মঙ্গলবার, ১৪ জুলাই 2020 | বাংলার জন্য ক্লিক করুন
  
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   আন্তর্জাতিক -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
করোনা মোকাবেলায় কাতারের সফলতা

কাতার প্রতিনিধি : করোনা যখন মহামারি আকারে চেপে বসেছে পুরো বিশ্বজুড়ে। অনেকটা লন্ডভন্ড করে দিয়েছে ইউরোপীয় দেশগুলোকে। মহামারি ঠেকাতে হিমশিম খেয়েছে সেসব দেশের সরকার। তখন করোনার প্রকোপ অনেকটাই শক্তহাতে সমালিয়েছে মধ্যেপ্রাচ্যের দেশ কাতার।

রবিবার নতুন করে ৪৭০ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্তর বিষয়টি নিশ্চিত করেছে কাতার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। এই নিয়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাড়িয়েছে ১০৩৫৯৮জনে। তবে নতুন সুস্থ হয়েছেন ৮০৯ জন যা নিয়ে এখন পর্যন্ত সর্বমোট সুস্থ হয়ে ঘরে ফিরেছেন ৯৯৭৪৩ জন। কাতার জনস্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে গতকাল করোনাভাইরাসে আরো ১ জনের মৃত্যুর খবর দিয়েছে। এই নিয়ে মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়ালো ১৪৭ জনে।

কাতারে করোনাভাইরাস মোকাবেলায় নানাবিধ কার্যক্রম নিয়েছিল,যা সাফল্য অর্জন করেছে। শুরু থেকেই নিবিড় পর্যবেক্ষণের মাধ্যমে রোগীদের চিকিৎসাসেবা ও প্রতিরোধক ব্যবস্থা গ্রহণের ফলে করোনাভাইরাস মোকাবেলায় সাফল্যের দ্বারপ্রান্তে ছোট্ট এ দেশটি।

বর্তমানে বাইরে বের হলে মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক, দলবদ্ধভাবে চলাচলে নিষেধাজ্ঞা, সচেতনতা সৃষ্টি করতে ড্রোন ক্যামেরা ব্যবহার,  লাউড স্পিকার যুক্ত পরিবহনের মাধ্যমে বিভিন্ন রাস্তায় মাইকিং করা ও করোনা প্রতিরোধে সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে ‘‘এহতেরাজ’’ অ্যাপস ব্যবহারের মাধ্যমে ভাইরাস নিয়ন্ত্রণে সফল মধ্যেপ্রাচ্যের দেশ কাতার।

সরকারের সার্বিক সহযোগীতা ও চিকিৎসকদের আন্তরিকতার সাথে  সেবা প্রদানের জন্য খুব শিগ্রই কাতার করোনা মুক্ত হতে পারবে বলে জানিয়েছে দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। সেই সাথে  কাতারে করোনায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা স্বাভাবিক হতে শুরু করেছে এবং প্রত্যাহার করা হচ্ছে সব ধরনের বিধিনিষেধ। শুধুমাত্র সেলুন, বিউটি পার্লার ও খাবার হোটেল বাদে সব ব্যবসা প্রতিষ্ঠান চলছে স্বাভাবিক নিয়মে।

উল্ল্যেখযোগ্য বিষয় হলো, কাতার সরকার স্থানীয় নাগরিক ও বিদেশি অভিবাসীদের মধ্যে কোন ধরনের বৈষম্যমূলক আচরণ না করে সবার জন্য বিনামূল্যে  চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করেছে। পাশাপাশি অবৈধ প্রবাসীরা যারা আছে তারও যাতে চিকিৎসার অভাবে মৃত্যুর মুখে পতিত না হয় সেজন্য করোনাকালীন সময়ে তাদের জন্যও বিশেষ চিকিৎসার ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে।

করোনা মোকাবেলায় কাতারের সফলতা
                                  

কাতার প্রতিনিধি : করোনা যখন মহামারি আকারে চেপে বসেছে পুরো বিশ্বজুড়ে। অনেকটা লন্ডভন্ড করে দিয়েছে ইউরোপীয় দেশগুলোকে। মহামারি ঠেকাতে হিমশিম খেয়েছে সেসব দেশের সরকার। তখন করোনার প্রকোপ অনেকটাই শক্তহাতে সমালিয়েছে মধ্যেপ্রাচ্যের দেশ কাতার।

রবিবার নতুন করে ৪৭০ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্তর বিষয়টি নিশ্চিত করেছে কাতার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। এই নিয়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাড়িয়েছে ১০৩৫৯৮জনে। তবে নতুন সুস্থ হয়েছেন ৮০৯ জন যা নিয়ে এখন পর্যন্ত সর্বমোট সুস্থ হয়ে ঘরে ফিরেছেন ৯৯৭৪৩ জন। কাতার জনস্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে গতকাল করোনাভাইরাসে আরো ১ জনের মৃত্যুর খবর দিয়েছে। এই নিয়ে মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়ালো ১৪৭ জনে।

কাতারে করোনাভাইরাস মোকাবেলায় নানাবিধ কার্যক্রম নিয়েছিল,যা সাফল্য অর্জন করেছে। শুরু থেকেই নিবিড় পর্যবেক্ষণের মাধ্যমে রোগীদের চিকিৎসাসেবা ও প্রতিরোধক ব্যবস্থা গ্রহণের ফলে করোনাভাইরাস মোকাবেলায় সাফল্যের দ্বারপ্রান্তে ছোট্ট এ দেশটি।

বর্তমানে বাইরে বের হলে মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক, দলবদ্ধভাবে চলাচলে নিষেধাজ্ঞা, সচেতনতা সৃষ্টি করতে ড্রোন ক্যামেরা ব্যবহার,  লাউড স্পিকার যুক্ত পরিবহনের মাধ্যমে বিভিন্ন রাস্তায় মাইকিং করা ও করোনা প্রতিরোধে সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে ‘‘এহতেরাজ’’ অ্যাপস ব্যবহারের মাধ্যমে ভাইরাস নিয়ন্ত্রণে সফল মধ্যেপ্রাচ্যের দেশ কাতার।

সরকারের সার্বিক সহযোগীতা ও চিকিৎসকদের আন্তরিকতার সাথে  সেবা প্রদানের জন্য খুব শিগ্রই কাতার করোনা মুক্ত হতে পারবে বলে জানিয়েছে দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। সেই সাথে  কাতারে করোনায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা স্বাভাবিক হতে শুরু করেছে এবং প্রত্যাহার করা হচ্ছে সব ধরনের বিধিনিষেধ। শুধুমাত্র সেলুন, বিউটি পার্লার ও খাবার হোটেল বাদে সব ব্যবসা প্রতিষ্ঠান চলছে স্বাভাবিক নিয়মে।

উল্ল্যেখযোগ্য বিষয় হলো, কাতার সরকার স্থানীয় নাগরিক ও বিদেশি অভিবাসীদের মধ্যে কোন ধরনের বৈষম্যমূলক আচরণ না করে সবার জন্য বিনামূল্যে  চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করেছে। পাশাপাশি অবৈধ প্রবাসীরা যারা আছে তারও যাতে চিকিৎসার অভাবে মৃত্যুর মুখে পতিত না হয় সেজন্য করোনাকালীন সময়ে তাদের জন্যও বিশেষ চিকিৎসার ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে।

করোনা মোকাবিলায় সফল কিউবা
                                  

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : যুক্তরাষ্ট্র-ব্রাজিল-রাশিয়া-ভারতের মত বিশ্বের শক্তিধর দেশগুলো মহামারি নভেল করোনাভাইরাস মোকাবিলায় হিমশিম খেলেও সাফল্য দেখিয়েছে ক্যারিবিয়ান অঞ্চলের  দেশ কিউবা।

অদৃশ্য এই ভাইরাসে কিউবায় আক্রান্ত  হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন মোট ২ হাজার ৪২৬ জন। এরমধ্যে মৃত্যু হয়েছে ৮৭ জনের। দেশটিতে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ২ হাজার ২৫৮ জন।

কিউবার রাজধানী হাভানা বাদে সচল হয়েছে আন্তঃপ্রদেশীয় যোগাযোগ। নিজ দেশের পর্যটকদের জন্য খুলে দেয়া হয়েছে হোটেলগুলো। ১ জুলাই থেকে বিশেষ ব্যবস্থায় চালু হয়েছে আন্তর্জাতিক পর্যটনও।

দেশটি করোনার লড়াইয়ে সাফল্য দেখিয়েছে মূলত কড়া কোয়ারেন্টাইনের মাধ্যমে। লকডাউন শুরুর সঙ্গে সঙ্গেই বন্ধ করে দেয়া হয় সবধরনের আন্তর্জাতিক চলাচল। কেবলমাত্র চিকিৎসা সহায়তা দেয়ার জন্য বিশেষ কিছু ফ্লাইট চলাচল করেছে।

লকডাউন দিয়ে আন্তঃপ্রদেশীয় যোগাযোগ বন্ধ করে দিয়েছিল কিউবান সরকার। সব রাস্তায় ছিল পুলিশের কড়া পাহারা। বাইরে সবার জন্য বাধ্যতামূলক করা হয় মাস্ক পরা, নিষিদ্ধ হয় সবধরনের জনসমাবেশ। খাদ্যপণ্য কিনতে লাইন দেয়াকে করোনার বিস্তারের অন্যতম প্রধান মাধ্যম বিবেচনা করে এক্ষেত্রে নেয়া হয় বিশেষ সতর্কতা।

কিউবানদের করোনা যুদ্ধে জেতার সবচেয়ে বড় অস্ত্র মনে করা হচ্ছে তাদের বিপুল সংখ্যক দক্ষ চিকিৎসাকর্মীদের। ১ কোটি ১০ লাখ জনসংখ্যার দেশটিতে এ মুহূর্তে চিকিৎসক আছেন প্রায় ৯৫ হাজার, নার্স আছেন ৮৫ হাজারের বেশি। জনপ্রতি মানুষের জন্য বিদ্যমান চিকিৎসকের সংখ্যায় স্পেনের চেয়ে প্রায় তিনগুণ এগিয়ে কিউবা।

কিউবায় যখন প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয়, তখনই এই ভাইরাস প্রতিরোধে প্রস্তুত ছিল দেশটির চিকিৎসক বাহিনী। শুধু নিজ দেশেই নয়, কিউবান চিকিৎসকরা মহামারি প্রতিরোধে সেবা দিচ্ছেন বিশ্ববাসীকে। কিউবার চিকিৎসক বাহিনীর ২০টি দলের প্রায় আড়াই হাজার সদস্য বিভিন্ন দেশে কাজ করছেন। করোনায় মৃত্যুপুরীতে পরিণত হওয়া বিশ্বকে রক্ষায় অক্লান্ত লড়ে যাচ্ছেন এসব চিকিৎসকরা।

মার্কিন বিমানবাহী রণতরীতে ভয়াবহ অগ্নিকান্ড
                                  

স্বাধীন বাংলা ডেস্ক: যুক্তরাষ্ট্রের সান ডিয়েগো নৌ ঘাঁটিতে বিমানবাহী রণতরীতে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় ২২ জন আহত হয়েছেন। এদের মধ্যে ১৮ সৈন্য ও ৪ বেসামরিক ব্যক্তি আহত হয়েছে। গতকাল রবিবার (১২ জুলাই) সকালে এ ঘটনা ঘটে।  

মার্কিন নৌবাহিনীর অন্যতম মুখপাত্র কৃষ্ণা জ্যাকসন বলেছেন, রণতরীটি মেরামতের জন্য ওই নৌ ঘাঁটিতে নোঙর করা হয়েছিল। বিস্ফোরণ ও অগ্নিকাণ্ডের কারণ জানা যায়নি। এ ঘটনায় অন্তত ১৮ সেনা ও চার বেসামরিক ব্যক্তিকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে এবং তাদের কারও অবস্থা আশঙ্কাজনক নয়। তবে এতে যুদ্ধজাহাজটির অপূরণীয় ক্ষতি হয়েছে বলে জানান তিনি।

ইউএসএস বোনহোম রিচার্ড নামের রণতরীটি সমুদ্রে দায়িত্ব পালনের সময় সর্বোচ্চ ১,০০০ সেনা বহন করতে সক্ষম হলেও এটিতে আগুন ধরে যাওয়ার সময় এটিতে প্রায় ২০০ ক্রু উপস্থিত ছিল।

ভারতের চেয়ে চীনের সামরিক শক্তি ১০ গুন বেশি: শরদ পওয়ার
                                  

স্বাধীন বাংলা ডেস্ক: চীন-ভারত সঙ্কট যুদ্ধের মাধ্যমে সমাধান করা ভারতের পক্ষে সম্ভব নয় মন্তব্য করে ভারতের ন্যাশনাল কংগ্রেস পার্টির (এনসিপি) প্রধান এবং সাবেক প্রতিরক্ষা মন্ত্রী শরদ পওয়ার বলেছেন, ‘চীনের মোট সামরিক বাহিনীর ১০ ভাগের একভাগ আমাদের রয়েছে। আর এভাবে পিছিয়ে থেকে কখনও প্রতিবেশীর সঙ্গে সম্মুখ যুদ্ধের কথা চিন্তা করা উচিত নয়। এটা সত্য প্রয়োজনে যুদ্ধ করতে আমরা প্রস্তুত এবং তার জন্য যে কোন মূল্য দিতেও প্রস্তুত রয়েছি আমরা’।

ভারতের প্রধান প্রতিপক্ষ চীন। তবে চীনের সঙ্গে সরাসরি যুদ্ধে যাওয়া ভারতের উচিত হবে না বলেও মন্তব্য করেছেন তিনি। তিনি বলেন, অন্যান্য রাষ্ট্রের সঙ্গে সম্পর্ক তৈরির ক্ষেত্রে আমাদের পররাষ্ট্র নীতি কখনো পরিবর্তন হয়নি। জহরলাল নেহরুর সময় থেকে শুরু করে ইন্দিরা গান্ধী এমনকি অটল বিহারি বাজপেয়ীর শাসনামলেও।

কিন্তু নরেন্দ্র মোদি ভিন্ন অবস্থান নিয়েছেন এবং চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং-কে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন। নিজের প্রতিবেশীদের সঙ্গে ভালো সম্পর্কের দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে চেয়েছিলেন মোদি, কিন্তু তা কাজে আসেনি।

তিনি বলেন, ‘যখন আমি প্রতিরক্ষা মন্ত্রী হিসেবে ১৯৯৩ সালে চীন সফরে গিয়ে দেশটির প্রেসিডেন্টের সঙ্গে দেখা করি, সে এ বিষয়ে ধারণা দিয়েছিলো। তিনি বলেছিলেন, বর্তমানে প্রতিবেশী কারো সঙ্গে সংঘর্ষে যেতে চায়না চীন। তাদের লক্ষ ছিলো যুক্তরাষ্ট্র।

করোনার ভ্যাকসিন : মানব ট্রায়ালে সাফল্যের দাবি রাশিয়ার
                                  

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : বিশ্বে প্রথমবারের মতো করোনাভাইরাস ভ্যাকসিনের হিউম্যান ট্রায়ালে সাফল্যের ঘোষণা দিল রাশিয়া। সম্প্রতি দেশটির সেশনভ ফার্স্ট মস্কো স্টেট মেডিকেল ইউনিভার্সিটির গবেষকরা এ সাফল্য দেখিয়েছেন।

রাশিয়ার সরকারি বার্তা সংস্থা স্পুটনিক জানিয়েছে, ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের প্রতিটি ধাপই সফলতার সাথে পেরিয়ে গিয়েছে রাশিয়ার মস্কো স্টেট মেডিক্যাল ইউনিভার্সিটির পরীক্ষামূলক করোনা ভ্যাকসিন।

ইনস্টিটিউট ফর ট্রানজাশনাল মেডিসিন অ্যান্ড বায়োটেকনোলজির ডিরেক্টর ভাদিম টারাসোভ জানান, মানব ট্রায়ালের স্বেচ্ছাসেবকদের প্রথম গ্রুপকে বুধবার ছেড়ে দেওয়া হবে। দ্বিতীয় গ্রুপকে ছাড়া হবে ২০শে জুলাই।

১৮ জুন এই বিশ্ববিদ্যালয় মানব ট্রায়াল শুরু করেছিল। রাশিয়ার গামালেই ইনস্টিটিউট অফ এপিডেমোলজি অ্যান্ড মাইক্রোবায়োলজির তৈরি করা করোনা ভ্যাকসিনের মানব ট্রায়াল শুরু করা হয়। সেই ভ্যাকসিনেই সাফল্য মিলেছে প্রাথমিক পর্যায়ে।

টারাসোভ বলেন, স্কেনোভ বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষা সফল হয়েছে। যদি প্রতিটি গ্রুপে এই পরীক্ষা সফল হয়, তবে এই ভ্যাকসিনই হবে বিশ্বের প্রথম করোনা ভ্যাকসিন, যা মানব ট্রায়াল সম্পূর্ণ করবে সাফল্যের সঙ্গে।

ইনস্টিটিউট অফ মেডিকাল প্যারাসাইটোলজির ডিরেক্টর আলেকজান্ডার লুকাসেভ জানান, এই সমীক্ষার ফল সাফল্য আনবে। সমগ্র মানব জাতিকে বাঁচাবে বলে তার আশা।

লুকাসেভ জানান, এই করোনা ভ্যাকসিন সম্পূর্ণ নিরাপদ। আপাতত যে কয়েকটি ভ্যাকসিনের ওপর কাজ চলছে, তার মধ্যে সর্বাধিক নিরাপদ এই ভ্যাকসিন, তা বলাই যায়।

করোনায় বিশ্বে মৃত্যু ৫ লাখ ৬৭ হাজার, আক্রান্ত এক কোটি ২৮ লাখ
                                  

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : বিশ্বে কোভিড-১৯ বা করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা বেড়েই চলছে। ইতোমধ্যে বিশ্বব্যাপী করোনা শনাক্ত মানুষের সংখ্যা ১ কোটি সাড়ে ২৮ লাখ ছাড়িয়ে গেছে।

রোববার সকাল পর্যন্ত সারা বিশ্বে করোনায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে এক কোটি ২৮ লাখ ৪৭ হাজার ২৮৮ জনে। আর মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৫ লাখ ৬৭ হাজার ৭৩৪ জন। সুস্থ হয়েছেন ৭৪ লাখ ৮৩ হাজার ২৪৬ জন।

চীনের উহানে করোনা সংক্রমণ সৃষ্টি হলেও এখন অদৃশ্য এই ভাইরাসটির তাণ্ডব চলছে আমেরিকা ও দক্ষিণ এশিয়ায়। ইউরোপের কিছু দেশেও ফের ভাইরাসটির সংক্রমণ বেড়েছে।

বিশ্বে একক দেশ হিসেবে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা সবচেয়ে বেশি যুক্তরাষ্ট্রে। দেশটিতে শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ৩৩ লাখ ৫৬ হাজার ৬৪৬ জন। মৃত্যু হয়েছে ১ লাখ ৩৭ হাজার ৪০৩ জনের। দেশটিতে এ পর্যন্ত সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১৪ লাখ ৯০ হাজার ৪৪৬ জন।

যুক্তরাষ্ট্রের পর করোনায় সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত দেশ হচ্ছে ব্রাজিল। দেশটিতে এখন পর্যন্ত ১৮ লাখ ৪০ হাজার ৮১২ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন এবং দেশটিতে মৃত্যু হয়েছে ৭১ হাজার ৪৯২ জনের। আর এ পর্যন্ত ব্রাজিলে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১২ লাখ ১৩ হাজার ৫১২ জন।

তৃতীয় অবস্থানে থাকা ভারতে মোট ৮ লাখ ৫০ হাজার ৩৫৮ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে। আর দেশটিতে মৃত্যু হয়েছে ২২ হাজার ৬৮৭ জনের এবং সুস্থ হয়েছেন ৫ লাখ ৩৬ হাজার ২৩১ জন।

চতুর্থ অবস্থানে থাকা রাশিয়ায় করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৭ লাখ ২০ হাজার ৫৪৭ জন। আর করোনায় মৃত্যু হয়েছে ১১ হাজার ২০৫ জনের।

ইউরোপের দেশ যুক্তরাজ্য মৃত্যু বিবেচনায় রয়েছে তৃতীয় স্থানে, তবে আক্রান্তের দিক থেকে দেশটির অবস্থান নয় নম্বরে। রোববার সকাল পর্যন্ত দেশটিতে আক্রান্তের সংখ্যা ২ লাখ ৮৮ হাজার ৯৫৩ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ৪৪ হাজার ৭৯৮ জনের।

মৃত্যু বিবেচনায় চতুর্থ স্থানে রয়েছে ইউরোপের আরেক দেশ ইতালি, তবে আক্রান্ত বিবেচনায় দেশটির অবস্থান ১৩ নম্বরে। ইতালিতে রোববার সকাল পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছে ২ লাখ ৪২ হাজার ৮২৭ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ৩৪ হাজার ৯৪৫ জনের।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিবেশী মেক্সিকো মৃত্যু বিবেচনায় উঠে এসেছে পাঁচ নম্বরে, তবে আক্রান্ত বিবেচনায় দেশটির অবস্থান ছয়ে। রোববার সকাল পর্যন্ত দেশটিতে আক্রান্ত হয়েছে ২ লাখ ৯৫ হাজার ২৬৮ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ৩৪ হাজার ৭৩০ জনের।

যুক্তরাষ্ট্র থেকে ১০৫টি অত্যাধুনিক যুদ্ধবিমান কিনছে জাপান
                                  

স্বাধীন বাংলা ডেস্ক: আঞ্চলিক উত্তেজনার মধ্যেই ১০৫টি অত্যাধুনিক এফ-৩৫ যুদ্ধবিমান কিনতে যাচ্ছে জাপান। এফ-৩৫ সহ ২৩১১ কোটি ডলার মূল্যের বিভিন্ন ধরনের যুদ্ধবিমান কিনতে যাচ্ছে জাপান। বৃহস্পতিবার জাপানের কাছে এসব বিমান বিক্রির অনুমোদন দিয়েছে ট্রাম্প প্রশাসন।

এ ব্যাপারে মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, জাপান আরো ৬৩টি এফ-৩৫এ যুদ্ধবিমান ও ৪২টি এফ-৩৫বি বিমান কিনবে যুক্তরাষ্ট্রের কাছ থেকে। এসব যুদ্ধবিমান কেনার ফলে মার্কিন যুদ্ধবিমান উত্পাদনকারী লকহিড মার্টিনের সবচেয়ে বড় ক্রেতা হওয়ার দ্বারপ্রান্তে চলে এসেছে জাপান।

যুক্তরাষ্ট্রের ডিফেন্স সিকিউরিটি কোঅপারেশন এজেন্সি সম্ভাব্য এই অস্ত্র বিক্রির বিষয়ে কংগ্রেসকে অবহিত করেছে। তবে উভয় দেশ ও লকহিড মার্টিন কোম্পানির দরকষাকষির ভিত্তিতে যুদ্ধবিমানের সংখ্যায় পরিবর্তন আসতে পারে।

সূত্র: এএফপি

২২ লাখ টাকা দামের পিস্তলসহ দাউদের ঘনিষ্ঠ সহযোগী গ্রেফতার
                                  

স্বাধীন বাংলা ডেস্ক: দাউদ ইব্রাহিমের ঘনিষ্ঠ সহযোগী আনওয়ার ঠাকুর দীর্ঘদিন পলাতক থাকার পর ২২ লাখ টাকা মূল্যের পিস্তলসহ পুলিশের কাছে ধরা পড়েছেন। গতকাল শনিবার দিল্লি পুলিশের অপরাধ দমন শাখার একটি টিম রাজধানীর চাঁদবাগ এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করে।

পুলিশ জানিয়েছে, যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামি আনওয়ার ঠাকুর মুম্বাই ধারাবাহিক বিস্ফোরণ মামলায় ভারতের ‘মোস্ট ওয়ান্টেড’ ফেরারি আসামি ছিলেন। আটকের সময় তার কাছ থেকে ২২ লাখ টাকা মূল্যের বিদেশি একটি পিস্তল উদ্ধার করা হয়েছে। জব্দ করা সেমি-অটোমেটিক পিস্তলটি ব্রাজিলের তৈরি।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এই সময় জানিয়েছে, ১৯৯২ সালে দিল্লির সদর বাজার থানায় ঢুকে পুলিশের এক সোর্সকে গুলি করে হত্যা করেছিল আনওয়ার ঠাকুর। আদালতে তার যাবজ্জীবন সাজা হয়।

কিন্তু প্যারোলে কিছু দিনের জন্য ছাড়া পেয়ে আত্মগোপন করে দাউদ ইব্রাহিমের এই সহযোগী। এরপর থেকে সে পুলিশের ধরাছোঁয়ার বাইরে ছিল।

পুলিশের দাবি, দিল্লির উত্তরপূর্ব জেলার চেনু গ্যাংকে পুনরায় সক্রিয় করে তোলার পেছনে হাত রয়েছে আনওয়ার ঠাকুরের।

অবশেষে মাস্ক পরলেন ট্রাম্প
                                  

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : যুক্তরাষ্ট্রে করোনাভাইরাসের তাণ্ডব শুরু হয় জানুয়ারিতে। এরপর কেটে গেছে ৭ মাসেরও বেশি সময়। মহামারি শুরু হওয়ার পর থেকেই মুখে মাস্ক পরার বিপক্ষে ছিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এজন্য তিনি ডেমোক্রেট প্রতিদ্বন্দ্বী জো বাইডেনকে নিয়ে ব্যাঙ্গও করেছিলেন।

অবশেষে শনিবার তাকে দেখা গেল মাস্ক পরা অবস্থায়। এদিন ওয়াশিংটনে সেনাবাহিনীর একটি মেডিকেল সেন্টারে গিয়েছিলেন ট্রাম্প। সেখানে আহত সৈনিক ও চিকিৎসক এবং নার্সদের সঙ্গে দেখা করেন। তাদের সঙ্গে দেখা করার আগে পরে নেন মাস্ক।

মাস্ক পরে হোয়াইট হাউস থেকে বের হওয়ার সময় তিনি বলেন, আমি বরাবরই মাস্কের বিরুদ্ধে। কিন্তু আমার মতে, সেটার জন্য একটা নির্দিষ্ট সময় এবং স্থান রয়েছে। এর আগে ট্রাম্প বলেছিলেন যে, তিনি মাস্ক পরবেন না।

হাসপাতাল থেকে বেরিয়ে ট্রাম্প বলেন, আমি মনে করি যখন আপনি হাসপাতালে যাবেন, বিশেষ করে যখন আপনি অনেক সেনা সদস্যদের সঙ্গে কথা বলবেন, যাদের অনেকেই অস্ত্রোপচারের টেবিল থেকে মাত্র ফিরেছে, এ সকল ক্ষেত্রে আমার মনে হয় মাস্ক পরিধান করা ভালো।

৩০ শতাংশ কর্মী ছাটাই করেছে মধ্যপ্রাচ্যের দেশ কাতার
                                  

কাতার প্রতিনিধি: সারা বিশ্বের ন্যায় করোনা মহামারির প্রভাব এবার কাতার বিশ্বকাপেও পড়তে যাচ্ছে। আর্থিক সঙ্কট এবং অন্যান্য কারণে লোকবল কমাতে যাচ্ছে আয়োজক দেশ কাতার। আয়োজক কমিটির সেক্রেটারি জেনারেল হাসান আল থাওয়াদি সম্প্রতি করোনার কারণে বিশ্বজুড়ে শুরু হওয়া আর্থিক সঙ্কট নিয়ে দুশ্চিন্তার কথা জানিয়েছেন।

করোনার কারণে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা ও সমস্ত ক্রীড়া আসর থমকে যাওয়ায় ফিফা’র পৃষ্ঠপোষক কাতার এয়ারওয়েজ এবং বিশ্বকাপ ম্যাচের সম্প্রচারের দায়িত্বে থাকা দোহা-ভিত্তিক ‘বিএন স্পোর্টস’ সম্প্রতি লোকবল ছাটাই করেছে। এছাড়া আর্থিক চাপ সামল দিতে রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠানগুলোকে বিদেশি শ্রমিকের সংখ্যা ৩০ শতাংশ কমাতে নির্দেশ দিয়েছে দেশটির সরকার।

অবকাঠামো নির্মাণের ৮৫ শতাংশ কাজ শেষ হওয়ায় বিশ্বকাপ আয়োজক কমিটি বলছে ‘লোকবল কমানো প্রয়োজন। কারণ বিশ্বকাপ আয়োজনের পরবর্তী পর্যায়ের কাজের জন্য এবার ভিন্ন ধরনের দক্ষ লোকবল প্রয়োজন।
 
তবে ঠিক কতজন মানুষ চাকরি হারিয়েছেন বা হারাতে পারে তা জানা যায়নি। তবে যারা চাকরি হারাচ্ছেন তাদেরকে কাতারি শ্রম আইন অনুযায়ী সকল পাওনা পরিশোধ করা হবে বলে এক বিবৃতির মাধ্যমে জানিয়েছে বিশ্বকাপ আয়োজক কমিটি।

অন্যদিকে বাংলাদেশী প্রবাসী শ্রমিকরা এমনিতেই লকডাউন ও করোনা ভাইরাসের কারণে তাদের কাজ বেতন ভাতা ইত্যাদি স্থবির হয়ে আছে। আবার এমন খবর শুনে আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে অনেকেই।

ইসরাইলকে ফ্রান্সের হুশিয়ারি
                                  

স্বাধীন বাংলা ডেস্ক: ইসরাইল কর্তৃক ফিলিস্তিনের পশ্চিম তীর এবং জর্দান উপত্যকা সংযুক্ত করার উদ্যোগ থেকে পিছু হটার আহ্বান জানিয়ে ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রো বলেছেন- ইসরাইলের এ উদ্যোগের ফলে আন্তর্জাতিক আইন লংঘিত হবে এবং দুই রাষ্ট্রভিত্তিক ফিলিস্তিন সমস্যার সমাধানের পথ বন্ধ হয়ে যাবে।

যুদ্ধবাজ ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী বেনজামিন নেতানিয়াহু’র সাথে ফোনে আলাপকালে ম্যাক্রো এই সংযুক্ত পরিকল্পনা থেকে ফিরে আসার আহ্বান জানান। নেতানিয়াহুর দাবি, তিনি আন্তর্জাতিক আইন অনুসারে ফিলিস্তিনের ভূখণ্ড সংযুক্ত করতে চলেছেন।
খবর আলজাজিরার।

নেতানিয়াহু আগেই ঘোষণা দিয়েছিলেন, ফিলিস্তিনি ভূখণ্ড সংযুক্তকরণের ব্যাপারে ১ জুলাই থেকে মন্ত্রিসভায় আলোচনা শুরু হবে। কিন্তু সে আলোচনা শুরু হয়নি বরং মন্ত্রিসভার মধ্যে এ নিয়ে মতভেদ সৃষ্টি হয়েছে। কারণ আন্তর্জাতিক অঙ্গনে এ নিয়ে ব্যাপক প্রতিক্রিয়া শুরু হয়েছে এবং বিশ্বের বেশিরভাগ দেশ এই পরিকল্পনার বিরোধিতা করছে।

লিবিয়ায় সামরিক হস্তক্ষেপের হুমকি মিশরের
                                  

স্বাধীন বাংলা ডেস্ক: লিবিয়ায় সামরিক হস্তক্ষেপের হুমকি দিয়েছে মিশর। মিশরের প্রেসিডেন্ট জেনারেল আব্দেল ফাত্তাহ আস-সিসি হুমকি দিয়ে বলেছেন, লিবিয়ায় সংঘর্ষরত দু’পক্ষ যদি সির্তে শহর ও আল-জুফরা বিমান অতিক্রম করে পূর্ব ও দক্ষিণদিকে অগ্রসর হতে চায় তাহলে দেশটিতে সেনা পাঠাবে মিশর। তবে সিসির ঘোষণার কঠোর প্রতিবাদ ও নিন্দা জানিয়ে ত্রিপোলি-ভিত্তিক জাতীয় ঐক্যমত্যের সরকার।

লিবিয়ার ঐক্যমত্যের সরকারের শীর্ষস্থানীয় সেনা কমান্ডার আব্দুল-হাদি দাররাহ বলেছে, ত্রিপোলি সরকার যেকোনো মূল্যে দেশের স্থিতিশীলতা ও সার্বভৌমত্ব রক্ষা করবে। আল জাজিরার সঙ্গে এক সাক্ষাৎকারে তার বাহিনী দেশের প্রতি ইঞ্চি ভূমি পুনরুদ্ধার না করা পর্যন্ত লড়াই চালিয়ে যাবে। একইসঙ্গে তিনি লিবিয়ায় তুর্কি সেনা উপস্থিতি অস্বীকার করে বলেন, ত্রিপোলির প্রতি আঙ্কারা যে সহযোগিতা করছে তা কারিগরি ও রসদ সংক্রান্ত বিষয়ে সীমাবদ্ধ।

মিশরের প্রেসিডেন্ট জেনারেল আব্দেল ফাত্তাহ আস-সিসি এর আগে হুমকি দিয়ে বলেছেন, লিবিয়ার সির্তে শহর ও আল-জুফরা বিমান ঘাঁটি হচ্ছে মিশরের রেডলাইন। তিনি বলেন, লিবিয়ায় সংঘর্ষরত দুই পক্ষ যদি এই দুই এলাকা অতিক্রম করে পূর্ব ও দক্ষিণদিকে অগ্রসর হতে চায় তাহলে দেশটিতে সেনা পাঠাবে মিশর। সিসি’র এই বক্তব্যকে লিবিয়ার জাতীয় ঐক্যমত্যের সরকারের পাশাপাশি তুরস্কের বিরুদ্ধে মিশরের সর্বোচ্চ হুমকি বলে মনে করা হচ্ছে।

২০১৪ সাল থেকে লিবিয়ার প্রতিদ্বন্দ্বী দু’টি গ্রুপ অপরকে উৎখাত করার জন্য সশস্ত্র সংগ্রাম চালাচ্ছে। এক পক্ষে রয়েছে আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত লিবিয়ার জাতীয় সরকার আর অন্য পক্ষে রয়েছে পূর্বাঞ্চলীয় তবরুক শহরভিত্তিক জেনারেল খলিফা হাফতারের বাহিনী। সংযুক্ত আরব আমিরাত, মিশর, রাশিয়া, জর্দান  জরদান থেকে সহযোগিতা পাচ্ছেন খলিফা হাফতার। অন্যদিকে, ত্রিপোলিভিত্তিক সরকারের পেছনে রয়েছে তুরস্ক।

৮৬ বছর পর আয়া সোফিয়ায় আজান
                                  

স্বাধীন বাংলা ডেস্ক: দীর্ঘ ৮৬ বছর পর আদালতের রায়ের মাধ্যমে তুরস্কে ইস্তাম্বুলের খ্যাতনামা আয়া সোফিয়ায় আজান দেয়া হয়েছে। দেশটির শীর্ষ আদালত শুক্রবার আয়া সোফিয়াকে ১৯৩৪ সালের তৎকালীন সরকারের জাদুঘরে পরিণত করার আদেশটি বাতিল করে।

এর পরেই তুরস্কের ইসলামপন্থী সরকারের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়েব এরদোগান এটিকে মসজিদ বানানোর এক আদেশে সই করেছেন।

দেড় হাজার বছরের পুরনো আয়া সোফিয়া এক সময় ছিল বিশ্বের সবচেয়ে বড় গির্জা, পরে তা পরিণত হয় মসজিদে, তারও পর একে জাদুঘরে রূপান্তরিত করা হয়। আদালতের এই সিদ্ধান্তের নিন্দা জানিয়েছে রাশিয়ার অর্থোডক্স চার্চ।

এরদোগান বলছেন, আদালতের রায়ের পর নামাজ পড়ার জন্য আয়া সোফিয়াকে খুলে দেয়া হবে।

টুইটারে এক পোস্টে এরদোগান জানান, আয়া সোফিয়ার সম্পত্তি ‘দিয়ামাত’ বা তুর্কী ধর্মীয় বিষয়ক দফতরের হাতে সোপর্দ করা হবে।

এরপরই আয়া সোফিয়াতে প্রথমবারের মতো আজান দেয়া হয়।

সরকারের কট্টরপন্থী সমর্থক ‘হাবার টিভি’সহ অন্যান্য টেলিভিশন চ্যানেলে এই দৃশ্য সম্প্রচার করা হয়।

আয়া সোফিয়ার ইতিহাস
আয়া সোফিয়ার ইতিহাসের সূচনা ৫৩৭ খ্রিস্টাব্দে, যখন বাইজান্টাইন সম্রাট জাস্টিনিয়ান ইস্তাম্বুলের গোল্ডেন হর্ন নামে এক জায়গায় একটি বিশাল গির্জা তৈরির সিদ্ধান্ত নেন।

সে সময় বিশাল গম্বুজের এই গির্জাকে বিশ্বের সবচেয়ে বড় গির্জা এবং দালান বলে মনে করা হতো।

১২০৪ সালে ক্রুসেডারদের হামলার ঘটনা বাদে কয়েক শতাব্দী ধরে আয়া সোফিয়া বাইজান্টাইনদের নিয়ন্ত্রণে ছিল।

ওসমানীয় বংশীয় সুলতান তৃতীয় মেহমেদ ১৪৫৩ সালে বাইজান্টাইন শাসকদের হাত থেকে ইস্তাম্বুল দখল করে নেন। তার আগ পর্যন্ত শহরটির নাম ছিল কনস্টান্টিনোপল।

ইস্তাম্বুল দখলের পর বিজয়ী মুসলিম বাহিনী প্রথমবারের মতো গির্জার ভেতরে নামাজ আদায় করে।

ওসমানীয় শাসকেরা এরপর আয়া সোফিয়াকে মসজিদে রূপান্তর করেন। মসজিদের চারপাশে চারটি মিনার তৈরি করেন।

গির্জার সব খ্রিস্টান প্রতিকৃতি এবং সোনালি মোজাইকগুলো কোরানের বাণী দিয়ে ঢেকে দেয়া হয়।

এর পরের কয়েক শ’ বছর ধরে আয়া সোফিয়া ছিল ওসমানীয় মুসলমান সাম্রাজ্যের কেন্দ্রবিন্দু।

১৯৩৪ সালে তুরস্কে ধর্মনিরপেক্ষতা চালু করার প্রক্রিয়ায় মসজিদটিকে জাদুঘরে পরিণত করা হয়।

আয়া সোফিয়া এখন তুরস্কের সবচেয়ে দর্শনীয় স্থান বলে স্বীকৃত। প্রতিবছর ৩৭ লাখ পর্যটক এটি দেখতে আসেন।

সূত্র : বিবিসি, ডেইলি সাবাহ

করোনাভাইরাস এখনও নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব : ডব্লিউএইচও
                                  

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাস এখনও নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব বলে জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা-ডব্লিউএইচও। শুক্রবার করোনা বিষয়ক সংবাদ সম্মেলনে একথা বলেন সংস্থাটির প্রধান টেড্রোস আধানম ঘেব্রেইয়েসুস।

ডব্লিউএইচও মহাপরিচালক টেড্রোস বলেন, গত দেড় মাসে বিশ্বব্যাপী করোনার সংক্রমণ তার আগের সময়ের চেয়ে দ্বিগুণেরও বেশি হয়েছে। তবে বিশ্বে এমন একাধিক জায়গার উদাহরণ রয়েছে, যেখানে করোনা পরিস্থিতি বেড়ে যাওয়ার পরও নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হয়েছে।

উদাহরণ হিসেবে ট্রেডোস বলেন, ইতালি, স্পেন ও দক্ষিণ কোরিয়া এমনই দেশ, যারা কৌশলী পন্থা অবলম্বন করে নিয়ন্ত্রণে আনতে পেরেছে। এমনকি মুম্বাইয়ের ঘিঞ্জি বস্তি ধারাবীও এক্ষেত্রে সফল।

ধারাবীকে বলা হয় এশিয়ার সবচেয়ে বড় ও ঘিঞ্জি বস্তি। মুম্বাই শহরের মধ্যে আড়াই বর্গকিলোমিটার জুড়ে এ বস্তিতে সাড়ে ৬ লাখ মানুষের বাস। ৪৭ হাজার বস্তিঘর একটি আরেকটির সঙ্গে লাগানো। অথচ এমন ঘিঞ্জি বস্তিতে করোনার সংক্রমণ ঘটলেও মারা গেছেন মাত্র একজন। মুম্বাই শহরেই যেখানে প্রতিদিন আক্রান্ত হচ্ছে হাজার হাজার মানুষ, সেখানে বস্তির ভেতরে মোট আক্রান্ত হয়েছে ২ হাজার ৩৩৫ জন। শুধু তাই নয়, সর্বশেষ আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছে গত ৫ এপ্রিল একজন। এরপর আর কেউ শনাক্ত হয়নি।

প্রশ্ন হলো, এমন বস্তিতে যেখানে সামাজিক দূরত্বের কথা বলাটাই হাস্যকর এবং সেখানে একজন আক্রান্ত হলে, পুরো বাসিন্দারাই সংক্রমণের শিকার হওয়াটাই স্বাভাবিক, সেখানে কীভাবে মহামারির নিয়ন্ত্রণ সম্ভব হলো?

মুম্বাইয়ের স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ বাস্তবতা মেনে নিয়েই করোনা মোকাবেলার কর্মকৌশল সাজিয়েছে ধারাবী বস্তিতে। করোনার প্রাদুর্ভাবের শুরু থেকে ধারাবী বস্তির প্রায় প্রতিটির দরজায় গিয়েছেন স্বাস্থ্যকর্মীরা। সবার শরীরের তাপমাত্রা ও অক্সিজেনের মাত্রা পরীক্ষা করেছেন তারা। যাদের শরীরের তাপমাত্রা বেশি, তাদের জন্য প্রতিষ্ঠা করা হয় ফিভার ক্লিনিক। আর যাদের উপসর্গ করোনার লক্ষণের সঙ্গে মিলে যায়, তাদের দ্রুত কোয়ারেন্টিন সেন্টার বানানো স্কুল ও স্পোর্টস ক্লাবে স্থানান্তর করা হয়। যার কারণে মহামারির হটস্পট থেকে ধারাবী আজ করোনার বিরুদ্ধে যুদ্ধজয়ের উদাহরণ হয়েছে।

এ বিষয়টিকেই তুলে ধরে ডব্লিউএইচও প্রধান বলেন, যেসব জায়গায় করোনা সংক্রমণ সবচেয়ে বেশি, সেখানে বেশি মাত্রায় টেস্ট করতে হবে। জাতীয় ঐক্যের সঙ্গে জোরালো পরীক্ষা, শনাক্ত ও কোয়ারেন্টিন ও যারা অসুস্থ তাদের চিকিৎসার মাধ্যমে এই মহামারি সংক্রমণের শিকল ভাঙা ও নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব।

এদিকে, গত কয়েকদিন ধরে একটি খবরে করোনাভাইরাস নিয়ে আরও বেশি উদ্বেগ বেড়েছে সাধারণ মানুষের। বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, করোনা ভাইরাস বায়ুবাহিত। অর্থাৎ বাতাস থেকেও ছড়াতে পারে ভাইরাস। নতুন এই তত্ত্ব নিয়ে শুরু হয়েছে জোর জল্পনা। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাও বিজ্ঞানীদের কথায় স্বিকৃতি দিয়েছেন।

এ বিষয়ে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার চিফ সায়েন্টিস্ট সৌম্যা স্বামীনাথন জানিয়েছেন, খুব অল্প কিছু ক্ষেত্রে করোনার জীবাণু বাতাসে বাঁচতে পারে, সংক্রমণও ঘটাতে পারে। এই যে আমরা কথা বলছি, গান গাইছি এমনকী শ্বাসপ্রশ্বাস নিচ্ছি এর মাধ্যমে মুখ থেকে অসংখ্য ছোট ছোট জলের ফোঁটা নির্গত হচ্ছে। এগুলির আকার ভিন্ন ভিন্ন।

তিনি বলেন, যেগুলি বড় সেগুলি ১-২ মিটারের মধ্যে মাটিতে পড়ে যায়। তাই সোশ্যাল ডিসট্যান্সিং-এর কথা বলা হয়। তবে যেসব কণা আকারে অপেক্ষাকৃত ছোট অর্থাৎ ৫ মাইক্রনেরও কম, তাদের বলে এরোসোল। এগুলি বাতাসে আরও কিছু সময় থাকতে পারে, মাটিতে পড়তে একটু বেশি সময় নেয়। ফলে, হাওয়ায় এদিক ওদিক হতে পারে সেগুলি। সেই কণা কেউ প্রশ্বাসের সঙ্গে গ্রহণ করলে সংক্রমণ হতে পারে।

তিনি বলেন, করোনার বায়ুবাহিত সংক্রমণ হামের মত নয়। হামের জীবাণু প্রকৃত অর্থেই বায়ুবাহিত। এই রোগ প্রাথমিকভাবে ছড়ায় বাতাস থেকে। তার কথায়, এটি হামের মত বাতাসে ছড়ালে এতদিনে আমরা সকলে করোনা আক্রান্ত হতাম।

বিশ্বে করোনায় একদিনে সর্বোচ্চ আক্রান্তের রেকর্ড
                                  

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : বিশ্বজুড়ে  মহামারি নভেল করোনাভাইরাস বা কোভিড-১৯ এ গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আরও দুই লাখ ৩৬ হাজার ২৭৮ জন  আক্রান্ত হয়েছেন। যা একদিনে সর্বোচ্চ শনাক্তের রেকর্ড। এছাড়া একই সময়ে মারা গেছেন ৫৩১০ জন।

চলতি মাসের শুরু থেকেই করোনা সংক্রমণে হঠাৎ দ্রুত ঊর্ধ্বগতি শুরু হয়। জুলাইয়ের প্রথম ১১ দিনের মধ্যে সাতদিনেই দৈনিক নতুন রোগী শনাক্তের হার ২ লাখ ছাড়িয়েছে। বাকি চারদিন ছিল ২ কিছুটা নিচে। তবে গড় হিসাবে প্রতিদিন আক্রান্ত হয়েছে অন্তত দুই লাখ মানুষ।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাও বলছে, বিশ্বজুড়ে করোনা পরিস্থিতির দিনে দিনে অবনতি ঘটছে। আরও দ্রুত বিস্তার ঘটাচ্ছে মহামারি এই ভাইরাস। তাই বিশ্বের সরকারগুলোকে করোনা প্রতিরোধে আরও কঠোর পদক্ষেপ নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছে সংস্থাটি।

করোনা নিয়ে আপডেট দেয়া ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটারের তথ্য অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে যে সোয়া দুই লাখের বেশি রোগী শনাক্ত হয়েছে এর উল্লেখযোগ্য সংখ্যক সংক্রমণের ঘটনা ঘটেছে কয়েকটি দেশে। এরমধ্যে রয়েছে শীর্ষ সংক্রমিত তিন দেশ যুক্তরাষ্ট্র, ব্রাজিল এবং ভারত। তালিকায় আরেকটি নাম হলো দক্ষিণ আফ্রিকায়। সেখানেও সংক্রমণ বাড়ছে খুব দ্রুতই।

শনিবার সকাল দশটা পর্যন্ত বিশ্বে করোনায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে এক কোটি ২৬ লাখ ২৫ হাজার ৮৬০ জন। আর মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৫ লাখ ৬২ হাজার ৮২০ জন। সুস্থ হয়েছেন ৭৩ লাখ ৬১ হাজার ৬৫৯ জন।

করোনায় আক্রান্ত ও মৃত্যুর দিক থেকে প্রথম অবস্থানে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। দেশটিতে শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ৩২ লাখ ৯১ হাজার ৭৮৬ জন। মৃত্যু হয়েছে ১ লাখ ৩৬ হাজার ৬৭১ জনের। দেশটিতে এ পর্যন্ত সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১৪ লাখ ৬০ হাজার ৪৯৫ জন।

করোনায় আক্রান্ত ও মৃত্যুতে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে ব্রাজিল। দেশটিতে এখন পর্যন্ত ১৮ লাখ ০৪ হাজার ৩৩৮ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন এবং দেশটিতে মৃত্যু হয়েছে ৭০ হাজার ৫২৪ জনের। আর এ পর্যন্ত ব্রাজিলে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১১ লাখ ৮৫ হাজার ৫৯৬ জন।

তৃতীয় অবস্থানে উঠে আসা ভারতে মোট ৮ লাখ ২২ হাজার ৬০৩ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে। আর দেশটিতে মৃত্যু হয়েছে ২২ হাজার ১৪৪ জনের এবং সুস্থ হয়েছেন ৫ লাখ ১৬ হাজার ২০৬ জন।

চতুর্থ অবস্থানে থাকা রাশিয়ায় করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৭ লাখ ১৩ হাজার ৯৩৬ জন। আর করোনায় মৃত্যু হয়েছে ১১ হাজার ১৭ জনের।

বিশ্বে ১৭ নম্বর অবস্থানে থাকা বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত ১ লাখ ৭৮ হাজার ৪৪৩ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে। দেশে করোনায় মৃত্যু হয়েছে ২ হাজার ২৭৫ জনের। আর সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৮৬ হাজার ৪০৬ জন।

করোনার উৎস তদন্তে চীনে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তদন্ত দল
                                  

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : গত বছরের ডিসেম্বরের শেষ দিকে চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহর থেকে শুরু হওয়া মহামারি কোভিড-১৯ বা নভেল করোনাভাইরাসের উৎস সম্পর্কে তদন্ত করতে চীনের পথে রওনা দিয়েছেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার একটি তদন্ত দল। শুক্রবার এক প্রেস ব্রিফিংয়ে সংস্থার মুখপাত্র মারগারেট হ্যারিস এ তথ্য জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, এই তদন্ত দলে দুজন বিশেষজ্ঞ রয়েছেন। এদের এক জন প্রাণি বিজ্ঞান এবং অন্যজন মহামারি বিশেষজ্ঞ। তারা নভেল করোনাভাইরাসের উৎস সন্ধানে চীনা বিজ্ঞানীদের সঙ্গে কাজ করবেন।

বিজ্ঞানীদের ধারণা, করোনাভাইরাসের উৎপত্তি সম্ভবত বাদুর থেকে। পরে এটি গন্ধগোকুল বা প্যাঙ্গোলিনের মতো প্রাণিদের দেহে সংক্রমিত হয়। গত বছর উহানের বন্যপ্রানির বাজারে এই সব প্রাণি থেকে ভাইরাসটি মানবদেহে সংক্রমিত হয়।


   Page 1 of 163
     আন্তর্জাতিক
করোনা মোকাবেলায় কাতারের সফলতা
.............................................................................................
করোনা মোকাবিলায় সফল কিউবা
.............................................................................................
মার্কিন বিমানবাহী রণতরীতে ভয়াবহ অগ্নিকান্ড
.............................................................................................
ভারতের চেয়ে চীনের সামরিক শক্তি ১০ গুন বেশি: শরদ পওয়ার
.............................................................................................
করোনার ভ্যাকসিন : মানব ট্রায়ালে সাফল্যের দাবি রাশিয়ার
.............................................................................................
করোনায় বিশ্বে মৃত্যু ৫ লাখ ৬৭ হাজার, আক্রান্ত এক কোটি ২৮ লাখ
.............................................................................................
যুক্তরাষ্ট্র থেকে ১০৫টি অত্যাধুনিক যুদ্ধবিমান কিনছে জাপান
.............................................................................................
২২ লাখ টাকা দামের পিস্তলসহ দাউদের ঘনিষ্ঠ সহযোগী গ্রেফতার
.............................................................................................
অবশেষে মাস্ক পরলেন ট্রাম্প
.............................................................................................
৩০ শতাংশ কর্মী ছাটাই করেছে মধ্যপ্রাচ্যের দেশ কাতার
.............................................................................................
ইসরাইলকে ফ্রান্সের হুশিয়ারি
.............................................................................................
লিবিয়ায় সামরিক হস্তক্ষেপের হুমকি মিশরের
.............................................................................................
৮৬ বছর পর আয়া সোফিয়ায় আজান
.............................................................................................
করোনাভাইরাস এখনও নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব : ডব্লিউএইচও
.............................................................................................
বিশ্বে করোনায় একদিনে সর্বোচ্চ আক্রান্তের রেকর্ড
.............................................................................................
করোনার উৎস তদন্তে চীনে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তদন্ত দল
.............................................................................................
করোনা উপেক্ষা করে সিঙ্গাপুরে জাতীয় নির্বাচনের ভোটগ্রহণ
.............................................................................................
উইঘুর মুসলমানদের উপর ‘গণহত্যা’ চালিয়েছে চীন: ওয়াশিংন পোস্ট
.............................................................................................
করোনাভাইরাস: আগাম ১৫ লাখ কবর খুঁড়ে রাখছে দ. আফ্রিকা
.............................................................................................
‘করোনা বৃষ্টির মতো, সবাইকে ভিজতে হবে’
.............................................................................................
কাশ্মীরে বিজেপি নেতাকে গুলি করে হত্যা
.............................................................................................
যুক্তরাষ্ট্রে করোনায় আক্রান্ত ৩১ লাখ ছাড়িয়েছে
.............................................................................................
করোনায় আক্রান্ত ১ কোটি ২০ লাখের অধিক
.............................................................................................
যুক্তরাষ্ট্রের জন্য দীর্ঘমেয়াদে সবচেয়ে বড় হুমকি চীন
.............................................................................................
রোহিঙ্গাদের দ্রুত প্রত্যাবাসন চায় ভারত: ড. এস জয়শংকর
.............................................................................................
টিকা না আসলে ভারতে প্রতিদিন ৩ লক্ষ আক্রান্ত হবে, গবেষণা প্রতিবেদন
.............................................................................................
ভারতে সংক্রমণ বাড়ছেই, নতুন আক্রান্ত ২২৭৫২
.............................................................................................
বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা থেকে আমেরিকার নাম প্রত্যাহার
.............................................................................................
যুক্তরাজ্যে উপসর্গবিহীন রোগী ৭৮ শতাংশ
.............................................................................................
একদিনে ২ লাখসহ আক্রান্ত ১ কোটি ১৯ লাখ ছাড়াল
.............................................................................................
নেপাল-চীন গোপন বৈঠক: অজানা শঙ্কায় ভারত
.............................................................................................
এবার ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট করোনায় আক্রান্ত
.............................................................................................
ইসরায়েলকে চরম হুঁশিয়ারি দিল ফ্রান্স-জার্মানিসহ ৪ দেশ
.............................................................................................
ভারতে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৭ লাখ ছাড়াল
.............................................................................................
করোনায় যুক্তরাষ্ট্রে একদিনে আক্রান্ত অর্ধলক্ষের অধিক
.............................................................................................
যুক্তরাষ্ট্র ছাড়তে হবে বিদেশি শিক্ষার্থীদের
.............................................................................................
বিশ্বে আক্রান্ত ১ কোটি ১৭ লাখ, মৃত্যু ৫ লাখ ৪০ হাজার ছাড়াল
.............................................................................................
৫ পাকিস্তানিকে গুলি, ভারতীয় কূটনৈতিককে তলব ইসলামাবাদের
.............................................................................................
পাকিস্তানকে অস্ত্রবাহী ড্রোন দিচ্ছে চীন
.............................................................................................
এবার চীনে ‘প্লেগ’র হানা, মহামারির শঙ্কা
.............................................................................................
করোনা সংক্রমণে রাশিয়াকে টপকে তৃতীয় অবস্থানে ভারত
.............................................................................................
এবারের হজে কাবা স্পর্শ করতে পারবেন না হাজিরা
.............................................................................................
‘মগজখেকো’ অ্যামিবার সন্ধান যুক্তরাষ্ট্রে
.............................................................................................
লাদাখে ভারতের ১৪৯ মিটার ভেতরে চীন, আরও নতুন স্থাপনা বানাচ্ছে
.............................................................................................
বিনামূল্যে ইকামার মেয়াদ বৃদ্ধির নির্দেশ সৌদি বাদশাহর
.............................................................................................
বিশ্বের সবচেয়ে বড় করোনা হাসপাতাল
.............................................................................................
লাদাখে ভারতের ভূমি কবে ছাড়বে চীন, জানে না ভারত
.............................................................................................
ভারতে একদিনে আক্রান্ত প্রায় ২৫ হাজার
.............................................................................................
মেক্সিকোতে করোনায় মৃত্যু ৩০ হাজার ছাড়াল
.............................................................................................
করোনায় আক্রান্ত পাক পররাষ্ট্রমন্ত্রী হাসপাতালে
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

সম্পাদক ও প্রকাশক : মোহাম্মদ আখলাকুল আম্বিয়া
নির্বাহী সম্পাদক: মাে: মাহবুবুল আম্বিয়া
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক: প্রদ্যুৎ কুমার তালুকদার

সম্পাদকীয় ও বাণিজ্যিক কার্যালয়: স্বাধীনতা ভবন (৩য় তলা), ৮৮ মতিঝিল বাণিজ্যিক এলাকা, ঢাকা-১০০০। Editorial & Commercial Office: Swadhinota Bhaban (2nd Floor), 88 Motijheel, Dhaka-1000.
সম্পাদক কর্তৃক রঙতুলি প্রিন্টার্স ১৯৩/ডি, মমতাজ ম্যানশন, ফকিরাপুল কালভার্ট রোড, মতিঝিল, ঢাকা-১০০০ থেকে মুদ্রিত ও প্রকাশিত ।
ফোন : ০২-৯৫৫২২৯১ মোবাইল: ০১৬৭০৬৬১৩৭৭

Phone: 02-9552291 Mobile: +8801670 661377
ই-মেইল : dailyswadhinbangla@gmail.com , editor@dailyswadhinbangla.com, news@dailyswadhinbangla.com

 

    2015 @ All Right Reserved By dailyswadhinbangla.com

Developed By: Nytasoft