শনিবার, 16 ফেব্রুয়ারি ২০১৯ | বাংলার জন্য ক্লিক করুন
  
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   জাতীয় -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
নদী দখল ও দূষণ রোধে ১০ বছরের মাস্টারপ্ল্যান

স্টাফ রিপোর্টার : রাজধানীর আশপাশের বুড়িগঙ্গা, শীতলক্ষ্যা, তুরাগ ও চট্টগ্রামের কর্ণফুলীসহ অন্যান্য নদী দখল ও দূষণমুক্ত এবং নাব্যতা ফিরিয়ে আনতে ১০ বছরের মাস্টারপ্ল্যানের খসড়া চূড়ান্ত করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম। গতকাল বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে চট্টগ্রামের কর্ণফূলীসহ ঢাকার চারপাশের নদীগুলোর দূষণরোধ ও নাব্যতা বৃদ্ধির জন্য মাস্টারপ্ল্যান তৈরি সংক্রান্ত কমিটির সভা শেষে মন্ত্রী একথা জানান। সভায় নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, ঢাকার দুই সিটি, চট্টগ্রাম, নারায়ণগঞ্জ ও গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র ও প্রতিনিধি এবং সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

তাজুল ইসলাম বলেন, অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনকভাবে দীর্ঘদিন পর্যন্ত নদী সঠিকভাবে সংরক্ষণ না করার কারণে অনেক দূষণ ও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এসব নদী উদ্ধার করার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার একটি সুনির্দিষ্ট সিদ্ধান্তের পরিপ্রেক্ষিতে নদীগুলো নিয়ে একটি মাস্টারপ্ল্যান করার জন্য কমিটি করা হয়েছে। নদী দূষণমুক্ত করে যাতে সঠিকভাবে ব্যবহার করা যায় ও স্যুয়ারেজ সিস্টেম, ওয়েস্টেজ ম্যানেজমেন্ট- এগুলোর জন্য কাজ করা হয় এজন্য মাস্টারপ্ল্যান করা হয়েছে। মাস্টারপ্ল্যানের খসড়াও চূড়ান্ত করা হয়েছে। প্ল্যানের মধ্যে পানি দূষণমুক্ত করা, গৃহস্থালির বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় নিয়ে আসার জন্য বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে। আরবান এলাকায় যে সব বর্জ্য আছে সেগুলোকে শতভাগ যেন ডিসপোজ করতে পারে সেজন্যও আলোচনা হয়েছে। এগুলো পর্যায়ক্রমে বাস্তবায়ন করতে পারলে নদীর পাশাপাশি পরিবেশেরও উন্নয়ন হবে।

মাস্টারপ্ল্যানে কী কী আছে- জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, যে সব ড্রেনেজ বর্জ্য আছে সেগুলো ক্যাশ করার ব্যবস্থা করা হয়েছে। নদীর পাড়ের যেসব জায়গা দখল এবং বর্জ্য নদীতে ফেলা হচ্ছে ও নদীদূষণ হচ্ছে সেগুলো দখলমুক্ত করে দৃষ্টিনন্দন ও সবুজায়ন করার পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। নদীর নাব্যতা বৃদ্ধির জন্য কর্মসূচি নেওয়া হয়েছে। মাস্টারপ্ল্যানে ১০ বছরের ভেতরে বুড়িগঙ্গা, তুরাগ, কর্ণফুলী, শীতলক্ষ্যা নদীর নাব্যতা বৃদ্ধি ও দূষণমুক্ত করার জন্য ১০ বছরের কর্মসূচি হাতে নেওয়া হয়েছে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, মাস্টারপ্ল্যান আগামি সভায় ফাইনাল করবো বলে সিদ্ধান্ত হয়েছে।

প্ল্যানে এক বছর, তিন বছর, পাঁচ বছর ও ১০ বছরের পর্যায়ে ভাগ করা হয়েছে। আশা করি এ কর্মসূচি সম্পূর্ণভাবে বাস্তবায়ন করা গেলে নদীগুলোর নাব্যতা অনেকাংশে ফিরিয়ে আসবে ও ভবিষতে আরো দীর্ঘমেয়াদী কর্মসূচি নেওয়া হবে। অন্যান্য নদীর বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, সব নদীতে অথবা যে সব নদীর পাড়ে অথবা অন্য যে কোনো স্থানে, যে কোথাও যে কেউ অবৈধ স্থাপনা নির্মাণ করা এবং অবৈধভাবে দখল করার বিরুদ্ধে একটা কম্প্রিহেনসিভ অ্যাফোর্ট দেওয়া হবে ও বাস্তবায়ন করা হবে।

মাস্টারপ্ল্যানের বাজেট সম্পর্কে মন্ত্রী বলেন, মাস্টারপ্ল্যান কমপ্লিট করার পরে বাজেট নিয়ে কাজ করবো। বুড়িগঙ্গা ও কর্ণফুলীর পাশাপাশি অন্যান্য নদীর পাড়ের উচ্ছেদ অভিযান চালানো হবে কিনা- প্রশ্নে মন্ত্রী বলেন, কর্ণফুলী নদীতেও উচ্ছেদ অভিযান চলছে। আলোচনায় এসেছে মেঘনা নদীর পাড়েও বেশকিছু শিল্প কারখানা স্থাপিত হয়েছে, সেগুলোর মাধ্যমে যাতে নদীদূষণ না করতে পারে সেজন্য সঠিক পদক্ষেপ নেওয়ার আলোচনা হয়েছে।

নদী দখল ও দূষণ রোধে ১০ বছরের মাস্টারপ্ল্যান
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : রাজধানীর আশপাশের বুড়িগঙ্গা, শীতলক্ষ্যা, তুরাগ ও চট্টগ্রামের কর্ণফুলীসহ অন্যান্য নদী দখল ও দূষণমুক্ত এবং নাব্যতা ফিরিয়ে আনতে ১০ বছরের মাস্টারপ্ল্যানের খসড়া চূড়ান্ত করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম। গতকাল বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে চট্টগ্রামের কর্ণফূলীসহ ঢাকার চারপাশের নদীগুলোর দূষণরোধ ও নাব্যতা বৃদ্ধির জন্য মাস্টারপ্ল্যান তৈরি সংক্রান্ত কমিটির সভা শেষে মন্ত্রী একথা জানান। সভায় নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, ঢাকার দুই সিটি, চট্টগ্রাম, নারায়ণগঞ্জ ও গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র ও প্রতিনিধি এবং সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

তাজুল ইসলাম বলেন, অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনকভাবে দীর্ঘদিন পর্যন্ত নদী সঠিকভাবে সংরক্ষণ না করার কারণে অনেক দূষণ ও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এসব নদী উদ্ধার করার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার একটি সুনির্দিষ্ট সিদ্ধান্তের পরিপ্রেক্ষিতে নদীগুলো নিয়ে একটি মাস্টারপ্ল্যান করার জন্য কমিটি করা হয়েছে। নদী দূষণমুক্ত করে যাতে সঠিকভাবে ব্যবহার করা যায় ও স্যুয়ারেজ সিস্টেম, ওয়েস্টেজ ম্যানেজমেন্ট- এগুলোর জন্য কাজ করা হয় এজন্য মাস্টারপ্ল্যান করা হয়েছে। মাস্টারপ্ল্যানের খসড়াও চূড়ান্ত করা হয়েছে। প্ল্যানের মধ্যে পানি দূষণমুক্ত করা, গৃহস্থালির বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় নিয়ে আসার জন্য বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে। আরবান এলাকায় যে সব বর্জ্য আছে সেগুলোকে শতভাগ যেন ডিসপোজ করতে পারে সেজন্যও আলোচনা হয়েছে। এগুলো পর্যায়ক্রমে বাস্তবায়ন করতে পারলে নদীর পাশাপাশি পরিবেশেরও উন্নয়ন হবে।

মাস্টারপ্ল্যানে কী কী আছে- জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, যে সব ড্রেনেজ বর্জ্য আছে সেগুলো ক্যাশ করার ব্যবস্থা করা হয়েছে। নদীর পাড়ের যেসব জায়গা দখল এবং বর্জ্য নদীতে ফেলা হচ্ছে ও নদীদূষণ হচ্ছে সেগুলো দখলমুক্ত করে দৃষ্টিনন্দন ও সবুজায়ন করার পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। নদীর নাব্যতা বৃদ্ধির জন্য কর্মসূচি নেওয়া হয়েছে। মাস্টারপ্ল্যানে ১০ বছরের ভেতরে বুড়িগঙ্গা, তুরাগ, কর্ণফুলী, শীতলক্ষ্যা নদীর নাব্যতা বৃদ্ধি ও দূষণমুক্ত করার জন্য ১০ বছরের কর্মসূচি হাতে নেওয়া হয়েছে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, মাস্টারপ্ল্যান আগামি সভায় ফাইনাল করবো বলে সিদ্ধান্ত হয়েছে।

প্ল্যানে এক বছর, তিন বছর, পাঁচ বছর ও ১০ বছরের পর্যায়ে ভাগ করা হয়েছে। আশা করি এ কর্মসূচি সম্পূর্ণভাবে বাস্তবায়ন করা গেলে নদীগুলোর নাব্যতা অনেকাংশে ফিরিয়ে আসবে ও ভবিষতে আরো দীর্ঘমেয়াদী কর্মসূচি নেওয়া হবে। অন্যান্য নদীর বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, সব নদীতে অথবা যে সব নদীর পাড়ে অথবা অন্য যে কোনো স্থানে, যে কোথাও যে কেউ অবৈধ স্থাপনা নির্মাণ করা এবং অবৈধভাবে দখল করার বিরুদ্ধে একটা কম্প্রিহেনসিভ অ্যাফোর্ট দেওয়া হবে ও বাস্তবায়ন করা হবে।

মাস্টারপ্ল্যানের বাজেট সম্পর্কে মন্ত্রী বলেন, মাস্টারপ্ল্যান কমপ্লিট করার পরে বাজেট নিয়ে কাজ করবো। বুড়িগঙ্গা ও কর্ণফুলীর পাশাপাশি অন্যান্য নদীর পাড়ের উচ্ছেদ অভিযান চালানো হবে কিনা- প্রশ্নে মন্ত্রী বলেন, কর্ণফুলী নদীতেও উচ্ছেদ অভিযান চলছে। আলোচনায় এসেছে মেঘনা নদীর পাড়েও বেশকিছু শিল্প কারখানা স্থাপিত হয়েছে, সেগুলোর মাধ্যমে যাতে নদীদূষণ না করতে পারে সেজন্য সঠিক পদক্ষেপ নেওয়ার আলোচনা হয়েছে।

মুসল্লিদের আগমনে মুখরিত টঙ্গীর তুরাগ তীর
                                  

গাজীপুর প্রতিনিধি : টঙ্গীর তুরাগ তীরের বিশ্ব ইজতেমা ময়দানে আজ থেকে শুরু হচ্ছে তাবলিগ জামাতের চার দিনব্যাপী বিশ্ব ইজতেমা। এবার ১৫ ও ১৬ ফেব্রুয়ারি ইজতেমার কার্যক্রম পরিচালনা করবেন মাওলানা জোবায়েরের অনুসারীগণ। ১৬ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত হবে তাদের আখেরি মোনাজাত। পরে ১৭ ও ১৮ ফেব্রুয়ারি ইজতেমার কার্যক্রম পরিচালনা করবেন সা’দপন্থি মাওলানা ওয়াসিফুল ইসলামের অনুসারীগণ। ১৮ ফেব্রুয়ারি তাদের আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হবে এবারের ৫৪তম বিশ্ব ইজতেমা কার্যক্রম।

দেশ-বিদেশের মুসল্লিরা গত বুধবার থেকেই ইজতেমার ময়দানে আসতে শুরু করেছেন। বিভিন্ন স্থান থেকে মুসুল্লিরা জামাতবদ্ধ হয়ে ময়দানে এসে খিত্তায় খিত্তায় অবস্থান নিচ্ছেন। মুসল্লিদের ইজতেমা ময়দানে আসা অব্যাহত রয়েছে। মুসল্লিরা বাস-ট্রাক, কার-পিক আপসহ বিভিন্ন যানবাহনে করে দলে দলে ইজতেমাস্থলে আসছেন। পরে গাড়ি থেকে নেমে তারা কাঁধে-পিঠে প্রয়োজনীয় মালামালের গাইট (গাট্টি) ও ব্যাগ নিয়ে মাঠের নির্ধারিত স্থানে অবস্থান নিচ্ছেন।

মুসুল্লিদের পদচারণায় টঙ্গীর তুরাগ তীরের ইজতেমাস্থল এখন মুখরিত হয়ে উঠেছে। তাবলিগ জামাতের উদ্যোগে প্রতি বছর টঙ্গীর তুরাগ নদীর তীরে এ বিশ্ব ইজতেমা অনুষ্ঠিত হয়। ১৬০ একর এলাকা জুড়ে বিস্তৃত ইজতেমা ময়দানে বাংলাদেশসহ বিশ্বের বিভিন্ন মুসলিম দেশর তাবলিগ জামাতের অনুসারী ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা অংশ নেন। তারা এখানে তাবলিগ জামাতের শীর্ষ মুরব্বি/আলেমদের বয়ান শুনেন এবং ইসলামের দাওয়াতি কাজ বিশ্বব্যাপী পৌঁছে দেওয়ার জন্য জামাতবদ্ধ হয়ে এখান থেকেই দ্বীনের দাওয়াতি কাজে বেরিয়ে যান। বরাবরের মতো ইজতেমা মাঠের পশ্চিম-উত্তর কোণে গড়ে তোলা হয়েছে বিদেশি মুসল্লিদের আবাসন ব্যবস্থা। ময়দানের বাকি অংশে অবস্থান নিচ্ছেন/নেবেন দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আসা মুসল্লিরা। ইজতেমায় আগত মুসল্লিদের তুরাগ নদী পারাপারের সুবিধার জন্য ময়দান এলাকায় তুরাগ নদীর সাতটি স্থানে পন্টুন ব্রিজ স্থাপন করা হয়েছে।

ঢাকার লাগবাগ থেকে ইজতেমায় এসেছেন মো. সেলিম মিয়া। তিনি বুধবার দিবাগত রাত ৩টার ইজতেমা মাঠে পৌঁছান বলে জানান। তিনি বলেন, ‘আমি এখানে এসেছি দ্বীনের কথা শুনতে, আল্লাহ তায়ালার সন্তুষ্টির জন্য। দ্বীনের কথা মানুষের কাছে পৌঁছে দেওয়ার জন্য।’ বুধবার দিবাগত রাত ১টার দিকে ইজতেমা মাঠে পৌঁছান ঢাকার মিরপুরের রায়হান।

তিনি জানান, ৪৫ জনের জামাতের সঙ্গে তিনি এসেছেন। তিনি বলেন, ইজতেমায় আসার উদ্দেশ্য ধর্মীয় কাজ করে গুনাহ মাফ এবং আল্লাহ ও রাসুলকে রাজি-খুশি করা। গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার ওয়াই এম বেলালুর রহমান জানান, নিরাপত্তায় নিয়োজিত সদস্যরা সকাল থেকেই কর্তব্যরত আছেন। পোশাকে এবং সাদা পোশাকে আগের তুলনায় অনেক বেশি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য মোতায়েন করা হয়ে। গোয়েন্দা নজরদারি বাড়ানো হয়েছে।

একইসাথে ওয়াচ টাওয়ার এবং সিসি ক্যামেরা দ্বারা পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে। ময়দানের প্রতিটি জায়গা সিসি ক্যামেরার আওতায় আনা হয়েছে। ময়দানের নিরাপত্তামূলক ব্যবস্থা অত্যন্ত ভালো এবং পর্যাপ্ত নেওয়া হয়েছে। তিনি বলেন, আমাদের কাছে সুনির্দিষ্ট কোনো থ্রেট নেই। তারপরও আমরা যাবতীয় জিনিস বিবেচনায় রেখে নিরাপত্তা ব্যবস্থা রেখেছি।

তৃতীয় ধাপের ভোট ২৪ মার্চ
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : উপজেলা নির্বাচনের তৃতীয় ধাপে আগামী ২৪ মার্চ দেশের সাত বিভাগের ২৫ জেলার ১২৭ উপজেলায় ভোট গ্রহণ করা হবে। গতকাল নির্বাচন কমিশন-ইসি যুগ্ম-সচিব (জনসংযোগ) এস এম আসাদুজ্জামান এ তথ্য জানিয়েছেন। তিনি জানান, তৃতীয় ধাপের উপজেলা নির্বাচনের মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ তারিখ ২৬ ফেব্রুয়ারি। যাচাই-বাছাই হবে ২৮ ফেব্রুয়ারি। মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেখ তারিখ ৭ মার্চ। ভোট গ্রহণ করা হবে ২৪ মার্চ। এর আগে ইসির ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী, প্রথম ধাপে ৮৭ উপজেলায় ১০ মার্চ ও দ্বিতীয় ধাপে ১২৯ উপজেলায় ১৮ মার্চ ভোট গ্রহণের তারিখ নির্ধারণ করা আছে। চতুর্থ ধাপে ৩১ মার্চ এবং বাকি উপজেলাগুলোতে ১৮ জুলাই ভোট গ্রহণ করা হবে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন ইসি সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ।

উপজেলাগুলো হলো_চাপাইনাবাগঞ্জের ভোলাহাট, গোমস্তাপুর, নাচোল ও শিবগঞ্জ; রংপুরের সদর ও মিঠাপুকুর; চুয়াডাঙ্গার সদর, আলমডাঙ্গা, দামুড়হুদা ও জীবননগর; মাগুড়ার সদর, শ্রীপুর, শালিখা ও মোহাম্মদপুর; নড়াইলের সদর, কালিয়া ও লোহাগড়া; সাতক্ষীরার সদর, আশাশুনি, শ্যামনগর, কালীগঞ্জ, কলারোয়া, তালা ও দেবহাটা; কুষ্টিয়ার সদর, ভেড়ামারা, কুমারখালী, মিরপুর, খোকসা ও দৌলতপুর; মেহেরপুরের সদর, মুজিবনগর ও গাংনী; ঝিনাইদহের সদর, শৈলকুপা, হরিনাকু-ু ও কালীগঞ্জ।

তৃতীয় ধাপের উপজেলাগুলোর মধ্যে আরও রয়েছেÑবরিশালের সদর, বাকেরগঞ্জ, বাবুগঞ্জ, বানারীপাড়া, উজিরপুর, গৌরনদী, আগৈলঝরা, মুলাদী ও হিজলা; ঝালকাঠির সদর, নলছিটি, রাজাপুর ও কাঠালিয়া; ভোলার বোরহানউদ্দিন; শেরপুরের নালিতাবাড়ী, শ্রীবর্দী ও ঝিনাইগাতি; মাদারীপুরের শিবচর, কালকিনি ও রাজৈর; শরিয়তপুরের সদর, জাজিরা, নড়িয়া, ভেদরগঞ্জ, ডামুড্যা ও গোসাইরহাট; গোপালগঞ্জের সদর, কোটালিপাড়া, টুঙ্গীপাড়া,  কাশিয়ানি ও মকসুদপুর; রাজবাড়ীর সদর, গোয়ালন্দ, পাংশা ও বালিয়াকান্দি; মানিকগঞ্জের সদর, দৌলতপুর, ঘিওর, শিবালয়, সিংগাইর, হরিরামপুর ও সাটুরিয়া; গাজীপুরের কাপাসিয়া, কালিয়াকৈর, শ্রীপুর ও কালিগঞ্জ; নরসিংদীর সদর, পলাশ, শিবপুর, মনোহরদী, বেলাব ও রায়পুরা; কিশোরগঞ্জের সদর, হোসেনপুর, কটিয়াদী, পাকুন্দিয়া, তাড়াইল, করিমগঞ্জ, ইটনা, মিঠামইন, অষ্টগ্রাম, নিকলী, বাজিতপুর, কুলিয়ারচর ও ভৈরব।

তৃতীয় ধাপের বাকি উপজেলাগুলো হলো_চাঁদপুরের সদর, কচুয়া, মতলব উত্তর, মতলব দক্ষিণ, ফরিদগঞ্জ, হাজিগঞ্জ ও শাহরাস্তি; লক্ষ্মীপুরের সদর, রামগঞ্জ, রায়পুর, কমলনগর ও রামগতি; চট্টগ্রামের বোয়ালখালী, পটিয়া, আনোয়ারা, চন্দনাইশ, লোহাগাড়া ও বাঁশখালী; কক্সবাজারের সদর, পেকুয়া, কুতুবদিয়া, মহেশখালী, রামু, উখিয়া ও টেকনাফ।

নিরপেক্ষতার ভিত্তিতে নির্বাচন পরিচালনা করতে হবে
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : নির্বাচন পরিচালনার ক্ষেত্রে কোনো রকমের আপস করার প্রয়োজন নেই জানিয়ে  প্রধান নির্বাচন কমিশনার-সিইসি কে এম নূরুল হুদা বলেছেন, কেবল নিরপেক্ষতা ও আইনকানুনের ভিত্তিতে নির্বাচন পরিচালনা করতে হবে।

বৃহস্পতিবার সকালে পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচন উপলক্ষে দ্বিতীয় পর্যায়ে নিয়োগ করা রিটার্নিং কর্মকর্তা/সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তাদের এই নির্দেশনা দেন তিনি।

নূরুল হুদা বলেন, রিটার্নিং কর্মকর্তা সম্পূর্ণ উপজেলা পরিষদে নির্বাচন বন্ধ করার সুপারিশ করতে পারেন। কমিশন যদি মনে করে সুপারিশের পেছনে যুক্তি আছে, তাহলে ওই সম্পূর্ণ এলাকার নির্বাচন বন্ধ করে দিতে পারে।

জার্মানির পথে প্রধানমন্ত্রী
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : জার্মানির উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বৃহস্পতিবার সকাল ৮টা ২০ মিনিটে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি ভিভিআইপি ফ্লাইটে তিনি জার্মানির উদ্দেশে রওনা হন।

মিউনিখ নিরাপত্তা কাউন্সিলের সভায় যোগ দিতে প্রথমে জার্মানি যাবেন প্রধানমন্ত্রী। পরে সেখান থেকে প্রধানমন্ত্রী সংযুক্ত আরব আমিরাত সফর করবেন।

প্রধানমন্ত্রীর সফর বিষয়ে বুধবার পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন বলেন, মিউনিখ সিকিউরিটি কনফারেন্সের আমন্ত্রণে আগামী ১৫ থেকে ১৭ ফেব্রুয়ারি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জার্মানির মিউনিখ সফর করবেন। এরপর মিউনিথ থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আগামী ১৭ ফেব্রুয়ারি সংযুক্ত আরব আমিরাত সফরে যাবেন। সফর শেষে ২০ ফেব্রুয়ারি দেশে পৌছবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। দেশ দুটি সফরকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একাধিক আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে সাক্ষাৎকার দিতে পারেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, সংযুক্ত আরব আমিরাত সফরে দু’দেশের মধ্যে বিনিয়োগ সংক্রান্ত দুটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হবে। প্রধানমন্ত্রী রাষ্ট্রও সরকার প্রধানদের জন্য নির্ধারিত সেশনসহ অন্যান্য সেশনে রোহিঙ্গা ক্রাইসিস ও আঞ্চলিক নিরাপত্তার বিষয়ে আলোচনার স্থান পাবে। এছাড়াও জলবায়ুসহ বিভিন্ন বিষয়ে বাংলাদেশের অর্জন ও সাফল্য বিশ্ববাসীর সামনে তুলে ধরা যাবে।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন বলেন, সংযুক্ত আরব আমিরাত মধ্যপ্রাচ্যের অন্যতম অর্থনৈতিক শক্তি ও বাণিজ্যিক কেন্দ্র। আগামী বছর অনুষ্ঠিতব্য দুবাই এক্সপোতে বাংলাদেশ বৃহত্তর পরিসরে অংশ নিবে। বাণিজ্য ও বিনিয়োগের ক্ষেত্রে দুই দেশের বিরাজমান সম্পর্ককে আরো সম্প্রসারিত করাই প্রধানমন্ত্রীর সফরের অন্যতম উদ্দেশ্য। এই সফরে দেশটির সঙ্গে বিনিয়োগ সংক্রান্ত দুইটি সমাঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করা হবে। এগুলো হচ্ছে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতের উন্নয়নে বাংলাদেশ পাওয়ার ডেভেলপমেন্ট বোর্ডের সঙ্গে সংযুক্ত আরব আমিরাতের শেখ আহমেদ ডালমুখ আল মাখতুমের ব্যক্তিগত অফিসের সঙ্গে সমাঝোতা স্মারক স্বাক্ষর। বাকিটা হচ্ছে, মাতারবাড়িতে ৩০০ একরের বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলের উন্নয়নে বাংলাদেশ ইনভেস্টমেন্ট ডেভেলপমেন্ট অথরিটির সঙ্গে সংযুক্ত আরব আমিরাতের শেখ আহমেদ ডালমুখ আল মাখতুমের ব্যক্তিগত অফিসের সঙ্গে সমাঝোতা স্মারক স্বাক্ষর।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আসন্ন সংযুক্ত আরব আমিরাত সফরের গুরুত্ব বোঝাতে গিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ. কে. আব্দুল মোমেন জানান, এই সফরে ১৭ ফেব্রুয়ারি সকালে আবুধাবিতে অনুষ্ঠিতব্য আন্তর্জাতিক ডিফেন্স প্রদর্শনী পরিদর্শন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এরপর প্রধানমন্ত্রী সংযুক্ত আরব আমিরাতের উপ-রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, প্রতিরক্ষা মন্ত্রী এবং দুবাইয়ের শাসক শেখ মোহাম্মদ বিন রশীদ আল-মাকতুমের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বৈঠক করবেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে আবুধাবির ক্রাউন প্রিন্স এবং আরব আমিরাতের ডেপুটি সুপ্রিম কমান্ডার শেখ মুহাম্মদ বিন যায়েদ আল-নাহিয়ানের সঙ্গেও বৈঠক হতে পারে। এছাড়া আগামী ১৮ ফেব্রুয়ারি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সংযুক্ত আরব আমিরাতের প্রয়াত রাষ্ট্রপতি শেখ যায়েদ বিন সুলতানের স্ত্রী শাইখা ফাতিমার সঙ্গে সাক্ষাত করবেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, মিউনিখ সিকিউরিটি কনফারেন্সে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ‘ক্লাইমেট চেঞ্জ এজ এ সিকিউরিটি থ্রেড’ এবং ‘থেলথ সিকিউরিটি রাউন্ডটেবিল’ শীর্ষক দুইটি সেশনে আলোচক হিসেবে উপস্থিত থেকে বক্তৃতা করবেন। এ ছাড়া প্রধানমন্ত্রী রাষ্ট্র বা সরকার প্রধানদের জন্য নির্ধারিত সেশনসহ অন্য সেশনে রোহিঙ্গা সঙ্কট ও আঞ্চলিক নিরাপত্তার বিষয়েও আলোচনা করবেন। মিউনিখ সফরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জার্মানির চ্যান্সেলর এঞ্জেলা মেরকেলের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে অংশ নিবেন। জার্মানি বাংলাদেশের অন্যতম উন্নয়ন সহযোগী এবং একক দেশ হিসেবে জার্মানি সার্বিকভাবে বাংলাদেশর দ্বিতীয় বৃহত্তম (যুক্তরাষ্ট্রের পরে) এবং ইউরোপে সর্ববৃহৎ রপ্তানি বাজার। মেরকেলের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশের উন্নয়নে বিনিয়োগ নিয়ে আলোচনা করবেন। এ ছাড়া রোহিঙ্গা সঙ্কট নিয়েও আলাপ করবেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এই সফরে বৈশ্বিক প্রতিষ্ঠান সিমেন্স এজি’র গ্লোবাল প্রেসিডেন্ট এবং প্রধান নির্বাহীর সঙ্গে বৈঠক হতে পারে। সিমেন্স দেশের বিদ্যুৎ খাতের উন্নয়নে বড় বিনিয়োগ করার প্রস্তাব দিয়েছে। এই সফরে প্রতিষ্ঠানটির সঙ্গে একটি চুক্তি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

৫ জনের মনোনয়ন বৈধ, বাদ ১
                                  

স্বাধীন বাংলা রিপোর্ট: ঋণখেলাপির অভিযোগে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি) উপনির্বাচনে মেয়র পদে বাছাইয়ে বৈধ ঘোষণা করা হয়েছে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আতিকুল ইসলামসহ পাঁচজনের মনোনয়ন। অপরদিকে ঋণখেলাপির দায়ে জাতীয় পার্টির প্রার্থী শাফিন আহমেদের মনোনয়ন বাতিল ঘোষণা করা হয়েছে।

আতিকুল ছাড়া বৈধ হওয়া অন্যরা হলেন- ন্যাশনাল পিপলস পার্টির (এনপিপি) আনিসুর রহমান দেওয়ান, জাতীয়তাবাদী গণতান্ত্রিক আন্দোলনের (এনডিএম) ববি হাজ্জাজ, প্রগতিশীল গণতান্ত্রিক পার্টির (পিডিপি) শাহীন খান ও স্বতন্ত্র প্রার্থী আবদুর রহিম। ২৮ ফেব্রুয়ারি এ ডিএনসিসির নির্বাচন হবে বলে জানায় নির্বাচন কমিশন।
২০১৭ সালের ৩০ নভেম্বর ডিএনসিসির মেয়র আনিসুল হকের মৃত্যুর পর ২০১৮ সালের জানুয়ারিতে উপনির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়। ২৬ ফেব্রুয়ারি এ নির্বাচন হওয়ার কথা ছিল। পরে আদালতের নির্দেশে নির্বাচন স্থগিত হয়ে যায়। ওই সময় আওয়ামী লীগ বিজিএমইএর সাবেক সভাপতি আতিকুল ইসলামকে দলীয় প্রার্থী ঘোষণা করেছিল। বিএনপি প্রার্থী করে তাবিথ আউয়ালকে। এখন অবশ্য বিএনপি নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দিয়েছে।

সিনিয়র সচিব হলেন ৫ জন
                                  

স্বাধীন বাংলা রিপোর্ট: পাঁচ সচিবকে সিনিয়র সচিব করেছে সরকার। বুধবার জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় থেকে এ সংক্রান্ত আদেশ জারি করা হয়েছে।

মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. সোহরাব হোসাইন, সুরক্ষা সেবা বিভাগের সচিব ফরিদ উদ্দিন আহমেদ চৌধুরী, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. শাহ কামালকে সিনিয়র সচিব করা হয়েছে।

এছাড়া যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের সচিব মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ এবং সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব জুয়েনা আজিজকে সিনিয়র সচিব করা হয়েছে। তাদেরকে আগের কর্মস্থলেই সিনিয়র সচিব হিসেবে পদায়ন করা হয়েছে।

সরকারে এখন সিনিয়র সচিবের সংখ্যা হলো ১১ জন। সিনিয়র সচিবদের পদমর্যাদা মন্ত্রিপরিষদ সচিব ও সচিবদের মাঝামাঝি।

এর আগে, ২০১২ সালের ৯ জানুয়ারি মহাজোট সরকার প্রশাসনে প্রথমবারের মতো সিনিয়র সচিব নামে পদ চালু করে।

আবারো স্পিকার হলেন শিরিন শারমিন
                                  

স্বাধীন বাংলা রিপোর্ট: একাদশ জাতীয় সংসদের স্পিকার পদে পুনর্র্নিবাচিত হয়েছেন ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী। এ নিয়ে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় টানা তৃতীয়বারের মতো সংসদের স্পিকার হলেন তিনি। একইসঙ্গে ডেপুটি স্পিকার হিসেবে অ্যাডভোকেট মো. ফজলে রাব্বী মিয়া ফের নির্বাচিত হয়েছেন।

আজ বুধবার বিকেলে ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বী মিয়ার সভাপতিত্বে একাদশ সংসদ অধিবেশনের শুরুতেই স্পিকার নির্বাচনের প্রক্রিয়া শেষ হয়। স্পিকার হিসেবে একমাত্র ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর নাম প্রস্তাব করেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তার প্রস্তাব সমর্থন করেন সংসদের চিফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী।

পরে ডেপুটি স্পিকার নিয়ম অনুযায়ী স্পিকার হিসেবে শিরীন শারমিন চৌধুরীর নাম সংসদে কণ্ঠভোটে দেন। সেই প্রস্তাব সর্বসম্মতভাবে গৃহীত হয়। এ সময় সংসদ নেতা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, তার পাশের ছিটেই বসে ছিলেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী। এরপর রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীকে শপথবাক্য পাঠ করান।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশের প্রথম নারী স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী। একইসঙ্গে বাংলাদেশের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো টানা তৃতীয় মেয়াদে স্পিকারের দায়িত্ব পালন করতে যাচ্ছেন তিনি।

আন্তর্জাতিক কাস্টমস দিবস আজ
                                  

স্বাধীন বাংলা রিপোর্ট: বিশ্বের ১৮৩টি দেশে আজ একযোগে পালিত হচ্ছে আন্তর্জাতিক কাস্টমস দিবস। বাংলাদেশেও দিবসটি যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হচ্ছে। এ বছর দিবসটির প্রতিপাদ্য হচ্ছে ‘নিরবচ্ছিন্ন বাণিজ্য, যাতায়াত ও পরিবহন ব্যবস্থার জন্য স্মার্ট সীমান্ত’।

দিবসটি উপলক্ষে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) বিভিন্ন কর্মসূচি হাতে নিয়েছে। এর মধ্যে আজ সকালে রাজধানীর সেগুনবাগিচা থেকে বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের হবে। সন্ধ্যায় শেরে বাংলা নগরে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে এ উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হবে। এতে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালসহ সরকারি বিভিন্ন বিভাগের কর্মকর্তা ও ব্যবসায়ী নেতারা উপস্থিত থাকবেন।

এনবিআরের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, কাস্টমস বা শুল্ক ব্যবস্থার আধুনিকায়নে বিভিন্ন উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে আমদানি রপ্তানি সহজীকরণের লক্ষ্যে অথরাইজড ইকোনমিক অপারেটর (এইও), ন্যাশনাল সিঙ্গেল উইন্ডো, প্রাক আগমন প্রক্রিয়া, অগ্রিম মূল্য ঘোষণা, অনলাইনে পণ্যের নিলাম প্রক্রিয়া বাস্তবায়ন হয়েছে।

রাজস্ব আহরণের পাশাপাশি প্রতিবেশী দেশ ও অন্যান্য দেশের সীমান্ত সংস্থার মধ্যে আধুনিক ও স্বয়ংক্রিয় ব্যবস্থায় তথ্য আদান-প্রদানের মাধ্যমে আন্তর্জাতিক বৈধ বাণিজ্যকে নির্বিঘ্ন করতেও কাজ করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন এনবিআর চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া।

১৮৯৩ কোটি টাকার প্রকল্প অনুমোদন
                                  

নিজস্ব প্রতিবেদক : একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর নতুন সরকারের জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি-একনেকের প্রথম সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে গতকাল। একনেক  চেয়ারপারসন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে সভায় মোট ৮টি প্রকল্পের অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এ জন্য মোট ব্যয় হবে ১ হাজার ৮৯৩ কোটি ২২ লাখ টাকা। এর পুরোটাই বাস্তবায়ন হবে সরকারি অর্থায়নে। গতকাল একনেক সভা শেষে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান সাংবাদিকদের এসব তথ্য জানান। এ সময় তিনি বলেন, সাম্প্রতিক সময়ে প্রকল্প বাস্তবায়নের হার একটু কম হয়েছে। আমরা জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রার্থী থাকায় প্রকল্প পরিদর্শন করতে পারিনি। তবে এই বাস্তবায়নের হার অতীতের তুলনায় ভালো। পাস হওয়া প্রকল্পগুলোর মধ্যে রয়েছে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের ‘পিপিআর রোগ নির্মূল এবং ক্ষুরারোগ নিয়ন্ত্রণ’ প্রকল্পের জন্য ৩৪৫ কোটি ৩ হাজার টাকা অনুমোদন। ২০১৯ সালের জানুয়ারি থেকে ২০২২ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে তা বাস্তবায়ন করা হবে। পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় বিভাগের ‘দারিদ্র্য বিমোচনের লক্ষ্যে পুষ্টি সমৃদ্ধ খাদ্যের অপ্রধান শস্য উৎপাদন ও বাজারজাতকরণ কর্মসূচি’ প্রকল্পের জন্য ২০৬ কোটি ৩৫ লাখ টাকা অনুমোদন। প্রকল্পের বাস্তবায়নকাল জানুয়ারি’ ২০১৯ থেকে ডিসেম্বর’ ২০২২। বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের ‘বিদ্যমান ৭টি টেক্সটাইল ভোকেশনাল ইনস্টিটিউটের উন্নয়ন ও নতুন ৬টি টেক্সটাইল ভোকেশনাল ইনস্টিটিউট স্থাপন’ প্রকল্প। এর জন্য ব্যয় হবে ৩৫৩ কোটি ৯০ লাখ টাকা। প্রকল্পের মেয়াদ জানুয়ারি’ ২০১৯-ডিসেম্বর’২০২১ সাল। সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের ‘বাংলাদেশ লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশনের জাদুঘর ভবন সম্প্রসারণ এবং অন্যান্য ভৌত অবকাঠামো নির্মাণ’ প্রকল্প। এরজন্য ১৪৭ কোটি ২৬ লাখ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। চলতি বছরের ১ জানুয়ারি থেকে ২০২১ সালের ৩০ ডিসেম্বরের মধ্যে তা বাস্তবায়ন করা হবে। এছাড়া সভায় শিল্প মন্ত্রণালয়ের ‘গোপালগঞ্জ বিসিক শিল্পনগরী সম্প্রসারণ (তৃতীয় সংশোধিত)’ প্রকল্পের জন্য ১০২ কোটি ৮৩ লাখ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। প্রকল্পের প্রথম পর্যায়ে বাস্তবায়নের মেয়াদ ছিল ২০১০ সালের জুলাই থেকে ২০১৩ সালের জুন পর্যন্ত। দ্বিতীয় পর্যায়ে মেয়াদ বৃদ্ধি করে ২০২০ সালের জুন পর্যন্ত করা হয়। সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের ‘যাত্রাবাড়ী (মেয়র হানিফ ফ্লাইওভার) ও ডেমরা (সুলতানা কামাল সেতু) মহাসড়ক চারলেনে উন্নীতকরণ’ প্রকল্পের জন্য ৩৬৮ কোটি ৮৭ লাখ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। জানুয়ারি’ ২০১৯ সাল থেকে ডিসেম্বর’ ২০২০ সালের মধ্যে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা হবে।
একই বিভাগের ‘নেত্রকোনা জেলার চল্লিশা-কুনিয়া-মেদনী-রাজুরবাজার সংযোগ সড়ক নির্মাণ’ প্রকল্পের জন্য ২৫৭ কোটি ২১ লাখ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। চলতি বছরের শুরু থেকে ২০২১ সালের ৩০ জুনের মধ্যে এই প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হবে। অপরদিকে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের ‘গোবিন্দগঞ্জ-ছাতক-দোয়ারাবাজার সড়কে বিদ্যমান ৯টি সরু ও জরাজীর্ণ সেতুর স্থলে ৯টি আরসিসি/ পিসি সেতু নির্মাণ’ প্রকল্পের জন্য ১১১ কোটি ৭৭ লাখ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে একনেক সভায়।

একনেকের প্রথম সভায় প্রধানমন্ত্রীকে পরিকল্পনামন্ত্রীর শুভেচ্ছা
                                  

স্বাধীন বাংলা রিপোর্ট: নবগঠিত সরকারের মন্ত্রীপরিষদের প্রথম একনেক বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান। এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন, অর্থমন্ত্রী আ.হ.ম মোস্তফা কামাল, মুখ্যসচিব নজিবুর রহমান, পরিকল্পনামন্ত্রণালয়ের সদস্য(সচিব) মোঃ দিলোয়ার বখত সহ অন্যরা। একনেকের এ বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান। আজ মঙ্গলবার সকাল ১০ টায় শুরু হওয়া এ বৈঠকে মন্ত্রী পরিষদের অন্যান্য সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

একনেকের প্রথম এ সভায় ১ হাজার ৮৯৩ কোটি টাকা ব্যয়ে ৮ টি প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

সভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার বক্তব্যে, উন্নয়নের ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখতে এবং প্রকল্প বাস্তবায়নের স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিতে মন্ত্রীদের প্রতি নির্দেশ দিয়েছেন।

প্রকল্প বাস্তবায়নে স্বচ্ছতা নিশ্চিত করতে হবে: প্রধানমন্ত্রী
                                  

স্বাধীন বাংলা রিপোর্ট: উন্নয়নের ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখতে এবং প্রকল্প বাস্তবায়নের স্বচ্ছতা ও জবাবদিহি নিশ্চিতে মন্ত্রীদের প্রতি নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আজ মঙ্গলবার সকালে নতুন সরকারের প্রথম একনেক বৈঠক এ নির্দেশ দেন তিনি।

সকাল ১০টার পর শেরেবাংলা নগর এনইসি সম্মেলনকক্ষে শুরু হওয়া একনেক বৈঠকে সভায় ৯টি প্রকল্প উপস্থাপন করা হবে বলে জানা গেছে।

এর আগে পরিকল্পনা বিভাগের সিনিয়র সচিব জিয়াউল ইসলাম বলেন, নতুন সরকারের প্রথম একনেক সভা মঙ্গলবার অনুষ্ঠিত হবে। সভায় মোট ৯টি প্রকল্প উপস্থাপন করা হবে।

পরিকল্পনা বিভাগ জানিয়েছে, যাত্রাবাড়ী (মেয়র হানিফ ফ্লাইওভার)-ডেমরা (সুলতানা কামাল সেতু) মহাসড়ক চার লেনে উন্নীতকরণ নামের প্রকল্পটি প্রথম একনেক টেবিলে স্থান পাবে।

প্রকল্পে প্রস্তাবিত ব্যয় ধরা হয়েছে ৩৬৮ কোটি টাকা। চলতি বছর থেকে ২০২২ সালের জুনের মধ্যে এটি বাস্তবায়ন করবে সড়ক ও জনপথ অধিদফতর।

যাত্রাবাড়ী-ডেমরা-শিমরাইল-নারায়ণগঞ্জ সড়কটি গুরুত্বপূর্ণ আঞ্চলিক মহাসড়ক, যা দুটি প্রধান জাতীয় মহাসড়ক ঢাকা-চট্টগ্রাম ও ঢাকা-সিলেট জাতীয় মহাসড়ক সংযুক্ত করেছে।

প্রস্তাবিত সড়কটি এরই মধ্যে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের মূল অংশের অন্তর্ভুক্ত ছিল। কাঁচপুর সেতু ও পোল্ডার সড়ক নির্মাণের ফলে এ সড়কে যান চলাচল বেড়ে যায়।

এ ছাড়া প্রথম একনেক সভায় ‘পিপিআর রোড নির্মূল এবং ক্ষুরারোগ নিয়ন্ত্রণ’, ‘দারিদ্র্য বিমোচনের লক্ষ্যে পুষ্টিসমৃদ্ধ শস্য উৎপাদন ও বাজারজাতকরণ’ প্রকল্প একনেকে উঠবে।

বিদ্যমান সাতটি টেক্সটাইল ভোকেশনাল ইনস্টিটিউটের উন্নয়ন ও নতুন ছয়টি টেক্সটাইল ভোকেশনাল ইনস্টিটিউট স্থাপন প্রকল্পও একনেক সভায় উঠবে। বাংলাদেশ লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশনের জাদুঘর ভবন সম্প্রসারণ এবং অন্যান্য ভৌত অবকাঠামো নির্মাণ প্রকল্প উপস্থাপন করা হবে।

এ ছাড়া সভায় ‘গোপালগঞ্জ বিসিক শিল্পনগরী সম্প্রসারণ’, নেত্রকোনা জেলার সংযোগ সড়ক নির্মাণ, ‘গোবিন্দগঞ্জ-ছাতক-দোয়ারাবাজর সড়কে ৯টি আরসিসি গার্ডার সেতু নির্মাণ এবং প্রতি জেলা-উপজেলায় অসচ্ছল মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য বহুতল ভবন নির্মাণ প্রকল্প উপস্থাপন করা হবে বলে জানা গেছে।

আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল আর নেই
                                  

স্বাধীন বাংলা রিপোর্ট: দেশবরেণ্য গীতিকবি, সুরকার, অসংখ্য কালজয়ী গানের স্রষ্টা ও বীর মুক্তিযোদ্ধা আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল আর নেই (ইন্না...রাজিউন)। আজ মঙ্গলবার ভোর চারটার দিকে রাজধানীর আফতাবনগরে নিজ বাসায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন আধুনিক বাংলা গানের এই প্রবাদ পুরুষ।

মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৬৩ বছর। তিনি রাষ্ট্রীয় সর্বোচ্চ সম্মান একুশে পদক, দুইবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার এবং রাষ্ট্রপতি পুরস্কারসহ অসংখ্য পুরস্কারে ভূষিত হন। মাত্র ১৫ বছর বয়সে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন এই কিংবদন্তী।

সকাল থেকেই তার বাসায় উপস্থিত গীতিকার কবির বকুল জানান, রাত দুইটার দিকে হঠাৎ অসুস্থ বোধ করেন আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল। পরিবারের সদস্যরা দ্রুত পার্শ্ববর্তী আয়শা মেমোরিয়াল এ নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসকরা তাকে মৃত বলে জানান। তিনি হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মারা গেছেন বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।

আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুলের মরদেহ আফতাবনগরের ২৯ নং বাসা, রোড ২ এ নিজ বাসভবনে রাখা হয়েছে। তাঁর ছেলে সামি জানান, কিংবদন্তী এই সংগীত ব্যক্তিত্বকে শহীদ বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে চিরনিদ্রায় শায়িত করা হবে।

অ্যাকোয়াসহ পাঁচ প্রতিষ্ঠানের পানি ‘মানহীন’
                                  

স্বাধীন বাংলা রিপোর্ট: বাজারে বোতলজাত খাবার পানি সরবরাহকারী অ্যাকোয়াসহ পাঁচ প্রতিষ্ঠানের ‘পানি মানহীন’ বলে আদালতকে জানিয়েছে বিএসটিআই (বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ড টেস্টিং ইনস্টিটিউশন)। প্রতিষ্ঠানগুলো হলো- অ্যাকোয়া মিনারেল, ইয়ামি ইয়ামি, ওসমা, সিনমিন ও সিএফবি।

সোমবার হাইকোর্টের বিচারপতি শেখ হাসান আরিফ ও বিচারপতি রাজিক আল জলিলের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চে রাষ্ট্রপক্ষের সংশ্লিষ্ট আইনজীবী এমন তথ্য জানান।

আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে শুনানির জন্য এদিন উপস্থিত ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মোখলেসুর রহমান। রিট আবেদনকারীর পক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট মো. জে আর খান রবিন।

ওই পাঁচ প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে কী ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে তা আগামী ২৪ ফেব্রুয়ারি জানাতে বলেছেন হাইকোর্ট।

এর আগে ১৩ জানুয়ারি অবৈধভাবে ও নিম্নমানের জার ও বোতলজাত খাবার পানি উৎপাদন ও বাজারজাত বন্ধে গঠিত কমিটি কী কাজ করেছে তার বিস্তার প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেন আদালত। এছাড়া বিএসটিআইকে এক সপ্তাহের মধ্যে এ-সংক্রান্ত প্রতিবেদন দাখিল করতে বলা হয়।

গত বছর ৩ ডিসেম্বর এক আদেশে বেআইনিভাবে খাবার পানি বাজারে সরবরাহ বন্ধের নির্দেশ দেন। বিএসটিআই ও আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে এ নির্দেশ বাস্তবায়ন করতে বলা হয়। এছাড়া আদালতের আদেশ বাস্তবায়নে বিএসটিআই কী পদক্ষেপ নিয়েছে তা ১৫ দিনের মধ্যে অ্যাটর্নি জেনারেলের মাধ্যমে আদালতকে লিখিতভাবে জানাতে নির্দেশ দেয়া হয়।

আদালত ওই সময় অন্তর্বর্তীকালীন নির্দেশনার পাশাপাশি রুল জারি করেন। রুলে প্লাস্টিক বোতল ও জারে বিশুদ্ধ পানি সরবরাহে সরকারের ব্যর্থতা কেন বেআইনি ঘোষণা করা হবে না এবং প্লাস্টিক বোতল ও জারে বিশুদ্ধ পানি সরবরাহে কেন নির্দেশ দেয়া হবে না- তা জানতে চাওয়া হয়েছে। খাদ্য ও স্বাস্থ্য সচিব, স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক, ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালকসহ সাতজনকে রুলের জবাব দিতে বলা হয়।

‘প্রতারণার নাম বোতলজাত পানি’ শিরোনামে গত বছর ২২ মে একটি জাতীয় দৈনিকে প্রকাশিত সংবাদ যুক্ত করে হাইকোর্টে একই বছর ২৭ মে রিট আবেদন করা হয়।

নবম ওয়েজবোর্ড: মন্ত্রিসভা কমিটি পুনর্গঠন
                                  

সংবাদপত্র ও বার্তা সংস্থার কর্মীদের বেতন বাড়াতে নবম মজুরি বোর্ডের সুপারিশ পর্যালোচনায় আগের মন্ত্রিসভা কমিটি পুনর্গঠন করে দিয়েছে সরকার।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে আজ সোমবার তার কার্যালয়ে নতুন মন্ত্রিসভার প্রথম বৈঠকে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরকে প্রধান করে সাত সদস্যের এই কমিটি করা হয়েছে।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম বলেন, সরকারের শেষ সময় কমিটি করা হয়েছিল, মন্ত্রী পরিবর্তন হয়ে যাওয়ায় ওই কমিটি পুনর্গঠন করা হয়েছে।

পুনর্গঠিত কমিটিতে কৃষিমন্ত্রী আব্দুর রাজ্জাক, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল, শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ন, তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ, সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ এবং শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী মুন্নুজান সুফিয়ানকে সদস্য করা হয়েছে।

এক প্রশ্নে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, আগের কমিটির কার্যপরিধি ঠিক রাখা হয়েছে। সেই হিসেবে আগামী ২৮ জানুয়ারির মধ্যে নবম বেতন কাঠামোর প্রজ্ঞাপন জারি করতে হবে। তবে পুনর্গঠিত কমিটি চাইলে সময় বাড়াতে পারবে।

প্রতিবন্ধী কোটা বাতিল হয়নি: মন্ত্রিপরিষদ সচিব
                                  

প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির সরকারি চাকরিতে সব ধরনের কোটা বাতিল করা হলেও প্রতিবন্ধীদের কোটা বহাল আছে বলে জানিয়েছেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম। তবে প্রতিবন্ধীদের কোটা কীভাবে কার্যকর হচ্ছে, সে বিষয়ে কোনো স্পষ্ট ব্যাখ্যা তিনি দিতে পারেননি। আজ সোমবার সচিবালয়ে মন্ত্রিসভার ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এ কথা জানান তিনি।

‘প্রতিবন্ধী ব্যক্তির অধিকার ও সুরক্ষা আইন, ২০১৩’ এবং ‘প্রতিবন্ধী ব্যক্তির অধিকার ও সুরক্ষা বিধিমালা, ২০১৫’ এর আলোকে প্রতিবন্ধী বিষয়ক জাতীয় কর্ম-পরিকল্পনার খসড়া অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা।

এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, এটা নিয়ে মন্ত্রিসভায় আলোচনা হয়নি। তবে আপনাদের জানার জন্য বলি, আইনে যে প্রভিশন আছে ওটা কিন্তু কার্টেল হয়নি। অ্যাডমিনিস্ট্রেটিভ অর্ডার (প্রশাসনিক আদেশ) দিয়ে আইন কখনো সুপারসিড হয় না। (প্রতিবন্ধীদের কোটা আইনানুযায়ী) যা ছিল, তাই আছে।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, আইন বা বিধিমালার আলোকে সেই ব্যাপারে গাইডলাইন দেওয়া হয়েছে। প্রবেশগম্যতা বা অ্যাক্সেসিবিলিটি, অর্থাৎ প্রতিবন্ধীরা চলাফেলার ক্ষেত্রে কোন জায়গায় কীভাবে যাবেন সেটা নিয়ে অনেকগুলো বিষয় রাখা আছে।

তাহলে প্রতিবন্ধীদের জন্য কোটা কীভাবে থাকছে- এই প্রশ্নে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, কোটা যা ছিল তাই আছে।

কোটা বাতিলের আন্দোলনের পরিপ্রেক্ষিতে মন্ত্রিপরিষদ সচিবের নেতৃত্বে গঠিত কোটা পর্যালোচনা কমিটি বেতন কাঠামোর নবম থেকে ১৩ তম গ্রেড (আগের প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির চাকরি) পর্যন্ত সরকারি চাকরিতে নিয়োগের ক্ষেত্রে সব ধরনের কোটা বাতিলের সুপারিশ করে। পরে গত বছরের ৩ অক্টোবর কোটা বাতিল করে পরিপত্র জারি করে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। এরপর ৪০তম বিসিএসের নিয়োগ প্রক্রিয়াতেও কোটা না রাখার সিদ্ধান্ত নেয় পিএসসি।ঘুষের মামলায় জামিন পেলেন নাজমুল হুদা
স্বাধীন বাংলা রিপোর্ট: ঘুষ গ্রহণের মামলায় চার বছরের সাজার রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করার অনুমতি পেয়েছেন মন্ত্রী ব্যারিস্টার নাজমুল হুদা। একই সঙ্গে আপিলের নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত তাকে জামিন দেওয়া হয়েছে।

হাইকোর্টের দেওয়া সাজার রায়ের বিরুদ্ধে নাজমুল হুদার করা লিভ টু আপিল (আপিলের অনুমতি চেয়ে আবেদন) মঞ্জুর করে সোমবার এই আদেশ দেওয়া হয়। প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন বেঞ্চ এই আদেশ দেন।

হাইকোর্টের দেয়া সাজার রায়ের বিরুদ্ধে নাজমুল হুদার করা লিভ টু আপিল (আপিলের অনুমতি চেয়ে আবেদন) মঞ্জুর করে সোমবার এ আদেশ দেয়া হয়।

আপিল বিভাগের এ আদেশের ফলে কারাগারে থাকা নাজমুল হুদার কারামুক্তিতে আইনগত কোনো বাধা নেই বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট আইনজীবীরা। আদালতে নাজমুল হুদার পক্ষে ছিলেন আইনজীবী এএফ হাসান আরিফ, মুনসুরুল হক চৌধুরী, সিগমা হুদা ও আশানুর রহমান।

দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) পক্ষে ছিলেন আইনজীবী খুরশীদ আলম খান।


   Page 1 of 243
     জাতীয়
নদী দখল ও দূষণ রোধে ১০ বছরের মাস্টারপ্ল্যান
.............................................................................................
মুসল্লিদের আগমনে মুখরিত টঙ্গীর তুরাগ তীর
.............................................................................................
তৃতীয় ধাপের ভোট ২৪ মার্চ
.............................................................................................
নিরপেক্ষতার ভিত্তিতে নির্বাচন পরিচালনা করতে হবে
.............................................................................................
জার্মানির পথে প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
৫ জনের মনোনয়ন বৈধ, বাদ ১
.............................................................................................
সিনিয়র সচিব হলেন ৫ জন
.............................................................................................
আবারো স্পিকার হলেন শিরিন শারমিন
.............................................................................................
আন্তর্জাতিক কাস্টমস দিবস আজ
.............................................................................................
১৮৯৩ কোটি টাকার প্রকল্প অনুমোদন
.............................................................................................
একনেকের প্রথম সভায় প্রধানমন্ত্রীকে পরিকল্পনামন্ত্রীর শুভেচ্ছা
.............................................................................................
প্রকল্প বাস্তবায়নে স্বচ্ছতা নিশ্চিত করতে হবে: প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল আর নেই
.............................................................................................
অ্যাকোয়াসহ পাঁচ প্রতিষ্ঠানের পানি ‘মানহীন’
.............................................................................................
নবম ওয়েজবোর্ড: মন্ত্রিসভা কমিটি পুনর্গঠন
.............................................................................................
প্রতিবন্ধী কোটা বাতিল হয়নি: মন্ত্রিপরিষদ সচিব
.............................................................................................
মন্ত্রীদের সততার সঙ্গে কাজ করতে হবে: প্রধানমন্ত্রীর
.............................................................................................
কর্মঘণ্টা বাড়ানোর চিন্তা করতে হবে: পরিকল্পনামন্ত্রী
.............................................................................................
ওয়েজবোর্ড দ্রুত বাস্তবায়ন করা হবে: তথ্যমন্ত্রী
.............................................................................................
ওয়েজবোর্ড দ্রুত বাস্তবায়ন করা হবে: তথ্যমন্ত্রী
.............................................................................................
দেশকে দুর্নীতিমুক্ত করতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ
.............................................................................................
আজ সিঙ্গাপুর যাচ্ছেন এরশাদ
.............................................................................................
সোহরাওয়ার্দী উদ্যান অভিমুখে জনতার ঢল
.............................................................................................
আজ বাংলাদেশে আসছেন জাতিসংঘের বিশেষ দূত
.............................................................................................
তৃতীয় যমুনা সেতুর পরিকল্পনা নিচ্ছি: পরিকল্পনামন্ত্রী
.............................................................................................
অনিবার্য কারণে জাতীয় ভিটামিন এ প্লাস ক্যাম্পেইন স্থগিত
.............................................................................................
ঠাকুরগাঁওয়ে বিএসএফের গুলিতে বাংলাদেশি নিহত
.............................................................................................
টিআইবির প্রতিবেদন মনগড়া: ইসি
.............................................................................................
প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা জয়
.............................................................................................
৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনে মহাভোট ডাকাতি হয়েছে: বিএনপি
.............................................................................................
ট্রাফিক শৃঙ্খলায় রাজধানীতে বিশেষ অভিযান শুরু
.............................................................................................
আ.লীগের মনোনয়ন ফরম বিক্রি শুরু
.............................................................................................
আজও বিক্ষোভে পোশাক শ্রমিকরা
.............................................................................................
বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা
.............................................................................................
মিয়ানমারের অভিযোগের কড়া প্রতিবাদ বাংলাদেশের
.............................................................................................
আইন সংশোধনের উদ্যোগ
.............................................................................................
বিরোধী দলীয় নেতা এরশাদ
.............................................................................................
একাদশ সংসদের প্রথম অধিবেশন ৩০ জানুয়ারি
.............................................................................................
আজও সড়কে পোশাক শ্রমিকরা
.............................................................................................
বাসে টুঙ্গিপাড়া যাচ্ছেন মন্ত্রীরা
.............................................................................................
আজ টুঙ্গিপাড়া যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
স্থগিত ৩ কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ চলছে
.............................................................................................
এক মাসের মধ্যে মজুরি কাঠামো পর্যালোচনা করা হবে: বাণিজ্যমন্ত্রী
.............................................................................................
সৌদি থেকে ১৩ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে পৌঁছেছে
.............................................................................................
বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে নতুন মন্ত্রীপরিষদের শ্রদ্ধা
.............................................................................................
চতুর্থবারের মতো প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার শপথ
.............................................................................................
পহেলা ফেব্রুয়ারি প্রাথমিকের শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা
.............................................................................................
বিকাল সাড়ে ৩টায় নতুন মন্ত্রিসভার শপথ
.............................................................................................
মার্চে উপজেলা নির্বাচন শুরু
.............................................................................................
তৃতীয় সিলেটি পররাষ্ট্রমন্ত্রী ‘ড. মোমেন’
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

সম্পাদক ও প্রকাশক : মোহাম্মদ আখলাকুল আম্বিয়া
নির্বাহী সম্পাদক: মাে: মাহবুবুল আম্বিয়া

সম্পাদকীয় ও বাণিজ্যিক কার্যালয়: স্বাধীনতা ভবন (৩য় তলা), ৮৮ মতিঝিল বাণিজ্যিক এলাকা, ঢাকা-১০০০। Editorial & Commercial Office: Swadhinota Bhaban (2nd Floor), 88 Motijheel, Dhaka-1000.
সম্পাদক কর্তৃক রঙতুলি প্রিন্টার্স ১৯৩/ডি, মমতাজ ম্যানশন, ফকিরাপুল কালভার্ট রোড, মতিঝিল, ঢাকা-১০০০ থেকে মুদ্রিত ও প্রকাশিত ।
ফোন : ০২-৯৫৫২২৯১ মোবাইল: ০১৬৭০৬৬১৩৭৭

Phone: 02-9552291 Mobile: +8801670 661377
ই-মেইল : dailyswadhinbangla@gmail.com , editor@dailyswadhinbangla.com, news@dailyswadhinbangla.com

 

    2015 @ All Right Reserved By dailyswadhinbangla.com

Developed By: Nytasoft