শনিবার, ২ জুলাই 2022 বাংলার জন্য ক্লিক করুন
  
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   জাতীয় -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উপলক্ষ্যে কুয়েতে আনন্দ উৎসব

মহসিন পারভেজ, কুয়েত:

আমার টাকায় আমার সেতু, স্বপ্নের পদ্মা সেতুর শুভ উদ্বোধন উপলক্ষ্যে আলোচনা সভা ও প্রার্থনার মধ্য দিয়ে আনন্দ উৎসব উদযাপন করেছে কুয়েত আওয়ামী লীগ।  

কুয়েত আওয়ামী লীগের সভাপতি হোসেন মোহাম্মদ আজিজের সভাপতিত্বে কুয়েত আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহবায়ক মনছুর আহমেদের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানের শুরুতে পদ্মা সেতু উদ্বোধন উপলক্ষ্যে বাঙালি জাতির আত্মবিশ্বাস ও আত্মমর্যাদার প্রতীক স্বপ্নের ‘পদ্মা সেতু’ নিয়ে সংগীত পরিবেশনা করা হয়।

আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন প্রধান অতিথি বাংলাদেশ বিজনেস কাউন্সিল কুয়েতের সভাপতি লুৎফুর রহমান মুখাই আলী। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিমান বাংলাদেশ কুয়েত এর কান্ট্রি ম্যানেজার আবু বক্কর সিদ্দিক, বাংলাদেশি ক্রিকেট এসোসিয়েশন কুয়েত শাখার সভাপতি জাহাঙ্গীর খান পলাশ, বাংলাদেশ প্রেসক্লাব কুয়েতের সভাপতি মাইনুদ্দিন সুমন, তৌহিদ তালুকদার, আব্দুল মান্নান ও যুবলীগ কয়েত কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি নজরুল ইসলাম শাহীন প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যা শেখ হাসিনার দূরদর্শী নেতৃত্ব ও সাহসিকতার পরিচায়ক পদ্মা সেতু। বাংলাদেশের সামগ্রিক অর্থনীতিতে গতিশীলতা বৃদ্ধির পাশাপাশি দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলের মানুষের জীবনমান উন্নয়নেও বিশেষ ভূমিকা রাখবে। বক্তারা আরো বলেন, এই সেতু নির্মাণ ভবিষ্যতে এ ধরনের মেগা প্রজেক্ট বাস্তবায়নে সাহস ও অনুপ্রেরণা জোগাবে।

প্রবাসী বাঙালিদের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণে রাজধানী প্লেস হোটেলে অনুষ্ঠানটি একটি আনন্দঘন পরিবেশে রূপ নেয়। সবশেষ দেশীয় খাবারের নৈশভোজের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠান শেষ হয়।

পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উপলক্ষ্যে কুয়েতে আনন্দ উৎসব
                                  

মহসিন পারভেজ, কুয়েত:

আমার টাকায় আমার সেতু, স্বপ্নের পদ্মা সেতুর শুভ উদ্বোধন উপলক্ষ্যে আলোচনা সভা ও প্রার্থনার মধ্য দিয়ে আনন্দ উৎসব উদযাপন করেছে কুয়েত আওয়ামী লীগ।  

কুয়েত আওয়ামী লীগের সভাপতি হোসেন মোহাম্মদ আজিজের সভাপতিত্বে কুয়েত আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহবায়ক মনছুর আহমেদের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানের শুরুতে পদ্মা সেতু উদ্বোধন উপলক্ষ্যে বাঙালি জাতির আত্মবিশ্বাস ও আত্মমর্যাদার প্রতীক স্বপ্নের ‘পদ্মা সেতু’ নিয়ে সংগীত পরিবেশনা করা হয়।

আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন প্রধান অতিথি বাংলাদেশ বিজনেস কাউন্সিল কুয়েতের সভাপতি লুৎফুর রহমান মুখাই আলী। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিমান বাংলাদেশ কুয়েত এর কান্ট্রি ম্যানেজার আবু বক্কর সিদ্দিক, বাংলাদেশি ক্রিকেট এসোসিয়েশন কুয়েত শাখার সভাপতি জাহাঙ্গীর খান পলাশ, বাংলাদেশ প্রেসক্লাব কুয়েতের সভাপতি মাইনুদ্দিন সুমন, তৌহিদ তালুকদার, আব্দুল মান্নান ও যুবলীগ কয়েত কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি নজরুল ইসলাম শাহীন প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যা শেখ হাসিনার দূরদর্শী নেতৃত্ব ও সাহসিকতার পরিচায়ক পদ্মা সেতু। বাংলাদেশের সামগ্রিক অর্থনীতিতে গতিশীলতা বৃদ্ধির পাশাপাশি দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলের মানুষের জীবনমান উন্নয়নেও বিশেষ ভূমিকা রাখবে। বক্তারা আরো বলেন, এই সেতু নির্মাণ ভবিষ্যতে এ ধরনের মেগা প্রজেক্ট বাস্তবায়নে সাহস ও অনুপ্রেরণা জোগাবে।

প্রবাসী বাঙালিদের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণে রাজধানী প্লেস হোটেলে অনুষ্ঠানটি একটি আনন্দঘন পরিবেশে রূপ নেয়। সবশেষ দেশীয় খাবারের নৈশভোজের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠান শেষ হয়।

বুয়েটে চান্স পেয়েছে আবরার ফাহাদের ছোট ভাই
                                  

স্বাধীন বাংলা ডেস্ক
বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বুয়েট) ভর্তির সুযোগ পেয়েছেন বুয়েট ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের হাতে নির্মমভাবে নিহত হওয়া বুয়েট-এর তড়িৎ কৌশল বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদের ছোট ভাই আবরার ফাইয়াজ।

বৃহস্পতিবার (৩০ জুন) রাতে বুয়েটের ২০২১-২২ ব্যাচের স্নাতক ভর্তির ফল প্রকাশ হয়েছে। প্রকাশিত মেধা তালিকায় ৪৫০তম হয়ে যন্ত্রকৌশল বিভাগে চান্স পেয়েছেন তিনি।

ফলাফল নিয়ে খুশি আবরার ফাইয়াজ ও তার পরিবার। তবে নিরাপত্তা নিয়ে এখনও সন্দিহান তারা। কারণ এই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানেই ভাই হারিয়েছেন ফাইয়াজ, সন্তান হারিয়েছেন বরকত উল্লাহ-রোকেয়া খাতুন দম্পতি। তাই ভেবে-চিন্তেই সিদ্ধান্ত নেবেন তারা।

ফাইয়াজ বলেন, ‘ভাইয়া আজ নেই, আমি চান্স পেয়ে গেলাম। ব্যাপারটা যে রকম হওয়ার কথা ছিল, তার থেকে ভিন্ন রকম হয়ে গেল। এখনকার অনুভূতি আসলে ভাষায় প্রকাশ করার মতো নয়।’

ফাইয়াজ বলেন, ‘আব্বু আসলে এখন পর্যন্ত ভালো-মন্দ বেশি কিছু বলেনি। কিন্তু আম্মু বুয়েটে ভর্তি হওয়াকে খুব একটা ভালোভাবে নিচ্ছেন না। তিনি একটু শঙ্কিত। এ ছাড়া পরিবারের অনেক সদস্যই আছেন, যাঁরা আসলে বুয়েটে ভর্তি হওয়াকে পছন্দ করছেন না। তাঁদের বেশির ভাগেরই বেশ সন্দেহ আছে নিরাপত্তা নিয়ে। এজন্য পরিবারের কেউ ওরকমভাবে জোর দিয়ে বলেছে না যে, বুয়েটেই ভর্তি হও।’

এ বিষয়ে আবরার ফাইয়াজের বাবা বরকত উল্লাহ বলেন, ফাইয়াজ এখন ইসলামিক ইউনিভার্সিটি অব টেকনোলজিতে অধ্যয়নরত। তাকে বুয়েটে ভর্তি করাবো কিনা তা নিয়ে আরও চিন্তা-ভাবনা করতে হবে। আর ওর ইচ্ছাকেও প্রাধান্য দেবো।

উল্লেক্ষ্য, ২০১৯ সালের ৬ অক্টোবর বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শেরে বাংলা হলের আবাসিক ছাত্র ও তড়িৎ কৌশল বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদকে নির্মমভাবে পিটিয়ে হত্যা করে বুয়েট ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা।

পদ্মা সেতু রুটের বাসের ভাড়া আবারও বাড়ল
                                  

স্বাধীন বাংলা ডেস্ক
দেশের প্রথম এক্সপ্রেসওয়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মহাসড়কের (পূর্ববর্তী নাম ঢাকা-মাওয়া-ভাঙ্গা এক্সপ্রেসওয়ে) টোল হিসা‌ব করে পদ্মা সেতু হ‌য়ে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে চলাচলকারী বা‌সের ভাড়া আবারও পুনর্নির্ধারণ করেছে সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ)।

গতকাল সংস্থাটির পরিচালক (ইঞ্জিনিয়ারিং) শীতাংশু শেখর বিশ্বাস স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে ১৫টি রুটের ভাড়া পুনর্নির্ধারণ করা হয়েছে। এবার ৪০ ও ৫১ আসনবিশিষ্ট দুই ধর‌নের বা‌সের ভাড়া চূড়ান্ত করা হয়েছে। বর্ধিত ভাড়া আজ থেকে কার্যকর হবে।

এর আগে গত ৭ জুন রাজধানীর সায়েদাবাদ বাস টার্মিনাল থেকে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ১৩টি রুটে চলাচল করা বাস ভাড়া চূড়ান্ত করেছিল বিআরটিএ। এরপর ২০ জুন হালনাগাদ দূরত্বের ভি‌ত্তি‌তে ভাড়া পুন‌র্নির্ধারণ করা হয়।

ঢাকার সায়েদাবাদ থেকে মাওয়া, ভাঙ্গা, মাদারীপুর হয়ে বরিশালের দূরত্ব ১৫৬ কিলোমিটার। ভাড়া ৪৫৪ টাকা। এর আগে সায়েদাবাদ থেকে বরিশালের ভাড়া যথাক্রমে ৪১২ ও ৪২১ টাকা ধরা হ‌য়ে‌ছিল।

এবার ভাড়া বে‌ড়ে‌ছে টো‌ল হিসা‌বের পদ্ধ‌তি‌তে প‌রিবর্তন আনায়। এর আগের দুইবার বাসের শতভাগ আসন পূর্ণ ধ‌রে টো‌লের টাকা‌ ভাগ করা হ‌য়ে‌ছিল। কিন্তু নতুন হিসা‌বে বাসের মোট সিটের ৭০ শতাংশ ২৮ দি‌য়ে টো‌লের টাকা ভাগ করা হ‌য়ে‌ছে।

এক্স‌প্রেসও‌য়ে‌তে ৪০ আস‌ন বিশিষ্ট একটি বা‌সের টোল ৪৯৫ টাকা। ২৮ আসন পূর্ণ ধর‌লে যাত্রী প্রতি টোলের পরিমাণ দাঁড়ায় ১৭ টাকা ৬৭ পয়সা। এদিকে পদ্মা সেতু‌তে দুই হাজারসহ ঢাকা ব‌রিশাল রু‌টে মোট টোল ২ হাজার ৬৯৫ টাকা। যাত্রী প্রতি টোল ৯৬ টাকা ২৫ পয়সা।

পুনর্নির্ধারিত তালিকা অনুযায়ী, ঢাকা-গোপালগঞ্জের ভাড়া ৪২৩ টাকা। যা আগে ধরা হ‌য়ে‌ছিল ৩৯২ টাকা। এছাড়া নতুন তালিকায় ঢাকা থেকে খুলনার ভাড়া ৫৩৭ থে‌কে ৫৭৫ টাকা হ‌য়ে‌ছে। এর ম‌ধ্যে টোলই ১০০ টাকা। ঢাকা-শরীয়তপুরের ভাড়া ২২৬ থে‌কে বে‌ড়ে ২৫৭ টাকা হ‌য়ে‌ছে।

এদিকে পুনর্নির্ধারিত ভাড়ার তালিকা অনুযায়ী, ঢাকা-পিরোজপুর ৫৮০, বাগেরহাট হয়ে ঢাকা-পিরোজপুর ৬১৯, ঢাকা-পটুয়াখালী ৫৬১, ঢাকা-মাদারীপুর ৩৪৪, ঢাকা-সাতক্ষীরা ৬৮৯, ঢাকা-ফরিদপুর ৩২৩, বাবুবাজার সেতু হয়ে শরীয়তপুর ২৫৭, ঢাকা-কুয়াকাটা ৭৬৭, কক্সবাজার থেকে বরিশাল ১ হাজার ৩৮৮, চট্টগ্রাম-খুলনা ১ হাজার ১৯২ এবং চট্টগ্রাম-বরগুনা ১ হাজার ২৮২ টাকা করা হয়েছে।

বিআরটিএর প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, এ বাস ভাড়ার সঙ্গে মেয়র মোহাম্মদ হানিফ ফ্লাইওভারের ভাড়া সংযুক্ত করা হয়নি। এ ফ্লাইওভার ব্যবহারকারী ৫১ আসনের বাসে যাত্রীপ্রতি ৬ টাকা ৭২ পয়সা ও ৪০ আসনের বাসে যাত্রীপ্রতি ৯ টাকা ভাড়া দিতে হবে।

দেশে বন্যায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৯২
                                  

স্বাধীন বাংলা ডেস্ক
দেশের বিভিন্ন স্থানে বন্যায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৯২ জনে দাঁড়িয়েছে। এর মধ্যে সিলেটেই মারা গেছেন ৫৫ জন এবং ৩১ জন ময়মনসিংহ বিভাগে। এছাড়া বন্যার কারণে বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়েছেন ৯ হাজার ৪৯৬ জন। এর মধ্যে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত ৬ হাজার ১৫২ জন।

গত ১৭ মে থেকে ৩০ জুন পর্যন্ত এই ৯২ জনের মৃত্যু হয়।

বৃহস্পতিবার (৩০ জুন) স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোলরুম থেকে পাঠানো বন্যা বিষয়ক এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানায়, ১৭ মে থেকে ৩০ জুন পর্যন্ত মৃতদের মধ্যে সিলেট জেলায় ১৮ জন, সুনামগঞ্জে ২৭ জন, হবিগঞ্জে পাঁচ জন, মৌলভীবাজারে পাঁচ জন, ঢাকা বিভাগের টাঙ্গাইলে একজন, ময়মনসিংহে পাঁচ জন, নেত্রকোনায় ১০ জন, জামালপুরে ৯ জন, শেরপুরে সাত জন, কুড়িগ্রামে তিন জন এবং লালমনিরহাটে একজন রয়েছেন।

যে ১৬ নির্দেশনা মানতে হবে কুরবানির হাটে
                                  

স্বাধীন বাংলা ডেস্ক
আগামী ১০ জুলাই অনুষ্ঠিত হবে পবিত্র ঈদুল আজহা। ইতোমধ্যেই প্রস্তুত হয়ে গেছে কুরবানির পশুর হাটগুলো। এদিকে পশুর হাট ব্যবস্থাপনায় বেশ কিছু নির্দেশনা মেনে চলার পরামর্শ দিয়েছে সরকার। বৃহস্পতিবার (৩০ জুন)সরকারি এক তথ্য বিবরণীতে কুরবানির হাটের ইজারাদার, ক্রেতা বিক্রেতাদের জন্য এসব নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

কুরবানির হাটে মানতে হবে যেসব নির্দেশনা-


১। হাট বসানোর জন্য পর্যাপ্ত খোলা জায়গা নির্বাচন করতে হবে। কোনো অবস্থায় বদ্ধ জায়গায় হাট বসানো যাবে না।

২। ইজারাদারের হাট বসানোর আগে মহামারি প্রতিরোধী সামগ্রী যেমন-মাস্ক, সাবান, জীবাণুমুক্তকরণ সামগ্রী ইত্যাদি সংগ্রহ করতে হবে। পরিষ্কার পানি সরবরাহ ও হাত ধোয়ার জন্য পর্যাপ্ত পরিমাণে তরল সাবান/সাধারণ সাবানের ব্যবস্থা রাখতে হবে। নিরাপদ বর্জ্য নিষ্কাশন ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে হবে।

৩। কুরবানির হাটের সঙ্গে জড়িত কর্মকর্তা, কর্মচারী ও হাট কমিটির সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। হাট কমিটির সবার ব্যক্তিগত সুরক্ষা জোরদার করা ও মাস্ক ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে।

৪। হাটের সঙ্গে জড়িত কর্মীদের স্বাস্থ্যবিধির নির্দেশনা দিতে হবে। জনস্বাস্থ্যের বিষয়গুলো যেমন মাস্কের সঠিক ব্যবহার, হাঁচি-কাশির শিষ্টাচার, শারীরিক দূরত্ব, হাত ধোয়া, জীবাণুমুক্তকরণ বিষয়গুলোকে গুরুত্ব দিতে হবে। স্বাস্থ্যবিধিসমূহ সার্বক্ষণিক মাইকে প্রচার করতে হবে।

৫। মাস্ক ছাড়া কোনও ক্রেতা-বিক্রেতা হাটের ভেতরে প্রবেশ করতে পারবেন না। হাট কর্তৃপক্ষ চাইলে বিনামূল্যে মাস্ক সরবরাহ করতে পারেন বা এর মূল্য নির্ধারণ করে দিতে পারেন।

৬। প্রতিটি হাটে সিটি করপোরেশনের ডিজিটাল পর্দায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নির্দেশনা অনুযায়ী স্বাস্থ্যবিধি প্রচার করতে হবে।

৭। কুরবানির হাটে প্রবেশের জন্য গেট (প্রবেশপথ ও বাহিরপথ) নির্দিষ্ট করতে হবে।

৮। পর্যাপ্ত পানি ও ব্লিচিং পাউডার দিয়ে বর্জ্য দ্রুত পরিষ্কার করতে হবে। কোথাও জলাবদ্ধতা তৈরি করা যাবে না।

৯। প্রতিটি হাটে সিটি করপোরেশন/পৌরসভা/ইউনিয়ন পরিষদের এক বা একাধিক ভ্রাম্যমাণ স্বেচ্ছাসেবী মেডিকেল টিম গঠন করে সেবা দেওয়ার ব্যবস্থা করা যেতে পারে। মেডিকেল টিমের কাছে শরীরের তাপমাত্রা মাপার জন্য ডিজিটাল থার্মোমিটার রাখা যেতে পারে, যাতে প্রয়োজনে হাটে আসা সন্দেহজনক করোনা আক্রান্ত ব্যক্তিদের দ্রুত চিহ্নিত করা যায়। এছাড়া তাৎক্ষণিকভাবে রোগীকে আলাদা করে রাখার জন্য প্রতিটি হাটে একটি আইসোলেশন ইউনিট (একটি আলাদা কক্ষ) রাখা যেতে পারে।

১০। একটি পশুর থেকে আরেকটা পশু এমনভাবে রাখতে হবে যেন ক্রেতারা কমপক্ষে তিন ফুট বা দুই হাত দূরত্ব বজায় রেখে পশু কিনতে পারেন।

১১। ভিড় এড়াতে মূল্য পরিশোধ ও হাসিল আদায় কাউন্টারের সংখ্যা বাড়াতে হবে।

১২। মূল্য পরিশোধের সময় সারিবদ্ধভাবে লাইনে দাঁড়ানোর সময় যেন কম হয় সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে। লাইনে তিন ফুট বা কমপক্ষে দুই হাত দূরত্ব বজায় রেখে দাঁড়াতে হবে। প্রয়োজনে রেখা টেনে বা গোল চিহ্ন দিতে হবে।

১৩। সব পশু একত্রে হাটে প্রবেশ না করিয়ে, হাটের ধারণ ক্ষমতা অনুযায়ী পশু প্রবেশ করাতে হবে।

১৪। হাটের ধারণ ক্ষমতা অনুযায়ী, নিরাপদ দূরত্ব বজায় রেখে কেনাকাটা করা সম্ভব, এমন সংখ্যক ক্রেতাকে হাটে প্রবেশের সুযোগ দিতে হবে। অবশিষ্ট ক্রেতারা হাটের বাইরে নিরাপদ দূরত্ব বজায় রেখে অপেক্ষা করবেন। একটি পশু কেনার জন্য এক বা দুই জনের বেশি ক্রেতা হাটে প্রবেশ করবেন না।

১৫। অনলাইনে পশু কেনা-বেচার জন্য জনগণকে উৎসাহিত করা যেতে পারে।

১৬। স্থানীয় প্রশাসন, আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও স্বাস্থ্য বিভাগের সঙ্গে সমন্বয় করে সব কাজ নিশ্চিত করতে হবে।

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার দেশের আকাশে পবিত্র জিলহজ মাসের চাঁদ দেখা গেছে। ফলে আগামী ১০ জুলাই দেশে মুসলিমদের বড় ধর্মীয় উৎসব ঈদুল আজহা বা কোরবানির ঈদ উদযাপিত হবে। আর ঈদুল আজহাকে ঘিরে এ বছর সারাদেশে চার হাজার ৪০৭টি কোরবানির হাট বসবে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

ক্ষতিগ্রস্ত ঘরবাড়ি-রাস্তাঘাট মেরামতে সহযোগিতা করা হবে
                                  

স্বাধীন বাংলা প্রতিবেদক
বৃহত্তর সিলেটসহ দেশের যেসব অঞ্চল বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে সেখানে সরকারের পক্ষ থেকে ত্রাণসহ সব ধরনের সহযোগিতা করা হচ্ছে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বন্যাকবলিত এলাকার ঘরবাড়ি, রাস্তাঘাট যেগুলো নষ্ট হয়েছে সেগুলো আবার মেরামতের জন্য সহযোগিতা করা হবে।

বুধবার একাদশ জাতীয় সংসদের অষ্টাদশ অধিবেশনের সমাপনী বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

শেখ হাসিনা বলেন, আষাঢ়, শ্রাবণ ও ভাদ্র মাসে দেশে বন্যা হয়। পরবর্তীতে দক্ষিণাঞ্চলে বন্যা আসবে এটা আমাদের ধরেই নিতে হবে। এ জন্য আমারা প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছি। আফগানিস্তানে ভূমিকম্পে ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য শুকনো খাবার, ওষুধ ও তাঁবু প্রেরণ করার ব্যবস্থা সরকার নিয়েছে। মানবতার কারণে আমরা এ কাজটা করে যাচ্ছি।

তিনি বলেন, করোনাভাইরাস ও রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে দ্রব্যমূল্যের ওপর চাপ এসেছে। বিশেষ করে যেসব পণ্য আমাদের বিদেশ থেকে আমদানি করতে হয়, সেগুলোতে চাপ আসে। দ্রব্যমূল্য সহনশীল রাখার জন্য ভোক্তা অধিদপ্তরসহ অন্যান্য সংস্থাগুলো দিয়ে নিয়মিত বাজার মনিটরিং ব্যবস্থা জোরদার করেছি। তাছাড়াও আমরা রাশিয়া, ইউক্রেন, কানাডা ও অন্যান্য জায়গা থেকে গম, সার ও তেল যাতে আমদানি করা যায়… ব্রাজিল থেকে তেল আমদানির ব্যবস্থাও আমরা নিয়েছি।

এ সময় চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডের বিএম কন্টেইনার ডিপোতে বিস্ফোরণের ঘটনায় তদন্ত হচ্ছে বলে জানান সরকার প্রধান।

৬ লাখ ৭৮ হাজার ৬৪ কোটি টাকার বাজেট পাস
                                  

স্বাধীন বাংলা প্রতিবেদক
অর্থনৈতিক সংকট থেকে উত্তরণ এবং মহামারির দুই বছর পেরিয়ে উন্নয়নের হারানো গতি ফিরিয়ে আনার প্রত্যয় নিয়ে আগামী ১ জুলাই থেকে শুরু হতে যাচ্ছে নতুন অর্থবছর। বড় ধরেনের কোনো পরিবর্তন ছাড়াই কণ্ঠভোটে ২০২২-২৩ অর্থবছরের জন্য ৬ লাখ ৭৮ হাজার ৬৪ কোটি টাকার বাজেট জাতীয় সংসদে পাস হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (৩০ জুন) রাত পৌনে ৯টার দিকে কণ্ঠভোটে এ বাজেট পাস হয়। এর আগে বিকেল ৩টায় স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সংসদের বাজেট অধিবেশনের সমাপনী দিনের কার্যক্রম শুরু হয়।

সংসদে পাস হওয়া এ বাজেট রাষ্ট্রপতির অনুমোদনের পর ২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রথম দিন থেকে (শুক্রবার, ১ জুলাই) কার্যকর হবে। গত ৯ জুন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল ২০২২-২৩ অর্থ বছরের বাজেট পেশ করেন অর্থমন্ত্রী আহম মুস্তফা কামাল।

অর্থমন্ত্রীর বাজেট পেশের পর পুরো অধিবেশন জুড়ে এর ওপর আলোচনা করেন সংসদ সদস্যরা। মহামারিকালে গত দুই বছরের চেয়ে এবারের বাজেট অধিবেশন ছিল দীর্ঘ। বাজেট নিয়ে আলোচনাও হয়েছে গত দুই বছরের তুলনায় অনেক বেশি সময় ধরে।

এর আগে ২০২০ সালে বাংলাদেশের ইতিহাসে সবচেয়ে সংক্ষিপ্ত বাজেট অধিবেশন হয়েছিল। নয় দিনের ওই বাজেট অধিবেশনে ১৮ জন সংসদ সদস্য বাজেট নিয়ে আলোচনা করেছিলেন।

অর্থমন্ত্রীর বাজেট উত্থাপনের পর গত ১৩ জুন বিদায়ী ২০২১-২২ অর্থবছরের জন্য ১৭ হাজার ৫২৪ কোটি ৬৪ লাখ ৫ হাজার টাকার সম্পূরক বাজেট সংসদে পাস হয়েছে।

কয়েকজন সংসদ সদস্যের সংশোধনী প্রস্তাব গ্রহণের মধ্য দিয়ে বুধবার সংসদে অর্থবিল পাস হয়।

এক নজরে নতুন বাজেট
কোভিড মহামারির পর ইউক্রেইন যুদ্ধের কঠিন বাস্তবতায় দাঁড়িয়ে উন্নয়নের হারানো গতিতে ফেরার চ্যালেঞ্জ নিয়ে নতুন অর্থবছরের জন্য ৬ লাখ ৭৮ হাজার ৬৪ কোটি টাকার বাজেট সংসদে উপস্থাপন করেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। প্রস্তাবিত বাজেট বিদায়ী অর্থবছরের সংশোধিত বাজেটের (৫ লাখ ৯৩ হাজার ৫০০ কোটি টাকা) চেয়ে ১৪ দশমিক ২৪ শতাংশ বেশি। টাকার ওই অঙ্ক বাংলাদেশের মোট জিডিপির ১৫ দশমিক ২৩ শতাংশের সমান।

গত বছরের তুলনায় বাজেটের আকার জিডিপির অনুপাতে কিছুটা কমলেও ৭ দশমিক ৫ শতাংশ জিডিপি প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা ঠিক করেছেন অর্থমন্ত্রী। অন্যদিকে সারাবিশ্বে দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি ও অভ্যন্তরীণ সরবরাহে বিশঙ্খলার মধ্যেও মূল্যস্ফীতি ৫ দশমিক ৬ শতাংশে বেঁধে রাখার আশা করছেন তিনি।

প্রস্তাবিত বাজেটে রাজস্ব খাতে আয় ধরা হয়েছে ৪ লাখ ৩৩ হাজার কোটি টাকা। এই অংক বিদায়ী অর্থবছরের সংশোধিত রাজস্ব আয়ের ১১.৩১ শতাংশ বেশি।

এর মধ্যে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের মাধ্যমে কর হিসেবে ৩ লাখ ৭০ হাজার কোটি টাকা আদায় করা যাবে বলে আশা করছেন কামাল। ফলে এনবিআরের কর আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা বাড়ছে ১২ শতাংশের মতো। এই অংক মোট বাজেটের ৫৪ দশমিক ৫৬ শতাংশের মতো।

গতবারের মতো এবারও সবচেয়ে বেশি কর আদায়ের লক্ষ্য ঠিক করা হয়েছে মূল্য সংযোজন কর বা ভ্যাট থেকে, ১ লাখ ৪১ হাজার ১৯২ কোটি টাকা। এই অংকও বিদায়ী অর্থবছরের সংশোধিত লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় ১০ দশমিক ৬৭ শতাংশের মতো। বিদায়ী অর্থবছরের বাজেটে ভ্যাট থেকে রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্য ধরা ছিল ১ লাখ ২৭ হাজার ৫৬৮ কোটি টাকা।

আয়কর ও মুনাফার ওপর কর থেকে ১ লাখ ২১ হাজার ২০ কোটি টাকা রাজস্ব পাওয়ার আশা করা হয়েছে এবারের বাজেটে। বিদায়ী সংশোধিত বাজেটে এর পরিমাণ ছিল ১ লাখ ৫ হাজার ৩২৪ কোটি টাকা।

নতুন বাজেটে আমদানি শুল্ক থেকে ৪৩ হাজার ৯৯৪ কোটি টাকা, সম্পূরক শুল্ক থেকে ৫৮ হাজার ৫২৪ কোটি টাকা, রপ্তানি শুল্ক থেকে ৬৩ কোটি টাকা, আবগারি শুল্ক থেকে ৪ হাজার ১২৭ কোটি টাকা এবং অন্যান্য কর ও শুল্ক থেকে ১ হাজার ৮০ কোটি টাকা আদায়ের পরিকল্পনা করেছেন অর্থমন্ত্রী।

বৃহস্পতিবার স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী অধিবেশনের শুরুতেই বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও বিভাগের মঞ্জুরি দাবিতে আলোচনা করার কথা জানান। বিরোধী দলের সংসদ সদস্যরা এসব দাবিতে আলোচনা করেন।

আগামী অর্থবছরের বাজেট ব্যয়ের বাইরে সরকারের বিভিন্ন ধরনের সংযুক্ত দায় মিলিয়ে মোট আট লাখ ৮৩ হাজার ৭৫১ কোটি ৮১ লাখ ৯৭ হাজার টাকার নির্দিষ্টকরণ বিল জাতীয় সংসদে কণ্ঠভোটে পাস হয়েছে।

এর মধ্যে, সংসদ সদস্যদের ভোটে গৃহীত অর্থের পরিমাণ ছয় লাখ ১৮ হাজার ৮২৫ কোটি ৪৯ লাখ ৯৭ হাজার টাকা এবং সংযুক্ত তহবিলের ওপর দায় দুই লাখ ৬৪ হাজার ৯২৬ কোটি ৩২ লাখ টাকা।

সংযুক্ত তহবিলের দায়ের মধ্যে ট্রেজারি বিলের দায় পরিশোধ, হাইকোর্টের বিচারপতি ও মহাহিসাব নিরীক্ষক-নিয়ন্ত্রকের বেতনও অন্তর্ভুক্ত।

আগামী অর্থবছরের বাজেটের ওপর সংসদে উত্থাপিত বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও বিভাগ খাতের ৫৯টি মঞ্জুরি দাবির বিপরীতে বিরোধী দল জাতীয় পার্টি, বিএনপি ও স্বতন্ত্রসহ মোট ১৩ জন সংদ সদস্য ৬৬৪টি বিভিন্ন ধরনের ছাঁটাই প্রস্তাব আনেন।

এর মধ্যে নির্বাচন কমিশন সচিবালয়, জননিরাপত্তা বিভাগ, স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ এবং মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগে দাবি ও ছাঁটাই প্রস্তাব নিয়ে আলোচনা হয়।

বিরোধী দলের আলোচনার পর সবগুলো প্রস্তাব কণ্ঠভোটে বাতিল হয়ে যায়।

কৃষিমন্ত্রী আব্দুর রাজ্জাক, শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনির অনুপস্থিতিতে তাদের মঞ্জুরি দাবি তোলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

ছাঁটাই প্রস্তাবগুলো দেন, জাতীয় পার্টির কাজী ফিরোজ রশীদ, মুজিবল হক চুন্নু, ফখরুল ইমাম, রওশন আরা মান্নান, পীর ফজলুর রহমান, শামীম হায়দার পাটোয়ারী, রুস্তম আলী ফরাজী, পনির উদ্দিন আহমেদ, বিএনপির হারুনুর রশীদ, রুমিন ফারহানা, মোশাররফ হোসেন, গণফোরামের মোকাব্বির খান এবং স্বতন্ত্র সদস্য রেজাউল করিম বাবলু।

অভিযোগের জবাব দিল ইউনূস সেন্টার
                                  

স্বাধীন বাংলা প্রতিবেদক
সম্প্রতি পদ্মা সেতুর উদ্বোধনকে কেন্দ্র করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নোবেল বিজয়ী অর্থনীতিবিদ ড. মুহম্মদ ইউনূসের বিরুদ্ধে বেশ কিছু অভিযোগ উত্থাপন করেন। সেসব অভিযোগের জবাব দিয়েছেন ড. ইউনূস। বুধবার ইউনূস সেন্টার থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব অভিযোগের জবাব দেওয়া হয়েছে।

৬০ বছর বয়স হলেও গ্রামীণ ব্যাংকের এমডির পদ থেকে পদত্যাগ না করে পাল্টা মামলা করার প্রসঙ্গে জবাবে বলা হয়েছে, গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক নিয়োগ দেওয়া হয় এর পরিচালনা পরিষদ কর্তৃক নির্ধারিত শর্তে একটি চুক্তির অধীনে। এই নিয়োগের জন্য কোন বয়সসীমা আইনে বা পরিচালনা পর্ষদের সিদ্ধান্তে উল্লেখ ছিল না।

প্রফেসর ইউনূস ৬০ বছর বয়সে পদার্পণ করলে তিনি স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে পরিচালনা পরিষদকে জানান যে, যেহেতু তার বয়স ৬০ বছর হয়েছে তারা একজন নতুন ব্যবস্থাপনা পরিচালক নিয়োগের বিষয়টি বিবেচনা করতে পারেন। পরিচালনা পরিষদ অন্য কোন রূপ সিদ্ধান্ত না হওয়া পর্যন্ত তাকেই দায়িত্ব পালন করে যেতে বলেন। পরিচালনা পরিষদ তার বর্তমান নিয়োগের মেয়াদ শেষ হবার পর তাকেই ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসেবে পুনঃনিয়োগ দেয়। সে সময় তার বয়স ছিল ৬১ বছর ৬ মাস। বাংলাদেশ ব্যাংক তাদের নিয়মিত পরিদর্শন প্রতিবেদনগুলোর একটিতে এ বিষয়ে পর্যবেক্ষণ দিলে গ্রামীণ ব্যাংক বিষয়টি ব্যাখা করে। পরে ২০১১ সালে পদত্যাগ করতে বলায় গ্রামীণ ব্যাংকের মৌলিক আইনি মর্যাদা রক্ষায় তিনি হাইকোর্টে রিট পিটিশন দায়ের করেছিলেন। এর সঙ্গে চাকরি ধরে রাখার কোন সম্পর্ক নেই।

হিলারি ক্লিনটনসহ বিশিষ্টজনদের দিয়ে ফোন করানোর বিষয়ে ইউনূস সেন্টারের বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, গ্রামীণ ব্যাংক থেকে ড. ইউনূসের অপসারণ বিশ্বব্যাপী সংবাদে পরিণত হয়েছিল। তারা অধ্যাপক ইউনূসকে ফিরিয়ে আনার বিষয়টিকে গুরুত্ব দিচ্ছিলেন না, তারা দেখতে চাইছিলেন গ্রামীণ কর্মসূচিগুলোর অগ্রযাত্রা অব্যাহত থাকুক। এর সঙ্গে পদ্মা সেতুর অর্থায়ন বিষয়টিকে মিশিয়ে ফেলে একটা সম্পূর্ণ ভিন্ন কাহিনী সৃষ্টি করা হয়েছে। আর পদ্মা সেতু বাংলাদেশের সব মানুষের দীর্ঘদিনের একটি স্বপ্ন, তিনিও এ স্বপ্নে বিশ্বাসী। তিনি এই ঐতিহাসিক সাফল্যের জন্য প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দনও জানান।

পদ্মা সেতুর অর্থায়ন বন্ধে হিলারি ক্লিনটনকে দিয়ে চাপ প্রয়োগ এবং একজন সম্পাদককে সঙ্গে নিয়ে বিশ্বব্যাংক কার্যালয়ে বৈঠক করার বিষয়ে জবাবে বলা হয়েছে, আন্তর্জাতিক সিদ্ধান্ত গ্রহণ দুই বন্ধুর খেয়ালখুশি কিংবা একজন পত্রিকা সম্পাদকের সাক্ষাৎ করতে যাওয়ার ওপরও নির্ভর করে না। প্রফেসর ইউনূস পদ্মা সেতু বিষয়ে বিশ্বব্যাংক বা অন্য কোন সংস্থা বা ব্যক্তির কাছে কখনও কোনো অভিযোগ বা অনুযোগ জানাননি। সুতরাং বিষয়টি নিতান্তই কল্পনাপ্রসূত।

ক্লিনটন ফাউন্ডেশনে তিন লাখ ডলার অনুদান প্রসঙ্গে বলা হয়, প্রফেসর ইউনূস কখনোই ক্লিনটন ফাউন্ডেশনকে কোন অংকের কোন অনুদান দেননি। অভিযোগটি সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন। প্রধানমন্ত্রীকে ভুল তথ্য দেওয়া হয়েছে।

মুহাম্মদ ইউনূস একটি ফাউন্ডেশনকে ছয় মিলিয়ন ডলার অর্থ দেওয়া এবং এক চেকে ছয় কোটি টাকা ব্যক্তিগত হিসাবে নেওয়ার অভিযোগ বিষয়ে জবাবে বলা হয়েছে, এটা সম্পূর্ণ কল্পনাপ্রসূত এবং মানহানিকর অভিযোগ। তাছাড়া আগেই সরকার প্রফেসর ইউনূসের সব ধরনের লেনদেনের তথ্য সংগ্রহ করেছে। সুতরাং সব তথ্যই সরকারের কাছে আছে।

দৈনিক কালবেলায় যোগ দিলেন আবেদ খান
                                  

স্বাধীন বাংলা প্রতিবেদক
নতুন আঙ্গিকে প্রকাশিতব্য দৈনিক কালবেলা পত্রিকায় আজ (বৃহস্পতিবার) সম্পাদক হিসেবে যোগ দিয়েছেন দেশের প্রথিতযশা সাংবাদিক বীর মুক্তিযোদ্ধা আবেদ খান। এর আগে তিনি বিভিন্ন গণমাধ্যমে সম্পাদকের দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি কিছু গুরুত্বপূর্ণ পদেও ছিলেন।

১৯৬২ সালে ১৭ বছর বয়সে ছাত্রাবস্থায় আবেদ খানের সাংবাদিকতায় হাতেখড়ি হয় দৈনিক ‘জেহাদ’ পত্রিকার মাধ্যমে। ১৯৬৩-তে তিনি দৈনিক ‘সংবাদ’-এ যোগদান করেন। ১৯৬৪ সালে দৈনিক ইত্তেফাক-এ যোগ দেওয়ার মাধ্যমে শুরু করেন এক দীর্ঘ কর্মসাধনাময় অধ্যায়।

১৯৯৫ সাল পর্যন্ত সুদীর্ঘকাল ইত্তেফাক পত্রিকায় তিনি পর্যায়ক্রমে শিফট-ইনচার্জ, প্রধান প্রতিবেদন, সহকারী সম্পাদক ও কলামিস্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

পরবর্তী সময়ে তিনি ২০০৩ সালে সম্পাদক হিসেবে দৈনিক ভোরের কাগজে এবং ২০০৫ সালে দৈনিক যুগান্তরের সম্পাদক পদের দায়িত্ব নেন। আবেদ খান দৈনিক সমকালের সম্পাদক হিসেবে ২০১০ পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেন। পরে দৈনিক কালের কণ্ঠের একজন প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক হিসেবে ২০১১ সাল পর্যন্ত এবং ২০১৩ সাল পর্যন্ত এটিএন নিউজের প্রধান সম্পাদক হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন।

একুশে টেলিভিশনের জন্মলগ্ন থেকেই এর সঙ্গে যুক্ত হয়েছেন এবং প্রথম আন্তর্জাতিক মানের সংবাদ উপস্থাপনার উদাহরণ হিসেবে একুশে টেলিভিশনকে প্রতিষ্ঠা করেছেন। প্রাথমিকভাবে বিশ্বের অন্যান্য দেশের তুলনায় বাংলাদেশের ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় প্রযুক্তিগত অবকাঠামোতে অনেক বেশি সীমাবদ্ধতা ছিল। তা সত্ত্বেও টেরেস্ট্রিয়াল ও স্যাটেলাইট টেলিভিশন মিডিয়ায় আধুনিক সাংবাদিকতা এ দেশে তার হাত ধরেই স্পর্শ করেছে জনপ্রিয়তা ও গ্রহণযোগ্যতার বিরল শিখর। তারও আগে ১৯৯৬-৯৯ সালে তার অনুসন্ধানমূলক টেলিভিশন রিপোর্টিং সিরিজ ‘ঘটনার আড়ালে’ টেলিভিশন-সাংবাদিকতার আরেকটি জনপ্রিয় চূড়া।

বাংলাদেশ আমলে অনুসন্ধানমূলক রিপোর্টিংয়ের সূচনা হয় তার হাতেই। তার বিখ্যাত ‘ওপেন-সিক্রেট’ সিরিজ আজ পর্যন্ত এ দেশের সাংবাদিকতার জগতে ইনভেস্টিগেটিভ রিপোর্টিংয়ের ক্ষেত্রে মাইলফলক হয়ে আছে। এ সংক্রান্ত পড়াশোনায় ‘রেফারেন্স’ হিসেবে ‘ওপেন সিক্রেট’-এর বিশেষ খ্যাতি রয়েছে। এছাড়া, দেশের সংবাদ মাধ্যমে কলামিষ্টকে তিনিই পেশায় রূপান্তরিত করেন।

সম্পাদকীয় বিভাগে সহকারী সম্পাদকের দায়িত্ব পালনের সময়ই তিনি অভাজন ছদ্মনামে তার পাঠকপ্রিয় ‘নিবেদন ইতি’ শিরোনামে কলাম লেখায় মনযোগী হন; যেটি সেসময় অভাবিত জনপ্রিয়তা পায়। ভোরের কাগজ-এ প্রথম পৃষ্ঠায় ‘টক অফ দ্যা টাউন’, জনকণ্ঠে প্রকাশিত ‘গৌড়ানন্দ কবি ভনে শুনে পুণ্যবান’, ‘লেট দেয়ার বি লাইট’ ভিন্ন ভিন্ন আঙ্গিকে এ প্রতিবেদনগুলোর মধ্য দিয়েই আবেদ খান তুমুল জনপ্রিয়তায় দেশবাসীর কাছে হয়ে ওঠেন ‘টক অব দ্য কান্ট্রি’।

এক সময় ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতির দায়িত্বও পালন করেছেন যোগ্যতার সঙ্গে। তিনি বাংলাদেশ টেলিভিশনের এক সময়ের অত্যন্ত জনপ্রিয় উপস্থাপক, বিশিষ্ট আবৃত্তিকার ও সাংস্কৃতিক সংগঠক। ছয় বছর তিনি বাংলাদেশ বেতার-টেলিভিশন শিল্পী সংসদের সহ সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছেন। ১৯৬৪ থেকে ১৯৭৮ সাল পর্যন্ত অবিভক্ত সাংবাদিক ইউনিয়নের নেতৃত্ব দেন এই গুণীজন। সম্প্রতি ‘প্রেস ইন্সটিটিউট বাংলাদেশ’ (পিআইবি) চেয়ারম্যানের দায়িত্ব সফলভাবে শেষ করেছেন।

মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক গবেষণা, প্রবন্ধ, গল্প, শিশুসাহিত্য এবং স্মৃতিকথা নিয়ে এ পর্যন্ত ২০টিরও বেশি বই প্রকাশিত হয়েছে আবেদ খানের এবং তার বেশিরভাগ লেখাই রাজনীতি বিষয়ক।

আবেদ খান একাত্তরের স্বাধীনতা যুদ্ধে একজন মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে বীরত্বের সঙ্গে যুদ্ধ করেছেন। পাশাপাশি বাংলাদেশের গণমাধ্যম সংস্কৃতিতে সুদীর্ঘকাল যাবত অনবদ্য অবদান রেখে আসছেন এ বরেণ্য সাংবাদিক। দেশের জন্যে যেকোনো অন্যায়ের বিরুদ্ধে তিনি সর্বদা সক্রিয় ও সোচ্চার ভূমিকায় অবতীর্ণ হন। এছাড়াও, সাহিত্য, সংস্কৃতি, সামাজিক কর্মকাণ্ডসহ নানা ক্ষেত্রে বিশেষ অবদানের জন্য তিনি দেশ-বিদেশে বিভিন্ন সম্মাননা ও পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন।

খারাপ কাজ করে গণমাধ্যমের শিরোনাম হতে চায় না পুলিশ : আইজিপি
                                  

স্বাধীর বাংলা প্রতিবেদক
পুলিশ বাহিনী কোনো খারাপ কাজ করে গণমাধ্যমের শিরোনাম হতে চায় না বলে জানিয়েছেন পুলিশের মহাপরিদর্শক ড. বেনজীর আহমেদ। তিনি বলেন, পুলিশ নানান সাফল্যগাঁথা ও অর্জনের মাধ্যমেই সংবাদের শিরোনাম হতে চায়। আজ বৃহস্পতিবার (৩০ জুন) সকালে রাজশাহীর সারদায় থাকা বাংলাদেশ পুলিশ একাডেমিতে ১৬৪তম ট্রেইনি রিক্রুট কনস্টেবল (টিআরসি) ২০২১ ব্যাচের প্রশিক্ষণ সমাপনী কুচকাওয়াজে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখতে গিয়ে পুলিশ প্রধান নবাগত পুলিশ সদস্যদের উদ্দেশে এই কথা বলেন।

অনুষ্ঠানে পুলিশের নবীন সদস্যদের কঠোরভাবে সতর্ক করে দিয়ে আইজিপি বলেন, কোনো পুলিশ সদেস্যর অপরাধের দায় গোটা বাহিনী নেবে না। ব্যক্তিকেই নিতে হবে। তাই দেশপ্রেম নিয়ে প্রত্যেক সদস্যকে কাজ করতে হবে। পুলিশ এমন কোনো কাজ করবে না, যাতে জনগণ সংক্ষুব্ধ হয়।এর আগে পুলিশ একাডেমির প্যারেড গ্রাউন্ডে সমাপনী কুচকাওয়াজে অভিবাদন গ্রহণ করেন আইজিপি। পরে বিভিন্ন ক্ষেত্রে শ্রেষ্ঠত্ব অর্জনকারী টিআরসিদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ করেন।

ছয় মাস মেয়াদী এই প্রশিক্ষণে টিআরসিদের মধ্য থেকে আইন বিষয়ে শ্রেষ্ঠ টিআরসি নির্বাচিত হন- বিশাল (টিআরসি নং-২৩৯৩০৫)। মাঠ বিষয়ে শ্রেষ্ঠ টিআরসি নির্বাচিত হন- সিয়াম সিদ্দিকী সাগর (টিআরসি নং-২৩৯০২৪)। এছাড়া প্যারেডে মোট ৪৫৩ জন প্রশিক্ষণার্থী অংশগ্রহণ করেন।

প্রশিক্ষণ সমাপনী কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠান শেষে আইজিপি বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন করেন। টিআরসিনের মাঝে সার্টিফিকেট বিতরণ এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে যোগদান করেন। এসময় পুলিশ একাডেমির প্রিন্সিপ্যাল আবু হাসান মুহম্মদ তারিক এবং আইজিপি পত্নী ও পুলিশ নারী কল্যাণ সমিতির সভানেত্রী জীশান মীর্জাসহ আরও অনেকে উপস্থিত ছিলেন।

ষড়যন্ত্রের কারণে পদ্মা সেতু নির্মাণে দেরি হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী
                                  

স্বাধীন বাংলা ডেস্ক
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, দেশি-বিদেশি নানা ষড়যন্ত্রের কারণে পদ্মা সেতু নির্মাণে দুই বছর দেরি হয়েছে। বুধবার (২৯ জুন) জাতীয় সংসদের প্রশ্নোত্তরে সরকারি দলের সংসদ সদস্য মেরিনা জাহানের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে প্রশ্নোত্তর টেবিলে উত্থাপিত হয়।

এ সময় তিনি বলেন, ষড়যন্ত্রের ফলে আমাদের সেতু নির্মাণ দুই বছর বিলম্ব হয়েছে, কিন্তু আমরা শেষ পর্যন্ত অন্ধকার ভেদ করে আলোর মুখ দেখেছি। দেশি ও বিদেশি সকল ষড়যন্ত্র এবং বাধা-বিপত্তি পেরিয়ে পদ্মা সেতুর স্বপ্ন আজ বাস্তবে রূপ পেয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, এ সেতুর সঙ্গে জড়িয়ে আছে আমাদের আবেগ, আমাদের সৃজনশীলতা, আমাদের সাহসিকতা, সহনশীলতা এবং আমাদের প্রত্যয়। আমরা এ সেতু করবোই, সেই জেদ। শেষ পর্যন্ত অন্ধকার ভেদ করে আমরা আলোর মুখ দেখেছি। পদ্মার বুকে জ্বলে উঠেছে লাল, নীল, সবুজ, সোনালি আলোর ঝলকানি। ৪২টি স্তম্ভ যেন স্পর্ধিত বাংলাদেশের প্রতিচ্ছবি। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব বলেছিলেন, বাঙালিকে কেউ দাবায়ে রাখতে পারবে না, পারেনি। আমরা বিজয়ী হয়েছি।

২০০১ সালে বিএনপি-জামাত জোট সরকার ক্ষমতায় এসে মাওয়া প্রান্তে সেতু নির্মাণের কার্যক্রম বন্ধ করে দেয় উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার ১৯৯৬ সালে ক্ষমতা গ্রহণের পর পদ্মা সেতু নির্মাণের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়। ২০০১ সালের ৪ জুলাই মাওয়া পয়েন্টে আনুষ্ঠানিকভাবে আমি পদ্মা সেতুর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করি। কিন্তু ২০০১ সালে বিএনপি-জামাত জোট সরকার ক্ষমতায় এসে মাওয়া প্রান্তে সেতু নির্মাণের কার্যক্রম বন্ধ করে দেয়। তারা জাপান সরকারকে পুনরায় মানিকগঞ্জের আরিচা প্রান্তে পদ্মা সেতুর জন্য সমীক্ষা করতে বলে। দ্বিতীয়বার সমীক্ষার পর জাপান মাওয়া প্রান্তকেই নির্দিষ্ট করে পদ্মা সেতু নির্মাণের প্রতিবেদন পেশ করে।

২০০৯ সালে দায়িত্ব গ্রহণের পর পদ্মা সেতু নির্মাণকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করার কথা উল্লেখ করে সংসদ নেতা বলেন, স্বল্পতম সময়ের মধ্যে সেতুর বিস্তারিত ডিজাইন প্রণয়নের লক্ষ্যে পরামর্শক প্রতিষ্ঠানের সাথে চুক্তি স্বাক্ষরিত হয় এবং প্রকল্পের বিভিন্ন প্যাকেজে বিস্তারিত ডিজাইন চূড়ান্ত করা হয়। ২০১১ সালের এপ্রিল থেকে জুন মাসের মধ্যে সেতু প্রকল্পে অর্থায়নের বিষয়ে বিশ্ব ব্যাংক, এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি), জাইকা ও ইসলামী উন্নয়ন ব্যাংক (আইডিবি) এর সাথে ঋণ চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়।

তিনি বলেন, প্রকল্পের বিভিন্ন প্যাকেজের নির্মাণ কাজ তদারকির জন্য পরামর্শক প্রতিষ্ঠান নিয়োগ প্রক্রিয়ায় দুর্নীতির ষড়যন্ত্রের অভিযোগ এনে বিশ্বব্যাংক, এডিবি, জাইকা এবং আইডিবি ঋণচুক্তি স্থগিত করে। সর্বশেষ ২০১৭ সালে কানাডার টরেন্টোর একটি আদালতে দুর্নীতির ষড়যন্ত্রের অভিযোগ মিথ্যা প্রমাণিত হলে বিশ্বব্যাংক এ প্রকল্পে ফের ফিরে আসার ঘোষণা দিলেও দেশ ও জনগণের স্বার্থে বিশ্বব্যাংকের ঋণ গ্রহণ না করে সরকারের নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু বাস্তবায়নের সাহসী সিদ্ধান্ত গ্রহণ করি। বহু কাঙ্ক্ষিত পদ্মা সেতু প্রকল্পের সূচনালগ্নে দেশি-বিদেশি ষড়যন্ত্র, চ্যালেঞ্জসমূহের উত্তরণ এবং হার না মানা সুদৃঢ় মনোবলের মাধ্যমে সব প্রতিকূলতাকে জয় করে এ সেতু আজ স্বপ্ন নয়,একটি দৃশ্যমান বাস্তবতা।

শেখ হাসিনা বলেন, এতে কোটি কোটি দেশবাসীর সঙ্গে আমিও আনন্দিত, গর্বিত এবং উদ্বেলিত। অনেক বাধা-বিপত্তি উপেক্ষা করে আর ষড়যন্ত্রের জাল ছিন্ন করে প্রমত্ত পদ্মার বুকে আজ বহু-কাঙ্ক্ষিত সেতু দাঁড়িয়ে গেছে। এ সেতু শুধু ইট-সিমেন্ট-স্টিল-লোহা-কংক্রিটের একটি অবকাঠামো নয় এ সেতু আমাদের অহঙ্কার, আমাদের গর্ব, আমাদের সক্ষমতা আর মর্যাদার প্রতীক। এ সেতু বাংলাদেশের জনগণের।

পদ্মা সেতু চালু হওয়ার ফলে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সঙ্গে অন্যান্য অঞ্চলের রেল যোগাযোগ সৃষ্টি, ব্যবসা-বাণিজ্যের বিকাশ, কৃষি, ঐতিহ্যবাহী লোকশিল্প, ক্ষুদ্রশিল্প ইত্যাদি ক্ষেত্রে নতুন কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি,জাতীয় ও আঞ্চলিক অর্থনীতির বিস্তৃত ক্ষেত্রেও প্রভাব সৃষ্টিসহ দেশের বিভক্ত দেশের দু`টি অঞ্চলকে একীভূত করে রাজনৈতিক, সামাজিক, অর্থনৈতিক, প্রশাসনিক, সাংস্কৃতিক এবং সার্বিক উন্নয়ন ত্বরান্বিত করবে বলে প্রধানমন্ত্রী জানান।

তিনি বলেন, পদ্মা সেতুকে ঘিরে সৃষ্ট অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড একদিকে যেমন বেকারত্ব হ্রাসে ভূমিকা পালন করবে তেমনি দারিদ্র্য দূরীকরণেও গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখবে। এছাড়াও, সরাসরি সড়ক ও রেল যোগাযোগের ফলে সাধারণ মানুষের বিপুল কর্মঘণ্টার সাশ্রয় হবে এবং জীবনমান উন্নত হবে।

গ্রামীণ ফোনের সিম বিক্রিতে নিষেধাজ্ঞা জারি
                                  

মো: আজমাইন মাহতাব:

মানসম্মত সেবা দিতে না পারায় দেশের শীর্ষ মোবাইল ফোন অপারেটর গ্রামীণফোনের সিম বিক্রিতে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসি। বুধবার (২৯ জুন) গণমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার।

তিনি বলেন, গ্রামীণফোন শুধু গ্রাহক বাড়াচ্ছে কিন্তু সেবার মান বাড়াচ্ছে না। তারা সেবার মান ভালো করার কোনো উদ্যোগও নিচ্ছে না।

এটা হতে দেওয়া যাবে না। যতদিন না তারা সেবার মান ভালো করবে এবং তা সন্তোষজনক পর্যায়ে উন্নীত না হবে ততদিন গ্রামীণফোনের সিম বিক্রি বন্ধ থাকবে।

এ বিষয়ে বিটিআরসির ভাইস চেয়ারম্যান সুব্রত রায় মৈত্র বলেন, গ্রামীণফোন মানসম্মত সেবা দিতে পারছে না। পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত তাদের সিম বিক্রি বন্ধ থাকবে।

৮ কোটি ৪৯ লাখ ৫০ হাজারের এই মোবাইল ফোন অপারেটর বর্তমানে এক মেগাহার্টজ তরঙ্গে ১৪ লাখ গ্রাহককে সেবা দিচ্ছে, যা অন্যান্য অপারেটরের চেয়ে বেশি।

গত ৩১ মার্চ অনুষ্ঠিত সর্বশেষ নিলামে তারা সবচেয়ে বেশি তরঙ্গ (৬০ মেগাহার্টজ) কিনেছে। নতুন তরঙ্গ যুক্ত হলে এক মেগাহার্টজ তরঙ্গে ৭ লাখ ৭০ হাজার গ্রাহককে সেবা দেওয়া হবে।

দেশে আবারো বাধ্যতামূলক মাস্ক, না পরলে শাস্তি
                                  

স্বাধীন বাংলা প্রতিবেদক
আবারো মাস্ক পরাকে বাধ্যতামূলক করেছে সরকার। দোকান, শপিংমল, বাজার, ক্রেতা-বিক্রেতা, হোটেল রেস্টুরেন্টে সবাইকে বাধ্যতামূলকভাবে মাস্ক পরিধান করতে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। অন্যথায় তাকে আইনানুগ শাস্তির সম্মুখীন হতে হবে। আজ মঙ্গলবার (২৮ জুন) করোনা সংক্রমণ বেড়ে যাওয়া মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ এক আদেশে ছয় দফা নির্দেশনা দিয়েছে। করোনার সংক্রমণ বাড়ায় এই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে।

নির্দেশনার চিঠিতে বলা হয়, সাম্প্রতিককালে সারাদেশে কোভিড-১৯ আক্রান্তের হার দ্রুত গতিতে বৃদ্ধি পাচ্ছে ও জনগণের মধ্যে মাস্ক পরিধান এবং স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণে যথেষ্ট শৈথিল্য পরিলক্ষিত হচ্ছে মর্মে সরকারের উচ্চমহলে আলোচনা হচ্ছে। কোভিড-১৯ জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটির গত ১৪ জুনের সভায় গৃহীত সুপারিশ প্রতিপালনের জন্য এবং কোভিড প্রতিরোধে ছয়টি নির্দেশনা বাস্তবায়নের জন্য সচিব ও বিভাগীয় কমিশনারদের অনুরোধ জানানো হয় চিঠিতে।


নির্দেশনাগুলো-

১. স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার জন্য জনসাধারণকে উদ্বুদ্ধ করতে সকল প্রকার গণমাধ্যমে অনুরোধ জানাতে হবে।

২. সবক্ষেত্রে মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করা, ‘নো মাস্ক নো সার্ভিস’ নীতি প্রয়োগ করা, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা, জনসমাগম যথাসম্ভব বর্জন করতে হবে।

৩. ধর্মীয় প্রার্থনার স্থানগুলোতে (যেমন-মসজিদ, মন্দির, গির্জা ইত্যাদি) মাস্ক পরা ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে।

৪. জ্বর, সর্দি, কাশি বা কোডিড-১৯-এর উপসর্গ দেখা দিলে কোভিড টেস্ট করার জন্য উদ্বুদ্ধ করতে হবে।

৫. দোকান, শপিংমল, বাজার, ক্রেতা-বিক্রেতা, হোটেল-রেস্টুরেন্ট সবাইকে বাধ্যতামূলকভাবে মাস্ক পরিধান করতে হবে।
অন্যথায় তাকে আইনানুগ শাস্তির সম্মুখীন হতে হবে।

৬. স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালন এবং মাস্ক পরিধানের বিষয়ে সব মসজিদে জুমার নামাজে খুতবায় ইমামরা সংশ্লিষ্টদের সচেতন করবেন।

উল্লেখ্য, বিশ্বজুড়ে মহামারি করোনার তাণ্ডব ফের বাড়ছে। কিছুদিন আগে ভাইরাসটির দাপট নিম্নমুখী হওয়ায় স্বস্তির নিঃশ্বাস নিচ্ছিল মানুষ। কিন্তু হঠাৎ করেই গত কয়েক দিন ধরে আক্রান্ত ও মৃত্যু ফের ঊর্ধ্বমুখী। দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় ৩ জনের ‍মৃত্যু হয়েছে। এ সময়ে আক্রান্ত হয়েছেন ২ হাজার ৮৭ জন। শনাক্তের হার ১৫ দশমিক ৪৭ শতাংশ।

বঙ্গবন্ধু দৌহিত্রী সায়মা ওয়াজেদের মমত্ববোধ
                                  

স্বাধীন বাংলা প্রতিবেদক
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কন্যা এবং জাতির পিতার দৌহিত্রী ও বাংলাদেশে অটিজম আন্দোলনের পথিকৃৎ সায়মা ওয়াজেদের জনসাধারণের প্রতি প্রগাঢ় ভালবাসা ও মমত্ববোধের এক অনুপম দৃষ্টান্ত মিলেছে। প্রধানমন্ত্রীর সহকারী প্রেস সচিব এম এম ইমরুল কায়েস ফেসবুকে নিজের ফেরিফাইড পেইজে ‘মানুষের জন্য বঙ্গবন্ধু দৌহিত্রী’র অনুভব-মমত্ববোধ’ শিরোনামে দেয়া একটি স্ট্যাটাস থেকে এ বিষয়টি জানা গেছে।

সায়মা ওয়াজেদ পদ্মা সেতুর উদ্বোধনের দিন সেতুর ওপরে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে অবস্থানকালে নিজের ক্যামেরায় ছবি তুলছিলেন। তিনি এ সময় বিটিভির কর্তব্যরত দুজন ক্যামেরা পারসনের ছবিও তোলেন। পরবর্তীতে ঐ ক্যামেরাম্যান দ্বয়ের ছবি তাদের কাছে পৌঁছে দিতে তাঁকে বিশেষ উদ্যোগ নিতে দেখা গেছে। এর মাধ্যমে সাধারণের প্রতি তাঁর মমত্ববোধের এক অনুপম দৃষ্টান্ত ফুটে উঠে উঠেছে। স্ট্যাটাসটি হুবহু নিচে তুলে ধরা হলো- ‘মানুষের জন্য বঙ্গবন্ধু দৌহিত্রী’র অনুভব-মমত্ববোধ’

‘গত ২৫ জুন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সফরসঙ্গী হিসেবে স্বপ্নের পদ্মা সেতুর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে যোগদানের সৌভাগ্য হয়েছিল আমার। মাওয়া প্রান্তের সুধী সমাবেশে বক্তব্য, টোলপ্লাজায় টোল দেওয়া এবং উদ্বোধন ফলক উন্মোচন শেষে প্রধানমন্ত্রী তাঁর গাড়িবহর নিয়ে পদ্মা সেতুতে উঠেন। পরবর্তীতে সেতুর মাঝ বরাবর একটি স্থানে বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর মনোজ্ঞ ফ্লাইপাস্ট উপভোগের জন্য শেখ হাসিনা অল্প সময়ের জন্য যাত্রা বিরতি করেন। এ সময় মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সফরসঙ্গী তাঁর কন্যা সায়মা ওয়াজেদ পুতুল একটি ক্যামেরায় বিভিন্ন ছবি তুলতে থাকেন।

পদ্মা সেতুতে দায়িত্বপালনরত বিটিভির দু’জন ক্যামেরাপারসনের একটি ছবি পাঠিয়ে গত পরশু সন্ধ্যায় আমার হোয়াটসঅ্যাপে প্রধানমন্ত্রীর এডিসি টেক্সট করেন যে, ছবিটি আমি যেন ঐ দুই ক্যামেরাম্যানকে পৌঁছে দেই। বিষয়টি ভালোভাবে বোঝার জন্য এডিসিকে ফোন দিলে উনি জানান, প্রধানমন্ত্রীর কন্যা পুতুল তাঁর নিজ ক্যামেরায় ওই ছবিটি তুলেছেন এবং তাঁর কাছে যেহেতু ঐ ক্যামেরাপারসনদের কন্টাক্ট নম্বর নেই, তাই তিনি এটা তাদের কাছে পৌঁছে দিতে বলেছেন।

কিছুক্ষণ আমি স্থবির হয়ে পড়ি। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের দোহিত্রীর মানুষের প্রতি প্রগাঢ় অনুভব আমাকে অভিভূত করে! ঐতিহাসিক ঐ মুহূর্তে অচেনা-অজানা বিটিভির দু’জন ক্যামেরাম্যানের ছবি তিনি না-ই তুলতে পারতেন; আর তুলেই যখন ফেলেছেন, পরবর্তীতে অপ্রয়োজনীয় ছবি হিসেবে তিনি এটি ডিলিট করে দিতে পারতেন। কিন্তু তিনি তা করেননি! এটিই জাতির পিতার পরিবারের সদস্যদের গণমানুষের প্রতি নিখাদ ভালোবাসা ও মমত্ববোধ।সূত্র-বাসস।

বন্ধুকে হত্যার পর বান্ধবীকে নিয়ে হোটেলে কিশোর
                                  

স্বাধীন বাংলা প্রতিবেদক
মোবাইল ফোনের জন্য স্কুলছাত্র নওফেল শেখকে (১৪) খুন করেছে তারই বন্ধু। এ ঘটনায় অভিযুক্ত কিশোরকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। সোমবার (২৭ জুন) দুপুর দেড়টার দিকে ঢাকার টঙ্গী পশ্চিম থানা এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তারকৃত ওই কিশোরের বাড়ি শাজাহানপুর। কিন্তু সে ঢাকায় তার বড় ভাইয়ের সঙ্গে লন্ড্রির দোকানে কাজ করত। খুনের ঘটনার পর মোবাইল বিক্রির কাজে জড়িত ওই কিশোরের কথিত বান্ধবীকে (২০) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার (২৮ জুন) দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে বগুড়ার পুলিশ সুপার সুদীপ কুমার চক্রবর্তী নিজ কার্যালয়ে এক প্রেস কনফারেন্সে এসব তথ্য জানান।

এর আগে, গত ২০ জুন বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে শাজাহানপুরের খরনা ইউনিয়নের দাড়িগাছা গ্রামের জঙ্গল থেকে নওফেলের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। সে উপজেলার খরনা ইউনিয়নের দাড়িগাছা হাটপাড়া গ্রামের ইসরাফিলের ছেলে এবং দাড়িগাছা ইসলামিয়া উচ্চবিদ্যালয়ের ৭ম শ্রেণির ছাত্র।

পুলিশ সুপার সুদীপ কুমার চক্রবর্তী জানান, নওফেল এবং হত্যায় অভিযুক্ত কিশোর একে অপরের বন্ধু ছিল। তারা একসঙ্গে চলাফেরা করত এবং দাড়িগাছা গ্রাম থেকে দুই কিলোমিটার দূরের একটি জঙ্গলে গিয়ে মাঝেমধ্যে ধূমপান করত।

প্রায় দুই মাস আগে নওফেলের বাবা শখের বশে জমি বিক্রির টাকা দিয়ে নওফেলকে ১৮ হাজার টাকা দিয়ে একটি মোবাইল কিনে দেন। নওফেলের সেই নতুন ফোন কীভাবে পাওয়া যায় সেই পরিকল্পনা করতে থাকে ওই কিশোর। গত ১৮ জুন নওফেলের জন্মদিন থাকায় ওই কিশোর নওফেলকে ওই জঙ্গলে গিয়ে ধূমপান করে একটু আনন্দ করে আসার প্রস্তাব দেয়। সেদিন জন্মদিন থাকায় নওফেল উৎফুল্ল ছিল এবং সে তার কথায় রাজি হয়ে যায়।

ওই কিশোর নওফেলকে হত্যা করে সেই স্মার্ট ফোনটি পাওয়ার পরিকল্পনা মাফিক তার গলায় পূর্ব থেকেই একটি মাফলার রাখে। পরে ওইদিন বেলা ১১টার দিকে ধূমপান করার জন্য নওফেল ও ওই কিশোর দাড়িগাছা গ্রামের ফুলবাড়ীয়া এলাকায় বাগানের মধ্যে যায়।

নওফেল জঙ্গলের একটি গাছের সঙ্গে হেলান দিয়ে ধূমপান করার একপর্যায়ে ওই কিশোর তার গলায় থাকা ৬ ফুট ৫ ইঞ্চি লম্বা মাফলার হাতে নিয়ে নওফেলকে বলে, ‘মামা তোমাকে যদি এই মাফলার দিয়ে সিনেমার স্টাইলে খুন করা হয় তাহলে কেমন হবে। তখন নওফেল হেসে বলে যে, ‘মামা তুমি তো আমকে খুন করবে না।’ তখন অভিনয়ের ছলে ওই কিশোর মাফলার দিয়ে নওফেলের গলায় দুটি প্যাঁচ দিয়ে গাছের সঙ্গে শক্ত করে পেছন দিক থেকে টেনে ধরে।

এতে নওফেল ছটফট করতে থাকে এবং একপর্যায়ে মারা যায়। নওফেল নিস্তেজ হয়ে মাটিতে পড়ে গেলে ওই কিশোর তখন নওফেলের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার জন্য পাশের জমিতে থাকা একটি বাঁশের লাঠি হাতে নিয়ে নওফেলের মাথায় পরপর দুটি আঘাত করে। এতেও নওফেল নড়াচড়া না করলে ওই কিশোর নিশ্চিত হয় যে নওফেল মারা গেছে। তখন ওই কিশোর ঘটনাস্থল থেকে ১০ থেকে ১৫ হাত দূরে ঝোপের ভেতর নওফেলের মরদেহ টেনে নিয়ে গুম করে রাখে। পরে নওফেলের স্মার্ট ফোনটি নিয়ে সবার অগোচরে চলে যায় ওই কিশোর।

পুলিশ সুপার বলেন, ওইদিন দুপুর ১টার দিকে ওই কিশোর তার বান্ধবীকে মোবাইল ফোনে শেরপুর থেকে ডেকে নিয়ে বগুড়া শহরের সাতমাথা একটি পুরাতন মোবাইল ক্রয়-বিক্রয়ের দোকানে যায়। তারা ভাই-বোনের পরিচয় নিয়ে নিজেদের অভাব অনটনের কথা বলে নওফেলের ওই মোবাইল ৫ হাজার টাকায় বিক্রি করে। সেখান থেকে তারা দুইজন বগুড়া শহরের গালা পট্টিতে অবস্থিত একটি হোটেলে মোবাইল বিক্রির দুই হাজার টাকা দিয়ে একটি রুম ভাড়া করে সময় কাটায়। পরে ওই কিশোর তার এক বন্ধুকে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে ওই মেয়ের সঙ্গে সময় কাটানোর জন্য আসতে বলে। পরে মোবাইল বিক্রির দেড় হাজার টাকা বান্ধবীকে দিয়ে তারা যার যার এলাকায় চলে যায়।

পরে ২০ জুন বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে খরনা ইউনিয়নের দাড়িগাছা গ্রামের জঙ্গল থেকে নওফেলের অর্ধগলিত মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। তখন চারদিকে খবর ছড়িয়ে পড়লে খুনি ওই কিশোর ঢাকায় দিয়ে আত্মগোপন করে। পরে পুলিশের ব্যাপক অভিযানে ঢাকার টঙ্গী পশ্চিম থানা এলাকা থেকে ২৭ জুন দুপুর দেড়টার দিকে খুনি ওই কিশোরকে গ্রেপ্তার করা হয় এবং হত্যার কাজে ব্যবহৃত সেই মাফলার উদ্ধার করে পুলিশ।

পুলিশ সুপার সুদীপ কুমার চক্রবর্তী বলেন, এ ঘটনায় জড়িত কিশোরকে আজ আদালতে পাঠানো হবে। এ ছাড়াও মোবাইল বিক্রিতে সহায়তাকারী ওই নারীও আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

প্রেস কনফারেন্সে উপস্থিত ছিলেন জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) আবদুর রশিদ, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিএসবি) মোতাহার হোসেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ট্রাফিক) হেলেনা খাতুন এবং শাজাহানপুর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুল্লাহ আল মামুন।

মুম্বাইয়ে ভবন ধসে নিহত ১৯
                                  

স্বাধীন বাংলা ডেস্ক
ভারতের পশ্চিমাঞ্চলীয় রাজ্য মহারাষ্ট্রের রাজধানী মুম্বাইয়ের নাসিক নগর এলাকার একটি চারতলা ভবন ধসে ১৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। মঙ্গলবার দুপুর ১২ টার দিকে বেশ আকস্মিকভাবেই ভবনটি ধসে পড়ে বলে জানিয়েছে হিন্দুস্তান টাইমসসহ একাধিক ভারতীয় সংবাদমাধ্যম।


নিহতদের মধ্যে ১২জনের পরিচয় ইতোমধ্যে উদ্ধার করতে পেরেছে নাসিক নগর পুলিশ। ভবন ধসের অল্প সময়ের মধ্যেই সেখানে উদ্ধার তৎপরতা শুরু করেন ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা।
ইতোমধ্যে ১৪ জনকে উদ্ধার করা হয়েছে এবং তাদের মধ্যে চারজন এখনও হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন। বাকিদের প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী উদ্ভব ঠাকরে ইতোমধ্যে সব নিহতের পরিবারকে ৫ লাখ টাকা সহায়তা দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন।
ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা জানিয়েছেন, ভবনের ধ্বংসস্তুপে এখনও ২০ থেকে ২৫ জন আটকা পড়ে আছেন বলে ধারণা করছেন তারা।


   Page 1 of 452
     জাতীয়
পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উপলক্ষ্যে কুয়েতে আনন্দ উৎসব
.............................................................................................
বুয়েটে চান্স পেয়েছে আবরার ফাহাদের ছোট ভাই
.............................................................................................
পদ্মা সেতু রুটের বাসের ভাড়া আবারও বাড়ল
.............................................................................................
দেশে বন্যায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৯২
.............................................................................................
যে ১৬ নির্দেশনা মানতে হবে কুরবানির হাটে
.............................................................................................
ক্ষতিগ্রস্ত ঘরবাড়ি-রাস্তাঘাট মেরামতে সহযোগিতা করা হবে
.............................................................................................
৬ লাখ ৭৮ হাজার ৬৪ কোটি টাকার বাজেট পাস
.............................................................................................
অভিযোগের জবাব দিল ইউনূস সেন্টার
.............................................................................................
দৈনিক কালবেলায় যোগ দিলেন আবেদ খান
.............................................................................................
খারাপ কাজ করে গণমাধ্যমের শিরোনাম হতে চায় না পুলিশ : আইজিপি
.............................................................................................
ষড়যন্ত্রের কারণে পদ্মা সেতু নির্মাণে দেরি হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
গ্রামীণ ফোনের সিম বিক্রিতে নিষেধাজ্ঞা জারি
.............................................................................................
দেশে আবারো বাধ্যতামূলক মাস্ক, না পরলে শাস্তি
.............................................................................................
বঙ্গবন্ধু দৌহিত্রী সায়মা ওয়াজেদের মমত্ববোধ
.............................................................................................
বন্ধুকে হত্যার পর বান্ধবীকে নিয়ে হোটেলে কিশোর
.............................................................................................
মুম্বাইয়ে ভবন ধসে নিহত ১৯
.............................................................................................
পুলিশের ১৫ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার বদলি
.............................................................................................
শুধুমাত্র জেলা শহরে থামবে দক্ষিণবঙ্গের বাসগুলো
.............................................................................................
শুদ্ধাচার পুরস্কার পেলেন স্থানীয় সরকার বিভাগের চার কর্মচারী
.............................................................................................
বাড়ছে করোনা: একদিনে শনাক্ত ২০৮৭, মৃত্যু ৩ জনের
.............................................................................................
পদ্মা সেতু নির্মাণে ষড়যন্ত্রকারীদের খুঁজতে কমিশন গঠনের নির্দেশ হাইকোর্টের
.............................................................................................
পদ্মা সেতুতে নতুন বাস সার্ভিস নিয়ে নৈরাজ্য, চাঁদা চায় পরিবহন নেতারা
.............................................................................................
বাংলাদেশ-ভারত রুটে সৌহার্দ্য বাসের আবার চলাচল শুরু
.............................................................................................
বন্যায় কেউ না খেয়ে বা স্বাস্থ্য সেবার অভাবে মারা যায়নি
.............................................................................................
বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের ঋণ দেওয়ার নির্দেশ
.............................................................................................
উন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থা শিল্পায়নকে ত্বরান্বিত করে : প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
সেনাবাহিনীর হাতে পদ্মা সেতুর সার্বিক দায়িত্ব
.............................................................................................
১ লাখ রোহিঙ্গাকে পুনর্বাসন করতে যুক্তরাজ্যকে প্রস্তাব
.............................................................................................
পদ্মা সেতু পার হতে বাইকারদের ভরসা পিকআপ, যেটা অবৈধ
.............................................................................................
পদ্মা সেতু জাতীয় সম্পদ, এর বিরোধিতাকারীরা জাতির শত্রু : হাইকোর্ট
.............................................................................................
পদ্মা সেতু চালুর পরই কমে গেছে লঞ্চযাত্রী
.............................................................................................
পদ্মা সেতুর নাট-বল্টু শুধু হাত দিয়ে খোলা হয়নি: সিআইডি
.............................................................................................
ভারত গিয়ে কয়লা আনতে নদীতে ডুবে যুবকের মৃত্যু
.............................................................................................
কানাইঘাটে বন্যার্তদের ফ্রি চিকিসা সেবা প্রদান
.............................................................................................
এক দিনে ২ কোটি ৯ লাখ টাকা টোল আদায়
.............................................................................................
ফেসবুকে সারপ্রাইজ দেওয়ার ঘোষণা মিমের
.............................................................................................
বাইজীদের বিরুদ্ধে মামলা বিশেষ ক্ষমতা আইনে, হতে পারে মৃত্যুদণ্ড
.............................................................................................
পদ্মা সেতুতে দুর্ঘটনায় দুই বাইকারের মৃত্যু
.............................................................................................
মোটরসাইকেল বিশৃঙ্খলার কবলে পদ্মা সেতু, যানজট চরমে
.............................................................................................
বাসের ধাক্কায় পদ্মা সেতুর টোল প্লাজার দুটি ব্যারিয়ার ভেঙে গেল
.............................................................................................
শেষ বিকেলে পদ্মা সেতুতে বাইকারদের উপচে পড়া ভিড়
.............................................................................................
পদ্মা সেতুতে মোটরসাইকেল চলাচল নিষিদ্ধ
.............................................................................................
পদ্মা সেতু দিয়ে চলছে যানবাহন
.............................................................................................
পদ্মা সেতু আমাদের গর্বের প্রতীক: মেয়র আতিকুল
.............................................................................................
ফের করোনায় আক্রান্ত মির্জা ফখরুল
.............................................................................................
বাইডেনকে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ
.............................................................................................
এসএসসি পরীক্ষা কখন, জানালেন শিক্ষামন্ত্রী
.............................................................................................
পদ্মা সেতু নিয়ে ষড়যন্ত্র : জড়িতদের খুঁজতে রুল শুনানিতে উঠছে
.............................................................................................
সকাল থেকে উন্মুক্ত পদ্মা সেতু
.............................................................................................
দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের পথে খুলল স্বপ্নের সেতুর আকাঙ্খার দুয়ার
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

সম্পাদক ও প্রকাশক : মোহাম্মদ আখলাকুল আম্বিয়া
নির্বাহী সম্পাদক: মাে: মাহবুবুল আম্বিয়া
যুগ্ম সম্পাদক: প্রদ্যুৎ কুমার তালুকদার

সম্পাদকীয় ও বাণিজ্যিক কার্যালয়: স্বাধীনতা ভবন (৩য় তলা), ৮৮ মতিঝিল বাণিজ্যিক এলাকা, ঢাকা-১০০০। Editorial & Commercial Office: Swadhinota Bhaban (2nd Floor), 88 Motijheel, Dhaka-1000.
সম্পাদক কর্তৃক রঙতুলি প্রিন্টার্স ১৯৩/ডি, মমতাজ ম্যানশন, ফকিরাপুল কালভার্ট রোড, মতিঝিল, ঢাকা-১০০০ থেকে মুদ্রিত ও প্রকাশিত ।
ফোন : ০২-৯৫৫২২৯১ মোবাইল: ০১৬৭০৬৬১৩৭৭

Phone: 02-9552291 Mobile: +8801670 661377
ই-মেইল : dailyswadhinbangla@gmail.com , editor@dailyswadhinbangla.com, news@dailyswadhinbangla.com

 

    2015 @ All Right Reserved By dailyswadhinbangla.com

Developed By: Dynamic Solution IT