সোমবার, ২৫ মার্চ ২০১৯ | বাংলার জন্য ক্লিক করুন
  
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   উপসম্পাদকীয়
  দেশে নারী ও শিশু নির্যাতন বন্ধ হবে কি?
  25, May, 2017, 9:46:14:AM

দেশে একের পর এক ঘটছে ধর্ষণ-নির্যাতন। নতুন উপসর্গ নৃসংসতা। নারীর প্রতি মাত্রা ছাড়া নির্মমতায় হতবাক বিবেকবান মানুষ। ধর্ষণের শিকার হচ্ছে ৪ বছরের শিশু থেকে কিশোরীরা। শুধু তাই নয় ধর্ষণের পর পাশবিক নির্যাতন করে হত্যা করা হচ্ছে। প্রায় প্রতিদিনই দেশের কোথাও না কোথাও ঘটছে এ ধরণের নির্মম নিষ্ঠুরতা। আশঙ্কাজনক হারে বাড়ছে শিশু ও নারী অপহরণ, ধর্ষণ  এবং খুনের ঘটনা। যেন কোনভাবেই তা রোধ করা যাচ্ছে না। এর কারন দেশে আইনের সঠিক প্রয়োগ না থাকার কারনে অবিরত ভাবে চলছে এসব ঘটনা। দেশে আগে যে সমস্ত নারী ও শিশু নির্যাতনের ঘটনা ঘটছে সেগুলোর কোন সঠিক বিচার না হওয়ার কারনে এসব ঘটনা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে বলে দেশের বিজ্ঞমহল মনে করেন।

সংশ্লিষ্ট সুত্র মতে, গত ৫ বছরে প্রতিদিন গড়ে ৮ জন শিশু এবং ৩ জন নারী সহিংসতার শিকার হয়েছেন । ১০ বছর পূর্ণ হওয়ার আগেই দেশের ৫ দশমিক ১৭ শতাংশ শিশু যৌন নির্যাতনের শিকার হচ্ছে। এছাড়া আইনি সীমাবদ্ধতা, সামাজিক প্রতিবন্ধকতা, লোকলজ্জা এবং পুলিশ ও সমাজের প্রভাবশালীদের অবৈধ হস্তক্ষেপের কারণে বিচার প্রার্থীরা আইনের আশ্রয় নেয়ার প্রাথমিক পর্যায় থেকেই বঞ্চিত হচ্ছেন বলে জানিয়েছেন মানবাধিকার কর্মীরা।
 
পুলিশ সদর দপ্তরসূত্রে জানা  গেছে, ২০১৬ সালে নারী-শিশু নির্যাতনের ঘটনায় মামলার সংখ্যা ২৬ হাজার ৯৮৭টি। এসব মামলার ৬০ শতাংশেই চার্জশিট দেয়া হয়েছে। চুড়ান্ত প্রতিবেদন দেয়া ছাড়াও বাকিগুলো তদন্তাধীন বলে জানিয়েছে পুলিশ সদর দপ্তর। এছাড়া  ২০১৫ সালে দেশে নারী-শিশু নির্যাতনের ঘটনায় মামলা হয়েছে ২১ হাজার ২২০টি। এসব মামলার ৮০ শতাংশ চার্জসিট দেয়া হয়েছে।
 
ডিএমপির সূত্র সুত্রমতে, ২০১৬ সালে রাজধানীতে নারী-শিশু নির্যাতনের ঘটনায় মামলা হয়েছে ১ হাজার ৮৯৫টি। জিডি হয়েছে ১ হাজার ৪৮৬টি। ২০১৫ সালে মামলার সংখ্যা ছিল ৯৮০টি। এ সংক্রান্ত জিডি হয়েছে ৭০০ টি।
 
শিশু অধিকার ফোরামের তথ্য মতে, গত ৫ বছরে সারাদেশে সহিংসতার ঘটনা ঘটেছে প্রায় ১৫ হাজার। এরমধ্যে শুধু অপহরণই হয়েছে ৭৪৪ জন শিশু। একইভাবে সহিংসতার শিকার হচেছন নারীরাও। বাংলাদেশ মানবাধিকার বাস্তবায়ন সংস্থার হিসেব মতে, ২০১২ থেকে গত মাস পর্যন্ত নারীর উপর সহিংসতার ঘটনা ঘটেছে প্রায় ৬ হাজার। এ সময়ে অপরহরণের শিকার ২১৮ জন নারী।

বাংলাদেশ শিশু অধিকার ফোরাম ও মানবাধিকার বাস্তবায়ন সংস্থার পরিসংখ্যানে বলা হয়েছে,  গত ৫ বছরে প্রতিদিন গড়ে ৮ জন শিশু এবং ৩ জন নারী সহিংসতার শিকার হয়েছেন। এর মধ্যে পারিবারিক কলহে ধর্ষণ, এসিড নিক্ষেপ তো আছেই, সেই সঙ্গে ঘটছে হত্যা ও অপহরণের মতো ঘটনাও।  সহিংসতা বন্ধে বিচারের দৃষ্টান্ত  স্থাপনের পাশাপাশি, পরিবার ও সমাজকে জোরালো ভূমিকা রাখতে হবে। সাধারণত  বয়স্কদের দ্বন্ধের বলি হচ্ছে শিশুরা। অপহরণ, ধর্ষণ, খুনসহ নানাবিধ সহিংসতা বন্ধে বিচারের দীর্ঘসূত্রিতা ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির অভাবকেও দায়ী করেছেন দেশের বিজ্ঞমহল।

পুলিশ প্রশাসন থেকে নারী নির্যাতন ও ধর্ষণ মামলার চার্জসিট দ্রুত প্রদানের জন্য সংশ্লিষ্ট পুলিশ কর্মকর্তাদের কঠোর নির্দেশ দেয়া হলেও অনেক সময় তা সম্ভব হচ্ছে না।পুলিশ প্রশাসন থেকে বলা হয়, অপরাধীরা যাতে কোন ধরণের ছাড় না পায় সে বিষয়টি বিবেচনায় রেখে তদন্ত সাপেক্ষে সঠিক প্রতিবেদন দিতে। তারপর ও নারী ও শিশু নির্যাতন বন্ধ করা যাচ্ছে না।বাংলাদেশ মানবাধিকার সংস্থার (বিএমবিএস) মিডিয়া এন্ড কমিউনিকেশননের তথ্য মতে, ১০ বছর পূর্ণ হওয়ার আগেই দেশের ৫ দশমিক ১৭ শতাংশ শিশু যৌন নির্যাতনের শিকার হচ্ছে। বিবাহিত নারীদের ৮০ দশমিক ২ ভাগ জীবনে কোনো না কোনো সময়ে আর্থিক, শারীরিক কিংবা যৌন নির্যাতনের শিকার হন। ২০১১ সালে এই হার ছিল ৮৭ ভাগ।
গত এক মাসে দেশে ধর্ষিত হয়েছে ২৪৫ নারী ও শিশু। এর মধ্যে ৮৭টি শিশু। গণধর্ষণের শিকার হন ৩৫ নারী। ধর্ষণের পর হত্যা করা হয় ৭ জনকে। পারিবারিক কলহে আপনজনের হাতে খুন হন ১২৬ নারী। যৌতুকের বলি ২৩ নারী, নির্যাতন করা হয় ৮৫ জনকে। এসিড সন্ত্রাসের শিকার হন ৫ জন। খুন হয় কোমলমতি ১৫টি শিশু।
 
কেরানীগঞ্জের ৫ম শ্রেণীর শিশু আবদুল্লাহকে নিজের  দাদার আপন ছোট ভাই অর্থের লোভে অপহরণ কোরে মুক্তিপণ নিয়েও খুন করে । বড় ছেলের শোক ওলটপালট করে দিয়েছে মা রিনা বেগমের জীবন। সে ঘটনায় দায়ের করা  মামলায় বেশিরভাগ আসামীই এখন জামিনে মুক্ত।

আব্দুল্লাহর কবরের পাশে মাঝেমধ্যেই দাঁড়িয়ে থাকেন বাবা আর ছোটভাই। শুধু আব্দুল্লাহ নয় নারায়ণগঞ্জের ত্বকী হত্যার বিচার আলোর মুখ দেখছে না বহু বছরেও।

মানবাধিকার কর্মীরা বলছেন, শিশু ও নারীর উপর সহিংসতা রোধে যত উচ্চ বাচ্যই শোনা যাক না কেনো, এসব ঘটনা থামছে না কোনোভাবেই।

 বিচারহীনতার কারনে দিন দিন উদ্বেগজনক হারে বাড়ছে নারী ও শিশু নির্যাতন। গত ৩ বছরে  খুন হয়েছে ৯৪৫ শিশু। ধর্ষণ ও গণধর্ষণের শিকার হয়েছেন ২ হাজার ৪২৮ জন নারী। এসিডে ঝলসে গেছে ৭৩৩ নারী-শিশুর মুখ। এছাড়া যৌন হয়রানি এবং অন্যান্য নির্যাতনের শিকারও হয়েছেন অনেকে। বেঁধে দেয়া সময়ের মধ্যে বিচার না  হওয়া এবং বিচারহীনতার সংস্কৃতির কারণে নারী ও শিশুদের প্রতি নৃশংসতা বাড়ছে।
 
গত বছর ১৮ সেপ্টেম্বর মাদারীপুরের কালকিনি উপজেলায় নিতু মন্ডল  নামে ১৫ বছরের এক কিশোরীকে একই গ্রামের মিলন মন্ডল নামে এক বখাটে ছুরিকাঘাতে হত্যা করে। বখাটেদের অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে গত ১৭ সেপ্টেম্বর মাগুরা সদর উপজেলার সাংদা লক্ষীপুর গ্রামের সপ্তম শ্রেণির ছাত্রী হ্যাপী (১২) গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে। এর আগে ঢাকার উইলস লিটল ফ্লাওয়ার স্কুলের অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী সুরাইয়া আক্তার রিশাকে ছুরিকাঘাতে মারাত্মক জখম করে ওবায়দুল খান নামে আরেক বখাটে। পরে হাসপাতালে মৃত্যু হয় রিশার। এরও আগে কুমিল্লায় ধর্ষণের পর হত্যা করা হয় মেধাবী ছাত্রী সোহাগী জাহান তনুকে।যা নিয়ে তৎসময়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ দেশ ও বিদেশে তীব্র আন্দোলন হয়েছিল সঠিক বিচারের জন্য।কিন্তু তা আজও হলো না।তাও আবার তনু খুন হন কুমিল্লা ময়নামতি ক্যান্টনমেন্ট এলাকার ভিতর।যেখানে মানুষ হাজারো বিপদমুহুর্তে আশ্রয় পাওয়ার কথা।তার বিচার কখন হয় তাও দেশবাসী জানে না।
ন্যায্য বিচার না পাওয়ার কারণে নারীর ওপর হামলা ক্রমান্বয়ে বেড়ে চলছে। বর্তমানে চোখের সামনে নারী নির্যাতন হলেও কেউ এগিয়ে আসছে না। এতে করে এক ধরনের ভয়ার্ত পরিবেশ সৃষ্টি হচ্ছে। কোনো নারী যদি তার ওপর নির্যাতনের প্রতিবাদ করার চেষ্টা করেন, তাহলে সমাজ তাকে নানাভাবে হেয় করে। নারী নির্যাতনে বিচারকার্য  বিলম্বিত করতে রাজনৈতিক ও সামাজিকভাবে প্রভাব বিস্তার করা হয়। আর ন্যায্য বিচার না হওয়ায় বিভিন্ন কৌশলে নারী নির্যাতনের ঘটনা দিন দিন বেড়েই চলছে। এ অবস্থা থেকে আমাদের বেরিয়ে আসার চেষ্টা করতে হবে।

 মহিলা পরিষদের মতে, গত এক বছর চার মাসে প্রায় ৬ হাজার নারী নির্যাতনের ঘটনা ঘটেছে। সামাজিক অবক্ষয়, পারিবারিক ও প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার অভাব এর নেপথ্য কারণ। এছাড়া, দ্রুত বিচার না হওয়াকেও দায়ী করা যেতে পারে। তবে নারীদের সাহস করে প্রতিবাদ করতে হবে। আইনের ব্যবস্থা নিতে হবে।

 নারীর সুরক্ষায় যেসব আইন আছে, সেসব আইনের যথাযথ প্রয়োগ হচ্ছে না। ফলে নির্যাতনকারীরা নারী নির্যাতন করতে আর ভয় পাচ্ছে না। তবে সবচেয়ে বড় সমস্যা হচ্ছে সমাজের দৃষ্টিভঙ্গি। নারীর প্রতি সমাজের নেতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি তাদের ওপর সহিংসতার মাত্রা বাড়িয়ে দিয়েছে।দেশে নারী ও শিশু নির্যাতন বন্ধে সরকারের আইন প্রয়োগকারী সংস্থার পাশাপাশি দেশের বিবেকবান মানুষদের কে এগিয়ে আসতে হবে।দেশের প্রতিটি এলাকায় এর বিরুদ্ধে দুর্বার আন্দোলন গড়ে তোলতে হবে।যতক্ষণ দেশের বিবেকবান মানুষ স্ব স্ব এলাকায় এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ গড়ে তোলতে পারবে না ততক্ষণ শুধু সরকারের আইন দ্বারা তা প্রতিহত করা যাবে না।ইউনিয়ন পর্যায়ে ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও মেম্বার ও এলাকার সুশীল সমাজের লোকদের কে নিয়ে নারী ও শিশু নির্যাতনের বিরুদ্ধে কমিটি গঠন করে ও এর প্রতিবাদ করা যেতে পারে।স্ব স্ব এলাকার স্থানীয় পুলিশ প্রশাসন কে প্রয়োজনবোধে তার এলাকার ভিতর মাইকিং করে নারী ও শিশু নির্যাতনের বিরুদ্ধে মানুষের মধ্যে সচেতনা সৃষ্টি করতে হবে। ছেলে/মেয়েদের অভিভাবকদের কে ও এ ব্যাপারে সবচেয়ে বেশী সচেতন হতে হবে।


লেখক: মো.ওসমান গনি. সাংবাদিক ও কলামিস্ট





সংবাদটি পড়া হয়েছে মোট : 190        
   শেয়ার করুন
Share Button
   আপনার মতামত দিন
     উপসম্পাদকীয়
জামায়াতীদের নাগরিক মর্যাদা
.............................................................................................
অার নয় যৌতুক
.............................................................................................
আমাদের গণতন্ত্রের অতীত বর্তমান ও ভবিষ্যত
.............................................................................................
১৭ নভেম্বর মওলানা ভাসানীর মাজার, জনতার মিলন মেলা
.............................................................................................
পুলিশের ভালো-মন্দ এবং অতিবল
.............................................................................................
চালে চালবাজী: সংশ্লিষ্টদের চৈতন্যোদয় হোক
.............................................................................................
একাদশ সংসদ নির্বাচন, ভোটাধিকার এবং নির্বাচন কমিশন
.............................................................................................
নির্বাচনে সেনা মোতায়েন প্রত্যাশা এবং সিইসির দৃশ্যপট
.............................................................................................
৩ মাসের মধ্যে ধর্ষকের ফাঁসি এবং বিজয় বাংলাদেশ
.............................................................................................
শহীদ সোহরাওয়ার্দী ও বাংলাদেশ
.............................................................................................
মানবিক মূল্যবোধ বিনষ্ট হলে মানুষ পশু সমতুল্য হয়ে পড়ে
.............................................................................................
ফিরে ফিরে আসে ১৫ আগস্ট : কিন্তুু যা শেখার ছিল তা শেখা হলো না
.............................................................................................
ক্ষুদ্রঋণ সহায়তার নামে সুদখোরদের অত্যাচার কবে বন্ধ হবে
.............................................................................................
খেলাপি ঋণের অভিশাপ মুক্ত হোক ব্যাংক খাত
.............................................................................................
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব ও ১৫ আগষ্ট
.............................................................................................
বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক জীবনের সূচনাপর্বই ছিল ঘটনাবহুল
.............................................................................................
জঙ্গিবাদ প্রতিরোধে আত্মসন্তুষ্টির অবকাশ নেই
.............................................................................................
সার্টিফিকেট নির্ভর নয়, মানসম্পন্ন শিক্ষা জরুরি
.............................................................................................
বাজেট তুমি কার
.............................................................................................
শিক্ষাক্ষেত্রে মায়ের ভূমিকা
.............................................................................................
জাতীয় সংসদ নির্বাচন: দেশী ও বিদেশীদের ভাবনা
.............................................................................................
দেশে নারী ও শিশু নির্যাতন বন্ধ হবে কি?
.............................................................................................
হুমকির মুখে গার্মেন্টস শিল্প, কমছে বৈদেশিক আয়
.............................................................................................
ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টার গ্রামীণ জনগোষ্ঠির মাঝে আশার আলো
.............................................................................................
নিরপেক্ষ গণমাধ্যম জাতির প্রত্যাশা
.............................................................................................
নারীর উন্নয়নে দেশের উন্নয়ন
.............................................................................................
ভূমিকম্প মোকাবেলায় প্রয়োজন সচেতনতা
.............................................................................................
আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো
.............................................................................................
ভূমিকম্পকে ভয় পেলে চলবে না
.............................................................................................
সিইসির বিদায় বেলায় জেলা পরিষদ ও নাসিক নির্বাচন
.............................................................................................
বিজয় দিবস বাঙালির শৌর্য-বীর্যের প্রতীক
.............................................................................................
পাকিস্তানের কূটনৈতিক পরাজয়
.............................................................................................
আইএস বিতর্কের অন্তরালে
.............................................................................................
তেলের মূল্য কমানোর সুফল কার পকেটে ?
.............................................................................................
চাই নিরক্ষরমুক্ত আত্মনিভর্রশীল ডিজিটাল বাংলাদেশ
.............................................................................................
পশ্চিমবঙ্গ: কালো তাড়াই কালো আসবে নতুন আলো...
.............................................................................................
মধ্যপ্রাচ্যে নারী নির্যাতন, আইয়্যামে জাহেলিয়ার দৃশ্যপট
.............................................................................................
বিশ্বমানের চিকিৎসা সেবা
.............................................................................................
গ্রাম নিয়ে যত কথা
.............................................................................................
পদ্মা সেতু থেকে বড়
.............................................................................................
ইউপি নির্বাচনের প্রতিচিত্র
.............................................................................................
ইউপি নির্বাচনের প্রতিচিত্র
.............................................................................................
মাননীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, প্লিজ!
.............................................................................................
তনু হত্যার প্রসঙ্গ অপ্রসঙ্গ
.............................................................................................
সাগর কুলের নাইয়ারে - মাঝি কোথায় যাচ্ছ বাইয়া
.............................................................................................
বিশ্বময় এই অব্যাহত সন্ত্রাস কেন বন্ধ করা যাচ্ছে না?
.............................................................................................
বিশ্ব পানি দিবস
.............................................................................................
রেলের ভাড়া বাড়ে সেবা বাড়ে না
.............................................................................................
স্বাধীনতার মাস: স্বাধীনতার মূল্যবোধ
.............................................................................................
সংসদে প্রশ্নত্তোর পর্ব; চাকরির বয়স এবং আমাদের প্রত্যাশা
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

সম্পাদক ও প্রকাশক : মোহাম্মদ আখলাকুল আম্বিয়া
নির্বাহী সম্পাদক: মাে: মাহবুবুল আম্বিয়া

সম্পাদকীয় ও বাণিজ্যিক কার্যালয়: স্বাধীনতা ভবন (৩য় তলা), ৮৮ মতিঝিল বাণিজ্যিক এলাকা, ঢাকা-১০০০। Editorial & Commercial Office: Swadhinota Bhaban (2nd Floor), 88 Motijheel, Dhaka-1000.
সম্পাদক কর্তৃক রঙতুলি প্রিন্টার্স ১৯৩/ডি, মমতাজ ম্যানশন, ফকিরাপুল কালভার্ট রোড, মতিঝিল, ঢাকা-১০০০ থেকে মুদ্রিত ও প্রকাশিত ।
ফোন : ০২-৯৫৫২২৯১ মোবাইল: ০১৬৭০৬৬১৩৭৭

Phone: 02-9552291 Mobile: +8801670 661377
ই-মেইল : dailyswadhinbangla@gmail.com , editor@dailyswadhinbangla.com, news@dailyswadhinbangla.com

 

    2015 @ All Right Reserved By dailyswadhinbangla.com

Developed By: Nytasoft