রবিবার, ২৫ অগাস্ট ২০১৯ | বাংলার জন্য ক্লিক করুন
  
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   আন্তর্জাতিক -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
রাহুল গান্ধীর নেতৃত্বে ১১ নেতা যাচ্ছেন কাশ্মীর

স্বাধীন বাংলা ডেস্ক: ভারতীয় কংগ্রেসের সাবেক সভাপতি রাহুল গান্ধী ও দেশটির বিরোধী দলগুলোর আরও ১১ নেতা অধিকৃত জম্মু ও কাশ্মীরে যাচ্ছেন। কাশ্মীর সফরে যাওয়া সর্বদলীয় প্রতিনিধির মধ্যে কংগ্রেস, সিপিআই(এম), সিপিআই, রাষ্ট্রীয় জনতা দল, ন্যাশনালিস্ট কংগ্রেস পার্টি, তৃণমূল কংগ্রেস ও ডিএমকে’র সদস্যরা রয়েছেন। সফরে রাহুল গান্ধী ছাড়াও কংগ্রেসের জ্যেষ্ঠ নেতা গুলাম নবী আজাদ ও আনন্দ শর্মাও যাচ্ছেন। এর আগে গুলাম নবী আজাদ দুইবার কাশ্মীরে যাওয়ার চেষ্টা করলে তাকে বিমানবন্দর থেকেই ফেরত পাঠানো হয়। সর্বশেষ গত মঙ্গলবার তিনি এ চেষ্টা করেছিলেন। খবর এনডিটিভির

চলতি মাসের শুরুতে ভূখণ্ডটির বিশেষ স্বায়ত্তশাসনের মর্যাদা কেড়ে নেয়ার পর থেকে সেখানে যোগাযোগ অচলাবস্থা চলছে। জম্মু ও কাশ্মীরের তথ্য এবং জনসংযোগ অধিদফতর এক টুইটে জানায়, আন্তসীমান্ত সন্ত্রাসবাদ ও হামলা থেকে যখন সরকার জম্মু ও কাশ্মীরের জনগণকে রক্ষায় চেষ্টা করছে, তখন রাজনৈতিক নেতারা সেখানে সফরে গেলে অন্যান্য লোকজন অসুবিধায় পড়ে যাবেন।

রাহুলকে অবশ্য জম্মু ও কাশ্মীরের গভর্নর সত্য পাল মালিক গত ১১ অগাস্ট পরিস্থিতি নিজ চোখে দেখতে কাশ্মীর সফরের আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন। তখন তিনি রাহুলের জন্য কেন্দ্র থেকে দেয়া উড়োজাহাজ পাঠাতেও চেয়েছিলেন।

তিনি বলেছিলেন, আমি রাহুল গান্ধীকে এখানে আসার আমন্ত্রণ জানিয়েছি। আমি আপনাকে উড়োজাহাজ পাঠাবো, যাতে আপনি এখানে এসে পরিস্থিতি দেখে তারপর কথা বলেন। আপনি একজন দ্বায়িত্বশীল ব্যক্তি এবং আপনার এভাবে না দেখে কিছু বলা উচিত না।

কাশ্মীরের স্বায়ত্তশাসনের মর্যাদা বাতিলের পর রাহুল বলেছিলেন, তিনি সেখানে সংঘর্ষ এবং বহু মানুষের মৃত্যুর খবর পাচ্ছেন। তার পরিপ্রেক্ষিতে গভর্নর তাকে ওই আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন।

গভর্নরের আমন্ত্রণ পাওয়ার দুই দিন পর রাহুল তা গ্রহণ করেন। কিন্তু ততক্ষণে গভর্নর তার মত বদলে আমন্ত্রণ প্রত্যাহার করেন এবং রাহুলের ভ্রমণের উপর কিছু শর্ত আরোপ করে বিবৃতি দেন।

গভর্নর মালিক বিবৃতিতে বলেন, রাহুল গান্ধী তার সঙ্গে বিরোধীদলের প্রতিনিধিদের আনতে চেয়ে বিষয়টি নিয়ে রাজনীতি করতে চাইছেন। যা আরো বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করতে পারে এবং এখানে সাধারণ মানুষ অসুবিধায় পড়তে পারেন।

শনিবার সকালে গুলাম নবী আজাদ বলেন, আমরা সব দায়িত্বশীল দল ও তাদের নেতারা কোনো আইন ভাঙতে যাচ্ছি না। জম্মু ও কাশ্মীরের পরিস্থিতি খুবই উদ্বেগজনক। গত ২০ দিন ধরে সেখানে অচলাবস্থা চলছে। সরকার বলছে-পরিস্থিতি স্বাভাবিক। কিন্তু তারা কোনো রাজনৈতিক নেতাকে সেখানে ঢুকতে দিচ্ছে না। এই কংগ্রেস নেতার প্রশ্ন, এতে কোনো বৈপরীত্য নেই? যদি কাশ্মীর পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়, তবে আমাদের সেখানে যেতে দেয়া হচ্ছে না কেন?

রাহুল গান্ধীর নেতৃত্বে ১১ নেতা যাচ্ছেন কাশ্মীর
                                  

স্বাধীন বাংলা ডেস্ক: ভারতীয় কংগ্রেসের সাবেক সভাপতি রাহুল গান্ধী ও দেশটির বিরোধী দলগুলোর আরও ১১ নেতা অধিকৃত জম্মু ও কাশ্মীরে যাচ্ছেন। কাশ্মীর সফরে যাওয়া সর্বদলীয় প্রতিনিধির মধ্যে কংগ্রেস, সিপিআই(এম), সিপিআই, রাষ্ট্রীয় জনতা দল, ন্যাশনালিস্ট কংগ্রেস পার্টি, তৃণমূল কংগ্রেস ও ডিএমকে’র সদস্যরা রয়েছেন। সফরে রাহুল গান্ধী ছাড়াও কংগ্রেসের জ্যেষ্ঠ নেতা গুলাম নবী আজাদ ও আনন্দ শর্মাও যাচ্ছেন। এর আগে গুলাম নবী আজাদ দুইবার কাশ্মীরে যাওয়ার চেষ্টা করলে তাকে বিমানবন্দর থেকেই ফেরত পাঠানো হয়। সর্বশেষ গত মঙ্গলবার তিনি এ চেষ্টা করেছিলেন। খবর এনডিটিভির

চলতি মাসের শুরুতে ভূখণ্ডটির বিশেষ স্বায়ত্তশাসনের মর্যাদা কেড়ে নেয়ার পর থেকে সেখানে যোগাযোগ অচলাবস্থা চলছে। জম্মু ও কাশ্মীরের তথ্য এবং জনসংযোগ অধিদফতর এক টুইটে জানায়, আন্তসীমান্ত সন্ত্রাসবাদ ও হামলা থেকে যখন সরকার জম্মু ও কাশ্মীরের জনগণকে রক্ষায় চেষ্টা করছে, তখন রাজনৈতিক নেতারা সেখানে সফরে গেলে অন্যান্য লোকজন অসুবিধায় পড়ে যাবেন।

রাহুলকে অবশ্য জম্মু ও কাশ্মীরের গভর্নর সত্য পাল মালিক গত ১১ অগাস্ট পরিস্থিতি নিজ চোখে দেখতে কাশ্মীর সফরের আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন। তখন তিনি রাহুলের জন্য কেন্দ্র থেকে দেয়া উড়োজাহাজ পাঠাতেও চেয়েছিলেন।

তিনি বলেছিলেন, আমি রাহুল গান্ধীকে এখানে আসার আমন্ত্রণ জানিয়েছি। আমি আপনাকে উড়োজাহাজ পাঠাবো, যাতে আপনি এখানে এসে পরিস্থিতি দেখে তারপর কথা বলেন। আপনি একজন দ্বায়িত্বশীল ব্যক্তি এবং আপনার এভাবে না দেখে কিছু বলা উচিত না।

কাশ্মীরের স্বায়ত্তশাসনের মর্যাদা বাতিলের পর রাহুল বলেছিলেন, তিনি সেখানে সংঘর্ষ এবং বহু মানুষের মৃত্যুর খবর পাচ্ছেন। তার পরিপ্রেক্ষিতে গভর্নর তাকে ওই আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন।

গভর্নরের আমন্ত্রণ পাওয়ার দুই দিন পর রাহুল তা গ্রহণ করেন। কিন্তু ততক্ষণে গভর্নর তার মত বদলে আমন্ত্রণ প্রত্যাহার করেন এবং রাহুলের ভ্রমণের উপর কিছু শর্ত আরোপ করে বিবৃতি দেন।

গভর্নর মালিক বিবৃতিতে বলেন, রাহুল গান্ধী তার সঙ্গে বিরোধীদলের প্রতিনিধিদের আনতে চেয়ে বিষয়টি নিয়ে রাজনীতি করতে চাইছেন। যা আরো বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করতে পারে এবং এখানে সাধারণ মানুষ অসুবিধায় পড়তে পারেন।

শনিবার সকালে গুলাম নবী আজাদ বলেন, আমরা সব দায়িত্বশীল দল ও তাদের নেতারা কোনো আইন ভাঙতে যাচ্ছি না। জম্মু ও কাশ্মীরের পরিস্থিতি খুবই উদ্বেগজনক। গত ২০ দিন ধরে সেখানে অচলাবস্থা চলছে। সরকার বলছে-পরিস্থিতি স্বাভাবিক। কিন্তু তারা কোনো রাজনৈতিক নেতাকে সেখানে ঢুকতে দিচ্ছে না। এই কংগ্রেস নেতার প্রশ্ন, এতে কোনো বৈপরীত্য নেই? যদি কাশ্মীর পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়, তবে আমাদের সেখানে যেতে দেয়া হচ্ছে না কেন?

ভারতের সাবেক অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি আর নেই
                                  

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ভারতের সাবেক অর্থমন্ত্রী ও দেশটির ক্ষমতাসীন বিজেপির প্রভাবশালী নেতা অরুণ জেটলি আর নেই। মৃত্যুর সময় তার বয়স হয়েছিল ৬৬।

শনিবার দুপুর ১২টা  ৯ মিনিটে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। পাঁচ বছর অর্থমন্ত্রীর দায়িত্ব সামলানোর পর অসুস্থতার কারণে নিজেই মোদীর এবারের সরকারে না থাকার ইচ্ছা জানিয়েছিলেন তিনি।

অসুস্থতার কারণে মোদীর বিগত সরকারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজও এবারের সরকারে থাকেননি। সম্প্রতি তারও মৃত্যু ঘটে।

অরুণ জেটলি পেশাগত জীবনে একজন আইনজীবী ছিলেন। ইন্দিরা গান্ধী সরকারের আমলে জরুরি অবস্থার সময় তাকে জেল খাটতে হয়েছে। তখন তিনি ছাত্র নেতা ছিলেন।

জেল থেকে মুক্তি পাওয়ার পর তিনি ভারতীয় জনসংঘের একজন সদস্য হিসেবে সক্রিয় রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়েন। এরপর দলটিতে বড় পদে আসীন হন তিনি। জনসংঘই পরবর্তী সময়ে বিজেপিতে রূপ নেয়।

অটল বিহারি বাজপেয়ীর মন্ত্রিসভায়ও ছিলেন তিনি। ২০০৯ থেকে ২০১৯ সালে বিজেপি বিরোধী দলে ছিল। তখন অরুণ জেটলি রাজ্য সভায় বিরোধী দলীয় নেতার দায়িত্ব পালন করেন।

আমাজনে সেনা পাঠাচ্ছে ব্রাজিল
                                  

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ইউরোপীয় নেতাদের নিন্দা ও সমালোচনার মুখে আমাজনের উষ্ণমন্ডলীয় বনাঞ্চলের আগুন নিয়ন্ত্রণে সেনা সদস্যদের পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট। শুক্রবার প্রেসিডেন্ট জাইর বোলসোনারো এ সংক্রান্ত একটি ডিক্রি জারি করেছেন বলে জানিয়েছে বিবিসি।

ছোট-বড় মিলিয়ে ৪০ হাজার অগ্নিকা-ের ঘটনা একটু একটু করে শেষ করে দিচ্ছে পৃথিবীর ২০ শতাংশ অক্সিজেনের জোগানদাতা এই অরণ্যকে। প্রতিবছর ২শ কোটি মেট্রিক টন কার্বন ডাই-অক্সাইড শোষণ করে এই বন।

দ্য ন্যাশানাল ইন্সটিটিউট ফর স্পেস রিসার্চ (আইএনপিই) বলছে, চলতি বছর ৭২ হাজার ৮৪৩টি অগ্নিকা-ের ঘটনা রেকর্ড করেছে, যা ২০১৩ সালের পর থেকে সর্বোচ্চ। গত এক সপ্তাহেই স্যাটেলাইটের মাধ্যমে ৯ হাজার ৫০০ স্থান চিহ্নিত হয়েছে।

বিশ্বের এক পঞ্চমাংশ অক্সিজেন সরবরাহকারী বনাঞ্চলে এই ব্যাপক অগ্নিকান্ড নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থতার  জন্য ইউরোপীয় নেতারা  সমালোচনা শুরু করলে বৃহস্পতিবার ক্ষোভ প্রকাশ করেন ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট। তিনি একে তার দেশের অভ্যন্তরীণ ব্যাপার বলেও মন্তব্য করেন।

এর পরিপ্রেক্ষিতে শুক্রবার ফ্রান্স ও আয়ারল্যান্ড ঘোষণা করে আমাজনের আগুন নিয়ন্ত্রণে ব্রাজিল পর্যাপ্ত ব্যবস্থা না নিলে তারা দক্ষিণ আমেরিকার দেশগুলোর সঙ্গে বাণিজ্য চুক্তি নবায়ন করবে না। এছাড়া ইউরোপীয় ইউনিয়নের দেশগুলোতে ব্রাজিলের মাংস আমদানি বন্ধের আহ্বান জানায় ফিনল্যান্ড।

শুক্রবার ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট টেলিভিশনে দেওয়া ভাষণে জানিয়েছেন, তিনি আগুন নিয়ন্ত্রণে সহায়তার জন্য সেনাবাহিনীকে কাজ করার অনুমতি দিয়েছেন।

তিনি বলেন, সেনাবাহিনীর লোক হিসেবে আমি আমাজনকে ভালোবাসতে শিখেছি এবং আমি এর সুরক্ষায় সহযোগিতা করতে চাই।

ভাষাগত দিক থেকে ডিক্রিটি অস্পষ্ট হলেও এতে সেনাবাহিনীকে প্রকৃতি সংরক্ষণ, আদিবাসীদের ভূমি ও আমাজনের সীমানা এলাকা সুরক্ষার জন্য মোতায়েন করা হয়েছে বলে জানানো হয়েছে।

পুড়ছে আমাজন
                                  

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ছাড়খার হয়ে যাচ্ছে পৃথিবীর অন্যতম বড় রেইন ফরেস্ট আমাজন। ছোট-বড় মিলিয়ে ৪০ হাজার অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা একটু একটু করে শেষ করে দিচ্ছে পৃথিবীর ২০ শতাংশ অক্সিজেনের যোগানদাতা এই অরণ্যকে। প্রতিবছর ২শ কোটি মেট্রিক টন কার্বন ডাই-অক্সাইড শোষণ করে এই বন। আর সে কারণেই বিশাল এই বন ‘পৃথিবীর ফুসফুস’ নামে পরিচিত। এছাড়া পৃথিবীর বেশিরভাগ নদীর উৎস আমাজন। এখানে রয়েছে ৪৫ লাখ প্রজাতির পোকামাকড়, বাস করে তিন শতাধিক উপজাতি।

অথচ অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ এই বনই আজ হুমকির মুখে। প্রতিনিয়ত অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় এই বন পুড়ে ছাই হয়ে যাচ্ছে। এমনটা চলতে থাকলে আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্ম হয়তো এই অরণ্যের কথা শুধু বইয়েই পড়বে। এখনই সচেতন না হলে পৃথিবীতে আর কোনো অরণ্যই থাকবে না।
কিন্তু দিনের শেষে ঘুমোতে যাওয়ার আগে এই পৃথিবীর কাছে নিজেদেরকে দায়বদ্ধ মনে করেন যারা বা যারা ভাবেন সমাজের কাছে তারা দায়বদ্ধ, তাদের উচিত এখনই কিছু করা। তার এখনই এ নিয়ে ভাবা উচিত। তার মানে এই না যে সবাইকে আমাজনে গিয়েই প্রতিবাদ করতে হবে। বরং প্রতিবাদ শুরু হতে পারে আপনার ঘর থেকেও। সেখান থেকেই সচেতনা শুরু করা দরকার।
আমাজন রক্ষায় সেখানকার স্থানীয় প্রশাসনের দায় সবচেয়ে বেশি। তবে আমরা যারা আমাজনের কাছাকাছি নেই তাদেরও অনেক দায় আছে। প্রকৃতি প্রতিনিয়ত আমাদের উজার করে দিয়ে যাচ্ছে আর আমরা শুধু সব সুযোগ নিয়েই যাচ্ছি। প্রকৃতিকেও আমাদের কিছু ফিরিয়ে দিতে হবে। সেটার সময় এখনই। যদি এখনই তা করা না যায় তবে পরিবেশ ধ্বংসের জন্য আমরা সবাই দায়ী থাকব।
আর সে জন্য আমরা কিছু কাজ করতে পারি। আমরা আমাদের আশেপাশের মানুষকে সচেতন করতে পারি। আপনার সন্তান বা আশেপাশে যে কাউকে যখনই সময় পাবেন প্রকৃতিকে ভালোবাসতে শেখাবেন। প্রতিটা গাছ, প্রতিটা প্রাণী সবকিছুকে ভালোবেসে এক সঙ্গে থাকতে শেখাবেন। এতে আপনার অবর্তমানে আপনার প্রজন্ম, আপনার সন্তান অথবা সন্তানের বন্ধুরাও হয়তো কখনো প্রতিবাদ গড়ে তুলবে যদি প্রকৃতির সাথে অন্যায় হয়।
বাড়ি যত ছোটই হোক এর আশে-পাশে খালি জায়গা পেলেই চারাগাছ লাগাবেন। সবুজের প্রতি যেন একটা টান তৈরি হয় সবার। আপনি আপনার সন্তানকে শেখালে সে তার বন্ধু-বান্ধবদের শেখাবে। এভাবেই সমাজ বদলে যাবে। বাড়িতে গাছ লাগান, দু’বেলা গাছে পানি দেয়া আর পরিচর্যা করতে শেখান শিশুদের। তারাও গাছপালাকে ভালোবাসতে শুরু করবে।
আপনার সন্তানকে খুব দরকার না পড়লে ফুল ছিড়তে উৎসাহ দেবেন না। আপনার সন্তানকে বোঝান ফুলদানিতে ফুল মানায় কিন্তু এদের জন্য সবচেয়ে নিরাপদ জায়গা গাছই।
জন্মদিন বা যে কোনো উল্লেখযোগ্য দিনকে মনে রাখার মতো করে তুলতে বাড়িতে গাছ আনুন। পরিবারের সদস্যদের গাছ উপহার দিন নিয়ম করে। তবেই ছোটবেলা থেকে আপনার সন্তান গাছকে পরিবারের সদস্য মনে করবে।
আপনার সন্তানকে বোঝান এই প্রকৃতিকে কিছু ফিরিয়ে দিতে হবে। অনেক নিয়েছি আমরা, এবার ফিরিয়ে দেবার পালা। ওদের বোঝাতে হবে যে, এই পৃথিবী যেমন আমার, আপনার, আপনার সন্তানের, ঠিক ততটাই গাছ, পাখি, ফুল সবার। আমাদের যেমন প্রকৃতিতে নিরাপদে বসবাসের অধিকার আছে তেমনি ওদেরও আছে। গাছ-পালা কমে গেলে পশু, পাখি, বন্যপ্রাণীরাও বিলুপ্ত হয়ে যাবে। ফলে প্রকৃতিতে বিপর্যয় নেমে আসবে।
ছুটির দিনে সন্তানের সঙ্গে বাগানে গিয়ে গাছের যতœ নিন। শিশুরা ছোটবেলা থেকে যেন দেখে যে, তাদের বাবা-মা তাদের প্রতি যতটা যত্নশীল, ততটাই গাছ-পালার প্রতিও যতœশীল। ফলে আপনা আপনিই তার মধ্যে প্রকৃতির জন্য ভালোবাসা গড়ে উঠবে। পরবর্তীতে তারা প্রকৃতির সঙ্গে কোনো অন্যায় হতে দেখলে প্রতিবাদ করবে। এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে।

এবার কুকুর ধর্ষণের শিকার
                                  

স্বাধীন বাংলা ডেস্ক: এবার একটি কুকুরকে ধর্ষণের অভিযোগে এক ব্যক্তিকে আটক করেছে পুলিশ। গতকাল বৃহস্পতিবার মুম্বাই ও পনভেল থানার পুলিশের যৌথ অভিযানে তাকে আটক করা হয়। ধর্ষণের ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের মহারাষ্ট্রের খারাগরে।

পিপল ফর দ্য এথিক্যাল ট্রিটমেন্ট অফ অ্যানিম্যালস (চঊঞঅ) ইন্ডিয়ার সহযোগিতায় বিজয় রাঙ্গারে নামে এক পশুপ্রেমী ধর্ষণের অভিযোগ জানিয়ে স্থানীয় থানায় এফআইআর দায়ের করেন। এরপরই পুলিশ এই পদক্ষেপ নেয়।
পেটা’র দাবি, অভিযুক্ত রিপিট অফেন্ডার। অতীতেও তার বিরুদ্ধে একাধিকবার পথকুকুরদের যৌন নিগ্রহ করার অভিযোগ উঠেছে।

ভারতীয় দণ্ডবিধির ৩৭৭ (মানুষের দ্বারা পশুধর্ষণ) ধারায় ওই ব্যক্তির বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। অভিযোগ প্রমাণিত হলে ১০ বছর পর্যন্ত সাজা হতে পারে।

লাদেন-পুত্র হামজা নিহত
                                  

স্বাধীন বাংলা ডেস্ক: আমেরিকার স্পেশাল ফোর্সের অভিযানে পাকিস্তানের মাটিতে ২০১১ সালে নিহত হন আল-কায়দার প্রতিষ্ঠাতা ওসামা বিন লাদেন। সম্প্রতি নিউইয়র্ক টাইমস দাবি করে, লাদেনপুত্র হামজা নিহত হয়েছেন। ফক্স নিউজে এক সাক্ষাত্কারে মার্কিন প্রতিরক্ষা সচিব মার্ক এসপার হামজার মৃত্যু খবর নিশ্চিত করেছেন। হামজার মৃত্যুতে যুক্তরাষ্ট্রের ভূমিকা থাকার দাবিও করে নিউইয়র্ক টাইমস।

তবে হামজার মৃত্যুতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কোনো ভূমিকা ছিল কি না এ বিষয়ে মার্ক এসপারের কাছে জানতে চাওয়া হলে, বিষয়টি তিনি এক অর্থে এড়িয়ে যান। মার্কিন প্রতিরক্ষা সচিবের উত্তর, এ নিয়ে আমার কাছে বিশদ কিছু নেই। কিন্তু, যদি থাকতও, তার কতটা আপনাদের সঙ্গে শেয়ার করতাম, সে বিষয়ে আমি নিশ্চিত নই।

গত জুলাই মাসের লাদেনপুত্র হামজা নিহত হওয়ার খবর ঘোষণা করে যুক্তরাষ্ট্র। কিন্তু, মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে সাংবাদিকরা এ নিয়ে প্রশ্ন করলে, তিনিও বিষয়টি এড়িয়ে যান।

গত ফেব্রুয়ারিতেই মার্কিন সরকার হামজার নামে আর্থিক পুরস্কার ঘোষণা করেছিল। ঘোষণায় বলা হয়েছিল, হামজা কোন দেশে, কোথায় রয়েছে সে সম্পর্কে সুনির্দিষ্ট তথ্য দিতে পারলেই ১০ লক্ষ মার্কিন মিলিয়ন ডলার পুরস্কার দেওয়া হবে।

মিয়ানমারকে শায়েস্তা করতে তৎপর জাতিসংঘ
                                  


২০১৭ সালের আগস্টে রাখাইনের কয়েকটি নিরাপত্তা চৌকিতে হামলার পর পরিকল্পিতভাবে রোহিঙ্গা নিধনে নামে দেশটির সেনাবাহিনী। গণধর্ষণ, গণহত্যা আর বর্বোরোচিত নির্যাতন চালায় রোহিঙ্গাদের ওপর। বর্বর সেনাদের হায়েনার মতো আচরণের প্রেক্ষিতে বিশ্ব বিবেক জেগে ওঠে। ২০১৭ সালেই জাতিসংঘের অনুসন্ধানী দল তাদের অনুসন্ধানে জানিয়েছিল, রাখাইনে রোহিঙ্গাদের ওপর সংঘবদ্ধ ধর্ষণকে জাতিগত নিধনের অস্ত্র বানিয়েছে মিয়ানমার। এরপর ২০১৮ সালে ওই অনুসন্ধানী দল পাঁচটি আলামত হাজির করে জানায়, রোহিঙ্গাদের বিতাড়নে কাঠামোবদ্ধ যৌন নিপীড়নকে ব্যবহার করেছে সে দেশের সেনাবাহিনী। একে গণহত্যার আলামত আখ্যা দিয়েছিল তারা। এবার তার সঙ্গে আরও একটি ঘটনাকে যুক্ত করে সংস্থাটির ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশন দৃঢ়ভাবে বলছে, গণহত্যার উদ্দেশ্যেই সেখানে যৌন নিপীড়নকে ব্যবহার করা হয়েছে।  তারা ইঙ্গিত দিয়েছে,  মিয়ানমার সেনাবাহিনীকে বিচারের আওতায় নিতে তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে তারা।

হত্যা-ধর্ষণসহ বিভিন্ন ধারার সহিংসতা ও নিপীড়ন থেকে বাঁচতে নতুন করে বাংলাদেশে পালিয়ে আসে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর ৭ লাখ ৪০ হাজারেরও বেশি মানুষ। এই বছরের সেপ্টেম্বরে মিয়ানমারের সেনা ও নিরাপত্তা বাহিনীর মানবাধিকার হরণ ও যৌন নিপীড়নের ঘটনা তদন্তে গঠিত জাতিসংঘের এক অনুসন্ধানী দল জানায়, মিয়ানমারের রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর নারীরা ধারাবাহিকভাবে সে দেশের সেনাবাহিনীর সংঘবদ্ধ ধর্ষণের শিকার হচ্ছে। ঘটনা তদন্তে কক্সবাজারের শরণার্থী শিবিরে গিয়ে সেইসব ভয়াবহ যৌন নিপীড়নেরা ঘটনা সম্পর্কে জানতে সক্ষম হয় ওই তদন্ত দল।

২০১৮ সালের আগস্টে প্রকাশিত প্রতিবেদনে তদন্ত দলটি মিয়ানমার সেনাবাহিনীর গণহত্যার উদ্দেশ্য নিয়ে পাঁচটি চিহ্ন উল্লেখ করেছিলো। ভাষা ব্যবহার, হত্যাযজ্ঞ চালানোর সময় ও পরে সরকারি কর্মকর্তা, রাজনীতিবিদ, ধর্মীয় কর্তৃপক্ষ, সামরিক কর্মকর্তার মন্তব্য নিয়েছিলেন তারা। এছাড়াও তদন্তকারীরা বৈষম্যমূলক নীতি ও পরিকল্পনা, ধ্বংসযজ্ঞ চালানোর পরিকল্পিত কৌশল ও অভিযানের চরম বর্বরতার আলামত পেয়েছিলেন। এবারের প্রতিবেদনে ষষ্ঠ আলামত যুক্ত করেছে ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশন।

২০১৭ সালে পূর্বপরিকল্পিত ও কাঠামোবদ্ধ সহিংসতার অংশ হিসেবে রোহিঙ্গা নারীদের ওপর যৌন নীপিড়ন চালানো হয়। একেই ষষ্ঠ আলামত হিসেবে চিহ্নিত করেছে তারা। প্রতিবেদনে বলা হয়, নারী ও কিশোরীদের কাঠামোবদ্ধ হত্যা ও ধর্ষণ, গর্ভবতী নারীদের ধর্ষণ, শিশুদের ওপর হামলা, জননাঙ্গে আঘাত, স্পর্শকাতর স্থানে হামলা ও তার প্রদর্শন করেছে। এছাড়াও নারীদের এমনভাবে আঘাত করা হয়েছে যেন তারা স্বামীদের সঙ্গে সহবাস করতে না পারে এবং সন্তান জন্মদানে অক্ষম হয়ে পড়ে। জাতিসংঘ জানায়, এই ষষ্ঠ আলামত থেকে স্পষ্ট হয়, গণহত্যা চালানোর উদ্দেশ্যেই রোহিঙ্গা বিরোধী অভিযান শুরু হয়েছিলো।

মিয়ানমার সরকার জাতিসংঘের তদন্তকারীদের দেশে প্রবেশ করতে দেয়নি। তারা বাংলাদেশ, থাইল্যান্ড ও মালয়েশিয়ার শরণার্থী শিবিরে গিয়ে রোহিঙ্গাদের সঙ্গে কথা বলেছেন। এছাড়া ত্রাণ সংস্থা, গবেষণা সংস্থা, সরকারি সংগঠন ও শিক্ষাবিদদের সঙ্গেও কথা বলেছেন জাতিসংঘ কর্মকর্তারা। ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশন জানায়, মিয়ানমরা সরকার গণহত্যা কনভেনশন অনুযায়ী দায়ীদের বিচারের আওতায় আনতে ব্যর্থ হয়েছে। প্রতিবেদনে বলা হয়, শত শত রোহিঙ্গা নারী ধর্ষণের শিকার হয়েছে। এর মধ্যে ৮০ শতাংশই সংঘবদ্ধ ধর্ষণ। এই ৮২ শতাংশ ধর্ষণের জন্য সেনা সদস্যরা দায়ী।

দুই বছর পেরিয়ে গেলেও এখনও কোনও সামরিক নেতা আন্তর্জাতিক আইনের আওতায় কোনও সাজা পায়নি এবং সরকার বারবারই এই দায় অস্বীকার করে আসছে। প্রতিবেদনে বলা হয়, মিয়ানমারের শীর্ষ দুই সামরিক কর্মকর্তা এখনও তাদের স্বপদে বহাল রয়েছেন। জাতিসংঘ মিশন থেকে তাদের বিরুদ্ধে তদন্তের আহ্বান জানানো হলেও কোনও ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। মিশন জানায়, সম্ভব হলে তাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধ, গণহত্যা ও মানবতাবিরোধী অপরাধে বিচার করা হতে পারে।

তদন্তকারীরা বলেন, তারা অপরাধীদের ব্যাপারে নতুন তথ্য সংগ্রহ করেছে এবং গোপন এই তালিকাটি জাতিসংঘ মানবাধিকার পরিষদ মিশেল ব্ল্যাচেতের কাছে জমা দেওয়া হবে। ভবিষ্যতে তাদের বিচারের জন্য আরেকটি তদন্ত কার্যক্রম পরিচালনা করা হবে।

ভারতের কঠোর সমালোচনায় ট্রাম্প
                                  

স্বাধীন বাংলা ডেস্ক: পাকিস্তান সন্ত্রাসবিরোধী যুদ্ধে কিছুটা হলেও সহায়তা করেছে মন্তব্য করে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ভারতের কড়া সমালোচনা করেছেন।

ট্রাম্প বলেন, যুক্তরাষ্ট্র আফগানিস্তান থেকে সেনাদের ফিরিয়ে আনার উদ্যোগ নিয়েছে। পাকিস্তান নিজেদের সীমার মধ্যে হলেও সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে কার্যক্রম চালাচ্ছে। কিন্তু এক্ষেত্রে ভারত তেমন ভূমিকা পালন করছে না।

বুধবারে হোয়াইট হাউসে সাংবাদিকদের তিনি বলেন, পাকিস্তান সন্ত্রাসবিরোধী যুদ্ধে কিছুটা হলেও সহায়তা করেছে। তবে ভারত একদমই করছে না। এটি কিন্তু ঠিক নয়। আফগানিস্তানে সন্ত্রাস নির্মূলে ভারত, ইরান, রাশিয়া ও তুরস্কের এগিয়ে আসা উচিত বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট আরও বলেন, সন্ত্রাস নির্মূলের জন্য আমরা এখানে আরও ১৯ বছর যুদ্ধ করতে পারব না। এ জন্য প্রতিবেশী দেশগুলোর উচিত এ ব্যাপারে পদক্ষেপ নেয়া।

কাশ্মীর সঙ্কট ভারত-পাকিস্তানের ‘দ্বিপাক্ষিক’ সমস্যা: ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী
                                  

স্বাধীন বাংলা ডেস্ক: কাশ্মীরের উপর থেকে বিশেষ মর্যাদা সম্পর্কিত সংবিধানের ৩৭০ ধারা বাতিলের পর থেকে ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে চলমান চরম উত্তেজনার মধ্যে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে ফোন করেছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। এসময় কাশ্মীর সঙ্কট সমাধানে দুই পক্ষের আলোচনার ওপর জোর দেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, ইস্যুটি ভারত-পাকিস্তানের দ্বিপাক্ষিক সমস্যা।

বুধবার ভারতীয় সংবাদমাধ্যমগুলো জানায়, গত মাসে ক্ষমতা গ্রহণের পর বিশ্বনেতাদের কাছে ধারাবাহিক ফোনকলের অংশ হিসেবে মঙ্গলবার মোদির সঙ্গে কথা বলেন বরিস জনসন।
এ বিষয়ে ডাউনিং স্ট্রিটের এক মুখপাত্র জানান, টেলিফোনে দুই দেশের প্রধানমন্ত্রী ভারতশাসিত কাশ্মীর পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করেছেন। প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন স্পষ্ট জানিয়েছেন, ইস্যুটিকে ভারত-পাকিস্তানের মধ্যে দ্বিপক্ষীয় সমস্যা বলে মনে করে যুক্তরাজ্য। পাশাপাশি, এ সমস্যা সমাধানে আলোচনার ওপর গুরুত্ব দিয়েছেন তিনি।

মোদি-জনসন ফোনালাপ প্রসঙ্গে ভারতের প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে এক বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, নরেন্দ্র মোদি ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীকে বলেছেন, সন্ত্রাস গোটা বিশ্বেই ছড়িয়ে পড়েছে। এ হুমকি মোকাবেলায় দ্রুত কার্যকর পদক্ষেপ নিতে হবে।

ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথোপকথনের সময় নরেন্দ্র মোদী যুক্তরাজ্যে বসবাসকারী ভারতীয়দের ওপর যে হিংসা হয়েছে সেই প্রসঙ্গ উল্লেখ করেন। ভারতের স্বাধীনতা দিবসের দিন লন্ডনে ভারতীয় দূতাবাসের সামনে এই গোলমাল হয়। যা নিয়ে দুঃখ প্রকাশ করেছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী। এবং জানিয়েছেন এর বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ভারতীয় দূতাবাসের নিরাপত্তাও বাড়ানো হবে।

এর আগে কাশ্মীর নিয়ে ভারত-পাকিস্তানের মধ্যে উত্তেজনাকর পরিস্থিতি নিরসনে মধ্যস্থতাকারী হওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

মিয়ানমারে বিদ্রোহীদের সঙ্গে সংঘর্ষে ৩০ সেনা নিহত
                                  

স্বাধীন বাংলা ডেস্ক: মিয়ানমারের উত্তরাঞ্চলীয় সান প্রদেশে নৃতাত্ত্বিক সশস্ত্র বিদ্রোহীজোটের সঙ্গে লড়াইয়ে দেশটির ৩০ সেনা নিহত হয়েছে। এ ছাড়া সংঘর্ষে ১৬জন আহত হয়েছে। দেশটির সংবাদমাধ্যম ইরাবতী এ খবর জানায়।

গতকাল মঙ্গলবার সান প্রদেশের বিভিন্নস্থানে হওয়া সংঘর্ষে এ হতাহতের ঘটনা ঘটেছে। তবে সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে অস্বীকার করা হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, বেশিরভাগ সংঘর্ষ লাসিও থেকে মিউসি পর্যন্ত মহাসড়কের কটকাই শহরতলীতে হয়েছিল বলে নৃতাত্ত্বিকজোটের পক্ষ থেকে জানানো হয়। এ মধ্যে কিছু সংঘর্ষ ৩ থেকে ৪ ঘণ্টা টিকেছিল। তবে সংঘর্ষ রাত ৮টার মধ্যেই শেষ হয়ে যায়। সেনাবাহিনীর সঙ্গে বিদ্রাহীদের ওই এলাকায় ৯টি সংঘর্ষ হয়েছে বলে জানানো হয়। ব্রাদারহুড জোটের পক্ষ থেকে বলা হয়, ৩০ শত্রু সেনা সদস্য নিহত হয়েছে এবং ১৬জন আহত হয়েছে। তবে বিদ্রাহীদের কয়েকজন আহত হয়েছে, কেউ মারা যায়নি।

বুধবার ইরাবতীকে মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর মুখপাত্র বিগ্রেডিয়ার জেনারেল জও মিন তুন বলেন, ৩০ সেনা সদস্য মারা যায়নি, এটা অসম্ভব।

তিনি বলেন, নং চো ও কিয়াকমি শহরে দুটি সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। কিয়াকমির সংঘর্ষে বিদ্রোহী গোষ্ঠী তাং ন্যাশনাল লিবারেশন আর্মির (টিএনএলএ) একটি অস্থায়ী ঘাঁটি ধ্বংস হয়েছে। নর্দান অ্যালায়েন্স দেশটির বিচ্ছিন্নতাবাদী তিনটি গোষ্ঠীর জোট। টিএনএলএ ছাড়াও আরাকান আর্মি ও মিয়ানমার ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক অ্যালায়েন্স আর্মি (এমএনডিএএ) এই জোটের সদস্য।

বিগ্রেডিয়ার জেনারেল বলেন, কুটকাই এলাকায় আরও একটি সংঘর্ষ হয়েছে। আমরা ঘটনাস্থল থেকে একটি বন্দুক, সামরিক সরঞ্জাম এবং একজনের মরদেহ উদ্ধার করেছি। আমরা খবর পেয়েছি যে, লাশিও এবং কুটকাই এলাকায় বিদ্রোহীদের অনেক সদস্য নিহত হয়েছে। আমরা এখন পর্যন্ত ১০ বিদ্রোহীর মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

গণতন্ত্র ছাড়া কাশ্মীর সমস্যার সমাধান হবে না: অমর্ত্য সেন
                                  

স্বাধীন বাংলা ডেস্ক: ভারতের সংবাদমাধ্যম এনডিটিভিকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে বাঙালি এ অর্থনীতিবিদ বলেন, গণতন্ত্র ছাড়া কাশ্মীর সমস্যার কোনো সমাধান হবে বলে আমি মনে করি না।

জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ সুবিধা রদ করে সংবিধানের ৩৭০ ধারা বাতিল করায় ভারতের কঠোর সমালোচনা করেছেন নোবেল বিজয়ী অর্থনীতিবিদ অমর্ত্য সেন।

নরেন্দ্র মোদি সরকারের সমালোচনা করে বলেন,‘প্রাচ্যের দেশ হিসেবে ভারতই প্রথম গণতন্ত্রের পথে এগিয়ে গিয়েছিল। বিশ্বব্যাপী গণতান্ত্রিক আদর্শ অর্জনের জন্য এত কিছু করার পরেও বর্তমান পদক্ষেপে আমরা সেই খ্যাতি হারিয়ে ফেলছি। একজন ভারতীয় হিসেবে এ ব্যাপারে আমি গর্বিত নই।’

কাশ্মীর নিয়ে ভারত সরকারের পদক্ষেপের তীব্র সমালোচনা করেছেন নোবেল বিজয়ী অর্থনীতিবিদ অমর্ত্য সেন। তিনি বলেছেন, ‘গণতন্ত্র ছাড়া কাশ্মীর সমস্যার কোনো সমাধান হবে বলে আমি মনে করি না।’

ভারতের সংবিধান থেকে ৩৭০ ধারা বাতিলের কারণে কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিল করা হয়েছে। ফলে, ভারতের অন্য রাজ্যের যেকেউ কাশ্মীরে জমি কিনতে পারবে। আগে কাশ্মীরে অন্য রাজ্যের কেউ জমি কিনতে পারতো না। জমি কেনার জন্য অন্তত ১০ বছর কাশ্মীরে বসবাস করার নিয়ম ছিল।

জম্মু-কাশ্মীরের জমি সম্পর্কে সেন বলেন, ‘এ সিদ্ধান্ত জম্মু-কাশ্মীর রাজ্যের জনগণের নেওয়া উচিত। কারণ, এটি তাদের জমি।’

কাশ্মীরের গণতন্ত্র বিষয়ে বলেন,‘জনগণের নেতাদের কণ্ঠস্বর না শুনে আপনারা স্বচ্ছতা ও ন্যায়বিচার পাবেন বলে আমি মনে করি না। হাজার হাজার নেতাকে দমিয়ে রেখে, অতীতে দেশকে নেতৃত্বদানকারী এবং সরকার গঠনকারী নেতাসহ অনেককে কারাগারে রেখে গণতন্ত্র সফল হবে না।’

সরকার কাশ্মীরে নিরাপত্তার অজুহাতে অতিরিক্ত ৪০ হাজার সেনাবাহিনী, আধা-সামরিক বাহিনীর সদস্য নিযুক্তের পাশাপাশি কারফিউ জারি করেছে। অনেক নেতাকে গৃহবন্দিসহ চার হাজার মানুষকে আটক করা হয়েছে।

এ বিষয়ে অমত্য সেন বলেন,‘এটি পুরোনো ঔপনিবেশিক অজুহাত। ব্রিটিশরা এভাবেই ২০০ বছর ধরে দেশ চালিয়েছিল।’

কাশ্মীরে এখনও কারফিউ জারি রয়েছে। সোমবার কাশ্মীরের ৯০০ স্কুলের মধ্যে ১৯৬টি স্কুল খোলা হয়। কিন্তু বিদ্যালয়ে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের উপস্থিতির হার অনেক কম ছিল। কাশ্মীরে নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে দফায় দফায় তরুণদের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে।

ভারতে সড়ক দুর্ঘটনায় ১৫ জনের প্রাণহানি
                                  

স্বাধীন বাংলা ডেস্ক: ভারতে বাস-ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে ১৫ জনের প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে। স্থানীয় সময় রোববার রাত সাড়ে ১০টার দিকে দেশটির মহারাষ্ট্রের ঢুলে জেলায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। খবর দ্য ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের।

পুলিশ জানিয়েছে, বাসটি ঢুলে থেকে আওরঙ্গবাদের দিকে যাচ্ছিল। নিহতদের মধ্যে দুর্ঘটনা কবলিত দুই গাড়ির চালকও রয়েছেন।

আহতদের উদ্ধার করে স্থানীয় ঢুলে সরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তাদের অনেকেই সেখানে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

পুলিশ জানিয়েছে, নিহতদের মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে। এ ব্যাপারে একটি মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

ভারতে ভারী বৃষ্টিপাতে ২৮ জনের মৃত্যু
                                  

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ভারতের উত্তরাঞ্চলে রোববার ভারী বৃষ্টিপাতে জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। হিমাচল প্রদেশ, উত্তরাখন্ড এবং পাঞ্জাবে এখন পর্যন্ত কমপক্ষে ২৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। নিখোঁজ রয়েছে আরও ২২ জন।
যমুনা এবং অন্যান্য নদীর পানি বিপৎসীমার কাছাকাছি হওয়ায় দিল্লি, হরিয়ানা, পাঞ্জাব এবং উত্তর প্রদেশে বন্যার সতর্কতা জারি করা হয়েছে। অপরদিকে, ভারতের দক্ষিণাঞ্চলেও বন্যা পরিস্থিতিতে বিপাকে রয়েছে স্থানীয় বাসিন্দারা। ভারী বৃষ্টিপাত ও বন্যায় কেরালায় এখন পর্যন্ত ১২১ জনের মৃত্যু হয়েছে। সেখানে নতুন করে আরও কয়েকজনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। কর্নাটাকেও বন্যায় মৃতের সংখ্যা বাড়ছে। সেখানে এখন পর্যন্ত ৭৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। নিখোঁজ রয়েছে আরও ১০ জন। অপরদিকে হিমাচল প্রদেশে দুই নেপালি নাগরিকসহ কমপক্ষে ২৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। ভারী বৃষ্টিপাতে সৃষ্ট বিভিন্ন দুর্ঘটনায় আরও নয়জন আহত হয়েছেন।
বৃষ্টিপাত ও বন্যার কারণে কাকলা এবং শিমলাসহ বিভিন্ন স্থানে ট্রেন সেবা ব্যহত হচ্ছে। শিমলা, সোলান, কুল্লু এবং বিলাসপুর জেলার সব স্কুল-কলেজ সোমবার বন্ধ থাকবে। অপরদিকে ভারী বৃষ্টিপাতের কারণে সৃষ্ট বিভিন্ন দুর্ঘটনায় উত্তরাখন্ডে তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। নিখোঁজ রয়েছে আরও ২২ জন।
আকস্মিক বন্যায় উত্তরকাশি জেলার মোরিতে বেশ কিছু গ্রাম প্লাবিত হয়েছে এবং বাড়ি-ঘর বন্যার পানিতে ভেসে গেছে। অপরদিকে, ভারী বৃষ্টিপাতের কারণে সৃষ্ট ভূমিধসে বাড়ির নিচে চাপা পড়ে পাঞ্জাবে তিনজনের মৃত্যু হয়েছে।
সরকারি এক প্রতিবেদন অনুযায়ী, কেরালায় গত ৮ আগস্ট থেকে ভারী বৃষ্টিপাত ও বন্যায় ১২১ জনের মৃত্যু হয়েছে। ২৯৬টি আশ্রয় কেন্দ্রে রয়েছেন প্রায় ৪৭ হাজার মানুষ।

২০৫০-এ তলিয়ে যেতে পারে জাকার্তা
                                  

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: বিশ্ব উষ্ণায়নের ফলে দ্রুত গলে যাচ্ছে দুই মেরুর বরফ। প্রতিনিয়ত বাড়ছে সমুদ্রের পানিস্থর। বিশেষজ্ঞদের মতে, এর ফলে অদূর ভবিষ্যতে পানিতে তলিয়ে চলে যেতে পারে সমুদ্রের গা ঘেঁষা বহু দেশ। ইন্দোনেশিয়ার রাজধানী জাকার্তাও তলিয়ে যেতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন বিজ্ঞানীরা। তারা মনে করছেন, ২০৫০-এর মধ্যে জাকার্তা পানিতে তলিয়ে যেতে পারে। ৩০ বছরের মধ্যেই ডুবে যেতে পারে জাকার্তার এক-তৃতীয়াংশ। উপকূলবর্তী সেই অংশেই বাস করেন প্রায় ১ কোটি মানুষ। এই ডুবে যাওয়ার আশঙ্কায় দেশটির শহরের পরিকাঠামোগত পরিবর্তন আনা হয়েছে। শহরের রাস্তাঘাট উঁচু করার চেষ্টা করা হচ্ছে। জাকার্তায় উপকূল বরাবর তৈরি করা হয়েছে বিশাল বাঁধও। তবে এতসবে শেষ অবধি কাজ হবে কি না? এমন এমতাবস্থায় দেশটির রাজধানী স্থানান্তর করাই একমাত্র উপায় বলে মনে করছেন বিজ্ঞানীরা। তাদের কথা মেনে সম্প্রতি রাজধানী দ্রুত স্থানান্তরের সিদ্ধান্ত নেয় ইন্দোনেশিয়ার সরকারও। ইন্দোনেশিয়ার রাষ্ট্রপতি জোকো উইদোডো টুইটারে ঘোষণা করেন,‘আমাদের দেশের রাজধানী বোর্নিও দ্বীপে স্থানান্তর করা হবে।’

আফগানিস্তানে বিয়ের অনুষ্ঠানে আত্মঘাতী বোমায় নিহত ৬৩
                                  

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলে একটি বিয়ের অনুষ্ঠানে আত্মঘাতী বোমা হামলায় অন্তত ৬৩ জন নিহত হয়েছে। কাবুলের স্থানীয় সময় শনিবার রাত পৌনে ১১টার দিকে কাবুলের পশ্চিমাঞ্চলে শিয়া অধ্যুষিত এলাকায় আত্মঘাতী এই বোমার বিস্ফোরণ ঘটানো হয় বলে বিবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।
এতে বলা হয়, বিয়ের অনুষ্ঠান চলাকালে বিস্ফোরণের এই ঘটনায় আহতের সংখ্যা ১৮০ জনের বেশি।
আত্মঘাতী এই হামলায় সম্পৃক্ততার কথা অস্বীকার করেছে জঙ্গি গোষ্ঠী তালেবান। এছাড়া অন্য কোনো পক্ষ এখন পর্যন্ত এই হামলার দায় স্বীকার করেনি।
বিস্ফোরণের কয়েক ঘণ্টা পর আফগানিস্তানের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় হামলায় ৬৩ জন নিহত হওয়ার তথ্য নিশ্চিত করেছে। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র নুসরাত রাহিমি বার্তা সংস্থা এএফপিকে বলেন, বোমা বিস্ফোরণে ৬৩ জন নিহত ও ১৮২ জন আহত হয়েছে। আহতদের মধ্যে নারী ও শিশুও রয়েছে।
বিয়ের অনুষ্ঠানে থাকা মোহাম্মদ ফরহাগ নামে একজন প্রত্যক্ষদর্শী জানান, বোমা বিস্ফোরণের পর প্রায় ২০ মিনিট ধরে হলের ভেতরটা ধোঁয়ায় আচ্ছন্ন ছিল।
তিনি জানান, হলের যে অংশে নারীদের বসার ব্যবস্থা রাখা হয়েছিল, বিস্ফোরণের সময় তিনি সেই অংশে থাকায় প্রাণে বেঁচে গেছেন। পুরুষদের জন্য নির্ধারিত অংশেই বোমার বিস্ফোরণ ঘটানো হয় এবং সেখানে যারা ছিলেন তারা হয় নিহত অথবা আহত হয়েছেন।
এর আগে গত ১২ জুলাই আফগানিস্তানের পূর্বাঞ্চলীয় প্রদেশ নানগারহারে একটি বিয়ের অনুষ্ঠানে আত্মঘাতী বোমা হামলায় অন্তত ছয়জন নিহত হয়। এই অঞ্চলের ক্রমেই কার্যক্রম বাড়িয়ে চলা জঙ্গি গোষ্ঠী আইএস ওই হামলার দায় স্বীকার করে।

পাকিস্তানকে পারমাণবিক হামলার হুমকি ভারতের
                                  

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ভারত-অধিকৃত জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বিলোপ করাকে কেন্দ্র করে ফের উত্তাপ ছড়িয়ে পড়ছে চিরবৈরী দুই দেশ ভারত ও পাকিস্তানে। বৃহস্পতিবার ভারত-পাকিস্তান সীমান্তে উভয়পক্ষের গোলাগুলিতে ৮ সেনা সদস্য নিহত হয়েছেন। এর মধ্যে ৫ জনই ভারতের। স্বাধীনতা দিবসের উৎসবে পাঁচ সেনা সদস্যের প্রাণহানির ঘটনা ভারতকে আরও উসকিয়ে দিল পাকিস্তান। তাইতো শত্রু দেশ পাকিস্তানকে থামাতে এবার বিধ্বংসী পারমাণবিক অস্ত্রের কথা স্মরণ করিয়ে দিল নরেন্দ্র মোদি সরকার। পাকিস্তানকে সতর্ক করে শুক্রবার দেশটির প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং বলেন, ‘এখনও পর্যন্ত পরমাণু অস্ত্র নিয়ে প্রথম ব্যবহার নীতিতে চলে না ভারত। তবে, পরিস্থিতি অনুযায়ী ভবিষ্যতে এই নীতিরও পরিবর্তন হতে পারে।’ অর্থাৎ, ভারত কখনও আগে পারমাণবিক অস্ত্রের ব্যবহার করবে না। তবে পরিস্থিতি বুঝে আগে হামলা চালাতেও পারে। আজ রাজস্থানের পোখরানে সেনা মহড়া অনুষ্ঠানের শেষ দিনে অংশ নেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী। তিনি আরও বলেন, ‘কাকতালীয়ভাবে আজ প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী অটল বিহারী বাজপেয়ীর প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী। আর পোখরানের সঙ্গে অটল বিহারী বাজপেয়ীর স্মৃতি জড়িয়ে আছে। ভারতকে পরমাণু শক্তিধর রাষ্ট্র হিসেবে তুলে ধরতে অটল বিহারী বাজপেয়ীর যে অবদান রয়েছে তার সাক্ষী এই পোখরান। পোখরানে প্রয়াত প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী বাজপেয়ীর ছবিতে শ্রদ্ধা জানান রাজনাথ। এই পোখরানেই ১৯৭৪ এবং ১৯৯৮ সালে পরমাণু পরীক্ষা করা হয়। জম্মু-কাশ্মীরে অনুচ্ছেদ ৩৭০ বিলোপের পর একের পর এক উসকানিমূলক মন্তব্য করতে দেখা গেছে পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানকে। নয়াদিল্লির সঙ্গে সব রকমের কূটনৈতিক ও বাণিজ্যিক সম্পর্ক ছিন্ন করেছে ইসলামাবাদ। কাশ্মীর সমস্যার সমাধানে বিশ্ব নেতাদের এগিয়ে আসতে জোর প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে ইমরান খানের সরকার। এই পরিস্থিতিতে প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিংয়ের এই মন্তব্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করছেন কূটনৈতিক বিশেষজ্ঞরা।


   Page 1 of 119
     আন্তর্জাতিক
রাহুল গান্ধীর নেতৃত্বে ১১ নেতা যাচ্ছেন কাশ্মীর
.............................................................................................
ভারতের সাবেক অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি আর নেই
.............................................................................................
আমাজনে সেনা পাঠাচ্ছে ব্রাজিল
.............................................................................................
পুড়ছে আমাজন
.............................................................................................
এবার কুকুর ধর্ষণের শিকার
.............................................................................................
লাদেন-পুত্র হামজা নিহত
.............................................................................................
মিয়ানমারকে শায়েস্তা করতে তৎপর জাতিসংঘ
.............................................................................................
ভারতের কঠোর সমালোচনায় ট্রাম্প
.............................................................................................
কাশ্মীর সঙ্কট ভারত-পাকিস্তানের ‘দ্বিপাক্ষিক’ সমস্যা: ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
মিয়ানমারে বিদ্রোহীদের সঙ্গে সংঘর্ষে ৩০ সেনা নিহত
.............................................................................................
গণতন্ত্র ছাড়া কাশ্মীর সমস্যার সমাধান হবে না: অমর্ত্য সেন
.............................................................................................
ভারতে সড়ক দুর্ঘটনায় ১৫ জনের প্রাণহানি
.............................................................................................
ভারতে ভারী বৃষ্টিপাতে ২৮ জনের মৃত্যু
.............................................................................................
২০৫০-এ তলিয়ে যেতে পারে জাকার্তা
.............................................................................................
আফগানিস্তানে বিয়ের অনুষ্ঠানে আত্মঘাতী বোমায় নিহত ৬৩
.............................................................................................
পাকিস্তানকে পারমাণবিক হামলার হুমকি ভারতের
.............................................................................................
পাক কাশ্মীরে হামলা হলেই যুদ্ধ : ইমরান খান
.............................................................................................
কাশ্মীর নীতি থেকে ভারতকে সরে আসার আহ্বান এইচআরডাব্লিউ’র
.............................................................................................
কাশ্মীর নিয়ে ভারতের পদক্ষেপে চীনের ফের উদ্বেগ প্রকাশ
.............................................................................................
পাক সেনাপ্রধানের হুশিয়ারি: কাশ্মীরে ভারতের সংঘটিত অপরাধ ঢাকার সুযোগ দেয়া হবে না
.............................................................................................
কাশ্মীর নিয়ে বোমা ফাটালেন মনমোহন সিং
.............................................................................................
রাশিয়ায় রকেট বিস্ফোরণে নিহত ৫, বিকিরণ বৃদ্ধি পাওয়ায় জাহাজ চলাচল বন্ধ
.............................................................................................
মৃত্যুপুরী কাশ্মীর: আড়াই লাখ সেনা মোতায়েন
.............................................................................................
১৯ বিমানবন্দরে সতর্কতা জারি করলো ভারত
.............................................................................................
কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিলের ঘোষণা ভারতের
.............................................................................................
যুক্তরাষ্ট্রে শপিংমলে বন্দুকধারীর হামলায় নিহত ২০
.............................................................................................
ইন্দোনেশিয়ায় ৬.৯ মাত্রার ভূমিকম্প, সুনামি সতর্কতা জারি
.............................................................................................
নতুন স্বাধীনতায় খুশি সৌদি নারীরা
.............................................................................................
জুয়ায় হেরে বন্ধুদের দিয়ে স্ত্রীকে ধর্ষণ
.............................................................................................
ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর ওপর মার্কিন নিষেধাজ্ঞা
.............................................................................................
ইরান আতঙ্ক: হরমুজ প্রণালী এড়িয়ে চলছে ব্রিটিশ জাহাজ
.............................................................................................
ভারতে মুসলিম কিশোরকে পুড়িয়ে হত্যা করলো উগ্র হিন্দুরা
.............................................................................................
পাকিস্তানে বাড়িতে আছড়ে পড়ল বিমান, নিহত ১৭
.............................................................................................
পাকিস্তানে সামরিক বিমান বিধ্বস্তে নিহত ১৭
.............................................................................................
ব্রাজিলে কারাগারে দাঙ্গায় নিহত অন্তত ৫২
.............................................................................................
নাইজেরিয়ায় বোকো হারামের হামলায় নিহত ৬৫
.............................................................................................
কাশ্মির ইস্যুতে পাকিস্তানকে সমর্থন চীন-তুরস্কের
.............................................................................................
কাস্পিয়ান সাগরে ডুবল ইরানের জাহাজ
.............................................................................................
ফিলিপাইনে ভূমিকম্পে নিহত ৮
.............................................................................................
ট্রাম্পকে দায়মুক্ত করা হয় নি
.............................................................................................
ইউরোপে তীব্র দাবদাহ
.............................................................................................
কে হচ্ছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী, জানা যাবে আজ
.............................................................................................
ইরানিরা অসম্মানজনক আচরণ করছে : ট্রাম্প
.............................................................................................
বোরকা পরলেই ১৫০ ইউরো জরিমানা
.............................................................................................
হংকংয়ে রেলস্টেশনে হামলা, আহত ৪৫
.............................................................................................
উত্তর প্রদেশে বজ্রপাতে ৩২ জনের প্রাণহানি
.............................................................................................
হরমুজ প্রণালী থেকে ব্রিটিশ ট্যাংকার আটক করল ইরান
.............................................................................................
জাপানে অ্যানিমেশন স্টুডিওতে আগুনে নিহত ১২
.............................................................................................
ইবোলা নিয়ে ‘বৈশ্বিক জরুরি অবস্থা’ ঘোষণা
.............................................................................................
ভারতে কৃষকদের উপর নির্বিচারে গুলি: নিহত ৯
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

সম্পাদক ও প্রকাশক : মোহাম্মদ আখলাকুল আম্বিয়া
নির্বাহী সম্পাদক: মাে: মাহবুবুল আম্বিয়া

সম্পাদকীয় ও বাণিজ্যিক কার্যালয়: স্বাধীনতা ভবন (৩য় তলা), ৮৮ মতিঝিল বাণিজ্যিক এলাকা, ঢাকা-১০০০। Editorial & Commercial Office: Swadhinota Bhaban (2nd Floor), 88 Motijheel, Dhaka-1000.
সম্পাদক কর্তৃক রঙতুলি প্রিন্টার্স ১৯৩/ডি, মমতাজ ম্যানশন, ফকিরাপুল কালভার্ট রোড, মতিঝিল, ঢাকা-১০০০ থেকে মুদ্রিত ও প্রকাশিত ।
ফোন : ০২-৯৫৫২২৯১ মোবাইল: ০১৬৭০৬৬১৩৭৭

Phone: 02-9552291 Mobile: +8801670 661377
ই-মেইল : dailyswadhinbangla@gmail.com , editor@dailyswadhinbangla.com, news@dailyswadhinbangla.com

 

    2015 @ All Right Reserved By dailyswadhinbangla.com

Developed By: Nytasoft