বুধবার, ১৯ জুন ২০১৯ | বাংলার জন্য ক্লিক করুন
  
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   খেলাধূলা -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
জয়ের বিকল্প নেই আজ

আফজাল হোসাইন, টন্টন থেকে : র‌্যাঙ্কিংয়ে চারে থাকা দক্ষিণ আফ্রিকাকে হারানোর মাধ্যমে বিশ্বকাপ মিশন শুরু করে বাংলাদেশ। দক্ষিণ আফ্রিকার মতো শক্তিশালী দলের বিপক্ষে দুর্দান্ত জয় পেলেও পরের দুই ম্যাচে হেরেছে মাশরাফি বিন মর্তুজার দল। তারপর শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ম্যাচটি বৃষ্টির কারণে ভেসে গেছে। সবমিলিয়ে হতাশ টাইগাররা। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে লড়াই করে হারলেও ইংল্যান্ডের বিপক্ষে বাংলাদেশের পারফরম্যান্স ছিল হতাশাজনক।

পরাজয়ের বৃত্ত থেকে বের হওয়ার মিশনে বিশ্বকাপে আজ সোমবার ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে মাঠে নামবে টাইগাররা। টন্টনের দ্য কুপার অ্যাসোসিয়েটস কাউন্টি গ্রাউন্ডে ম্যাচটি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় বিকাল সাড়ে তিনটায়। প্রথম তিন ম্যাচে বাংলাদেশ একই একাদশ নিয়ে খেলেছে। একাদশের বাইরে রাখা হয় লিটন দাস, সাব্বির রহমান, আবু জায়েদ রাহি ও রুবেল হোসেনকে। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে বাংলাদেশ একাদশে একাধিক পরিবর্তন আসতে পারে।

গত তিন ম্যাচেই ফ্লপ ছিলেন তামিম ইকবাল। তিন ম্যাচে তার রান সংখ্যা যথাক্রমে ১৬, ২৪, ১৯। অপর ওপেনার সৌম্য সরকারের তিন ম্যাচে রান যথাক্রমে ৪২, ২৫ ও ২। সুতরাং, ওপেনিংয়ে পরিবর্তন আসতে পারে। অন্যদিকে, মিডল-অর্ডার ব্যাটসম্যান মোহাম্মদ মিথুনও রয়েছেন অফ ফর্মে। তিন ম্যাচে তার রান যথাক্রমে ২১, ২৬ ও ০। এই ম্যাচে বাদ পড়তে পারেন মিথুন। ওপেনিং অথবা মিডল অর্ডার যেকোনো পজিশনের জন্য একাদশে ঢুকতে পারেন লিটন দাস।

ইনজুরিতে থাকায় বিশ্বকাপে শুধু ব্যাটসম্যান হিসাবে খেলছেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। প্রথম ম্যাচে ভালো খেললেও পরবর্তী দুই ম্যাচে পরিস্থিতি অনুযায়ী খেলতে পারেননি। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ৪১ বলে তিনি করেন ২৮ রান। বোলিংয়ে সাইফউদ্দিন ভালো করলেও মাশরাফি বিন মর্তুজা ও মোস্তাফিজুর রহমান আশানুরুপ বল করতে পারছেন না। সবমিলিয়ে আজ সোমবার বেশ কয়েকটি পরিবর্তন দেখা যেতে পারে।

বাংলাদেশের জন্য এই ম্যাচে জয় পাওয়া গুরুত্বপূর্ণ। লিগ পর্বে প্রতিটি দলই নয়টি করে ম্যাচ খেলার সুযোগ পাবে। এর মধ্যে চারটি ম্যাচ খেলে ফেলেছে বাংলাদেশ। চার ম্যাচ শেষে তিন পয়েন্ট নিয়ে পয়েন্ট টেবিলে বাংলাদেশ এখন আছে অষ্টম অবস্থানে। সেমিফাইনালে উঠতে হলে অন্তত পাঁচ ম্যাচে জিততে হবে। অর্থাৎ, বাকি পাঁচ ম্যাচের মধ্যে বাংলাদেশকে চারটিতে জিততে হবে। কিন্তু সেটি কি সম্ভব?

বাংলাদেশের বাকি পাঁচটি ম্যাচ যথাক্রমে ওয়েস্ট ইন্ডিজ, অস্ট্রেলিয়া, আফগানিস্তান, ভারত ও পাকিস্তানের বিপক্ষে। বিশ্বকাপে শ্রীলঙ্কা, ওয়েস্ট ইন্ডিজ, আফগানিস্তান ও পাকিস্তানের বিপক্ষে অন্তত জয় ধরে রেখেছে বাংলাদেশ। তার মধ্যে শ্রীলঙ্কা ম্যাচটি পরিত্যক্ত হয়ে গেল। ওয়েস্ট ইন্ডিজ, আফগানিস্তান ও পাকিস্তানের বিপক্ষে যে বাংলাদেশ জিতবে তার তো কোনো নিশ্চয়তা নেই। আর অস্ট্রেলিয়া ও ভারতের বিপক্ষে ম্যাচ যে কঠিন হবে তা তো বলার অপেক্ষা রাখে না।

বিশ্বকাপ শুরুর আগে আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনাল ম্যাচে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয় বাংলাদেশ। কিন্তু ওই ওয়েস্ট ইন্ডিজ আর বিশ্বকাপের ওয়েস্ট ইন্ডিজের মধ্যে পার্থক্য আছে। বিশ্বকাপে ক্যারিবীয়রা তাদের প্রথম ম্যাচেই উড়িয়ে দেয় পাকিস্তানকে। গেইল, লুইস, রাসেল, হোল্ডারদের বিপক্ষে জয় পেতে হলে সেরা ক্রিকেটই খেলতে হবে মাশরাফিদের। টন্টনের মাঠ তুলনামূলক ছোট। ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলের প্রায় সব খেলোয়াড়ই হার্ড হিটার। বড় শট খেলার সক্ষমতা তাদের আছে। যেমন গেইল, লুইস, রাসেল একবার টিকে গেলে সেটি বিপদের কারণ হতে পারে। সুতরাং, বাংলাদেশের বোলারদের বড় দায়িত্ব নিতে হবে।

বাংলাদেশের মতো ওয়েস্ট ইন্ডিজও এখন পর্যন্ত চারটি ম্যাচ খেলেছে। তারাও একটিতে জিতেছে ও দুইটিতে হেরেছে। বাকি একটি ম্যাচ পরিত্যক্ত হয়েছে। সুতরাং, ক্যারিবীয়রাও জয়ের জন্য মরিয়া। পাকিস্তানের বিপক্ষে জয় দিয়ে বিশ্বকাপ মিশন শুরু করলেও অস্ট্রেলিয়া ও ইংল্যান্ডের কাছে হেরেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। আর দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ম্যাচটি বৃষ্টির কারণে পরিত্যক্ত হয়।

জয়ের বিকল্প নেই আজ
                                  

আফজাল হোসাইন, টন্টন থেকে : র‌্যাঙ্কিংয়ে চারে থাকা দক্ষিণ আফ্রিকাকে হারানোর মাধ্যমে বিশ্বকাপ মিশন শুরু করে বাংলাদেশ। দক্ষিণ আফ্রিকার মতো শক্তিশালী দলের বিপক্ষে দুর্দান্ত জয় পেলেও পরের দুই ম্যাচে হেরেছে মাশরাফি বিন মর্তুজার দল। তারপর শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ম্যাচটি বৃষ্টির কারণে ভেসে গেছে। সবমিলিয়ে হতাশ টাইগাররা। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে লড়াই করে হারলেও ইংল্যান্ডের বিপক্ষে বাংলাদেশের পারফরম্যান্স ছিল হতাশাজনক।

পরাজয়ের বৃত্ত থেকে বের হওয়ার মিশনে বিশ্বকাপে আজ সোমবার ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে মাঠে নামবে টাইগাররা। টন্টনের দ্য কুপার অ্যাসোসিয়েটস কাউন্টি গ্রাউন্ডে ম্যাচটি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় বিকাল সাড়ে তিনটায়। প্রথম তিন ম্যাচে বাংলাদেশ একই একাদশ নিয়ে খেলেছে। একাদশের বাইরে রাখা হয় লিটন দাস, সাব্বির রহমান, আবু জায়েদ রাহি ও রুবেল হোসেনকে। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে বাংলাদেশ একাদশে একাধিক পরিবর্তন আসতে পারে।

গত তিন ম্যাচেই ফ্লপ ছিলেন তামিম ইকবাল। তিন ম্যাচে তার রান সংখ্যা যথাক্রমে ১৬, ২৪, ১৯। অপর ওপেনার সৌম্য সরকারের তিন ম্যাচে রান যথাক্রমে ৪২, ২৫ ও ২। সুতরাং, ওপেনিংয়ে পরিবর্তন আসতে পারে। অন্যদিকে, মিডল-অর্ডার ব্যাটসম্যান মোহাম্মদ মিথুনও রয়েছেন অফ ফর্মে। তিন ম্যাচে তার রান যথাক্রমে ২১, ২৬ ও ০। এই ম্যাচে বাদ পড়তে পারেন মিথুন। ওপেনিং অথবা মিডল অর্ডার যেকোনো পজিশনের জন্য একাদশে ঢুকতে পারেন লিটন দাস।

ইনজুরিতে থাকায় বিশ্বকাপে শুধু ব্যাটসম্যান হিসাবে খেলছেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। প্রথম ম্যাচে ভালো খেললেও পরবর্তী দুই ম্যাচে পরিস্থিতি অনুযায়ী খেলতে পারেননি। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ৪১ বলে তিনি করেন ২৮ রান। বোলিংয়ে সাইফউদ্দিন ভালো করলেও মাশরাফি বিন মর্তুজা ও মোস্তাফিজুর রহমান আশানুরুপ বল করতে পারছেন না। সবমিলিয়ে আজ সোমবার বেশ কয়েকটি পরিবর্তন দেখা যেতে পারে।

বাংলাদেশের জন্য এই ম্যাচে জয় পাওয়া গুরুত্বপূর্ণ। লিগ পর্বে প্রতিটি দলই নয়টি করে ম্যাচ খেলার সুযোগ পাবে। এর মধ্যে চারটি ম্যাচ খেলে ফেলেছে বাংলাদেশ। চার ম্যাচ শেষে তিন পয়েন্ট নিয়ে পয়েন্ট টেবিলে বাংলাদেশ এখন আছে অষ্টম অবস্থানে। সেমিফাইনালে উঠতে হলে অন্তত পাঁচ ম্যাচে জিততে হবে। অর্থাৎ, বাকি পাঁচ ম্যাচের মধ্যে বাংলাদেশকে চারটিতে জিততে হবে। কিন্তু সেটি কি সম্ভব?

বাংলাদেশের বাকি পাঁচটি ম্যাচ যথাক্রমে ওয়েস্ট ইন্ডিজ, অস্ট্রেলিয়া, আফগানিস্তান, ভারত ও পাকিস্তানের বিপক্ষে। বিশ্বকাপে শ্রীলঙ্কা, ওয়েস্ট ইন্ডিজ, আফগানিস্তান ও পাকিস্তানের বিপক্ষে অন্তত জয় ধরে রেখেছে বাংলাদেশ। তার মধ্যে শ্রীলঙ্কা ম্যাচটি পরিত্যক্ত হয়ে গেল। ওয়েস্ট ইন্ডিজ, আফগানিস্তান ও পাকিস্তানের বিপক্ষে যে বাংলাদেশ জিতবে তার তো কোনো নিশ্চয়তা নেই। আর অস্ট্রেলিয়া ও ভারতের বিপক্ষে ম্যাচ যে কঠিন হবে তা তো বলার অপেক্ষা রাখে না।

বিশ্বকাপ শুরুর আগে আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনাল ম্যাচে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয় বাংলাদেশ। কিন্তু ওই ওয়েস্ট ইন্ডিজ আর বিশ্বকাপের ওয়েস্ট ইন্ডিজের মধ্যে পার্থক্য আছে। বিশ্বকাপে ক্যারিবীয়রা তাদের প্রথম ম্যাচেই উড়িয়ে দেয় পাকিস্তানকে। গেইল, লুইস, রাসেল, হোল্ডারদের বিপক্ষে জয় পেতে হলে সেরা ক্রিকেটই খেলতে হবে মাশরাফিদের। টন্টনের মাঠ তুলনামূলক ছোট। ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলের প্রায় সব খেলোয়াড়ই হার্ড হিটার। বড় শট খেলার সক্ষমতা তাদের আছে। যেমন গেইল, লুইস, রাসেল একবার টিকে গেলে সেটি বিপদের কারণ হতে পারে। সুতরাং, বাংলাদেশের বোলারদের বড় দায়িত্ব নিতে হবে।

বাংলাদেশের মতো ওয়েস্ট ইন্ডিজও এখন পর্যন্ত চারটি ম্যাচ খেলেছে। তারাও একটিতে জিতেছে ও দুইটিতে হেরেছে। বাকি একটি ম্যাচ পরিত্যক্ত হয়েছে। সুতরাং, ক্যারিবীয়রাও জয়ের জন্য মরিয়া। পাকিস্তানের বিপক্ষে জয় দিয়ে বিশ্বকাপ মিশন শুরু করলেও অস্ট্রেলিয়া ও ইংল্যান্ডের কাছে হেরেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। আর দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ম্যাচটি বৃষ্টির কারণে পরিত্যক্ত হয়।

টাইগারদের টিকে থাকার লড়াই
                                  

ক্রীড়া প্রতিবেদক : র‌্যাঙ্কিংয়ে চারে থাকা দক্ষিণ আফ্রিকাকে হারানোর মাধ্যমে বিশ্বকাপ মিশন শুরু করে বাংলাদেশ। দক্ষিণ আফ্রিকার মতো শক্তিশালী দলের বিপক্ষে দুর্দান্ত জয় পেলেও পরের দুই ম্যাচে হেরেছে মাশরাফি বিন মর্তুজার দল। তারপর শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ম্যাচটি বৃষ্টির কারণে ভেসে গেছে। সবমিলিয়ে হতাশ টাইগাররা। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে লড়াই করে হারলেও ইংল্যান্ডের বিপক্ষে বাংলাদেশের পারফরম্যান্স ছিল হতাশাজনক। পরাজয়ের বৃত্ত থেকে বের হওয়ার মিশনে বিশ্বকাপে আজ সোমবার ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে মাঠে নামবে টাইগাররা। টন্টনের দ্য কুপার অ্যাসোসিয়েটস কাউন্টি গ্রাউন্ডে ম্যাচটি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় বিকাল সাড়ে তিনটায়।

দু`দলের মুখোমুখি দেখায় জয়ের পাল্লাটা ভারি উইন্ডিজদের। ৩৭বারের দেখায় বাংলাদেশের জয় যেখানে ১৪টি ম্যাচে সেখানে ওয়েস্ট ইন্ডিজ জয় পেয়েছে ২১ ম্যাচে। কিন্তু সাম্প্রতিক অতীত বিবেচনা করলে গেইল-রাসেলদের চেয়ে বেশ এগিয়ে মাশরাফি-সাকিবরা।

শেষ ৯বারের মুখোমুখি দেখায় বাংলাদেশের কাছে ৭ ম্যাচেই হেরেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। সবশেষ দেখায়, এই উইন্ডিজদেরই হারিয়ে ইতিহাসে প্রথমবারের মতো কোনো ত্রিদেশীয় সিরিজের শিরোপা জেতে বাংলাদেশ।

জয়ের ধারাবাহিকতায় থাকা বাংলাদেশ ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে আরেকটি জয় পেতে মুখিয়ে। তবে কাজটা অনেক কঠিন।  এবারের লড়াইটা বিশ্বকাপের মঞ্চে।  তবুও চেনা প্রতিপক্ষের বিপক্ষে প্রত্যাশিত জয়ের প্রত্যাশা করছে পুরো দল।  অতীত পরিসংখ্যান আত্মবিশ্বাস জোগাচ্ছে।  দিচ্ছে প্রেরণা।

বিশ্বকাপে দুই দলের অবস্থান এখন একই মেরুতে।  ৪ ম্যাচে দুই দলের এক জয়, দুই হার।  বৃষ্টিতে পয়েন্ট ভাগাভাগিতে পেয়েছে ১ পয়েন্ট।  সব মিলিয়ে পয়েন্ট ৩।  রান রেটে ওয়েস্ট ইন্ডিজ এগিয়ে।  দুই দলের জন্যই আজকের ম্যাচটি বেশ গুরুত্বপূর্ণ।  বিশ্বকাপের সেমিফাইনালের লড়াইয়ে টিকে থাকতে দুই দলই মুখিয়ে জয় পেতে।

আসলে দুই দলের পয়েন্টই সমান।  কিন্তু বিশ্বকাপের এ মুহূর্তে আমরা আমাদেরকে নিয়েই চিন্তা করছি।  আমাদের এই ম্যাচের পর আরও চারটি ম্যাচ আছে। কিন্তু ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ম্যাচটি আমাদের খুব গুরুত্বপূর্ণ। এমনিতেই শেষ ৩ ম্যাচে পয়েন্ট হারিয়েছি।  এই ম্যাচ থেকে পূর্ণ ২ পয়েন্ট পাওয়ার আপ্রাণ চেষ্টা চালাব।- বলছিলেন মাশরাফি।
 
সাম্প্রতিক পারফরম্যান্সে বাংলাদেশ এগিয়ে থেকে এ ম্যাচে মাঠে নামছে বলে মনে করছেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের অধিনায়ক জেসন হোল্ডার।  মাশরাফি তা মানতে নারাজ।  ‘দ্বিপক্ষীয় সিরিজ হলে এসব কাজ করে। এই ধরনের টুর্নামেন্টে একেক দিন একেক প্রতিপক্ষের সঙ্গে খেলতে হয়। কাজেই একই রকম পরিকল্পনায় নামা যায় না। পরদিন আরেকজনের সঙ্গে খেলা। অন্যভাবে চিন্তা করতে হয়। আগের ৯ ম্যাচের সাতটি জিতেছি মানে এই না যে এখানে এসে সহজে জিতে যাব।’- বলেছেন মাশরাফি।

আর হোল্ডারের মত,‘আপনি যদি ৯ ম্যাচের ৭টিতেই জেতেন তাহলে অবশ্যই আপনি ফেভারিট। আমরা সম্প্রতি অনেক ম্যাচ খেলেছি এবং বাংলাদেশ ভালো করেছে। তবে এটা ভিন্ন মঞ্চ। এরই মধ্যে কয়েকটি ক্লোজ ম্যাচ হয়েছে। এক-দুটি আপসেটও হয়েছে। আমরা ভালো ক্রিকেট খেলতে মুখিয়ে আছি।
 
বাংলাদেশ সেমিফাইনালের দৌড়ে যেসব ম্যাচ টার্গেট করেছে তার মধ্যে রয়েছে ওয়েস্ট ইন্ডিজও।  তাই টন্টনে জয়ের প্রত্যাশা করছে পুরো দল।  নিউজিল্যান্ড ও ইংল্যান্ডের বিপক্ষে হারের দুঃস্মৃতি কাটিয়ে টন্টনে এসে পুরো দল রয়েছে চনমনে।  দলের প্রত্যেক ক্রিকেটার রয়েছে ফুরফুরে মেজাজে।  ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যাচে ঊরুতে চোট পাওয়া সাকিব ও অনুশীলনে ডানহাতের কব্জিতে ব্যথা পাওয়া মুশফিক পুরোপুরি ফিট মাঠে নামার জন্য।  তবে মাঠে নামার আগে স্বস্তি পাচ্ছে বাংলাদেশ দল। পেস অলরাউন্ডার আন্দ্রে রাসেল এ ম্যাচে খেলবেন না। পুরোনো হাঁটুতে নতুন করে চোট পাওয়ায় তার খেলা হবে না।

বাংলাদেশ যেভাবে বিশ্বকাপের মঞ্চে এসেছিল ঠিক সেই অবস্থায় ফিরেছে।  পুরো দলের শারীরিক ভাষাতে স্পষ্ট যে শেষ পাঁচ ম্যাচে তারা ভিন্ন মেজাজে খেলবে। ঠিক এমন পরিস্থিতিতে একটি জয় আত্মবিশ্বাস বাড়াবে দ্বিগুন। ‘আমাদের সেমিফাইনাল যেতে অনেক কঠিন পথ পাড়ি দিতে হবে।  এখন পাঁচটি ম্যাচ আছে। একটি একটি করে ম্যাচ আগানো ভালো।  আপনাকে ইতিবাচক চিন্তা করে সব ম্যাচেই ভালো পারফর্ম করতে হবে। আমাদের বিশ্বাস করতে হবে যে পারব। এবং আমি নিশ্চিত যে আমার দলও তা-ই বিশ্বাস করে।’ বিশ্বকাপে এখন পর্যন্ত দুই দল খেলেছে ৪টি ম্যাচ।  বৃষ্টিতে পন্ড একটি।  বাকি তিনটিতেই ক্যারিবীয়ানদের দাপুটে জয়। এবার বিশ্বকাপে ক্যারিবীয়ান বধের পালা।

বিশ্বকাপে পাক-ভারত মহারণ আজ
                                  

ক্রীড়া প্রতিবেদক : ভারত-পাকিস্তান মহারণ মানেই ভিন্ন রকম এক লড়াই। দুই দলের মাঠের লড়াই দেখতে উৎসুক দৃষ্টি থাকে পুরো বিশ্বের ক্রিকেটপ্রেমীদেরই। দ্বাদশ বিশ্বকাপ ক্রিকেটে আজ মুখোমুখি হবে এশিয়ার দুই শক্তিশালী দল ভারত ও পাকিস্তান। ম্যানচেস্টারের ওল্ড ট্রাফোর্ডে ম্যাচটি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় বিকাল সাড়ে তিনটায়।

টুর্নামেন্টে এটি হবে ভারতের তৃতীয় ম্যাচ। তবে পাকিস্তানের এটি পঞ্চম ম্যাচ। ভারত আগের তিনটি ম্যাচের মধ্যে অস্ট্রেলিয়া ও দক্ষিণ আফ্রিকাকে হারায় ভারত। আর ভারত ও নিউজিল্যান্ডের মধ্যকার ম্যাচটি পরিত্যক্ত হয়।

অন্যদিকে, ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে হারের মাধ্যমে বিশ্বকাপ মিশন শুরু করলেও পরে স্বাগতিক ইংল্যান্ডকে হারায় পাকিস্তান। এরপর পাকিস্তান ও শ্রীলঙ্কার মধ্যকার ম্যাচটি বৃষ্টির কারণে পরিত্যক্ত হয়। এরপর অস্ট্রেলিয়ার কাছে হারে সরফরাজ আহমেদের দল। তাই আবার জয়ের ফেরার জন্য মরিয়া পাকিস্তান।

পরিসংখ্যানের বিচারে অবশ্য এ ম্যাচে এগিয়ে থেকেই মাঠে নামবে ভারত। বিশ্বকাপে এখন পর্যন্ত ছয়বারের মোকাবিলায় ভারতকে কখনোই হারাতে পারেনি পাকিস্তান। তাছাড়া গত পাঁচ বছরে সব ফরম্যাট মিলিয়ে সর্বশেষ ৭ বারের দেখায় ৬ বারই জিতেছে ভারত। কিন্তু পাকিস্তানের প্রেরণা হতে পারে ওই একমাত্র জয়। সেবার ২০১৭ চ্যাম্পিয়নস ট্রফির ফাইনালে ভারতকে ১৮০ রানে উড়িয়ে দিয়ে সেদিন শিরোপা ঘরে তুলেছিল সরফরাজের দল। “আনপ্রেডিক্টেবল” পাকিস্তানকে তাই আগে থেকে আন্ডারডগ বলে দেয়া বোকামির ই শামিল।

ওল্ড ট্রাফোর্ডে বরাবরই পেসাররা কিছুটা সুবিধা পেলেও আজকের পিচে স্পিনাররা ভালো টার্ন পেতে পারেন। তাই শাদাব খানকে একাদশে ফিরিয়ে আনতে পারে পাকিস্তান। অন্যদিকে ধাওয়ানের ইনজুরিতে ওপেনিং এ নামা প্রায় নিশ্চিত লোকেশ রাহুলের, সেক্ষেত্রে চারে নামতে পারেন অলরাউন্ডার বিজয় শংকর।

এ ম্যাচে পাকিস্তানের তুরুপের তাস হতে পারেন ফর্মে থাকা পেসার মোহাম্মদ আমির। চ্যাম্পিয়নস ট্রফির স্মৃতি ফিরিয়ে আনতে তার সেরাটা চাইবেই পাকিস্তান। ভারতের সেরা অস্ত্র হতে পারেন বিশ্বের এক নম্বর ওডিআই বোলার জাসপ্রিত বুমরাহ। এছাড়া দুই লেগস্পিনার কুলদিপ ও চাহালও আছেন সেরা ছন্দে।

ম্যাচের আগে খেলোয়ারদের সর্বস্ব উজার করে দিতে উদ্বুদ্ধ করেছেন পাকিস্তান কোচ মিকি আর্থার। ‘আমি খেলোয়াড়দের বলেছি তোমরাই আগামীকাল নায়ক হতে পারো। এই ম্যাচের একটা মুহুর্ত তোমার ক্যারিয়ার বদলে দিতে পারে। কাল অসাধারন কিছু কর, তুমি চিরস্মরনীয় হয়ে থাকবে।’

অবশ্য বিরাট কোহলির মুখে অন্য সুর। তিনি বলেছেন, ‘এ ম্যাচে যা ই হোক তা সারাজীবন থাকবে না, এটি শুধুই আরেকটি ম্যাচ।’

ক্রিকেট ভক্তদের আশার খবর বৃষ্টির সম্ভাবনাও বেশ কম এই ম্যাচে। দুয়েকবার বৃষ্টির বাগড়ায় পরলেও শেষ পর্যন্ত ম্যাচ ফলাফল পর্যন্ত গড়াবে বলে আশাবাদ আয়োজকদের।

কলম্বিয়ার কাছে হেরে কোপা আমেরিকা শুরু আর্জেন্টিনার
                                  

ক্রীড়া ডেস্ক : কোপা আমেরিকায় শুরুটা ভালো হলো না আর্জেন্টিনার। কলম্বিয়ার বিপক্ষে ২-০ গোলে হেরে গেছে আসরের বর্তমান রানার আপ দলটি। ব্রাজিলের ফন্তে নোভা অ্যারেনায় অনুষ্ঠিত এই ম্যাচে আর্জেন্টিনার বিপক্ষে দুর্দান্ত খেলেছে ফ্যালকাও-রদ্রিগেজরা।

অতীত পরিসংখ্যানে কলম্বিয়ার বিপক্ষে অনেক ব্যবধানে এগিয়ে থাকা আর্জেন্টিনা ফেভারিট হিসেবেই মাঠে নেমেছিল কিন্তু মেসি, আগুয়েরো, ডি মারিয়াদের মত তারকারা ছিলেন নিজেদের ছায়া হয়ে। প্রথমার্ধ গোলশুন্যভাবে শেষ হওয়ার পর দ্বিতীয়ার্ধের ৭১ মিনিটে হামেস রদ্রিগেজের পাসে কলম্বিয়াকে ম্যাচে প্রথমবারের মত এগিয়ে দেন রজার মার্তিনেজ। বক্সের বাঁ প্রান্ত থেকে তার ডান পায়ের বাঁকানো শট আটকাতে ব্যর্থ হন গোলরক্ষক আরমানি। এরপর কিছুটা ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করলেও উল্টো ম্যাচের ৮৬ তম মিনিটে পোস্টের খুব কাছ থেকে দুভান জাপাতার লক্ষ্যভেদে পরাজয় নিশ্চিত হয় আর্জেন্টিনার।

এর আগে অবশ্য বেশ কিছু সহজ সুযোগ নষ্ট করেছে আর্জেন্টিনা। ৬৬ মিনিটে হেডে বল জালে পাঠাতে ব্যর্থ হন মেসি। এছাড়া লিওনার্দো পারেদেস এর জোরালো শট অসামান্য দক্ষতায় ফিরিয়ে দেন কলম্বিয়ান গোলরক্ষক অসপিনা।

এই পরাজয় আলবিসেলেস্তেদের কিছুটা ব্যাকফুটে ঠেলে দিলেও এখনো যথেষ্ট সুযোগ রয়েছে কোয়ার্টার ফাইনালে যাওয়ার। আর্জেন্টিনার পরবর্তী ম্যাচ ২০ জুন প্যারাগুয়ের বিপক্ষে।

‘এ’ গ্রুপে পোর্তো আলেগ্রেতে ভেনেজুয়েলা ও পেরুর মধ্যে দিনের প্রথম ম্যাচটি গোলশূন্য ড্র হয়। একই গ্রুপে টুর্নামেন্টের উদ্বোধনী ম্যাচে বলিভিয়াকে ৩-০ গোলে হারিয়েছিল স্বাগতিক ব্রাজিল।

অনুশীলনে সাকিব, চোট পেলেন মুশফিক
                                  

ক্রীড়া প্রতিবেদক : ইংল্যান্ড ম্যাচে ঊরুতে চোট পান সাকিব আল হাসান। এজন্য শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে পরের খেলায় তাকে নিয়ে জেগেছিল অনিশ্চয়তা। ব্রিস্টলের ম্যাচটি বৃষ্টিতে পরিত্যক্ত হওয়ায় তার খেলা নিয়ে ভাবতে হয়নি। ওয়েস্ট ইন্ডিজ ম্যাচের আগে লম্বা সময় বিরতি থাকায় এখন অনেকটাই সুস্থ বাংলাদেশের অলরাউন্ডার। শনিবার সমারসেটের কাউন্টি ক্রিকেট স্টেডিয়ামে অনুশীলন করেছেন তিনি। ৫ দিন পর ব্যাট হাতে নেন সাকিব। মূল উইকেটের একপাশে প্রায় ৪০ মিনিট ব্যাটিং করেছেন তিনি। সোমবার ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে মাঠে নামার প্রস্তুতি নিতে নেটে তৎপর দেখা গেছে তাকে। সেমিফাইনালের স্বপ্ন টিকিয়ে রাখতে এই ম্যাচটি জয়ের বিকল্প নেই বাংলাদেশের। নয়তো কঠিন সমীকরণের মুখে পড়বে তারা। এই চ্যালেঞ্জের আগে সাকিবের সুস্থতা অনুপ্রাণিত করছে বাংলাদেশকে।

স্থানীয় সময় সকাল ১০টায় কাউন্টি ক্রিকেট মাঠে অনুশীলনে নামে বাংলাদেশ দল। ফিল্ডিং অনুশীলন করে ব্যাটিংয়ে যান সাকিব। আধঘণ্টার বেশি একাগ্রচিত্তে ব্যাটিং করলেন নেটে। শুরুতে স্থানীয় নেট বোলারদের খেলতেই পারছিলেন না সাকিব। লং অনে ক্যাচ দেওয়ার পাশাপাশি টাইমিং মেলাতে হিমশিম খাচ্ছিলেন। এই সমস্যা কাটিয়ে দ্রুত ছন্দে ফিরে বলগুলোকে সীমানা ছাড়া করেছেন পরে। সব মিলিয়ে অনুশীলনে সাকিব বুঝিয়ে দিলেন ক্যারিবিয়ানদের বিপক্ষে মাঠে ফিরতে প্রস্তুত। আগের দিন শুক্রবার খালেদ মাহমুদ সুজনও দেখালেন আশার আলো, সাকিবের বিশ্রাম প্রয়োজন ছিল, সেটা সে পেয়েছে। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে খেলতে মনে হয় না তার সমস্যা হবে। এখন সাকিব কেমন বোধ করে সেটাই দেখার বিষয়। অনুশীলন দেখে মনে হলো সাকিব বেশ স্বতঃস্ফূর্ত।

এদিকে, ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে গুরুত্বপূর্ণ ম্যাজের দু’দিন আগে মুশফিকুর রহিমের ইনজুরি নিঃসন্দেহে বিরাট ধাক্কা বাংলাদেশের জন্য। সমারসেট কাউন্টি ক্রিকেট স্টেডিয়ামের নেটে ব্যাটিং অনুশীলনের সময় ব্যথা পেয়েছেন মুশফিক। মোস্তাফিজুর রহমানের একটি লাফিয়ে ওঠা বল তার ডান কনুইয়ে আঘাত করেছে। ড্রেসিংরুমে ফেরার পথে ব্যথায় কাতরাচ্ছিলেন মুশফিক। যদিও আঘাত কতটা গুরুতর তা জানা যায়নি। আঘাতের জায়গায় বরফ দেওয়া হচ্ছে। পাশাপাশি ড্রেসিং রুমের ভেতরেই প্রাথমিক চিকিৎসা চলছে এই উইকেটকিপার-ব্যাটসম্যানের।   পরে সংবাদ সম্মেলনে তামিম ইকবাল জানিয়েছেন, আমরা পাশাপাশি নেটে ব্যাট করছিলাম। প্র্যাকটিসের সময় দেখলাম মুশফিক ব্যথা পেয়েছে। তবে সিরিয়াস কিছু বলে মনে হয়নি। আসলে ১২/১৩ ঘণ্টার আগে এ ব্যাপারে কিছু বলা সম্ভব নয়।

বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের মিডিয়া ম্যানেজার রাবিদ ইমামও পরিষ্কার করে কিছু জানাতে পারেননি। তিনি বলেছেন, মুশফিকের প্রাথমিক চিকিৎসা চলছে। এ ধরনের আঘাত পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে কিছু বলা সম্ভব নয়। আমাদের অপেক্ষা করতে হবে। বিশ্বকাপে ভালো ছন্দে আছেন মুশফিক। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে প্রথম ম্যাচে খেলেছেন ৭৮ রানের ম্যাচ জেতানো ইনিংস। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে বাংলাদেশ হেরে গেলেও ৪৪ রানের দৃঢ়তাপূর্ণ ইনিংস এসেছে তার ব্যাট থেকে।

জয় দিয়ে কোপা অভিযান শুরু ব্রাজিলের
                                  

ক্রীড়া ডেস্ক : দলের সেরা তারকা নেইমার ইনজুরিতে কোপা আমেরিকা থেকে ছিটকে পড়েছেন আগেই। তার পরিবর্তে এবারের কোপা আমেরিকায় স্বাগতিক ব্রাজিলের গুরুদায়িত্ব পড়েছে আরেক তারকা খেলোয়াড় ফিলিপ্পে কৌতিনহোর ওপর। টুর্নামেন্টের উদ্বোধনী ম্যাচে সে দায়িত্ব পালনে মুনশিয়ানার পরিচয় দিয়েছেন এ মিডফিল্ডার। ঘরের মাঠের টুর্নামেন্টের উদ্বোধনী ম্যাচে কৌতিনহোর জোড়া গোলে বলিভিয়াকে ৩-০ গোলে হারিয়েছে ব্রাজিল।

কোপা আমেরিকার ইতিহাসে এটি ব্রাজিলের ১০০তম জয়। এখনো পর্যন্ত ১৭৯ ম্যাচ খেলে ৩৫ ড্র ও ৪৪ পরাজয়ের বিপরীতে ঠিক ১০০ জয় পেয়েছে ব্রাজিল। আর বলিভিয়ার বিপক্ষে ঘরের মাঠে টানা ১২ ম্যাচ অপরাজিত রইলো তিতের শিষ্যরা।

অথচ ম্যাচের প্রথমার্ধে একের পর এক গোল মিসের হতাশায় ভুগেছে স্বাগতিকরা। ম্যাচের পঞ্চম মিনিটেই কৌতিনহোর ফ্রিকিক থেকে এগিয়ে যেতে পারতো ব্রাজিল। কিন্তু বলিভিয়ার ডি-বক্সের মধ্যে জটলা পাকিয়ে গোলের সে সুযোগ মিস করে সেলেসাওরা।

প্রথমার্ধে ব্রাজিলের সামনে সুযোগ ছিলো আরও অনেক। মিনিটছয়েক বাদে অল্পের জন্য লক্ষ্যভ্রষ্ট হয় থিয়াগো সিলভার হেড। একইভাবে হেড থেকে গোল করতে ব্যর্থ হন কৌতিনহোও। ফিলিপে লুইসের ক্রসে মাথা ছোঁয়ালেও, সেটি চলে যায় গোলবারের বাইরে গিয়ে।

তবে দ্বিতীয়ার্ধে ফিরে গোলের জন্য বেশিক্ষণ অপেক্ষা করতে হয়নি ব্রাজিলিয়ানদের। ঘরের মাঠে বলিভিয়ার বিপক্ষে শেষ ১১ ম্যাচে যাদের ৪৬ গোল, সে ব্রাজিলের পক্ষে তিন মিনিটের ব্যবধানে জোড়া গোল করেন কৌতিনহো।

প্রথম গোলটা অবশ্য অনেকটাই ভাগ্যের সহায়তায় পাওয়া। রিসার্লিসনের শট ডি-বক্সের মধ্যে বলিভিয়ার ডিফেন্ডার জুসিনোর হাতে লাগলে ভিএআরের সহায়তা নেন রেফারি। সেখান থেকে বাজান পেনাল্টির বাঁশি। গোলরক্ষকের ডানদিক শট করে দলকে এগিয়ে দেন কৌতিনহো।

ব্যবধান বাড়াতে একদমই সময় নেননি ২৭ বছর বয়সী এ মিডফিল্ডার। এবার তিনি গোল করেন হেডে। এবারও গোলে অবদান রাখেন রিসার্লিসন। তার কাছ থেকে পাস পেয়ে ডানপ্রান্ত থেকে ডি-বক্সে কৌতিনহোর উদ্দেশ্যে বল বাড়িয়ে দেন ফিরমিনো। সরাসরি হেডে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন কৌতিনহো।

ব্রাজিলের জার্সি গায়ে এটি কৌতিনহোর দ্বিতীয় জোড়া গোল। এর আগে ২০১৬ সালের কোপা আমেরিকায় হাইতির বিপক্ষে হ্যাটট্রিক করেছিলেন তিনি।

দুই গোলে পিছিয়ে পড়ে ম্যাচে ফেরার আর কোনো প্রয়াসই করতে পারেনি বলিভিয়া। উল্টো ৮৫তম মিনিটে এভারটনের দুর্দান্ত গোলে পরাজয়ের ব্যবধান বড় হয় তাদের।

ম্যাচের ৮১তম মিনিটে ডেভিড নেরেসের বদলি খেলোয়াড় হিসেবে মাঠে নামানো হয় এভারটনকে। মিনিট চারেক বাদেই তিনি পেয়ে যান জালের দেখা। ফার্নান্দিনহোর কাছ থেকে বল পেয়ে পুরোপুরি একক নৈপুণ্যে প্রায় ২০ গজ দূর থেকে জাল কাঁপান এভারটন।

৩-০ গোলের এ জয়ে টুর্নামেন্টের শুভসূচনা করলো ব্রাজিল। ২০১৬ সালে সবশেষ কোপা আমেরিকায় প্রথম পর্ব থেকে বাদ পড়া দলটি, এবার খেলতে নেমেছে অন্যতম ফেবারিট হিসেবেই। সে লক্ষ্যে তাদের পরবর্তী ম্যাচ ভেনেজুয়েলার বিপক্ষে, আগামী বুধবার।

উল্লেখ্য, নিজেদের ঘরের মাঠে আয়োজিত এর আগে চার আসরেই (১৯১৯, ১৯২২, ১৯৪৯ এবং ১৯৮৯) চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল ব্রাজিল।

বিশ্বকাপে দুই অপরাজিত দলের লড়াই বিকেলে
                                  

ক্রীড়া প্রতিবেদক : বিশ্বকাপ শুরু আগে প্রস্তুতি ম্যাচে নিউজিল্যান্ডের মুখোমুখি হয়েছিল ভারত। তবে সেই ম্যাচের কথা নিশ্চিত ভুলে যেতে চাইবে ভারতীয় শিবির। কেননা কিউইদের কাছে ৬ উইকেটের হারে সেদিন ভারত অলআউট হয়েছিল মাত্র ১৭৯ রান। নিউজিল্যান্ডের পেসারদের তোপে ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়েছিল কোহলি-ধোনিরা।

আজ নটিংহামের ট্রেন্ট ব্রিজে মুখোমুখি হবে এবারের বিশ্বকাপে এখনও অপরাজিত থাকা দুই দল নিউজিল্যান্ড ও ভারত। নিউজিল্যান্ডের এটি চতুর্থ ম্যাচ, আর ভারতের তৃতীয়। জয়ের ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে দুপুর সাড়ে ৩টায় মুখোমুখি হবে তারা। ম্যাচটি সরাসরি সম্প্রচার করবে গাজী টিভি, মাছরাঙা টেলিভিশন ও স্টার স্পোর্টস ১।

তিন ম্যাচে ৬ পয়েন্ট নিয়ে সবার উপরে কিউইরা। আর দুই ম্যাচে ৪ পয়েন্ট নিয়ে চতুর্থ ভারত, জিতলে কিউইদের পেছনে ফেলে এক নম্বরে বসবে তারা। বিশ্বকাপ শুরুর আগেই দুই দলের একবার দেখা হয়ে গেছে। লন্ডনের ওভালে প্রস্তুতি ম্যাচে ট্রেন্ট বোল্টের তোপে পড়েছিল বিরাট কোহলির দল। মাত্র ১৭৯ রানে অলআউট হয়ে তারা হার মানে ৬ উইকেটে।

অবশ্য সেটা ছিল ঘাম ঝরানোর ম্যাচ। আসল মঞ্চে দুই দলই আছে ফর্মের তুঙ্গে। দক্ষিণ আফ্রিকা ও অস্ট্রেলিয়ার মতো দলকে হারিয়েছে ভারত। ব্যাটিং লাইনে টপ অর্ডার থেকে শুরু করে মিডল অর্ডার পর্যন্ত শক্তিশালী পারফরম্যান্স দেখা গেছে তাদের কাছ থেকে। জসপ্রীৎ বুমরাহ ও ভুবনেশ্বর কুমারের পেসের সঙ্গে যুজবেন্দ্র চাহালের স্পিনে বোলিংয়েও দুর্দান্ত দুইবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা।

ভারতের জন্য উদ্বেগের বিষয় একটাই, ওপেনিং জুটি নিয়ে। গত ম্যাচের সেঞ্চুরিয়ান শিখর ধাওয়ান চোট নিয়ে ছিটকে গেছেন। এজন্য রোহিত শর্মার সঙ্গে ওপেনিংয়ে কে থাকবেন সেটাই চিন্তার বিষয়। ধারণা করা হচ্ছে ওপেনিংয়ে ব্যাকআপ হিসেবে থাকা লোকেশ রাহুলকে দেখা যাবে উদ্বোধনী জুটি গড়তে। আর তার ব্যাটিং পজিশন চার নম্বরের জন্য ভাবা হচ্ছে দিনেশ কার্তিক কিংবা বিজয় শঙ্করকে।

এদিকে নিউজিল্যান্ড তাদের জয়যাত্রা চতুর্থ ম্যাচে নিতে মুখিয়ে। ওপেনিং নিয়ে দুশ্চিন্তা তাদের থাকলেও মিডল অর্ডার গত তিন ম্যাচে সেই ক্ষতি পুষিয়ে দিয়েছে। শ্রীলঙ্কা, বাংলাদেশ ও আফগানিস্তানকে হারিয়ে এবার সবচেয়ে বড় পরীক্ষার মুখে কেন উইলিয়ামসনের দল। এই ম্যাচে টিম সাউদিকে ফেরানোর প্রত্যাশায় তারা। কারণ ওয়ানডেতে রোহিতকে ৫ বার আউট করার অভিজ্ঞতা আছে কিউই পেসারের। অবশ্য বোল্টই তাদের পেস আক্রমণের প্রাণ। এছাড়া গত ম্যাচে জিমি নিশামের ৫ উইকেট নেওয়ার স্মৃতিও এখন তরতাজা। সব মিলিয়ে শক্তিশালী ব্যাটিং লাইনের বিপক্ষে আজকের লড়াইটা হবে দুর্দান্ত বোলিং আক্রমণের।

ব্রিস্টলে গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে বাংলাদেশের সামনে শ্রীলঙ্কা
                                  

ক্রীড়া প্রতিবেদক : মোটেও স্বস্তির খবর নেই আবহাওয়ার পূর্বাভাসে। ব্রিস্টলের আকাশে চোখ রাঙাচ্ছে বৃষ্টি। এবারের বিশ্বকাপে সবচেয়ে বড় বাধা হয়ে দাঁড়ানো এই ‘প্রতিপক্ষ’ সরিয়ে বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা ম্যাচ হবে কিনা-এই শঙ্কাই এখন উঁকি দিচ্ছে ক্রিকেট ভক্তদের মনে।

আবহাওয়া রিপোর্টে বৃষ্টির সম্ভাবনা থাকায় মন খারাপ ব্রিস্টলের প্রবাসী বাংলাদেশি থেকে শুরু করে সব টাইগার সমর্থকের। টানা দুই ম্যাচ হেরে কোণঠাসা বাংলাদেশের জন্য এই ম্যাচে জয়ের বিকল্প নেই। গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচটি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় বিকেল সাড়ে ৩টায়। সরাসরি দেখা যাবে গাজী টেলিভিশন, মাছরাঙা টেলিভিশন ও স্টার স্পোর্টস চ্যানেলে। অবশ্য তার আগে বৃষ্টির বাধা পেরোতে হবে। বৃষ্টির কারণে বেশ কয়েকটা ম্যাচ পণ্ড হয়ে গেছে।

মাশরাফি বলেছেন, তিনি ৫০ ওভারের নির্বিঘ্ন ম্যাচ চান। শ্রীলঙ্কান অধিনায়কেরও একই চাওয়া। কোনো দলই চাইছে না পয়েন্ট ভাগাভাগি করতে। খেলা মাঠে না গড়ালে বাংলাদেশই হয়তো বেশি আশাহত হবে। কারণ শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ফেবারিট বাংলাদেশই। গত তিন ম্যাচে বাংলাদেশ ছিল আন্ডারডগ, এবারের বিশ্বকাপে এই প্রথম ফেবারিট তকমা নিয়ে মাঠে নামতে যাচ্ছে টাইগারররা। আন্ডারডগ দলের কাছে পয়েন্ট হারোনো মানে শেষ হারের হিসেব এলোমেলো হয়ে যাওয়া।

ব্রিস্টলে আজ বাংলাদেশের প্রধান প্রতিপক্ষ ‘কন্ডিশন’। শহরটির আকাশ যেভাবে ক্রন্দন শুরু করেছে তাতে করে শ্রীলংকার চেয়ে কন্ডিশনের বিপক্ষে প্রথম লড়াইটা করতে হবে টাইগারদের। সবকিছু যদি ভালোয় ভালোয় এগায় আর প্রকৃতি দেবী টাইগারদের ওপর কৃপা বর্ষণ করেন তাহলে তো সোনায় সোহাগা।

ব্রিস্টল কিন্তু ইংল্যান্ডের অন্য উইকেটগুলোর মতো ‘রান প্রসবা’ নয়। এখানে খেলা ৩৬টি ইনিংসের কেবল ছয়টিই তিনশোর্ধ রান পার করতে পেরেছে। দেশটির সিমিং ও বাউন্সি উইকেটগুলোর মধ্যে এই ব্রিস্টল একটি। এবারের আসরে এই ভেন্যুতেই অস্ট্রেলিয়ার বোলারদের গোলার সামনে মাত্র ২০৭ রানে অলআউট হয় আফগানিস্তান। ২০১৭ সালে এখানে ১২৬ রানে অলআউট হয় আয়ারল্যান্ড। উইকেটের বিষয়টি মাথায় রেখে ব্রিস্টলে একজন বাড়তে পেসার খেলাতে পারে টিম বাংলাদেশ। সেক্ষেত্রে রুবেল হোসেনকে মূল একাদশে দেখলে অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না।

সম্প্রতি কিছু ম্যাচে বেশ ভালো রানও হয়েছে এই ভেন্যুতে। বিশ্বকাপ শুরুর ঠিক কিছুদিন আগে এখানে ৩৫৮ রান করেছিল পাকিস্তান। জনি বেয়ারস্টোর অসাধারণ ব্যাটিংয়ে ৫ ওভার হাতে থাকতেই ম্যাচটা জিতে নেয় ইংল্যান্ড। ব্যাটসম্যানদের কথা বিবেচনায় নিলে ব্রিস্টলে ব্যাটিং লাইন আপে পরিবর্তন আনতেই পারে বাংলাদেশ। ফর্মহীনতায় থাকা মিঠুনের বদলে লিটন দাসকে সেরা একাদশে আনা হতে পারে।

ব্রিস্টলে মাঠে নামার আগে কিছু সুখস্মৃতি হাতড়ে নিতে পারে টিম বাংলাদেশ। ২০১০ সালে এখানে ইংল্যান্ডকে ৫ রানে হারিয়েছিলেন মাশরাফিরা। সেবার খেলা পাঁচজন ক্রিকেটার কিন্তু বিশ্বকাপের স্কোয়াডে রয়েছেন। সেবার ম্যাচ সেরা হয়েছিলেন মাশরাফি। অধিনায়ক যদি ২০১০ এর স্মৃতি ফিরিয়ে আনতে পারেন তাহলে কিন্তু লঙ্কাজয় খুব কঠিন হওয়ার কথা নয়।

এবারের বিশ্বকাপে সবচেয়ে ভঙ্গুর ব্যাটিং লাইনআপ শ্রীলঙ্কার। বিশ্বকাপে দুই ম্যাচেই ব্যর্থ হয়েছেন ম্যাথুস-পেরেরারা। নিউজিল্যান্ডের পেস আর আফগানিস্তানের স্পিনের সামনে বালির বাধের মতো ভেঙে পড়েছে দলটির ব্যাটিং দূর্গ। করুনারতেœ ও কুশল পেরেরা ছাড়া বলার মতো রান করেননি কোনো লংকান ব্যাটসম্যান। সুযোগটা হাতছাড়া হতে দিতে চাইবেন না মাশরাফি।

প্রথমে ব্যাটিং করলে আর ভালো একটা স্কোর দাঁড় করাতে পারলে লংকানদের রুখে দেওয়াটা সম্ভব হবে। আর যদি লংকানরা প্রথমে ব্যাটিং করে তাহলে সম্মিলিতভাবে আক্রমণ করতে হবে। মুস্তাফিজ-মাশরাফি-সাকিব-মিরাজরা যদি নিজের সামর্থ্যমতো পারফর্ম করতে পারেন তাহলে অল্পরানেই লংকানদের আটকানো সম্ভব হবে। আর বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা যে আগুনে ফর্মে রয়েছেন তাতে প্রায় নিশ্চিতভাবেই বলা যায়, লঙ্কাজয়, খুব একটা দূরে নয়!

আগুয়েরোর পেনাল্টি মিসে সিটির হার
                                  

ক্রীড়া ডেস্ক : ম্যানচেস্টার সিটিকে এগিয়ে দেয়ার সুযোগ ছিল সার্জিও আগুয়েরোর। কিন্তু আর্জেন্টাইন স্ট্রাইকার পেনাল্টি থেকেও গোল করতে পারেননি। এরপর ম্যাচ যাচ্ছিল ড্রয়ের দিকে।

শেষ দিকে এসে টটেনহাম হটস্পারকে জিতিয়ে দিলেন সন হিউং মিন। মঙ্গলবার রাতে তার একমাত্র গোলেই ম্যানসিটিকে ১-০ ব্যবধানে হারিয়ে চ্যাম্পিয়নস লিগের সেমির পথে এক ধাপ এগিয়ে গেছে ঘরের মাঠের টটেনহাম।

টটেনহামের নতুন স্টেডিয়ামে মঙ্গলবার রাতে ম্যাচের ১৩ মিনিটেই এগিয়ে যেতে পারত সিটি। রাহিম স্টার্লিংয়ের শট বক্সের ভেতর ড্যানি রোজের হাতে লাগলে ভিএআরের সাহায্য নিয়ে পেনাল্টির বাঁশি বাজিয়েছিলেন রেফারি। কিন্তু পেনাল্টি থেকে আগুয়েরোর শট বাঁদিকে ঝাঁপিয়ে পড়ে ঠেকান টটেনহামের ফরাসি গোলরক্ষক হুগো লরিস।

চ্যাম্পিয়নস লিগে এই নিয়ে চারটি পেনাল্টি মিস করলেন আগুয়েরো। ২০০৮-০৯ মৌসুমে আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ডের অভিষেকের পর ইউরোপ সেরার মঞ্চে তার চেয়ে বেশি পেনাল্টি আর কেউ মিস করেননি! আর লরিস ২০১৯ সালে সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে তিনবার পেনাল্টির মুখোমুখি হলেন, সেভ করলেন তিনটিই।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে বড় ধাক্কা খায় টটেনহাম। ফ্যাবিয়ান ডেলফের সঙ্গে বল দখলের লড়াইয়ে বাঁ পায়ের গোড়ালিতে চোট পেয়ে মাঠ ছাড়েন টটেনহাম অধিনায়ক হ্যারি কেন। এই মৌসুমেই সম্ভবত আর মাঠে নামতে পারবেন না ইংলিশ ফরোয়ার্ড।

এই গোড়ালির চোটেই গত ১৪ জানুয়ারি থেকে ২২ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত মাঠের বাইরে থাকতে হয়েছিল কেনকে। সেই সময়ের মধ্যে টটেনহামের হয়ে চার ম্যাচে চার গোল করেছিলেন সন। তবে কেন ফেরার পর সাত ম্যাচে সন গোল করতে পারেন মাত্র একটি। অদ্ভুত ব্যাপার হলো, কাল কেন ৫৫ মিনিটে চোট নিয়ে মাঠ ছাড়লেন এবং সন জয়সূচক গোল করলেন!

নির্ধারিত সময়ের খেলা শেষ হতে তখন ১২ মিনিট বাকি। নিশ্চিত ড্রয়ের দিকেই এগোচ্ছিল ম্যাচ। ক্রিস্টিয়ান এরিকসেনের ক্রসে সন বল পেলেন বক্সের ভেতরে। প্রথমে অবশ্য শট নিতে পারেননি। বল চলে গিয়েছিল বাইলাইনে। সেখান থেকে ফিরিয়ে এনে দুই ডিফেন্ডারের মাঝ দিকে কোনাকুনি শটে বল জালে পাঠান দক্ষিণ কোরিয়ান ফরোয়ার্ড।

চলতি মৌসুমে সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে ৪০ ম্যাচে সনের গোলও হলো ৪০টি। গত মৌসুমে ৫৩ ম্যাচে তার গোল ছিল মাত্র ১৮টি। পরিসংখ্যানই বলছে, এই মৌসুমে কী দুর্দান্ত ফর্মেই না আছেন সন!

কোয়াড্রপল (এক মৌসুমে চার শিরোপা) জয়ের আশা বাঁচিয়ে রাখতে আগামী ১৭ এপ্রিল ইতিহাদ স্টেডিয়ামে ফিরতি লেগ খেলবে পেপ গার্দিওলার ম্যানচেস্টার সিটি।

ওয়ানডের পর টি-টোয়েন্টিতেও হোয়াইটওয়াশ শ্রীলঙ্কা
                                  

ক্রীড়া ডেস্ক : দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজে তাদেরকে হোয়াইটওয়াশ করে সফরের শুরুটা দুর্দান্ত হয়েছিল শ্রীলঙ্কার। কিন্তু ফরম্যাট বদলে সীমিত ওভারের ক্রিকেটে আসতেই বড্ড বিবর্ণ চন্ডিকা হাথুরুসিংহের দল। ওয়ানডে সিরিজের পর দক্ষিণ আফ্রিকার মাঠে এবার টি-টোয়েন্টি সিরিজেও হোয়াইটওয়াশ হয়েছে লঙ্কানরা।

তিন ম্যাচ টি-টোয়েন্টি সিরিজের শেষটিতে গতকাল জোহানেসবার্গে মুখোমুখি হয় দক্ষিণ আফ্রিকা ও শ্রীলঙ্কা। টস হেরে লঙ্কানদের আমন্ত্রণে আগে ব্যাট করে ডোয়াইন প্রিটোরিয়াস ও রিজা হেনড্রিকসের দাপুটে ব্যাটিংয়ে ২ উইকেটে ১৯৮ রান রান করে দক্ষিণ আফ্রিকা। জবাবে শ্রীলঙ্কার ইনিংসের ১২তম ওভারের প্রথম বলে ৬ উইকেটে ১১১ রানের সময় বৃষ্টি শুরু হয়। এরপর ডিএল মেথডে লঙ্কানদের লক্ষ্য দাঁড়ায় ১৭ ওভারে ১৮৩। কিন্তু নির্ধারিত ওভারের ৮ বল বাকি থাকতেই ১৩৭ রানে থেমে যায় শ্রীলঙ্কার দৌঁড়।

টস হেরে আগে ব্যাটিং করতে নেমে অ্যাইডেন মারক্রাম ১৫ রানে বিদায় নেন। ৩৭ রানে উদ্বোধনী জুটি ভাঙার পর প্রোটিয়াদের হাল ধরেন হেনড্রিকস ও প্রিটোরিয়াস। ঝড়ো ব্যাটিংয়ে দ্বিতীয় উইকেটে ৯০ রান যোগ করেন দুজনে। ৫২ বলে ৮ চার ও ২ ছয়ে ৬৬ রানের পর হেনড্রিকসকে ফেরান জেফরি ভ্যান্ডারসে। এরপর উইকেটে প্রিটোরিয়াসের সঙ্গী হন ডুমিনি। শেষ ৩০ বলে দুজনে ৭১ রান যোগ করেন। ১৪ বলে দুই চার ও ৩ ছয়ে ৩৪ রানে অপরাজিত ছিলেন ডুমিনি। এছাড়া দলের হয়ে ৪২ বলে ৭ চার ও ৩ ছয়ে ৭৭ রানের সর্বোচ্চ ইনিংসটি খেলে অপরাজিত ছিলেন প্রিটোরিয়াস।

লঙ্কানদের হয়ে জেফরি ভ্যান্ডারসে ও সুরাঙ্গা লাকমল একটি করে উইকেট নেন।

১৯৯ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা খারাপ ছিল না শ্রীলঙ্কার। ধনঞ্জয়া ডি সিলভার সঙ্গে ৪.১ ওভারে ৪২ রানের জুটি গড়েন নিরোশান ডিকভেলা। তবে ধনঞ্জয়া মাত্র ৮ রানে সাজঘরে ফেরার পর শীলঙ্কার ইনিংসের বিপর্যয় শুরু হয়। এরপর ৫৪ রানের ব্যবধানে প্রথম ৭ ব্যাটসম্যান সাজঘরে যান।

প্রোটিয়া পেসার আন্দিলে ফেলুকাওয়োর দাপটে সুবিধা করতে পারেনি লঙ্কানরা। দলের হয়ে ৩৮ রানের সেরা ইনিংসটি ছিল ডিকভেলার। শেষ দিকে কিছুটা প্রতিরোধ গড়েন ইসুরু উদানা। তবে তার ২৩ বলে ৩৬ রানের ইনিংসটাও লক্ষ্যে পৌঁছার জন্য যথেষ্ট ছিল না।

স্বাগতিকদের হয়ে ২৪ রান দিয়ে ৪ উইকেট নেন ফেলুকাওয়ো। দুটি করে উইকেট পান লুথো সিপামলা ও জুনিয়র দালা।

লিঁওকে উড়িয়ে শেষ আটে বার্সা
                                  

ক্রীড়া ডেস্ক : চ্যাম্পিয়ন্স লিগে ঘরের মাঠে আবারও দুর্দান্ত রূপে নিজেকে মেলে ধরলেন লিওনেল মেসি। জোড়া গোল করার পাশাপাশি দুই সতীর্থের গোলে রাখলেন অবদান। অধিনায়কের এমন জাদুকরী পারফরম্যান্সে লিওঁকে উড়িয়ে দিয়ে কোয়ার্টার-ফাইনালে পা রাখলো বার্সেলোনা।

গতকাল ঘরের মাঠে লিওঁকে ৫-১ গোলে হারিয়েছে বার্সেলোনা। জোড়া গোল করেছেন মেসি। বাকি একটি করে গোল করেছেন ফিলিপে কৌতিনিয়ো, জেরার্দ পিকে ও উসমান দেম্বেলে। এরআগে লিওঁর মাঠে প্রথম পর্ব গোলশূন্য ড্র হয়েছিল।

ক্যাম্প ন্যুতে ম্যাচের ১৭তম মিনিটেই দলকে এগিয়ে নেন মেসি। মেসির বাড়ানো বল ধরে ডি-বক্সে ঢোকা লুইস সুয়ারেস ফাউলের শিকার হলে পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি। পেনাল্টিতে সফল স্পট শটে বল জালে পাঠান আর্জেন্টাইন তারকা।

৩১তম মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুন করেন ফিলিপে কৌতিনিয়ো। বিরতির পর ৫৮তম মিনিটে বাঁ দিক থেকে বার্সেলোনার ডি-বক্সে উড়ে আসা বল ডিফেন্ডাররা ক্লিয়ার করতে ব্যর্থ হলে বল পেয়ে যান স্বাগতিক তারকা তুজা।  নিচু শটে ব্যবধান কমান ফরাসি এই মিডফিল্ডার।

৭৮তম মিনিটে ব্যবধান আবারও দ্বিগুন করেন মেসি। ক্লাব ফুটবলের ইউরোপ সেরা প্রতিযোগিতায় এবারের আসরে মেসির এটি অষ্টম ও সব মিলিয়ে ১০৮তম গোল। আর ঘরের মাঠে ৬১ ম্যাচে ৬২তম গোল। পাশাপাশি টানা ১১ মৌসুমে ক্লাবের হয়ে সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে কমপক্ষে ৩৫টি করে গোল করার কীর্তি গড়লেন আর্জেন্টাইন অধিনায়ক।

শেষের দিকে পিকে আর দেম্বেলের গোলে বড় জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে বার্সা। এই নিয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে ঘরের মাঠে টানা ৩০ ম্যাচ অপরাজিত থাকলো বার্সেলোনা। দিনের অপর ম্যাচে বায়ার্ন মিউনিখকে তাদের মাঠে ৩-১ গোলে উড়িয়ে শেষ আটে জায়গা করে নিয়েছে লিভারপুল।

এর আগে কোয়ার্টার-ফাইনাল নিশ্চিত করা দলগুলো হলো ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড, ম্যানচেস্টার সিটি, টটেনহ্যাম হটস্পার, আয়াক্স, পোর্তো ও ইউভেন্তুস।

ভালো শুরুর পরও হতাশার ব্যাটিং
                                  

ক্রীড়া প্রতিবেদক : বৃষ্টিতে ভেসে গেছে ওয়েলিংটন টেস্টের প্রথম দুই দিন। টসও হয়নি বৃষ্টির দাপটে।  তৃতীয় দিনে খেলা শুরু হলেও হ্যামিল্টনে প্রথম ইনিংসের ভাগ্য পাল্টাতে পারেনি বাংলাদেশ। ভালো শুরুর পরও হতাশার শেষ। হ্যামিল্টন টেস্টের প্রথম ইনিংসের সঙ্গে ওয়েলিংটনের প্রথম ইনিংসেও এমন মিল রেখে ব্যাট করেছে বাংলাদেশ দল।

বেসিন রিজার্ভে দিনের শুরুতে তামিম ইকবালের ব্যাটে সম্ভাবনাময়ী শুরু ছিলো বাংলাদেশের। কিন্তু নেইল ওয়াগনার চিরচেনা আক্রমণাত্মক বোলিংয়ে গুঁড়িয়ে দিয়েছেন তার প্রতিরোধ। তাকে সঙ্গ দেন আরেক পেসার ট্রেন্ট বোল্ট। এই দুজনের বোলিং তোপে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে দ্বিতীয় টেস্টের প্রথম ইনিংসে ২১১ রানে অলআউট হয়েছে বাংলাদেশ। তবে স্বস্তির বিষয় হলো ৮ রানেই নিউজিল্যান্ডের দুই ওপেনারকে তুলে নিয়েছেন টাইগার পেসার আবু জায়েদ রাহী। দিন শেষে নিউজিল্যান্ডের সংগ্রহ ২ উইকেটে ৩৮ রান। তারা পিছিয়ে ১৭৩ রানে।

প্রথম দুই দিনের খেলা পরিত্যক্ত হওয়ায় রবিবার তৃতীয় দিন রোদেলা সকালে আধঘণ্টা আগে টস করে দুই দল। নিউজিল্যান্ড অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন টস জিতে নেন ফিল্ডিং। এমন বিরুদ্ধ কন্ডিশনে আগে ব্যাটিংয়ের ঝুঁকির কথা বলা হলেও তেমন সম্ভাবনা দেখা যায়নি। পেসাররা শুরুতে সহযোগিতা পাননি উইকেট থেকে। উল্টো ব্যাটিংয়ের সুযোগ পেয়ে জ্বলে ওঠেন ওপেনার তামিম। হ্যামিল্টন টেস্টের পর ওয়েলিংটনেও আগ্রাসী ছিলেন তিনি। হ্যামিল্টনে ১২৬ ও ৭৪ রান করা এই বাঁহাতি ব্যাটসম্যান ৮১ বলে ৬ চারে ফিফটি তুলে নেন। তার আগে ৭৫ রানের জুটি গড়েন সাদমান ইসলামকে নিয়ে।

২১তম ওভারে প্রতিরোধ গড়া এই জুটি ভেঙে দেন কলিন ডি গ্র্যান্ডহোম। ৫৩ বলে ২৭ রান করে রস টেলরকে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন সাদমান। কিছুক্ষণ পর বল হাতে নেন ওয়াগনার। প্রথম ওভারে ১০ রান দিলেও পরের তিন ওভারে মুমিনুল হক ও মোহাম্মদ মিঠুনকে ফিরিয়ে বাংলাদেশ ইনিংসে আঘাত হানেন। এই আঘাতে বাংলাদেশ প্রথম সেশন শেষ করে ৩ উইকেটে ১২৭ রানে।

দ্রুত দুই ব্যাটসম্যানকে হারালেও তামিমের ফিফটিতে স্বস্তিতে ছিল বাংলাদেশ। কিন্তু দ্বিতীয় সেশনের শুরুতেই তাকে থামিয়ে বাংলাদেশকে বিপদে ফেলে দেন ওয়াগনার। ১১৪ বলে ১৯ চারে ৭৪ রান করে বিদায় নেন তামিম। ক্যাচ দেন টিম সাউদিকে। হ্যামিল্টনে শেষ ইনিংসে লড়াই করা ?মাহমুদউল্লাহ ও সৌম্য সরকার মাঠে নেমে স্কোরবোর্ড সমৃদ্ধ করতে পারেননি এই টেস্টে। ২০ রান করে ম্যাট হেনরির শিকার হয়েছেন সৌম্য। আর ১৩ রানে মাহমুদউল্লাহকে ফেরান ওয়াগনার।

দারুণ শুরু করা বাংলাদেশ বেহাল অবস্থায় পড়ে যায় ১৬৮ রানে ৬ উইকেট হারিয়ে। দলকে লড়াইয়ে ফেরানোর চেষ্টা করেন লিটন দাস ও তাইজুল ইসলাম। কিন্তু শেষ দিকে ট্রেন্ট বোল্টের জোড়া আঘাতে ভেঙে যায় তাদের প্রতিরোধও। তাইজুলকে (৮) এলবিডাব্লিউ করে ৩৮ রানের জুটি ভাঙেন কিউই পেসার। একই ওভারে মোস্তাফিজুর রহমানকে বোল্ড করেন তিনি।

এরপর লেজ ছেঁটে ফেলতে সময় লাগেনি নিউজিল্যান্ডের। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৩৩ রান করা লিটনকে বিদায় দেন সাউদি। আবু জায়েদ রাহীকে (৪) বোল্ড করে বাংলাদেশকে গুটিয়ে দেন বোল্ট। নিউজিল্যান্ডের পক্ষে সর্বোচ্চ ৪ উইকেট নেন ওয়াগনার। তিনটি নেন আরেক পেসার বোল্ট।

এর পর তৃতীয় সেশনে ব্যাট করতে নেমে শুরু থেকেই আবু জায়েদ রাহী ও ইবাদত হোসেনের বোলিংয়ের বিপক্ষে অস্বস্তিতে ছিলেন রাভাল এবং লাথাম। ইনিংসের পঞ্চম ওভারে লাথামের বেশ কঠিন পরীক্ষাই নেন রাহী। ওভারের শেষ বলে বাঁহাতি এ ওপেনারকে উইকেটের পেছনে ক্যাচে পরিণত করে সাজঘরে পাঠান ২৫ বছর বয়সী এ পেসার। লাথাম করেন ৪ রান।

মাত্র ৫ রানে প্রথম উইকেট হারিয়ে খোলসবন্দী হয়ে যায় নিউজিল্যান্ড। দ্বিতীয় উইকেটে রক্ষণাত্মক ব্যাটিং শুরু করেন কেন উইলিয়ামসন এবং জিত রাভাল। অপরপ্রান্ত থেকে দারুণ লাইন-লেন্থে বোলিং করেন ইবাদত। নবম ওভারে যার ফায়দা নেন রাহী। এবার তিনি সাজঘরে পাঠান আরেক ওপেনার রাভালকে। শর্ট কভারে ক্যাচটি ধরেন সৌম্য সরকার।

৮ রানে ২ ওপেনারকে হারিয়ে অস্বস্তিতে পড়ে যাওয়া নিউজিল্যান্ডের আর বিপদের মুখোমুখি হতে হয়নি দিনের শেষ ভাগে। কারণ তৃতীয় সেশনটা আগেভাগে শেষ হয়েছে ফের বৃষ্টি হানা দেওয়ায়। গুঁড়ি গুড়ি বৃষ্টি নামায় পরিত্যক্ত হয়েছে বাকি সময়ের খেলা। নিউজিল্যান্ডের সংগ্রহ ২ উইকেটে ৩৮ রান। ব্যাট করছেন কেন উইলিয়ামসন (১০) ও রস টেলর (১৯)। তারা পিছিয়ে ১৭৩ রানে। মোট ৭২.৪ ওভার খেলা হয়েছে আজ। কালকেও ম্যাচ শুরু হবে আধা ঘণ্টা আগে।

দ্বিতীয় দিনেও টস করতে দেয়নি বৃষ্টি
                                  

ক্রীড়া প্রতিবেদক : প্রথম দিনের মতো অঝোর ধারায় বৃষ্টি হয়নি শনিবার। কিন্তু রাতের বৃষ্টিতে আউটফিল্ড ছিল ভেজা। আর কিছুক্ষণ বিরতি দিয়ে হয়েছে গুঁড়িগুঁড়ি বৃষ্টি। তাতে নিউজিল্যান্ড ও বাংলাদেশের খেলা দ্বিতীয় দিনও হয়েছে পরিত্যক্ত। আগের দিনের মতোই সারাদিন অপেক্ষা করেও টস করা সম্ভব হয়নি।

শুক্রবার ম্যাচের প্রথম দিন `স্টাম্পস` ঘোষণা করতে আম্পায়াররা সময় নিয়েছিলেন কেবল ৪ ঘণ্টার একটু বেশি। শনিবার দ্বিতীয় দিন মেঘের লুকোচুরি খেলার কারণে সবাইকে অপেক্ষা করতে হয়েছে প্রায় ৬ ঘণ্টা। কিন্তু থেমে থেমে বৃষ্টি চলতেই থাকায় টানা দ্বিতীয় দিনের মতো টস ছাড়াই `স্টাম্পস` ঘোষণা করতে বাধ্য হয়েছেন দুই আম্পায়ার।

ওয়েলিংটনের আবহাওয়ার পূর্ভাবাসে বলাই ছিলো শুক্র এবং শনিবার হবে টানা বৃষ্টি। ধরেই নেয়া হয়েছিল হয়তো প্রথম দুই দিন একটি বলও মাঠে গড়াবে না বাংলাদেশ বনাম নিউজিল্যান্ডের মধ্যকার দ্বিতীয় টেস্টের।

এমনকি প্রকৃতির অবস্থা দেখে দ্বিতীয় দিন তথা শনিবার দুই দল টিম হোটেল থেকে মাঠেও এসেছে প্রায় ঘণ্টাদেড়েক পরে। যেখানে দ্বিতীয় দিনের খেলা শুরুর কথা ছিলো নির্ধারিত সময়ের ত্রিশ মিনিট আগে। তবু মুষলধারে বৃষ্টির কারণে একদমই আশা ছিল না দ্বিতীয় দিনে খেলা হওয়ার।

তবে শনিবার সকাল পেরিয়ে দুপুর গড়াতেই বেসিন রিজার্ভে মেলে আশার আলো, থেমে যায় মুষলধারে চলতে থাকা বৃষ্টি। এমনকি আকাশে জমে থাকা মেঘও সরে যেতে শুরু করে ওয়েলিংটনের আকাশ থেকে। যে কারণে ম্যাচের আম্পায়াররা মনে করছিলেন হয়তো অন্তত এক সেশনের জন্য হলেও খেলা যাবে দ্বিতীয় দিনে।

সে লক্ষ্যে বাংলাদেশ সময় সকাল ৮.৪৫ মিনিটে আরেক দফায় পিচ ও আউটফিল্ড পর্যবেক্ষণে নামার কথা ঠিক দুই আম্পায়ার পল রেইফেল এবং রুচিরা পাল্লিয়াগুরুগে। কিন্তু তখন আবার শুরু হয় গুঁড়িগুঁড়ি বৃষ্টি। তবু আকাশ পরিষ্কার থাকায় আশা ছিলো খেলা শুরু করার। কিন্তু বৃষ্টি আর না থামায় সম্ভব হয়নি দ্বিতীয় দিনের খেলাও।

ব্যাটিং-বোলিংয়ে ভালো করার প্রত্যয় মাহমুদউল্লাহর
                                  

ক্রীড়া প্রতিবেদক : টেস্ট ক্রিকেটে প্রথম ইনিংস যেকোনো দলের জন্যই গুরুত্বপূর্ণ। এই ইনিংসে যে দল এগিয়ে যাবে তারাই মূলত ম্যাচের লাগাম ধরে রাখবে। হ্যামিল্টনের সিরিজের প্রথম টেস্টে যেমন প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশ ব্যাটিংয়ে ভালো শুরু করেও শেষ পর্যন্ত বড় সংগ্রহ করতে পারেনি। ফলে দেখতে হয়েছে বাজে হার।

সেডন পার্কে টাইগারদের প্রথম ইনিংসে এক তামিম ইকবাল ছাড়া আর কাউকেই খুঁজে পাওয়া যায়নি। ইনিংসের মোট রানের অর্ধের বেশি এসেছে তার ব্যাট থেকেই। ফলে সফরকারীরা দ্বিতীয় ইনিংসে ভালো খেললেও নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ইনিংস হার এড়াতে পারেনি।

অন্যদিকে কিউইদের মাটিতে বোলিংটাও যাচ্ছেতাই হচ্ছে। স্বাগতিকরা তাদের প্রথম ইনিংসের ব্যাটিংয়ে আবু জায়েদ-মিরাজদের পিটিয়ে রেকর্ড সংগ্রহ দাঁড় করিয়েছিল। তবে ওয়েলিংটনে দ্বিতীয় টেস্টে ব্যাটিং-বোলিং দুই বিভাগেই সতীর্থদের জ্বলে ওঠার আশা করছেন অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ।

মাহমুদউল্লাহ বলেন, টেস্ট ক্রিকেটে প্রথম ইনিংসটা সবসময়ই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ ব্যাটিং করেন বা বোলিং এটা আপনাকে ভালো একটা বিল্ডআপ দেয়। সেদিক থেকে প্রথম ইনিংস আসলেই অনেক গুরুত্বপূর্ণ। আমরাও চাই প্রথম ইনিংসে যদি ব্যাটিং করি, তবে একটা ভালো পার্টনারশিপ, ভালো শুরু এবং ভালো একটা টোটাল যেন করতে পারি। আর বোলিং করলে যেন দ্রুত কিছু উইকেট নিতে পার। প্রতিপক্ষের শিবিরে কিছুটা চাপ তৈরি করতে পারি।

কোচ স্টিভ রোডসের সুরে তাল মিলিয়ে মাহমুদউল্লাহও জানান, দ্বিতীয় টেস্টে হয়তো মুশফিকুর রহিমের খেলা হচ্ছে না। তবে তাকে তৃতীয় টেস্টে অবশ্যই পাওয়া যাবে। আর চোট থাকলেও ওয়েলিংটনে খেলবেন তামিম ইকবাল। এছাড়া পেসার হিসেবে নেওয়া হতে পারে মোস্তাফিজুর রহমানকে।

এদিকে, হ্যামিল্টন টেস্টে বোল্ট-ওয়াগনারদের বাউন্সার গতিতে প্রথম ইনিংসে ডুবেছে বাংলাদেশ। যার পরিনাম ছিল ইনিংস ব্যবধানে হার। সফরকারীদের এই দুর্বলতার সুযোগ দ্বিতীয় টেস্টেও নিতে চায় স্বাগতিকরা। তাই ওয়েলিংটনে বাংলাদেশের মুখোমুখি হওয়ার আগে নিজেদের শর্ট বলের মন্ত্রের কথাই স্পষ্ট করলেন কিউই পেস তারকা ট্রেন্ট বোল্ট।

দ্বিতীয় টেস্টকে সামনে রেখে বোল্ট জানান, আমি নিশ্চিত ওরাও জানে এটাই (শর্ট বল) হবে। আমার  মনে হয় এটি ভালো কৌশল হবে।

প্রথম টেস্টে বাংলাদেশকে সবচেয়ে বেশি ভুগিয়েছেন ওয়াগনার। দ্বিতীয় টেস্টেও তার উপরেই আস্থা বোল্টের। তার কথায়, আমাদের ওয়াগনার আছে যে এই(বাউন্সার) পরিকল্পনা খুব ভালোভাবেই কাজে লাগাতে জানে। এটি এমন কৌশল যা আমরা ব্যবহার করে সফল হয়েছি এবং নিশ্চিত থাকুন এখানেও তা অব্যাহত থাকবে।

শুক্রবার ভোর ৪ টায় ওয়েলিংটনে দ্বিতীয় টেস্টে মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ-নিউজিল্যান্ড।

এল ক্লাসিকোতেও বার্সার কাছে হারলো রিয়াল
                                  

ক্রীড়া ডেস্ক : কোপা দেল’রের সেমিফাইনালে রিয়াল মাদ্রিদকে তিন দিন আগে হারিয়েছিল বার্সেলোনা। ফুটবল ভক্তরা মজা করে বলে, রিয়ালের মাঠের নাম সান্তিয়াগো বার্নাব্যু নয়, ক্যাম্প বার্নাব্যু করা হোক। কারণ বার্সেলোনা এখানে ঘরের মাঠের মতো খেলে। রিয়াল যেন নিজ দর্শকদের সামনে মিউয়ে যায়। কোপায় হারের তিনদিন পর শনিবার এল ক্লাসিকো ম্যাচে আবার ১-০ গোলে হেরেছে লস ব্লাঙ্কোসরা।

বার্নাব্যুতে এল ক্লাসিকোর এ ম্যাচটি ব্যাপক উত্তেজনা ছড়িয়েছে। তবে দিন শেষে শেষ হাসি হেসেছে বার্সা। ব্লুগ্রেনাদের হয়ে জয়সূচক গোলটি করেছেন ক্রোয়েশিয়ান তারকা ইভান রাকিতিচ। তাতে প্রতিপক্ষের মাঠে থেকে ১-০ ব্যবধানে জয় নিয়ে ফিরেছে মেসি-সুয়ারেজরা।

ক্লাসিকোতে এ জয়ের মধ্য দিয়ে মুখোমুখি লড়াইয়ে রিয়ালের চেয়ে এগিয়ে গেল বার্সা। সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে মুখোমুখি লড়াইয়ে বার্সেলোনার এটি ৯৬তম জয়। রিয়ালের জয় ৯৫টি। চলতি মৌসুমে সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে রিয়ালের বিপক্ষে চারবারের দেখায় তিনটিতেই জিতল বার্সেলোনা। দুই দলের অপর ম্যাচটি ড্র হয়েছে।

লা লিগায় প্রথম পর্বে গত অক্টোবরে লিওনেল মেসিকে ছাড়া খেলতে নেমে লুইস সুয়ারেজের হ্যাটট্রিকে রিয়ালকে ৫-১ গোলে উড়িয়ে দিয়েছিল বার্সেলোনা। ফেব্রুয়ারিতে কোপা দেল’রে সেমি-ফাইনালের প্রথম পর্বে ন্যু ক্যাম্পে দুদলের ম্যাচটি ১-১ ড্র হয়। আর গত বুধবার ফিরতি লেগে মাদ্রিদের ক্লাবটিকে ৩-০ গোলে হারিয়ে ফাইনালে ওঠে কাতালান ক্লাবটি। এবার প্রতিপক্ষের ডেরায় গিয়ে আরও এক জয়ে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীদের উপর আধিপত্য আরও বিস্তার করল বার্সা।

বার্নাব্যুতে গতকাল রাতে ম্যাচের শুরুর দিকে আক্রমণে এগিয়ে ছিল বার্সা। ফলে ২৬তম মিনিটে স্বাগতিক দর্শকদের উচ্ছ্বাস থামিয়ে দিতে সক্ষম হয় ভালভার্দের শিষ্যরা। এসময় সার্জিও রবার্তোর পাস ধরে গোলরক্ষকের উপর দিয়ে বল জালে পাঠান রাকিতিচ। ম্যাচের শেষ সময় পর্যন্ত এ গোলের শোধ দিতে ব্যর্থ হলে হার নিয়ে মাঠ ছাড়তে হয় রিয়ালকে।

স্প্যানিশ লা লিগায় এ জয়ের ফলে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষস্থানটি আরেকটু পাকাপোক্ত হয়েছে বার্সেলোনার। চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীদের হারানোর পর ২৬ ম্যাচ শেষে শীর্ষে থাকা বার্সার পয়েন্ট এখন ৬০। সমান ম্যাচে তাদের চেয়ে ১২ পয়েন্ট পিছিয়ে তৃতীয় স্থানে রিয়াল মাদ্রিদ। আর ২৫ ম্যাচে ৫০ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের দ্বিতীয় স্থানটি দখলে নিয়েছে মাদ্রিদের আরেক ক্লাব অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ।

সৌম্য-মাহমুদউল্লাহর বীরত্বের পরও ইনিংস পরাজয়
                                  

ক্রীড়া প্রতিবেদক : সৌম্য সরকার ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের জোড়া সেঞ্চুরির পরও ইনিংস পরাজয় এড়াতে পারলো না বাংলাদেশ। হ্যামিল্টনের তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম টেস্টে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে এক ইনিংস ও ৫১ রানে হার মানে সফরকারীরা।

টস হেরে আগে ব্যাট করতে নেমে প্রথম ইনিংসে ২৩৪ রানে অলআউট হয় বাংলাদেশ। জবাবে কেন উইলিয়ামসনের ডাবল সেঞ্চুরিতে ভর করে ৬ উইকেটে ৭১৫ রানে ইনিংস ঘোষণা দেয় নিউজিল্যান্ড। ৪১৮ রানে পিছিয়ে থেকে দ্বিতীয় ইনিংসের ব্যাটিং শুরু করে সফরকারীরা। এরপর সৌম্য ও মাহমুদউল্লাহর জোড়া সেঞ্চুরিতে ৪২৯ রানে অলআউট হয় টাইগাররা। ফল,  ৫২ রান ও ইনিংস ব্যবধানে হার মাহমুদউল্লাহর দলের।

কিউইদের বিপক্ষে ৪ উইকেটে ১৭৪ রান নিয়ে চতুর্থ দিনে খেলা শুরু করে বাংলাদেশ। পঞ্চম উইকেটে দারুণভাবে টাইগাররা ঘুরে দাড়ায় সৌম্য-মাহমুদউল্লাহর ব্যাটে। সাদা পোষাকে প্রথম সেঞ্চুরির দেখা পান সৌম্য। নিউজিল্যান্ডের বড় সংগ্রহের জবাবে পঞ্চম উইকেটে ২৩৫ রান যোগ করেন তারা। পঞ্চম উইকেট জুটিতে যা বাংলাদেশের তৃতীয় সর্বোচ্চ। ক্যারিয়ার সেরা ইনিংস খেলে ১৪৯ রান করে আউট হন সৌম্য সরকার। এরপর টেস্টে ক্যারিয়ারের চতুর্থ সেঞ্চুরি তুলে নেন মাহমুদউল্লাহ।

ক্যারিয়ারের প্রথম সেঞ্চুরিতে সৌম্য ছুঁয়েছেন বাংলাদেশের দ্রুততম সেঞ্চুরির রেকর্ড। শেষ পর্যন্ত নতুন রেকর্ড গড়তে না পারলেও ছুঁয়েছেন ঠিকই। ৯৪ বলে করেছেন সেঞ্চুরি। ২০১০ সালে লর্ডসে ৯৪ বলে সেঞ্চুরি করে রেকর্ডটি এতদিন একার ছিল তামিমের। ১ রানের জন্য ছুঁতে পারেননি দেড়শ। তবে ১৭১ বলে ১৪৯ রানের ইনিংস তার প্রথম শ্রেণির ক্যারিয়ারেও সর্বোচ্চ। ২১টি চারের সঙ্গে ইনিংসে ছক্কা মেরেছেন ৫টি।

তবে সৌম্যর পর ব্যাটিংয়ে নেমে মাহমুদউল্লাহকে সঙ্গ দিতে পারেননি লিটন দাস ও মেহেদী হাসান মিরাজ। দুজনেই সাজঘরে ফিরেছেন ব্যক্তিগত ১ রান করে। তাদের ব্যাট থেকে কিছু রান আসলে হয়তো ইনিংস ব্যাবধানে হারটা এড়ানো যেতো। চা বিরতিতে থেকে ফিরে বাংলাদেশের ব্যাটিংটাও সুখকর হয়নি। ব্যক্তিগত দেড়শ রান থেকে চার রান দূরে থাকতে আউট হয়ে যান মাহমুদউল্লাহ। সাউদির বলে বোল্টের হাতে ধরা পড়ার আগে ২২৯ বলে ২১ চার ও ৩ ছক্কায়  ১৪৬ রান আসে তার ব্যাট থেকে।

বল হাতে দ্বিতীয় ইনিংসে নিউজিল্যান্ডের হয়ে একাই ৫ উইকেট নেন ট্রেন্ট বোল্ট। টিম সাউদি পান ৩টি উইকেট। আর বাকি দুটি উইকেট নেন নেইল ওয়াগনার।


   Page 1 of 44
     খেলাধূলা
জয়ের বিকল্প নেই আজ
.............................................................................................
টাইগারদের টিকে থাকার লড়াই
.............................................................................................
বিশ্বকাপে পাক-ভারত মহারণ আজ
.............................................................................................
কলম্বিয়ার কাছে হেরে কোপা আমেরিকা শুরু আর্জেন্টিনার
.............................................................................................
অনুশীলনে সাকিব, চোট পেলেন মুশফিক
.............................................................................................
জয় দিয়ে কোপা অভিযান শুরু ব্রাজিলের
.............................................................................................
বিশ্বকাপে দুই অপরাজিত দলের লড়াই বিকেলে
.............................................................................................
ব্রিস্টলে গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে বাংলাদেশের সামনে শ্রীলঙ্কা
.............................................................................................
আগুয়েরোর পেনাল্টি মিসে সিটির হার
.............................................................................................
ওয়ানডের পর টি-টোয়েন্টিতেও হোয়াইটওয়াশ শ্রীলঙ্কা
.............................................................................................
লিঁওকে উড়িয়ে শেষ আটে বার্সা
.............................................................................................
ভালো শুরুর পরও হতাশার ব্যাটিং
.............................................................................................
দ্বিতীয় দিনেও টস করতে দেয়নি বৃষ্টি
.............................................................................................
ব্যাটিং-বোলিংয়ে ভালো করার প্রত্যয় মাহমুদউল্লাহর
.............................................................................................
এল ক্লাসিকোতেও বার্সার কাছে হারলো রিয়াল
.............................................................................................
সৌম্য-মাহমুদউল্লাহর বীরত্বের পরও ইনিংস পরাজয়
.............................................................................................
ওয়ানডে ক্রিকেটকে বিদায় বললেন গেইল
.............................................................................................
বিবর্ণ ব্যাটিং-বোলিংয়ে সিরিজ হারল টাইগাররা
.............................................................................................
শেষ মুহূর্তের গোলে রিয়ালের জয়
.............................................................................................
ব্যাটিংয়ে সিলেট সিক্সার্স
.............................................................................................
কাতার বিশ্বকাপে ৪৮ দল
.............................................................................................
নিষিদ্ধ সাব্বির
.............................................................................................
ফিল্ডিংয়ে কুমিল্লা
.............................................................................................
আজ শুরু হচ্ছে বিপিএলের ষষ্ঠ আসর
.............................................................................................
বড়দিন উদযাপন করলেন রোনাল্ডো
.............................................................................................
টানা তৃতীয় হারে টাইগ্রেসদের বিদায়
.............................................................................................
তিন উইকেট হারিয়ে চাপে বাংলাদেশ
.............................................................................................
চাপে টাইগাররা
.............................................................................................
ভারতকে ৪-২ গােলা হারিয়ে ফাইনালে বাংলাদেশ
.............................................................................................
মাঠ-ম্যাচকে স্মরণীয় করে রাখতে সিলেটে বাজবে ঘণ্টা
.............................................................................................
সুয়ারেজের হ্যাটট্রিকে বিধ্বস্ত রিয়াল
.............................................................................................
জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে টেস্ট স্কোয়াডে নতুন মুখ
.............................................................................................
জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে বাংলাদেশের সম্ভাব্য একাদশ
.............................................................................................
সিরিজ জয়ের মিশনে মাঠে নামছে টাইগাররা
.............................................................................................
বাংলাদেশ-জিম্বাবুয়ে লড়াই শুরু আজ
.............................................................................................
শেষ মুহুর্তের গোলে আর্জেন্টিনাকে হারাল ব্রাজিল
.............................................................................................
ঢাকায় পা রাখল জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট দল
.............................................................................................
১৬ বছর পর নেদারল্যান্ডসের কাছে হারল জার্মানি
.............................................................................................
জেসুস-সান্দ্রোর গোলে জিতল ব্রাজিল
.............................................................................................
বার্সাকে রুখে দিল ভ্যালেন্সিয়া
.............................................................................................
শিরোপা জয়ে বদ্ধপরিকর বাংলাদেশ
.............................................................................................
মৌসুমিদের গ্রুপসেরার লড়াই আজ
.............................................................................................
ফুটবলের নতুন রাজা লুকা মদরিচ
.............................................................................................
টাইগারদের টিকে থাকার লড়াই আজ
.............................................................................................
লেবাননকে গোল বন্যায় ভাসাল মেয়েরা
.............................................................................................
মরুর বুকে ভারত-পাকিস্তান মহারণ আজ
.............................................................................................
বাহরাইনের বিরুদ্ধে ১০-০ গোলে বাংলাদেশের জয়
.............................................................................................
আজ হারলেই শ্রীলঙ্কার বিদায়
.............................................................................................
মরুর বুকেও উড়লো বিজয় কেতন
.............................................................................................
ইনজুরি আক্রান্ত তামিমও ফিরে গেলেন!
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

সম্পাদক ও প্রকাশক : মোহাম্মদ আখলাকুল আম্বিয়া
নির্বাহী সম্পাদক: মাে: মাহবুবুল আম্বিয়া

সম্পাদকীয় ও বাণিজ্যিক কার্যালয়: স্বাধীনতা ভবন (৩য় তলা), ৮৮ মতিঝিল বাণিজ্যিক এলাকা, ঢাকা-১০০০। Editorial & Commercial Office: Swadhinota Bhaban (2nd Floor), 88 Motijheel, Dhaka-1000.
সম্পাদক কর্তৃক রঙতুলি প্রিন্টার্স ১৯৩/ডি, মমতাজ ম্যানশন, ফকিরাপুল কালভার্ট রোড, মতিঝিল, ঢাকা-১০০০ থেকে মুদ্রিত ও প্রকাশিত ।
ফোন : ০২-৯৫৫২২৯১ মোবাইল: ০১৬৭০৬৬১৩৭৭

Phone: 02-9552291 Mobile: +8801670 661377
ই-মেইল : dailyswadhinbangla@gmail.com , editor@dailyswadhinbangla.com, news@dailyswadhinbangla.com

 

    2015 @ All Right Reserved By dailyswadhinbangla.com

Developed By: Nytasoft