বুধবার, ১৫ জুলাই 2020 | বাংলার জন্য ক্লিক করুন
  
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   আইন - অপরাধ -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
সাহেদের তথ্য চেয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ও বাংলাদেশ ব্যাংকে দুদকের চিঠি

স্টাফ রিপোর্টার : রিজেন্ট হাসপাতালের মালিক, রিজেন্ট গ্রুপের চেয়ারম্যান মো. সাহেদের অনিয়ম ও দুর্নীতি অনুসন্ধানে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর এবং বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে নথিপত্র চেয়ে চিঠি দিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন-দুদক।

মঙ্গলবার দুদকের প্রধান কার্যালয় থেকে অনুসন্ধান টিম প্রধান উপপরিচালক মো. আবু বকর সিদ্দিকের সই করা তলবি চিঠি স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ও বাংলাদেশ ব্যাংকের  ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিটের (বিএফআইইউ) প্রধান বরাবর পাঠানো হয়েছে।

এর আগে গত সোমবার রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান মো. সাহেদ ওরফে সাহেদ করিমের অবৈধ সম্পদের অনুসন্ধান করার সিদ্ধান্ত নেয় দুদক। কমিশনের বিশেষ তদন্ত অনুবিভাগের মাধ্যমে এ অভিযোগটি অনুসন্ধান করা হবে। যার জন্য তিন সদস্যের একটি দল গঠন করা হয়েছে। কমিশনের উপ-পরিচালক মো. আবু বকর সিদ্দিকের নেতৃত্বে তিন সদস্যের অনুসন্ধান দলের অন্য সদস্যরা হলেন- মো. নেয়ামুল হাসান গাজী ও শেখ মো. গোলাম মাওলা।

দুদক সূত্রে জানা যায়, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক আবুল কালাম আজাদ বরাবর পাঠানো চিঠিতে রিজেন্ট হাসপাতাল লিমিটেডের উত্তরা ও মিরপুর শাখার ইস্যুকৃত লাইসেন্স ও নবায়ন সংক্রান্ত নথির সত্যায়িত কপি চাওয়া হয়েছে। তলব করা হয়েছে রিজেন্ট হাসপাতাল ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মধ্যে কোভিড-১৯ এর নমুনা পরীক্ষার চুক্তিপত্র, নমুনা পরীক্ষার রিপোর্ট প্রদান ও বিভিন্ন বিল পরিশোধের সত্যায়িত কপি এবং অধিদপ্তরের কাছে পেশ করার বিলের কপিসহ সংশ্লিষ্ট নথিপত্র।

অন্যদিকে বাংলাদেশ ব্যাংকের বিএফআইইউ এর প্রধান আবু হেনা মো. রাজী হাসান বরাবর পাঠানো চিঠিতে রিজেন্ট হাসপাতাল ও গ্রুপের নামে-বেনামে থাকা বিভিন্ন ব্যাংকের হিসাব, সাহেদের ব্যক্তিগত হিসাব ও তার পরিবারের সদস্যের নামে থাকা ব্যাংক ঋণ বিবরণসহ সংশ্লিষ্ট নথিপত্র চাওয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত ৬ জুলাই নানা অনিয়ম, প্রতারণা, সরকারের সঙ্গে চুক্তি ভঙ্গ, করোনা পরীক্ষার ভুয়া রিপোর্ট, সার্টিফিকেট দেওয়া ও রোগীদের কাছ থেকে টাকা নেওয়ার অভিযোগে রিজেন্ট গ্রুপের দু’টি হাসপাতালে অভিযান চালায় র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত। এ অভিযানের নেতৃত্ব দেন র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. সারোয়ার আলম। অভিযানে গিয়ে প্রতারণার সত্যতা মেলে, সেইসঙ্গে পাওয়া যায় গুরুত্বপূর্ণ সব তথ্য। পরদিন গত ৭ জুলাই রিজেন্ট গ্রুপের মূল কার্যালয় এবং রাজধানীর উত্তরা ও মিরপুরে এর দু’টি হাসপাতাল সিলগালা করে দেওয়া হয়। হাসপাতালটি প্রতারণা করে ১০ হাজারেরও বেশি করোনা পরীক্ষার ভুয়া সার্টিফিকেট দিয়েছে। অভিযানের সময় রিজেন্ট হাসপাতালের পরিচালক ও ব্যবস্থাপকসহ আটজনকে আটক করেছে র‌্যাব। তবে চেয়ারম্যান সাহেদ এখনও ধরা পড়েনি।

সাহেদের তথ্য চেয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ও বাংলাদেশ ব্যাংকে দুদকের চিঠি
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : রিজেন্ট হাসপাতালের মালিক, রিজেন্ট গ্রুপের চেয়ারম্যান মো. সাহেদের অনিয়ম ও দুর্নীতি অনুসন্ধানে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর এবং বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে নথিপত্র চেয়ে চিঠি দিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন-দুদক।

মঙ্গলবার দুদকের প্রধান কার্যালয় থেকে অনুসন্ধান টিম প্রধান উপপরিচালক মো. আবু বকর সিদ্দিকের সই করা তলবি চিঠি স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ও বাংলাদেশ ব্যাংকের  ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিটের (বিএফআইইউ) প্রধান বরাবর পাঠানো হয়েছে।

এর আগে গত সোমবার রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান মো. সাহেদ ওরফে সাহেদ করিমের অবৈধ সম্পদের অনুসন্ধান করার সিদ্ধান্ত নেয় দুদক। কমিশনের বিশেষ তদন্ত অনুবিভাগের মাধ্যমে এ অভিযোগটি অনুসন্ধান করা হবে। যার জন্য তিন সদস্যের একটি দল গঠন করা হয়েছে। কমিশনের উপ-পরিচালক মো. আবু বকর সিদ্দিকের নেতৃত্বে তিন সদস্যের অনুসন্ধান দলের অন্য সদস্যরা হলেন- মো. নেয়ামুল হাসান গাজী ও শেখ মো. গোলাম মাওলা।

দুদক সূত্রে জানা যায়, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক আবুল কালাম আজাদ বরাবর পাঠানো চিঠিতে রিজেন্ট হাসপাতাল লিমিটেডের উত্তরা ও মিরপুর শাখার ইস্যুকৃত লাইসেন্স ও নবায়ন সংক্রান্ত নথির সত্যায়িত কপি চাওয়া হয়েছে। তলব করা হয়েছে রিজেন্ট হাসপাতাল ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মধ্যে কোভিড-১৯ এর নমুনা পরীক্ষার চুক্তিপত্র, নমুনা পরীক্ষার রিপোর্ট প্রদান ও বিভিন্ন বিল পরিশোধের সত্যায়িত কপি এবং অধিদপ্তরের কাছে পেশ করার বিলের কপিসহ সংশ্লিষ্ট নথিপত্র।

অন্যদিকে বাংলাদেশ ব্যাংকের বিএফআইইউ এর প্রধান আবু হেনা মো. রাজী হাসান বরাবর পাঠানো চিঠিতে রিজেন্ট হাসপাতাল ও গ্রুপের নামে-বেনামে থাকা বিভিন্ন ব্যাংকের হিসাব, সাহেদের ব্যক্তিগত হিসাব ও তার পরিবারের সদস্যের নামে থাকা ব্যাংক ঋণ বিবরণসহ সংশ্লিষ্ট নথিপত্র চাওয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত ৬ জুলাই নানা অনিয়ম, প্রতারণা, সরকারের সঙ্গে চুক্তি ভঙ্গ, করোনা পরীক্ষার ভুয়া রিপোর্ট, সার্টিফিকেট দেওয়া ও রোগীদের কাছ থেকে টাকা নেওয়ার অভিযোগে রিজেন্ট গ্রুপের দু’টি হাসপাতালে অভিযান চালায় র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত। এ অভিযানের নেতৃত্ব দেন র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. সারোয়ার আলম। অভিযানে গিয়ে প্রতারণার সত্যতা মেলে, সেইসঙ্গে পাওয়া যায় গুরুত্বপূর্ণ সব তথ্য। পরদিন গত ৭ জুলাই রিজেন্ট গ্রুপের মূল কার্যালয় এবং রাজধানীর উত্তরা ও মিরপুরে এর দু’টি হাসপাতাল সিলগালা করে দেওয়া হয়। হাসপাতালটি প্রতারণা করে ১০ হাজারেরও বেশি করোনা পরীক্ষার ভুয়া সার্টিফিকেট দিয়েছে। অভিযানের সময় রিজেন্ট হাসপাতালের পরিচালক ও ব্যবস্থাপকসহ আটজনকে আটক করেছে র‌্যাব। তবে চেয়ারম্যান সাহেদ এখনও ধরা পড়েনি।

ডিবিতে হস্তান্তর ডা. সাবরিনার মামলা
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : করোনাভাইরাসের নমুনা পরীক্ষায় জালিয়াতির মামলায় গ্রেপ্তার জেকেজি হেলথ কেয়ারের চেয়ারম্যান ও সদ্য বরখাস্ত জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটের চিকিৎসক ডা. সাবরিনা চৌধুরীর বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলা গোয়েন্দা বিভাগের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

মঙ্গলবার সকালে তেঁজগাও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সালাউদ্দীন মিয়া এ তথ্য নিশ্চিত করে জানান, মামলা অধিকতর তদন্তের জন্য ডিবিতে হস্তান্তর করা হয়েছে।  

করোনার ভুয়া রিপোর্ট দেওয়ার অভিযোগে গত ১২ জুলাই দুপুরে ডা. সাবরিনাকে তেজগাঁও বিভাগীয় উপ-পুলিশ (ডিসি) কার্যালয়ে আনা হয়। সেখানে জিজ্ঞাসাবাদের পর তাকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়।

সোমবার তাকে ঢাকা মেট্টোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট শাহিনুর রহমানের আদালতে হাজির করা হয়। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা তেঁজগাও থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) দেওয়ান মো. সবুর তার চার দিনের রিমান্ড আবেদন করেন। আদালত তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

করোনাভাইরাস পরীক্ষা করার অনুমোদন থাকলেও পরীক্ষা না করে ভুয়া ফলাফল দেয়ার অভিযোগে ২৩ জুন জেকেজি হেলথকেয়ারের প্রধান নির্বাহী আরিফুল হক চৌধুরীসহ প্রতিষ্ঠানটির কয়েকজন কর্মকর্তা-কর্মচারীকে গ্রেফতার করা হয়।

২ মামলায় সাহেদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি
                                  

স্বাধীন বাংলা রিপোর্ট: রিজেন্ট গ্রুপের চেয়ারম্যান মো. সাহেদের বিরুদ্ধে দুইটি মামলায় গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেছেন আদালত। আজ সোমবার মামলার বাদি সাইফুল্লাহ মাসুদের জবানবন্দি গ্রহণ করে ঢাকা মহানগর হাকিম মাইনুল ইসলামের আদালত এই গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন।

মামলার সূত্র থেকে জানা যায়, কারওয়ান বাজারে রড, ইট, সিমেন্টের ব্যবসায়ী মেসার্স মাসুদ এন্টারপ্রাইজের মালিক সাইফুল্লাহ মাসুদ আদালতে সাহেদের বিরুদ্ধে দুটি মামলা করেছেন। তার কাছ থেকে সাহেদ ২০১৮ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত দুই কোটি ৫৮ লাখ ৩০ হাজার ৫৫ টাকার রড, সিমেন্ট, ইট ক্রয় করেন। কিছু টাকা পরিশোধ করলেও পাওনা টাকা বাকি থাকে। পরবর্তীতে একইভাবে এক কোটি টাকার রড, ইট, সিমেন্ট নেন সাহেদ। এই এক কোটির জন্য সাহেদ চারটি ব্যাংক চেক দেন। কিন্তু চারটি চেক ব্যাংক প্রত্যাখ্যান করে। তারপর সাইফুল্লাহ মাসুদ টাকা চান। কিন্তু সাহেদ টাকা দেন না। বরং ভয়ভীতি, হত্যার হুমকি দেন।

এ ব্যাপারে চলতি বছরের ৮ জুলাই উত্তরা পশ্চিম থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন। এছাড়া গত বছরের ৩ মার্চ মাসুদ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বরাবর লিখিতভাবে অভিযোগ জানান। কিন্তু এতেও কোন কাজ হয়নি। তারপর থেকে এ পর্যন্ত সাহেদ আর কোন টাকা পরিশোধ করেননি। এজন্য সাইফুল্লা মাসুদ ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতে তার বিরুদ্ধে দুটি মামলা করেন। পরে বাদি মাসুদের জবানবন্দি নিয়ে আদালত সাহেদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন। আগামী ১৩ আগস্ট পরবর্তী মামলার দিন ধার্য্য করেছেন আদালত।

ফরিদপুরের রুবেল-বরকত আরও ২ দিনের রিমান্ডে
                                  

ফরিদপুর প্রতিনিধি: মানি লন্ডারিং মামলায় ফরিদপুর শহর আওয়ামী লীগের অব্যাহতিপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ হোসেন ওরফে বরকত ও তার ভাই ফরিদপুর প্রেসক্লাবের অব্যাহতিপ্রাপ্ত সভাপতি ইমতিয়াজ হাসান ওরফে রুবেলকেআরও দুইদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

সোমবার (১৩জুলাই) দুপুর ১২টার দিকে ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আতিকুল ইসলাম ভার্চুয়াল আদালতের মাধ্যমে শুনানি শেষে তাদের আরও দুইদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে ফরিদপুরের জেল সুপার আব্দুর রহিম বলেন, ‘সিআইডি বরকত ও রুবেলের ১০ দিন করে রিমান্ড আবেদন জানায়। আদালত শুনানি শেষে ২ দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

দুই ভাইয়ের বিরুদ্ধে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) এর পরিদর্শক এস এম মিরাজ আল মাহমুদ বাদী হয়ে গত ২৬ জুন ঢাকার কাফরুল থানায় মানি লন্ডারিং এর অভিযোগ এনে এ মামলাটি দায়ের করেন।

এ মামলায় ওই দুই ভায়ের বিরুদ্ধে দুই হাজার কোটি টাকার সম্পদ অবৈধ উপায়ে উপার্জন ও পাচারের অভিযোগ আনা হয়। ২০১২ সালের মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ আইন সংশোধনী ২০১৫ এর ৪(২) ধারায় এ মামলাটি দায়ের করা হয়।

মামলার এজাহারে বলা হয়, ২০১০ সাল থেকে বর্তমান বছর পর্যন্ত ফরিদপুরের এলজিইডি, বিআরটিএ, সড়ক বিভাগসহ বিভিন্ন সরকারি বিভাগের ঠিকাদারি নিয়ন্ত্রণ করে বিপুল পরিমাণ অবৈধ সম্পদের মালিক হয়েছেন বরকত ও রুবেল। এছাড়াও মাদক ব্যবসা ও ভূমি দখলের অভিযোগ আনা হয় এজাহারে। এভাবে উপার্জিত অবৈধ অর্থ দিয়ে এসি নন এসিসহ ২৩টি বাস, ড্রাম ট্রাক, বোল্ডার, পাজেরো গাড়ির মালিক হয়েছেন। এ টাকার উল্লেখযোগ্য অংশ হুন্ডির মাধ্যমে বিদেশে পাচার করেন তারা।

এজাহারে আরও বলা হয়, গত ১৮ জুন তিনি এ বিষয়ে তদন্তকারী কর্মকর্তা নিযুক্ত হয়ে তদন্ত শুরু করেন। প্রাথমিক তদন্তে জানা গেছে এই দুই ভাই অন্তত দুই হাজার কোটি টাকা অবৈধ উপায়ে উপার্জন করেছেন।

প্রসঙ্গত, গত ১৬ মে রাতে ফরিদপুর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সুবল চন্দ্র সাহার বাড়িতে দুই দফা হামলার ঘটনা ঘটে। সুবল সাহার বাড়ি শহরের গোয়ালচামট মহল্লার মোল্লা বাড়ি সড়কে অবস্থিত। এ ঘটনায় গত ১৮ মে সুবল সাহা অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিদের আসামি করে ফরিদপুর কোতয়ালী থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

গত ৭ জুন রাতে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সুবল চন্দ্র সাহার বাড়িতে হামলার মামলার আসামি হিসেবে শহরের বদরপুরসহ বিভিন্ন মহল্লায় অভিযান চালিয়ে পুলিশ বরকত ও রুবেলসহ মোট ৯ জনকে গ্রেফতার করে। পরে তাদের বাড়ি তল্লাশি করে বিদেশি অস্ত্র, গুলি, বিদেশি মদ, ইয়াবা, ডলার, রুপী ও নগদ ২৯ লক্ষ টাকা এবং ১২’শ বস্তা চাল জব্দ করে পুলিশ।

৩ দিনের রিমান্ডে ‘প্রতারক’ ডা. সাবরিনা
                                  

স্বাধীন বাংলা রিপোর্ট: করোনাভাইরাসের নমুনা পরীক্ষা নিয়ে প্রতারণার ব্যাপক অভিযোগের ভিত্তিতে আটক ডা. সাবরিনা চৌধুরীকে ৩ দিনের রিমান্ডে দিয়েছেন আদালত। আজ সোমবার তাকে আদালতে হাজির করে চারদিনের রিমান্ডে চেয়েছিল পুলিশ। শুনানি শেষে ঢাকা মহানগর হাকিম শাহিনুর রহমান তার তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

গতকাল রোববার দুপুরে আলোচিত চিকিৎসক সাবরিনাকে তেজগাঁও বিভাগীয় উপ-পুলিশ (ডিসি) কার্যালয়ে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে তাকে গ্রেফতার করে পুলিশ।


‘জেকেজি’র প্রধান নির্বাহী ও তার (সাবরিনা আরিফের) স্বামীকে যে মামলায় গ্রেফতার করা হয়েছে, ওই একই মামলায় তাকেও গ্রেফতার করা হয়েছে।’

পুলশি জানায়, জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তাকে পুলিশ তলব করে এবং জিজ্ঞাসাবাদ শেষে মামলার সাথে সংশ্লিষ্টতা পাওয়ায় তাকে গ্রেফতার দেখানো হয়।

করোনাভাইরাস পরীক্ষা করার অনুমোদন থাকলেও পরীক্ষা না করে ভুয়া ফলাফল দেয়ার অভিযোগে ২৩ জুন জেকেজি হেলথকেয়ারের প্রধান নির্বাহী আরিফুল হক চৌধুরীসহ প্রতিষ্ঠানটির কয়েকজন কর্মকর্তা-কর্মচারীকে গ্রেফতার করা হয়।

অভিযোগ সম্পর্কে সাবরিনা চৌধুরীর কোন বক্তব্য পাওয়া না গেলেও জেকেজি’র জালিয়াতির সাথে সম্পৃক্ততার অভিযোগকে ‘অপপ্রচার’ বলে উল্লেখ করে কয়েকদিন আগে সংবাদপত্রে একটি বিজ্ঞপ্তি দেন তিনি।

ওদিকে, করোনাভাইরাস পরীক্ষা নিয়ে জালিয়াতির ঘটনায় জেকেজি ও রিজেন্ট হাসপাতালের সংশ্লিষ্ট থাকার অভিযোগ ওঠার পর শনিবার স্বাস্থ্য অধিদফতর একটি সংবাদি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে।

সেখানে উল্লেখ করা হয় যে জেকেজি’র স্বত্বাধিকারী আরিফুল হক চৌধুরীর আরেকটি প্রতিষ্ঠানের সাথে কাজ করার পূর্ব অভিজ্ঞতা থাকায় জেকেজি গ্রুপকে কোভিড-১৯ পরীক্ষার অনুমতি দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়।

দুই প্রতারকের ব্যাংক হিসাব জব্দ
                                  

স্বাধীন বাংলা রিপোর্ট: করোনাভাইরাস পরীক্ষা নিয়ে প্রতারণার ব্যাপক অভিযোগের ভিত্তিতে দুই প্রতারক শাহেদ ও ডা. সাবরিনার ব্যাংক হিসাব জব্দ করা হয়েছে। এনবিআরের সিআইসি থেকে রোববার বিকেলে তাদের ব্যাংক হিসাব জব্দ করার জন্য সব ব্যাংককে চিঠি দেয়া হয়েছে।

জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সেল (সিআইসি) তাদের ব্যাংক হিসাব জব্দ করে। এর পাশাপাশি তাদের নামে থাকা ব্যাংক হিসাবের যাবতীয় তথ্য ৭ দিনের মধ্যে জানানোর জন্য সব তফসিলি ব্যাংককে চিঠি দেয়া হয়েছে।

এছাড়া ডা. সাবরিনা চৌধুরীর স্বামী জেকেজি হেলথকেয়ারের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আরিফুল হক চৌধুরী ও রিজেন্ট হাসপাতালের পরিচালক ইব্রাহিম খলিলের ব্যাংক হিসাবও জব্দ করা হয়েছে।

পাশাপাশি তাদের প্রতিষ্ঠানও এনবিআরের নজরদারিতে রয়েছে বলে জানা গেছে। রিজেন্ট হাসপাতাল, রিজেন্ট কেসিএস, জেকেজি হেলথকেয়ার, ওভাল গ্রুপ লিমিটেডের যাবতীয় ব্যাংক হিসাব জব্দ করা হয়েছে।

ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট প্রতিষ্ঠান ওভার গ্রুপ লিমিটেডের চেয়ারম্যান ডা. সাবরিনা এ চৌধুরী।
করোনাভাইরাসের নমুনা পরীক্ষা না করেই ভুয়া রিপোর্ট দেয়ার অভিযোগে জেকেজি (জোবেদা খাতুন হেলথ কেয়ার)-এর নির্বাহী কর্মকর্তা ও চেয়ারম্যানকে আটক করেছে পুলিশ। আর করোনাভাইরাসের নমুনা পরীক্ষার ভুয়া রিপোর্ট দেয়া, করোনা চিকিৎসার নামে রোগীদের সঙ্গে প্রতারণার দায়ে অভিযুক্ত রিজেন্ট হাসপাতাল সিলগালা করে দেয়া হয়েছে। হাসপাতালটির চেয়ারম্যান সাহেদকে খুঁজছে পুলিশ।
জেকেজির বিরুদ্ধে অভিযোগ, সরকারের কাছ থেকে বিনামূল্যে নমুনা সংগ্রহের অনুমতি নিয়ে বুকিং বিডি ও হেলথকেয়ার নামে দুটি সাইটের মাধ্যমে টাকা নিচ্ছিল এবং নমুনা পরীক্ষা ছাড়াই ভুয়া সনদ দিত।

পুলিশ জানিয়েছে, জেকেজি হেলথকেয়ার থেকে ২৭ হাজার রোগীকে করোনার টেস্টের রিপোর্ট দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে ১১ হাজার ৫৪০ জনের করোনার নমুনার আইইডিসিআরের মাধ্যমে সঠিক পরীক্ষা করানো হয়েছিল। বাকি ১৫ হাজার ৪৬০ রিপোর্ট প্রতিষ্ঠানটির ল্যাপটপে তৈরি করা হয়। জব্দ করা ল্যাপটপে এর প্রমাণ মিলেছে। আরিফ চৌধুরীকে জিজ্ঞাসাবাদে পুলিশকে জানান, জেকেজির ৭-৮ কর্মী ভুয়া রিপোর্ট তৈরি করেন।

জেকেজির মাঠকর্মীরা ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ, গাজীপুর, নরসিংদীসহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে করোনা উপসর্গ দেখা দেয়া মানুষের নমুনা সংগ্রহ করতেন। প্রতি রিপোর্টে ৫-১০ হাজার টাকা নেয়া হতো। আর বিদেশিদের কাছ থেকে নেন ১০০ ডলার। সেই হিসাবে করোনা পরীক্ষার ভুয়া রিপোর্টে প্রায় ৮ কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে জেকেজি।

রূপপুর পারমাণবিকের ভূয়া গেটপাস তৈরীকারী ২ প্রতারক গ্রেফতার
                                  

ঈশ্বরদী (পাবনা) প্রতিনিধি: চাকুরি দেয়ার নামে রূপপুর পারমাণবিকের ভূয়া গেটপাস তৈরীকারী ২ প্রতারককে রবিবার বিকেলে গ্রেফতার করেছে ঈশ^রদী থানা পুলিশ। বেশ কিছুদিন ধরে প্রতারক চক্রটি পারমাণবিকে চাকুরি দেয়ার নামে লোকজনের টাকা-পয়সা হাতিয়ে নেয়ার প্রতারণায় লিপ্ত ছিলো। প্রতারণার অভিযোগের প্রেক্ষিতে ঈশ^রদী সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ফিরোজ কবীর এদের আটক করতে গোপন অনুসন্ধান শুরু করেন। শেষ পর্যন্ত রবিবার বিকেল সাড়ে চারটার দিকে মূল প্রতারক ও তার এক সহযোগীকে পুলিশ গ্রেফতার করতে সমর্থ হয়েছে। মূল প্রতারক নাটোরের লালপুর উপজেলার বৈদ্যনাথপুর গ্রামের আফসার আলীর পুত্র হাসান আলী (৩১) এবং সহযোগী ঈশ^রদী পৌরসভার বকুলের মোড় এলাকার মনিরুজ্জামানের পুত্র জাকির হোসেন (২৫)। ঈশ^রদী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সেখ নাসীর উদ্দিন প্রতারক গ্রেফতারের ঘটনা নিশ্চিত করে বলেন. এদের সাথে আরো কেউ জড়িত আছে কিনা জিজ্ঞাসাবাদের বের করা হবে।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ফিরোজ কবীর জানান, বেশ কিছুদিন ধরে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পে চাকুরি দেয়ার নামে প্রতারক চক্র সাধারণ মানুষের টাকা-পয়সা হাতিয়ে নিচ্ছিল বলে অভিযোগ আসে। এবিষয়ে গোপনে তদন্ত শুরু করা হয়। চক্রটি কম্পিউটারের সাহায্যে রাশিয়ান বিভিন্ন ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের সীল ও স্বাক্ষর জাল করে প্রকল্পে প্রবেশের জন্য চাকুরি প্রাথীদের নামের তালিকা তৈরী করতো। এই তালিকা গেটে দেখালে সীল ও স্বাক্ষর সঠিক ভেবে তাদের প্রকল্প এলাকায় প্রবেশের জন্য গেটপাস ইস্যু করা হতো। গেটপাস নিয়ে ভেতরে প্রবেশ করতে পারলেও  কর্মস্থলে যে তালিকা থাকতো তাতে চাকুরি প্রার্থীদের নাম থাকতো না। ফলে টাকা-পয়সা খুইয়ে প্রতারিত হয়ে ফিরে আসতে হতো। আরো কোন চক্র প্রতারণার সাথে জড়িত কিনা দ্রুততম সময়ের মধ্যে ঈশ^রদী পুলিশ তাদেরও সনাক্ত করার জন্য গোপন তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে বলে তিনি জানিয়েছেন।

ডা. সাবরিনার রিমান্ড চাইবে পুলিশ
                                  

স্বাধীন বাংলা রিপোর্ট: করোনাভাইরাস টেস্ট নিয়ে প্রতারণার অভিযোগে জেকেজি হেলথকেয়ারের চেয়ারম্যান ও জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটের চিকিৎসক ডা. সাবরিনা আরিফকে গ্রেফতারের পর তেজগাঁও থানায় পাঠানো হয়েছে। তাকে আদালতে পাঠিয়ে রিমান্ড চাইবে পুলিশ।

রোববার ডা. সাবরিনাকে গ্রেফতারের পর ডিসি কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে ডিসি মোহাম্মদ হারুন অর রশিদ এসব তথ্য জানান।

তিনি বলেন, জিজ্ঞাসাবাদে যেসব প্রশ্ন করা হয়েছে তিনি সেগুলোর সন্তোষজনক উত্তর দিতে পারেননি। তাই তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। মামলার তদন্তের জন্য তাকে অধিকতর জিজ্ঞাসাবাদ করতে হবে। সোমবার তাকে আদালতে পাঠিয়ে রিমান্ড চাইবে পুলিশ।

করোনাভাইরাস পরীক্ষার টেস্ট না করেই রিপোর্ট ডেলিভারি দেয়া জেকেজি হেলথকেয়ারের চেয়ারম্যান ডা. সাবরিনা এ চৌধুরীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। রোববার দুপুরে তাকে তেজগাঁও বিভাগীয় উপপুলিশ (ডিসি) কার্যালয়ে আনা হয়। সেখানে জিজ্ঞাসাবাদের পর তাকে গ্রেফতার দেখানো হয়।

প্রসঙ্গত, জেকেজি হেলথকেয়ারের করোনা টেস্ট নিয়ে প্রতারণার অভিযোগে এরই মধ্যে প্রতিষ্ঠানটির প্রধান নির্বাহী আরিফ চৌধুরীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। সাবরিনা তারই স্ত্রী।

এর আগে গত ৪ জুন স্বামী আরিফুলের বিরুদ্ধে মারধরের অভিযোগ তুলে সাবরিনা তেজগাঁও বিভাগের একটি থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন। তবে অন্তত দুই মাস আগে তাদের মধ্যে বিবাহবিচ্ছেদের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে বলে ডা. সাবরিনা দাবি করেন।

জেকেজির বিরুদ্ধে অভিযোগ, সরকারের কাছ থেকে বিনামূল্যে নমুনা সংগ্রহের অনুমতি নিয়ে বুকিং বিডি ও হেলথকেয়ার নামে দুটি সাইটের মাধ্যমে টাকা নিচ্ছিল এবং নমুনা পরীক্ষা ছাড়াই ভুয়া সনদ দিত।

এ বিষয়ে রাজধানীর কল্যাণপুরের একটি বাড়ির কেয়ারটেকারের অভিযোগের সত্যতা পেয়ে ২২ জুন জেকেজি হেলথকেয়ারের সাবেক গ্র্যাফিকস ডিজাইনার হুমায়ুন কবীর হিরু ও তার স্ত্রী তানজীন পাটোয়ারীকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

তাদের কাছ থেকে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে পরে প্রতিষ্ঠানটির সিইও আরিফকেও গ্রেফতার করা হয়।

এ ঘটনার পর ২৪ জুন জেকেজি হেলথকেয়ারের নমুনা সংগ্রহের যে অনুমোদন ছিল তা বাতিল করে স্বাস্থ্য অধিদফতর।

জানা যায়, ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জায়গায় করোনার নমুনা সংগ্রহ করে তা পরীক্ষা না করেই জেকেজি প্রতিষ্ঠানটি ১৫ হাজার ৪৬০ টেস্টের ভুয়া রিপোর্ট সরবরাহ করে।

পুলিশ জানিয়েছে, জেকেজি হেলথকেয়ার থেকে ২৭ হাজার রোগীকে করোনার টেস্টের রিপোর্ট দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে ১১ হাজার ৫৪০ জনের করোনার নমুনার আইইডিসিআরের মাধ্যমে সঠিক পরীক্ষা করানো হয়েছিল। বাকি ১৫ হাজার ৪৬০ রিপোর্ট প্রতিষ্ঠানটির ল্যাপটপে তৈরি করা হয়। জব্দ করা ল্যাপটপে এর প্রমাণ মিলেছে। আরিফ চৌধুরীকে জিজ্ঞাসাবাদে পুলিশকে জানান, জেকেজির ৭-৮ কর্মী ভুয়া রিপোর্ট তৈরি করেন।

জেকেজির মাঠকর্মীরা ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ, গাজীপুর, নরসিংদীসহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে করোনা উপসর্গ দেখা দেয়া মানুষের নমুনা সংগ্রহ করতেন। প্রতি রিপোর্টে ৫-১০ হাজার টাকা নেয়া হতো। আর বিদেশিদের কাছ থেকে নেন ১০০ ডলার। সেই হিসাবে করোনা পরীক্ষার ভুয়া রিপোর্টে প্রায় ৮ কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে জেকেজি।

২৪ জুন জেকেজির গুলশান কার্যালয়ে অভিযান চালিয়ে প্রতারক আরিফসহ ছয়জনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। তাদের দুদিনের রিমান্ডে নেয়া হয়। দুজন আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছেন। জেকেজির কার্যালয় থেকে ল্যাপটপসহ বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ নথি জব্দ করে পুলিশ। এ ঘটনায় তেজগাঁও থানায় চারটি মামলা হয়েছে। এসব মামলার কোনোটিতে এখন পর্যন্ত ডা. সাবরিনার নাম সংযুক্ত করা হয়নি। চারটি মামলার তদন্ত করছে তেজগাঁও থানা পুলিশ।

আরিফ গ্রেফতার হওয়ার পর ডা. সাবরিনা গ্রেফতার-আতঙ্কে গা ঢাকা দেন। আড়ালে ‘অদৃশ্য শক্তির’ ইশারায় দায়মুক্তির চেষ্টায় ছিলেন তিনি।

করোনা মহামারীতে মানুষের জীবন নিয়ে নির্মম প্রতারণায় নাম উঠে আসা ডা. সাবরিনা এ চৌধুরী সরকারি একটি হাসপাতালে চাকরির পাশাপাশি জেকেজির চেয়ারম্যান। তিনি জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের চিকিৎসক। পাশাপাশি তিনি জেকেজি হেলথকেয়ারের চেয়ারম্যান।

নিম্ন আদালতের সব কোর্টে আত্মসমর্পণ করা যাবে
                                  

স্টাফ রিপোর্টার :  স্বাস্থ্যবিধি এবং শারীরিক ও সামাজিক দূরত্ব কঠোরভাবে অনুসরণ করে ফৌজদারি মামলায় অভিযুক্ত ব্যক্তি অধস্তন আদালতে আত্মসমর্পণ করতে পারবেন বলে সিদ্ধান্ত দিয়েছেন প্রধান বিচারপতি।

শনিবার এ সংক্রান্ত একটি প্র্যাকটিস নির্দেশনা সুপ্রিম কোর্ট প্রশাসন থেকে বিজ্ঞপ্তি আকারে জারি করা হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, প্রধান বিচারপতি সুপ্রিম কোর্টের জ্যেষ্ঠ বিচারপতিদের সঙ্গে আলোচনাক্রমে এ মর্মে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন যে, স্বাস্থ্যসেবা বিভাগ জারিকৃত স্বাস্থ্যবিধি এবং শারীরিক ও সামাজিক দূরত্ব কঠোরভাবে অনুসরণ করে ফৌজদারি মামলায় অভিযুক্ত ব্যক্তি/ব্যক্তিরা অধস্তন আদালতে আত্মসমর্পণ করতে পারবেন।

এ বিষয়ে অধস্তন আদালতের বিচারক/ম্যাজিস্ট্রেট এজলাস কক্ষে স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালনসহ শারীরিক ও সামাজিক দূরত্ব বজায় নিশ্চিতকরণে প্রয়োজনীয় কার্যপদ্ধতি নির্ধারণ করবেন।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, সংশ্লিষ্ট বিচারক/ম্যাজিস্ট্রেট আত্মসমর্পণ আবেদন দাখিল এবং শুনানি কার্যক্রমের পদ্ধতি-সময়সূচি এমনভাবে নির্ধারণ-সমন্বয় করতে হবে যাতে আদালত প্রাঙ্গণে ও আদালত ভবনে কোনোরূপ জনসমাগম না ঘটে। আদালত প্রাঙ্গণে এবং এজলাস কক্ষে প্রত্যেককে কমপক্ষে ছয় ফুট শারীরিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে হবে। সব প্রকার জনসমাগম পরিহার করতে হবে।

‘আদালত প্রাঙ্গণ ও আদালতে জনসমাগম এড়াতে বিচারক/ম্যাজিস্ট্রেট প্রতিদিন নির্দিষ্ট সংখ্যক আত্মসমর্পণ দরখাস্ত শুনানির জন্য গ্রহণ করবেন। এ সংক্রান্তে একটি তালিকা সম্বলিত বিজ্ঞপ্তি আদালত ও আইনজীবী সমিতির নোটিশ বোর্ডে প্রচারের ব্যবস্থা করবেন।’

একটি মামলায় অভিযুক্ত ব্যক্তির পক্ষে সর্বোচ্চ দু’জন আইনজীবী শুনানিতে অংশগ্রহণ করতে পারবেন। এজলাস কক্ষে একত্রে ছয়জনের অধিক লোকের সমাগম করা যাবে না। তবে একই মামলায় একাধিক আত্মসমর্পণকারী অভিযুক্ত ব্যক্তি থাকলে এজলাস কক্ষের ডকে সর্বোচ্চ পাঁচজন অভিযুক্ত ব্যক্তি অবস্থান করতে পারবেন পারবেন। এক্ষেত্রে প্রয়োজনে বিচারক/ম্যাজিস্ট্রেট মামলা একাধিকভাগে/সেশনে শুনানি করতে পারবেন এবং সম্পূর্ণ শুনানি সম্পন্ন করে আইনানুগ আদেশ প্রদান করবেন। মামলা শুনানির সময়ে এজলাস কক্ষের বাইরে আদালতের বারান্দায় বা করিডোরে জনসমাগম সম্পূর্ণরুপে নিষিদ্ধ।

আত্মসমর্পণ দরখাস্ত শুনানির সময় অভিযুক্ত ব্যক্তি ও তার পক্ষে নিযুক্ত আইনজীবী ব্যতীত অন্য কোনো আইনজীবী এজলাস কক্ষে অবস্থান করবেন না। একটি আত্মসমর্পণ দরখাস্ত শুনানি শেষে সংশ্লিষ্ট আইনজীবী এজলাস কক্ষ ছাড়ার পর দুই মিনিট বিরতি দিয়ে পরবর্তী মামলা শুনানির জন্য গ্রহণ করবেন।

এজলাস কক্ষে প্রত্যেককে আবশ্যক্তিভাবে মুখাবরণ (ফেস মাস্ক) পরিহিত অবস্থায় থাকতে হবে। আদালতে প্রবেশের সময় প্রত্যেক ব্যক্তির তাপমাত্রা পরীক্ষা করার ব্যবস্থা গ্রহণ করা আবশ্যক। এজলাস কক্ষে স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালনসহ শারীরিক দূরত্ব কঠোরভাবে বজায় নিশ্চিতকরণার্থে তাৎক্ষণিক উদ্ভূত যেকোনো পরিস্থিতি বিবেচনায় বিচারক/ম্যাজিস্ট্রেট প্রয়োজনবোধে আৎসমর্পণ দরখাস্ত শুনানি করা থেকে বিরত থাকাসহ অন্য আনুষাঙ্গিক ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারবেন।

প্রতারক সাহেদের প্রধান সহযোগী গ্রেফতার
                                  

স্বাধীন বাংলা রিপোর্ট: অনিয়ম, প্রতারণা, সরকারের সঙ্গে চুক্তি ভঙ্গ ও করোনা পরীক্ষার ভুয়া রিপোর্ট প্রদান করে মানুষের কাছ থেকে অর্থ হাতিয়ে নেয়া রিজেন্ট গ্রুপের চেয়ারম্যান সাহেদের প্রধান সহযোগী তারেক শিবলীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশের এলিট ফোর্স র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)।

বুধবার (৮ জুলাই) দিবাগত রাতে রাজধানীর নাখালপাড়া এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন র‌্যাবের গোয়েন্দা শাখার প্রধান লে. কর্নেল সারওয়ার।

এর আগে সোমবার (৬ জুলাই) রিজেন্ট হাসপাতালের উত্তরা ও মিরপুর শাখায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারোয়ার আলম। অভিযানে ভুয়া করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট, করোনা চিকিৎসার নামে রোগীদের কাছ থেকে অর্থ আদায়সহ নানা অনিয়ম উঠে আসে।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারোয়ার আলম বলেন, ‘করোনা উপসর্গ নিয়ে হাসপাতালে আসা এবং বাড়িতে থাকা রোগীদের করোনার নমুনা সংগ্রহ করে ভুয়া রিপোর্ট প্রদান করত রিজেন্ট হাসপাতাল। এছাড়াও সরকার থেকে বিনামূল্যে কোভিড-১৯ টেস্ট করার অনুমতি নিয়ে রিপোর্ট প্রতি সাড়ে ৩ থেকে ৪ হাজার টাকা করে আদায় করত তারা। এভাবে জনগণের সঙ্গে প্রতারণা করে মোট ৩ কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে রিজেন্ট হাসপাতাল। এই সমস্ত অপরাধ ও টাকার নিয়ন্ত্রণ চেয়ারম্যান (রিজেন্ট গ্রুপের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সাহেদ) নিজে করত।’

এ ঘটনায় মঙ্গলবার (৭ জুলাই) রাতে উত্তরা পশ্চিম থানায় দণ্ডবিধি ৪০৬/৪১৭/৪৬৫/৪৬৮/৪৭১/২৬৯ ধারায় ১৭ জনকে আসামি করে একটি মামলা করা হয়। এতে সোমবার রিজেন্ট হাসপাতালের উত্তরা শাখা থেকে আটক আটজনকে গ্রেফতার দেখানো হয়েছে। এছাড়া রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান মো. সাহেদসহ ৯ জনকে পলাতক আসামি হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

রিজেন্ট হাসপাতাল বন্ধ করে দিল স্বাস্থ্য অধিদপ্তর
                                  

স্বাধীন বাংলা রিপোর্ট: করোনা টেস্ট না করেই ভুয়া রিপোর্ট প্রদান, লাইসেন্সের মেয়াদ না থাকাসহ নানা অনিয়মের অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় রিজেন্ট হাসপাতালের উত্তরা ও মিরপুর শাখা বন্ধের নির্দেশ দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদফতর। আজ মঙ্গলবার স্বাস্থ্য অধিদফতরের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ নির্দেশনার কথা জানানো হয়েছে।

করোনা সংক্রমণ শুরুর পরপরই গত মার্চে রিজেন্ট হাসপাতালকে কোভিড-১৯ রোগীদের চিকিৎসার জন্য নির্দিষ্ট করেছিল স্বাস্থ্য অধিদফতর। কিন্তু করোনা পরীক্ষার জাল সনদ তৈরি ও বিক্রির অভিযোগ পেয়ে সোমবার উত্তরায় রিজেন্ট হাসপাতাল ও রিজেন্ট গ্রুপের প্রধান কার্যালয়ে অভিযান চালায় র‌্যাব। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারোয়ার আলমের নেতৃত্বে অভিযানে র‌্যাব করোনার ভুয়া রিপোর্ট দেয়ার প্রমাণ পায়। এছাড়া হাসপাতালটির লাইসেন্সের মেয়াদ ৬ বছর আগেই শেষ হয়ে যাওয়ার প্রমাণ পেয়েছে র‌্যাব। কোভিড-১৯ ডেডিকেটেড হওয়ায় রোগীদের কাছ থেকে টাকা না নেয়ার কথা থাকলেও হাসপাতালটির বিরুদ্ধে করোনা টেস্ট ও ভর্তি রোগীদের কাছ থেকে বিপুল পরিমাণ টাকা নেয়ারও অভিযোগ রয়েছে।

রিজেন্টের দুই হাসপাতাল বন্ধের সিদ্ধান্ত জানিয়ে বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, অনুমোদন না থাকা সত্ত্বেও আরটি-পিসিআর পরীক্ষার নামে ভুয়া রিপোর্ট দিয়ে টাকা হাতিয়ে নেয়া, তাগিদ দেয়া সত্ত্বেও লাইসেন্স নবায়ন না করাসহ আরও অনিয়ম তারা করেছে বলে প্রমাণিত হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, অনিয়মের অভিযোগের সত্যতা পাওয়ায় মেডিকেল প্র্যাক্টিস অ্যান্ড প্রাইভেট ক্লিনিক অ্যান্ড ল্যাবটরেটরি রেগুলেশন অর্ডিন্যান্স অনুযায়ী ওই হাসপাতালের কার্যক্রম অবিলম্বে বন্ধের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার বিকাল ৪টার দিকে গণমাধ্যমকে র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারোয়ার আলম বলেন, রিজেন্ট গ্রুপের প্রধান কার্যালয়ে অভিযান চালিয়ে সেখানেও অনুমোদনহীন টেস্ট কিট ও বেশ কিছু ভুয়া রিপোর্ট পাওয়া গেছে। এজন্য রিজেন্ট হাসপাতাল ও রিজেন্ট গ্রুপের প্রধান কার্যালয় সিলগালা করা হয়েছে। এবং হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রোগীদের কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে।

র‌্যাব-১-এর অধিনায়ক লে. কর্নেল শফিউল্লাহ বুলবুল গণমাধ্যমকে বলেন, আমরা হাসপাতালটির মিরপুর ও উত্তরা শাখায় অভিযান চালিয়েছি। উত্তরার ১১ নম্বর সেক্টরে হাসপাতালটির কাছের একটি ভবনের দ্বিতীয় ও তৃতীয় তলায় তাদের কার্যালয়। সেখান থেকে কিছু ডকুমেন্টস উদ্ধার করা হয়েছে। হাসপাতালটির লাইসেন্সের মেয়াদ নেই। এ ছাড়া টেস্ট না করে করোনা রোগীদের পজিটিভ ও নেগেটিভ রিপোর্ট দেয়া হতো।

এসব অনিয়মের সঙ্গে হাসপাতালটির চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সাহেদই জড়িত বলে জানান র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারোয়ার আলম। তিনি বলেন, চেয়ারম্যান নিজেই এসব ডিল করেছেন। হাসপাতালটির চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মাসুদসহ ১৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

আক্কেলপুরের ওসি প্রত্যাহার, সরকারী কাজে বাধা দেয়ায় ৪ যুবলীগ নেতা গ্রেফতার
                                  

মিলন রায়হান, জয়পুরহাট: নানা অনিয়ম, দুর্নীতি ও বিভিন্ন অভিযোগে জয়পুরহাটের আক্কেলপুর থানার অফিসার ইনর্চাজ আবু ওবায়েদকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। শুক্রবার রাতে তাকে থানা থেকে প্রত্যাহার করে পুলিশ লাইনসে সংযুক্ত করা হয়। পুলিশের তদন্ত ও সরকারি কাজে বাঁধা দেওয়া ও স্বাক্ষীদের ভয়ভীতি দেখানোয় ইউনিয়ন যুবলীগের আহবায়কসহ চার যুবলীগ নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

অভিযোগ ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, আক্কেলপুর উপজেলার তিলকপুর ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য সিরাজুল ইসলাম গত ৩০ শে জুন মৌখিকভাবে আক্কেলপুর থানার অফিসার ইনর্চাজ আবু ওবায়েদ এর বিরুদ্ধে নানা অনিয়ম, ঘুষ, মাদক সংশ্লিষ্টতা, সাধারণ মানুষকে হয়রানী ও ভয়ভীতি দেখানোর ব্যাপারে জয়পুরহাট পুলিশ সুপারের নিকট অভিযোগ করেন। পরে তিনি গত ১ জুলাই জয়পুরহাট পুলিশ সুপার বরাবর লিখিত অভিযোগ করেন। এ ব্যাপারে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সাজ্জাদ হোসেন ও সহকারী পুলিশ সুপার আব্দুস সালাম, ডিএসবি ইন্সপেক্টর কাওসার আলীসহ তিন সদস্যের কমিটি গঠন করে দেন পুলিশ সুপার। শুক্রবার সকাল ১০টায় তদন্ত টিম তিলকপুর ইউনিয়ন পরিষদে যায়। তদন্ত চলাকালে তিলকপুর ইউনিয়ন যুবলীগের আহবায়ক মেহেদী হাসান দিপু, যুগ্ম আহবায়ক দেলোয়ার হোসেন, তাদের সহযোগী আরিফুল ইসলাম মানিক, রেজাউল করিম মানিকসহ চার নেতাকর্মীকে পুলিশের তদন্ত কাজে বাঁধা ও স্বাক্ষীদের ভয়ভীতি দেখানোর সময় তদন্তস্থল থেকে গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে আসা হয়। পরে তাদেরকে সরকারি ও তদন্ত কাজে বাঁধা, স্বাক্ষীদের ভয়ভীতি দেখানোয় মামলা দিয়ে শনিবারে আদালতে প্রেরণ করা হয়।

এ ব্যাপারে অভিযোগকারী ও তিলকপুর ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য সিরাজুল ইসলাম মুঠোফোনে বলেন, আক্কেলপুর থানার অফিসার ইনর্চাজ আবু ওবায়েদ ঘুষ, দুর্নীতি, মাদক সংশ্লিষ্টতা, সাধারণ মানুষকে হয়রানী ও ভয়ভীতি ব্যাপারে জয়পুরহাট পুলিশ সুপার বরাবর মৌখিক ও লিখিত অভিযোগ করার পর শুক্রবার ১২টার দিকে তদন্ত চলাকালে ওসির পক্ষ হয়ে স্থানীয় যুবলীগের নেতারা স্বাক্ষীদের ভয়ভীতি ও আমাকে নানা রকম হুমকি দেয়। তাৎক্ষণিক তদন্ত কর্মকর্তারা তাদের চার জনকে গ্রেফতার করে। আমি এখন চরম আতঙ্কের মধ্যে আছি। তাদের দলবল বাহিনী যে কোন মুর্হূতে আমার ক্ষতি সাধন করতে পারে।  এদিকে গ্রেফতারকৃত ৪ জন ইউনিয়ন যুবলীগের নেতাকর্মী বলে নিশ্চিত করেছেন জেলা যুবলীগের সভাপতি সুমন কুমার সাহা।

এ ব্যাপারে আক্কেলপুর থানা অফিসার ইনর্চাজ (ভারপ্রাপ্ত) সেলিম মালিক বলেন, বেআইনীভাবে দলবদ্ধ হয়ে পথরোধ করে সরকারি কাজে বাঁধা দান ও হুমকি প্রদানের অপরাধে তদন্তস্থল থেকে চার জনকে গ্রেফতার করা হয়। পরে শুক্রবার রাতে তাদের বিরুদ্ধে তদন্তকারী কর্মকর্তা কাওসার আলী বাদী হয়ে ৪ জনসহ অজ্ঞাত আরও ৫/৭ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন এবং শনিবার তাদের আদালতে পাঠানো হয়েছে।

আক্কেলপুর থানার অফিসার ইনর্চাজ আবু ওবায়েদকে প্রত্যাহারের বিষয়টি নিশ্চিত করে পুলিশ সুপার মোহাম্মদ সালাম কবির বলেন। তদন্তস্থলে সরকারি কাজে বাঁধা ও স্বাক্ষীদের ভয়ভীতি দেখানোয় তাদেরকে গ্রেফতার করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। জয়পুরহাটের যে কোন পুলিশ যদি অন্যায়ের সাথে জরিত থাকেন অভিযোগ পেলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নওগাঁয় মাদকসহ সহ আটক ১
                                  

নওগাঁ প্রতিনিধি: নওগাঁর ধামইরহাটে ৩’শ পিস এ্যাম্পুল সহ শামীম হোসেন (২৫) নামে এক মাদক কারবারিকে আটক করেছে জেলা গোয়েন্দা শাখা (ডিবি) পুলিশ। বৃহস্পতিবার রাতে উপজেলার বড়থা বাজার এলাকা থেকে তাকে আটক করা হয়। আটককৃত শামীম ওই উপজেলার কানাই কাসিম্বী পূর্ব পাড়া গ্রামের আশরাফুল ইসলামের ছেলে।

ডিবি পুলিশ সূত্রে জানা যায়, জেলা ডিবি পুলিশের ওসি কে.এম শামসুদ্দিনের নেতৃত্বে এস.আই মোঃ মহসিন রেজা সঙ্গীয় ফোর্সসহ গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বৃহস্পতিবার রাত পৌনে ১১টার দিকে  ধামইরহাট উপজেলার বড়থা বাজার এলাকায় মাদক বিরোধী অভিযান চালিয়ে তাকে আটক করা হয়। এসময় তার কাছ থেকে ৩’শ পিস আমদানী নিষিদ্ধ ভারতীয় এ্যাম্পুল ইনজেকশন উদ্ধার করা হয়। পরবর্তীতে তার বিরুদ্ধে নওগাঁর ধামইরহাট থানায় মাদক আইনে মামলা দায়ের হয়েছে।

ঈশ্বরদীতে নারী ছিনতাইকারীদের কবলে শিক্ষিকা
                                  

ঈশ্বরদী (পাবনা) প্রতিনিধি: ঈশ্বরদী পৌর সুপার মার্কেটের নিকটে আয়েশা সিদ্দিকা নামে এক শিক্ষিকার ব্যাগ থেকে অভিনব কায়দায় ১ লাখ ৮৪ হাজার  টাকা ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটেছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে বোরকা পরিহিত একদল ছিনতাইকারী এই টাকা ছিনিয়ে নিয়েছে।
 
জানা যায়, ঈশ্বরদী পৌর এলাকার মধ্য অরনখোলা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আয়েশা সিদ্দিকা বিদ্যালয় সংস্কার কাজের জন্য সোনালী ব্যাংক ঈশ্বরদী বাজার শাখা থেকে ১ লাখ ৮৪ হাজার টাকা উত্তোলন করেন। ব্যাংক থেকে বের হয়ে পৌর সুপার মার্কেটের সামনে ৪/৫ জন বোরকা পরা মহিলা তাকে ঘিরে ধরে এবং নানাধরণের কথাবলার এক পর্যায়ে শিক্ষিকার ভ্যানেটি ব্যাগে থাকা টাকা নিয়ে পালিয়ে যায়। বিষয়টি বোঝার পর শিক্ষিকার চিৎকার শুনে লোক জড় হলেও ছিনতাইকারীরা নিরাপদে সটকে পড়তে সক্ষম হয়। প্রকাশ্য দিবালোকে বাজারের মধ্যে এমন দুর্র্ধষ ছিনতাইয়ের ঘটনায় সর্বমহলে আতংকের সৃষ্টি হয়েছে। উল্লেখ্য যে কয়েকদিন পূর্বেও এমন ঘটনা ঘটে।

কানাইঘাটের মোস্তাক আহমদ পলাশকে জরিমানা করলো হাইকোর্ট
                                  

কানাইঘাট প্রতিনিধি: মিথ্যা তথ্য উপস্থাপন ও আদালত অবমাননার অপরাধে সিলেটের কানাইঘাট উপজেলার মোস্তাক আহমদ পলাশকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। একই সাথে তার পক্ষে সাফাই গাওয়া ব্যারিস্টারকেও ২ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। গতকাল মঙ্গলবার (৩০ জুন) বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বেঞ্চের বিচারপতি এনায়েতুর রহিম এ আদেশ দেন।
 
সুপ্রিম কোর্টে আইনজীবী রাফসান আল আলভি সাংবাদিকদের জানান, সিলেট জেলার কানাইঘাট উপজেলার লোভাছড়া পাথর কোয়ারীর ইজারা নিয়েছিলেন মোস্তাক আহমদ পলাশ। তার ইজারার মেয়াদ শেষ হয় গত ১৩ এপ্রিল। করোনা মহামারীর কারণে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে স্টকে থাকা পাথর সরানো সম্ভব হয়নি মর্মে সময় চেয়ে আদালতে আবেদন করেন পলাশ। তার আবেদনের প্রেক্ষিতে আদালত ১৫ জুন পর্যন্ত সময় দেন। নির্ধারিত সময় শেষ হওয়ার পর তিনি আবারো সময় বৃদ্ধির আবেদন করেন। কিন্তু আবেদনের সময় তিনি মিথ্যা তথ্য দিয়েছেন যা মঙ্গলবার আদালতে প্রমাণিত হয় আদালত তাকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করেন।

ধর্ষণের ভিডিও ফেসবুকে ভাইরাল, ধর্ষক আটক
                                  

দিনাজপুর প্রতিনিধি: দিনাজপুর জেলার ফুলবাড়ী উপজেলায় নবম শ্রেণী পড়–য়া এক ছাত্রীকে ধর্ষণের ভিডিও ফেসবুকে আপলোড করার পর ধর্ষক সিরাজুল ইসলামকে আটক করেছে পুলিশ। ভোররাতে আটকের পর আজ শনিবার তাকে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।

জানা যায়, পারিবারিক সম্পর্কের সূত্র ধরে মুদি দোকানি সিরাজ ওই বাড়ীতে যাতায়ত করতো। এক পর্যয়ে ওই ছাত্রীকে একা পেয়ে ধর্ষণ করে এবং ভিডিও ধারণ করে রাখে। পরে ধর্ষণের ভিডিও দেখিয়ে ভাইরাল করে দেয়ার ভয় দেখিয়ে ওই ছাত্রীকে আবারো ধর্ষণ করে। পরে আবারো ধর্ষণ করতে চাইলে ওই ছাত্রী বাধা দিলে ক্ষিপ্ত হয়ে ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছেড়ে দেয় ধর্ষক সিরাজু ইসলাম(৩০)।

আটক সিরাজ ফুলবাড়ী উপজেলার ৭ নম্বর শিবনগর ইউনিয়নের লক্ষণপুর পাঠকপাড়া গ্রামের আফজাল মন্ডলের ছেলে।

পুলিশ জানায়, লক্ষণপুর পাঠকপাড়ার নবম শ্রেণির এক ছাত্রীর বাড়িতে যাতায়াত ছিলো সিরাজুল ইসলামের। সুযোগ বুঝে ওই ছাত্রীকে ধর্ষণ করে সে এবং ভিডিও ধারণ করে রাখে। ওই ভিডিও দেখিয়ে সিরাজুল ইসলাম আবারো ধর্ষণ করে। তৃতীয়বার ধর্ষণ করতে গেলে মেয়েটি বাধা দেয়। এতে সিরাজ ক্ষিপ্ত হয়ে ধর্ষণের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছেড়ে দেয়। ভিডিওটি দ্রুত এলাকায় ছড়িয়ে পড়ে।

ওই ছাত্রীর মা এ ব্যাপারে শুক্রবার রাতে ফুলবাড়ী থানা পুলিশকে অবগত করেন। ফুলবাড়ী থানা পুলিশ ভোররাতে অভিযান চালিয়ে ধর্ষক সিরাজুল ইসলামকে গ্রেপ্তার করে। পরে শনিবার সকালে মেয়ের মা বাদী হয়ে ফুলবাড়ী থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন।

ফুলবাড়ী থানার ওসি মো. ফখরুল ইসলাম জানান, শনিবার গ্রেপ্তারকৃত সিরাজুল ইসলামকে আদালতে পাঠানো হয়। বিচারক জামিন নামঞ্জুর করে জেলহাজতে প্রেরণ করেছেন। ভিকটিমকে পরীক্ষার জন্য দিনাজপুরের এম আব্দুর রহিম মেডিক্যাল কলেজের ফরেনসিক বিভাগে পাঠানো হবে।


   Page 1 of 84
     আইন - অপরাধ
সাহেদের তথ্য চেয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ও বাংলাদেশ ব্যাংকে দুদকের চিঠি
.............................................................................................
ডিবিতে হস্তান্তর ডা. সাবরিনার মামলা
.............................................................................................
২ মামলায় সাহেদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি
.............................................................................................
ফরিদপুরের রুবেল-বরকত আরও ২ দিনের রিমান্ডে
.............................................................................................
৩ দিনের রিমান্ডে ‘প্রতারক’ ডা. সাবরিনা
.............................................................................................
দুই প্রতারকের ব্যাংক হিসাব জব্দ
.............................................................................................
রূপপুর পারমাণবিকের ভূয়া গেটপাস তৈরীকারী ২ প্রতারক গ্রেফতার
.............................................................................................
ডা. সাবরিনার রিমান্ড চাইবে পুলিশ
.............................................................................................
নিম্ন আদালতের সব কোর্টে আত্মসমর্পণ করা যাবে
.............................................................................................
প্রতারক সাহেদের প্রধান সহযোগী গ্রেফতার
.............................................................................................
রিজেন্ট হাসপাতাল বন্ধ করে দিল স্বাস্থ্য অধিদপ্তর
.............................................................................................
আক্কেলপুরের ওসি প্রত্যাহার, সরকারী কাজে বাধা দেয়ায় ৪ যুবলীগ নেতা গ্রেফতার
.............................................................................................
নওগাঁয় মাদকসহ সহ আটক ১
.............................................................................................
ঈশ্বরদীতে নারী ছিনতাইকারীদের কবলে শিক্ষিকা
.............................................................................................
কানাইঘাটের মোস্তাক আহমদ পলাশকে জরিমানা করলো হাইকোর্ট
.............................................................................................
ধর্ষণের ভিডিও ফেসবুকে ভাইরাল, ধর্ষক আটক
.............................................................................................
ঘুষ লেনদেনের সময় ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা হিসাবরক্ষণ অফিসের অডিটরসহ ৪ জন আটক
.............................................................................................
লালমনিরহাটের বিচারকের মৃত্যুতে প্রধান বিচারপতির শোক
.............................................................................................
আশুলিয়ায় ঘুমের ঔষুধ খাইয়ে শিশু ধর্ষণ, অভিযুক্ত গ্রেফতার
.............................................................................................
ঝিনাইদহে অপহৃত গৃহবধু উদ্ধার, অপহরণকারীকে দিনাজপুর থেকে গ্রেফতার
.............................................................................................
রায়পুরায় স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ, সহপাঠীকে পুলিশে সোপর্দ
.............................................................................................
ইয়াবার মামলায় পুলিশের এসআই রিমান্ডে
.............................................................................................
মীর কাসেমের শত শত কোটি টাকার সম্পত্তি হাতিয়ে নিয়েছেন পাপুল!
.............................................................................................
জয়পুরহাটে নাতনীকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে দাদা গ্রেফতার
.............................................................................................
দিনাজপুরে ছাত্রদল নেতা হত্যায় স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা আবারও ৫ দিনের রিমান্ডে
.............................................................................................
রাজশাহীর বাঘায় জাল সনদ ব্যবহার, দলিল লেখকের লাইসেন্স বাতিল
.............................................................................................
এবার এমপি পাপলুর স্ত্রীসহ চার জনের দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা জারি
.............................................................................................
১৩ বিচারকসহ ২৬ জন করোনায় আক্রান্ত, উপসর্গ নিয়ে আইসোলেশনে ৪ বিচারক
.............................................................................................
স্কুলছাত্রীর আপত্তিকর ছবি ফেসবুকে, ছাত্রীর আত্মহত্যার চেষ্টা
.............................................................................................
চিকিৎসা সেবা নিশ্চিতে হাইকোর্টের নির্দেশনা স্থগিত চেয়ে আবেদন
.............................................................................................
নিম্ন আদালতের ১৩ বিচারক করোনায় আক্রান্ত
.............................................................................................
মাদারীপুরে মানবপাচারকারী চক্রের সদস্য জাকির র‌্যাবের হাতে আটক
.............................................................................................
১৪ ঠিকাদারের বিরুদ্ধে এ্যাকশনে যাচ্ছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়
.............................................................................................
বগুড়ায় যুবলীগ নেতাকে দিন দুপুরে জবাই করে হত্যা
.............................................................................................
ঝিনাইদহে করোনার মধ্যে ভুতুড়ে বিদ্যুৎ বিল, ভোগান্তিতে গ্রাহক
.............................................................................................
জয়পুরহাটে ৩দিন আটকে রেখে গৃহবধূকে ধর্ষণের অভিযোগ
.............................................................................................
রাজশাহীতে প্রতারণার মাধ্যমে সৌদি রিয়াল বিক্রির অভিযোগে আটক ৩
.............................................................................................
হাবিপ্রবির ২ ছাত্র হত্যায় স্বেচ্ছাসেবকলীগ সভাপতি ও ছাত্রলীগ সম্পাদক গ্রেফতার
.............................................................................................
মোবাইল ব্যাংকিং প্রতারক চক্রের ৭ সদস্যকে আটক করেছে র‌্যাব
.............................................................................................
বরগুনায় গভীর রাতে চাল চুরির সময় খাদ্য পরিদর্শকসহ ৭ জন আটক, মামলা দায়ের
.............................................................................................
দেশের হাসপাতালে আইসিইউ’র সংখ্যা জানতে চায় হাইকোর্ট
.............................................................................................
নওগাঁয় সরকারি ১৮০ বস্তা গমসহ ট্রাক জব্দ
.............................................................................................
নওগাঁয় শিশু যৌন নিপীড়নকারী আটক
.............................................................................................
ভুয়া নিউজ শেয়ার করায় নারী গ্রেপ্তার
.............................................................................................
বাসভাড়া বৃদ্ধির প্রজ্ঞাপন স্থগিত চেয়ে নোটিশ
.............................................................................................
কিশোরগঞ্জে জিনের বাদশা আটক!
.............................................................................................
উত্তরা থেকে নকল এন-৯৫ মাস্ক উদ্ধার করলো র‌্যাব
.............................................................................................
নড়াইলে ত্রাণের চাল চুরির অভিযোগে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মামলা
.............................................................................................
বরিশালে ত্রাণের চাল কালোবাজারে, স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা আটক
.............................................................................................
বঙ্গবন্ধুর খুনি মাজেদের মৃত্যু পরোয়ানা জারি
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

সম্পাদক ও প্রকাশক : মোহাম্মদ আখলাকুল আম্বিয়া
নির্বাহী সম্পাদক: মাে: মাহবুবুল আম্বিয়া
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক: প্রদ্যুৎ কুমার তালুকদার

সম্পাদকীয় ও বাণিজ্যিক কার্যালয়: স্বাধীনতা ভবন (৩য় তলা), ৮৮ মতিঝিল বাণিজ্যিক এলাকা, ঢাকা-১০০০। Editorial & Commercial Office: Swadhinota Bhaban (2nd Floor), 88 Motijheel, Dhaka-1000.
সম্পাদক কর্তৃক রঙতুলি প্রিন্টার্স ১৯৩/ডি, মমতাজ ম্যানশন, ফকিরাপুল কালভার্ট রোড, মতিঝিল, ঢাকা-১০০০ থেকে মুদ্রিত ও প্রকাশিত ।
ফোন : ০২-৯৫৫২২৯১ মোবাইল: ০১৬৭০৬৬১৩৭৭

Phone: 02-9552291 Mobile: +8801670 661377
ই-মেইল : dailyswadhinbangla@gmail.com , editor@dailyswadhinbangla.com, news@dailyswadhinbangla.com

 

    2015 @ All Right Reserved By dailyswadhinbangla.com

Developed By: Nytasoft