মঙ্গলবার, ১৮ ডিসেম্বর ২০১৮ | বাংলার জন্য ক্লিক করুন
  
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   রাজনীতি -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
২২টি আসন পেল জামায়াত

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মনোনয়ন প্রত্যাহারের শেষ দিন আজ।এর কয়েক ঘন্টা আগে ৩০০ আসনে প্রার্থী চূড়ান্ত করল বিএনপির নেতৃত্বাধীন দুই জোট।
বিএনপি, জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শরিক দলগুলো এবং ২০ দলের শরিক দলগুলোর নেতারা কে কোন আসনে জোটের হয়ে ভোট করবেন তার চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশ করেছে বিএনপি।
শুক্রবার রাতে দলের প্রার্থীদের আংশিক চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশ করে বিএনপি।আর গতকাল শনিবার জাতীয় ঐক্যফন্ট ও ২০ দলের প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করা হয়।
এতে দেখা গেছে, ৩০০ আসনের মধ্যে ৫৭ আসনে জোটের শরিকদের ছাড় দিয়েছে বিএনপি।এর মধ্যে ২০ দলীয় জোটের শরিকদের ৩৮টি আর ঐক্যফ্রন্টের শরিদের জন্য ছেড়ে দেয়া হয়েছে ১৯টি আসন।শনিবার রাতে এ সংক্রান্ত চিঠি শরিক ও ঐক্যফ্রন্ট নেতাদের হাতে তুলে দেয়া হয়।
জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ও ২০ দলীয় জোটের প্রার্থীরা ‘ধানের শীষ’ প্রতীকে নির্বাচনে লড়বেন। শুধু ২০ দলের শরিক এলডিপির চেয়ারম্যান অলি আহমদ নিজ দলের ‘ছাতা’ প্রতীকে ভোট করবেন।
জানা গেছে, বিএনপির দুই জোটে দল রয়েছে ২৭টি। এর মধ্যে ২০ দলে ২৩ দল। আর জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে দল আছে চারটি।
শরিকদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি আসনে জামায়াতকে ছাড় দিয়েছে বিএনপি। ২০ দলীয় শরিকদের মধ্যে জামায়াতে ইসলামীকে ২২টি আসন দেয়া হয়েছে।যদিও জামায়াতকে আসন বণ্টনের শুরুতে ২৫ টি আসনে ছাড় দেয়ার কথা ছিল।এ নিয়ে জামায়াতে চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে।
জানা গেছে, শেষ মুহূর্তে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী তালিকা বড় হয় যাওয়ায় ২০ দলকে কিছু আসন কম দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয় বিএনপি।স্বভাবতই জামায়াতের আসন বেশি হওয়ায় তাদের থেকে তিনটি আসন ছেটে ফেলা হয়েছে।
বিএনপির মহাসচিবসহ শীর্ষ নেতারা আগেই বলে রেখেছিলেন দুই জোটের শরিকদের সর্বোচ্চ ৬০টি আসন দেয়া হবে।এর মধ্যে জামায়াত-ই সর্বাধিক আসন পাবে সেটিও মোটামুটি নিশ্চিত ছিল।
বিএনপি নেতারা শুরুতে চেয়েছিলেন ৪০ থেকে ৪২ টি আসন দেয়া হবে ২০ দলকে। আর ১৫ থেকে ১৮টি আসনে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টকে দেয়া হবে।২০ দলের সঙ্গে এটি নিয়ে বিএনপির এক ধরণের সমঝোতাও হয়ে গিয়েছিল।
সবশেষ সেই হিসেবে গোল বাধে যখন ঐক্যফ্রন্টের শরিক দলগুলো বিএনপির সঙ্গে দরকষাকষি শুরু করে।তাদের প্রার্থী তালিকা ছিল অনেক বড়।তাদের সঙ্গে দফায় দফায় বৈঠক করেও আসন বণ্টন নিয়ে সমঝোতা হচ্ছিল না।
এ কারণে প্রার্থী তালিকা প্রকাশও দেরি হয় জোটের। কয়েক দফা সময় দিয়েও কথা রাখতে পারেন নি জোট নেতারা।
অবশেষে ঐক্যফ্রন্টকে ১৯ টি আসন দিয়ে সন্তুষ্ট করেছে বিএনপি।ঐক্যফ্রন্টকে সন্তুষ্ট করতে গিয়ে ২০ দলের প্রার্থী তালিকা ছেটে ফেলতে হয়।২০ দলের বরাদ্দ থেকে ৩-৪টি আসন দেয়া হয় ঐক্যফ্রন্টকে।
এর জন্য জামায়াতকে দুই-তিনটি আসন কম দেয়া হয়েছে।এতে ক্ষুব্ধ জামায়াত নেতারা হুমকি দেন, প্রতিশ্রুত আসন না দিলে তারা ‘ভিন্ন চিন্তা’ করতে বাধ্য হবেন।
২০ দলের শরিকদের মধ্যে দ্বিতীয় সর্বাধিক আসন পেয়েছে এলডিপি (৫)। জমিয়তে ওলামায়ে ইসলাম ৩, জাতীয় পার্টি (জাফর) ২, বিজেপি ১, এনপিপি ১, বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টি ১, খেলাফত মজলিস ২, পিপলস পার্টি অব বাংলাদেশকে ১টি আসন দিয়েছে বিএনপি।
জাতীয় ঐক্যফ্রন্টকে ১৯টি আসন ছাড় দেয়া হয়। এর মধ্যে সর্বাধিক আসন পেয়েছে গণফোরাম ৬। জেএসডি ৫, নাগরিক ঐক্য ৫ ও কৃষক শ্রমিক জনতা লীগকে ৩টি আসন ছেড়ে দেয়া হয়েছে। তবে এখনও গণফোরামের সঙ্গে কয়েকটি আসন নিয়ে দরকাষাকষি চলছে।

জামায়াতের ২২ আসন
জামায়াত নেতাদের মধ্যে চিঠি পেয়েছেন- দিনাজপুর-১ মোহাম্মদ হানিফ, দিনাজপুর-৬ মোহাম্মদ আনোয়ারুল ইসলাম, নীলফামারী-২ মনিরুজ্জামান মন্টু, নীলফামারী-৩ মোহাম্মদ আজিজুল ইসলাম, গাইবান্ধা-১ মাজেদুর রহমান সরকার, সিরাজগঞ্জ-৪ মাওলানা রফিকুল ইসলাম খান, পাবনা-৫ মাওলানা ইকবাল হুসাইন, ঝিনাইদহ-৩ অধ্যাপক মতিয়ার রহমান, যশোর-২ আবু সাঈদ মুহাম্মদ শাহাদাত হোসাইন, বাগেরহাট-৩ অ্যাডভোকেট আবদুল ওয়াদুদ, বাগেরহাট-৪ অধ্যাপক আবদুল আলীম, খুলনা-৫ অধ্যাপক মিয়া গোলাম পরওয়ার, খুলনা-৬ মাওলানা আবুল কালাম আযাদ, সাতক্ষীরা-২ মুহাদ্দিস আবদুল খালেক, সাতক্ষীরা-৩ মুফতি রবিউল বাশার, সাতক্ষীরা-৪ গাজী নজরুল ইসলাম, পিরোজপুর-১ শামীম সাঈদী, ঢাকা-১৫ ডা. শফিকুর রহমান, সিলেট-৬ মাওলানা হাবিবুর রহমান, কুমিল্লা-১১ ডা. আবদুল্লাহ মো. তাহের, চট্টগ্রাম ১৫ আ ন ম শামসুল ইসলাম ও কক্সবাজার-২ হামিদুর রহমান আযাদ।

২২টি আসন পেল জামায়াত
                                  

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মনোনয়ন প্রত্যাহারের শেষ দিন আজ।এর কয়েক ঘন্টা আগে ৩০০ আসনে প্রার্থী চূড়ান্ত করল বিএনপির নেতৃত্বাধীন দুই জোট।
বিএনপি, জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শরিক দলগুলো এবং ২০ দলের শরিক দলগুলোর নেতারা কে কোন আসনে জোটের হয়ে ভোট করবেন তার চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশ করেছে বিএনপি।
শুক্রবার রাতে দলের প্রার্থীদের আংশিক চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশ করে বিএনপি।আর গতকাল শনিবার জাতীয় ঐক্যফন্ট ও ২০ দলের প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করা হয়।
এতে দেখা গেছে, ৩০০ আসনের মধ্যে ৫৭ আসনে জোটের শরিকদের ছাড় দিয়েছে বিএনপি।এর মধ্যে ২০ দলীয় জোটের শরিকদের ৩৮টি আর ঐক্যফ্রন্টের শরিদের জন্য ছেড়ে দেয়া হয়েছে ১৯টি আসন।শনিবার রাতে এ সংক্রান্ত চিঠি শরিক ও ঐক্যফ্রন্ট নেতাদের হাতে তুলে দেয়া হয়।
জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ও ২০ দলীয় জোটের প্রার্থীরা ‘ধানের শীষ’ প্রতীকে নির্বাচনে লড়বেন। শুধু ২০ দলের শরিক এলডিপির চেয়ারম্যান অলি আহমদ নিজ দলের ‘ছাতা’ প্রতীকে ভোট করবেন।
জানা গেছে, বিএনপির দুই জোটে দল রয়েছে ২৭টি। এর মধ্যে ২০ দলে ২৩ দল। আর জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে দল আছে চারটি।
শরিকদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি আসনে জামায়াতকে ছাড় দিয়েছে বিএনপি। ২০ দলীয় শরিকদের মধ্যে জামায়াতে ইসলামীকে ২২টি আসন দেয়া হয়েছে।যদিও জামায়াতকে আসন বণ্টনের শুরুতে ২৫ টি আসনে ছাড় দেয়ার কথা ছিল।এ নিয়ে জামায়াতে চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে।
জানা গেছে, শেষ মুহূর্তে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী তালিকা বড় হয় যাওয়ায় ২০ দলকে কিছু আসন কম দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয় বিএনপি।স্বভাবতই জামায়াতের আসন বেশি হওয়ায় তাদের থেকে তিনটি আসন ছেটে ফেলা হয়েছে।
বিএনপির মহাসচিবসহ শীর্ষ নেতারা আগেই বলে রেখেছিলেন দুই জোটের শরিকদের সর্বোচ্চ ৬০টি আসন দেয়া হবে।এর মধ্যে জামায়াত-ই সর্বাধিক আসন পাবে সেটিও মোটামুটি নিশ্চিত ছিল।
বিএনপি নেতারা শুরুতে চেয়েছিলেন ৪০ থেকে ৪২ টি আসন দেয়া হবে ২০ দলকে। আর ১৫ থেকে ১৮টি আসনে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টকে দেয়া হবে।২০ দলের সঙ্গে এটি নিয়ে বিএনপির এক ধরণের সমঝোতাও হয়ে গিয়েছিল।
সবশেষ সেই হিসেবে গোল বাধে যখন ঐক্যফ্রন্টের শরিক দলগুলো বিএনপির সঙ্গে দরকষাকষি শুরু করে।তাদের প্রার্থী তালিকা ছিল অনেক বড়।তাদের সঙ্গে দফায় দফায় বৈঠক করেও আসন বণ্টন নিয়ে সমঝোতা হচ্ছিল না।
এ কারণে প্রার্থী তালিকা প্রকাশও দেরি হয় জোটের। কয়েক দফা সময় দিয়েও কথা রাখতে পারেন নি জোট নেতারা।
অবশেষে ঐক্যফ্রন্টকে ১৯ টি আসন দিয়ে সন্তুষ্ট করেছে বিএনপি।ঐক্যফ্রন্টকে সন্তুষ্ট করতে গিয়ে ২০ দলের প্রার্থী তালিকা ছেটে ফেলতে হয়।২০ দলের বরাদ্দ থেকে ৩-৪টি আসন দেয়া হয় ঐক্যফ্রন্টকে।
এর জন্য জামায়াতকে দুই-তিনটি আসন কম দেয়া হয়েছে।এতে ক্ষুব্ধ জামায়াত নেতারা হুমকি দেন, প্রতিশ্রুত আসন না দিলে তারা ‘ভিন্ন চিন্তা’ করতে বাধ্য হবেন।
২০ দলের শরিকদের মধ্যে দ্বিতীয় সর্বাধিক আসন পেয়েছে এলডিপি (৫)। জমিয়তে ওলামায়ে ইসলাম ৩, জাতীয় পার্টি (জাফর) ২, বিজেপি ১, এনপিপি ১, বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টি ১, খেলাফত মজলিস ২, পিপলস পার্টি অব বাংলাদেশকে ১টি আসন দিয়েছে বিএনপি।
জাতীয় ঐক্যফ্রন্টকে ১৯টি আসন ছাড় দেয়া হয়। এর মধ্যে সর্বাধিক আসন পেয়েছে গণফোরাম ৬। জেএসডি ৫, নাগরিক ঐক্য ৫ ও কৃষক শ্রমিক জনতা লীগকে ৩টি আসন ছেড়ে দেয়া হয়েছে। তবে এখনও গণফোরামের সঙ্গে কয়েকটি আসন নিয়ে দরকাষাকষি চলছে।

জামায়াতের ২২ আসন
জামায়াত নেতাদের মধ্যে চিঠি পেয়েছেন- দিনাজপুর-১ মোহাম্মদ হানিফ, দিনাজপুর-৬ মোহাম্মদ আনোয়ারুল ইসলাম, নীলফামারী-২ মনিরুজ্জামান মন্টু, নীলফামারী-৩ মোহাম্মদ আজিজুল ইসলাম, গাইবান্ধা-১ মাজেদুর রহমান সরকার, সিরাজগঞ্জ-৪ মাওলানা রফিকুল ইসলাম খান, পাবনা-৫ মাওলানা ইকবাল হুসাইন, ঝিনাইদহ-৩ অধ্যাপক মতিয়ার রহমান, যশোর-২ আবু সাঈদ মুহাম্মদ শাহাদাত হোসাইন, বাগেরহাট-৩ অ্যাডভোকেট আবদুল ওয়াদুদ, বাগেরহাট-৪ অধ্যাপক আবদুল আলীম, খুলনা-৫ অধ্যাপক মিয়া গোলাম পরওয়ার, খুলনা-৬ মাওলানা আবুল কালাম আযাদ, সাতক্ষীরা-২ মুহাদ্দিস আবদুল খালেক, সাতক্ষীরা-৩ মুফতি রবিউল বাশার, সাতক্ষীরা-৪ গাজী নজরুল ইসলাম, পিরোজপুর-১ শামীম সাঈদী, ঢাকা-১৫ ডা. শফিকুর রহমান, সিলেট-৬ মাওলানা হাবিবুর রহমান, কুমিল্লা-১১ ডা. আবদুল্লাহ মো. তাহের, চট্টগ্রাম ১৫ আ ন ম শামসুল ইসলাম ও কক্সবাজার-২ হামিদুর রহমান আযাদ।

চূড়ান্ত মনোনয়নে পেলেন বিএনপির ২০৬ প্রার্থী
                                  

স্বাধীন বাংলা রিপোর্ট: আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থী হিসেবে ২০৬ জনকে চূড়ান্ত মনোনয়ন দিয়েছে বিএনপি। শুক্রবার গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এ প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করেন।
তিনি জানান, ২০ দলীয় জোট এবং ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থীদের তালিকা শনিবার ঘোষণা করা হবে। নির্বাচন কমিশনে আপিল করে যারা প্রার্থিতা ফিরে পাবেন, তাদের নামও সেখানে আসবে।

মির্জা ফখরুল বলেন, “এই নির্বাচনে শত প্রতিকূলতা সত্ত্বেও আমরা অংশ নিচ্ছি আন্দোলনের অংশ হিসেবে। আমাদের মনোনয়নপ্রত্যাশী প্রার্থীদের বিভিন্ন রকমের সমস্যা তৈরি করেছে, বাঁধা সৃষ্টি করা হয়েছে। সেখান থেকে অনেকে বেরিয়ে এসেছে। সেজন্য আমরা আজকে বিএনপির ২০৬ জনের চূড়ান্ত নামের তালিকা প্রকাশ করছি।”

জিয়া এতিমখানা ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় ১০ বছর এবং জিয়া দাতব্য ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় ৭ বছরের দণ্ড নিয়ে গত ফেব্রুয়ারি থেকে কারাগারে আছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। ফেনী-১, বগুড়া-৬ ও বগুড়া-৭ আসনে তার মনোনয়নপত্র বাতিলের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে শনিবার নির্বাচন কমিশনে আপিল শুনানি হবে।

অধিকাংশ নেতার বিরুদ্ধে মামলা থাকায় বিএনপি এবার নির্বাচনী কৌশল হিসেবে ৩০০ আসনে প্রাথমিক মনোনয়ন দিয়েছিল ৬৯৬ জনকে। রিটার্নিং কর্মকর্তার বাছাইয়ে তাদের মধ্যে ৫৫৫ জনের মনোনয়ন বৈধ ঘোষণা করা হয়।

মনোনয়নপত্র বাতিল হওয়া প্রার্থীদের মধ্যে বৃহস্পতিবার ও শুক্রবার মিলিয়ে আরও অর্ধশতাধিক বিএনপি নেতা প্রার্থিতা ফিরে পেয়েছেন। শনিবার শুনানি শেষ হলে তাদের সঠিক সংখ্যাটি জানা যাবে।  

৯ ডিসেম্বর মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ তারিখের আগেই ৩০০ আসনে বিএনপির মনোনীত প্রর্থীদের চূড়ান্ত তালিকা নির্বাচন কমিশনে পাঠাতে হবে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে।

দুর্নীতিতে দণ্ডিত খালেদা জিয়াকে কারাগারে রেখে নির্বাচন করতে গিয়ে বিএনপি এবার জোট বেঁধেছে কামাল হোসেনের ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে। সঙ্গে আগের ২০ দলীয় ঐক্যজোটও রয়েছে।

জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ও ২০ দলীয় জোটের প্রার্থীরা বিএনপির প্রতীক ‘ধানের শীষ’ নিয়ে একাদশ নির্বাচনে প্রতিদ্বিন্দ্বিতা করবে। তবে জোট শরিক এলডিপির(লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি) চেয়ারম্যান অলি আহমেদ চট্টগ্রাম-১৪ আসনে নিজের দলের প্রতীক ‘ছাতা’ নিয়ে নির্বাচনে লড়বেন।

মনোনীতদের চূড়ান্ত তালিকা ইসিতে পাঠানোর আগে মির্জা ফখরুলকে জোট শরিকদের সঙ্গে আসন ভাগাভাগির ফয়সালা করতে হবে।

বিএনপির আংশিক প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করার আগে শুক্রবার দুপুরে জোট শরিক গণফোরামের সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মহসিন মন্টু ও নির্বাহী সভাপতি সুব্রত চৌধুরীর সঙ্গে দেড় ঘণ্টা বৈঠক করেন মির্জা ফখরুল। বিএনপি কার্যালয় থেকে বলা হয়, আসন বণ্টান নিয়ে সমাধান করতেই তাদের এ বৈঠক।

অন্যদিকে চূড়ান্ত মনোনয়নের চিঠির পেতে কার্যালয়ের সামনে অপেক্ষায় ছিলেন বিএনপির প্রার্থী ও তাদের সমর্থকরা। জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী তালিকা পুরানা পল্টনের অস্থায়ী কার্যালয় থেকে বিকাল ৩টায় ঘোষণা করার কথা থাকলেও শেষ মুহূর্তে তা স্থগিত করা হয়।

পরে বিএনপির প্রার্থীদের নাম ঘোষণা করে হাসচিব বলেন,“আমরা অনেক বিবেচনার পরে আমাদের স্থায়ী কমিটির পূর্ণ আলোচনার পরে এই প্রার্থীরা মনোনীত হয়েছেন।

“আমাদের দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ও আমাদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান সাহেব, তারা আবেদন করেছেন প্রত্যেক প্রার্থীর কাছে এবং জাতীয়তাবাদী দলের নেতা-কর্মীদের প্রতি- এই নির্বাচনকে আন্দোলনের অংশ হিসেবে নিয়ে প্রতিটি প্রার্থীকে জয়যুক্ত করবার জন্য সর্বাত্মকভাবে প্রচেষ্টা গ্রহণ করতে হবে।”

কোনো রকম মতদ্বৈততা বা মতবিরোধ যাতে তৈরি না হয়, সে বিষয়ে দলের সবাইকে সতর্ক করেন মির্জা ফখরুল।

তিনি বলেন, “আমরা জাতির কাছে আহ্বান জানাচ্ছি, সত্যিকার অর্থে গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার জন্য ও দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করার জন্য আমাদের এই নির্বাচনে ২০ দল ও জাতীয় ঐ্ক্যফ্রন্টের প্রার্থীদের বিজয়ী করতে হবে। এর মাধ্যমে গণতন্ত্রের বিজয় হবে।”

অন্যদের মধ্যে বিএনপি চেয়ারপারসনের একান্ত সচিব আবদুস সাত্তার ও দলের নির্বাহী কমিটির সদস্য তাবিথ আওয়াল সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সম্মেলনে তালিকা পড়ে শোনানোর পরপরই ফখরুল জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা কামাল হোসেনের সঙ্গে দেখা করতে মতিঝিলে তার চেম্বারে চলে যান।

শ্রীমঙ্গলে যুবলীগের বর্ধিত কর্মীসভা অনুষ্টিত
                                  

ঝলক দত্ত,(শ্রীমঙ্গল মৌলভীবাজার): শ্রীমঙ্গল উপজেলা যুবলীগের বর্ধিত সভা অনুষ্টিত হয়েছে। আজ মঙ্গলবার পৌর শহরের স্টার কমিউনিটি সেন্টারে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। প্রধান অতিথি উপস্থিত ছিলেন সরকারি প্রতিশ্রুতি সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি উপাধ্যক্ষ ড. মো. আব্দুস শহীদ এমপি।
বিশেষ অতিথি উপস্থিত ছিলেন শ্রীমঙ্গল উপজেলা চেয়ারম্যান রনধীন কুমার দেব, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ফজলুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক অধ্যক্ষ সৈয়দ মরসুরুল হক, জেলা যুবলীগের সভাপতি নাহিদ আহম্মদ, সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ রেজাউর রহমান সুমন।
শ্রীমঙ্গল উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক ছালিক আহম্মেদ ও পৌর যুবলীগের সভাপতি আকবর হোসেন শাহিনের সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন অর্ধেন্দু কুমার দেব বেভুল, শহীদ হোসেন ইকবাল, শহীদুর রহমান শহীদ, আবু তালেব বাদশা, মোমিনুল হোসেন সোহেল, শেরজাহান আলী সেজু, কামরুল হাসান দোলন প্রমুখ।

সভায় একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নৌকার প্রার্থী উপাধ্যক্ষ ড. মো. আব্দুস শহীদ এমপি’র বিজয় নিশ্চিত করার লক্ষ্য উপজেলার ৮০টি ভোট কেন্দ্রে যুবলীগের কমিটি গঠনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

সব প্রার্থীকে সমান চোখে দেখতে হবে: সিইসি
                                  

স্বাধীন বাংলা রিপোর্ট: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সবার সমান সুযোগ নিশ্চিত করতে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটদের নির্দেশনা দিয়ে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নুরুল হুদা বলেছেন, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটদের তাৎক্ষণিকভাবে অনেক সিদ্ধান্ত নিতে হবে। এ কারণে তাদের নির্বাচনের আচরণবিধি, ফৌজদারি কার্যবিধি, দণ্ডবিধি পড়তে হবে।
সিইসি বলেন, সব প্রার্থীকে সমান চোখে দেখা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটদের দায়িত্ব। নিরপেক্ষভাবে দায়িত্ব পালন করতে হবে। প্রিসাইডিং অফিসারদের নিরাপত্তা বিধান করতে হবে। তাঁদের পরিচালনা নয়, সহায়তা করতে হবে।
আসন্ন নির্বাচন উপলক্ষে আজ রবিবার সকালে নির্বাচন কমিশন ভবনে সিলেট, চট্টগ্রাম ও বরিশাল বিভাগের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটদের ব্রিফিংয়ে তিনি এ নির্দেশনা দেন।

‘মনোনয়নের সঙ্গে উইথড্রয়াল লেটারে স্বাক্ষর নেওয়া হচ্ছে’
                                  

স্বাধীন বাংলা রিপোর্ট: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীদের চিঠি দেয়া শুরু করেছে আওয়ামী লীগ। তবে মনোনয়ন পাওয়া প্রার্থীদের মনোনয়ন চিঠির সঙ্গে প্রত্যাহার চিঠিতেও স্বাক্ষর নিয়ে রাখা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন দলটির সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, যারা আজকে চিঠি নিচ্ছেন, প্রত্যেকের সই করা উইথড্রয়াল লেটার আছে। আজকে যারা চিঠি নিয়ে যাচ্ছেন প্রয়োজন হলে সেখান থেকেও শরিকদের আসন ছেড়ে দেয়া হবে।
রোববার সকাল থেকে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন পাওয়া প্রার্থীদের অনানুষ্ঠানিকভাবে চিঠি দেওয়া হচ্ছে।
আনুষ্ঠানিকভাবে আগামীকাল বিকাল সাড়ে তিনটায় জোটগত প্রার্থী ঘোষণা করা হবে।
ঠিক কতটি আসন শরিকদের দেয়া হয়েছে, তা জানতে চাইলে সাংবাদিকদের আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, আমি জানি কতটি আসন, কিন্তু বলব না। কাল আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেয়া হবে। তবে, জোটের আসন ৭০ টির বেশি হবে না।
ওবায়দুল কাদের বলেন, কোনো কোনো আসনে মনোনয়নের চিঠি দুটিও দেয়া হয়েছে। এটি টেকনিক্যাল কারণে। সময় ও পরিস্থিতি বিবেচনায় প্রার্থী বদলাতেও হতে পারে। অন্য প্রার্থী বেশি শক্তিশালী হলে দলের প্রার্থী বিবেচনা করা হবে।

আ.লীগ থেকে আরও মনোনয়ন পাচ্ছেন যাঁরা
                                  

নিজস্ব প্রতিবেদক: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নেতত্বাধীন মহাজোটের প্রায় ৩০০ আসনের প্রার্থী চূড়ান্ত হয়েছে। এর মধ্যে আওয়ামী লীগের চূড়ান্ত প্রার্থীদের মনোনয়নের চিঠিও দেয়া হয়েছে। আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনার স্বাক্ষর করা মনোনয়ন চিঠি রোববার থেকে বিতরণ করা হয়। দলের সাধারণ সম্পাদক ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের চিঠি বিতরণ করছেন।
দলীয় মনোনয়নের চিঠি যাঁরা পেয়েছেন, তাঁদের একটি তালিকা আওয়ামী লীগ সূত্রের কাছ থেকে সংগ্রহ করা হয়েছে। তালিকা অনুযায়ী প্রার্থীদের নাম দেওয়া হলো।
অ্যাডভোকেট নূরুল ইসলাম সুজন (পঞ্চগড়-২), রমেশচন্দ্র সেন (ঠাকুরগাঁও-১), দবিরুল ইসলাম (ঠাকুরগাঁও-২), খালিদ মাহমুদ চৌধুরী (দিনাজপুর-২), ইকবালুর রহিম (দিনাজপুর-৩), আবুল হাসান মাহমুদ আলী (দিনাজপুর-৪), অ্যাডভোকেট মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার (দিনাজপুর-৫), আসাদুজ্জামান নূর (নীলফামারী-২), মোতাহার হোসেন (লালমনিরহাট-১), নুরুজ্জামান আহমেদ (লালমনিরহাট-২), টিপু মুনশি (রংপুর-৪), এইচ এন আশিকুর রহমান (রংপুর-৫), মাহাবুব আরা বেগম গিনি (গাইবান্ধা-২), ডা. ইউনুস আলী সরকার (গাইবান্ধা-৩), শামসুল আলম দুদু (জয়পুরহাট-১), আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন (জয়পুরহাট-২), আবদুল মান্নান (বগুড়া-১), হাবিবুর রহমান (বগুড়া-৫), সাধনচন্দ্র মজুমদার (নওগাঁ-১), শহীদুজ্জামান সরকার (নওগাঁ-২), আবদুল মালেক (নওগাঁ-৫), ইসরাফিল আলম (নওগাঁ-৬), ওমর ফারুক চৌধুরী (রাজশাহী-১), প্রকৌশলী এনামুল হক (রাজশাহী-৪), শাহরিয়ার আলম (রাজশাহী-৬), অ্যাডভোকেট জুনাইদ আহমেদ পলক (নাটোর-৩), মোহাম্মদ নাসিম (সিরাজগঞ্জ-১), ডা. হাবিবে মিল্লাত (সিরাজগঞ্জ-২), আবদুল মজিদ মণ্ডল (সিরাজগঞ্জ-৫), হাসিবুর রহমান স্বপন (সিরাজগঞ্জ-৬), আহমেদ ফিরোজ কবির (পাবনা-২), মকবুল হোসেন (পাবনা-৩), শামসুর রহমান শরীফ ডিলু (পাবনা-৪), গোলাম ফারুক প্রিন্স (পাবনা-৫), ফরহাদ হোসেন দোদুল (মেহেরপুর-১), মাহবুবউল আলম হানিফ (কুষ্টিয়া-৩), আবদুর রউফ (কুষ্টিয়া-৪), সোলায়মান হক জোয়ার্দ্দার ছেলুন (চুয়াডাঙ্গা-১), আলী আজগার টগর (চুয়াডাঙ্গা-২), শেখ আফিল উদ্দিন (যশোর-১), কাজী নাবিল আহমেদ (যশোর-৩), রণজিৎ কুমার রায় (যশোর-৪), স্বপন ভট্টাচার্য (যশোর-৫), ইসমাত আরা সাদেক (যশোর-৬), বীরেন শিকদার (মাগুরা-২), সাইফুজ্জামান শিখর (মাগুরা-১), শেখ হেলাল উদ্দিন (বাগেরহাট-১), হাবিবুন্নাহার (বাগেরহাট-৩), পঞ্চানন বিশ্বাস (খুলনা-১), মুন্নুজান সুফিয়ান (খুলনা-৩), আবদুস সালাম মুর্শেদী (খুলনা-৪), নারায়ণচন্দ্র চন্দ (খুলনা-৫), অধ্যাপক ডা. আ ফ ম রুহুল হক (সাতক্ষীরা-৩), এসএম জগলুল হায়দার (সাতক্ষীরা-৪), অ্যাডভোকেট ধীরেন্দ্রচন্দ্র দেবনাথ শম্ভু (বরগুনা-১), শওকত হাচানুর রহমান রিমন (বরগুনা-২), আ খ ম জাহাঙ্গীর হোসাইন (পটুয়াখালী-৩), তোফায়েল আহমেদ (ভোলা-১), নুরুন্নবী চৌধুরী শাওন (ভোলা-৩), আবদুল্লাহ আল ইসলাম জ্যাকব (ভোলা-৪), আবুল হাসানাত আবদুল্লাহ (বরিশাল-১), অ্যাডভোকেট তালুকদার মোহাম্মদ ইউনুস (বরিশাল-২), পংকজ দেবনাথ (বরিশাল-৪), জেবুন্নেছা আফরোজ (বরিশাল-৫), আমির হোসেন আমু (ঝালকাঠি-২), ড. আবদুর রাজ্জাক (টাঙ্গাইল-১), আতাউর রহমান খান (টাঙ্গাইল-৩), হাসান ইমাম খান (টাঙ্গাইল-৪), ছানোয়ার হোসেন (টাঙ্গাইল-৫), খন্দকার আবদুল বাতেন (টাঙ্গাইল-৬), একাব্বর হোসেন (টাঙ্গাইল-৭), সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম (কিশোরগঞ্জ-১), রেজওয়ান আহমেদ তৌফিক (কিশোরগঞ্জ-৪), নূর মোহাম্মদ (কিশোরগঞ্জ-২), আফজাল হোসেন (কিশোরগঞ্জ-৫), নাজমুল হাসান পাপন (কিশোরগঞ্জ-৬), এএম নাঈমুর রহমান দুর্জয় (মানিকগঞ্জ-১), জাহিদ মালেক স্বপন (মানিকগঞ্জ-৩), সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি (মুন্সীগঞ্জ-২), অ্যাডভোকেট মৃণাল কান্তি দাস (মুন্সীগঞ্জ-৩), নসরুল হামিদ বিপু (ঢাকা-৩), সাবের হোসেন চৌধুরী (ঢাকা-৯), ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস (ঢাকা-১০), একেএম রহমতুল্লাহ (ঢাকা-১১), আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল (ঢাকা-১২), কামাল আহমেদ মজুমদার (ঢাকা-১৫), ইলিয়াস উদ্দিন মোল্লা (ঢাকা-১৬), আ ক ম মোজাম্মেল হক (গাজীপুর-১), জাহিদ আহসান রাসেল (গাজীপুর-২), সিমিন হোসেন রিমি (গাজীপুর-৪), মেহের আফরোজ চুমকি (গাজীপুর-৫), লে. কর্নেল (অব) নজরুল ইসলাম হিরু বীরপ্রতীক (নরসিংদী-১), সিরাজুল ইসলাম মোল্লা (নরসিংদী-৩), অ্যাডভোকেট নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন (নরসিংদী-৪), নজরুল ইসলাম বাবু (নারায়ণগঞ্জ-২), একেএম শামীম ওসমান (নারায়ণগঞ্জ-৪), কাজী কেরামত আলী (রাজবাড়ী-১), ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন (ফরিদপুর-৩), কাজী জাফরউল্লাহ (ফরিদপুর-৪), লে. কর্নেল (অব) ফারুক খান (গোপালগঞ্জ-১), শেখ ফজলুল করিম সেলিম (গোপালগঞ্জ-২), শেখ হাসিনা (গোপালগঞ্জ-৩), নূর-ই-আলম চৌধুরী লিটন (মাদারীপুর-১), শাজাহান খান (মাদারীপুর-২), এ কে এম এনামুল হক শামীম (শরীয়তপুর-২), ইকবাল হোসেন অপু (শরীয়তপুর-১), নাহিম রাজ্জাক (শরীয়তপুর-৩), মির্জা আজম (জামালপুর-৩), রেজাউল করিম হিরা (জামালপুর-৫), আতিউর রহমান আতিক (শেরপুর-১), মতিয়া চৌধুরী (শেরপুর-২), এ কে এম ফজলুল হক চান (শেরপুর-৩), জুয়েল আরেং (ময়মনসিংহ-১), অ্যাডভোকেট মোসলেম উদ্দিন (ময়মনসিংহ-৬), ফাহমী গোলন্দাজ বাবেল (ময়মনসিংহ-১০), অসীম কুমার উকিল (নেত্রকোনা-৩), ইঞ্জিনিয়ার মোয়াজ্জেম হোসেন রতন (সুনামগঞ্জ-১), জয়া সেনগুপ্তা (সুনামগঞ্জ-২), এমএ মান্নান (সুনামগঞ্জ-৩), মুহিবুর রহমান মানিক (সুনামগঞ্জ-৫), ড. মোহাম্মদ ফরাসউদ্দিন (হবিগঞ্জ-৪), মাহমুদ-উস সামাদ চৌধুরী কয়েস (সিলেট-৩), ইমরান আহমদ (সিলেট-৪), নুরুল ইসলাম নাহিদ (সিলেট-৬), শাহাব উদ্দিন (মৌলভীবাজার-১), সৈয়দা সায়রা মহসিন (মৌলভীবাজার-৩), অ্যাডভোকেট আনিসুল হক (ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৪), ক্যাপ্টেন (অব) এবি তাজুল ইসলাম (ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৬), অ্যাডভোকেট আবদুল মতিন খসরু (কুমিল্লা-৫), আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহার (কুমিল্লা-৬), অধ্যাপক আলী আশরাফ (কুমিল্লা-৭), আ হ ম মুস্তফা কামাল লোটাস (কুমিল্লা-১০), মুজিবুল হক (কুমিল্লা-১১), মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বীরবিক্রম (চাঁদপুর-২), ডা. দীপু মনি (চাঁদপুর-৩), এইচ এম ইব্রাহিম (নোয়াখালী-১), ওবায়দুল কাদের (নোয়াখালী-৫), এ কে এম শাজাহান কামাল (লক্ষ্মীপুর-৩), ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন (চট্টগ্রাম-১), ড. হাছান মাহমুদ (চট্টগ্রাম-৭), ব্যারিস্টার মুহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল (চট্টগ্রাম-৯), সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ (চট্টগ্রাম-১৩), সাইমুম সরওয়ার কমল (কক্সবাজার-৩), শাহীন আক্তার চৌধুরী (কক্সবাজার-৪), কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা (খাগড়াছড়ি) ও বীর বাহাদুর উ শৈ সিং (বান্দরবান)।

আ.লীগ থেকে মনোনয়ন পেলেন যাঁরা
                                  

নিজস্ব প্রতিবেদক: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নেতত্বাধীন মহাজোটের প্রায় ৩০০ আসনের প্রার্থী চূড়ান্ত হয়েছে। এর মধ্যে আওয়ামী লীগের চূড়ান্ত প্রার্থীদের মনোনয়নের চিঠিও দেয়া হয়েছে। আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনার স্বাক্ষর করা মনোনয়ন চিঠি রোববার থেকে বিতরণ করা হয়। দলের সাধারণ সম্পাদক ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের চিঠি বিতরণ করছেন।
দলীয় মনোনয়নের চিঠি পেয়েছেন: শেখ হাসিনা (গোপালগঞ্জ-৩ ও রংপুর-৬), ওবায়দুল কাদের (নোয়াখালী-৫), মুজিবুল হক (কুমিল্লা-১১), ডা. দীপু মনি (চাঁদপুর-৩), শ ম রেজাউল করিম (পিরোজপুর-১), সাইফুজ্জামান শিখর (মাগুরা-১), শেখ ফজলে নূর তাপস (ঢাকা-১০), আসাদুজ্জামান খাঁন (ঢাকা-১২), সাদেক খান (ঢাকা-১৩), আসলামুল হক (ঢাকা-১৪), নিজামউদ্দিন হাজারী (ফেনী-২), খালিদ মাহমুদ চৌধুরী (দিনাজপুর-২), সিমিন হোসেন রিমি (গাজীপুর-৪), ফাহমি গোলন্দাজ বাবেল (ময়মিনসিংহ-১০), শেখ জুয়েল (খুলনা-২), মাশরাফি বিন মর্তুজা (নড়াইল-২), মুহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল (চট্টগ্রাম-৯), ড. আব্দুর রাজ্জাক (টাঙ্গাইল-১), এনামুল হক (রাজশাহী-৪),আবদুস সোবাহান গোলাপ (মাদারীপুর-৩) ,এনামুল হক শামিম (শরিয়তপুর-২ ), ইকবাল হোসেন সবুজকে (গাজীপুর-৩)।

নড়াইল-২ আসনে আ.লীগের চূড়ান্ত প্রার্থী মাশরাফি
                                  

মোঃ বুলবুল খান, নড়াইল প্রতিনিধি: নড়াইল-২ আসনে ক্রিকেট তারকা মাশরাফি বিন মর্তুজাকে আওয়ামী লীগের চূড়ান্ত প্রার্থী ঘোষণা করায় প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দন জানিয়ে মিছিল-সমাবেশ করেছে ছাত্রলীগ। বৃহস্পতিবার সকালে নড়াইলের লোহাগড়ায় এ মিছিল-সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।
সূত্র জানায়, ২০ নভেম্বর বাংলাদেশ সচিবালয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের সাংবাদিকদের কাছে নড়াইল-২ আসনে মাশরাফির মনোনয়নের বিষয়টি নিশ্চিত করলে মাশরাফিভক্তসহ রাজনৈতিক মহলে বেশি তোলপাড়ের সৃষ্টি হয়। বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলা ছাত্রলীগের আয়োজনে একটি মিছিল লোহাগড়া শহর প্রদক্ষিণ করে। পরে উপজেলা পরিষদের সামনে নড়াইল সড়কে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।
উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মুন্সী জোসেফ হোসেন এর সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য রাখেন উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এম,এম রাশেদুল হাসান রাশেদ,মুন্সী হামীম, হোসেন শেখ,সুজন প্রমুখ।বক্তারা বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী নড়াইল-২ আসনে আওয়ামীলীগের প্রার্থী হিসাবে ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি-বিন-মর্তুজাকে মনোনীত করায় নেত্রীকে অভিনন্দন। জননেত্রীর পছন্দের প্রার্থী মাশরাফিকে ৯০ভাগ ভোট প্রদান করে নড়াইল-২ আসনের সংসদ সদস্য নির্বাচিত করবার প্রতিশ্রুতি প্রদান করে ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীরা।

সুশাসন ন্যায়বিচার প্রাধান্য পাবে: ডা. জাফরুল্লাহ
                                  

স্বাধীন বাংলা রিপোর্ট: আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে ১১ দফা নির্বাচনী ইশতেহার আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে চূড়ান্ত করবে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী এ তথ্য নিশ্চিত করে আরাে বলেন, ইশতেহারে প্রাধান্য পাবে সুশাসন, ন্যায়বিচার ও মানুষের অধিকার।
বৃহস্পতিবার বেলা সোয়া ১১টায় ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী ধানমণ্ডির অফিসে ঐক্যফ্রন্টে ইশতেহার কমিটির বৈঠক শুরু হয়।
বৈঠকের আগে ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী সাংবাদিকদের বলেন, আমরা আজকে ইশতেহার তৈরি করার জন্য বৈঠকে বসেছি। প্রথমে ড্রাফট তৈরি করব। পরে এটি ঐক্যফ্রন্টের স্টিয়ারিং কমিটির বৈঠকে পাস হবে। আজকে বৈঠক শেষ হতে তিন ঘণ্টা সময় লাগবে বলেও জানান তিনি।
বৈঠকে ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, সাংবাদিক মাহফুজ উল্লাহ, ইকবাল সিদ্দিকী, ডা. জাহেদুর রহমান, শফিকউল্লাহ উপস্থিত আছেন।
ইশতেহার তৈরির বিষয়ে তিনি বলেন, আমার চিন্তা আছে- মূল বিষয় থাকবে জাতীয় ঐক্য, বিভক্তি আর নয়, কথা বলার অধিকার, গণমাধ্যমের অধিকার, আইনের সংস্কার ও দেশের মেরামত দরকার। দেখা যাক কী হয়।
জাফরুল্লাহ জানান, ১১ দফার ভিত্তিতে ইশতেহার তৈরি করা হবে। তবে এটি আরও বিস্তারিত হবে। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে ইশতেহার ছাপানো হবে।

স্বতন্ত্র প্রার্থী হতে পারেন হিরো আলম
                                  

নিজস্ব সংবাদদাতা: বগুড়া-৪ আসন থেকে জাপার মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করে জমাও দিয়েছেন হিরো আলম। তবে কোনো কারণে জাপা তাকে মনোনয়ন না দিলে স্বতন্ত্র প্রার্থী হবেন বলে জানিয়েছেন হিরো আলম।
হিরো আলম জানান, জাতীয় পার্টির মনোনয়নপত্র কে পাবে তা প্রায় ঠিক হয়ে গেছে। আমাকে দেয়া হবে কিনা তা এখনো জানতে পারিনি। আমার ধারণা পাবো। তবে শেষ পর্যন্ত জাতীয় পার্টি থেকে যদি মনোনয়ন নাও পাই, সেক্ষেত্রে স্বতন্ত্র হিসেবে নির্বাচন করবো।

শীঘ্রই আ.লীগের চূড়ান্ত প্রার্থী তালিকা: ওবায়দুল কাদের
                                  

স্বাধীন বাংলা রিপোর্ট: আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, দুই একদিনের মধ্যে আওয়ামী লীগের এবং এক সপ্তাহের মধ্যে শরিক দলের প্রার্থী তালিকা চূড়ান্ত করা হবে। এজন্য কাজ চলছে বলে তিনি জানিয়েছেন।

আজ শনিবার রাজধানীর বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউস্থ আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে কেন্দ্রীয় ১৪ দলের সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি অভিযোগ করেন, লবিস্ট নিয়োগ করে নির্বাচন সুষ্ঠু হওয়া নিয়ে বিএনপি সংশয় সৃষ্টি করছে।

বিরোধী রাজনীতিকদের লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড বিষয়ে অভিযোগের প্রেক্ষিতে ওবায়দুল কাদের বলেন, জাতীয় সংসদ নির্বাচনে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড নিশ্চিত করার পুরো দায়িত্ব নির্বাচন কমিশনের।

প্রতীক বরাদ্দের সময় বৃদ্ধি চেয়ে ইসিকে বি চৌধুরীর চিঠি
                                  

স্বাধীন বাংলা রিপোর্ট: প্রতীক বরাদ্দের সময় বাড়াতে প্রধান নির্বাচন কমিশনারকে (সিইসি) চিঠি পাঠিয়েছেন যুক্তফ্রন্টের চেয়ারম্যান ও বিকল্পধারা বাংলাদেশের সভাপতি ডা. একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরী।
জোটবদ্ধ নির্বাচনের জন্য প্রতীক বরাদ্দে ১০ দিন সময় চেয়ে নির্বাচন কমিশনকে (ইসি) চিঠি দিয়েছে বিকল্পধারা বাংলাদেশের সভাপতি ও যুক্তফ্রন্টের চেয়ারম্যান অধ্যাপক বদরুদ্দোজা চৌধুরী।
বৃহস্পতিবার সকালে বিকল্প ধারার সাংগঠনিক সম্পাদক ব্যারিস্টার উমর ফারুকসহ তিন সদস্যের একটি প্রতিনিধি ইসিতে চিঠি নিয়ে যান।
চিঠিতে বি চৌধুরী আরও বলেন, ‘যুক্তফ্রন্ট এখনও জোট সম্প্রসারণের কাজ চালিয়ে যাচ্ছে, তাই নির্বাচনি জোটের প্রতীক বরাদ্দের ব্যাপারে আপনাদের দেওয়া সময়সীমা বৃদ্ধি করা যৌক্তিক ও প্রয়োজন।’
বি. চৌধুরী বলেন, ‘সুষ্ঠু নির্বাচনের স্বার্থে এবং জোটভুক্ত দলসমূহের সম্প্রসারণের কার্যক্রম নির্বিঘ্নে সম্পন্ন করার জন্য নির্বাচনি জোটের প্রতীক বরাদ্দের সময়সীমা ১০ দিন বৃদ্ধি করে ২৬ নভেম্বর পুনঃনির্ধারণের জন্য আপনাকে বিশেষভাবে অনুরোধ করছি।’
পুনঃতফসিল অনুযায়ী, ২৮ নভেম্বর মনোনয়ন দাখিলের শেষ দিন, বাছাই ২ ডিসেম্বর, মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার ৯ ডিসেম্বর। আর ভোটগ্রহণ ৩০ ডিসেম্বর।

নির্বাচন ১ মিনিটও পেছানোর পক্ষে নয় আ.লীগ: কাদের
                                  

স্বাধীন বাংলা রিপোর্ট: একাদশ নির্বাচন আর পেছানোর পক্ষে নই আমরা। আওয়ামী লীগ নির্বাচন ১ মিনিটও পেছানোর পক্ষে নয়। বলে মন্তব্য করেছে দলটির সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নির্বাচন পেছানোর দাবিকে অযৌক্তিক ও অবান্তর আখ্যা দিয়েছেন কাদের। আজ বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় সচিবালয়ে সেতু মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনে এ মন্তব্য করেন তিনি। সমসাময়িক ইস্যু নিয়ে গণমাধ্যমকর্মীদের সঙ্গে আলাপ করতে এ সংবাদ সম্মেলন ডাকেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক।

তিনি বলেন, আমরা নির্বাচন কমিশনকে অনুরোধ করব-আপনারা ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী নির্বাচন করুন। কারও কথায় নির্বাচন পেছানোর সুযোগ নেই।

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, পর্যবেক্ষক না আসার দোহাই দিয়ে নির্বাচন পেছানোর দাবি সম্পূর্ণ অযৌক্তিক ও অবান্তর।

সংবাদ সম্মেলনে বুধবার নয়াপল্টনে বিএনপির কার্যালয়ের সামনে পুলিশের সঙ্গে বিএনপি নেতাকর্মীদের সংঘর্ষের নিন্দা জানান তিনি।

ওবায়দুল কাদের বিএনপির উদ্দেশে বলেন, শান্তিপূর্ণ নির্বাচন চাইলে সংঘাত থেকে দূরে থাকুন।

প্রসঙ্গত, নির্বাচন পেছানোর দাবিতে বুধবার প্রধান নির্বাচন কমিশনারের সঙ্গে দেখা করেন ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে ঐক্যফ্রন্ট নেতারা। বৈঠক শেষে বেরিয়ে এসে নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে আলোচনাকে ইতিবাচক হিসেবে উল্লেখ করেন ড. কামাল।

নারায়ণগঞ্জ-১ আসন থেকে মনোনয়নপত্র নিলেন এরশাদ
                                  

স্বাধীন বাংলা রিপোর্ট: জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহণের জন্য নারায়ণগঞ্জ-১ (রূপগঞ্জ) থেকে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ।

আজ বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় এরশাদের যুব বিষয়ক উপদেষ্টা এডভোকেট রেজাউল ইসলাম ভূইয়া এ মনোনয়নপত্রটি সংগ্রহ করেন।

এছাড়াও সাবেক এ রাষ্ট্রপতি এর আগে ঢাকা-১৭ এবং রংপুর-১ আসনের মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেন।

টাঙ্গাইল-৭ আসনে নৌকার প্রার্থী ৬
                                  

মীর মঈন হোসেন রাজিব, মির্জাপুর প্রতিনিধি: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে টাঙ্গাইল-০৭ মির্জাপুর আসনে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন ৬ জন।
মির্জাপুর থেকে ৬ প্রার্থীর মনোনয়ন সংগ্রহ নিয়ে ইতিমধ্যেই সর্বমহলের মধ্যে শুরু হয়েছে নানান গুঞ্জন। কেউ চাচ্ছেন পরিবর্তন আবার কেউ চাচ্ছেন উন্নয়ন। সব মিলিয়ে সাধারণ ভোটাররা একজন যোগ্য প্রার্থীকে চাচ্ছেন নৌকার মাঝি হিসেবে।
দলীয় সূত্রে জানা গেছে, টাঙ্গাইল-৭ (১৩৬) মির্জাপুর থেকে মনোনয়ন ফরম জমা দিয়েছেন যথাক্রমে- বর্তমান সাংসদ ও উপজেলা আ.লীগের সভাপতি মো. একাব্বর হোসেন, টাঙ্গাইল জেলা আ.লীগ সদস্য ও উপজেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক মীর শরীফ মাহমুদ, টাঙ্গাইল জেলা আ.লীগ সদস্য মেজর(অব:) খন্দকার এ.হাফিজ, জেলা আ.লীগ সদস্য খান আহমেদ শুভ, উপজেলা আ.লীগ সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ ওয়াহিদ ইকবাল, উপজেলা পরিষদের সাবেক মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সালমা সালাম উর্মী।
মনোনয়ন প্রত্যাশী ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মীর শরীফ মাহমুদের সাথে আলাপকালে তিনি “স্বাধীন বাংলা’র প্রতিবেদককে জানান, ছাত্ররাজনীতি, যুবরাজনীতির মধ্য দিয়ে আমার রাজনীতির জীবন শুরু। মির্জাপুর কলেজ ছাত্র সংসদের ভি.পি নির্বাচিত হয়ে দায়িত্ব পালন করেছি, মির্জাপুর বিআরডিবিতে একাধারে ৪ বার চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করেছি। আমি দীর্ঘ ৩৮ বছর যাবৎ আওয়ামী লীগের জন্য মাঠে নিরলসভাবে কাজ করে আসছি। সেই থেকে শুরু করে জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করার লক্ষে আদৌ পর্যন্ত আ.লীগের জন্য দিন-রাত প্ররিশ্রম করে যাচ্ছি। মির্জাপুরবাসী নতুন মুখ ও পরিবর্তন চায়। আমার বিশ্বাস, জননেত্রী শেখ হাসিনা যদি আমাকে মনোনয়ন দেন তাহলে ইনশাআল্লাহ্ আমি নির্বাচনে জয়ী হয়ে এ আসনটি উপহার দিতে পারবো।
উল্লেখ্য যে, টাঙ্গাইল জেলার ১২টি উপজেলার মধ্যে ভৌগলিক অবস্থানগত কারণে শিল্প-কারখানা অধ্যুষিত ও নদীবেষ্টিত হওয়ায় মির্জাপুর উপজেলা অন্যতম। একটি পৌরসভা ও ১৪টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত মির্জাপুর উপজেলা।

নয়াপল্টনে বিএনপির নেতাকর্মীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ, পুলিশের গাড়িতে আগুন
                                  

স ম সবুজ: রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে পুলিশের সঙ্গে বিএনপি নেতাকর্মীদের ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া ও সংঘর্ষ হয়েছে। এ সময় পুলিশের ৩টি গাড়িতে অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটে। এতে কয়েকজন আহত হয়েছেন।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বেলা ১টার দিকে বিএনপি নেতাকর্মীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ বাধে। এ সময় পুলিশ বিএনপি নেতাকর্মীদের লক্ষ্য করে টিয়ার গ্যাস ছোড়ে। আর বিএনপির নেতাকর্মী পুলিশকে লক্ষ্য করে ছোড়ে ইটপাটকেল।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বেলা ১টার দিকে বিএনপি নেতাকর্মীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ বাধে। এ সময় পুলিশ বিএনপি নেতাকর্মীদের লক্ষ্য করে টিয়ার গ্যাস ছোড়ে। আর বিএনপির নেতাকর্মী পুলিশকে লক্ষ্য করে ছোড়ে ইটপাটকেল। এ সময় কয়েকজন আহত হন। আহতদের একজনকে আঞ্জুমানে মফিদুলের গাড়িতে করে হাসপাতালের দিকে নিয়ে যেতে দেখা গেছে। সকাল থেকেই নয়াপল্টন কার্যালয়ের সামনে পুলিশের উপস্থিতি বেশি ছিল। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ব্যাপক উপস্থিতিতে বিএনপির নেতাকর্মীরা কিছুটা ভীতসন্ত্রস্ত ছিল।
প্রসঙ্গত, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিভিন্ন আসনে প্রার্থী দিতে দলীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে মনোনয়ন ফরম বিক্রি করছে বিএনপি। নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে তৃতীয় দিনের মতো চলছে মনোনয়ন ফরম বিক্রি। মনোনয়ন ফরম বিক্রির তৃতীয় দিনে আজ বুধবার সকালের দিকে বিএনপি নেতাকর্মীদের ভিড় ছিল। অনেকেই কর্মী-সমর্থকদের নিয়ে মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করছেন। কর্মী-সমর্থকরা নেতার ফরম সংগ্রহের সময় উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেন এবং স্লোগান দিচ্ছেন।



   Page 1 of 72
     রাজনীতি
২২টি আসন পেল জামায়াত
.............................................................................................
চূড়ান্ত মনোনয়নে পেলেন বিএনপির ২০৬ প্রার্থী
.............................................................................................
শ্রীমঙ্গলে যুবলীগের বর্ধিত কর্মীসভা অনুষ্টিত
.............................................................................................
সব প্রার্থীকে সমান চোখে দেখতে হবে: সিইসি
.............................................................................................
‘মনোনয়নের সঙ্গে উইথড্রয়াল লেটারে স্বাক্ষর নেওয়া হচ্ছে’
.............................................................................................
আ.লীগ থেকে আরও মনোনয়ন পাচ্ছেন যাঁরা
.............................................................................................
আ.লীগ থেকে মনোনয়ন পেলেন যাঁরা
.............................................................................................
নড়াইল-২ আসনে আ.লীগের চূড়ান্ত প্রার্থী মাশরাফি
.............................................................................................
সুশাসন ন্যায়বিচার প্রাধান্য পাবে: ডা. জাফরুল্লাহ
.............................................................................................
স্বতন্ত্র প্রার্থী হতে পারেন হিরো আলম
.............................................................................................
শীঘ্রই আ.লীগের চূড়ান্ত প্রার্থী তালিকা: ওবায়দুল কাদের
.............................................................................................
প্রতীক বরাদ্দের সময় বৃদ্ধি চেয়ে ইসিকে বি চৌধুরীর চিঠি
.............................................................................................
নির্বাচন ১ মিনিটও পেছানোর পক্ষে নয় আ.লীগ: কাদের
.............................................................................................
নারায়ণগঞ্জ-১ আসন থেকে মনোনয়নপত্র নিলেন এরশাদ
.............................................................................................
টাঙ্গাইল-৭ আসনে নৌকার প্রার্থী ৬
.............................................................................................
নয়াপল্টনে বিএনপির নেতাকর্মীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ, পুলিশের গাড়িতে আগুন
.............................................................................................
গণভবনে আ.লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীরা
.............................................................................................
বরগুনা-১ আসনে আ.লীগের ৫২টি মনোনয়ন ফরম বিক্রি
.............................................................................................
বাপ-ছেলের মনোনয়ন সংগ্রহ
.............................................................................................
সরকার পালাবার পথ খুঁজছে: ডা. জাফরুল্লাহ
.............................................................................................
রাজশাহীতে ঐক্যফ্রন্টের জনসভা শুরু
.............................................................................................
বিএনপির নেতা এখন ড. কামাল: নৌপরিবহন মন্ত্রী
.............................................................................................
রাষ্ট্রপতির কাছে বি. চৌধুরীর চিঠি
.............................................................................................
আ.লীগের মনোনয়ন ফরমের দাম ৩০ হাজার টাকা, শুক্রবার থেকে বিক্রি
.............................................................................................
সোহরাওয়ার্দীতে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সমাবেশ আজ
.............................................................................................
জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে যোগ দিলেন কাদের সিদ্দিকী
.............................................................................................
মঙ্গলবার সোহরাওয়ার্দীতে সমাবেশের অনুমতি পেল ঐক্যফ্রন্ট
.............................................................................................
মুসলিম লীগের সাথে প্রধানমন্ত্রীর সংলাপ ৬ নভেম্বর
.............................................................................................
সংবাদ সম্মেলন করে সংলাপের ফলাফল জানাবেন প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
খালেদা জিয়া প্যারোলে মুক্তি পেতে পারেন
.............................................................................................
‘কওমি জননী’ উপাধি পেলেন প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
কাদের সিদ্দিকীও কী যোগ দিচ্ছেন ঐক্যফ্রন্টে ?
.............................................................................................
আল্লামা আহমদ শফীকে ‘স্বাধীনতা পদক’ দেওয়ার দাবি
.............................................................................................
আবারো ঐক্যফ্রন্টের সংলাপের চিঠি যাচ্ছে প্রধানমন্ত্রীর কাছে
.............................................................................................
কাল সোহরাওয়ার্দীতে প্রধানমন্ত্রীকে সংবর্ধনা দেবে হেফাজতে ইসলাম
.............................................................................................
নির্বাচনে বিশৃঙ্খলার চেষ্টা করলে মোকাবেলা করা হবে
.............................................................................................
‘বিপ্লব ও সংহতি’ দিবস উপলক্ষে বিএনপির ২ দিনের কর্মসূচি
.............................................................................................
সংলাপ ৭ নভেম্বর পর্যন্ত: কাদের
.............................................................................................
ঐক্যফ্রন্টের সংলাপ ব্যর্থ হবে, ৭ দফার কোনোটি মানা সম্ভব নয়: এরশাদ
.............................................................................................
দলীয় পার্লামেন্টারি বোর্ডের নাম ঘোষণা এরশাদের
.............................................................................................
অনশনে বিএনপি
.............................................................................................
ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে আলোচনা হবে খোলা মনে: ওবায়দুল কাদের
.............................................................................................
জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে সংলাপে বসবে আওয়ামী লীগ, নেতৃত্ব দেবেন প্রধানমন্ত্রী: কাদের
.............................................................................................
জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে সংলাপে বসবে আওয়ামী লীগ, নেতৃত্ব দেবেন প্রধানমন্ত্রী: কাদের
.............................................................................................
সিলেটের পর আজ চট্টগ্রামে ঐক্যফ্রন্টের সমাবেশ
.............................................................................................
বিএনপির ৭ নেতার জামিনের শুনানি সোমবার
.............................................................................................
কানাইঘাটে জমিয়তে উলামা বাংলাদেশের প্রচার মিছিল
.............................................................................................
নির্বাচনকালীন মন্ত্রিসভার সিদ্ধান্ত ২৬ অক্টোবর : কাদের
.............................................................................................
মারা গেলেন জাগপা সভাপতি রেহেনা প্রধান
.............................................................................................
এবার ডা. জাফরুল্লাহর বিরুদ্ধে চুরির মামলা
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

সম্পাদক ও প্রকাশক : মোহাম্মদ আখলাকুল আম্বিয়া
নির্বাহী সম্পাদক: মাে: মাহবুবুল আম্বিয়া

সম্পাদকীয় ও বাণিজ্যিক কার্যালয়: স্বাধীনতা ভবন (৩য় তলা), ৮৮ মতিঝিল বাণিজ্যিক এলাকা, ঢাকা-১০০০। Editorial & Commercial Office: Swadhinota Bhaban (2nd Floor), 88 Motijheel, Dhaka-1000.
সম্পাদক কর্তৃক রঙতুলি প্রিন্টার্স ১৯৩/ডি, মমতাজ ম্যানশন, ফকিরাপুল কালভার্ট রোড, মতিঝিল, ঢাকা-১০০০ থেকে মুদ্রিত ও প্রকাশিত ।
ফোন : ০২-৯৫৫২২৯১ মোবাইল: ০১৬৭০৬৬১৩৭৭

Phone: 02-9552291 Mobile: +8801670 661377
ই-মেইল : dailyswadhinbangla@gmail.com , editor@dailyswadhinbangla.com, news@dailyswadhinbangla.com

 

    2015 @ All Right Reserved By dailyswadhinbangla.com

Developed By: Nytasoft