মঙ্গলবার, ১৫ অক্টোবর ২০১৯ | বাংলার জন্য ক্লিক করুন
  
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   রাজনীতি -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
সরকার ছাত্ররাজনীতি বন্ধের পক্ষে নয়: কাদের

রাজশাহী প্রতিনিধি : আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, সরকার ছাত্র রাজনীতি বন্ধের পক্ষে নয়। তিনি বলেন, ছাত্র রাজনীতির কোনো দোষ নেই, ছাত্র রাজনীতির নামে যারা অপকর্ম করবে তাদের আইনের আওতায় আনা হবে।

রোববার রাজশাহী সার্কিট হাউজে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে ওবায়দুল কাদের এসব কথা বলেন। এর আগে সার্কিট হাউজে প্রাঙ্গণে তাকে গার্ড অব অনার দেওয়া হয়।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ছাত্ররাজনীতি বন্ধের পক্ষে আমরা নই। যারা ছাত্ররাজনীতির নামে অপকর্ম করবে তাদের আইনের আওতায় আনা হবে। রাজনীতিবিদদের অধিকাংশেরই হাতেখড়ি ছাত্ররাজনীতি থেকে। কাজেই মাথা ব্যথা হলে মাথা কেটে ফেলা সমাধান নয়।

‘প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে দলে শুদ্ধি অভিযান চলছে’ জানিয়ে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, মাদক, জুয়া, টেন্ডারবাজি, দুর্নীতিসহ সবধরনের অপকর্মের বিরুদ্ধে এই শুদ্ধি অভিযান। প্রথমে ঘর থেকে শুরু করা হয়েছে। পর্যায়ক্রমে সবখানে এই অভিযান চালানো হবে।

যুবলীগের চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরীর বিষয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে কাদের বলেন, চেয়ারম্যান নজরদারিতে রয়েছেন কি-না তা পরে জানা যাবে। তবে তিনি আত্মগোপনে নেই।

‘আর যুবলীগের নেতাদের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ আছে। তারা নজরদারিতে রয়েছেন,’ যোগ করেন তিনি।

সরকার ছাত্ররাজনীতি বন্ধের পক্ষে নয়: কাদের
                                  

রাজশাহী প্রতিনিধি : আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, সরকার ছাত্র রাজনীতি বন্ধের পক্ষে নয়। তিনি বলেন, ছাত্র রাজনীতির কোনো দোষ নেই, ছাত্র রাজনীতির নামে যারা অপকর্ম করবে তাদের আইনের আওতায় আনা হবে।

রোববার রাজশাহী সার্কিট হাউজে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে ওবায়দুল কাদের এসব কথা বলেন। এর আগে সার্কিট হাউজে প্রাঙ্গণে তাকে গার্ড অব অনার দেওয়া হয়।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ছাত্ররাজনীতি বন্ধের পক্ষে আমরা নই। যারা ছাত্ররাজনীতির নামে অপকর্ম করবে তাদের আইনের আওতায় আনা হবে। রাজনীতিবিদদের অধিকাংশেরই হাতেখড়ি ছাত্ররাজনীতি থেকে। কাজেই মাথা ব্যথা হলে মাথা কেটে ফেলা সমাধান নয়।

‘প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে দলে শুদ্ধি অভিযান চলছে’ জানিয়ে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, মাদক, জুয়া, টেন্ডারবাজি, দুর্নীতিসহ সবধরনের অপকর্মের বিরুদ্ধে এই শুদ্ধি অভিযান। প্রথমে ঘর থেকে শুরু করা হয়েছে। পর্যায়ক্রমে সবখানে এই অভিযান চালানো হবে।

যুবলীগের চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরীর বিষয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে কাদের বলেন, চেয়ারম্যান নজরদারিতে রয়েছেন কি-না তা পরে জানা যাবে। তবে তিনি আত্মগোপনে নেই।

‘আর যুবলীগের নেতাদের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ আছে। তারা নজরদারিতে রয়েছেন,’ যোগ করেন তিনি।

ফাহাদ হত্যায় জড়িতদের বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়া হবে : ওবায়দুল কাদের
                                  


স্টাফ রিপোর্টার : বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়-বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যার ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

সোমবার সচিবালয়ে সমসাময়িক ইস্যু নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

বুয়েটে একজন শিক্ষার্থীকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে -এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে ওবায়দুল কাদের বলেন, দেখুন এটা আমি শুনেছি, এটা আমি জানি। একটু আগে পুলিশের আইজির সঙ্গে আমার কথা হয়েছে। তিনি জিজ্ঞাসা করেছেন। আমি তাকে বলেছি, আপনি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বিষয়টা আলাপ করতে পারেন।

মন্ত্রী বলেন, আমি যতটুকু বুঝি, এখানে ভিন্নমতের জন্য একজন মানুষকে মেরে ফেলার কোনো অধিকার কারও নেই। কাজেই এখানে আইন তার নিজস্ব গতিতে চলবে। তদন্ত চলছে, তদন্তে যারাই অপরাধী বলে সাব্যস্ত হবে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে, পারসোনালি আমি বলেছি- এখানে আমার কোনো ভিন্ন মত নেই।

ওবায়দুল কাদের বলেন, অপরাধী যেই হোক, আইন নিজস্ব গতিতে চলবে। প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফরে দেশ বিক্রিও তো বলে ফেলছে বিএনপি, তাই বলে বিএনপি নেতাদের কী আমরা মেরে ফেলব? কোনো আবেগ ও হুজুগে কারা (আবরার ফাহাদকে হত্যা) করেছে, তাদের অবশ্যই খুঁজে বের করতে হবে এবং সেই তদন্ত চলছে।

দুর্বৃত্তায়নের চক্র ভেঙে দিতেই শুদ্ধি অভিযান : ওবায়দুল কাদের
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, সারাদেশে যে শুদ্ধি অভিযান চলছে তা কোনো দল বা গোষ্ঠীর মধ্যে নয়।  এ অভিযান দলে অনুপ্রবেশকারী, স্বাধীনতাবিরোধী, অপকর্মকারী, চাঁদাবাজ ও টেন্ডারবাজদের বিরুদ্ধে।

শনিবার পুরান ঢাকার শ্রী শ্রী ঢাকেশ্বরী জাতীয় মন্দিরে এক বস্ত্র বিতরণ অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

ওবায়েদুল কাদের বলেন, এ অভিযান কোনো গোষ্ঠী বা ব্যক্তির বিরুদ্ধে নয়। এটি দুর্বৃত্তদের বিরুদ্ধে, দুর্বৃত্তায়নের চক্র ভেঙে দিতেই এ অভিযান।

তিনি বলেন, দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে অভিযানের পাশাপাশি যারা অনুপ্রবেশকারী তাদের প্রতি দলের সভাপতির নির্দেশ রয়েছে। তৃণমূলের কমিটি গঠনে বিতর্কিতদের স্থান না দেওয়ার নির্দেশ আছে।

ভারত-বাংলাদেশ সফরের বিষয়ে সেতুমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের সাথে ভারতের সম্পর্ক অনেক ভালো। নরেন্দ্র মোদি সরকারের সাহসিকতার কারণে ছিটমহলের মতো সীমান্ত সমস্যার সুরাহা করেছেন। সমুদ্র সীমার বিষয়ে জাতিসংঘের রায়ের বিরুদ্ধে তারা আপিল না করে তারা সুসম্পর্ক বজায় রেখেছে।

হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, বাংলাদেশে হিন্দু-মুসলমান সবাই এক। শেখ হাসিনা যতদিন ক্ষমতায় আছেন, আপনাদের কোনো ভয় নেই। আপনাদের ভোটের মর্যাদা মুসলমানের চেয়ে কম নয়। আপনারা মাথা উঁচু করে দাঁড়াবেন। মেরুদণ্ড সোজা করে দাঁড়াবেন।

সরকারের পায়ের নিচে মাটি নাই: খন্দকার মাহবুব
                                  

স্বাধীন বাংলা রিপোর্ট: সরকারের পায়ের নিচে মাটি নাই বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন। তিনি বলেন, ‘সরকারের পায়ের নিচে মাটি নাই। তারা দোদুল্যমান অবস্থায় আছে। যেকোনো মুহূর্তে ধাক্কা দিলেই তাদের পতন হবে। এই সরকার অবৈধ। আপনার (প্রধানমন্ত্রী) উচিত নিরপেক্ষ সরকারের মাধ্যমে নির্বাচন দেওয়া। নয়তোবা আপনার পতন কিন্তু আসন্ন। আপনার পায়ের নিচে মাটি নাই, আশপাশে কেউ নাই।’

আজ শুক্রবার খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে নাগরিক অধিকার আন্দোলন ফোরাম আয়োজিত এক মানববন্ধনে এসব কথা বলেন খন্দকার মাহবুব।

খন্দকার মাহবুব বলেন, ‘ওবায়দুল কাদের সাহেব বলেছেন, ‘‘প্রধানমন্ত্রীর কাছে অপরাধীদের তালিকা আছে।’’ তালিকা রেখে লাভ নাই। আমরা দেখতে চাই কারা সেই অপরাধী। তাদের গ্রেপ্তার করে বিচারের কাঠগড়ায় নিয়ে আসুন।’

বিচার বিভাগ নিয়ে তিনি বলেন, ‘হাইকোর্ট নিয়ে খেলতে যাবেন না, বিচার বিভাগকে নিয়ে খেলতে যাবেন না। বিচারকরাও আপনার খেলার সঙ্গী হবে না। যদি হয় তাহলে দেশে অস্থির অবস্থার সৃষ্টি হবে। কিন্তু এটা আমরা চাই না। ’

কোনোদিন করুণা ভিক্ষা চাইবেন না জানিয়ে বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘আল্লাহর নামে শপথ নিয়ে বলছি, আর কোনোদিন করুণা ভিক্ষা করব না। হাইকোর্টের বিচার যদি থাকে, সংবিধান অনুযায়ী বিচার যদি করতে পারে, তাহলে হাইকোর্টের অস্তিত্ব থাকবে। নতুবা অস্তিত্ব থাকবে না। ’

মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন-বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা সৈয়দ মেহেদী আহমেদ রুমি, যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য আবু নাসের মোহাম্মদ রহমতুল্লাহ ও নাগরিক অধিকার আন্দোলন ফোরামের সহসভাপতি জনতার রফিক প্রমুখ।

বিএনপি নেতাদের অবৈধ সম্পদের তথ্যও বের করা হবে : ওবায়দুল কাদের
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : বিএনপি নেতাদের অবৈধ সম্পদের তথ্যও বের করা হবে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

রোববার রাজধানীর বিমানবন্দর সড়কের শহীদ রমিজ উদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের সামনে আন্ডারপাস নির্মাণ প্রকল্পের কাজের অগ্রগতি পরিদর্শন শেষে এ কথা বলেন সেতুমন্ত্রী।

তিনি বলেন, বিএনপি ক্ষমতায় থাকাকালে দলটির নেতারা যে অবৈধ সম্পদ বানিয়েছে, তার শ্বেতপত্র প্রকাশ করা হবে।

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের সভাপতি ঈসমাইল হোসেন চৌধুরী সম্রাটের বিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, এ বিষয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী যে বক্তব্য দিয়েছেন, সেটি যথাযথ। এ বিষয়ে তিনিই বলার অধিকার রাখেন।

নিরাপদ সড়কের বিষয়ে গঠিত টাস্কফোর্সের কাজ শিগগিরই শুরু হবে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, টাস্কফোর্সের কাজ এখনো শুরু হয়নি। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীও কমিটিতে রয়েছেন, খুব শিগগিরই কমিটি কাজ শুরু করবে।

এ সময় গণমাধ্যমে প্রকাশিত নিরাপদ সড়ক পরিবহন আইন সংশোধন সম্পর্কে ওবায়দুল কাদের বলেন, এ বিষয়টি পুরোই গুজব। তিনি বলেন, আইন সংশোধনের বিষয়ে মন্ত্রণালয় কিছুই জানে না। অথচ দেখলাম এ বিষয় নিয়ে টিআইবি উদ্বেগ প্রকাশ করেছে।

শহীদ রমিজ উদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের দুই শিক্ষার্থীর মর্মান্তিক মৃত্যু কষ্টদায়ক মন্তব্য করে ওবায়দুল কাদের বলেন, সেনাবাহিনী আন্তর্জাতিক মান বজায় রেখে প্রকল্পের কাজ করছে। কাজ নির্ধারিত সময়ের ৬ মাস আগেই চলতি বছরের ডিসেম্বরে শেষ হবে। বর্তমানে কাজের অগ্রগতি ৭০ শতাংশ সম্পন্ন হয়েছে। এটি চালু হলে  জনগণ উপকৃত হবে।

২০১৮ সালের ২৯ জুলাই শহীদ রমিজ উদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের দুই শিক্ষার্থী নিহত হলে দেশব্যাপী নিরাপদ সড়ক আন্দোলন ছড়িয়ে পড়ে। পরে এখানে আন্ডারপাস নির্মাণের নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী।

বাহ! হুইপপুত্রের অস্ত্র মহড়া
                                  

নিজস্ব সংবাদদাতা: জাতীয় সংসদের হুইপ শামসুল হক চৌধুরীর পুত্র ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের অর্থ বিষয়ক উপ-কমিটির সদস্য নাজমুল করিম চৌধুরী শারুনের যুদ্ধংদেহী মনোভাব সম্পন্ন অস্ত্র মহড়ার একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে। আর এ নিয়ে রাজনৈতিক সামাজিক অঙ্গনে শুরু হয়েছে তীব্র প্রতিক্রিয়া।

প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত দুর্নীতিবিরোধী অভিযানকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে যেয়ে প্রশাসনের বিরুদ্ধে অভিযোগের আঙুল তুলে ব্যাপক নিন্দিত হন হুইপ শামসুল। তার পুত্র শারুনের বিরুদ্ধে তারই পিতার বয়সী প্রবীণ আওয়ামী লীগ নেতা ও চট্টগ্রাম আবাহনীর প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা দিদারুল আলম চৌধুরীকে টেলিফোনে অশ্লীল বাক্যবানের অভিযোগও ওঠে। মুঠোফোনের সেই অডিও ভাইরাল হওয়ার ২৪ ঘণ্টা না যেতেই এই ভিডিওটি ভাইরাল হল। এর ফলে মাঠ পর্যায়ের অনেক আওয়ামী লীগ নেতাও বিব্রতকর অবস্থায় পড়েছেন।

ভাইরাল হওয়া সেই ভিডিওতে দেখা যায়, সামরিক মহড়ার মতোই যুদ্ধংদেহী মনোভাবে হুইপপুত্র শারুন এ কে ৪৭ রাইফেল সদৃশ্য আগ্নেয়াস্ত্র (কেউ কেউ বলছেন এসএমজি) থেকে গুলি বর্ষণ করছেন।
ধারণা করা হচ্ছে, দেশের বাইরে কোনো স্থানে এই অস্ত্র মহড়া দেন হুইপপুত্র শারুন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এই ভিডিও লিংকটিকে ঘিরে তীর্যক মন্তব্য অব্যাহত রয়েছে। অনেকেই উল্লেখ করেছেন, ‘যুদ্ধক্ষেত্রের মহড়ার মত ভিডিও ফুটেজই প্রমাণ করে এ সমাজে কতটা লাগামহীন এই হুইপপুত্র!’

কেউ বা আবার বলছেন, ‘ভিডিওটি হয়তো দেশের বাইরে ধারণ করা হয়েছে। কিন্তু অস্ত্র চালানো দেখে মনে হচ্ছে, শারুন খুব প্রশিক্ষিত। কারণ এ ধরনের অস্ত্র ফায়ারিংয়ের সময় শরীর কন্ট্রােল খুবই কষ্টসাধ্য। অথচ তিনি ধারাবাহিকভাবে ফায়ার করে চলেছেন।’

‘এটি একজন উচ্ছন্নে যাওয়া যুবকের রূপ শুধু নয়, ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের পরিচ্ছন্ন ভাবমূর্তিকেও মাঠপর্যায়ে প্রশ্নবিদ্ধ করছে’ বলে উল্লেখ করেছেন বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা।

আবার কেউ কেউ বলছেন, ভিডিওটি হয়তো এডিট করা। তবে যেই যাই বলুক না কেন ভিডিওটির ভাইরাল গতি বেগবান হচ্ছে।


সূত্র: বিডিপ্র

 

ঢাবিতে ধর্মভিত্তিক রাজনীতি নিষিদ্ধের সিদ্ধান্ত বাতিলের দাবী ইসলামী আন্দোলনের
                                  

স্বাধীন বাংলা রিপোর্ট: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে ধর্মভিত্তিক ছাত্ররাজনীতি নিষিদ্ধের সিদ্ধান্ত বাতিলের জোর দাবি জানিয়েছে ইসলামী আন্দোলন। ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ ঢাকা মহানগর উত্তরের নিয়মিত বৈঠকে সভাপতির বক্তব্যে হাফেজ মাওলানা শেখ ফজলে বারী মাসউদ এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, মতপ্রকাশ, ধর্ম পালন এবং জনগণের কল্যাণে আদর্শিক রাজনীতির চর্চা করা সংবিধানপ্রদত্ত মৌলিক অধিকার। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদেরকে সংবিধানপ্রদত্ত এ অধিকার থেকে বঞ্চিত করার এখতিয়ার ডাকসু এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের নেই। রাষ্ট্রে যেখানে ধর্মভিত্তিক রাজনীতি নিষিদ্ধ নয়, সেখানে ঢাবি ক্যাম্পাসে তা কিভাবে নিষিদ্ধ হতে পারে?

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের ঢাকা মহানগর উত্তরের সহ-প্রচার সম্পাদক শেখ মুহাম্মাদ সাইফুল ইসলাম স্বাক্ষরিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানা গেছে।

মাওলানা শেখ ফজলে বারী মাসউদ বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় মুক্ত মতপ্রকাশের উন্মুক্ত প্রাঙ্গণ। কোনো আদর্শকে দাবিয়ে রাখা বিশ্ববিদ্যালয়ের কাজ নয়। বিশ্ব র‌্যাংকিংয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে যেখানে দূরবীন দিয়েও খুঁজে পাওয়া যায় না এবং এতে যখন পুরো জাতি লজ্জিত ও স্তম্ভিত তখন ঢাবি ও ডাকসু আসল কাজ বাদ দিয়ে গণবিরোধী সিদ্ধান্ত নিয়ে জনগণের ক্ষোভকে আরো বাড়িয়ে দিল। তিনি বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এ দেশের জনগণের ট্যাক্সের টাকায় পরিচালিত হয়। দেশের জনগণ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ধর্মভিত্তিক নয়; বরং সন্ত্রাস, মাদক ও চাঁদাবাজি নির্ভর রাজনীতি নিষিদ্ধ চায়।

তিনি বলেন, দেশে আজ ভয়াবহ দুর্নীতি ও সামাজিক অনাচার চলছে। ৮৯ শতাংশ মানুষ প্রাত্যহিক জীবনে ঘুষ-দুর্নীতির শিকার হচ্ছে। দুর্নীতিতে সরকারের নাক ডুবে যাওয়ার অবস্থা।

মাওলানা শেখ ফজলে বারী মাসউদ বলেন, সাংবিধানিকভাবে মদ ও জুয়া নিষিদ্ধ হলেও রাজনৈতিক ছত্রছায়ায় ‘ক্যাসিনো-সম্রাটরা’ সম্পদের পাহাড় গড়েছে। ক্যাসিনো নিষিদ্ধ হলেও বিদেশে থেকে ক্যাসিনো সামগ্রী কিভাবে আমদানি করা হলো এবং প্রশাসনের নাকের ডগায় কিভাবে ক্যাসিনো বাণিজ্য চলেছে তা জনগণ জানতে চায়। শুধু চুনোপুঁটি নয়, রাঘববোয়ালদেরও আইনের আওতায় আনতে হবে।

ফিতা কাটতে একদিনই ওই ক্লাবে গিয়েছি : মেনন
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন বলেছেন, ফকিরাপুলের ইয়ংমেন্স  ক্লাবের গভর্নিং বডির চেয়ারম্যান হিসেবে আমি একবারই সেখানে গিয়েছিলাম।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে কেন্দ্রীয় ১৪ দলের সভায় সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন মেনন।

তিনি বলেন, ওই ক্যাসিনো ক্লাবে উদ্বোধনের দিন ফিতা কাটতে একদিনই যাওয়া হয়েছে। তারপরে আর কখনো সেখানে গিয়েছি বলে আমার মনে নেই। সে হিসেবে ক্যাসিনোর কালি যদি লেগে থাকে, তাহলে লাগবে। ক্যাসিনো ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে অভিযানকে আমি পুরোপুরি সমর্থন করি।

অপর এক প্রশ্নের জবাবে মেনন বলেন, ওই ক্লাবের একজন সভাপতি ও একজন সাধারণ সম্পাদক আছেন। আমি ২০১৬ সালে এক দিনই সেখানে গিয়েছি, ফিতা কেটেছি, এটা শেষ। প্রশাসনের কেউ জানতো না সেখানে কি হয়, আর আমি জানবো কিভাবে? আমি সেখানে গিয়েছিলাম ১৬ সালে আর ক্যাসিনো শুরু হয়েছে ১৭ সালে।

ক্যাসিনো চালানোর অভিযোগে ইয়ংমেন্স ক্লাবের সভাপতি যুবলীগ নেতা খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়া পুলিশের হাতে গ্রেফতার হওয়ার পর রিমান্ডে আছেন। এ ক্লাব দিয়ে অভিযান শুরুর পর আরও একাধিক ক্লাবে অভিযানে বেরিয়ে আসছে ঢাকায় ক্যাসিনো সাম্রাজ্যের গোপন খবর।

বিএনপির উচিত প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ দেওয়া : ওবায়দুল কাদের
                                  

সিলেট প্রতিনিধি : আওয়ামী লীগ নিজেদের ঘর থেকেই দুর্নীতিবিরোধী শুদ্ধি অভিযান শুরু করেছে বলে মন্তব্য করেছেন দলটির সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

তিনি বলেন, বিএনপির আমলেই টেন্ডারবাজি শুরু হয়েছিল। দুর্নীতি ও মাদক-সন্ত্রাসের রাজত্ব বিএনপি-ই কায়েম করেছে। এগুলোর বিরুদ্ধে তারা কোনো ধরনের পদক্ষেপ নেয়নি। বরং আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা ঘর থেকেই শুদ্ধি অভিযান শুরু করেছেন। এজন্য বিএনপির উচিত সরকার ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ দেওয়া।

বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১টায় সিলেটের এম এ জি ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছালে তাকে অভ্যর্থনা জানান দলের সেতা-কর্মীরা। এসময় সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, অন্যায়, অপকর্ম, অনিয়ম-দুর্নীতি ও শৃঙ্খলাভঙ্গের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ায় সরকার ও আওয়ামী লীগের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল হচ্ছে। শেখ হাসিনার জনপ্রিয়তা বেড়েছে।

তিনি বলেন, দুর্নীতি ও অনিয়মরোধে যে শুদ্ধি অভিযান চলছে, তা সারা দেশেই ছড়িয়ে যাবে। শুধু যুবলীগ বা ছাত্রলীগের প্রশ্ন নয়, আওয়ামী লীগেরও যারা অনিয়ম, দুর্নীতি করবে- তাদেরও একই পরিণতি ভোগ করতে হবে। যাদের কারণে দলের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হয়েছে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। অনিয়মের বিরুদ্ধে আগেও ব্যবস্থা নিয়েছে দুদক।

তিনি বলেন, অন্যায়-অনিয়ম বা দুর্নীতিতে প্রশাসন বা রাজনীতির কেউ যদি মদদ দিয়ে থাকেন, তাহলে তাকেও আইনের আওতায় আনা হবে। কোনো গডফাদারই ছাড় পাবে না। যারা আগামীতে এসব অপকর্ম করবেন, তাদের জন্য এটা সতর্কবার্তা।

বিমানবন্দরে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম হানিফ, আব্দুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, অ্যাডভোকেট মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, কেন্দ্রীয় সদস্য বদর উদ্দিন আহমদ কামরান, অধ্যাপক রফিকুর রহমান, সিলেট জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি অ্যাডভোকেট লুৎফুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক শফিকুর রহমান চৌধুরী, মহানগর সাধারণ সম্পাদক আসাদ উদ্দিন আহমদ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এরপর ওবায়দুল কাদের হজরত শাহজালাল (রহ.) এর মাজার জিয়ারত করেন। বিকেলে রিকাবীবাজারে কবি নজরুল অডিটোরিয়ামে মরহুম আওয়ামী লীগ নেতা আ ন ম শফিকের স্মরণে শোকসভায় বক্তব্য রাখবেন তিনি।

ফেসবুকে পোস্ট দিয়ে ক্ষমা চাইলেন রাব্বানী
                                  

স্বাধীন বাংলা ডেস্ক: চাঁদাবাজি, অনয়িম-দুর্নীতি আর অনতৈকি কর্মকান্ডরে অভিযোগে পদ হারানোর পর নিজের ভুলত্রুটির জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও দলের নেতাকর্মীদের কাছে ক্ষমা চেয়েছেন ছাত্রলীগের সদ্য সাবেক সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী। সোমবার (১৬ সেপ্টেম্বর) নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক অ্যাকাউন্ট থেকে ক্ষমা চেয়ে একটি স্ট্যাটাস দেন রাব্বানী।

ফেসবুক পোস্টে তিনি লেখেন, ‘মমতাময়ী নেত্রী, আপনার মনে কষ্ট দিয়েছি, আমি অনুতপ্ত, ক্ষমাপ্রার্থী। প্রিয় অগ্রজ ও অনুজ, আপনাদের প্রত্যাশা-প্রাপ্তির পুরো মেলবন্ধন ঘটাতে পারিনি বলে আপনাদের কাছেও ক্ষমাপ্রার্থী।

মানুষ মাত্রই ভুল হয়। আমিও ভুলত্রুটির ঊর্ধ্বে নই। তবে বুকে হাত দিয়ে বলতে পারি, স্বেচ্ছায়-স্বজ্ঞানে, আবেগ-ভালোবাসার এই প্রাণের সংগঠনের নীতি-আদর্শ পরিপন্থী ‘গর্হিত কোনও অপরাধ’ করিনি। আনীত অভিযোগের কতটা ষড়যন্ত্রমূলক আর অতিরঞ্জিত, সময় ঠিক বলে দেবে।

প্রাণপ্রিয় আপা, আপনি আদর্শিক পিতা বঙ্গবন্ধু মুজিবের সুযোগ্য তনয়া, ১৮ কোটি মানুষের আশার বাতিঘর। আপনার দিগন্ত বিস্তৃত স্নেহের আঁচল, এক কোণে যেন ঠাঁই পাই। আপনার ক্ষমা এবং বঙ্গবন্ধুর আদর্শ নিয়ে বাকিটা জীবন চলতে চাই।’

প্রসঙ্গত, ছাত্রলীগের সদ্য সাবেক সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন এবং গোলাম রাব্বানীর বিরুদ্ধে দেরিতে ঘুম থেকে ওঠা, নিজেদের অনুষ্ঠানে মূল সংগঠনের নেতাদের আমন্ত্রণ করে তাদের পরে অনুষ্ঠানস্থলে উপস্থিত হওয়াসহ বিভিন্ন অভিযোগ প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার কানে পৌঁছায়। এসব অভিযোগ আমলে নিয়ে প্রধানমন্ত্রী দলীয় সভায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন এবং ছাত্রলীগের কমিটি ভেঙে দেওয়ার নির্দেশ দেন, যা গত ৭ সেপ্টেম্বর বাংলা ট্রিবিউনে ‘ছাত্রলীগের কমিটি ভেঙে দিতে শেখ হাসিনার নির্দেশ’ শিরোনামে প্রকাশিত হয়। এছাড়া জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়েও চাঁদাবাজির ঘটনা প্রকাশ্যে আসায় তাদের ওপর ক্ষুব্ধ হন প্রধানমন্ত্রী। এসব ঘটনার জেরে শনিবার (১৪ সেপ্টেম্বর) আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সংসদের সভায় রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও গোলাম রাব্বানীকে ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের পদ থেকে সরে যাওয়ার নির্দেশ দেন আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা।

এদিকে রাব্বানীর ফেসবুক পোস্টের বিপরীতে দলটির নেতাকর্মীরা মিশ্র প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন। অনেকে রাব্বানীর বিরুদ্ধে গৃহীত সিদ্ধান্তকে সমর্থন করেছেন, আবার অনেকেই এমন সিদ্ধান্তের বিষয়ে তাকে সান্ত্বনা দিয়ে আগামীর পথে আগে বাড়ার পরামর্শ দেন।

এবার সিনেট থেকে পদত্যাগ চেয়ে শোভনের আবেদন
                                  

স্বাধীন বাংলা রিপোর্ট: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেট সদস্য থেকে পদত্যাগ চেয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ও সিনেট সভাপতি বরাবর আবেদন করেছেন ছাত্রলীগের সদ্য সাবেক সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন।

সোমবার বিকেল ৪টায় শোভনের পক্ষে বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্যের কাছে পদত্যাগপত্র জমা দেন ছাত্রলীগের দফতর সম্পাদক আহসান হাবিব ও ডাকসু সদস্য রফিকুল ইসলাম সবুজ।

আবেদনপত্রে শোভন উল্লেখ করেন, যথাযথ সম্মান প্রদর্শনপূর্বক উপর্যুক্ত বিষয়ের বরাতে আপনাকে জানাচ্ছি যে, আমি মো. রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সিনেট সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছি। বর্তমানে আমার ব্যক্তিগত সমস্যার কারণে আমার ওপর অর্পিত দায়িত্ব পালন করা সম্ভব নয়। এমতাবস্থায় আমি উক্ত পদ থেকে পদত্যাগ করতে আগ্রহী।

অতএব, বিনীত নিবেদন, আমার পদত্যাগপত্র গ্রহণ করে আমার ওপর আপনার অর্পিত সিনেট সদস্য পদ থেকে অব্যাহতি দানে বাধিত করবেন।

প্রসঙ্গত চাঁদাবাজিসহ নানা অনিয়মের অভিযোগে ছাত্রলীগের শীর্ষ পদ থেকে অপসারণ করা হয়েছে রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও গোলাম রাব্বানীকে। সিনিয়র সহসভাপতি আল নাহিয়ান জয়কে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এবং সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্যকে ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক করা হয়েছে। শনিবার আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

বঙ্গবন্ধুর ছাত্রলীগ কখনো আদর্শচ্যুত হতে পারে না: জয়
                                  

স্বাধীন বাংলা রিপোর্ট: ছাত্রলীগের বর্তমান কমিটিতে কারও বিরুদ্ধে অনিয়মের কোনো অভিযোগ থাকলে সাংগঠনিকভাবে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে হুঁশিয়ারি করেছেন সংগঠনটির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয়। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর ছাত্রলীগ কখনো আদর্শচ্যুত হতে পারে না। সোমবার ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে তিনি একথা জানান।

আল নাহিয়ান খান জয় বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে আমাদের কার্যক্রম শুরু হলো। এখন থেকে আমরা সাধ্যমত চেষ্টা করবো সবার সহযোগিতা নিয়ে মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটিগুলোর সম্মেলন করা। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠায় তারই কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশিত পথে চলব, হাতকে শক্তিশালী করব। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশিত পথে থেকে ছাত্রলীগের ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনতে কাজ করব। সংগঠনের ভাবমূর্তি পুনরুদ্ধারে আপ্রাণ চেষ্টা করব।

ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য বলেন, সারাদেশে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের যেকোনো অভিযোগ কিংবা দাবি থাকলে আমাদের জানাতে পারেন। আমাদের কাছে আসতে কোনো লবিং কিংবা মধ্যস্ততা লাগবে না। সংগঠনকে শক্তিশালী করতে নতুন নেতৃত্ব কাজ করবে বলেও জানান তিনি।

প্রসঙ্গত, চাঁদাবাজিসহ নানা অভিয়মের অভিযোগে গত ১৪ সেপ্টেম্বর রাতে ছাত্রলীগের শীর্ষ পদ থেকে অপসারণ করা হয় শোভন ও রাব্বানীকে।

সিনিয়র সহ-সভাপতি আল নাহিয়ান জয়কে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এবং সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্যকে ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক করা হয়েছে। শনিবার আওয়ামী লীগের সভায় এ সিদ্ধান্ত হয়।

ছাত্রদলের নিজেদের মামলয় কাউন্সিল বন্ধ: কাদের
                                  

স্বাধীন বাংলা রিপোর্ট: ছাত্রদলের নেতাদের মামলার কারণে তাদের কাউন্সিল বন্ধ হলো। তারাই তাদের বিরুদ্ধে মামলা করলো, মামলা করে সম্মেলন বন্ধ করে দেয়া হলো। এখানেও নন্দ ঘোষ শেখ হাসিনার দোষ, এখানেও নন্দ ঘোষ আওয়ামী লীগের দোষ। নিজেরা নিজেদের বিরুদ্ধে মামলা করে সম্মেলন পন্ড করেছে। এখানে আওয়ামী লীগ বা সরকারের নেই বলে মন্তব্য করেছেন সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলক্ষে শনিবার রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ‘জনগণের ক্ষমতায়ন দিবসের’ আলোচনা সভায় এ মন্তব্য করেন তিনি।


আজ (১৪ সেপ্টেম্বর) অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের কাউন্সিল। এই কাউন্সিলের ওপর গত ১২ সেপ্টেম্বর অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা জারি করেন আদালত। ছাত্রদলের সদ্য বিলুপ্ত কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-ধর্মবিষয়ক সম্পাদক আমানউল্লাহ আমানের এক আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আদালত এ আদেশ দেন।

কাদের বলেন, আওয়ামী লীগ কেন ছাত্রদলের সম্মেলন বন্ধ করতে যাবে? ছাত্রদলের এ সংকটের জন্য বিএনপির নেতৃত্ব দায়ী। বিএনপির আজকের সংকট তাদের নিজেদের ব্যর্থতার জন্য। তাদের বিদ্বেষপ্রসূত রাজনীতি, তাদের নেতিবাচক রাজনীতি, বিএনপিতে সংকট তৈরি করেছে।

এ সময় শেখ হাসিনার উন্নয়ন অর্জনই বিরোধী রাজনীতির জন্য সংকট তৈরি হয়েছে বলে দাবি করেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক।

তিনি বলেন, শেখ হাসিনার উন্নয়ন অর্জন দেখলে এই দেশে অনেকের আঁতে ঘা লাগে, যন্ত্রণা শুরু হয়। শেখ হাসিনার উন্নয়ন অর্জন ও তার অপ্রতিরুদ্ধ অগ্রযাত্রা বাংলাদেশের বিরোধী রাজনীতির জন্য সংকটের কালো ছায়া নেমে এসেছে।

সরকারদলীয় দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থানে জানিয়ে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে সরকারের অনেক মন্ত্রী দুদকে হাজিরা দিচ্ছেন, আওয়ামী লীগের অনেক নেতাকর্মী জেলে আছেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আছেন বলেই এসব সম্ভব হয়েছে।

তিনি বলেন, আমাদের দলের যাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ আছে, তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

শোভন-রব্বানীর বিরুদ্ধে নতুন বোমা ফাটালেন জগন্নাথের জয়নুল আবেদীন রাসেল
                                  

স্বাধীন বাংলা ডেস্ক: চাঁদাবাজি, টেন্ডারবাজি, মাদক ব্যবসা আর টাকার বিনিময়ে কমিটি গঠনসহ নানা অভিযোগে অভিযুক্ত ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি-সেক্রেটারী যখন খাদের কিনারে ঠিক এমনই মুহুর্তে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সদ্যসাবেক সাধারণ সম্পাদক কেন্দ্রীয় নেত্রিত্বের বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ তুলে বোমা ফাটিয়েছেন। ফেসবুকে তিনি স্ট্যাটাস দিয়ে বিশদ আকারে অভিযোগ করেছেন। নি¤েœ তা হুবহু তুলে ধরা হলো-


জনাব শোভন, রাব্বানী সাহেব...
কেমন আছেন? মধুচন্দ্রিমা তো শেষ, এখন তো আর পায়ের তলায় মাটি খুঁজে পাবেন না। নিজেদেরকে মহাপ্রতাপশালী ভেবেছিলেন, এখন দেখেন আপনাদের খুটির জোর কতটুকু। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরতœ শেখ হাসিনা অনেক প্রত্যাশা নিয়ে আপনাদেরকে নেতা বানিয়েছিল, আর আপনারা আপাকে কষ্ট দিলেন?? আপা আপনাদেকে ক্ষমতা যেভাবে দিয়েছেন, আবার নিয়েও যাচ্ছেন। ছাত্রলীগের ইতিহাসে একমাত্র সভাপতি সাধারণ সম্পাদক আপানারা যারা কিনা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বাসভবন গনভবনে প্রবেশে নিষিদ্ধ হয়েছেন।
জনাব রাব্বানী সাহেব, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের কমিটি স্থগিত করে আমাকে আর তরিকুল কে ডেকে নিয়ে মাসে কত টাকা করে যেন চেয়েছিলেন কমিটি ঠিক করে দেওয়ার জন্য?? আর জগন্নাথের নতুন ক্যাম্পাসে বালু ভরাটের কাজের জন্য যে ঠিকাদারটা পাঠিয়েছিলেন তার নাম মনে আছে?? বালু ভরাট ঘনফুট কত টাকা করে যেন বলেছিলেন?? আপনি ভুলে গেলেও আমি ভুলিনাই। সেগুলো প্রমাণসহ দেওয়া হয়েছে। আমাদের কমিটি ভেঙে যে মজাটা নিয়েছিলেন সেই মজা টা এখন আমি পাচ্ছি। আমরা বারবার বলার পর ও পূর্ণাঙ্গ কমিটি করতে না দিয়েই আমাদের কমিটি বিলুপ্ত করলেন। এখন তো মনে হচ্ছে আপনারাও আর কোন ইউনিট কমিটি দিতে পারবেন না। আপনাদের এত ক্ষমতা তাহলে ফেব্রুয়ারিতে জগন্নাথের কমিটি বিলুপ্ত করে এখনো কমিটি দিতে পারলেন না কেন?? নাকি পোলাপাইনগুলোকে পিছনে পিছনে ঘুরিয়ে প্রটোকল নেওয়ার ধান্দা।।।

এসব ভন্ডামী ছাত্রসমাজ বুঝে গেছে।। ১ বছর ২ মাসে ১১০টি সাংগঠনিক জেলা ইউনিটের মধ্যে মাত্র ২টা কমিটি দিয়েছেন, তাও ইবি ছাত্রলীগের কমিটিতে ৪০ লক্ষ টাকা লেনদেন হয়েছে। যদিও টাকা লেনদেনের বিনিময়ে কয়েকটি উপজেলা কমিটি দিয়েছেন। বাকি ১০৮ ইউনিট কমিটি মনে হয় না আর দিতে পারবেন, যদি না দেশরতœ আপনাদেরকে ক্ষমা করে শেষ সুযোগ না দেন।
দেশরতেœর সাথে যে অন্যায় করেছেন সবকিছুর জন্য ক্ষমা চেয়ে দেশরতœ থেকে কয়েক মাস সময় চেয়ে নিয়ে মেয়াদ পূর্ণ করে যেন বিদায় নিতে পারেন এই কামনা করি।

চতুর্দিকে শুধু লুট, একটি পর্দার দাম ৩৭ লাখ: ফখরুল
                                  

স্বাধীন বাংলা রিপোর্ট: ‘৩৭ লাখ টাকা একটা পর্দা। বালিশ কোথায়, বালিশতো হেরে গেছে। এই হচ্ছে এখন অবস্থা। চতুর্দিকে শুধু লুট আর লুট বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। রূপপুরের পরমাণু বিদ্যুৎকেন্দ্রের বালিশ কেনা নিয়ে দুর্নীতিকে ফরিদপুরের ‘পর্দা দুর্নীতি’ হার মানিয়েছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

শুক্রবার বিকালে জাতীয় প্রেসক্লাবে সাবেক অর্থমন্ত্রী সাইফুর রহমানের ১০ম মৃত্যুবার্ষিকীতে স্মরণসভা ও দোয়া মাহফিলে বক্তব্য রাখছিলেন বিএনপি মহাসচিব।

রূপপুরে পরমাণু বিদ্যুৎ প্রকল্পে কর্মকর্তাদের জন্য যে ডরমিটরি বানানো হচ্ছে, সেখানে উচ্চমূল্যে আসবাবপত্র এবং তা উঠানোর অস্বাভাবিক খরচ নিয়ে তীব্র সমালোচনা চলছে। এর মধ্যে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে যন্ত্রপাতি কেনার ক্ষেত্রে অস্বাভাবিক বিল করার অভিযোগ উঠেছে।

যে প্রতিষ্ঠানটি যন্ত্রপাতি সরবরাহ করেছে, তারা ১০ কোটি টাকা অতিরিক্ত বিল করেছে অভিযোগ করে টাকা আটকে দিয়েছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। এরপর ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানটি যায় হাইকোর্টে। আর তখন জানা যায়, আইসিইউ এর একটি পর্দার জন্য ৩৭ লাখ টাকা বিল করা হয়েছে।

প্রায় তিন হাজার কোটি টাকা ঋণ জালিয়াতিতে জড়িত হলমার্ককে আবার চালু করতে সহযোগিতার উদ্যোগেরও সমালোচনা করেন ফখরুল। বলেন, ‘লুটেরা অর্থনীতিকে আবার লুটেরাদের হাতে দেওয়া হবে। এটাই এদের (সরকার) মূল চরিত্র।’

‘এদের চরিত্রই হচ্ছে লুটেরা। চারদিকে সব লুট করছে। এমনভাবে লুট করছে, দেশটা একটা ফোকলা দেশে পরিণত হয়েছে।’

মিথ্যা মামলায় হয়রানীর শিকার আ.লীগ নেতা
                                  

নিজস্ব প্রতিবেদক: বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় ধর্ম বিষয়ক উপ কমিটির সদস্য, সজিব ওয়াজেদ পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির চেয়ারম্যান মো. মতিউর রহমান টিপুকে মিথ্যা মামলায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গণমাধ্যমে পাঠানো একটি সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সজিব ওয়াজেদ জয় পরিষদ একটি অরাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠন। দেশের বৃহত্তর স্বার্থে এই সংগঠনটি সেবামূলক কাজ করে আসছে। কিন্তু কিছু স্বার্থন্বেসী মহল সজিব ওয়াজেদ পরিষদের কেন্দ্রীয় চেয়ারম্যান মো. মতিউর রহমান টিপুকে হেয় প্রতিপন্ন ও সংগঠনটির সুনাম ও ভাবমুক্তি নষ্ট করার লক্ষ্যে গত ৬ আগষ্ট ডেঙ্গু মহামারী ও সংকট উল্লেখ করে সরকারের ভাবমুর্তি বিনষ্ট করা লক্ষ্যে মতিউর রহমান টিপুর পক্ষে বিজ্ঞাপন প্রচার করা হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে আরো বলা হয়, উক্ত বিজ্ঞাপনের সাথে সে কোন ভাবেই সম্পৃক্ত নয় এবং স্বাক্ষর ও তার নয়। তাই উক্ত বিজ্ঞাপনটির তীব্র প্রতিবাদ জানান এবং সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে প্রতিকার চান। সজিব ওয়াজেদ জয় পরিষদ লাখো তরুণের স্বপ্নের দেশ গড়ার এই নিবেদিত প্রাণ আওয়ামী লীগ নেতা লায়ন মতিউর রহমান টিপুর বিরুদ্ধে সকল প্রকার ষড়যন্ত্র প্রতিহত করার আহ্বান জানান।                      


   Page 1 of 78
     রাজনীতি
সরকার ছাত্ররাজনীতি বন্ধের পক্ষে নয়: কাদের
.............................................................................................
ফাহাদ হত্যায় জড়িতদের বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়া হবে : ওবায়দুল কাদের
.............................................................................................
দুর্বৃত্তায়নের চক্র ভেঙে দিতেই শুদ্ধি অভিযান : ওবায়দুল কাদের
.............................................................................................
সরকারের পায়ের নিচে মাটি নাই: খন্দকার মাহবুব
.............................................................................................
বিএনপি নেতাদের অবৈধ সম্পদের তথ্যও বের করা হবে : ওবায়দুল কাদের
.............................................................................................
বাহ! হুইপপুত্রের অস্ত্র মহড়া
.............................................................................................
ঢাবিতে ধর্মভিত্তিক রাজনীতি নিষিদ্ধের সিদ্ধান্ত বাতিলের দাবী ইসলামী আন্দোলনের
.............................................................................................
ফিতা কাটতে একদিনই ওই ক্লাবে গিয়েছি : মেনন
.............................................................................................
বিএনপির উচিত প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ দেওয়া : ওবায়দুল কাদের
.............................................................................................
ফেসবুকে পোস্ট দিয়ে ক্ষমা চাইলেন রাব্বানী
.............................................................................................
এবার সিনেট থেকে পদত্যাগ চেয়ে শোভনের আবেদন
.............................................................................................
বঙ্গবন্ধুর ছাত্রলীগ কখনো আদর্শচ্যুত হতে পারে না: জয়
.............................................................................................
ছাত্রদলের নিজেদের মামলয় কাউন্সিল বন্ধ: কাদের
.............................................................................................
শোভন-রব্বানীর বিরুদ্ধে নতুন বোমা ফাটালেন জগন্নাথের জয়নুল আবেদীন রাসেল
.............................................................................................
চতুর্দিকে শুধু লুট, একটি পর্দার দাম ৩৭ লাখ: ফখরুল
.............................................................................................
মিথ্যা মামলায় হয়রানীর শিকার আ.লীগ নেতা
.............................................................................................
‘জনগণের পকেট কাটতেই মহাসড়কে টোল আদায়ের সিদ্ধান্ত’
.............................................................................................
জি এম কাদেরের হুঁশিয়ারি
.............................................................................................
রওশনকে চেয়ারম্যান ঘোষণা জাপার একাংশের
.............................................................................................
এরশাদের আসনে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করলেন সাদ
.............................................................................................
বৃহত্তর ঐক্য গড়ার লক্ষ্য বিএনপির
.............................................................................................
‘মুজিব মনে মুক্তি’ নাটকের প্রদর্শনী শুরু
.............................................................................................
কৃষক লীগের আলোচনা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত
.............................................................................................
১০ কাঠার প্লট চেয়ে রুমিন ফারহানার আবেদন
.............................................................................................
ভৈরবে আইভি রহমানের মৃত্যু বার্ষিকী পালন
.............................................................................................
তারেককে ফিরিয়ে আনতে সরকার সর্বাত্মক চেষ্টা করছে : ওবায়দুল কাদের
.............................................................................................
জামায়াত নেতার নাতনি শ্রমিকলীগ নেত্রী
.............................................................................................
তৃণমূল থেকে ওপর পর্যন্ত লুটপাট চলছে: মির্জা ফখরুল
.............................................................................................
১৪ সেপ্টেম্বর ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় কাউন্সিল
.............................................................................................
খালেদার মুক্তির দাবিতে নারায়ণগঞ্জে মানববন্ধন
.............................................................................................
ডেঙ্গু ও আদালতে বিচারকের সামনে মানুষ হত্যা এটাও নাকি গুজব: খন্দকার মোশারফ হোসেন
.............................................................................................
ব্রাহ্মণবাড়িয়া আওয়ামীলীগের সভায় প্রশাসনের বিরুদ্ধে ক্ষোভ
.............................................................................................
গুজবের ফ্যাক্টরি বিএনপির কার্যালয় : কাদের
.............................................................................................
গুজবে গ্রেফতার ৭০ ভাগই বিএনপি জামায়াতের : তথ্যমন্ত্রী
.............................................................................................
অজুহাত দেখাবেন না-গ্যাসের দাম কমান : রিজভী
.............................................................................................
জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ছাড়লেন কাদের সিদ্দিকী
.............................................................................................
সারাদেশে বাম জোটের হরতাল চলছে
.............................................................................................
মহানগর দক্ষিণ ছাত্রলীগের কমিটিতে পটুয়াখালীর কৃতী সন্তান সাইফুর রহমান শামীম
.............................................................................................
আওয়ামী লীগের ৭০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী আজ
.............................................................................................
বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার হলে জিয়া হত্যাকাণ্ড ঘটতো না: গণপূর্ত মন্ত্রী
.............................................................................................
বিএনপির স্থায়ী কমিটিতে সেলিমা-টুকু
.............................................................................................
টেকসই অর্থনীতির ভীত রচনার বাজেট : ওবায়দুল কাদের
.............................................................................................
বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ছাত্রদলের তালা
.............................................................................................
খালেদা জিয়ার মুক্তি ও সুচিকিৎসার দাবিতে গণঅনশনে বিএনপি
.............................................................................................
আ.লীগকে চিরতরে বিদায় করতে পুরোপুরি প্রস্তুতি নিয়ে মাঠে নামব
.............................................................................................
সিঙ্গাপুর নেয়া হবে ওবায়দুল কাদেরকে
.............................................................................................
গুরুতর অসুস্থ হয়ে আইসিইউতে ওবায়দুল কাদের
.............................................................................................
বিডিআর বিদ্রোহ একটি পরিকল্পিত ষড়যন্ত্র : মির্জা ফখরুল
.............................................................................................
জামায়াত বিলুপ্ত করার পরামর্শ দিয়ে ব্যারিস্টার রাজ্জাকের পদত্যাগ
.............................................................................................
বিএনপির পুনরায় নির্বাচনের দাবি শিশুসুলভ: চট্টগ্রামে তথ্যমন্ত্রী
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

সম্পাদক ও প্রকাশক : মোহাম্মদ আখলাকুল আম্বিয়া
নির্বাহী সম্পাদক: মাে: মাহবুবুল আম্বিয়া

সম্পাদকীয় ও বাণিজ্যিক কার্যালয়: স্বাধীনতা ভবন (৩য় তলা), ৮৮ মতিঝিল বাণিজ্যিক এলাকা, ঢাকা-১০০০। Editorial & Commercial Office: Swadhinota Bhaban (2nd Floor), 88 Motijheel, Dhaka-1000.
সম্পাদক কর্তৃক রঙতুলি প্রিন্টার্স ১৯৩/ডি, মমতাজ ম্যানশন, ফকিরাপুল কালভার্ট রোড, মতিঝিল, ঢাকা-১০০০ থেকে মুদ্রিত ও প্রকাশিত ।
ফোন : ০২-৯৫৫২২৯১ মোবাইল: ০১৬৭০৬৬১৩৭৭

Phone: 02-9552291 Mobile: +8801670 661377
ই-মেইল : dailyswadhinbangla@gmail.com , editor@dailyswadhinbangla.com, news@dailyswadhinbangla.com

 

    2015 @ All Right Reserved By dailyswadhinbangla.com

Developed By: Nytasoft