সোমবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৯ | বাংলার জন্য ক্লিক করুন
  
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   খেলাধূলা -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
বিশ্বকাপ বাছাই : শক্তিশালী ওমানের সামনে আত্মবিশ্বাসী বাংলাদেশ

ক্রীড়া প্রতিবেদক : ২০২২ কাতার বিশ্বকাপ ও ২০২৩ সালের এশিয়ান কাপের বাছাইয়ের দ্বিতীয় রাউন্ডে ‘ই’ গ্রুপে নিজেদের চতুর্থ ম্যাচে স্বাগতিক ওমানের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। ফিফা র‌্যাংকিংয়ে পুরোপুরি ১০০ ধাপ এগিয়ে থাকা শক্তিশালী স্বাগতিক ওমানের বিপক্ষে ম্যাচটি হতে যাচ্ছে বাংলাদেশের জন্য কঠিন এক পরীক্ষা।

ফিফা র‌্যাঙ্কিংয়ে ৮৪তম অবস্থানে ওমান আর বাংলাদেশের অবস্থান ১৮৪তম। আজ বৃহস্পতিবার সেই ওমানের বিপক্ষে বিশ্বকাপ ও এশিয়ান কাপের যৌথ বাছাইয়ে মাঠে নামবে বাংলাদেশ। ওমানের মাসকাটের সুলতান কাবুস স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ সময় রাত ৯ টায় শুরু হবে ম্যাচটি। যা সরাসরি সম্প্রচার করবে বাংলা টিভি।

ওমানের বিপক্ষে বাংলাদেশ সবশেষ খেলেছিল ১৯৮২ সালে। ৩৭ বছর পর আবার তাদের মুখোমুখি হচ্ছে। শক্তিমত্তার বিচার ওমান ঢের এগিয়ে বাংলাদেশের চেয়ে। তবে আফগানিস্তান, কাতার ও ভারতের মতো দলের বিপক্ষে খেলে বাংলাদেশের খেলোয়াড়দের আত্মবিশ^াস বেড়েছে। তারা বড় দলের বিপক্ষে এখন ভয়-ডরহীন খেলা খেলতে অভ্যস্ত। ঘরের মাঠে কাতারের বিপক্ষে দারুণ খেলেছিল জামাল ভুঁইয়া-ইয়াসিন খানরা। যদিও শেষ দিকে দুই গোল হজম করে হার মেনেছিল। এরপর ভারতের বিপক্ষে তাদের মাটিতে ম্যাচের ৮৪ মিনিট পর্যন্ত এগিয়ে ছিল বাংলাদেশ। অন্তিম মুহূর্তের গোলে ড্র নিয়ে ফিরলেও প্রশংসা কুড়িয়েছে সর্বমহলে।

এবার অবশ্য কঠিন পরীক্ষাই বাংলাদেশের জন্য। অধিনায়ক জাইল ভুঁইয়াও সেটা মানছেন, বিশ^কাপ বাছাইপর্বে এ পর্যন্ত আমরা যতগুলো ম্যাচ খেলেছি তার মধ্যে সবচেয়ে কঠিন ম্যাচ হবে এটি। ওমান অনেক শক্তিশালী দল। তার উপর তাদের ঘরের মাঠে খেলা। তবে আমাদের প্রস্তুতি ভালো। সবাই খেলার জন্য উন্মুখ হয়ে আছে।

কাতারের বিপক্ষে যে কৌশল নিয়ে খেলেছিল বাংলাদেশ সেই একই কৌশল নিয়ে খেলবে ওমানের বিপক্ষেও। ওমানকে রুখে দেওয়াই হবে বাংলাদেশের লক্ষ্য। সেক্ষেত্রে রক্ষণভাগকে সবচেয়ে বড় ভূমিকা পালন করতে হবে। ম্যাচটা হতে যাচ্ছে বাংলাদেশের রক্ষণভাগ বনাম ওমানের ফরোয়ার্ড লাইন। অবশ্য ওমানও জানে বাংলাদেশ কোন কৌশলে খেলবে। তাদের সেই রক্ষণাত্মক পন্থা গুড়িয়ে দিয়ে আরো একটি জয় তুলে নিতে প্রস্তুত তারা।

যেমনটা বলেছেন ওমানের কোচ আরউইন কোম্যান, বাংলাদেশের মতো দলের বিপক্ষে কিভাবে খেলতে হয় আমরা জানি। এই ম্যাচের জন্য আমরা প্রস্তুত। ডি বক্সের মধ্যে খেলা নিয়ে আমরা অনুশীলন করেছি। কিভাবে জায়গা বের করতে হবে, কিভাবে ডেলিভারি ও ফিনিশিং দিতে হবে সেগুলো নিয়ে কাজ করেছি।

ওমানের মাঠে খেলা হলেও বাংলাদেশ বেশ সমর্থন পাবে প্রবাসী বাংলাদেশিদের। তাদের জন্য ভাবছে ওমান ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনও। তাইতো তারা প্রবাসী বাংলাদেশিদের জন্য স্টেডিয়ামের অর্ধেক আসনই বরাদ্ধ রেখেছে! সেক্ষেত্রে ওমানের মাঠে খেলেও দর্শকদের ভালো একটা সমর্থন পেতে যাচ্ছে জামাল-সাদরা। সেই সমর্থন কাজে লাগিয়ে ভালো একটি ফল নিয়ে দেশে ফিরতে পারে কিনা জেমি ডে’র শিষ্যরা সেটাই দেখার বিষয়।

বিশ্বকাপ বাছাই : শক্তিশালী ওমানের সামনে আত্মবিশ্বাসী বাংলাদেশ
                                  

ক্রীড়া প্রতিবেদক : ২০২২ কাতার বিশ্বকাপ ও ২০২৩ সালের এশিয়ান কাপের বাছাইয়ের দ্বিতীয় রাউন্ডে ‘ই’ গ্রুপে নিজেদের চতুর্থ ম্যাচে স্বাগতিক ওমানের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। ফিফা র‌্যাংকিংয়ে পুরোপুরি ১০০ ধাপ এগিয়ে থাকা শক্তিশালী স্বাগতিক ওমানের বিপক্ষে ম্যাচটি হতে যাচ্ছে বাংলাদেশের জন্য কঠিন এক পরীক্ষা।

ফিফা র‌্যাঙ্কিংয়ে ৮৪তম অবস্থানে ওমান আর বাংলাদেশের অবস্থান ১৮৪তম। আজ বৃহস্পতিবার সেই ওমানের বিপক্ষে বিশ্বকাপ ও এশিয়ান কাপের যৌথ বাছাইয়ে মাঠে নামবে বাংলাদেশ। ওমানের মাসকাটের সুলতান কাবুস স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ সময় রাত ৯ টায় শুরু হবে ম্যাচটি। যা সরাসরি সম্প্রচার করবে বাংলা টিভি।

ওমানের বিপক্ষে বাংলাদেশ সবশেষ খেলেছিল ১৯৮২ সালে। ৩৭ বছর পর আবার তাদের মুখোমুখি হচ্ছে। শক্তিমত্তার বিচার ওমান ঢের এগিয়ে বাংলাদেশের চেয়ে। তবে আফগানিস্তান, কাতার ও ভারতের মতো দলের বিপক্ষে খেলে বাংলাদেশের খেলোয়াড়দের আত্মবিশ^াস বেড়েছে। তারা বড় দলের বিপক্ষে এখন ভয়-ডরহীন খেলা খেলতে অভ্যস্ত। ঘরের মাঠে কাতারের বিপক্ষে দারুণ খেলেছিল জামাল ভুঁইয়া-ইয়াসিন খানরা। যদিও শেষ দিকে দুই গোল হজম করে হার মেনেছিল। এরপর ভারতের বিপক্ষে তাদের মাটিতে ম্যাচের ৮৪ মিনিট পর্যন্ত এগিয়ে ছিল বাংলাদেশ। অন্তিম মুহূর্তের গোলে ড্র নিয়ে ফিরলেও প্রশংসা কুড়িয়েছে সর্বমহলে।

এবার অবশ্য কঠিন পরীক্ষাই বাংলাদেশের জন্য। অধিনায়ক জাইল ভুঁইয়াও সেটা মানছেন, বিশ^কাপ বাছাইপর্বে এ পর্যন্ত আমরা যতগুলো ম্যাচ খেলেছি তার মধ্যে সবচেয়ে কঠিন ম্যাচ হবে এটি। ওমান অনেক শক্তিশালী দল। তার উপর তাদের ঘরের মাঠে খেলা। তবে আমাদের প্রস্তুতি ভালো। সবাই খেলার জন্য উন্মুখ হয়ে আছে।

কাতারের বিপক্ষে যে কৌশল নিয়ে খেলেছিল বাংলাদেশ সেই একই কৌশল নিয়ে খেলবে ওমানের বিপক্ষেও। ওমানকে রুখে দেওয়াই হবে বাংলাদেশের লক্ষ্য। সেক্ষেত্রে রক্ষণভাগকে সবচেয়ে বড় ভূমিকা পালন করতে হবে। ম্যাচটা হতে যাচ্ছে বাংলাদেশের রক্ষণভাগ বনাম ওমানের ফরোয়ার্ড লাইন। অবশ্য ওমানও জানে বাংলাদেশ কোন কৌশলে খেলবে। তাদের সেই রক্ষণাত্মক পন্থা গুড়িয়ে দিয়ে আরো একটি জয় তুলে নিতে প্রস্তুত তারা।

যেমনটা বলেছেন ওমানের কোচ আরউইন কোম্যান, বাংলাদেশের মতো দলের বিপক্ষে কিভাবে খেলতে হয় আমরা জানি। এই ম্যাচের জন্য আমরা প্রস্তুত। ডি বক্সের মধ্যে খেলা নিয়ে আমরা অনুশীলন করেছি। কিভাবে জায়গা বের করতে হবে, কিভাবে ডেলিভারি ও ফিনিশিং দিতে হবে সেগুলো নিয়ে কাজ করেছি।

ওমানের মাঠে খেলা হলেও বাংলাদেশ বেশ সমর্থন পাবে প্রবাসী বাংলাদেশিদের। তাদের জন্য ভাবছে ওমান ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনও। তাইতো তারা প্রবাসী বাংলাদেশিদের জন্য স্টেডিয়ামের অর্ধেক আসনই বরাদ্ধ রেখেছে! সেক্ষেত্রে ওমানের মাঠে খেলেও দর্শকদের ভালো একটা সমর্থন পেতে যাচ্ছে জামাল-সাদরা। সেই সমর্থন কাজে লাগিয়ে ভালো একটি ফল নিয়ে দেশে ফিরতে পারে কিনা জেমি ডে’র শিষ্যরা সেটাই দেখার বিষয়।

রাজকোটে সিরিজ জয়ের লড়াই আজ
                                  

ক্রীড়া প্রতিবেদক : ভারতের বিপক্ষে এই সিরিজের আগে আটটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলে একটিতেও জয় নেই। এবার ভারত সফরে যাওয়ার আগে বাংলাদেশ দলের ওপর বয়ে গেছে বিশাল এক ঝড়। যে ঝড়ে লণ্ডভণ্ড হওয়ার জোগাড় পুরো বাংলাদেশ দল। সাকিব-তামিমকে ছাড়াই শেষ পর্যন্ত খেলতে গিয়ে বাংলাদেশ দল কিন্তু বাজিমাতই করেছে দিল্লিতে।

স্বাগতিক ভারতকেই বাংলাদেশ হারিয়ে দিয়েছে ৭ উইকেটের ব্যবধানে। দিল্লি জয়ের পর এখন বাংলাদেশের সামনে সিরিজ জয়ের সুবর্ণ সুযোগ।

রাজকোটে আজ জিতলেই ট্রফি বাংলাদেশের। ভারত জিতলে ট্রফির মীমাংসা হবে নাগপুরের তৃতীয় টি২০-তে, যেখানে দুই দলের জন্যই সমান সুযোগ থাকবে। বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের কথা- সুযোগ যেহেতু এসেছে, তখন আর দেরি করে লাভ কী। রাজকোট থেকে রাজার মতো বিদায় নিতে চান তারা। তবে প্রকৃতি বৈরী হলে এ উচ্ছ্বাস ও উত্তাপ ভেসে যাবে। কয়েক দিন ধরেই ঘূর্ণিঝড় ‘মহা’র কথা শোনা গেছে। শেষ পর্যন্ত ঝড়টি উপকূলে আঘাত হানলে এর প্রভাবে বৃষ্টিভেজা হবে রাজকোট। তাই ট্রফির টানাটানি ধরে রাখতে ম্যাচ জয়ের পরিকল্পনা করার পাশাপাশি দুই দলকেই নিয়মিত খোঁজ রাখতে হচ্ছে আবহাওয়া বিভাগে।

গত কয়েক দিনের মতো রৌদ্রোজ্জ্বল আবহাওয়া থাকলে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় খেলা শুরু হবে, যে ম্যাচে টস জিতলে ফিল্ডিং নেওয়ার পরিকল্পনা বাংলাদেশের। দিল্লির মতো সৌরাষ্ট্রের ভেন্যুতেও রান তাড়া করে জিততে চান মাহমুদুল্লাহরা। আর সিরিজ নির্ধারণী এ ম্যাচে মানসিকভাবে এগিয়ে থেকে খেলতে পারছে বাংলাদেশ। কিছুতেই সুযোগ হাতছাড়া করতে চান না টাইগাররা।

রাজকোটে দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টি ম্যাচের আগে অনুশীলনের পর মিডিয়ার সামনে এসে বাংলাদেশ অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ বলেন, সিরিজ জয় বাংলাদেশের ক্রিকেটকে এগিয়ে নিয়ে যেতে সাহায্য করবে।

বাংলাদেশ দলের সামনে সিরিজ জয়ের দারুণ সুযোগ। এ কারণে রিয়াদরা এখন সিরিজ জয়েরই গন্ধ পাচ্ছেন। ভারতে খেলতে এসে সিরিজ জেতার এমন সুযোগ আর পাবে না বাংলাদেশ। টাইগার অধিনায়ক বলছেন, সিরিজের প্রথম ম্যাচ জেতার ফলে আমরা এগিয়ে থেকেই কালকের ম্যাচ খেলতে নামছি। আমাদের সামনে সিরিজ জেতার দারুণ সুযোগ রয়েছে। ছেলেরাও তেতে রয়েছে।

এই ম্যাচের জন্য যা যা পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে সেগুলো বাস্তবায়নের জন্য কী প্রয়োজন তা জানালেন রিয়াদ। তিনি বলেন, টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে উইকেটের চরিত্র বুঝে খেলা দরকার। ঠিকমতো ফিল্ডিং সাজাতে হবে। সঠিক সময়ে সঠিক সিদ্ধান্ত নেয়া দরকার।

গত ম্যাচের একাদশ ধরে রাখতে চায় টিম ম্যানেজমেন্ট। তবে কোচ জানান, চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন আজ বিকেলে উইকেট দেখার পর। শেষ পর্যন্ত একজন স্পিনার বাড়াতে হলে একজন পেস বোলার কমবে। দুই বাঁহাতি স্পিনার আরাফাত সানি ও তাইজুল ইসলামের যে কোনো একজনের কপাল খুলতে পারে। দৌড়ে খানিকটা এগিয়ে সাড়ে তিন বছর পর দলে আসা সানি। তা যে-ই খেলুক, ভারতের ওপর প্রভাব বিস্তার করার দারুণ একটা সুযোগ দেখছেন টাইগাররা।

কোচিং স্টাফরাও মনেপ্রাণে বিশ্বাস করেন, বাংলাদেশ জিতবে। স্পিন বোলিং পরামর্শক কোচ ড্যানিয়েল ভেট্টরি জানালেন, তারা জিততে চান এবং জিতবেন। রাসেল ডমিঙ্গোও সম্মতিসূচক মাথা ঝাঁকালেন। যে ভারতের বিপক্ষে খেলা, সে দেশের নাগরিক টাইগারদের ভিডিও অ্যানালিস্ট শ্রীনিবাসন তো মাহমুদুল্লাহদের সিরিজ জিততে দেখতে উন্মুখ হয়ে আছেন। জাতীয় দলের শ্রীলংকান ট্রেনার মারিও ভিল্লাভারানে খেলোয়াড়দের মতোই জয়ের ব্যাপারে আত্মবিশ্বাসী।

সিরিজ জয়ের স্বপ্ন নিয়ে রাজকোটে যাত্রা
                                  

ক্রীড়া প্রতিবেদক : ভারতের বিপক্ষে প্রথম ৮ ম্যাচে বাংলাদেশের জয় ছিলো না একটিও। অথচ এখন উজ্জ্বল সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে দেশটির বিপক্ষে সিরিজ জিতে নেয়ার। অসাধারণ এ সাফল্য অর্জনের জন্য এখন দুই ম্যাচে প্রয়োজন একটি মাত্র জয়। টাইগারদের নির্ভরতার প্রতীক মুশফিকুর রহীম অবশ্য দুই ম্যাচ হিসেবে আনতে চান না।

তার মতে দ্বিতীয় ম্যাচটিতেই হয়ে যেতে পারে সিরিজ জয়। রোববার প্রথমবারের মতো ভারতকে হারানোর ম্যাচে নায়ক ছিলেন মুশফিক। দায়িত্বশীল ইনিংসে ৪৩ বলে ৬০ রান করার মাধ্যমে জিতেছেন ম্যাচ সেরার পুরষ্কার। ম্যাচ পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে এসে জানিয়েছেন, এবার সিরিজ জয়ের চিন্তা বাংলাদেশ শিবিরে। ভারতের মাটিতে ভারতের মতো শক্তিশালী দলের বিপক্ষে সিরিজ জয়ের সুযোগ হাতছাড়া করা যাবে না মোটেও। সেই লক্ষ্যে রাজকোট ও নাগপুরের দ্বিতীয় ও তৃতীয় টি-টোয়েন্টিতে নামবে বাংলাদেশ।

ভারত ও বাংলাদেশের গন্তব্য এখন রাজকোট।  দিল্লি থেকে সরাসরি ফ্লাইটে রাজকোট যাবার সুযোগ নেই। আয়োজকরা দুই দলের জন্য চার্টার্ড উড়োজাহাজের ব্যবস্থা করেছে।  দুপুরের মধ্যেই রাজকোটে পৌঁছে যাবে দল।  আগামী বৃহস্পতিবার রাজকোটের স্বরাষ্ট্র ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন স্টেডিয়ামে সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ ও ভারত।

ভারতের বিপক্ষে আট টি-টোয়েন্টি হারের পর নবম ম্যাচে জিতল বাংলাদেশ।  দ্বিপাক্ষিক সিরিজের প্রথম ম্যাচ জিতে বাংলাদেশ নিজেদের কাজ একধাপ এগিয়ে রেখেছে। এবার সিরিজ জয়ের বড় স্বপ্ন নিয়ে রাজকোটে টিম বাংলাদেশ।

সন্ধ্যায় মাঠে নামছে বাংলাদেশ-ভারত
                                  

ক্রীড়া প্রতিবেদক : ভারতের বিপক্ষে তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ শুরু হচ্ছে আজ। অরুণ জেটলি স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় শুরু হবে প্রতিবেশী দু’দেশের ক্রিকেট লড়াই। টি-টোয়েন্টিতে ভারতের বিপক্ষে এখন পর্যন্ত ৮টি ম্যাচ খেলেছে বাংলাদেশ। এর মধ্যে সব ক’টিতেই বাংলাদেশ হেরেছে।

ভারতের বিপক্ষে বাংলাদেশ যে আটটি ম্যাচ খেলেছে এর মধ্যে তিনটি অনুষ্ঠিত হয়েছে ঢাকায়, তিনটি হয়েছে কলম্বোতে, একটি হয়েছে বেঙ্গালুরুতে ও একটি হয়েছে নটিংহামে।

২০১৬ সালের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে বেঙ্গালুরুতে ভারতের বিপক্ষে জিততে জিততে হেরেছে বাংলাদেশ। স্নায়ুক্ষয়ী ম্যাচে টাইগাররা হেরেছিল ১ রানে। সেই হারে খেলোয়াড়সহ কেঁদেছিল কোটি কোটি টাইগার ভক্ত। সেটি ছিল ভারতের ভারতের মাটিতে বাংলাদেশের প্রথম টি-টোয়েন্টি ম্যাচ। এবার প্রথমবারের মতো ভারতের মাটিতে টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলতে চলেছে বাংলাদেশ।

২০১৮ সালের মার্চে শ্রীলঙ্কায় অনুষ্ঠিত নিদাহাস ট্রফির ফাইনালে ভারতের বিপক্ষে শেষ বলে হেরেছিল বাংলাদেশ। হতাশ হয়ে রানার্স আপ হয়েই সন্তুষ্ট থাকতে হয়েছিল সাকিব আল হাসানদের। এই সফরেও অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করার কথা ছিল সাকিবের। কিন্তু ভারতের যাওয়ার আগের দিনই তিনি শুনতে পান একটি দুঃসংবাদ। ক্রিকেট জুয়াড়ির কাছ থেকে প্রস্তাব পাওয়া এবং সেটি আইসিসিকে না জানানোর অপরাধে তাকে দুই বছরের জন্য সব ধরনের ক্রিকেটে নিষিদ্ধ করে আইসিসি। যার মধ্যে এক বছরের নিষেধাজ্ঞা স্থগিত।

নিয়মিত অধিনায়ক সাকিব আল হাসান না থাকায় মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ এই সফরে টি-টোয়েন্টি সিরিজে অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করবেন। ব্যক্তিগত কারণে এই সফরে যাননি ওপেনার তামিম ইকবাল। ইনজুরির কারণে যেতে পারেননি পেস অলরাউন্ডার মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন। সবমিলিয়ে টিম ম্যানজেমেন্ট একাদশ সাজাতে জটিল হিসাবের সম্মখীন হতে হচ্ছে।

গত মাসে শ্রীলঙ্কা সফরে বাংলাদেশ ‘এ’ দলের হয়ে ওয়ানডে সিরিজে ব্যাক-টু-ব্যাক হাফ সেঞ্চুরি করেন মোহাম্মদ নাঈম। শোনা যাচ্ছে, আজ ভারতের বিপক্ষে অভিষেক হতে পারে নাঈমের। দীর্ঘদিন পর আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফিরতে পারেন পেসার আল-আমিন হোসেন ও স্পিনার আরাফাত সানি।

দিল্লিতে বাংলাদেশ দল পড়েছে নতুন একটি ঝামেলায়। সেখানকার বায়ু দূষণ এতটাই তীব্র যে বাধ্য হয়ে মাস্ক পরে অনুশীলন করেছেন বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা। সেই সমস্যা মোকাবেলা করেই খেলতে হবে টাইগারদের।

ম্যাচ শুরু আগেরদিন সংবাদ সম্মেল মাহমুদউল্লাহ বলেছেন, আমরা অনেক ইতিবাচক। আমরা আমাদের ফলাফল ইতিবাচকভাবেই ভাবছি। আমরা সবাই জানি ভারত তাদের নিজেদের কন্ডিশনে খুব শক্তিশালী। ওদের সাম্প্রতিক পারফরম্যান্স তাই বলে। আমাদের হারানোর কিছু নেই। আমরা যা পেতে পারি সেদিকে বেশি ফোকাস করব। আমরা ভালো ক্রিকেট খেলতে চাই।

তিনি বলেন, আমাদের ব্যাটসম্যানদের দায়িত্ব নিয়ে ব্যাটিং করতে হবে। যেন ভালো একটা রান আমরা বোলারদের দিতে পারি। এমন রান যেটা তারা ডিফেন্ড করতে পারবে। অবশ্যই ভারত দেশের মাটিতে অনেক শক্তিশালী। আমাদের হারানোর কিছু নাই, পাওয়ার আছে অনেক কিছু। এভাবেই চিন্তা করে আমরা অনুপ্রাণিত হয়ে নিজেদের সেরা পারফরম্যান্স দিতে হবে।

ভক্ত-সমর্থকদের শান্ত থাকার অনুরোধ সাকিবের
                                  

ক্রীড়া প্রতিবেদক : সাকিব আল হাসানের নিষেধাজ্ঞায় ক্ষুব্ধ তার ভক্ত-সমর্থকরা। তাদের শান্ত থাকার আহ্বান জানিয়েছেন দেশের ক্রিকেটের প্রাণভোমরা সাকিব আল হাসান।

শুক্রবার রাতে দেয়া এক ফেসবুক পোস্টে লিখেছেন, শুরুতেই বলতে চাই, এই খারাপ সময়ে সকল ভক্ত ও সমর্থকদের যে নিঃস্বার্থ সমর্থন, ভালোবাসা নিয়ে আমার এবং আমার পরিবারের পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন তাতে আমি নিজেকে সৌভাগ্যবান মনে করছি। শেষ কয়েকদিনে দেশের হয়ে মাঠে নামার গুরুত্ব আমি আরও ভালোভাবে অনুধাবন করতে পেরেছি? সেই পরিপ্রেক্ষিতে আমার ওপর শাস্তি আরোপিত হওয়ায় ক্ষুব্ধ সকল ভক্ত ও শুভাকাঙ্ক্ষীদের ধৈর্য ধরে শান্ত থাকার অনুরোধ করছি।

প্রিয় ক্রিকেটারের নিষেধাজ্ঞায় অনেকেই বিসিবিকে দায়ী করে আসছে। এ বিষয়ে তিনি লেখেন, আমি পরিষ্কারভাবে বলতে চাই, আইসিসি আকসুর পুরো তদন্তটাই ছিলো অত্যন্ত গোপনীয় এবং আমার উপর শাস্তি আরোপিত হওয়ার মাত্র কয়েক দিন আগে বিসিবিকে আমি এ ব্যাপারে জানাই। দেরিতে জানলেও এমন পরিস্থিতিতে বিসিবিই আমাকে সবচেয়ে বেশি সমর্থন দিয়েছে। তাই, বোর্ডের প্রতি আমি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি ।

নিজের অবহেলার কথার স্মরণ করিয়ে দিয়েছেন সাকিব আল হাসান, যারা এই কঠিন সময়ে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে এগিয়ে এসেছেন, সবাইকে ধন্যবাদ। মনে রাখতে হবে, পুরো ব্যাপারটিই একটি সুনির্দিষ্ট প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়েই সম্পন্ন হচ্ছে। যেহেতু ওই সময়ে আমি আমার দায়িত্ব ঠিকঠাক পালন করতে পারিনি তাই আমিও আমার ওপর আরোপিত শাস্তি মাথা পেতে নিয়েছি।

সবশেষে ছিলো ফেরার দৃঢ় প্রত্যয়, ২০২০ সালে বাংলাদেশের হয়ে আবার মাঠে নামার কথা ছাড়া এই মুহূর্তে আর কিছুই ভাবছি না আমি। ততদিন পর্যন্ত আপনাদের দোয়া আর প্রার্থনায় আমাকে রাখবেন বলেই আশা করছি। ধন্যবাদ।

শেখ কামাল ক্লাব কাপের ফাইনাল আজ
                                  

ক্রীড়া প্রতিবেদক : শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্লাব টুর্নামেন্টের প্রথম আসরে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল স্বাগতিক চট্টগ্রাম আবাহনী। পরের আসরে সেমিফাইনাল থেকেই বিদায় নিতে হয় তাদের। এক মৌসুম পর আবারো ফাইনালে নাম লিখিয়েছে বন্দরনগরীর দলটি। শিরোপা পুনরুদ্ধার করার লড়াইয়ে তাদের প্রতিপক্ষ মালয়েশিয়ার তেরেঙ্গানু এফসি।

শক্তির পাল্লায় কোনও দলই তেমন পিছিয়ে নেই। গ্রুপ পর্ব থেকে শুরু করে সেমিফাইনাল পর্যন্ত দুই দলই তাদের সামর্থ্য দেখিয়েছে। চার ম্যাচে ১৩ গোল করেছে তেরেঙ্গানু, খেয়েছে ৭টি। চট্টগ্রাম আবাহনী দিয়েছে ১১টি, খেয়েছে ৫টি। তবে সাফল্যের বিচারে কিন্তু তেরেঙ্গানু এক ধাপ এগিয়ে। এখন পর্যন্ত অপরাজিত দল তারাই।বিপরীতে চট্টগ্রাম আবাহনী গ্রুপ পর্বে মোহনবাগানের কাছে হেরেছে। যদিও ওই ম্যাচে মারুফুল হক সেরা একাদশ খেলাননি।

তবে দুই দলই ট্রফি জেতার জন্য  আগেভাগেই হুঙ্কার দিয়ে রেখেছে। চট্টগ্রাম আবাহনীর আছে জামাল ভূঁইয়া, চার্লস দিদিয়ের ও চিনেদু ম্যাথিউর মতো গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড়, যারা গোল খেয়েও হতোদ্যম হয় না। শেষ পর্যন্ত লড়াই করে থাকে। গোলও করে থাকেন।

তেমনি তেরেঙ্গানুতে লি টাক, ব্রুনো সুজুকি ও সাইফিক বিন ইসমাইল কম যাচ্ছেন না। লি টাক তো টানা দুই ম্যাচে হ্যাটট্রিক করেছেন। ৬ গোল করে সর্বোচ্চ গোলদাতাও। সেট পিসে এখন পর্যন্ত বৈচিত্র্য দেখিয়ে যাচ্ছেন এই প্লে মেকার।

তারাই মূলত দুই দলকে টেনে ফাইনাল পর্যন্ত নিয়ে এসেছে। তাই স্বাভাবিকভাবে ফাইনালে তাদের ওপরই স্পটলাইট থাকছে। দুই দলের খেলোয়াড় ছাড়াও ডাগ আউটে লড়াই হবে কোচদেরও। ট্যাকটিকালি কোন দল ভালো খেলতে পারে, সেটারও প্রমাণ হবে আরও একবার। দুই দলের কোচ ও খেলোয়াড়রা কোনও ছাড় দিচ্ছেন না। তবে নিজেদের মাঠে চট্টগ্রাম আবাহনীর আত্মবিশ্বাস যেন একটু বেশি। ধারে অন্য দল থেকে কোচ ও খেলোয়াড় এনে ফাইনালে উঠে দারুণ চমকই দেখিয়েছে।

এই দলটি যদি চ্যাম্পিয়ন হয়ে যায়,তাহলে অবাক হওয়ার কিছুই থাকবে না। ফাইনালে শতভাগের বেশি দেওয়ার লক্ষ্যেই তারা মাঠে নামছে। প্রতিপক্ষের গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড়দের আটকে দেওয়ার মিশন নিয়ে খেলবে তারা। সেই সঙ্গে নিজেদের কাজটি করে দেখানোর লক্ষ্য তো আছেই। প্রতিপক্ষের জালে গোল দিয়ে নিজেদের রক্ষণভাগ অটুট রাখার মিশন। ৯০ মিনিট শেষে বিজয়ের চওড়া হাসি হাসতে চাইছে যে চট্টলার দলটি।

স্থানীয় দল হিসেবে চট্টগ্রাম আবাহনী ফাইনালে খেলবে।তাই গ্যালারি ভর্তি দর্শক থাকবে। তাদের সমর্থন নিয়ে মারুফুল হকের শিষ্যদের এগিয়ে চলার মিশন। চার বছর পর তাদের সামনে আবারও ট্রফি উঁচু করে ধরার সুযোগ হাতছাড়া হবে কেন! শিরোপা পুনরুদ্ধারের মিশনে নেমে সফলতার গানই যে শোনাতে চাইবেন জামাল-ম্যাথিউরা। ট্রফি জিতে রাতটি যে স্বরণীয় করে রাখতে হবে!

আজ সন্ধ্যা ৬টায় এমএ আজিজ স্টেডিয়ামে হবে ফাইনাল। বাংলা টিভি ম্যাচটি সরাসরি সম্প্রচার করবে।

১৮ মাস নিষিদ্ধ হচ্ছেন সাকিব
                                  

ক্রীড়া প্রতিবেদক : বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার এবং বাংলাদেশ ক্রিকেটের আস্থার প্রতীক সাকিব আল হাসান। আসছে ভারত সফরে তার খেলা বা না খেলার বিষয় ছাপিয়ে নতুন করে সংশয় দেখা দিয়েছে এ অলরাউন্ডারকে নিয়ে। তাকে ১৮ মাসের নিষেধাজ্ঞা দিতে পারে ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিল-আইসিসি। সেই ঘোষণা আসতে পারে আজ। সেটি হলে শুধু ভারত সফর নয়, খেলতে পারবেন না আগামী বছর অস্ট্রেলিয়ায় অনুষ্ঠেয় টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপেও।

ঘটনাটি দুই বছর আগের। একটি আন্তর্জাতিক ম্যাচের আগে এক ক্রিকেট জুয়াড়ির কাছ থেকে অনৈতিক প্রস্তাব পেয়েছিলেন সাকিব। কিন্তু সাকিব সেটি তৎক্ষণাৎ প্রত্যাখ্যান করে দেন। সমস্যা হচ্ছে, সাকিব বিষয়টি গোপন রেখেছিলেন। কিন্তু কোনো ক্রিকেটার যদি এ ধরনের কোনো প্রস্তাব পেলে আইসিসিকে জানাতে হয়। এই না জানানোটাই কাল হতে যাচ্ছে সাকিবের জন্য।

সাকিব বিষয়টি আইসিসিকে না জানালেও আইসিসির দুর্নীতি দমন বিভাগ (আকসু) পরে বিষয়টি জানতে পেরেছে। আন্তর্জাতিক জুয়াড়িদের কল রেকর্ড ট্র্যাকিং করে এ ব্যাপারে তারা তথ্য উদ্ধার করে। ওই জুয়াড়ি আইসিসির কালো তালিকায় থাকাদের একজন। বিষয়টি পুরোপুরি নিশ্চিত হওয়ার পর সম্প্রতি সাকিবের সঙ্গেও কথা বলেন আইসিসির অ্যান্টিকরাপশন অ্যান্ড সিকিউরিটি ইউনিট (আকসু) প্রতিনিধি।

জানা গেছে, সাকিবও নিজের ভুল স্বীকার করেছেন আকসু তদন্ত কর্মকর্তাদের কাছে। আত্মপক্ষ সমর্থন করে বলেছেন, জুয়াড়ির প্রস্তাবকে তিনি একেবারেই গুরুত্ব দেননি।

আইসিসির তদন্তের পর সব ধরনের ক্রিকেটে নিষিদ্ধ হতে যাচ্ছেন সাকিব। বিসিবির একাধিক সূত্র জানিয়েছে, আজ অথবা আগামীকাল সংবাদ বিজ্ঞপ্তি দিয়ে সাকিবের নিষেধাজ্ঞার বিষয়টি জানাবে আইসিসি। বিসিবি এরই মধ্যে এ বিষয়ে অবগত হয়েছে।

বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন ইতোমধ্যে একাধিক ব্রিফিং ও সাক্ষাৎকারে ৩০ অক্টোবর আইসিসির একটি রিপোর্ট পাওয়ার কথা বলেছেন। গত ২২ অক্টোবর মঙ্গলবার মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে সংবাদ সম্মেলনে ম্যাচ ফিক্সিংয়ের বিষয়েও ইঙ্গিত দেন তিনি। সাকিব যে ৩০ অক্টোবর দলের সঙ্গে ভারত যেতে পারছেন না, সেটিও এক সাক্ষাৎকারে বলেছেন বিসিবি সভাপতি। ভারত সফরে নতুন অধিনায়ক পাওয়া নিয়ে দুশ্চিন্তার কথাও উল্লেখ করেছেন পাপন। সংশ্নিষ্টরা জানিয়েছেন, এত কিছুই ঘটেছে সাকিবের সম্ভাব্য নিষেধাজ্ঞাকে সামনে রেখে।

আইসিসি ইতোমধ্যে সাকিবের ব্যাপারে বিসিবিকে বিস্তারিত জানিয়েছে। তাকে জাতীয় দলের সঙ্গে অনুশীলন না করার নির্দেশনাও দিয়েছে আইসিসি। এ কারণে অসুস্থ বলে জাতীয় দলের অনুশীলনে যোগ দিচ্ছেন না সাকিব।

বিসিবি সূত্র জানিয়েছে, সাকিব পরবর্তী সময়ে আকসুকে সহায়তা করায় একটু নমনীয় তারা। শাস্তি ১৮ মাস নির্ধারণ করা হলেও সাকিব আপিল করলে সেটা কমিয়ে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি পাওয়া গেছে। বিসিবির সহযোগিতা চাওয়ার পাশাপাশি সাকিব আইসিসির কাছেও ক্ষমা চেয়ে শাস্তি মওকুফের আবদেন করবেন। আইসিসি দুর্নীতি দমন বিভাগের নিয়ম ও শৃঙ্খলা মেনে চললে এই শাস্তি ছয় মাসে নেমে আসতে পারে। এটাই এক্ষেত্রে সর্বনিম্ন শাস্তি।

আইসিসির দুর্নীতি দমন নীতিমালায় আছে, কোনো ক্রিকেটার, কোচিং স্টাফ, আম্পায়ার, স্কোরার, গ্রাউন্ডসের সদস্য, জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক ক্রিকেট সংশ্নিষ্ট যে কেউ জুয়াড়ির কাছ থেকে যে কোনো ধরনের প্রস্তাব পেলে তাৎক্ষণিকভাবে তা আইসিসি বা সংশ্নিষ্ট দেশের ক্রিকেট বোর্ডের দুর্নীতি দমন কর্মকর্তাদের জানাতে হবে।

বিকেলে ক্রিকেটারদের সঙ্গে বসতে চায় বিসিবি
                                  

ক্রীড়া প্রতিবেদক : ক্রিকেটারদের ১১ দফা দাবিতে ডাকা ধর্মঘটে থমকে গেছে দেশের ক্রিকেট। সংকট সমাধানে আজ বিকেল ৫ টায় সাকিব-তামিম-মুশফিকদের সঙ্গে বসতে চায় বিসিবি। বোর্ড যেকোনো জায়গায় আলোচনায় বসার জন্য প্রস্তুত বলে জানিয়েছেন বিসিবির প্রধান নির্বাহী নিজামউদ্দিন চৌধুরী।

বুধবার দুপুরে বিসিবিতে সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে ক্রিকেটারদের সঙ্গে আলোচনায় বসতে আগ্রহের কথা জানান বোর্ডের প্রধান নির্বাহী।  প্রধান নির্বাহীর মতে, এই সংকট সমাধান কেবল সময়ের ব্যাপার।

তিনি বলেন, গতকাল সংবাদ সম্মেলনের পরপরই আমরা ক্রিকেটারদের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করি। জাতীয় দলের ক্রিকেটার তামিম ইকবালের সঙ্গে আমার কথা হয়। যত দ্রুত সম্ভব সমস্যা সমাধানের ব্যাপারে বোর্ডের অবস্থান পুনর্ব্যক্ত করেছি আমি। এগুলো সবই আর্থিক ব্যাপার এবং সমাধান হওয়াটা কেবল সময়ের ব্যাপার। বসলেই বিষয়গুলোর নিষ্পত্তি হবে। তামিম আমাকে জানিয়েছেন যে, উনি সবার সঙ্গে কথা বলে আমাকে জানাবেন।

তিনি আরও জানান, আমরা আশা করছি যে কোনো সময় তারা জানাবেন। এর মধ্যেই জানতে পেরেছি যে, আজকে কোনো এক সময় তারা একত্রিত হবেন ও কোনো জায়গায় বসবেন। আমি এজন্য জানিয়ে দিতে চাই, আমরা আজকে বিকেল ৫টায় প্রস্তুত আছি। বোর্ডে বা যে কোনা জায়গায় আমরা কথা বলতে পারি, জানালেই হবে।

এর আগে গত সোমবার দেশের শীর্ষ ক্রিকেটাররা ১১ দফা দাবি জানিয়েছেন। দাবি না মানা পর্যন্ত কোনো ক্রিকেটীয় কার্যক্রমে অংশ নেবেন না তারা। পরদিন জরুরি বৈঠকে বসে বিসিবির পরিচালনা পর্ষদ। সভা শেষে দীর্ঘ সংবাদ সম্মেলনে নিজেদের অবস্থান তুলে ধরেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। কিন্তু তার কথায় সমাধান আসেনি। বরং এই ধর্মঘটকে তিনি ষড়যন্ত্রের অংশ বলে মন্তব্য করেন।

নাজমুল হাসান বলেনে, ঘটনার পর থেকে খেলোয়াড়দের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেছেন তারা। কিন্তু কেউ ফোন ধরেননি। তবে তার দরজা ক্রিকেটারদের জন্য সব সময় খোলা বলে জানান বোর্ড প্রধান।

দাবিগুলো মানার ব্যাপারে বোর্ড নমনীয় হয়েছে কি না, এমন প্রশ্নে বিসিবির প্রধান নির্বাহী বলেন, সিদ্ধান্তে নমনীয় হওয়ার কিছু নেই। কাল কিন্তু বোর্ড সভাপতি জানিয়েছেন, যে দাবি দেওয়া আছে সেগুলোতে উনার নীতিগত সমর্থন আছে।

আজ সকাল থেকে গুঞ্জন ছড়িয়েছে, সংকট সমাধানে মাশরাফি বিন মুর্তজাকে মধ্যস্থতার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এ ব্যাপারে তারা অবগত নন বলে জানালেন নিজামউদ্দিন চৌধুরী। তিনি বলেন, মাশরাফি বাংলাদেশ ওয়ানডে ক্রিকেট দলের অধিনায়ক, প্লাস একজন সংসদ সদস্য। যদি এমন কোনো দায়িত্ব মাশরাফি পেয়ে থাকে, সেটা তো অবশ্যই ভালো। তবে আমরা এ ব্যাপারে অবগত নই।

আজ ঢাকায় আসছেন ফিফা প্রেসিডেন্ট
                                  

ক্রীড়া ডেস্ক : বিশ্ব ফুটবলের নিয়ন্ত্রক সংস্থা ফিফা’র প্রেসিডেন্ট জিয়ান্নি ইনফান্তিনো আজ ঢাকায় পা রাখছেন। ফিফা সভাপতি নির্বাচিত হওয়ার পর বিভিন্ন দেশ ঘুরলেও এর আগে এশিয়ার কোন দেশে আসেননি তিনি। এশিয়া সফরের অংশ হিসেবে এক দিনের শুভেচ্ছা সফরে বাংলাদেশে আসছেন ইনফান্তিনো। বুধবার বিকেলে মঙ্গোলিয়া থেকে ঢাকায় উড়ে আসবেন ফিফা বস।

বিশ্ব ফুটবলের সর্বোচ্চ অভিভাবকের ‘এশিয়ায় গুডউইল সফর’ হিসেবে অভিহিত এ সফরে পাঁচ সদস্যের প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন। জিয়ান্নির সঙ্গে আসবেন ফিফার ডেপুটি সেক্রেটারি জেনারেল ম্যাথিয়াস গ্রাফস্টর্ম, চিফ অব কমিউনিকেশন্স অনফ্রে কস্তা, এশিয়া ও ওশেনিয়ার সদস্য সংস্থাগুলোর ব্যবস্থাপক সঞ্জীবন বালাসিংঘম ও ইনফান্তিনোর অফিস ম্যানেজার ফ্রেদেরিকো র‌্যার্ভিংলিওন।

বুধবার পৌঁছে বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে দশটায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সৌজন্য এক সাক্ষাতে মিলিত হওয়ার কথা রয়েছে তার। এদিন ঢাকায় বিভিন্ন কর্মসূচিতে অংশ গ্রহণ শেষে বিকেলে লাওসের উদ্দেশ্যে রওনা করবেন ফিফা সভাপতি।

ফিফা সভাপতির ঢাকা সফর বাংলাদেশ ফুটবলের জন্য গুরুত্বপূর্ণ অধ্যায় বলে মনে করছেন বাফুফে সভাপতি কাজী সালাউদ্দিন। তার আগমন উপলক্ষে মতিঝিলের বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) ভবনটি সাদা রঙে সাজানো হচ্ছে। নীচতলা থেকে চারতলা পর্যন্ত পরিষ্কার-পরিছন্ন করা হচ্ছে। এমনকি বাফুফে ভবনের বাইরের গলির রাস্তায় যেসব অবৈধ টি-স্টলগুলো ছিল সেগুলো উচ্ছেদ করা হয়েছে।

বাংলাদেশে এ নিয়ে ফিফা সভাপতিদের চতুর্থবার আগমন। ১৯৮০-৮১ সালের দিকে জোয়াও হ্যাভেলেঞ্জ এসেছিলেন। এরপর সেপ ব্ল্যাটার দুই মেয়াদে এসেছিলেন, ২০০৬ ও ২০১২ সালে। ইনফান্তিনো আসছেন চতুর্থবার ফিফা সভাপতি হিসেবে ও তৃতীয় ব্যক্তি হিসেবে।

ফিফা বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব : কলকাতায় বাংলাদেশ-ভারত মহারণ আজ
                                  

ক্রীড়া প্রতিবেদক : ফিফা বিশ্বকাপ ২০২২ রাউন্ড দুই এর বাছাইপর্বে ‘ই’ গ্রুপের ম্যাচে আজ স্বাগতিক ভারতের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবে বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দল। যেটা আবার ২০২৩ এশিয়ান কাপেরও বাছাইপর্ব। নিজেদের মাঠে কাতারের বিপক্ষে অসাধারণ পারফরম্যান্সের ধারাবাহিকতাকে ভারতের বিপক্ষে ম্যাচেও টেনে নিয়ে যেতে চায় জেমি ডে’র শিষ্যরা। আজ মঙ্গলবার কলকাতার সল্ট লেকের বিবেকানন্দ যুবভারতী ক্রীড়াঙ্গন স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ সময় রাত আটটায় শুরু হবে এই ম্যাচটি। যা ভারতের স্টার স্পোর্টস ও বাংলাদেশের বাংলা টিভি সরাসরি সম্প্রচার করবে।

হোম অ্যান্ড অ্যাওয়ে পদ্ধতিতে ইতিমধ্যে বাংলাদেশ বাছাইপর্বের দুটি ম্যাচ খেলেছে। প্রথমটি আফগানিস্তানের বিপক্ষে। পরেরটি ২০২২ বিশ^কাপের আয়োজক কাতারের বিপক্ষে। দুটি ম্যাচেই ভালো পারফরম্যান্স করে বাংলাদেশ হার মেনেছে যথাক্রমে ১-০ ও ২-০ গোলে। অবশ্য ভারতও দুটি ম্যাচ খেলেছে। তারা ওমানের বিপক্ষে ২-১ ব্যবধানে হেরেছে ও কাতারের সঙ্গে গোলশূন্য ড্র করেছে। যা তাদের ফুটবল ইতিহাসে অন্যতম সেরা সাফল্য। বাছাইপর্বে টিকে থাকা ও পরের রাউন্ডে যাওয়ার স্বপ্ন টিকিতে রাখতে বাংলাদেশ এবং ভারতের জয়ের বিকল্প নেই।

গেল কয়েক বছরে ভারতের ফুটবল এগিয়েছে বেশ। ভারতের বড় বড় কোম্পানিগুলো মিলিয়ন মিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করেছে ভারতের ফুটবলকে এগিয়ে নিতে। তাদের দেশে ইন্ডিয়ান সুপার লিগের (আইএসএল) লিগ হচ্ছে। সেটা অবশ্য ভারতের ফুটবলে প্রভাব ফেলেছে। র‌্যাঙ্কিংয়ে তারা এগিয়েছে। তাদের বর্তমান র‌্যাঙ্কিং ১০৪। বাংলাদেশের ১৮৭। এতেই অবশ্য স্পষ্ট দুই দেশের ব্যবধান। ভারত যেখানে ফেভারিটের তকমা পাচ্ছে। এটা অবশ্য ভারতের ক্রোয়েশিয়ান কোচ ইগোর স্টিমাকের কাছে মোটেই গুরুত্ব পাচ্ছে না। তিনি বলেছেন, আসলে কোনো ম্যাচে ফেভারিট হওয়াটা কোনো কাজে লাগে না। যেটা আমরা কাতারের বিপক্ষে প্রমাণ করেছি। এটা আসলে ১১ জন বনাম ১১ জনের খেলা। প্রত্যেক ম্যাচেই ফেভারিট এবং আন্ডারডগ থাকে। তার মানে এই নয় যে ফেভারিট দলই জিতবে। এটা আসলে দলগত প্রচেষ্টার ব্যাপার।

পাশাপাশি বাংলাদেশের তিনি প্রশংসাও করেছেন, বাংলাদেশ কাতারের বিপক্ষে খুবই ভালো খেলেছে। যদিও তারা ম্যাচটি ২-০ গোলে হেরেছে। কিন্তু অনেক সুযোগ তৈরি করেছে। ম্যাচটি বাংলাদেশের জেতা উচিত ছিল। তারা এখানে হারার জন্য আসেনি। তারাও এখানে জেতার জন্য এসেছে। তারা গেল ১৩ মাসের অনেক কঠোর পরিশ্রম করেছে। আমাদের মতো তাদের দলেও বেশ কিছু ট্যালেন্টেড তরুণ খেলোয়াড় রয়েছে। বাংলাদেশকে সম্মান করেই এই ম্যাচে মাঠে নামা যাক। যদিও আমরা চেষ্টা করব পূর্ণ ৩ পয়েন্ট নিয়ে মাঠ ছাড়ার। যেটা আমাদের জন্য জরুরি।

যখন গ্রুপিং হয় তখন ভারত তাদের টার্গেটে রেখেছিল বাংলাদেশ ও আফগানিস্তানকে। কাতার ও ওমানের বিপক্ষে তারা জয় পায়নি। এবার বাংলাদেশের বিপক্ষে ঘরের মাঠে খেলবে তারা। জয় ভিন্ন অন্যকিছু চিন্তু করছেন না ভারতের অধিনায়ক সুনীল ছেত্রী, আমাদের মূল লড়াইটা এখান থেকে শুরু। প্রথম দুই ম্যাচে আমরা জয় পাইনি। আমরা চেষ্টা করব ৩ পয়েন্ট পাওয়ার।

অবশ্য সুনীল ছেত্রীকে নজরে রাখবে বাংলাদেশ। কারণ, বাংলাদেশের বিপক্ষে বরাবরই ভালো খেলেন তিনি। তবে সুনীল জানিয়েছেন, বাংলাদেশ যদি আমাকে মার্ক করে খেলে সেটা আমার জন্য বিশেষ কিছু। কারণ, আমার পেছনে যদি ৪ জন থাকে তাহলে খেলাটা হবে ১০ জন বনাম ৬ জনের। সেক্ষেত্রে আমরা সুবিধা পাব। কালকে (আজ) তাহলে বাংলাদেশ দেখবে যে সুনীল ছাড়াও ভারত দলে আরো অনেক খেলোয়াড় আছে। যারা বর্তমানে সুনীলের চেয়েও ভালো করছে। আর কাতারের বিপক্ষের ম্যাচের পর প্রমাণিত হয়েছে ভালো পারফরম্যান্স করতে ভারতের আমাকে প্রয়োজন নেই। আমি দলের ২৩জন সদস্যের একজন। হয়তো একটু বেশি ভাগ্যবান এবং একটু বেশি অভিজ্ঞ। আমরা দল হিসেবে ভালো খেলব এটাই আমাদের লক্ষ্য।

বাংলাদেশের অধিনায়ক জামাল ভুঁইয়া মনে করছেন যারা মিডফিল্ডে ভালো করবে তারাই আজ জয় নিয়ে মাঠ ছাড়বে। আর সুযোগ কাজে লাগিয়ে স্কোর করার চেষ্টা করবেন তিনি। বাংলাদেশ কোনো চাপ নিচ্ছে না। জামাল মনে করছেন পুরো চাপ ভারতের উপর থাকবে, আসলে কালকের ম্যাচে (আজকের) যারা মিডফিল্ডে ভালো করবে, তারা ম্যাচে ভালো করবে। কারণ, মিডফিল্ড সুযোগ তৈরি করে দেয়। গোল করতে হলে আমাদের সুযোগ তৈরি করতে হবে। আর সুযোগ কাজে লাগিয়ে আমরা যদি গোল করতে না পারি তাহলে ভারত গোল করবে। কালকের (আজকের) ম্যাচের আমাদের জন্য একটি গোল করাটা গুরুত্বপূর্ণ। আমি মনে করি একটি গোল হলে আরো গোলের সুযোগ তৈরি হবে। এটা আসলে কনফিডেন্টের বিষয়। ভারত অবশ্যই শক্তিশালী দল। তাদের ঘরের মাঠে খেলা। অনেক দর্শক থাকবে। আমি আমার সতীর্থদের বলেছি এমন সুযোগ বার বার আসবে না। ম্যাচটি উপভোগ করো। আমরা কোনো চাপ নিচ্ছি না। চাপ থাকবে ভারতের উপর। তারা ভালো না খেললে দর্শকরা তাদের বিরুদ্ধে চলে যাবে।

বাংলাদেশের কোচ ভারতকে সমীহ করেছেন। জানিয়েছেন ঘরের মাঠে ম্যাচ হলে তিনিও জিততে চাইতেন। কিন্তু কাতারের বিপক্ষের ম্যাচের আত্মবিশ্বাস নিয়ে ভারতের বিপক্ষে খেলবে তার দল, কাতারের বিপক্ষের পারফরম্যান্সে আমি সন্তুষ্ট। আমরা ভালোভাবে প্রস্তুতি নিয়েছে। খেলোয়াড়র সবাই ফিট আছে। আমরা এই ম্যাচটি খেলতে মুখিয়ে আছি। এই মাঠে অনেক দর্শক হবে। আমি যদি খেলোয়াড় হতাম তাহলে এতো দর্শকের সামনে খেলার ইচ্ছা পোষণ করতাম। আমি আমার খেলোয়াড়দের বলেছি এতো দর্শকের সামনে তোমরা হয়তো আর খেলার সুযোগ পাবে না। সুতরাং এটাকে কাজে লাগাও। আমি তাদের আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে স্বাভাবিক খেলাটা খেলতে বলেছি। ভারতের ঘরের মাঠে খেলা। আমারও যদি ঘরের মাঠে খেলা হত আমি জিততে চাইতাম। সুতরাং ভারত কিছুটা সুবিধা পাবে। তবে আমরা কাতারের বিপক্ষের ম্যাচের আত্মবিশ্বাস নিয়ে খেলব।

১৯৭৮ সাল থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত ভারতের বিপক্ষে ২৮টি ম্যাচ খেলেছে বাংলাদেশ। তার মধ্যে ভারত জিতেছে ১৫টিতে। বাংলাদেশ জিতেছে ৩টিতে। ড্র হয়েছে ১০টি ম্যাচ। বাংলাদেশের জালে ভারত ৩৮ বার বল জড়িয়েছে। অন্যদিকে ভারতের জালে বাংলাদেশ ১৮ বার বল জড়িয়েছে। যদিও ভারতের বিপক্ষে বাংলাদেশের শেষ জয়টি এসেছে ১৬ বছর আগে, ২০০৩ সালে। ৩৪ বছর পর সল্টলেকে খেলতে নেমে বাংলাদেশকে কি পারবে ভারতের বিপক্ষে তাদের চতুর্থ জয় তুলে নিতে? সেটা জানতে অপেক্ষা করতে হবে রাত পর্যন্ত।

বিশ্ব গণমাধ্যমে আবরার হত্যার খবর
                                  

স্বাধীন বাংলা: বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের(বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদকে নির্মমভাবে হত্যাকাণ্ডের ঘটনা বিশ্বগণমাধ্যমেও ফলাও করে প্রচারিত হয়েছে।

ফরাসি গণমাধ্যম এএফপি, যুক্তরাষ্ট্রের ভয়েস অব আমেরিকা, কাতারভিত্তিক আল-জাজিরা ও ভারতীয় দৈনিক হিন্দুতে এই হত্যার খবর এসেছে।

এএফপির খবরে বলা হয়েছে, ভারতের সঙ্গে পানি বণ্টন চুক্তি নিয়ে সরকারের সমালোচনা করায় ক্ষমতাসীন দলের কর্মীরা তাকে পিটিয়ে হত্যা করেছেন। এ নিয়ে রাজধানী ঢাকা ও রাজশাহীর বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রতিবাদ চলছে।

ন্যায়বিচারের দাবিতে শিক্ষার্থীরা রাস্তায় নেমে এসেছেন। শিক্ষকরাও যোগ দিয়েছেন সেই বিক্ষোভে।

ঢাকার উপপুলিশ কমিশনার মুন্তাসিরুল ইসলাম এএফপিকে বলেন, আবরার ফাহাদকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে। এ নিয়ে জেরা করতে ছাত্রলীগে নেতাদের হাজতে নেয়া হয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হলে তার মরদেহ পাওয়া গেছে। শিক্ষার্থীদের বরাতে গণমাধ্যম বলছে, ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা তাকে জেরা ও নির্যাতন করেছেন।

ছাত্রলীগ নেতা আশিকুল ইসলাম বিটু বলেন, একটি ইসলামপন্থী দলের ছাত্র সংগঠনের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে আবরার ফাহাদকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে।

এর কয়েক ঘণ্টা আগে আবরার ফাহাদ ফেসবুকে একটি পোস্ট দিলে তা ছড়িয়ে পড়ে। এতে তিনি বাংলাদেশের একটি নদী থেকে ভারতকে পানি দিতে সরকারের চুক্তির সমালোচনা করেছিলেন।

এএফপি জানায়, সাম্প্রতিক বছরগুলোতে কয়েকজন সদস্য হত্যা, সহিংসতা ও লুটতরাজে জড়িত থাকার অভিযোগে ছাত্রলীগ কুখ্যাতি অর্জন করেছে।

গত বছর শিক্ষার্থীদের সরকারবিরোধী বিক্ষোভ দমনে সংগঠনটি সহিংসতার আশ্রয় নিয়েছে। একটি বেপরোয়া বাস চাপায় দুই শিক্ষার্থী নিহত হওয়ার পর ওই বিক্ষোভ শুরু হয়েছিল।

গত মাসে একটি সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধানের কাছ থেকে অর্থ হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগে ছাত্রলীগের সভাপাতি ও সাধারণ সম্পাদককে বহিষ্কার করা হয়েছে।

দ্য হিন্দুর খবরে বলা হয়েছে, ভারতের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাম্প্রতিক দ্বিপক্ষীয় চুক্তি নিয়ে আবরার ফাহাদ প্রশ্ন তুলেছিলেন।

পত্রিকাটি জানায়, ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের ছাত্র সংগঠনের কর্মীরা জেরা করার সময় তাকে পিটিয়ে হত্যা করেছেন।

তার বন্ধু দ্য হিন্দুকে বলেন, আবরার ফাহাদকে একটি রুমে আটকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে। এসময় ভারত ও আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে পোস্ট দেয়ায় তিনি শিবিরের সঙ্গে যুক্ত কিনা, সেই প্রশ্নও করা হয়েছে।

দোহাভিত্তিক আল-জাজিরার খবরে বলা হয়েছে, ছাত্রলীগের কর্মীরা বুয়েটের এক শিক্ষার্থীকে হত্যার পর ঢাকা ও রাজশাহীর বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে হাজার হাজার শিক্ষার্থী বিক্ষোভ করেছেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আবরারের এক সহপাঠী বলেন, কয়েকটি ফেসবুক পোস্টের কারণে তাকে হত্যা করা হয়েছে। এটা কাণ্ডজ্ঞানহীন। ছাত্রলীগের গুণ্ডারা তাকে হত্যা করেছেন। আমরা ন্যায়বিচার চাচ্ছি।

আবরার ফাহাদের বাবা ৫৭ বছর বয়সী বারাকাত উল্লাহ বলেন, আমার সন্তান নিরপরাধ ছিলেন। তিনি তার জোরালো মত দিয়েছেন, যেজন্য তাকে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়েছে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইনবিভাগের অধ্যাপক আসিফ নজরুল আল-জাজিরাকে বলেন, শিবিরের সঙ্গে জড়িত থাকায় আরেক শিক্ষার্থীকে প্রশ্ন করার অধিকার ছাত্রলীগকে কে দিয়েছে? সংগঠনটি সরকারের নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেছে। তাদের এসব তৎপরতা বন্ধ করতে হবে।

এছাড়া ভয়েস অব আমেরিকাসহ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে এই হত্যাকাণ্ডের খবর প্রকাশ পেয়েছে।




সূত্র: যুগান্তর

বাংলাদেশে আসছে মেসির আর্জেন্টিনা
                                  

স্বাধীন বাংলা ডেস্ক: ৮ বছর পর আবারো আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলতে বাংলাদেশে আসছে মেসির আর্জেন্টিনা। আগামী নভেম্বরে ঢাকায় আর্জেন্টিনা খেলবে প্যারাগুয়ের বিপক্ষে। খেলবেন আর্জেন্টাইন সুপারস্টার লিওনেল মেসিও। এমনটি জানিয়েছে, আর্জেন্টিনা ভিত্তিক সংবাদমাধ্যম মুন্দো আলবিসেলেস্তা। প্যারাগুয়ের অফিসিয়াল টুইটার পেজ থেকেও নিশ্চিত করা হয়েছে খবরটি।

আগামী মাসে প্রতিবেশী দুই দেশের বিপক্ষে লড়াইয়ের আগে অবশ্য ইউরোপ সফর করবে লিওনেল স্কালোনির শিষ্যরা। ১০ অক্টোবর জার্মানির বিপক্ষে লড়ার তিন দিন পর ইকুয়েডরের মুখোমুখি হবে তারা। পরে এশিয়া সফরে যাবে।

সৌদি আরবে ১৫ নভেম্বর ব্রাজিলের বিপক্ষে মাঠে নামবে আর্জেন্টিনা। তিন দিন পর ১৮ নভেম্বর ঢাকায় প্যারাগুয়ের মুখোমুখি হবে আকাশি-নীল জার্সিধারিরা। সর্বশেষ ২০১১ সালে বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে নাইজেরিয়ারের বিপক্ষে ১-৩ গোলের জয় পেয়েছিল আর্জেন্টিনা।

এদিকে প্যারাগুয়ের সেই টুইটে আর্জেন্টিনা ছাড়াও ঢাকায় আরও একটি প্রীতি ম্যাচে খেলার কথা বলা হয়েছে। ১৫ নভেম্বর ভেনেজুয়েলার বিপক্ষে খেলবে প্যারাগুয়ে।

আর্জেন্টিনা দলে নেই আগুয়েরো-ডি মারিয়া, ফিরলেন দিবালা
                                  

ক্রীড়া ডেস্ক : চলতি বছরের অক্টোবরে জার্মানি ও ইকুয়েডরের বিপক্ষে দুটি প্রীতি ম্যাচে আর্জেন্টিনা স্কোয়াডে ডাক পেয়েছেন পাওলো দিবালা। তবে সবশেষ কোপা আমেরিকার পর এখনও দলে সুযোগ পাননি দলের অন্যতম সেরা দুই তারকা অ্যাঞ্জেল ডি মারিয়া এবং সার্জিও আগুয়েরো।

কোপা আমেরিকার গত আসরে রেফারি ও কনমেবল নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্য করায় আন্তর্জাতিক ফুটবলে ৩ ম্যাচ নিষেদ্ধাজ্ঞায় ভুগছেন লিওনেল মেসি। ফলে আসন্ন দুই প্রীতি ম্যাচের দলে নেই বার্সা অধিনায়ক।

মেসি, আগুয়েরো, ডি মারিয়া না থাকায় আক্রমণভাগের দায়িত্ব সামলাবেন জুভেন্টাসের তরুণ তারকা পাওলো দিবালা। এছাড়া প্রথমবারের মতো দলে সুযোগ পেয়েছেন আর্সেনালের গোলরক্ষক এমিলিয়ানো মার্তিনেজ। কোপা লিবার্তোদোরেস ম্যাচের জন্য দলে রাখা হয়নি বোকা জুনিয়র্স ও রিভার প্লেটের কোনো খেলোয়াড়কে।

আগামী ৯ অক্টোবর বরুসিয়া ডর্টমুন্ডের মাঠ সিগনাল ইদুনা পার্কে স্বাগতিক জার্মানির মুখোমুখি হবে আর্জেন্টিনা। চার দিন পর ইকুয়েডরের বিপক্ষে খেলবে স্কালোনির শিষ্যরা।

প্রীতি ম্যাচের জন্য আর্জেন্টিনা স্কোয়াড

গোলরক্ষক: অগাস্টিন মারচেসিন (পোর্তো), হুয়ান মুসো (উদিনেস) এবং এমিলিয়ানো মার্তিনেজ (আর্সেনাল)

ডিফেন্ডার: হুয়ান ফয়েথ (টটেনহ্যাম হটস্পার), রেঞ্জো সারাভিয়া (পোর্তো), নিকলাস ওটামেন্ডি (ম্যানচেস্টার সিটি), জার্মান পিজেল্লা (ফিওরেন্টিনা), মারকস রোহো (ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড), ওয়াল্টার ক্যানেমান (গ্রেমিও), নিকলাস তালিয়াফিকো (আয়াক্স) এবং লিওনার্দো বালের্দি (বরুশিয়া ডর্টমুন্ড)

মিডফিল্ডার: গুইদো রদ্রিগেজ (ক্লাব আমেরিকা), মাতিয়াস জারাকো (রেসিং ক্লাব), লিওনার্দো পারেদেস (প্যারিস সেইন্ট জার্মেই), নিকলাস ডমিঙ্গেজ (ভেলেহ সারসফিল্ড), রদ্রিগো ডি পল (উদিনেস), মার্কস আকুনা (স্পোর্টিং লিসবন), রবার্তো পেরেইরা (ওয়াটফোর্ড), অ্যাঞ্জেল কোররেয়া (অ্যাতলেটিকো মাদ্রিদ), লুকাস অকাম্পোস (সেভিয়া) এবং এরিক লামেলা (টটেনহ্যাম হটস্পার)

ফরোয়ার্ড: মাতিয়াস ভার্গাস (এসপানিওল), নিকলাস গঞ্জালেজ (স্টুটগার্ট), লুকাস অ্যালারিও (বেয়ার লেবারকুজেন), লাউতারো মার্তিনেজ (ইন্টার মিলান) এবং পাওলো দিবালা (জুভেন্টাস)।

শ্রীলঙ্কায় সব ম্যাচই খেলবেন মুমিনুলরা
                                  

ক্রীড়া প্রতিবেদক :  বিরূপ আবহাওয়ার জন্য হাম্বানটোটায় সরিয়ে নেওয়া হয়েছে শ্রীলঙ্কা ‘এ’ দল ও বাংলাদেশ ‘এ’ দলের সিরিজ। নতুন সূচিতে কমেনি মুমিনুল হক, সৌম্য সরকারদের কোনো ম্যাচ। পরিকল্পনা অনুযায়ী দুটি আনঅফিসিয়াল টেস্ট ও তিনটি এক দিনের ম্যাচ খেলবে তারা।

কাতুনায়েকেতে গত সোমবার শুরু হওয়ার কথা ছিল প্রথম চার দিনের ম্যাচ। টানা বৃষ্টির জন্য মঙ্গলবার পরিত্যক্ত হয়ে যায় ম্যাচ। প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন জানান, কলম্বোর আশপাশে আগামি কিছু দিন বৃষ্টি থাকবেই। তাই নতুন সূচিতে ম্যাচ আয়োজনের চেষ্টা চলছে।

বুধবার রাতে সূচি প্রকাশ করে শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট। শনিবার মাহিন্দা রাজাপাকাসে ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট স্টেডিয়ামে শুরু হবে প্রথম চার দিনের ম্যাচ। ৪ অক্টোবরে শুরু হবে দ্বিতীয় চার দিনের ম্যাচ।

একই ভেন্যুতে ৯ ও ১০ অক্টোবর হবে প্রথম দুটি এক দিনের ম্যাচ। আগের পরিকল্পনা অনুযায়ী ১২ অক্টোবর কলম্বোয় হবে তৃতীয় ও শেষ এক দিনের ম্যাচ। এই ম্যাচের মাঠের নাম এখনও ঘোষণা করেনি শ্রীলঙ্কা।

বাংলাদেশ ‘এ’ দল: মুমিনুল হক (অধিনায়ক), সাদমান ইসলাম, জহুরুল ইসলাম, মোহাম্মদ মিথুন, নুরুল হাসান সোহান, এনামুল হক বিজয়, সৌম্য সরকার, আবু জায়েদ রাহী, ইবাদত হোসেন, সানজামুল ইসলাম, রিশাদ হোসেন, সালাউদ্দিন শাকিল, মেহেদী হাসান রানা, নাজমুল হোসেন শান্ত, সাইফ হাসান, মেহেদী হাসান মিরাজ।

শিরোপা জয়ের লড়াই আজ
                                  

ক্রীড়া প্রতিবেদক : বাংলাদেশের অধিনায়ক সাকিবের হাতে উঠবে কি ত্রিদেশীয় সিরিজের ট্রফি নাকি আফগানিস্তানের অধিনায়ক রশিদ খান ট্রফি নিয়ে আনন্দ উৎসব করবেন? উত্তর জানা যাবে আজ  রাতেই। মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে ম্যাচ শুরু হবে যথারীতি সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টায়।

দুইয়ের অধিক দেশ নিয়ে আয়োজিত সিরিজে সপ্তমবারের মতো ফাইনালে উঠে গত মে মাসে শিরোপা জিতেছিল বাংলাদেশ। সেই সিরিজটি অনুষ্ঠিত হয়েছিল আয়ারল্যান্ডে। স্বাগতিক আয়ারল্যান্ডের সঙ্গে সিরিজটিতে অংশ নিয়েছিল বাংলাদেশ ও ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ওয়ানডে ফরম্যাটের এই সিরিজটিতে গত ১৭ মে ডাবলিনের ম্যালাহাইডে অনুষ্ঠিত ফাইনাল ম্যাচে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে বৃষ্টি আইনে ৫ উইকেটে জিতে শিরোপা জয় করেছিল বাংলাদেশ।

টাইগারদের সামনে আরেকটি ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনাল। এবারের ম্যাচটি ডাবলিনে নয়, ঢাকায়। তবে, এবারেরর সিরিজটি টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটের।

ত্রিদেশীয় সিরিজের প্রথম ম্যাচে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষেও চোখ রাঙাচ্ছিল পরাজয়। সেখান থেকে কোনোরকমে জয় দিয়ে টুর্নামেন্ট শুরু করে সাকিব আল হাসানের দল। পরের ম্যাচে আফগানিস্তানের বিপক্ষে আবারো অসহায় আত্মসমর্পণ। টি-টোয়েন্টিতে যেটি আফগানদের বিপক্ষে টানা চতুর্থ হার।

মিরপুরের পর টুর্নামেন্ট চট্টগ্রামে গেলে কিছুটা বদলে যায় বাংলাদেশ। প্রথমে জিম্বাবুয়েকে সহজেই হারিয়ে নিশ্চিত হয় ফাইনালের টিকিট। পরের ম্যাচে আফগানদের বিপক্ষে ধরা দেয় বহুল কাঙ্ক্ষিত জয়, পাঁচ বছর অপেক্ষার পর। তাতে ফাইনালের আগে আত্মবিশ্বাসও বাড়িয়ে নেওয়া গেছে।

যদিও র‌্যাঙ্কিং, স্কিল আর সামর্থ্য মিলিয়ে আজ ফাইনালে ফেবারিট আফগানিস্তানই। তবে নিজেদের সামর্থ্য অনুযায়ী খেলতে পারলে আফগানিস্তানকে হারানো কঠিন কিছু হবে না বলে মনে করেন বাংলাদেশ কোচ রাসেল ডমিঙ্গো, আফগানিস্তান অবশ্যই ভালো দল। তবে আমরা জানি, নিজেদের সামর্থ্য অনুযায়ী খেললে আমরা যে কোনো দলকে হারাতে পারি। আমাদের জন্য চ্যালেঞ্জ হবে আমাদের স্কিল ও মানসিকতা এক বিন্দুতে মেলাতে পারা, যেন আফগানিস্তানের মতো দলকে হারাতে পারি।

টুর্নামেন্টে বাংলাদেশের টপ অর্ডার জ্বলে উঠতে পারেনি সেভাবে। ফাইনালে টপ অর্ডার জ্বলে উঠবে বলে আশা কোচের, আমরা এখনো সেরা খেলাটা দেখানোর পথ খুঁজছি। যেমন, আমরা কেবল ২ উইকেট হারিয়ে শেষ ৫-৬ ওভারে যেতে পারিনি। প্রথম ১০ ওভারে আমরা অনেক বেশি উইকেট হারিয়ে ফেলেছি। আমাদের চাওয়া, ২ উইকেটে হারিয়ে ১৫ ওভার শেষ করা। তাতে শেষ দিকে ঝড় তোলার ভিত গড়ে উঠবে। এটায় মনোযোগ দিতে হবে। আশা করি ফাইনালে সেটি পারব।

অন্যদিকে, চট্টগ্রামে শেষ ম্যাচে ঊরুর পেছনের পেশির চোট নিয়ে বোলিং করেছেন রশিদ। মিরপুরের ফাইনালে আফগান অধিনায়কের খেলার সম্ভাবনা ফিফটি ফিফটি। তবে একটা বার্তা অবশ্য রশিদ দিয়ে রেখেছেন, ১০ ভাগ ফিট হলেও দেশের জন্য খেলতে চান তিনি। তরুণদের জন্য এর মধ্য দিয়ে একটি দৃষ্টান্ত সৃষ্টি করতে চান। ফিজিওর পরিচর্যা নিয়ে খেলার জন্য প্রস্তুত হচ্ছেন রশিদ। এই লেগস্পিনার না খেললেও আফগানিস্তানের স্পিন ভা-ার দুর্বল হয়ে যাবে ভাবার কারণ নেই। মুজিব উর রহমান ও মোহাম্মদ নবীর মতো বিশ্বমানের স্পিনার আছে দলটিতে। আর রশিদ খান তো এই সংস্করণে ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনালে নিজেদের ফেভারিটই দাবি করলেন, গত তিন-চার বছর আমরা যেভাবে টি২০ খেলছি তাতে করে আমাদের ফেভারিট বলাই যায়। নিজেদের সেরা খেলাটা খেলতে পারলে আমরা বিশ্বের যে কোনো দলকে হারিয়ে দিতে পারি। আমাদের দলে প্রতিভা আছে। এখন আমাদের কেবল মাথা ঠাণ্ডা রেখে পারফর্ম করা প্রয়োজন।

স্বাগতিকদের জন্য ভালো দিক হলো আফগানিস্তান জুজু একটু হলেও কেটেছে চট্টগ্রামে ম্যাচ জেতায়। রশিদ খান বা মুজিব উর রহমানের মতো স্পিনারদের মোকাবেলার ভীতিও হয়তো খানিকটা কেটেছে ব্যাটসম্যানদের মন থেকে। কোচ ডমিঙ্গো জানালেন, এই ম্যাচে পেস এবং স্পিনের সমন্বয় করে একাদশ সাজাবেন। উইকেটে কিছুটা ঘাস রেখে দেওয়া হয়েছে। জমজমাট একটা ফাইনাল ম্যাচের জন্য শেরেবাংলার শ্রীলংকান কিউইরেটরও চেষ্টা করবেন ট্রু উইকেট দিতে, যেখানে ব্যাটসম্যান এবং বোলাররা সমান সুবিধা পাবেন। বাঁহাতে চোট থাকায় লেগস্পিনার আমিনুল ইসলাম বিপ্লবকে ফাইনালে খেলানোর ঝুঁকি নিতে চান না কোচ। সবচেয়ে বড় কথা, আজ টাইগার ব্যাটসম্যান ও বোলারদের অভিজ্ঞতা প্রমাণের দিন। মুশফিকুর রহিম, মাহমুদুল্লাহ ও সাকিবরা যত টি২০ খেলেছেন, রশিদের আফগানিস্তান দলও ওই পরিমাণ ম্যাচ খেলেনি। সুতরাং এই তারকারা সেরাটা খেলতে পারলে কাঙ্ক্ষিত জয়টাও ধরা দেবে।

ফিফার বর্ষসেরা লিওনেল মেসি
                                  

ক্রীড়া প্রতিবেদক : ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো ও ভার্জিল ফন ডাইককে হারিয়ে ২০১৯ সালের ফিফার বর্ষসেরা পুরুষ ফুটবলারের পুরস্কার জিতেছেন আর্জেন্টাইন তারকা লিওনেল মেসি।  

মিলানে অপেরা হাউজ লা স্কালায় সোমবার ‘দ্য বেস্ট ফিফা ফুটবল অ্যাওয়ার্ড’ অনুষ্ঠানে বিজয়ীর নাম ঘোষণা করা হয়। বার্সেলোনা তারকার হাতে পুরস্কারটি তুলে দেন ফিফা সভাপতি জিয়ান্নি ইনফান্তিনো। ক্যারিয়ারে এই নিয়ে রেকর্ড ষষ্ঠবারের মতো বর্ষসেরা ফুটবলার নির্বাচিত হলেন আর্জেন্টাইন তারকা।

এর আগে সমান পাঁচবার করে বর্ষসেরা ফুটবলারের পুরস্কার জিতেছিলেন মেসি ও রোনালদো। ২০০৮ থেকে ২০১৭ পর্যন্ত এই দুই জনের বাইরে আর কেউই পুরস্কারটি জিততে পারেননি। তাদের সেই আধিপত্য ভেঙে গতবার সেরা হন রিয়াল মাদ্রিদের লুকা মদ্রিচ। উয়েফা বর্ষসেরা, ব্যালন ডি`অর ও ফিফা বর্ষসেরা- তিনটি পুরস্কারই ঘরে তুলেছিলেন ক্রোয়াট মিডফিল্ডার মদ্রিচ।

কিন্তু এবার পাল্টে গেল চিত্র। এবারের উয়েফা বর্ষসেরা পুরস্কার জিতেছিলেন ফন ডাইক। আর ফিফার বর্ষসেরা হলেন মেসি। ২০১৬ সাল থেকে শুরু হওয়া ফিফার ‘দ্য বেস্ট ফিফা ফুটবল অ্যাওয়ার্ড’ পুরস্কারটি এবারই প্রথম জিতলেন মেসি।

২০১৬ সালে ফিফার পুরস্কারটি নতুন করে চালু হওয়ার পর প্রথম দুইবার জিতেছিলেন রোনালদো, আর গতবার হাতে উঠেছিল লুকা মদরিচের। এবার সেটার স্বাদ নিলেন মেসি।

ব্যক্তিগত পারফরম্যান্সে বরাবরের মতো গত মৌসুমেও মেসি ছিলেন অসাধারণ ও দারুণ ধারাবাহিক। বার্সেলোনার লা লিগা জয়ে সবচেয়ে বড় ভূমিকা ছিল তার। স্পেনের শীর্ষ লিগে সর্বোচ্চ ৩৬ গোল করে একই সঙ্গে জিতে নেন পিচিচি ট্রফি ও ইউরোপিয়ান গোল্ডেন শু।

আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড চ্যাম্পিয়ন্স লিগেও করেন সর্বোচ্চ ১২ গোল। তবে ইউরোপ সেরার প্রতিযোগিতার সেমি-ফাইনালে লিভারপুলের কাছে হেরে বিদায় নেয় বার্সেলোনা।

২০১৮-১৯ মৌসুমে ক্লাব ও জাতীয় দলের হয়ে সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে ৫৮ ম্যাচ খেলে মোট ৫৪ গোল করেন মেসি। পাশাপাশি সতীর্থের ২০ গোলে রাখেন অবদান।

জাতীয় দলের হয়ে মৌসুমটা অবশ্য ভালো কাটেনি তার। কোপা আমেরিকার সেমি-ফাইনালে ব্রাজিলের কাছে হেরে যায় তার দেশ আর্জেন্টিনা। তবে ক্লাব ফুটবলে বছর জুড়ে দুর্দান্ত খেলেই সেরার পুরস্কারটি জিতে নিলেন বার্সেলোনা অধিনায়ক।

অন্যদিকে মেয়েদের ফুটবলে বর্ষসেরা হয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের ফরোয়ার্ড মেগান র‌্যাপিনো।

এর আগে গত ৩১ জুলাই পুরুষ বর্ষসেরা ফুটবলার নির্বাচনে ১০ জনের তালিকা প্রকাশ করেছিল ফুটবলের সর্বোচ্চ সংস্থাটি। তা থেকে গত ২ সেপ্টেম্বর তিনজনের সংক্ষিপ্ত তালিকা প্রকাশ করে ফুটবলের নিয়ন্ত্রক সংস্থাটি। পরে জাতীয় দলের কোচ, অধিনায়ক, বিশ্বজুড়ে ফিফা নির্বাচিত সাংবাদিক ও ফিফা ডটকমে নিবন্ধন করা ফুটবলপ্রেমীদের ভোটে বর্ষসেরা খেলোয়াড় নির্বাচন করা হয়।


   Page 1 of 48
     খেলাধূলা
বিশ্বকাপ বাছাই : শক্তিশালী ওমানের সামনে আত্মবিশ্বাসী বাংলাদেশ
.............................................................................................
রাজকোটে সিরিজ জয়ের লড়াই আজ
.............................................................................................
সিরিজ জয়ের স্বপ্ন নিয়ে রাজকোটে যাত্রা
.............................................................................................
সন্ধ্যায় মাঠে নামছে বাংলাদেশ-ভারত
.............................................................................................
ভক্ত-সমর্থকদের শান্ত থাকার অনুরোধ সাকিবের
.............................................................................................
শেখ কামাল ক্লাব কাপের ফাইনাল আজ
.............................................................................................
১৮ মাস নিষিদ্ধ হচ্ছেন সাকিব
.............................................................................................
বিকেলে ক্রিকেটারদের সঙ্গে বসতে চায় বিসিবি
.............................................................................................
আজ ঢাকায় আসছেন ফিফা প্রেসিডেন্ট
.............................................................................................
ফিফা বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব : কলকাতায় বাংলাদেশ-ভারত মহারণ আজ
.............................................................................................
বিশ্ব গণমাধ্যমে আবরার হত্যার খবর
.............................................................................................
বাংলাদেশে আসছে মেসির আর্জেন্টিনা
.............................................................................................
আর্জেন্টিনা দলে নেই আগুয়েরো-ডি মারিয়া, ফিরলেন দিবালা
.............................................................................................
শ্রীলঙ্কায় সব ম্যাচই খেলবেন মুমিনুলরা
.............................................................................................
শিরোপা জয়ের লড়াই আজ
.............................................................................................
ফিফার বর্ষসেরা লিওনেল মেসি
.............................................................................................
ফাইনালের আগে আফগান-জুজু কাটানোর লড়াই
.............................................................................................
বাংলাদেশের ফাইনালে ওঠার লড়াই
.............................................................................................
টি-টোয়েন্টি দলে চমক নাঈম শেখ ও আমিনুল, বাদ পড়লেন সৌম্য
.............................................................................................
মেক্সিকোকে হারালো আর্জেন্টিনা, পেরুর কাছে ব্রাজিলের হার
.............................................................................................
রুদ্ধশ্বাস লড়াইয়ে ইউএস ওপেন চ্যাম্পিয়ন নাদাল
.............................................................................................
সাকিবের পর নাঈমের আঘাত
.............................................................................................
এবার রোনালদোর চেয়ে এগিয়ে মেসি
.............................................................................................
বাংলাদেশে খেলেই ক্রিকেটকে বিদায় জানাবেন মাসাকাদজা
.............................................................................................
জয়ে শুরু বাংলাদেশের বিশ্বকাপ মিশন
.............................................................................................
সেমিফাইনালে বাংলাদেশ
.............................................................................................
ইতিহাস গড়তে আজ মাঠে নামছে আবাহনী
.............................................................................................
বাংলাদেশ দলের নতুন ফিজিও জুলিয়ান
.............................................................................................
বিদেশের মাটিতে সবচেয়ে বড় জয় পেল ভারত
.............................................................................................
বোল্টের ২৫০, সাউদির ৫০০
.............................................................................................
ঢাকায় আসলেন ডোমিঙ্গো
.............................................................................................
নিষিদ্ধ হলেন শাহজাদ
.............................................................................................
বাংলাদেশে আসছে শ্রীলঙ্কার ইমার্জিং দল
.............................................................................................
৩ মাস নিষিদ্ধ মেসি
.............................................................................................
অ্যাশেজ দিয়ে টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ শুরু হচ্ছে আজ
.............................................................................................
রংপুর রাইডার্সে খেলবেন সাকিব
.............................................................................................
টাইগারদের হোয়াইটওয়াশ এড়ানোর লড়াই আজ
.............................................................................................
ল্যাবএইড ও ইবনে সিনাকে জরিমানা
.............................................................................................
দ্রুত মাদ্রিদে ফিরার কথা জানালেন রোনালদো
.............................................................................................
রোহিতের সঙ্গে দ্বন্দ্ব নিয়ে মুখ খুললেন কোহলি
.............................................................................................
বিপিএল শুরু ৬ই ডিসেম্বর
.............................................................................................
টাইগারদের সিরিজ বাঁচানোর লড়াই আজ
.............................................................................................
মুখোমুখি জিদান-পেরেজ
.............................................................................................
অধিনায়ক তামিমের আক্ষেপ
.............................................................................................
বোলার সৌম্যকেও চায় বাংলাদেশ
.............................................................................................
তিন জয়ে মিলবে তিন পয়েন্ট
.............................................................................................
এক ম্যাচ নিষিদ্ধ মেসি
.............................................................................................
ধর্ষণ মামলা থেকে অব্যাহতি পেলেন রোনালদো
.............................................................................................
প্রস্তুতি ম্যাচে ফিল্ডিংয়ে বাংলাদেশ, রুবেলের জোড়া আঘাত
.............................................................................................
বেলকে রিয়ালে দেখতে চান না জিদান
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

সম্পাদক ও প্রকাশক : মোহাম্মদ আখলাকুল আম্বিয়া
নির্বাহী সম্পাদক: মাে: মাহবুবুল আম্বিয়া

সম্পাদকীয় ও বাণিজ্যিক কার্যালয়: স্বাধীনতা ভবন (৩য় তলা), ৮৮ মতিঝিল বাণিজ্যিক এলাকা, ঢাকা-১০০০। Editorial & Commercial Office: Swadhinota Bhaban (2nd Floor), 88 Motijheel, Dhaka-1000.
সম্পাদক কর্তৃক রঙতুলি প্রিন্টার্স ১৯৩/ডি, মমতাজ ম্যানশন, ফকিরাপুল কালভার্ট রোড, মতিঝিল, ঢাকা-১০০০ থেকে মুদ্রিত ও প্রকাশিত ।
ফোন : ০২-৯৫৫২২৯১ মোবাইল: ০১৬৭০৬৬১৩৭৭

Phone: 02-9552291 Mobile: +8801670 661377
ই-মেইল : dailyswadhinbangla@gmail.com , editor@dailyswadhinbangla.com, news@dailyswadhinbangla.com

 

    2015 @ All Right Reserved By dailyswadhinbangla.com

Developed By: Nytasoft