বুধবার, ৮ এপ্রিল 2020 | বাংলার জন্য ক্লিক করুন
  
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   অর্থ-বাণিজ্য -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
পোশাক শ্রমিকরা চলতি মাসের বেতন ৩০ এপ্রিলেই পাবেন

স্টাফ রিপোর্টার : করোনাভাইরাসের কারণে সৃষ্ট পরিস্থিতিতে পোশাক শ্রমিকদের চলতি মাসের বেতন এপ্রিলের ৩০ তারিখেই দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির।

তিনি বলেন,  রফতানিমুখী শিল্প প্রতিষ্ঠানের শ্রমিক কর্মচারীদের বেতনের জন্য ৫ হাজার কোটি টাকার প্যাকেজ ঘোষণা দেওয়া হয়েছিল। সেটা দিয়ে এপ্রিল, মে ও জুন মাসের বেতন দেওয়া হবে। সেটির সম্পূর্ণ গাইডলাইন বাংলাদেশ ব্যাংক ইস্যু করেছে। আশা করছি এপ্রিলের বেতন চলতি মাসের শেষ তারিখেই দিতে পারবো। আমি মনে করি প্রধানমন্ত্রী যেসব প্যাকেজের ঘোষণা দিয়েছেন এগুলো বাস্তবায়ন করলে অর্থনীতি ঘুরে দাঁড়াবে। আমরা কাক্সিক্ষত অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির কাছাকাছি পৌঁছাতে পারবো।

রোববার প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবন এক সংবাদ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে উপস্থিতি থেকে তিনি এ কথা বলেন।

এর আগে রফতানিমুখী শিল্পপ্রতিষ্ঠানের জন্য পাঁচ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গত বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ ব্যাংকের ব্যাংকিং প্রবিধি ও নীতি বিভাগ এ-সংক্রান্ত এক সার্কুলার জারি করেছে।

সার্কুলার অনুযায়ী, এই প্যাকেজ থেকে বিনা সুদে ঋণ পাবে উৎপাদনের ন্যূনতম ৮০ শতাংশ পণ্য রফতানি করছে-এমন সচল প্রতিষ্ঠান। ঋণের অর্থ দিয়ে কেবল শ্রমিক-কর্মচারীদের এপ্রিল, মে এবং জুন এ তিন মাসের বেতন-ভাতা পরিশোধ করা যাবে। সুদবিহীন এ ঋণে সর্বোচ্চ ২ শতাংশ হারে সার্ভিস চার্জ নিতে পারবে ব্যাংকগুলো।

সংবাদ সম্মেলনে ফজলে কবির বলেন, করোনাভাইরাসের সম্ভাব্য বিরূপ প্রভাব উত্তরণে বাংলাদেশ ব্যাংক পর্যাপ্ত তারল্যের জোগান স্বাভাবিক রাখাকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়েছে। এই তারল্য অর্থনীতির বিভিন্ন খাত উপখাতে সুষ্ঠুভাবে সঞ্চালন নিশ্চিত করবে। বাংলাদেশ ব্যাংক বেশ কয়েকটি পুনঃঅর্থায়নের তহবিলের আকার বৃদ্ধি করেছে। ১ এপ্রিল থেকে তফসিলি ব্যাংকে ক্যাশ রিসার্ভ রেশিও হার (সিআরআর) হ্রাস করে, সাপ্তাহিক গড় ভিত্তিতে ৫ শতাংশ করা হয়েছে। আগে তা ৫.৫ শতাংশ ছিল। এর ফলে ব্যাংকসমূহ অতিরিক্ত ৬ হাজার ৫০০ কোটি টাকা তাদের হাতে জমা থাকবে। যা দিয়ে তারা তারল্য সংকট মেটাবে। ব্যাংকিং খাতে পর্যাপ্ত তারল্য নিশ্চিত করতে বাংলাদেশ ব্যাংকের সুদ হার বার্ষিক শতকরা ৬ ভাগ থেকে ২৫ বেসিস পয়েন্ট কমিয়েছে। যার ফলে ব্যাংকের তারল্য জোগাড় করতে কম ব্যয় হবে।

স্বাধারণ ছুটি চলাকালীন জনগণের নগদ অর্থের চাহিদা মেটানোর জন্য সীমিত আকারে ব্যাংক খোলা রাখা হয়েছে বলেও জানান তিনি। তিনি বলেন, ক্রেডিক কার্ডে মে পর্যন্ত কোনো ধরনের জরিমানা আরোপ না করার ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।

পোশাক শ্রমিকরা চলতি মাসের বেতন ৩০ এপ্রিলেই পাবেন
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : করোনাভাইরাসের কারণে সৃষ্ট পরিস্থিতিতে পোশাক শ্রমিকদের চলতি মাসের বেতন এপ্রিলের ৩০ তারিখেই দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির।

তিনি বলেন,  রফতানিমুখী শিল্প প্রতিষ্ঠানের শ্রমিক কর্মচারীদের বেতনের জন্য ৫ হাজার কোটি টাকার প্যাকেজ ঘোষণা দেওয়া হয়েছিল। সেটা দিয়ে এপ্রিল, মে ও জুন মাসের বেতন দেওয়া হবে। সেটির সম্পূর্ণ গাইডলাইন বাংলাদেশ ব্যাংক ইস্যু করেছে। আশা করছি এপ্রিলের বেতন চলতি মাসের শেষ তারিখেই দিতে পারবো। আমি মনে করি প্রধানমন্ত্রী যেসব প্যাকেজের ঘোষণা দিয়েছেন এগুলো বাস্তবায়ন করলে অর্থনীতি ঘুরে দাঁড়াবে। আমরা কাক্সিক্ষত অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির কাছাকাছি পৌঁছাতে পারবো।

রোববার প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবন এক সংবাদ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে উপস্থিতি থেকে তিনি এ কথা বলেন।

এর আগে রফতানিমুখী শিল্পপ্রতিষ্ঠানের জন্য পাঁচ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গত বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ ব্যাংকের ব্যাংকিং প্রবিধি ও নীতি বিভাগ এ-সংক্রান্ত এক সার্কুলার জারি করেছে।

সার্কুলার অনুযায়ী, এই প্যাকেজ থেকে বিনা সুদে ঋণ পাবে উৎপাদনের ন্যূনতম ৮০ শতাংশ পণ্য রফতানি করছে-এমন সচল প্রতিষ্ঠান। ঋণের অর্থ দিয়ে কেবল শ্রমিক-কর্মচারীদের এপ্রিল, মে এবং জুন এ তিন মাসের বেতন-ভাতা পরিশোধ করা যাবে। সুদবিহীন এ ঋণে সর্বোচ্চ ২ শতাংশ হারে সার্ভিস চার্জ নিতে পারবে ব্যাংকগুলো।

সংবাদ সম্মেলনে ফজলে কবির বলেন, করোনাভাইরাসের সম্ভাব্য বিরূপ প্রভাব উত্তরণে বাংলাদেশ ব্যাংক পর্যাপ্ত তারল্যের জোগান স্বাভাবিক রাখাকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়েছে। এই তারল্য অর্থনীতির বিভিন্ন খাত উপখাতে সুষ্ঠুভাবে সঞ্চালন নিশ্চিত করবে। বাংলাদেশ ব্যাংক বেশ কয়েকটি পুনঃঅর্থায়নের তহবিলের আকার বৃদ্ধি করেছে। ১ এপ্রিল থেকে তফসিলি ব্যাংকে ক্যাশ রিসার্ভ রেশিও হার (সিআরআর) হ্রাস করে, সাপ্তাহিক গড় ভিত্তিতে ৫ শতাংশ করা হয়েছে। আগে তা ৫.৫ শতাংশ ছিল। এর ফলে ব্যাংকসমূহ অতিরিক্ত ৬ হাজার ৫০০ কোটি টাকা তাদের হাতে জমা থাকবে। যা দিয়ে তারা তারল্য সংকট মেটাবে। ব্যাংকিং খাতে পর্যাপ্ত তারল্য নিশ্চিত করতে বাংলাদেশ ব্যাংকের সুদ হার বার্ষিক শতকরা ৬ ভাগ থেকে ২৫ বেসিস পয়েন্ট কমিয়েছে। যার ফলে ব্যাংকের তারল্য জোগাড় করতে কম ব্যয় হবে।

স্বাধারণ ছুটি চলাকালীন জনগণের নগদ অর্থের চাহিদা মেটানোর জন্য সীমিত আকারে ব্যাংক খোলা রাখা হয়েছে বলেও জানান তিনি। তিনি বলেন, ক্রেডিক কার্ডে মে পর্যন্ত কোনো ধরনের জরিমানা আরোপ না করার ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।

জুন পর্যন্ত ক্রেডিট কার্ডে জরিমানা নয়
                                  

অর্থ-বাণিজ্য ডেস্ক : প্রাণঘাতী নভেল করোনাভাইরাসের কারণে নির্ধারিত তারিখে ক্রেডিট কার্ডের বিল পরিশোধ করতে না পারলে জুন পর্যন্ত জরিমানা বা বাড়তি চার্জ না নিতে ব্যাংকগুলোকে নির্দেশনা দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

শনিবার বাংলাদেশ ব্যাংক এ-সংক্রান্ত সার্কুলার ব্যাংকগুলোতে পাঠিয়ে বলেছে, এরই মধ্যে কোনো ব্যাংক চার্জ আরোপ করে থাকলে গ্রাহককে তা ফেরত দিতে হবে।

এর আগে এক সার্কুলারে গাড়ি, বাড়ি, ব্যবসাসহ অন্য সব ঋণের মতো ক্রেডিট কার্ডের গ্রাহককেও আগামী জুন পর্যন্ত খেলাপি না করতে বলেছিল কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এখন একই সময় পর্যন্ত জরিমানা আদায় না করতে নির্দেশ দেয়া হলো।

প্রতিটি ব্যাংকের ক্রেডিট কার্ডে বিল পরিশোধের নির্দিষ্ট একটি সময়সীমা আছে। কোনো গ্রাহক ওই সময়ের মধ্যে ন্যূনতম বিল পরিশোধ না করলে তাকে নির্দিষ্ট অঙ্কের জরিমানা দিতে হয়। এছাড়া অপরিশোধিত বিলের ওপর নির্ধারিত হারে সুদ আরোপ করা হয়।

বাংলাদেশকে ১০০ মিলিয়ন ডলার দেওয়ার ঘোষণা বিশ্বব্যাংকের
                                  

স্বাধীন বাংলা ডেস্ক: প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসের রোগী শনাক্তকরণ, মহামারীকে প্রতিরোধ, কিভাবে তারা আক্রান্ত হয়েছেন, তার অনুসন্ধান, ডায়াগনস্টিক ল্যাবরেটরি, ব্যক্তিগত সুরক্ষাসামগ্রী ও নতুন আইসোলেশন ওয়ার্ড স্থাপনের জন্য বাংলাদেশকে ১০০ মিলিয়ন ডলার দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে বিশ^ব্যাংক। আজ এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বাংলাদেশ যাতে নিজেদের অর্থনৈতিক ক্ষত ও স্বাস্থ্যগত বিপর্যয় কাটিয়ে উঠতে পারে, সে জন্যই এই সহায়তা বলে জানিয়েছে বিশ্বব্যাংক।

বিশ^ব্যাংক জানিয়েছে- এই অর্থ সন্দেহজনক, সংক্রমণ হয়েছে, ঝুঁকিপূর্ণ জনসংখ্যা ও স্বাস্থ্য কর্মীদের পাশাপাশি সরকারি ও বেসরকরি পরিষেবা সরবরাহকারী এবং জাতীয় স্বাস্থ্য ব্যবস্থায় আক্রান্ত ব্যক্তিদের উন্নয়নে ব্যয় হবে।

বাংলাদেশ ও ভুটানের বিশ্বব্যাংকের কান্ট্রি ডিরেক্টর মের্সি টেম্বন বলেন, করোনা ভাইরাস প্রসারের বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য বিশ্বব্যাংক বাংলাদেশ সরকারের সঙ্গে নিবিড়ভাবে কাজ করছে। এই প্রকল্পটি করোনা মহামারীর প্রাদুর্ভাব জানতে বাংলাদেশের জাতীয় পরিকল্পনা বাস্তবায়নে সহায়তা করবে।

পাশাপাশি এটি নজরদারি এবং ডায়াগনস্টিক সিস্টেমগুলি রয়েছে কিনা তা নির্ধারণে গ্রুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। এছাড়া দেশের স্বাস্থ্যবিধি, ব্যক্তিগত সুরক্ষামূলক সরঞ্জাম, ভেন্টিলেটর এবং হাসপাতালে আইসোলেশন ইউনিট স্থাপনে জোরালো ভূমিকা রাখেতে সহায়তা করবে।

তিনি বলেন, ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলোতে করোনা ভাইরাস কঠিন আঘাত হানতে পারে। কাজেই চলমান সংকট উত্তরণে আঞ্চলিক ও দেশভিত্তিক সমাধানে জোর দেয়া হচ্ছে।

আল-আরাফাহ ইসলামী ব্যাংকে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি
                                  

আল-আরাফাহ ইসলামী ব্যাংক লিমিটেডে ‘ফিল্ড সুপারভাইজার’ পদে জনবল নিয়োগ দেওয়া হবে। আগ্রহীরা আগামী ০৮ এপ্রিল পর্যন্ত আবেদন করতে পারবেন।

প্রতিষ্ঠানের নাম: আল-আরাফাহ ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড

পদের নাম: ফিল্ড সুপারভাইজার
শিক্ষাগত যোগ্যতা: স্নাতক/সমমানসহ ন্যূনতম ৬ পয়েন্ট
দক্ষতা: কম্পিউটার পরিচালনায় পারদর্শী
অভিজ্ঞতা: ০১ বছর
বেতন: ১৮,১০০ টাকা

চাকরির ধরন: ফুল টাইম
প্রার্থীর ধরন: নারী-পুরুষ
বয়স: নির্ধারিত নয়
কর্মস্থল: যেকোনো স্থান

আবেদনের নিয়ম: আগ্রহীরা www.jagojobs.com/bank/119610 এর মাধ্যমে আবেদন করতে পারবেন।

করোনার মধ্যে সুসংবাদ জানালো এডিবি
                                  

স্বাধীন বাংলা: করোনা মহামারির মধ্যে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক-এডিবি বাংলাদেশের জন্য সুসংবাদ নিয়ে এসেছে। বিশ্ব অর্থনীতির এ নাজুক পরিস্থিতিতেও সারা এশিয়া মহাদেশে বাংলাদেশেই সর্বোচ্চ প্রবৃদ্ধি হবে বলে জানিয়েছে সংস্থাটি। শুক্রবার এডিবির এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট আউটলুক ২০২০ এ পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, চলতি অর্থবছরে মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) প্রবৃদ্ধি কিছুটা কমে ৭.৮ শতাংশ হতে পারে।

বিশ্বের অধিকাংশ দেশেই বন্ধ রয়েছে শিল্পকারখানার উৎপাদন। বন্ধ রয়েছে এক দেশের সঙ্গে আরেক দেশের আমদানি-রফতানি। বাংলাদেশেও সরকারি-বেসরকারি সব অফিস-আদালত বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। ক্রমেই দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। এখন পর্যন্ত বাংলাদেশ করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ৬১ জন। মারা গেছেন ৬ জন। এর মধ্যে এডিবি’র এই সুসংবাদ।

এডিবি বলেছে, প্রবৃদ্ধি কমলেও এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে সর্বোচ্চ প্রবৃদ্ধি হবে বাংলাদেশে। এছাড়া আগামী অর্থবছরে প্রবৃদ্ধি আবার ৮ শতাংশ হবে। এদিকে এশিয়ার গড় প্রবৃদ্ধিও কমে যেতে পারে বলে জানিয়েছে এডিবি। সংস্থাটি বলছে, ২০২০ সালে এশিয়ার গড় প্রবৃদ্ধি হবে ২.২ শতাংশ। গত বছর গড়ে ৫.২ শতাংশ প্রবৃদ্ধি হয়েছিল এশিয়ায়।

এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে চীন ২.৩ শতাংশ, ভারতে ৪ শতাংশ, ভিয়েতনামে ৪.৮ শতাংশ প্রবৃদ্ধি হতে পারে বলে পূর্বাভাস দিয়েছে এডিবি।

চলতি অর্থবছরে ৮.২ শতাংশ প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা ঠিক করেছিল সরকার। গত অর্থবছরে ৮.১৩ শতাংশ প্রবৃদ্ধি হয়েছিল।

ছুটিতে ব্যাংক লেনদেনের সময় বাড়ল
                                  

স্বাধীন বাংলা রিপোর্ট : করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে সাধারণ ছুটির বর্ধিত দিনে ব্যাংক লেনদেনের সময় বাড়াল বাংলাদেশ ব্যাংক।

আগামী রোববার থেকে ব্যাংকগুলোতে সকাল ১০টা থেকে বেলা ১টা পর্যন্ত লেনদেন চলবে। আর ব্যাংক খোলা থাকবে বেলা ৩টা পর্যন্ত।

করোনাভাইরাসের ব্যাপক সংক্রমণ ঠেকাতে গত ২৬ মার্চ থেকে সারাদেশে সব ধরনের অফিস আদালতে ছুটি চলছে। যানবাহন চলাচল বন্ধ রেখে সবাইকে যার যার বাড়িতে থাকার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

তবে ছুটির মধ্যেও জরুরি সেবাগুলো চালু রাখার নির্দেশনা দিয়েছে সরকার। এর অংশ হিসেবে ব্যাংকের লেনদেন এতদিন সীমিত আকারে চালু রাখা হয়েছে।

ছুটি শুরুর পর গত এক সপ্তাহ ধরে ব্যাংকগুলোতে সকাল ১০টা থেকে দুপর ১২টা পর্যন্ত লেনদেন হয়েছে; ব্যাংক খোলা রাখা হয়েছে বেলা দেড়টা পর্যন্ত।

শুরুতে সরকার ৪ এপ্রিল পর্যন্ত এই ছুটি ঘোষণা করলেও পরে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে ছুটির মেয়াদ বাড়ানো হয়েছে ৯ এপ্রিল পর্যন্ত। তার সঙ্গে পরের দুই দিন এমনিতেই সাপ্তাহিক ছুটি।

বাংলাদেশ ব্যাংকের এক সার্কুলারে বলা হয়, গ্রাহকদের সুবিধার বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে আগামী সপ্তাহে ব্যাংক লেনদেন হবে সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত।

করোনার প্রভাবে দরিদ্র হবে এশিয়ার আড়াই কোটি মানুষ: বিশ্বব্যাংক
                                  

স্বাধীন বাংলা ডেস্ক : প্রাণঘাতি করোনাভাইরাসের থাবায় স্তম্ভিত হয়ে পড়েছে গোটা বিশ্ব। মানব সভ্যতায় চরম আঘাত হেনেছে এ ভাইরাস। করোনায় বিশ্ব অর্থনীতিতে মারাত্মক নেতিবাচক   প্রভাব পড়বে বলে জানিয়েছে বিশ্ব ব্যাংক। বিশ্ব ব্যাংকের এক প্রতিবেদনে বলছে, করোনার কারণে অর্থনৈতিক মন্দা থেকে নিষ্কৃতি পাবে না এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের প্রায় ২৪ মিলিয়ন (দুই কোটি ৪০ লাখ) মানুষ। তারা দরিদ্রতার শিকার হবে। খবর বিবিসি ওব্লুমবার্গের।

বিশ্ব ব্যাংকের সর্বশেষ প্রতিবেদনের উদ্ধৃতি দিয়ে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি মঙ্গলবার এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে।

বিশ্ব ব্যাংক তার রিপোর্টে বলেছে, মহামারি করোনাভাইরাসের কারণে অর্থনীতির ওপর যে প্রভাব পড়েছে, তাতে করে সব দেশই তাৎপর্যপূর্ণভাবে আক্রান্ত হবে। এতে করে যেসব পরিবারের জীবিকা শিল্প-কারখানার ওপর নির্ভরশীল, তারা চরম ঝুঁকিতে রয়েছে। এটা তাদের জন্য অশনিসঙ্কেত।

বিশ্ব ব্যাংক নির্দিষ্ট করে দিয়েছে বলেছে, থাইল্যান্ডের পর্যটনখাত এবং ভিয়েতনাম, কম্বোডিয়াসহ প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের উৎপাদনমুখী প্রতিষ্ঠানগুলোতে মহামারি করোনাভাইরাসের প্রভাব পড়বে।

বিশ্বের শীর্ষ এই আর্থিক প্রতিষ্ঠানের সংখ্যানুযায়ী, তাদের দৈনিক আয় সাড়ে পাঁচ মার্কিন ডলারের নিচে তারাই দরিদ্র।

করোনার করুণ দৃশ্যপট তুলে ধরে বিশ্ব ব্যাংকের আশঙ্কা, বিশ্বের প্রায় ৩৫ মিলিয়ন (সাড়ে তিন কোটি) মানুষ দরিদ্রতায় পতিত হবে। করোনাভাইরাসের উৎপত্তিস্থল চীনে এ সংখ্যা গিয়ে দাঁড়াবে ২৫ মিলিয়নে।
বিশ্ব ব্যাংকের অনুমান, করোনাভাইরাসের কারণে পূর্ব এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় উন্নয়নশীল দেশগুলোর প্রবদ্ধি ২ দশমিক ১ শতাংশ কমে যাবে।

এই অবস্থায় এই অঞ্চলের দেশগুলোকে স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠান ও চিকিৎসাসমাগ্রী তৈরি কারখানা বর্ধিত করে তাতে বিনিয়োগের পরামর্শ দিয়েছে বিশ্ব ব্যাংক। একই সঙ্গে, অসুস্থ থাকাকালীন কর্মীদের ভর্তুকি দেয়ার জন্য অনুরোধ করেছে প্রতিষ্ঠানটি।

ভারতে লকডাউনের মধ্যে হিলি বন্দর দিয়ে রফতানি
                                  

দিনাজপুর প্রতিনিধি: করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে ভারত সরকার লকডাউন ঘোষাণা করলেও ভারতীয় ব্যবসায়ীরা তাদের সরকারকে বিধাঙ্গুলি দেখিয়ে বুধবার বিকেলে হিলি স্থলবন্দর দিয়ে বাংলাদেশে পন্য রফতানি করলেন। আকস্মিকভাবে পণ্য রফতানি করায় হিলি বন্দরে করোনা আতংক বিরাজ করছে।

হিলি কাস্টমস সিএনএফ এজেন্ট এসোসিয়েশনের সহ সভাপতি আব্দুল আজিজ জানায়, ভারত হিলি এক্সপোর্টার এন্ড ক্লিয়ারিং এজেন্ট এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক সঞ্জিত মজুমদার বুধবার বিকেলে আকস্বিকভাবে পণ্যবাহী ট্রাক প্রবেশ করানো হবে এই মর্মে পত্র প্রেরণ করেন। তার পত্রের প্রেক্ষিতে সন্ধ্যা পর্যন্ত ৫৯টি বিভিন্ন পন্যবাহী ট্রাক হিলি বন্দর দিয়ে দেশে প্রবেশ করানো হয়েছে।

হাকিমপুর উপজেলা নিবার্হী অফিসার বলেন, ভারত লকডাউন ঘোষণা করায় বন্দরের আমদানি রফতানি বন্ধ ছিলো। বন্দরের দোকানপাট বন্ধের পরও ভারতীয় ট্রাক প্রবেশের ব্যাপারে তিনি বলেন আমি ব্যবসায়ীদের সাথে কথা বলবো যেন ভারত থেকে কোন ট্রাক পণ্য নিয়ে বাংলাদেশে আসতে না পারে।

তবে উপজেলা প্রশাসন কোন পদক্ষেপ না নেওয়ায় সন্ধ্যার পর হিলি চেকপোস্ট দিয়ে ৫৯ টি ট্রাক পণ্য নিয়ে হিলি স্থলবন্দরে প্রবেশ করে। ভারতে করোনা প্রভাব বেশি। এমতাবস্থায় ভারত থেকে ড্রাইভার হেলপার প্রবেশ করায় আতংকে রয়েছে হিলিবাসী। সচেতন মহলের দাবি হাকিমপুর প্রশাসনের নিকট করোনার প্রভাব বিস্তার করলে এর দায় কে নিবে?

এদিকে পৌর মেয়র জামিল হোসেন চলন্ত বলেন, করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে হিলি বন্দরে দোকানপাট বন্ধ থাকলেও ভারতীয় পন্যবার্হী ট্রাক প্রবেশ করায় ঝুকির মধ্যে পড়ছে হিলি বন্দর। তিনি হিলি বন্দরকে লকডাউন করার দাবি করেন।

হিলি বন্দরের কয়েকজন ব্যবসায়ী দাবি করেন, ভারতীয়রা তাদের সরকারের লকডাউন আইন অমান্য করে পণ্য প্রবেশের মাধ্যমে বন্দরে করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে দিতে পারে তাই তারা হিলি বন্দরের আমদানি রফতানিসহ পাসপোর্ট যাত্রী পারাপার বন্ধ ঘোষণার দাবি করেন।

বিআরটিসি-তে চিকিৎসক নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি
                                  

স্বাধীন বাংলা ডেস্ক: বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্পোরেশনের অধীনে সম্পূর্ণ অস্থায়ী ভিত্তিতে পার্ট টাইম চিকিৎসক নিয়োগের জন্য ডাক্তারদের নিকট থেকে দরখাস্ত আহ্বান করা হয়েছে।

পার্ট টাইম চিকিৎসক/মেডিকেল অফিসার পদে আবেদনের জন্য এমবিবিএস ডিগ্রি এবং হাসপাতাল/ক্লিনিক/স্বায়ত্তশাসিত সংস্থায় ইত্যাদিতে কমপক্ষে ৫ বছরের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। উচ্চতর ডিগ্রিধারীদের অগ্রাধিকার দেয়া হবে।

সরকারি ও সাপ্তাহিক ছুটির দিন ব্যতীত সপ্তাহে দুদিন সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত প্রধান কার্যালয়ে এবং অন্যান্য দিন কর্পোরেশনের সচিব প্রণীত রুটিন মোতাবেক ঢাকার বিআরটিসি ডিপো/ইউনিটে চিকিৎসা দিতে হবে।

নিয়োগপ্রাপ্তদের সর্বসাকুল্যে মাসিক বেতন ১৫,০০০ টাকা এবং যাতায়াত ভাতা দেয়া হবে।

আগ্রহী প্রার্থীদের সদ্য তোলা ২ কপি পাসপার্ট সাইজের সত্যায়িত ছবি, প্রথম শ্রেণির গেজেটেড কর্মকর্তা প্রদত্ত চারিত্রিক সার্টিফিকেট, শিক্ষাগত যোগ্যতা ও অভিজ্ঞতার সনদপত্রের সত্যায়িত ফটোকপি এবং স্থায়ী ও বর্তমান ঠিকানার তথ্যসহ আবেদনপত্র আগামী ২ এপ্রিলের মধ্যে জেনারেল ম্যানেজার (প্রশা. ও পার্সো.) দফতরে ডাকযোগে পৌঁছাতে হবে।

পোশাক খাতে বিপদ
                                  

নিজস্ব প্রতিবেদক : বিশ্বব্যাপী ছাড়িয়ে পড়া নভেল করোনাভাইরাসের প্রভাব ফেলেছে বিশ্ব অর্থনীতিতেও। এই পরিস্থিতিতে বাংলাদেশের ব্যবসা বাণিজ্য ও অর্থনীতিতে হুট করে সবচেয়ে বড় আঘাত এসেছে তৈরি পোশাক খাতের ওপর। বিশ্বপরিস্থিতির সঙ্গে অভ্যন্তরীণ পরিস্থিতি মিলিয়ে দুই ক্ষেত্রেই করুণ দশা এই খাতে। চীনে শুরু হওয়া করোনা আমদানি খাতে খানিকটা আঘাত হানলেও মুখ থুবড়ে পড়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে রফতানি খাত তথা তৈরি পোশাক খাতে।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, প্রতি ঘণ্টায় বাংলাদেশের প্রধান রফতানি পণ্য তৈরি পোশাকের রফতানি আদেশ বাতিল হচ্ছে। এই খাতের উদ্যোক্তারা বলছেন, পরিস্থিতি যেভাবে অবনতি হচ্ছে, তাতে এই খাত মুখ থুবড়ে পড়ে যেতে পারে। ইতোমধ্যে প্রায় ৪ কোটি ডলারের রফতানি আদেশ বাতিল হয়েছে বলে জানিয়েছেন পোশাক খাতের উদ্যোক্তারা। তারা বলছেন, বিদেশি ক্রেতাদের কেউ ই-মেইল করে রফতানি আদেশ বাতিল করছেন, কেউ স্থগিত করছেন। আর অধিকাংশ ক্ষেত্রে নতুন রফতানি আদেশ না দেওয়ার কথা জানাচ্ছেন।

তৈরি পোশাক খাতের মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএ’র তথ্য বলছে, প্রতি ২৪ ঘণ্টায় গড়ে ১০০ মিলিয়ন ডলারের বেশি অর্ডার বাতিল হচ্ছে। মঙ্গলবার রাত ১০টা থেকে বুধবার রাত ১০টা পর্যন্ত এই ২৪ ঘণ্টায় ৯৪টি কারখানার ১০৪ মিলিয়ন ডলারের অর্ডার বাতিল হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার বিকেল পর্যন্ত এটি দাঁড়ায় ১৩৩ মিলিয়ন ডলারে।

এ প্রসঙ্গে বিজিএমইএ’র সভাপতি রুবানা হক বলেন, এক কথায় আমরা মরে যাচ্ছি। প্রতিনিয়ত ক্রেতা প্রতিষ্ঠান ও ব্র্যান্ডের কাছ থেকে চলমান ক্রয়াদেশ স্থগিত ও বাতিলের খবর আসছে। তিনি বলেন, এমন সময়ে অর্ডার বাতিল হচ্ছে যখন সামনে ঈদ। এ অবস্থায় তৈরি পোশাক খাত কোথায় গিয়ে দাঁড়াবে বলতে পারছি না। তবে সামনে ভয়াবহ বিপর্যয় আসছে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেন তিনি।

এ প্রসঙ্গে বিকেএমইএ’র প্রথম সহসভাপতি মোহাম্মদ হাতেম বলেন, আমার পোল্যান্ডের এক ক্রেতা প্রতিষ্ঠান দু’দফার রফতানি আদেশ বাতিল করেছে। এর মধ্যে একটি আদেশ ছিল ২ লাখ ২০ হাজার ডলারের। আরেকটি আদেশ ছিল ২ লাখ ডলারের। তিনি জানান, করোনার কারণে এখন প্রতিদিন, প্রতি ঘণ্টায় রফতানি আদেশ বাতিল বা স্থগিতের মেইল পাচ্ছেন গার্মেন্ট মালিকরা। এ অবস্থায় সরকার যদি আমাদের পাশে না দাঁড়ায় তাহলে আমরা মারা পড়বো।

উদ্যোক্তারা বলছেন, আমেরিকা বা ইতালির মতো বাংলাদেশেও করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব দেখা দিলে গার্মেন্টস কারখানা বন্ধ করতে হবে। আর এমনটি হলে তৈরি পোশাক খাত ঘুরে দাঁড়াতে বেশ বেগ পেতে হবে। তবে এখন পর্যন্ত করোনার কারণে বাংলাদেশের কোনও কারখানা বন্ধ ঘোষণা করা হয়নি। শ্রমিক ও মালিকরা করোনা আতঙ্কের মধ্যেও কারখানাগুলো চালু রেখেছেন। এমন পরিস্থিতিতে পোশাকের চলমান ক্রয়াদেশ স্থগিত ও বাতিল করার তালিকা বড় হচ্ছে। এই তালিকায় বড় বড় ব্র্যান্ড ও ক্রেতা প্রতিষ্ঠানের রয়েছে। এর মধ্যে সিঅ্যান্ডএ, জারা, পুল অ্যান্ড বেয়ার, বেবি শপ, ব্ল্যাকবেরি, প্রাইমার্ক উল্লেখযোগ্য। বুধবার নারায়ণগঞ্জের এ ওয়ান পোলার নামে একটি কারখানার ১৫ মিলিয়ন ডলারের রফতানি আদেশ বাতিলের কথা জানায় হল্যান্ডের ক্রেতা প্রতিষ্ঠান সিঅ্যান্ডএ। ই-মেইল করে প্রতিষ্ঠানটির মালিককে জানানো হয় রফতানি আদেশ বাতিলের বিষয়টি।

জানা গেছে, এসকোয়্যার নিট কম্পোজিটের ২২ লাখ ডলারের ক্রয়াদেশ বাতিল ও স্থগিত করেছে দুটি ক্রেতা প্রতিষ্ঠান। বাতিল ও স্থগিতাদেশের মধ্যে পড়েছে অ্যাপেক্স হোল্ডিংসের ৪০ লাখ পিস পোশাক। বিটপি গ্রুপের ৪ লাখ ৬৬ হাজার ডলারের ক্রয়াদেশ বাতিল ও স্থগিত হয়েছে। এ ছাড়া আমান গ্রাফিক্স অ্যান্ড ডিজাইনের ১ লাখ ১৩ হাজার ডলার মূল্যের ৩৯ হাজার পিস পোশাকের ক্রয়াদেশ বাতিল হয়েছে। আমান নিটিংয়ের ১ লাখ ৯৭ হাজার ডলারের ৪৪ হাজার ৭২৬ পিসের ক্রয়াদেশ স্থগিত হয়েছে। স্কাইলাইন গার্মেন্টসের ৮ লাখ ৫০ হাজার ডলারের ক্রয়াদেশ বাতিল হয়েছে। রুমানা ফ্যাশনের ৯০ হাজার পিস পোশাকের ক্রয়াদেশ স্থগিত করেছে দুই ক্রেতা।

প্রসঙ্গত, বাংলাদেশের তৈরি পোশাকের বড় বাজার যুক্তরাষ্ট্র, জার্মানি, যুক্তরাজ্য, স্পেন, ফ্রান্স, ইতালি ও কানাডায় ভয়াবহভাবে ছড়িয়ে পড়েছে করোনাভাইরাস। যুক্তরাষ্ট্র, স্পেন, ফ্রান্স ও ইতালিতে জরুরি অবস্থা জারি করা হয়েছে। দেশগুলোতে নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য ছাড়া এখন অন্যান্য দোকানপাট ও প্রতিষ্ঠান বন্ধ।

করোনায় কাবু বিশ্ব পুঁজিবাজার
                                  

অর্থনৈতিক ডেস্ক : করোনাভাইরাসের প্রভাবে একের পর এক পতন ঘটছে বিশ্ব পুঁজিবাজারে। যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াল স্ট্রিট কাঁপিয়ে সেই কম্পন লেগেছে উপমহাদেশেও।  ভারত গত ১০ বছরের সর্বোচ্চ পতন দেখেছে গতকাল। পাকিস্তান বিরাট পতন ঠেকাতে লেনদেন বন্ধ করে দিয়েছে। বাংলাদেশে গতকাল সাম্প্রতিক কালের সর্বোচ্চ পতন ঘটেছে মূল্যসূচকের। জাপান, হংকং, অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড, দক্ষিণ কোরিয়াসহ বিশ্বের প্রায় অধিকাংশ দেশে বড় পতন ঘটছে।

যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াল স্ট্রিটের শেয়ারবাজার খোলার সঙ্গে সঙ্গেই সেখানে দাম পড়ে যায় প্রায় সাত শতাংশ। এই বিরাট ধসের পর সেখানে শেয়ারবাজারে লেনদেন বন্ধ হয়ে যায়।

এশিয়া এবং ইউরোপের শেয়ারবাজারেও দেখা গেছে একই পরিস্থিতি। কেউ কেউ শেয়ারবাজারে যা ঘটছে তাকে ‘রক্তগঙ্গা’ বয়ে যাওয়ার সঙ্গে তুলনা করেছেন। ২০০৯ সালে বিশ্বজুড়ে যে আর্থিক সংকট দেখা গিয়েছিল, তারপর এ রকম বিপর্যয় আর শেয়ারবাজারে দেখা যায়নি বলে বিবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বড় ধসের পর ওয়াল স্ট্রিটের শেয়ারবাজারে লেনদেন বন্ধ রাখা হয় কিছুক্ষণের জন্য। অস্ট্রেলিয়া থেকে শুরু করে এশিয়া, ইউরোপ এবং আমেরিকার সব বড় বড় স্টক এক্সচেঞ্জে সারাদিন ধরে একের পর এক ধস নেমেছে।

বাংলাদেশের পুঁজিবাজার : গতকাল লেনদেন শুরুর প্রথম মিনিটেই ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান সূচক ২৩ পয়েন্ট কমে যায়। দিনের লেনদেন শেষে ডিএসইর এই সূচকটি ২৭৯ পয়েন্ট বা ৬.৫১ শতাংশ কমে দাঁড়িয়েছে ৪০০৮ পয়েন্টে। ২০১৩ সালের জানুয়ারি মাসে ডিএসইএক্স সূচকটি চালুর পর গতকালই সর্বোচ্চ পতন হয়েছে। এটি এখন নেমে গেছে ভিত্তি পয়েন্টের নিচে। ওই সময় ডিএসইএক্স সূচকের ভিত্তি পয়েন্ট ছিল ৪ হাজার ৫৫ পয়েন্ট। আর ডিএস৩০ ছিল এক হাজার ৪৬০ পয়েন্ট।

গতকাল ডিএসইর অপর সূচকগুলোর মধ্যে শরিয়াহ সূচক ৭০ পয়েন্ট, ডিএসই-৩০ সূচক ৮৯ পয়েন্ট এবং সিডিএসইটি সূচক ৫১ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে যথাক্রমে ৯২৯, ১৩৪৬ ও ৭৯৬ পয়েন্টে।

ডিএসইতে গতকাল ৩৫৫টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে। এসব প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ২টির বা ০.৫৬ শতাংশের শেয়ার ও ইউনিট দর বেড়েছে। দর কমেছে ৩৫২টির বা ৯৯.১৫ শতাংশের এবং ১টি বা ০.২৮ শতাংশ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট দর অপরিবর্তিত রয়েছে।

অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক সূচক সিএএসপিআই এদিন ৭৬৯ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ১২ হাজার ৩২৯ পয়েন্টে। এদিন সিএসইতে হাত বদল হওয়া ২৫৬টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে শেয়ার দর বেড়েছে ৪টির, কমেছে ২৪৮টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৪টির দর।

ভারতের পুঁজিবাজার : এক ধাক্কায় ২৩০০ পয়েন্ট নেমে গেল সেনসেক্স। আনন্দবাজার জানিয়েছে, একদিকে করোনা, অন্যদিকে ইয়েস ব্যাংক কেলেঙ্কারি- সব মিলিয়ে কয়েক দিন ধরে টালামাটাল অবস্থায় ভারতের পুঁজিবাজার।

সোমবার সকাল থেকে ভারতের বাজার আরও ভয়ানক হয়ে ওঠে। দিনের শুরুতেই এক ধাক্কায় ১৫০০ পয়েন্ট নেমে যায় সেনসেক্স। তারপর থেকে পতন অব্যাহত থাকে। একটা সময় ২৩০০ পয়েন্ট পড়ে যায় সেনসেক্স। ২০১০-এর পর এক দিনে সবচেয়ে বড় পতন এটি।

পাকিস্তান : গতকাল পাকিস্তান স্টক এক্সচেঞ্জের কেএসই-১০০ সূচকটি ২১০৬ পয়েন্ট কমে যায়। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে ৪৫ মিনিটের জন্য লেনদেন বন্ধ রাখা হয়।

জাপান : করোনাঝড় ও বিশ্ববাজারে তেলের দাম কমে যাওয়ায় জাপানের পুঁজিবাজার টালমাটাল। একদিনে জাপানের নিক্কেই সূচক কমেছে ১০৫০ পয়েন্ট বা ৫.০৭ শতাংশ। নিক্কেই সূচক গত ১৪ মাসের মধ্যে সর্বনিম্ন অবস্থানে পৌঁছেছে। একে একে ধস নামে হংকং, অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড এবং দক্ষিণ কোরিয়ার শেয়ারবাজারেও।

একনেকে ৯ প্রকল্প অনুমোদন
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : ‘বাংলাদেশ-ইন্ডিয়া ফ্রেন্ডশিপ পাইপলাইন প্রকল্পের প্রয়োজনীয় জমি অধিগ্রহণ ও হুকুম দখল এবং অন্যান্য আনুষঙ্গিক সুবিধা উন্নয়ন’ প্রকল্পসহ ৯ প্রকল্পের অনুমোদন দিয়েছে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি-একনেক সভা।

এই নয় প্রকল্পে ব্যয় হবে দুই হাজার ৪২২ কোটি ২৭ লাখ টাকা। এর মধ্যে সরকার দেবে দুই হাজার ১০৮ কোটি ৪৫ লাখ এবং সংস্থার নিজস্ব অর্থায়ন ৩১৩ কোটি ৮২ লাখ টাকা।

মঙ্গলবার রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের এনইসি সম্মেলন কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত সভায় সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী ও একনেক চেয়ারপারসন শেখ হাসিনা। বৈঠক শেষে ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান পরিকল্পনা বিভাগের সচিব নূরুল আমিন।
 
সচিব জানান, আজকের একনেক সভায় সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের দুটি প্রকল্প যথাক্রমে ‘বানেশ্বর (রাজশাহী)-সারদা-চারঘাট-বাঘা-লালপুর (নাটোর)-ঈশ্বরদী (পাবনা) (আর-৬০৬) জেলা মহাসড়ককে আঞ্চলিক মহাসড়কের মানে উন্নীতকরণ’ প্রকল্প ও ‘সৈয়দপুর-নীলফামারী মহাসড়ক (আর-৫৭০) প্রশস্তকরণ ও মজবুতকরণ (প্রথম সংশোধিত)’ প্রকল্প; পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের ‘হবিগঞ্জ জেলার বিবিয়ানা বিদ্যুৎ কেন্দ্রসমূহের সম্মুখে কুশিয়ারা নদীর উভয় তীরের প্রতিরক্ষা’ প্রকল্প; শিল্প মন্ত্রণালয়ের তিন প্রকল্প যথাক্রমে ‘তেজগাঁওয়ে বিসিকের বহুতল ভবন নির্মাণ (প্রথম সংশোধিত)’ প্রকল্প, ‘বিসিক প্লাস্টিক শিল্পনগরী (প্রথম সংশোধিত)’ প্রকল্প ও ‘বিসিকের ৮টি শিল্পনগরী মেরামত ও পুনঃনির্মাণ’ প্রকল্প; বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের ‘ভারত-বাংলাদেশ ফ্রেন্ডশিপ পাইপলাইন প্রকল্পের প্রয়োজনীয় জমি অধিগ্রহণ ও হুকুম দখল এবং অন্যান্য আনুষঙ্গিক সুবিধাদি উন্নয়ন’ প্রকল্প, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ‘খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিকতর অবকাঠামো উন্নয়ন (প্রথম সংশোধন)’ প্রকল্প এবং স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের ‘মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ৫০ শয্যা ও জেলা সদর হাসপাতালে ১০ শয্যার কিডনি ডায়ালাইসিসি সেন্টার স্থাপন’ প্রকল্প অনুমোদন দেয়া হয়েছে।

বাণিজ্য মেলার পর্দা নামছে আজ
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : ২৫তম ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলার পর্দা নামছে আজ বৃহস্পতিবার। প্রতিবারের মত এবারও বছরের প্রথম দিন মাসব্যাপী এ মেলার উদ্বোধন করা হয়। তবে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীর ক্ষণগণনা শুরু উপলক্ষে ১০ জানুয়ারি মেলা বন্ধ রাখা হয়।

এছাড়া প্রথমদিকে ক্রেতা-দর্শনার্থীর সংখ্যা ছিল বেশ কম। এ কারণে মেলার সময় বাড়ানোর দাবি জানায় অংশগ্রহণকারী প্রতিষ্ঠানগুলো। তাদের দাবির প্রেক্ষিতে মেলার সময় বাড়িয়ে ৪ ফেব্রুয়ারি শেষ দিন নির্ধারণ করা হয়।

এরপর ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন নির্বাচন উপলক্ষে ৩১ জানুয়ারি ও ১ ফেব্রুয়ারি আবারও মেলা বন্ধ রাখা হয়। এর ফলে আবারও মেলার সময় বাড়ানোর দাবি জানান অংশগ্রহণকারীরা। তাদের দাবি মেনে নিয়ে দ্বিতীয় দফায় মেলার সময় দু’দিন বাড়িয়ে আজ বৃহস্পতিবার শেষ দিন নির্ধারণ করা হয়।

মেলায় খন্ডকালীন চাকরি করা বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী নীলিমা বলেন, এক মাসের বেশি সময় ধরে মেলায় আছি। মেলার প্রতি অন্যরকম ভালোবাসা জন্মে গেছে। আজমেলার শেষ দিন মনে হতেই মনটা খারাপ হয়ে যাচ্ছে।

ঈগলুর আইসক্রিম স্টলের মারিয়া বলেন, এক মাস ধরে এক জায়গায় থাকলে তার প্রতি এক ধরনের ভালোবাসা জন্ম নেবে, এটাই স্বাভাবিক। বাণিজ্য মেলার প্রতি আমার মধ্যেও এক ধরনের ভালোবাসা জন্মেছে। কিন্তু কী করার? জীবন গতিশীল, এক জায়গায় থেমে থাকতে পারে না। সব কিছুই মেনে নিতে হবে। এরপরও বলতে হচ্ছে মেলা শেষ কিছুদিন একটু খারাপ লাগবে।

মেলায় পরিবার নিয়ে আসা মাজাহারুল বলেন, আসি আসি করে মেলায় আসা হয়নি। আজ অফিস থেকে ছুটি নিয়ে মেলায় চলে আসলাম। বাসার জন্য কিছু কেনাকাটা করার ইচ্ছা আছে। তবে মেলায় আসার মূল উদ্দেশ ঘোরাঘুরি।

শেয়ারবাজারের ধীর গতি
                                  

অর্থনৈতিক ডেস্ক: বড় ধরনের ধসের পর নানামুখী তৎপরতায় বুধবার ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতার দেখা মেলে দেশের শেয়ারবাজারে। বৃহস্পতিবারও লেনদেনের শুরুতে ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতা রয়েছে। তবে ধীর গতিতে বাড়ছে সূচক। এর আগে বড় ধরনের ধসের কবলে পড়ে মঙ্গলবার পর্যন্ত মাত্র ৮ কার্যদিবসে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান মূল্যসূচক ডিএসইএক্সের ৪১১ পয়েন্ট পতন হয়। এতে ২০১৩ সালের ২৭ জানুয়ারি ৪ হাজার ৫৫ পয়েন্ট নিয়ে যাত্রা শুরু করা সূচকটি শুরুর অবস্থান বা ভিত্তি পয়েন্টের নিচে নেমে যায়।

শেয়ারবাজারের এ অবস্থাকে ২০১০ সালের মহাধসের থেকেও খারাপ বলে অভিহিত করেন শেয়ারবাজার সংশ্লিষ্টরা। দরপতনের প্রতিবাদ জানাতে মতিঝিলে অবস্থিত ডিএসইর আগের কার্যালয়ের সামনে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন করেন কিছু বিনিয়োগকারী।

অবস্থার ভয়াবহতা অনুধাবন করে ২০ জানুয়ারি জরুরি বৈঠক ডেকেছে অর্থ মন্ত্রণালয়। বাংলাদেশ ব্যাংকের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, পুঁজিবাজারে স্থিতিশীলতা ও উন্নয়নে এ পর্যন্ত যতগুলো প্রস্তাব দেয়া হয়েছে, তার মধ্যে সর্বোত্তম প্রস্তাব বাস্তবায়নে সহায়তা দেবে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

পাশাপাশি আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সিনিয়র সচিবের সঙ্গে বৈঠক করেন বাংলাদেশ মার্চেন্ট ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমবিএ) প্রতিনিধিরা। এরই ধারাবাহিকতায় বুধবার বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) কার্যালয়ে স্টেকহোল্ডারদের সঙ্গে নিয়ন্ত্রক সংস্থার জরুরি বৈঠক হয়।

বিএসইসির কমিশনার স্বপন কুমার বালার সভাপতিত্বে বৈঠকে বিএমবিএ, ডিএসই ব্রোকার্স অ্যাসোসিয়েশন (ডিবিএ) এবং শীর্ষ ব্রোকারেজ হাউসের প্রতিনিধিরা অংশ নেন। সভায় কমিশনের পক্ষ থেকে স্টেকহোল্ডারদের ২০ জানুয়ারির বৈঠকে শেয়ারবাজারের জন্য করণীয় এবং কার্যকরি প্রস্তাব রাখার আহ্বান করা হয়।

বিভিন্ন পক্ষের এমন নানামুখী তৎপরতায় বুধবার লেনদেনের শুরুতেই শেয়ারবাজারে বড় উত্থানের আভাস মেলে। লেনদেনের প্রথম আধাঘণ্টায় ডিএসইর প্রাধান মূল্যসূচক ৮৩ পয়েন্ট বেড়ে যায়। তবে লেনদেনের শেষদিকে এসে বেশকিছু প্রতিষ্ঠানের দরপতন হয়। এতে সূচকের বড় উত্থান কিছুটা বাধাগ্রস্ত হয়। ফলে দিনের লেনদেন শেষে ডিএসইর প্রধান মূল্যসূচক বাড়ে ৩১ পয়েন্ট।

উর্ধ্বমুখী প্রবণতা বৃহস্পতিবারের লেনদেনের শুরুতেও অব্যাহত রয়েছে। লেনদেনের প্রথম এক ঘণ্টায় ডিএসইর প্রধান সূচক ১৯ বেড়ে ৪ হাজার ৮৭ পয়েন্টে উঠে এসেছে। অপর দুই সূচকের মধ্যে ডিএসই-৩০ সূচক ৭ পয়েন্ট বেড়ে ১ হাজার ৩৭৮ পয়েন্টে অবস্থান করছে। আর ডিএসই শরিয়াহ্ সূচক ৩ পয়েন্ট বেড়ে ৯১৮ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে।

প্রথম ঘণ্টায় বাজারটিতে লেনদেন হয়েছে ৬৮ কোটি ১২ লাখ টাকা। লেনদেন অংশ নেয়া ১১৩টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বেড়েছে। বিপরীতে দাম কমেছে ১৩০টির। ৬৮টির দাম অপরিবর্তিত রয়েছে।

অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ২৯ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১২ হাজার ৪২২ পয়েন্টে। বাজারটিতে লেনদেন হয়েছে ২ কোটি ২১ লাখ টাকা। লেনদেন অংশ নেয়া ৯৫ প্রতিষ্ঠানের মধ্যে দাম বেড়েছে ২৯টির, কমেছে ৪৯টির, অপরিবর্তিত রয়েছে ১৭টির।

বাজারে আসছে ২০০ টাকার নোট ॥ দৈনিক স্বাধীন বাংলা
                                  

স্বাধীন বাংলা রিপোর্ট: জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে  দেশে প্রথমবারের মতো ২০০ টাকা মূল্য মানের নোট বাজারে আসছে। আগামী মার্চে ‘মুজিববর্ষ’ উপলক্ষে এ নোট বাজারে ছাড়া হবে বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র সিরাজুল ইসলাম গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, বাজারে প্রচলিত ১০/২০/৫০/১০০/৫০০ এবং ১০০০ টাকার মতই ২০০ টাকার নোট পাওয়া যাবে। লেনদেন হবে। প্রাথমিকভাবে ২০০ টাকার নোটের উপর ‘বঙ্গবন্ধুর জন্ম শতবার্ষিকী উপলক্ষে বিশেষ নোট’ কথাটি লেখা থাকলেও পরবর্তীতে তা আর লেখা থাকবে না।

এদিকে, ১০ টাকার নোটের সঙ্গে সামঞ্জস্য থাকায় বঙ্গবন্ধুর ছবি সংবলিত ৫০ টাকার নোটের রং ও আকার পরিবর্তন করে বাজারে নতুন ৫০ টাকার নোট ছেড়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। রোববার সকাল থেকে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের মতিঝিল কার্যালয় থেকে নিয়মিত লেনদেনের মাধ্যমে নতুন এ নোট বাজারে ছাড়া হয়েছে। প্রাথমিকভাবে ২০ কোটি টাকা মূল্যের নতুন নোট বাজারে ছাড়া হয়েছে। পর্যায়ক্রমে চাহিদা অনুযায়ী নতুন নোট বাজারে ছাড়া হবে বলেও জানান তিনি। তবে নতুন এ নোটের পাশাপাশি বাজারে চলমান পুরো নোটেও লেনদেন অব্যাহত থাকবে।

মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি
                                  


স্বাধীন বাংলা: জাতীয় মহিলা সংস্থার বাস্তবায়নাধীন “জেলাভিত্তিক মহিলা কম্পিউটার প্রশিক্ষণ(৬৪ জেলা) (২য় সংশাধিত)” শীর্ষক প্রকল্পের কর্মকর্তা নিয়োগে বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়।

আবেদনের ঠিকানা: সচিব, মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়, পরিবহন পুল ভবন, কক্ষ নং-৮১১, সচিবালয় লিংক রােড, ঢাকা। আবেদনের শেষ তারিখ: ৭ জানুয়ারি ২০২০।

পদের নাম: সহকারী প্রােগ্রামার

পদসংখ্যা: ৭টি

যােগ্যতা: চার বছর মেয়াদী কম্পিউটার সায়েন্স/ ইঞ্জিনিয়ারিং ডিগ্রি। অথবা যেকোন বিষয়ে স্নাতকোত্তর ডিগ্রিসহ কম্পিউটার সায়েন্সে ১ বছর মেয়াদী পােস্ট গ্রাজুয়েশন ডিগ্রি। অথবা সরকার অনুমােদিত বিশ্ববিদ্যালয়/প্রতিষ্ঠান/বিটিইবি হতে ডিপ্লোমা ইন কম্পিউটার সায়েন্স বা সমমানের কম্পিউটার সার্টিফিকেট কোর্স। অথবা স্নাতকোত্তর ডিগ্রিসহ ৩ বছর মেয়াদী বিএসসি ইন কম্পিউটার সায়েন্স বা ইঞ্জিনিয়ারিং ডিগ্রি।
বেতন: সর্বসাকুল্য ৩২,৩০০ টাকা

পদের নাম: প্রশিক্ষক (কম্পিউটার)

পদসংখ্যা: ৮টি

যােগ্যতা: সরকার অনুমােদিত পলিটেকনিক ইনিস্টিটিউট হতে ডিপ্লোমা ইন কম্পিউটার সায়েন্স/ ইঞ্জিনিয়ারিং ডিগ্রি। অথবা চার বছর মেয়াদী স্নাতক (সায়েন্স ব্যাকগ্রাউন্ড) ডিগ্রিসহ কমপক্ষে ছয় মাস বা তদূর্ধ্ব মেয়াদী কম্পিউটার ডিপ্লোমা কোর্সধারী। অথবা স্নাতকোত্তর ডিগ্রিসহ ৩ বছর মেয়াদী স্নাতক (সায়েন্স ব্যাকগ্রাউন্ড) ডিগ্রিধারী।
বেতন: সর্বসাকুল্য ২৪,৭০০ টাকা


   Page 1 of 33
     অর্থ-বাণিজ্য
পোশাক শ্রমিকরা চলতি মাসের বেতন ৩০ এপ্রিলেই পাবেন
.............................................................................................
জুন পর্যন্ত ক্রেডিট কার্ডে জরিমানা নয়
.............................................................................................
বাংলাদেশকে ১০০ মিলিয়ন ডলার দেওয়ার ঘোষণা বিশ্বব্যাংকের
.............................................................................................
আল-আরাফাহ ইসলামী ব্যাংকে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি
.............................................................................................
করোনার মধ্যে সুসংবাদ জানালো এডিবি
.............................................................................................
ছুটিতে ব্যাংক লেনদেনের সময় বাড়ল
.............................................................................................
করোনার প্রভাবে দরিদ্র হবে এশিয়ার আড়াই কোটি মানুষ: বিশ্বব্যাংক
.............................................................................................
ভারতে লকডাউনের মধ্যে হিলি বন্দর দিয়ে রফতানি
.............................................................................................
বিআরটিসি-তে চিকিৎসক নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি
.............................................................................................
পোশাক খাতে বিপদ
.............................................................................................
করোনায় কাবু বিশ্ব পুঁজিবাজার
.............................................................................................
একনেকে ৯ প্রকল্প অনুমোদন
.............................................................................................
বাণিজ্য মেলার পর্দা নামছে আজ
.............................................................................................
শেয়ারবাজারের ধীর গতি
.............................................................................................
বাজারে আসছে ২০০ টাকার নোট ॥ দৈনিক স্বাধীন বাংলা
.............................................................................................
মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি
.............................................................................................
বিসিকের বিজয় মেলা শুরু
.............................................................................................
মীরসরাইয়ে শাহ্জালাল ইসলামী ব্যাংকের ১৩১তম শাখার উদ্বোধন
.............................................................................................
বাজারে আসছে ৫০ টাকার নতুন নোট
.............................................................................................
সিঙ্গেল ডিজিটে আসছে ব্যাংক ঋণের সুদ হার; কমিটি গঠন
.............................................................................................
বাড়ছে লোকসানি শাখা
.............................................................................................
অস্থির চালের বাজার
.............................................................................................
পেঁয়াজে সিন্ডিকেট : চার মাসে ভোক্তাদের ক্ষতি ৩ হাজার ১৭৯ কোটি টাকা
.............................................................................................
বিসিকে ৫ দিনব্যাপী মধু মেলার উদ্বোধন
.............................................................................................
দিনাজপুরে পিডিবিএফ’র বার্ষিক কর্মপরিকল্পনা কর্মশালা
.............................................................................................
জোরালো অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি বাংলাদেশে দারিদ্র্য কমাচ্ছে : বিশ্ব ব্যাংক
.............................................................................................
আমদানিতে আগ্রহী নয় স্বর্ণ ব্যবসায়ীরা
.............................................................................................
গ্যাস বিল আদায় নিয়ে ভোগান্তিতে তিতাস
.............................................................................................
খোলা বাজারে টিসিবি’র পেঁয়াজ বিক্রি শুরু
.............................................................................................
পেঁয়াজে বাড়ছে ঝাঁজ
.............................................................................................
ন্যাশনাল ব্যাংকের ডিএমডি হলেন একরামুল হক
.............................................................................................
নরসিংদীতে যমুনা ব্যাংকের উদ্যোগে বৃক্ষরোপন কর্মসূচী পালিত
.............................................................................................
পাটপণ্যের চাহিদা থাকলেও বাড়ছে না রফতানি
.............................................................................................
অগ্রণী ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের পরিচালক হলেন ড. মোঃ ফরজ আলী
.............................................................................................
আস্থা হারাচ্ছে চামড়া শিল্প
.............................................................................................
ব্যাংক খাতে হঠাৎ বেড়েছে আমানত
.............................................................................................
এক মাসে স্বর্ণের দাম বাড়লো চারবার
.............................................................................................
যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ে নিয়োগ
.............................................................................................
তেল-গ্যাস অনুসন্ধানে নীতিমালা
.............................................................................................
চামড়া শিল্পনগরীতে ওয়াটার ফ্লো মিটার স্থাপন শুরু
.............................................................................................
মাছ-মুরগীর খাবারের নামে আমদানি হচ্ছে শূকরের বর্জ্য
.............................................................................................
আখাউড়া স্থলবন্দর দিয়ে আমদানি রফতানি শুরু
.............................................................................................
রেমিট্যান্সের পালে মধ্যপ্রাচ্যের হাওয়া
.............................................................................................
ঈদে মসলার বাজারে আগুন!
.............................................................................................
জ্বালানি আনতে রাশিয়ার সঙ্গে চুক্তি সই
.............................................................................................
আমদানি-রফতানি ব্যয় বাড়বে
.............................................................................................
ভারত থেকে জ্বালানি তেল আমদানির উদ্যোগ
.............................................................................................
৩১ জুলাই নতুন মুদ্রানীতি ঘোষণা করবেন গভর্নর
.............................................................................................
মানিকগঞ্জে বেস্ট ইলেকট্রনিক্স এর শো-রুম উদ্বোধন
.............................................................................................
রাজস্ব আয় বাড়াতে জেলা ও উপজেলায় কমিটি চান ডিসিরা
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

সম্পাদক ও প্রকাশক : মোহাম্মদ আখলাকুল আম্বিয়া
নির্বাহী সম্পাদক: মাে: মাহবুবুল আম্বিয়া
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক: প্রদ্যুৎ কুমার তালুকদার

সম্পাদকীয় ও বাণিজ্যিক কার্যালয়: স্বাধীনতা ভবন (৩য় তলা), ৮৮ মতিঝিল বাণিজ্যিক এলাকা, ঢাকা-১০০০। Editorial & Commercial Office: Swadhinota Bhaban (2nd Floor), 88 Motijheel, Dhaka-1000.
সম্পাদক কর্তৃক রঙতুলি প্রিন্টার্স ১৯৩/ডি, মমতাজ ম্যানশন, ফকিরাপুল কালভার্ট রোড, মতিঝিল, ঢাকা-১০০০ থেকে মুদ্রিত ও প্রকাশিত ।
ফোন : ০২-৯৫৫২২৯১ মোবাইল: ০১৬৭০৬৬১৩৭৭

Phone: 02-9552291 Mobile: +8801670 661377
ই-মেইল : dailyswadhinbangla@gmail.com , editor@dailyswadhinbangla.com, news@dailyswadhinbangla.com

 

    2015 @ All Right Reserved By dailyswadhinbangla.com

Developed By: Nytasoft