি:

পঞ্চগড়ে রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক, কর্মসংস্থান ব্যাংক ও বাংলাদেশ হাউজ বিল্ডিং ফাইনান্স কর্পোরেশনের অংশীজনদের নিয়ে গণশুনানি অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার দুপুরে পঞ্চগড় জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে এই গণশুনানি অনুষ্ঠিত হয়। গণশুনানিতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সরকারের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সচিব শেখ মোহাম্মদ সলীম উল্লাহ। শুরুতেই এই তিন প্রতিষ্ঠানের চলমান কার্যক্রম সম্পর্কে তথ্য চিত্র উপস্থাপন করা হয়। পরে ওই প্রতিষ্ঠানগুলোর সুযোগ সুবিধা ও সমস্যার কথা তুলে ধরেন ঋণ গ্রহিতা ও উদ্যোক্তারা। প্রশ্নের আলোকে সমস্যা সমাধানে প্রয়োজনী ব্যবস্থা গ্রহণের আশ^াস দেন তিন প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিরা।

গণশুনানিতে সচিব শেখ মোহাম্মদ সলীম উল্লাহ আগামী দিনের সংকট মোকাবেলায় উদ্যোক্তাদের হয়রানিমুক্তভাবে ঋণ সুবিধা দেয়ার পাশাপাশি সেবার মান আরও বাড়ানোর জন্য ব্যাংকের কর্মীদের প্রতি আহ্বান জানান। একই সাথে সরকারের বিশেষ ঋণের তথ্য গোপন না করে তা গণমাধ্যমকর্মীদের কাছে প্রকাশ করার নির্দেশও দেন তিনি। পরে তিনি ৪ শতাংশ সুদ হার রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক ও কর্মসংস্থান ব্যাংকের আওতায় উদ্যোক্তাদের হাতে প্রায় দুই কোটি টাকার ঋণের চেক তুলে দেন।

গণশুনানিতে অন্যদের মধ্যে জেলা প্রশাসক মো. জহুরুল ইসলাম, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক আজাদ জাহান, বিএইচবিএফসি’র পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান ড. মো. সেলিম উদ্দিন, রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক জাহিদুল হক, কর্মসংস্থান ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শিরীন আখতার ও বিএইচবিএফসি’র ব্যবস্থাপনা পরিচালক আব্দুল মান্নানসহ প্রতিষ্ঠান তিনটির উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

দেশে বর্তমানে মূল্যস্ফীতির হার ১১ শতাংশের বেশি: সবুজ আন্দোলন
                                  

ডেস্ক রিপোর্ট:
বর্তমান সময়ে বাংলাদেশের সাধারণ জনগণের প্রধান সমস্যা দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতি। যার ফলে আয়ের পরিমাণ না বাড়লেও বেড়েছে ব্যয়ের পরিমাণ। তার উপর বিদ্যুতের ঘাটতি চরম আকার ধারণ করেছে।  দেখা দিয়েছে মূল্যস্ফীতি। মূল্যস্ফীতি বলতে যেমন ধরুন গত মাসে একটি পণ্যের দাম ছিল ১০০ টাকা কিন্তু চলতি মাসে সেই পণ্যটি কিনেছেন ১৩০ টাকায়। বাড়তি ৩০ টাকা মূল্যস্ফীতি ইংরেজিতে যাকে বলে ইনফ্লেশন।

বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর তথ্যের ভিত্তিতে পরিকল্পনা মন্ত্রণালয় প্রতিমাসের মূল্যস্ফীতি জনসম্মুক্ষে প্রকাশ করে থাকেন। চলতি বছরে মে মাসে ৭ দশমিক ৪২ শতাংশ, জুন মাসে ৭দশমিক ৫৬ শতাংশ, জুলাই মাসে ৭ দশমিক ৪৮ শতাংশ। যা গত ১৯ জুলাই প্রকাশ করা হয়। কিন্তু অক্টোবর মাস শেষ হয়ে গেলেও গত দুই মাসের তালিকা প্রকাশ করা হয়নি। সবুজ আন্দোলন তথ্য ও গবেষণা পরিষদ একটি পরিসংখ্যান চালিয়ে গত দুই মাসে ১০০ জন সাধারণ জনগণের এবং দোকানিদের সাথে কথা বলে ডাটা তৈরীর মাধ্যমে একটি ধারণা পাওয়ার চেষ্টা করেছে। সেখানে দেখা গেছে দেশে চলতি মাসে ১১ শতাংশের বেশি মূল্যস্ফীতি বেড়েছে।

আজ ২৯ অক্টোবর সকালে দারুস-সালাম আর্কেডের ৭ম তলায় পরিবেশবাদী সংগঠন সবুজ আন্দোলনের উদ্যোগে মূল্যস্ফীতি বৃদ্ধি- বিদ্যুতের ঘাটতি, নবায়নযোগ্য জ্বালানীর ব্যবহার নিশ্চিত করতে করণীয় শীর্ষক আলোচনা সভার আয়োজন করে। সবুজ আন্দোলনের প্রতিষ্ঠাতা ও পরিচালন পরিষদের চেয়ারম্যান বাপ্পি সরদার এর সভাপতিত্বে বিশেষজ্ঞ আলাচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিআইআইএসএস এর গবেষণা পরিচালক অর্থনীতিবিদ ড. মাহফুজ কবীর, পরিবেশ বিজ্ঞানী বিএআরডির পরিচালক ড. ইঞ্জিনিয়ার আব্দুল হামিদ, সেন্টার ফর গ্লোবাল এনভাইরণমেন্ট এন্ড ডেভেলপমেন্ট এর নির্বাহী আব্দুল ওহাব, আমন্ত্রিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কৃষিভিত্তিক গবেষণা সংস্থা প্রত্যাশার বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল মামুন, এসএমই ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি আলি জামান।
আন্তর্জাতিক বাজারে পন্যের অস্থিতিশীলতা অন্যতম প্রধান কারণ। আমরা আপনাদেরকে আন্তর্জাতিক বাজারে মূল্যস্ফীতির একটি চিত্র তুলে ধরছি। বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রে ৮ শতাংশ, চীনে ৩ শতাংশ,ইংল্যান্ডে ৬ শতাংশ, ইউরোপের ১৯ টি রাষ্ট্রে ৫.৫০ শতাংশ, জার্মানিতে প্রায় ৫ শতাংশ, জাপানে ২ শতাংশের কাছাকাছি, পাকিস্তানের ১৫ শতাংশের বেশি, পার্শ্ববর্তী রাষ্ট্র ভারতে প্রায় ৬ শতাংশ। ইউক্রেন রাশিয়া যুদ্ধের ফলে তেল উৎপাদনকারী সকল রাষ্ট্র অধিক মুনাফার জন্য চাহিদার থেকে কম তেল উৎপাদন করছে যাতে করে আগামীতে অধিক মুনাফা করতে পারে।

মূল্যস্ফীতি বৃদ্ধির অন্যতম প্রধান কারণসমূহ চাহিদা অনুযায়ী উৎপাদন কম, সরবরাহ ব্যবস্থায় সিন্ডিকেট প্রথা, পরিবহন সংকট (সড়ক, নৌ ও আকাশ পথে), শ্রমিক ঘাটতি, জ্বালানি তেলের মূল্য বৃদ্ধি, চীনের খাদ্যবাজারে অস্থিতিশীলতা, উন্নত রাষ্ট্রগুলোর আগ্রাসি মনোভাব।
বাংলাদেশে জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধি পেয়েছে ৪২ থেকে ৫১ শতাংশ, ডিজেল লিটারে ২৯ টাকা, অকটেন  ৪৬ টাকা, পেট্রোল ৪৪ টাকা। পেঁয়াজ ৩৫ থেকে ৫০ টাকা, ডিম ১১০ থেকে ১৫০ টাকা, সকল মাছের উপর ৩০ টাকার অধিক, চাউল ৬০ টাকা থেকে ৭০ টাকা। এক্ষেত্রে সকল পণ্যের উপরে বিগত দুই মাসে দাম বৃদ্ধি পেয়েছে প্রায় শতকরা ২০  ভাগের বেশি।

বিদ্যুৎ ঘাটতির ক্ষেত্রে সরকার বিভিন্ন কারণ তুলে ধরলেও বিশেষজ্ঞরা মনে করেন কুইক রেন্টাল পদ্ধতি ব্যবহারের কারণে আজকের এই দুরবস্থা। সরকার নির্বাচনী ওয়াদা অনুযায়ী ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ পৌঁছানোর জন্য কুইক রেন্টাল পদ্ধতি ব্যবহার করেছে কিন্তু পুরাতন বিদ্যুৎ কেন্দ্র সচল রাখা, নতুন নতুন গ্যাস ক্ষেত্রের সন্ধান না করা, নতুন বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ যেমন রামপাল, রূপপুর ও পায়রা বন্দরের পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র উৎপাদনে সময় ক্ষেপণ করার ফলে বিদ্যুতের এই ঘাটতি তৈরি হয়েছে। বর্তমানে সারা বাংলাদেশ ৩৫ হাজার ৫০০ মেগাওয়াট বিদ্যুতের চাহিদা থাকলেও সরকার ২৫ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনে রেকর্ড সৃষ্টি করলেও বর্তমানে তা কমে এসে দাঁড়িয়েছে ১৫ হাজার মেগাওয়াটে। ঢাকা শহরে বিদ্যুৎ সরবরাহের জন্য ঢাকা পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি ও ঢাকা ইলেকট্রিক সাপ্লাই কোম্পানি দায়িত্ব পালন করছে। যদিও সরকার বলেছিল বিদ্যুৎ সরবরাহের জন্য একটি সিডিউল তৈরি করে সারাদেশে বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হবে কিন্তু এই পদ্ধতি সম্পূর্ণ বিকল হয়ে পড়েছে। গ্যাসের অভাবে কিছু প্লান্ট বন্ধ রয়েছে গ্রিড বিপর্যয়ের ফলে যা চালু করা সম্ভব হয়নি। যদিও আমরা কয়লা ভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রে পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর যার ফলশ্রুতিতে বিদ্যুতের এই ঘাটতি মোকাবেলার জন্য দ্রুত নবায়নযোগ্য জ্বালানীর ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে। এর জন্য দরকার প্রায় ৫০ হাজার কোটি টাকা। কিন্তু সরকারের বিভিন্ন প্রকল্পে দুর্নীতি ও অনিয়মের কারণে রিজার্ভের অবস্থা খুবই করুন। বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় ও টেলিভিশনে ইতোমধ্যে আমরা দেখতে পেয়েছি সরকারের সোলার প্যানেল উৎপাদন ও বরাদ্দে সীমাহীন দুর্নীতি ও অনিয়মের চিত্র। নবায়নযোগ্য জ্বালানি উৎপাদনের জন্য খোলা মাঠে সোলার সিস্টেম তৈরি, ঢেউ থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদন, বর্জ্য থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদন করা সম্ভব।

সবুজ আন্দোলনের পক্ষ থেকে বেশ কিছু প্রস্তাবনা তুলে ধরা হয়- মূল্যস্ফীতি রোধে পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে মনিটরিং ব্যবস্থা জোরদার করতে ‘স্বাধীন কমিশন’ গঠন করা পাশাপাশি দীর্ঘস্থায়ী কার্যক্রম পরিচালনার জন্য নীতিমালা প্রণয়ন, আমানত ও ঋণ  সরবরাহের ক্ষেত্রে সুদের হার মূল্যস্ফীতি দিয়ে ঠিক করা এবং মুদ্রা বাজার স্থিতিশীল রাখতে মনিটরিং ব্যবস্থা জোরদার,  কুইক রেন্টাল পদ্ধতি থেকে বের হয়ে এসে বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণ জোরদার করা এবং নবায়নযোগ্য জ্বালানীর ব্যবহার নিশ্চিতে জরুরি পদক্ষেপ গ্রহণ, নির্মাণাধীন বিদ্যুৎ কেন্দ্র গুলো দ্রুত উৎপাদনে নিতে কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণ এবং প্রকল্প ব্যয় কমিয়ে সকল দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া, সমুদ্রে গ্যাস অনুসন্ধানের জন্য দ্রুত পদক্ষেপ গ্রহণ এবং স্থলে গ্যাস উৎপাদন বৃদ্ধি, মজুত, নতুন গ্যাসক্ষেত্র আবিষ্কারের জন্য অর্থ বরাদ্দ করে গবেষণা জোরদার করা, সরকার ও সাধারণ জনগণকে তেল-গ্যাস বিদ্যুৎ ব্যবহারে সাশ্রয়ী হতে হবে এবং বাজারো অস্থিতিশীল করার জন্য সিন্ডিকেট মুক্ত বাজার পদ্ধতি গড়ে তোলা,  সারা দেশের জন্য বিদ্যুৎ সরবরাহে কারচুপি মনিটরিং এ ডিজিটাল মনিটরিং সিস্টেম চালু করতে সিসি ক্যামেরার ব্যবস্থা করতে হবে এবং ক্রয়ের ক্ষেত্রে সকল প্রকার দুর্নীতি বন্ধ করতে হবে।

এসময় বক্তারা বলেন, বাজারের সিন্ডিকেট কে মোকাবেলা করার জন্য সরকারকে উদ্যোগ নিতে হবে পাশাপাশি নবায়নযোগ্য জ্বালানীর ব্যবহার বাড়াতে চলমান প্রকল্প বাস্তবায়ন এবং কারিগরী সহযোগিতার জন্য উন্নত রাষ্ট্রের সহযোগিতা নিতে হবে। ক্ষতিগ্রস্থ রাষ্ট্র হিসেবে দায়ী রাষ্ট্রগুলো বাংলাদেশকে আন্তর্জাতিক জলবায়ু তহবিল দিতে সরকারি তৎপরতা চালিয়ে যেতে হবে।

অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন সবুজ আন্দোলনের পরিচালক অভিনেতা উদয় খান। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী পরিষদের অর্থ সম্পাদক আলমগীর হোসেন পলাশ, কেন্দ্রীয় সদস্য জামিল আহমেদ, ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সহ-সভাপতি সেলিনা চৌধুরী, ছাত্র পরিষদের সহ-সভাপতি এম আলম রাইন প্রমুখ।

ইউরোপের বাজারে বাংলাদেশি পোশাকের দাপট
                                  

নিজস্ব প্রতিবেদক : ইউরোপের বাজারে বাংলাদেশে তৈরি পোশাকের রপ্তানি বেড়েছে। চলতি ২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে (জুলাই-সেপ্টেম্বর) সেখানে পোশাক রপ্তানি প্রায় পাঁচ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে পৌঁছেছে। তবে রপ্তানি কমেছে রাশিয়া, চীন, সংযুক্ত আরব-আমিরাত ও দক্ষিণ আফ্রিকায়।

রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) সর্বশেষ পরিসংখ্যান থেকে জানা গেছে, চলতি অর্থবছরের প্রথম তিন মাসে (জুলাই-সেপ্টেম্বর) ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত (ইইউ) দেশগুলোতে বাংলাদেশ ৪৯৪ কোটি ডলারের তৈরি পোশাক পণ্য রপ্তানি করেছে। যা আগের অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় ১২ দশমিক ৪৩ শতাংশ বেশি।

ইপিবির তথ্য বলছে, জার্মানিতে পোশাক রপ্তানি ১ দশমিক ৩৪ শতাংশ বেড়ে ১৫২ কোটি ডলারে দাঁড়িয়েছে। স্পেনের বাজারে ২১ দশমিক ৩৫ শতাংশ ও ফ্রান্সের বাজারে রপ্তানি বেড়েছে ৩৬ দশমিক ৭২ শতাংশ। তবে ইইউর অন্যতম সম্ভাবনাময় বাজার পোল্যান্ডে রপ্তানি জুলাই-সেপ্টেম্বর সময়ে ২৪ দশমিক ৪৯ শতাংশ হ্রাস পেয়েছে।

অর্থবছরের প্রথম তিনমাসে আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় যুক্তরাষ্ট্রে পোশাক রপ্তানি ৫ দশমিক ১৩ শতাংশ বেড়েছে। এতে রপ্তানির পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ২ দশমিক শূন্য ১ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে। একই সময়ে যুক্তরাজ্য এবং কানাডায় রপ্তানি যথাক্রমে ১৫ দশমিক ১১ শতাংশ এবং ১৭ দমশিক ৪০ শতাংশ বেড়েছে। এতে যুক্তরাজ্যে রপ্তানির পরিমাণ দাঁড়িয়েছে এক দশমিক ১৯ বিলিয়ন ডলার ও কানাডায় ৩৩৪ দশমিমক ৬৫ মিলিয়ন ডলার।

জুলাই-সেপ্টেম্বর তিনমাসে অপ্রচলিত বাজারে দেশের পোশাক রপ্তানি ২৫ দশমিক ৪৭ শতাংশ বেড়ে হয়েছে এক দশমিক ৭৬ বিলিয়ন ডলার। যা আগের বছরের একই সময় ছিল এক দশমিক ৪৩ বিলিয়ন ডলার। এর মধ্যে জাপানে রপ্তানি ১৬ দশমিক ৬০ শতাংশ বেড়ে ৩২০ দশমিক ৪০ মিলিয়ন ডলারে পৌঁছেছে। প্রতিবেশী দেশ ভারতেও পোশাক রপ্তানি বেড়েছে। তিনমাসে দেশটিতে পোশাক রপ্তানি বেড়েছে ৬৬ দশমিক ২০ শতাংশ, যার পরিমাণ ৩০৬ দশমিক ৩৯ মিলিয়ন ডলার।

অন্যদিকে জুলাই থেকে সেপ্টেম্বর সময়ের মধ্যে রাশিয়ায় পোশাক রপ্তানি কমেছে ৪৭ দশমিক ৩০ শতাংশ। এছাড়া চীন, সংযুক্ত আরব-আমিরাত ও দক্ষিণ আফ্রিকায় রপ্তানি কমেছে যথাক্রমে ৩ দশমিক ৬৯ শতাংশ, শূন্য দশমিক ১৩ শতাংশ, ৮ দশমিক ৭১ শতাংশ।

তৈরি পোশাক মালিক ও রপ্তানিকারক সমিতির (বিজিএমইএ) পরিচালক মহিউদ্দিন রুবেল বলেন, বিশ্বব্যাপী অর্থনৈতিক অস্থিরতা ও খুচরা বাজারে প্রভাবের কারণে যুক্তরাষ্ট্র, জার্মানিসহ প্রধান বাজারগুলোতে রপ্তানি তুলনামূলক কম হয়েছে। তবে অপ্রচলিত বাজারের মধ্যে জাপানে রপ্তানি বেড়েছে। ভারতে আমাদের রপ্তানি উল্লেখযোগ্য হারে বাড়ছে।

এদিকে করোনার প্রভাব থেকে ঘুরে দাঁড়ানোর ১৩ মাস পর গত সেপ্টেম্বর বিশ্ববাজারে বাংলাদেশের পোশাক রপ্তানিতে ভাটা পড়েছে। ইপিবির তথ্য অনুযায়ী, চলতি বছরের সেপ্টেম্বরে দেশের পণ্য বিশ্ববাজারে রপ্তানির বিপরীতে আয় হয়েছে ৩৯০ কোটি ডলার। এর আগের বছর অর্থাৎ ২০২১ সালের সেপ্টেম্বরে রপ্তানি আয় হয়েছিল ৪১৬ কোটি ৫৪ লাখ ৫ ডলার। সেই হিসাবে আগের বছরের চেয়ে আয় ৬ দশমিক ২৫ শতাংশ কমেছে।

ইপিবির সেক্টরওয়াইজ ডাটা পর্যালোচনায় দেখা গেছে, সেপ্টেম্বর মাসে ৩১৬ কোটি ১৬ লাখ ৭ হাজার ডলারের তৈরি পোশাক রপ্তানি হয়েছে। এর আগের বছর অর্থাৎ ২০২১ সালের সেপ্টেম্বর মাসে ৩৪১ কোটি ৮৮ লাখ ৪ হাজার ডলার আয় হয়েছিল। অর্থাৎ গত বছরের সেপ্টেম্বরের তুলনায় ৭ দশমিক ৫২ শতাংশ কমেছে।

শিবালয়ে ‘জব ফেয়ার’ এ চাকুরি পেল ৪২ জন বেকার
                                  

মোহাম্মদ ইউনুস আলী, মানিকগঞ্জ:
মানিকগঞ্জ জেলা প্রশাসন আয়োজিত বেকারত্ব দূরীকরণের লক্ষ্যে ‘জব ফেয়ার’ হতে চাকুরী পেলেন ৪২ জন বেকার। শনিবার শিবালয় উপজেলা চত্ত্বর টেপড়ায় ‘জব ফেয়ার’ অনুষ্ঠিত হয়। ঢাকা বিভাগীয় কমিশনার মো. খলিলুর রহমান প্রধান অতিথি হিসেবে ‘জব ফেয়ার’ উদ্বোধন করেন।

মানিকগঞ্জ পুলিশ সুপার মোহাম্মদ গোলাম আজাদ খান, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) শুক্লা সরকার, শিবালয় উপজলা চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা রেজাউর রহমান খান জানু, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. জাহিদুর রহমান বিশেষ অতিথি ছিলেন। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন মানিকগঞ্জ জেলা প্রশাসক মুহাম্মদ আব্দুল লতিফ।
 
জানা গেছে, মানিকগঞ্জ যোগদানের পর জেলা প্রশাসক মুহাম্মদ আব্দুল লতিফ মানিকগঞ্জ জেলার বেকার যুব-যুবাদের কর্মসংস্থানের লক্ষ্যে নানা কর্মসূচী হাতে নেন। জেলা-উপজেলা পর্যায়ে আলোচনা-পর্যালোচনা শেষে ইউনিয়ন পর্যায়ে বেকারদের নামের তালিকা গ্রহণ ও বাছাই করে শনিবার এ কর্মমেলা আয়োজন করা হয়।
 
শিবালয় উপজেলায় ১ হাজার ৭৮৭ জন বেকার যুব-যুবার কর্মসংস্থানের লক্ষ্যে বিভিন্ন কোম্পানী ও সংস্থার সাথে আলোচনার জন্য মেলার আয়োজন করা হয়েছে। তথ্য আদান-প্রদানের জন্য মেলায় ২৩টি স্টল স্থাপন করা হয়েছে। স্থানীয় ও জাতীয় পর্যায়ের ১২টি শিল্প প্রতিষ্ঠানসহ বিভিন্ন কোম্পানী ও সংস্থা এ মেলায় অংশ নিয়ে উপযুক্ত প্রার্থীদের নিয়োগ, বাছাই ও অপেক্ষমান তালিকা প্রস্তুত করা হয়।
    
জেলা প্রশাসক মুহাম্মদ আব্দুল লতিফ বলেন, জব ফেয়ার করে আমরা অত্যন্ত আনন্দিত। এ  মধ্যে ৪২ জনের চাকুরী হয়েছে এতে আমরা অত্যন্ত আনন্দিত। এ মাসে শিবালয় উপজেলা থেকে আরও ৬শ’ জনের চাকুরির সম্ভাবনা রয়েছে।   

অস্থির চিনির বাজার, বেড়েছে পেঁয়াজের দাম
                                  

নিজস্ব প্রতিবেদক : কোভিড-১৯ মহামারী-পরবর্তী সময়ে বিশ্বজুড়ে ভোজ্যতেল, গমসহ বিভিন্ন খাদ্যপণ্যের সংকট দেখা দেয়। ফলাফল হিসেবে বেড়ে যায় দাম। এর প্রভাব পড়ে আমদানিনির্ভর দেশগুলোতে। চলতি বছরের শুরুতে পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হতে শুরু করেছিল। কিন্তু ফেব্রুয়ারি থেকে রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ পরিস্থিতিকে আরো নাজুক করে তুলেছে। লাগামহীনভাবে বাড়ছে সব নিত্যাপণ্যের দাম। জীবনযাত্রার ব্যয় নিয়ন্ত্রণে হিমশিম খাচ্ছে সাধারণ মানুষ।

শুক্রবার রাজধানীর একাধিক বাজার ঘুরে দেখা যায়, সরকারের ঘোষণা ছাড়াই পুনরায় বেড়েছে চিনির দাম। পাশাপাশি সপ্তাহের ব্যবধানে বাজারে বেড়েছে পেঁয়াজ ও মুরগির দাম। মাছের বাজারও অস্থির হয়ে উঠেছে। এছাড়া অন্য সব পণ্যের দাম বাজারে অপরিবর্তিত আছে।

রাজধানীর কাপ্তান বাজার, নারিন্দা কাঁচা বাজার ও রায়সাহেব বাজার, বাড্ডা, মিরপুরের ১১ নম্বরের খুচরা ও পাইকারি দোকান ঘুরে দেখা যায়- প্রতি কেজি চিনি বিক্রি হচ্ছে ৯০ থেকে ৯৫ টাকায়। গত সপ্তাহে খুচরা বাজারে প্রতিকেজি চিনির দাম ছিল ৮৪ থেকে ৮৮ টাকা।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, আগে ৫০ কেজির চিনির বস্তা কিনতেন ৪২০০ থেকে সর্বোচ্চ ৪৩০০ টাকায়। দুইদিন আগে চিনি কিনতে হয়েছে ৪৫০০ টাকায়। তবে প্যাকেট জাত চিনির দাম গত এক সপ্তাহে বাড়েনি। সেগুলো প্যাকেটের গায়ে লেখা দামেই (৯৫ টাকা) বিক্রি হচ্ছে।

চিনির দামের বিষয়ে কথা হয় কাপ্তান বাজারের পাইকারি ব্যবসায়ী শুক্কুর দেওয়ানের সঙ্গে। তিনি বলেন, কয়েকদিন আগেও ৭০ থেকে ৭৫ টাকা দরে চিনি পাইকারি বিক্রি করতাম। দুই দিনে দাম বেড়ে যাওয়া এখন মানভেদে ৮৫ টাকা পর্যন্ত বিক্রি করতে হচ্ছে।

তিনি বলেন, মিলে চিনির দাম তেমন না বাড়লেও ট্রাক লোড করা ও পরিবহন খরচ অনেক বেড়ে গেছে। এছাড়া, ডিপো ও ডিলাররা সিন্ডিকেট করে দামবৃদ্ধি করছে। ফলে আমাদের বেশি দামে চিনি কিনতে হচ্ছে। যার প্রভাব পড়ছে খুচরা বাজারে।

নারিন্দা কাঁচাবাজারের খুচরা ব্যবসায়ী ছলেমান মিয়া বলেন, আগের দামে কেনা চিনি ৯০ টাকা দরে বিক্রি করছি। কিন্তু আজ পাইকারি কেনা-ই বেশি পড়েছে। তাই ৯৫ টাকা দরে বিক্রি করতে হচ্ছে। প্রতি বস্তা চিনিতে ২৫০ থেকে ৩০০ টাকা দাম বেড়েছে। সবকিছুর দাম বাড়ায় আমরা দোকানদাররাও ভালো অবস্থায় নেই।

চিনি কিনতে আসা নাজমা বেগম নামে এক গৃহিণী বলেন, বাজারে সবকিছুর দামই বাড়তি। আগে চিনি আধা কেজি কিনতাম। এখন সেই টাকা দিয়ে ২৫০ গ্রাম কিনি। আমরা অল্প আয়ের মানুষরা এভাবে সব খাবার কেনা কমিয়ে দিয়েছি। সবাই টিভিতে বড় বড় ভাষণ দেয়। কিন্তু আমাদের কথা কেউ বলে না। আমরা কেমন আছি, তা কেউ খোঁজও নেয় না।

বাজারে আগের দামে বিক্রি হচ্ছে সবজি। আকারভেদে বাঁধাকপি বিক্রি হচ্ছে ৫০ টাকায়। শসা কেজি বিক্রি হচ্ছে ৮০ টাকায়। লম্বা বেগুনের কেজি ৮০, গোল বেগুন ১২০, টমেটো ১৪০, সিমের কেজি ১২০ থেকে ১৪০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া করলা ৮০ টাকা, চাল কুমড়া পিস ৬০, প্রতি পিস লাউ আকারভেদে বিক্রি হচ্ছে ৬০ টাকায়, মিষ্টি কুমড়ার কেজি ৫০, চিচিঙ্গা ৬০, পটল ৬০, ঢেঁড়স ৭০, কচুর লতি ৮০, পেঁপের কেজি ৪০, বরবটির কেজি ‌৮০, ধুন্দলের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৬০ টাকায়।

এসব বাজারে কাঁচামরিচের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৭০ থেকে ৮০ টাকায়। কাঁচা কলার হালি বিক্রি হচ্ছে ৪০, লেবুর হালি বিক্রি হচ্ছে ১৫ থেকে ২০ টাকায়। বাজারে আলুর কেজি বিক্রি হচ্ছে ৩০ থেকে ৪০ টাকায়। তবে পেঁয়াজের দাম বেড়েছে। দেশি পেঁয়াজের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৪০ থেকে ৫০ টাকা কেজি। ভারতীয় পেঁয়াজের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৪৫ থেকে ৫০ টাকা। এসব বাজারে রসুনের কেজি ৪০ থেকে ৪৫, চায়না রসুন বিক্রি হচ্ছে ১৪৫ থেকে ১৫০ ও আদা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে ৯০ থেকে ১১০ টাকায়।

এসব বাজারে দেশি মুশুরের ডালের কেজি ১৪০ টাকা। ইন্ডিয়ান মুশুরের ডালের কেজি ১০০, লবণের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৩৮ থেকে ৪০ টাকা। এদিকে দাম কমেছে ডিমের। ফার্মের মুরগির লাল ডিমের ডজন বিক্রি হচ্ছে ১৪০, হাঁসের ডিমের ডজন বিক্রি হচ্ছে ১৯০ থেকে ১৯৫ টাকা। দেশি মুরগির ডিমের ডজন ২১০ থেকে ২২০ টাকা।

মাছের বাজার ঘুরে দেখা যায়, ছোট সাইজের রুই মাছের কেজি ৩২০ টাকা। যা গত মাসেও বিক্রি হয়েছে ২৮০ থেকে ২৯০ টাকায়। মাছ যত বড় হয়, তার দামও তত বাড়তে থাকে। পাবদা মাছ সর্বনিম্ন সাড়ে ৪০০ টাকা থেকে শুরু করে আকার ভেদে ৬০০ টাকা কেজি। বেলে মাছ সাড়ে ৭০০ টাকা কেজি। টেংরা মাছ বিক্রি হচ্ছে ৭০০ টাকা কেজি দরে। এছাড়া চিংড়ি ৪০০ থেকে শুরু করে ১০০০ টাকা পর্যন্ত বিক্রি হচ্ছে।

বাজারে গরুর মাংসের কেজি ৭০০ থেকে ৬৮০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। খাসির মাংসের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৮৫০ থেকে ৯০০ টাকায়। ব্রয়লার মুরগির দাম বেড়ে কেজি বিক্রি হচ্ছে ১৮০ টাকা। সোনালি মুরগির কেজি বিক্রি হচ্ছে ৩১০ থেকে ৩২০, লেয়ার মুরগির কেজি বিক্রি হচ্ছে ২৯০ টাকায়।

১০-১০ দেশীয় অনলাইন শপিং উৎসব শুরু
                                  

স্বাধীন বাংলা ডেস্ক : দেশের শীর্ষস্থানীয় ৩০ টি ই-কমার্স প্রতিষ্ঠানের যৌথ আয়োজনে শুরু হয়েছে ‘১০-১০ দেশীয় অনলাইন শপিং উৎসব’। ‘দেশের টাকা দেশেই থাকুক’ এই শ্লোগানকে সামনে রেখে প্রতিবছরের মতো এবারও ১০ অক্টোবর থেকে ২৫ অক্টোবর পর্যন্ত চলবে এই উৎসব।

উৎসব উপলক্ষ্যে দেশের প্রথম চেইন বুকশপ ‘পিবিএস’ ( https://pbs.com.bd) দিচ্ছে ৭৯৯+ টাকার ওয়েবসাইট অর্ডারে ফ্রি ডেলিভারি, জনপ্রিয় বইসমূহে ৩০% পর্যন্ত ছাড়, নির্বাচিত বিদেশি বইসমূহে ৫০% পর্যন্ত ছাড়সহ আকর্ষণীয় সব অফার।

দেশীয় ই-কমার্স প্রতিষ্ঠানগুলোর অর্জনকে তুলে ধরার জন্য পঞ্চমবারের মতো আয়োজিত এই উৎসবে আরও অংশ নিচ্ছে পাঠাও ফুডস, আজকের ডিল, সেবা এক্স ওয়াই জেড, ওভাই, বাংলা শপারস, বিডি শপ, বাটা, দর্জি বাড়ি, গরিলা মুভ, রকমারি প্রভৃতি প্রতিষ্ঠান।

এবারের উৎসবে পেমেন্ট পার্টনার থাকছে `বিকাশ` ও ডেলিভারি পার্টনার `ডেলিভারি টাইগার`I উৎসবের বিস্তারিত তথ্য পাওয়া যাবে www.TenTen.com.bd ঠিকানায়।

দ্রব্যমূল্যের দাম কমতে শুরু করেছে : পরিকল্পনামন্ত্রী
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : চার কোটি মানুষ কম দামে চাল ও তেল পাচ্ছে জানিয়ে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেছেন, দ্রব্যমূল্যের দাম বেড়েছিল আবার কমতে শুরু করেছে। প্রধানমন্ত্রী কিছু কৌশলগত ব্যবস্থা নিয়েছেন। তেলের দাম বেড়েছিল, এখন কমেছে। কারণ, এক কোটি কার্ড বিতরণ করা হয়েছে। সেখানে কম দমে বিক্রি হচ্ছে চাল, তেল।

শনিবার নগরীর হোটেল লেকশোরে ‘রেভলিউশনারি ট্রান্সফরমেশন ইন এগ্রিকালচার ফর ফুড অ্যান্ড নিউট্রিশন সিকিউরিটি ইন বাংলাদেশ’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে মন্ত্রী এসব কথা বলেন । নেদারল্যান্ডস অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের সভাপতি এম এ কাশেমের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নেদারল্যান্ডসের রাষ্ট্রদূত অ্যান ভ্যান লিউয়েন।

মন্ত্রী বলেন, কৃষি সমন্ধে নতুন করে বলার কিছু নেই। এটা আমাদের আদি পেশা। আমিও কৃষকের সন্তান। কমবেশি আমরা সবাই এই পেশার সঙ্গে জড়িত। একসময় পুরোপুরিভাবে কৃষির ওপর নির্ভরশীল ছিলাম, তবে সেখান থেকে কিছুটা পরিবর্তন বা বিবর্তন হয়েছে। কৃষির অনেক উন্নয়ন হয়েছে, তার মূলে ছিল স্বাধীনতা। স্বাধীনতা মানে নিজের পায়ে দাঁড়ানো। দেশকে ক্ষুধামুক্ত করা তার প্রতিচ্ছবি।

মন্ত্রী আরও বলেন, এক সময় মানুষ কৃষি থেকে দূরে থাকতো। কিন্তু বঙ্গবন্ধু কৃষি কর্মকর্তাদের অনেক সম্মান দিয়েছেন। কৃষকের প্রতি বঙ্গবন্ধুর অসীম ভালোবাসা ছিল। তিনি শিখিয়েছেন কৃষি আমাদের মূল পেশা। এছাড়া ময়মনসিংহ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। এসব কারণে কৃষির সম্মান অনেক বেড়েছে।

কৃষির উন্নয়ন প্রসঙ্গে এম এ মান্নান বলেন, গত ৫০ বছরে কৃষির অনেক বৈপ্লবিক পরিবর্তন হয়েছে। এর মূল নায়ক কৃষক। তবে কৃষি কর্মকর্তাদের অবদানও কম নয়। সার্বিকভাবে বাংলাদেশ উচ্চ পর্যায়ে আছে, সামনে আরও এগিয়ে যাওয়ার আছে।

দেশের উন্নয়ন তুলে ধরে মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের উন্নয়ন অবাক হওয়ার বিষয় আমার জীবনে যা দেখেছি। বাংলাদেশের ১৬ -১৭ কোটি ঘরে আলো জ্বলবে বিদ্যুৎ পাবো ভাবতে পারিনি। কেউ কেউ সঙ্গে বলবেন গতকাল এক ঘণ্টা ছিল না, তার আগের দিন আধাঘণ্টা ছিল না। এটা হতে পারে। এটা একটা দুর্ঘটনা আমাদের ধৈর্যের প্রয়োজন আছে।

এ বছরই চীনকে হটিয়ে বাংলাদেশের কবজায় ইইউ’র বাজার
                                  

স্বাধীন বাংলা ডেস্ক
ইউরোপের বাজারে দ্রুত বাড়ছে পোশাক রপ্তানি। বছরের প্রথম ৬ মাসে প্রবৃদ্ধি প্রায় ৪৫ শতাংশ। বিদ্যমান ধারা অব্যাহত থাকলে চীনকে হটিয়ে এবছরই ইইউ’র বাজারে শীর্ষস্থান দখল করবে বাংলাদেশ। এমন পূর্বাভাস দিয়েছে ইউরোপীয় কমিশনের পরিসংখ্যান দপ্তর ইউরোস্ট্যাট। বাংলাদেশের তৈরি পোশাকের সবচেয়ে বড় বাজার ইউরোপীয় ইউনিয়ন। মোট রপ্তানির ৬০ ভাগের বেশি হয় এই অঞ্চলে।

এমন বাস্তবতায় সুখবর দিলো ইউরোপীয় কমিশনের পরিসংখ্যান দপ্তর ইউরোস্ট্যাট। সংস্থাটি বলছে, এবছরের জানুয়ারি থেকে জুন পর্যন্ত ইউরোপীয় ইউনিয়নে বাংলাদেশের পোশাক রপ্তানি বেড়েছে ৪৪ দশমিক ৬ শতাংশ। এ সময় বাংলাদেশ রপ্তানি করেছে ১১ দশমিক ৩১ ডলারের তৈরি পোশাক।

অন্যদিকে, ২১ দশমিক ৭৮ শতাংশ প্রবৃদ্ধি নিয়ে এ সময়ে ইইউতে চীনের রপ্তানির পরিমাণ ছিল ১২ দশমিক ২২ বিলিয়ন ডলার।

বিজিএমইএ সহ-সভাপতি শহিদুল্লাহ আজিম বলেন, “একটা স্নায়ুযুদ্ধ চলছে আমেরিকা-ইউরোপের সঙ্গে চায়নার। ফলে চায়নার অর্ডার কমে গেছে।”তবে এজন্য স্থানীয় ও আন্তর্জাতিক বাজারে স্থিতিশীলতার পাশাপাশি ক্রেতাদের বিদ্যমান চাহিদা বজায় থাকা জরুরি বলছেন সংশ্লিষ্টরা। শহিদুল্লাহ আজিম বলেন, “লোকাল কোনো সমস্যা না হলে, গ্যাস-বিদ্যুৎ যদি ঠিক থাকে তাহলে চায়নাকে আমরা ছাড়িয়ে যাব।” ইউরোপীয় ইউনিয়নে পোশাক রপ্তানির উচ্চপ্রবৃদ্ধিকে স্বস্তিদায়ক বলছেন অর্থনীতিবিদরা। তবে অন্য বাজারগুলোতেও অবস্থান শক্তিশালী করার পরামর্শ তাদের।

অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক আইনুল ইসলাম বলেন, “পুরো পোশাকখাতের ডিমান্ড বেড়ে গেছে। অন্যান্য কান্ট্রির চেয়ে আমাদের দেশ থেকে বেশি আমদানি করছে। প্রতিযোগিতামূলক বাজারে যতগুলো বাঁধা আছে সেই বাঁধাগুলো অতিক্রম করতে হবে। এর জন্য একটি সমন্বিত উদ্যোগ দরকার।”

ইউরোপীয় ইউনিয়নে তৈরি পোশাক রপ্তানিতে তৃতীয়স্থানে তুরস্ক। জানুয়ারি-জুন সময়ে ইইউ দেশগুলোতে তুরস্ক রপ্তানি করে ১০ দশমিক ৮৯ বিলিয়ন ডলারের তৈরি পোশাক। দেশটির রপ্তানি-প্রবৃদ্ধি ২০ শতাংশের বেশি। কম্বোডিয়া, পাকিস্তান, ইন্দোনেশিয়া এবং ভারতও পোশাক রপ্তানিতে উচ্চপ্রবৃদ্ধি দেখেছে।


   Page 1 of 52
     অর্থ-বাণিজ্য
অগ্রণী ব্যাংকের উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক পারভীন আকতারের যোগদান
.............................................................................................
অগ্রণী ব্যাংকের উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক পারভীন আকতারের যোগদান
.............................................................................................
অসচ্ছল ও মেধাবী শিক্ষার্থীদের মাঝে শাহ্জালাল ইসলামী ব্যাংকের বৃত্তি প্রদান
.............................................................................................
ফরিদপুরে আড়ংয়ের ২৬তম আউটলেট উদ্বোধন
.............................................................................................
বৈশ্বিক সঙ্কটের মধ্যেও রপ্তানি আয়ে সাফল্য
.............................................................................................
আয়কর রিটার্ন দাখিলের সময় বাড়ল
.............................................................................................
আইএমএফ থেকে ৪৫০ কোটি ডলার ঋণ পাচ্ছে বাংলাদেশ : অর্থমন্ত্রী
.............................................................................................
অক্টোবরেও রেমিট্যান্ট প্রবাহ নিম্নগামী, কমল ৭.৯%
.............................................................................................
পঞ্চগড়ে তিন ব্যাংকের গণশুনানি
.............................................................................................
দেশে বর্তমানে মূল্যস্ফীতির হার ১১ শতাংশের বেশি: সবুজ আন্দোলন
.............................................................................................
ইউরোপের বাজারে বাংলাদেশি পোশাকের দাপট
.............................................................................................
শিবালয়ে ‘জব ফেয়ার’ এ চাকুরি পেল ৪২ জন বেকার
.............................................................................................
অস্থির চিনির বাজার, বেড়েছে পেঁয়াজের দাম
.............................................................................................
১০-১০ দেশীয় অনলাইন শপিং উৎসব শুরু
.............................................................................................
দ্রব্যমূল্যের দাম কমতে শুরু করেছে : পরিকল্পনামন্ত্রী
.............................................................................................
এ বছরই চীনকে হটিয়ে বাংলাদেশের কবজায় ইইউ’র বাজার
.............................................................................................
আজ থেকে প্রতি লিটার সয়াবিন তেল ১৭৮ টাকা
.............................................................................................
রবির সিইও হয়ে ফিরলেন রাজীব শেঠি
.............................................................................................
৭ মাসের মধ্যে রেমিট্যান্স সর্বনিম্ন
.............................................................................................
ঋণ পরিশোধে ১০৯ কোটি টাকা যাচ্ছে বিমানের
.............................................................................................
মোংলায় এলো মেট্রোরেলের দ্বাদশ চালান
.............................................................................................
উঠে গেল ভোজ্যতেলের ভ্যাট মওকুফসুবিধা
.............................................................................................
উন্নত লজিস্টিকস সেবায় পিছিয়ে দেশ
.............................................................................................
পোশাক রপ্তানি: যুক্তরাষ্ট্রেই বেড়েছে ৫৪.৪৩ শতাংশ
.............................................................................................
কুষ্টিয়া জনতা ব্যাংক কর্পোরেট শাখার বিতর্কিত এজিএম এখনও বহাল !
.............................................................................................
চলতি অর্থবছরে ৬.৬ শতাংশ প্রবৃদ্ধির পূর্বাভাস এডিবির
.............................................................................................
নতুন করদাতাদের রিটার্ন দাখিলের শেষ সময় ৩০ জুন
.............................................................................................
আরও কমলো সোনার দাম
.............................................................................................
এক সপ্তাহে ১২ হাজার কেজি ইলিশ গেল ভারতে
.............................................................................................
সাড়ে ৮ হাজার কোটি টাকার ৬ প্রকল্প অনুমোদন
.............................................................................................
আধা ঘণ্টায় সাড়ে ৩০০ কোটি টাকা লেনদেন
.............................................................................................
৩ লাখ ৩৭ হাজার কোটি টাকা বৈদেশিক ঋণ নেবে সরকার
.............................................................................................
অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘটে খুলনায় তেল উত্তোলন বন্ধ
.............................................................................................
রাজস্ব আয় বৃদ্ধির লক্ষ্যে ক্যাবের যাত্রা : প্রদ্যুৎ কুমার
.............................................................................................
ডলার পাচার ঠেকাতে বিমানবন্দরে নিরাপত্তা জোরদার
.............................................................................................
লোডশেডিংয়ে বিপর্যস্ত তাঁতশিল্প
.............................................................................................
বাংলাদেশ ৬৭টি তথ্য চেয়েছিল সুইস ব্যাংকের কাছে
.............................................................................................
বছরে ৭৩ হাজার কোটি টাকা পাচার হচ্ছে স্বর্ণ চোরাচালানে: বাজুস
.............................................................................................
বিশ্বজুড়ে জনসন অ্যান্ড জনসনের বেবি পাউডার বিক্রি বন্ধ ঘোষণা
.............................................................................................
ব্যাংকের শাখায় শাখায় বেচাকেনা হবে নগদ ডলার
.............................................................................................
ফরিদপুরে ইসলামী শাসনতন্ত্র আন্দোলনের সমাবেশ অনুষ্ঠিত
.............................................................................................
তেলের মূল্য বৃদ্ধিতে বেনাপোলে পণ্য পরিবহনে অচলাবস্থা
.............................................................................................
বিইআরসি ঠুঁটো জগন্নাথ
.............................................................................................
ডলার কারসাজি : ৬ ব্যাংকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ
.............................................................................................
আন্তর্জাতিক বাজারে ফের কমল জ্বালানি তেলের দাম
.............................................................................................
ভারতের প্রথম ট্রায়াল জাহাজ মোংলা বন্দরে
.............................................................................................
এবার সয়াবিন তেলের দাম বাড়ানোর প্রস্তাব
.............................................................................................
বাংলাদেশের সড়ক ব্যবহার করে তেল-গ্যাস নেবে ভারত
.............................................................................................
সর্বোচ্চ রেমিট্যান্স এসেছে জুলাই মাসে
.............................................................................................
‘বিজনেস লিডারশীপ অ্যাওয়ার্ড’ পেলেন প্রদ্যুৎ কুমার তালুকদার
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

সম্পাদক ও প্রকাশক : মোহাম্মদ আখলাকুল আম্বিয়া
নির্বাহী সম্পাদক: মাে: মাহবুবুল আম্বিয়া
যুগ্ম সম্পাদক: প্রদ্যুৎ কুমার তালুকদার

সম্পাদকীয় ও বাণিজ্যিক কার্যালয়: স্বাধীনতা ভবন (৩য় তলা), ৮৮ মতিঝিল বাণিজ্যিক এলাকা, ঢাকা-১০০০। Editorial & Commercial Office: Swadhinota Bhaban (2nd Floor), 88 Motijheel, Dhaka-1000.
সম্পাদক কর্তৃক রঙতুলি প্রিন্টার্স ১৯৩/ডি, মমতাজ ম্যানশন, ফকিরাপুল কালভার্ট রোড, মতিঝিল, ঢাকা-১০০০ থেকে মুদ্রিত ও প্রকাশিত ।
ফোন : ০২-৯৫৫২২৯১ মোবাইল: ০১৬৭০৬৬১৩৭৭

Phone: 02-9552291 Mobile: +8801670 661377
ই-মেইল : dailyswadhinbangla@gmail.com , editor@dailyswadhinbangla.com, news@dailyswadhinbangla.com

 

    2015 @ All Right Reserved By dailyswadhinbangla.com

Developed By: Dynamic Solution IT