শনিবার, ১৩ জুলাই 2024 বাংলার জন্য ক্লিক করুন
  
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   জাতীয় -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
সিলেটে অবিবাহিতের সংখ্যা বেশি, রাজশাহীতে বেশি বিবাহিত: বিবিএস

স্বাধীন বাংলা ডেস্ক:

দেশের মোট জনগোষ্ঠীর ৬৫ শতাংশ মানুষ বিবাহিত। এর মধ্যে বিবাহিতের হার সর্বোচ্চ ৬৯ শতাংশ রাজশাহী বিভাগে। অন্যদিকে এ জনগোষ্ঠীর হার সর্বনিম্ন ৫৫ শতাংশ সিলেট বিভাগে।

বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) আর্থ-সামাজিক ও জনমিতিক জরিপ-২০২৩’র বৈবাহিক অবস্থা বিশ্লেষণ করে এ তথ্য পাওয়া গেছে। গত বছরের ২১ মে থেকে ২২ জুন পর্যন্ত দেশের ১২ হাজারেরও বেশি এলাকার প্রায় দুই লাখ ৯৯ হাজার পরিবারের ওপর এই জরিপ চালানো হয়।

বিবিএসের প্রতিবেদন অনুযায়ী, অবিবাহিত পুরুষের হার সবচেয়ে বেশি সিলেট বিভাগে, প্রায় ৪৫ শতাংশ। অপরদিকে রাজশাহী বিভাগে অবিবাহিত পুরুষ সবচেয়ে কম, ৩১ শতাংশ। পাশাপাশি সিলেট বিভাগে অবিবাহিত নারী সবচেয়ে বেশি, প্রায় ৩২ শতাংশ। অন্যদিকে, রাজশাহীতে এ হার সবচেয়ে কম, ১৮ শতাংশ।

প্রতিবেদন বলছে, নারীর চেয়ে পুরুষের একাধিক বিয়ের হারও বেশি। এর মধ্যে প্রায় ৪ শতাংশ পুরুষ একবারের বেশি বিয়ে করেছেন। বিপরীতে ১ শতাংশের বেশি নারী একবারের বেশি বিয়ে করেছেন। পাশাপাশি বিপত্নীক হিসেবে ১ শতাংশের কিছু বেশি পুরুষ একা জীবনযাপন করছেন। অন্যদিকে, প্রায় ৯ শতাংশ নারী বিধবা হিসেবে জীবনযাপন করছেন।

বৈবাহিক অবস্থা বিশ্লেষণ করে জরিপে বলা হয়েছে, বর্তমানে দেশের মোট জনগোষ্ঠীর ৬৫ শতাংশ বিবাহিত। এর মধ্যে রাজশাহী বিভাগে বিবাহিতের হার সর্বোচ্চ ৬৯ শতাংশ। অন্যদিকে, সিলেট বিভাগে বিবাহিত জনগোষ্ঠীর হার সর্বনিম্ন ৫৫ শতাংশ।

বিবিএস প্রতিবেদনে দেখা যায়, স্বাধীনতার পর ১৯৭৪ সালে অনুষ্ঠিত প্রথম শুমারিতে দেশের জনসংখ্যা ছিল ৭ কোটি ১৫ লাখ। এরপর ১৯৮১ সালে জনশুমারি অনুষ্ঠিত হয়। ওই সময় মোট জনসংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ৮ কোটি ৭১ লাখ ১৯ হাজার ৯৬৫ জনে। ১৯৯১ সালে দেশে মোট জনসংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ১০ কোটি ৬৩ লাখে।

সিলেটে অবিবাহিতের সংখ্যা বেশি, রাজশাহীতে বেশি বিবাহিত: বিবিএস
                                  

স্বাধীন বাংলা ডেস্ক:

দেশের মোট জনগোষ্ঠীর ৬৫ শতাংশ মানুষ বিবাহিত। এর মধ্যে বিবাহিতের হার সর্বোচ্চ ৬৯ শতাংশ রাজশাহী বিভাগে। অন্যদিকে এ জনগোষ্ঠীর হার সর্বনিম্ন ৫৫ শতাংশ সিলেট বিভাগে।

বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) আর্থ-সামাজিক ও জনমিতিক জরিপ-২০২৩’র বৈবাহিক অবস্থা বিশ্লেষণ করে এ তথ্য পাওয়া গেছে। গত বছরের ২১ মে থেকে ২২ জুন পর্যন্ত দেশের ১২ হাজারেরও বেশি এলাকার প্রায় দুই লাখ ৯৯ হাজার পরিবারের ওপর এই জরিপ চালানো হয়।

বিবিএসের প্রতিবেদন অনুযায়ী, অবিবাহিত পুরুষের হার সবচেয়ে বেশি সিলেট বিভাগে, প্রায় ৪৫ শতাংশ। অপরদিকে রাজশাহী বিভাগে অবিবাহিত পুরুষ সবচেয়ে কম, ৩১ শতাংশ। পাশাপাশি সিলেট বিভাগে অবিবাহিত নারী সবচেয়ে বেশি, প্রায় ৩২ শতাংশ। অন্যদিকে, রাজশাহীতে এ হার সবচেয়ে কম, ১৮ শতাংশ।

প্রতিবেদন বলছে, নারীর চেয়ে পুরুষের একাধিক বিয়ের হারও বেশি। এর মধ্যে প্রায় ৪ শতাংশ পুরুষ একবারের বেশি বিয়ে করেছেন। বিপরীতে ১ শতাংশের বেশি নারী একবারের বেশি বিয়ে করেছেন। পাশাপাশি বিপত্নীক হিসেবে ১ শতাংশের কিছু বেশি পুরুষ একা জীবনযাপন করছেন। অন্যদিকে, প্রায় ৯ শতাংশ নারী বিধবা হিসেবে জীবনযাপন করছেন।

বৈবাহিক অবস্থা বিশ্লেষণ করে জরিপে বলা হয়েছে, বর্তমানে দেশের মোট জনগোষ্ঠীর ৬৫ শতাংশ বিবাহিত। এর মধ্যে রাজশাহী বিভাগে বিবাহিতের হার সর্বোচ্চ ৬৯ শতাংশ। অন্যদিকে, সিলেট বিভাগে বিবাহিত জনগোষ্ঠীর হার সর্বনিম্ন ৫৫ শতাংশ।

বিবিএস প্রতিবেদনে দেখা যায়, স্বাধীনতার পর ১৯৭৪ সালে অনুষ্ঠিত প্রথম শুমারিতে দেশের জনসংখ্যা ছিল ৭ কোটি ১৫ লাখ। এরপর ১৯৮১ সালে জনশুমারি অনুষ্ঠিত হয়। ওই সময় মোট জনসংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ৮ কোটি ৭১ লাখ ১৯ হাজার ৯৬৫ জনে। ১৯৯১ সালে দেশে মোট জনসংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ১০ কোটি ৬৩ লাখে।

আন্দোলনকারীদের নতুন কর্মসূচি আসছে সন্ধ্যায়
                                  

স্বাধীন বাংলা প্রতিবেদন:

সরকারি চাকরিতে কোটা সংস্কারের দাবিতে এক দফা আন্দোলনে আজ দেশের সব জেলা এবং ক্যাম্পাসের প্রতিনিধিদের সঙ্গে জনসংযোগ করবেন আন্দোলনকারীরা। শনিবার সন্ধ্যা ৬টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় লাইব্রেরির সামনে প্রেস ব্রিফিংয়ে তারা পরবর্তী কর্মসূচির ঘোষণা দেবেন।

ছাত্র আন্দোলনের নেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, তারা আবারও রাজপথের আন্দোলন কর্মসূচি দেবেন। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত তারা পড়ার টেবিলে ফিরবেন না বলে ঘোষণা দিয়েছেন।

শুক্রবার (১২ জুলাই) বিকাল ৫টার দিকে শাহবাগে এসে অবস্থান নেন শিক্ষার্থীরা। প্রায় এক ঘণ্টা তারা রাজধানীর এই গুরুত্বপূর্ণ মোড়টি অবরোধ করে রাখেন। এতে ওই এলাকায় যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

পরে শিক্ষার্থীরা পরবর্তী কর্মসূচির ঘোষণা দেন। তারা জানান, শনিবার (১৩ জুলাই) দেশের সব জেলা এবং ক্যাম্পাসের প্রতিনিধিদের সঙ্গে জনসংযোগ করা হবে। একই সঙ্গে পূর্বে ঘোষিত ক্লাস-পরীক্ষা বর্জনের কর্মসূচিও চলমান থাকবে।

আন্দোলনের অন্যতম সমন্বয়ক ইংরেজি বিভাগের শিক্ষার্থী হাসনাত আব্দুল্লাহ বলেন, ‘যারা কখনোই চাকরি করবে না, তারা প্রশ্ন তুলছে আমাদের আন্দোলন নিয়ে। যতগুলো প্রতিষ্ঠানে রক্ত ঝরছে তার তীব্র নিন্দা আমরা জানাই। যেখানেই হামলা হবে আমরা দাঁতভাঙা জবাব দেব। আমাদের হারানোর কিছু নেই। আমাদের একমাত্র চাওয়া একটি মেধা।

আন্দোলনের আরেক সমন্বয়ক আব্দুল কাদের বলেন, ‘আমরা এসেছিলাম দেশের হাল ধরতে। আমাদের এক দফা মেনে নিন। আমাদের পড়ার টেবিলে ফেরত যেতে দিন।’

আরেক সমন্বয়ক আবু বকর মজুমদার বলেন, ‘বৃহস্পতিবার বিভিন্ন ক্যাম্পাস এবং জেলায় যাদের পুলিশ নির্যাতন করেছে তার তীব্র নিন্দা এবং প্রতিবাদ জানাচ্ছি আজকের শাহবাগ অবরোধ থেকে। আমাদের পরবর্তী কর্মসূচি হলো আগামীকাল দেশের সব জেলা এবং ক্যাম্পাসের প্রতিনিধিদের সঙ্গে জনসংযোগ ও ৬টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় লাইব্রেরির সামনে প্রেস ব্রিফিং হবে।’

২০১৮ সালের অক্টোবরে কোটাবিরোধী আন্দোলন চরম আকার ধারণ করলে সরকার পরিপত্র জারি করে সরকারি চাকরিতে কোটাব্যবস্থা পুরোপুরি বাতিল করে দেয়। ওই পরিপত্র চ্যালেঞ্জ করে ২০২১ সালে রিট করেন মুক্তিযোদ্ধার সন্তান ও প্রজন্ম কমান্ড কাউন্সিলের সভাপতি অহিদুল ইসলামসহ সাত শিক্ষার্থী। এর পরিপ্রেক্ষিতে গত ৫ জুন পরিপত্রটি বাতিল করে দেন হাইকোর্টের একটি বেঞ্চ।

এই রায়ের পর ফুঁসে উঠেন শিক্ষার্থীরা। তারা কোটা বাতিলের দাবিতে বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করেন। গত ১ জুলাই থেকে ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন করে জোরালো আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছেন শিক্ষার্থীরা।

বিশিষ্ট লেখক আসমা আব্বাসী আর নেই
                                  

স্বাধীন বাংলা প্রতিবেদন:

বিশিষ্ট লেখক, মিডিয়া ব্যক্তিত্ব ও শিক্ষাবিদ অধ্যাপক আসমা আব্বাসী মৃত্যুবরণ করেছেন। বৃহস্পতিবার (৪ জুলাই) সন্ধ্যা ৬টায় তিনি ইন্তেকাল করেছেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়াইন্না ইলাইহি রাজিউন)। মৃত্যুকালে তার বয়য় হয়েছিল ৮২ বছর।

আসমা আব্বাসী হবিগঞ্জ জেলার নবীগঞ্জ উপজেলার মাইজগাও এর চকি গ্রামের নিবাসী, সিলেট সরকারি আলীয়া মাদ্রাসার প্রিন্সিপ্যাল মরহুম মৌলভী হাবিবুর রহমান চৌধুরী ও মরহুমা সৈয়দা হিফজুন্নেসা খানমের কনিষ্ঠ সন্তান। ১৯৪২ সনের ৪ জানুয়ারি পিতার কর্মস্থল সিলেট শহরে জন্মগ্রহণ করেন তিনি। আসমা আব্বাসী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় হতে বাংলা সাহিত্যে বিএ (অনার্স) ও এমএ ডিগ্রি অর্জন করেন।

এরপর ইসলামিক ফাউন্ডেশন, ঢাকা হতে আরবিতে ৪ বছরের কোর্স শেষে ডিপ্লোমা অর্জন করেন। ঢাকার পুরানা পল্টন ডিগ্রি কলেজের সূচনা লগ্ন ১৯৬৪ সন থেকেৃ তিনি শিক্ষকতা শুরু করেন। ১৯৯৪ সনে শিক্ষা মন্ত্রণালয় হতে বাংলাদেশের শ্রেষ্ঠ কলেজ শিক্ষক হিসেবে স্বর্ণপদক পান তিনি।

তার প্রকাশিত বইয়ের সংখ্যা ডজনখানেক। তিনি বেশ কয়েকটি সামাজিক সংগঠনের সাথে জড়িত থেকে বিশ্বের বহু দেশে সফর করেছেন।

তিনি সুরসম্রাট আব্বাস উদ্দীনের ছোট পুত্র বিশিষ্ট মিডিয়া ব্যক্তিত্ব মুস্তফা জামান আব্বাসীর স্ত্রী। তাদের দুই কন্যা সামীরা আব্বাসী সিভিল ইঞ্জিনিয়ার এবং শারমিনী আব্বাসী আইনজীবী।

উল্লেখ্য, আসমা আব্বাসীর তিন মামা সৈয়দ মোস্তফা আলী, সৈয়দ মর্তুজা আলী ও সৈয়দ মুজতবা আলী সুসাহিত্যিক।

শুক্রবার বাদ জুমা গুলশান আজাদ মসজিদে নামাজে জানাজা শেষে তাকে দাফন করা হয়েছে।

শিক্ষকদের সঙ্গে ওবায়দুল কাদেরের বৈঠক স্থগিত
                                  

স্বাধীন বাংলা প্রতিবেদন:

সর্বজনীন পেনশন স্কিম (প্রত্যয়) বাতিলের দাবিতে আন্দোলনরত পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের সঙ্গে আজ বৈঠক হচ্ছে না আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক, পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এবং শিক্ষামন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেলের।

বৃহস্পতিবার (৪ জুলাই) সকালে বৈঠক হওয়ার কথা থাকলেও শেষ মুহূর্তে বৈঠক হচ্ছে না বলে জানিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশনের মহাসচিব মো. নিজামুল হক ভূঁইয়া। তবে কী কারণে আজকের বৈঠক স্থগিত করা হয়েছে তা এখনো জানা যায়নি। তবে পরবর্তীতে বৈঠকটি হবে বলে জানা যায়।

এর আগে গতকাল (বুধবার) অধ্যাপক ড. নিজামুল হক ভুঁইয়া গণমাধ্যমকে আজ বৈঠক হচ্ছে বলে জানিয়েছিলেন।

এদিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ দেশের সকল পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে টানা চতুর্থ দিনের মতো ক্লাস-পরীক্ষাসহ সব ধরনের অ্যাকাডেমিক কার্যক্রম বন্ধ আছে।

গত মঙ্গলবার পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের আন্দোলনের মধ্যে সর্বজনীন পেনশন স্কিম ‘প্রত্যয়’-এর কিছু বিষয় স্পষ্ট করে অর্থ মন্ত্রণালয়ের দেওয়া ব্যাখ্যা প্রত্যাখ্যান করে শিক্ষকরা বলেছেন, তাদের চলমান এই আন্দোলন অব্যাহত থাকবে।

মঙ্গলবার অর্থ মন্ত্রণালয় প্রত্যয় স্কিম সম্পর্কে এক ব্যাখ্যায় বলেছে, ১ জুলাই থেকে এই স্কিম যাত্রা করেছে। স্বশাসিত, স্বায়ত্তশাসিত ও রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠানে ১ জুলাই বা এর পর যোগদানকারী সব কর্মচারী বাধ্যতামূলকভাবে প্রত্যয় স্কিমের আওতাভুক্ত হবেন। ১ জুলাইয়ের আগে যোগদানকারীরা পুরোনো নিয়মেই পেনশন পাবেন। অনুরূপ ব্যাখ্যা দিয়েছে জাতীয় পেনশন কর্তৃপক্ষও।

এক বার্তায় জাতীয় পেনশন কর্তৃপক্ষ বলেছে, ৩০ জুনের আগে চাকরিতে যোগদানকারী শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারীদের নতুন স্কিমে যুক্ত হওয়ার বাধ্যবাধকতা নেই।

অর্থ মন্ত্রণালয়ের স্পষ্টীকরণ ব্যাখ্যা প্রত্যাখ্যান করে বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশনের মহাসচিব ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. নিজামুল হক ভূঁইয়া মঙ্গলবার বলেন, আমরা স্বতন্ত্র বেতন স্কেল চাচ্ছি।

আমাদের তিনটি মূল দাবি রয়েছে- প্রত্যয় স্কিমের প্রজ্ঞাপন প্রত্যাহার, সুপার গ্রেডে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের অন্তর্ভুক্তি এবং শিক্ষকদের জন্য স্বতন্ত্র বেতন স্কেল প্রবর্তন।

প্রত্যয় স্কিম নিয়ে অর্থমন্ত্রণালয়ের বক্তব্য ‘নির্জলা অসত্য’: বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক নেটওয়ার্ক
                                  

স্বাধীন বাংলা ডেস্ক:

প্রত্যয় স্কিম বাতিলের দাবিতে ফুসে ওঠেছে বিশ^বিদ্যায়গুলো। শিক্ষকদের আন্দোলনকে যৌক্তিক দাবি করে শিক্ষকদের বিভিন্ন সংগঠন একাত্মতা প্রকাশ করছে। প্রত্যয় স্কিমকে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের জন্য অবমাননাকর, মর্যাদার পরিপন্থী এবং ভবিষ্যতের জন্য ক্ষতিকর উল্লেখ করে প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক নেটওয়ার্ক।

একইসাথে প্রত্যয় স্কিম নিয়ে অর্থ মন্ত্রণালয়ের ‘স্কিমের আওতায় এলে কারো স্বার্থ ক্ষুণ্ন হবে না এবং সুবিধা অক্ষুণ্ন থাকবে’ বক্তব্যকে অন্তত বাংলাদেশের ক্ষেত্রে ‘নির্জলা অসত্য’ আখ্যা দিয়েছে তারা।

বুধবার (৩ জুলাই) বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের ১০৭ শিক্ষকের স্বাক্ষর সংবলিত এই বিবৃতি দিয়ে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের চলমান আন্দোলনের প্রতি সংহতি জানিয়েছে সংগঠনটি।

বিবৃতিতে প্রত্যয় স্কিম অগ্রহণযোগ্য হওয়ার ৪টি যুক্তি তুলে দেওয়া হয় এবং ৪টি দাবি জানানো হয়।

দাবিগুলো হলো-
বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের জন্য নতুন পেনশন ব্যবস্থা `প্রত্যয়` বাতিল করে বিদ্যমান পেনশন ব্যবস্থা পুনর্বহাল করতে হবে, যাতে শিক্ষকদের আর্থিক নিরাপত্তা বজায় থাকে।

শিক্ষকদের পেশাগত মর্যাদা ও আর্থিক সুবিধাবৃদ্ধির জন্য স্বতন্ত্র বেতন স্কেল প্রবর্তন করতে হবে।

দরিদ্র ও মেধাবী শিক্ষার্থীদের আর্থিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে বিশেষ শিক্ষার্থী-সহায়তা স্কিম অবিলম্বে চালু করতে হবে।

শিক্ষার্থীর সংখ্যার সঙ্গে আনুপাতিক হারে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে শিক্ষক নিয়োগ, অবকাঠামো এবং গবেষণাগার তৈরি করতে হবে।

বিবৃতিতে বলা হয়, গত মার্চে বাংলাদেশ সরকার পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন নিয়োগপ্রাপ্ত শিক্ষক-কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ওপর `প্রত্যয়` নামের একটি নতুন পেনশন ব্যবস্থা জোর করে চাপিয়ে দেয়ার উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। অংশীজনের সঙ্গে কোনোরূপ আলোচনা-পরামর্শ ছাড়াই এই নতুন পেনশন ব্যবস্থা চাপিয়ে দেয়া বর্তমান সরকারের স্বেচ্ছাচারী আচরণের আরও একটি নগ্ন প্রকাশ।

সরকার যে উন্নয়নের দাবি করে সেই দাবি সত্য হলে পেনশনের সুবিধা বাড়ার কথা, কমার কথা নয়। পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের বিদ্যমান পেনশনের সুবিধা উঠিয়ে দিয়ে সর্বজনীন পেনশন স্কিম নামের এক নতুন ব্যবস্থা চালু করা সরকারের আর্থিক ঘাটতি পূরণ করার অন্যতম একটি কৌশল হয়ে দাঁড়িয়েছে।

এর আগে শিক্ষকদের নতুন বেতন স্কেলের আন্দোলনে শিক্ষক নেতাদের কারো কারো ব্যক্তিগত স্বার্থে পুরো শিক্ষকসমাজের স্বার্থ বিকিয়ে দেয়া হয়েছে। এটি ঘটনাক্রমে সরকারের নিরঙ্কুশ ক্ষমতা সুসংহতকারী আমলাদের ক্ষমতা ও মর্যাদা বাড়িয়েছে।

এসএমই ফাউন্ডেশনের এমডি হলেন আনোয়ার চৌধুরী
                                  

স্বাধীন বাংলা ডেস্ক:

এসএমই ফাউন্ডেশনের নতুন ব্যবস্থাপনা পরিচালক(এমডি) হিসেবে যোগ দিয়েছেন সাবেক অতিরিক্ত সচিব আনোয়ার হোসেন চৌধুরী। সোমবার (১ জুলাই) তিনি এ পদে যোগদান করেন।

আনোয়ার চৌধুরী ২০২০ সালের ১ অক্টোবর থেকে ২০২৩ সালের ২৭ ডিসেম্বর পর্যন্ত শিল্প মন্ত্রণালয়ের অধীনে বাংলাদেশ শিল্প কারিগরি সহায়তা কেন্দ্রের (বিটাক) মহাপরিচালক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন। সেসময় তিনি এসএমই ফাউন্ডেশনের পরিচালক পর্ষদের সদস্য হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন। ছাড়াও জনপ্রশাসন, বাণিজ্য মন্ত্রণালয় এবং সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগে অতিরিক্ত সচিব হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ পদে ছিলেন তিনি।

আনোয়ার হোসেন চৌধুরী চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের লোকপ্রশাসন বিভাগ থেকে স্নাতক (সম্মান), স্নাতকোত্তর ও নর্দান ইউনিভার্সিটি থেকে পাবলিক পলিসি অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট বিষয়ে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি নেন।

বৃহত্তর সিলেটের হবিগঞ্জ জেলার মাধবপুর উপজেলার কৃতি সন্তান আনোয়ার হোসেন চৌধুরী। ঢাকাস্থ বৃহত্তর সিলেটের সর্ববৃহৎ সংগঠন জালালাবাদ এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছেন আনোয়ার হোসেন চৌধুরী।

শাহজালালে সাড়ে ৪ কোটি টাকার সোনা জব্দ
                                  

স্বাধীন বাংলা প্রতিবেদন:

রাজধানী ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে (৪.৪২০ কেজি) বা ৪ কোটি ৫০ লাখ টাকা মূল্যের সোনা জব্দ করেছে শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তর।

বুধবার (৩ জুলাই) ভোর সাড়ে ৫টায় ওমানের মাস্কাট থেকে আসা সালাম এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইট তল্লাশিকালে এসব সোনা পাওয়া যায়।

অধিদপ্তরের কর্মকর্তাদের কাছে সোনা চোরাচালানের আগাম তথ্য ছিল। স্বর্ণ জব্ধ করা গেলেও কাউকে আটক করা সম্ভব হয়নি।

বাংলাদেশ সৃষ্টিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অবদান চিরস্মরণীয়: শেখ হাসিনা
                                  

স্বাধীন বাংলা প্রতিবেদন:

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, দেশের ইতিহাস-ঐতিহ্য সম্পর্কিত জ্ঞান-বিজ্ঞানের নিবিড় চর্চার পাশাপাশি আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন এবং জাতিরাষ্ট্র বাংলাদেশ সৃষ্টিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অনবদ্য অবদান চিরকাল স্মরণীয় হয়ে থাকবে। আজ সোমবার (১ জুলাই) দেশের ঐতিহ্যবাহী সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ১০৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী (ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় দিবস) উপলক্ষ্যে দেওয়া এক বাণীতে এ কথা বলেন তিনি।

আজ সোমবার প্রাচ্যের অক্সফোর্ড খ্যাত ঐতিহাসিক ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ১০৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী’ পালিত হচ্ছে জেনে সন্তোষ প্রকাশ করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘এ উপলক্ষ্যে আমি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ সংশ্লিষ্ট সবাইকে জানাই আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন’।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় দিবসের এ বছরের প্রতিপাদ্য‘তরুণ প্রজন্মের দক্ষতা বৃদ্ধিতে উচ্চ শিক্ষা’ অত্যন্ত সময়োপযোগী হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ১৯৪৭ সালে ব্রিটিশ ভারত ভেঙে এই অঞ্চলে যে রাষ্ট্র ব্যবস্থার সৃষ্টি হয়, সেই রাষ্ট্রটি বাংলা ভাষাভাষী জনগোষ্ঠীর নিরাপদ আবাসভূমি ছিল না। এ সত্যটি সবার আগে অনুধাবন করতে পেরেছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের তৎকালীন তরুণ ছাত্র শেখ মুজিবুর রহমান। যিনি সবার আগে বাংলাকে রাষ্ট্রভাষা করার দাবিতে আন্দোলন গড়ে তুলতে সক্রিয় ভূমিকা পালন করেছেন। কালক্রমে হয়ে উঠেছেন বাঙালি জাতির পিতা, বাঙালির ইতিহাসের মহানায়ক ও সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি। সেই থেকে ইতিহাস-ঐতিহ্য সম্পর্কিত জ্ঞান ও বিজ্ঞানের নিবিড় চর্চা এবং দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সক্রিয় ভূমিকা রাখার পাশাপাশি ‘বাংলাদেশ’ নামক একটি জাতিরাষ্ট্র সৃষ্টিতে এ প্রতিষ্ঠানটির অনবদ্য অবদান চিরকাল স্মরণীয় হয়ে থাকবে।

১৯৫২ সালের ভাষা-আন্দোলন, জাতির পিতা ঘোষিত ৬৬’র ছয়-দফার ভিত্তিতে স্বায়ত্তশাসন আন্দোলন এবং তার (বঙ্গবন্ধু) আহ্বানে ১৯৭১ সালে মহান স্বাধীনতা সংগ্রাম এবং পরবর্তীকালে সব গণতান্ত্রিক আন্দোলন, অসাম্প্রদায়িক সাংস্কৃতিক সত্তার বিকাশ ও দেশের গণমানুষের আশা-আকাঙ্ক্ষা পূরণে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক-কর্মচারীরা অগ্রভাগে থেকে অব্যাহতভাবে নেতৃত্ব দিয়েছেন।

সরকার প্রধান বলেন, জাতির পিতার দূরদর্শী নির্দেশনায় ১৯৭৩ সালে বিশ্ববিদ্যালয় অর্ডিন্যান্স ঘোষণার মাধ্যমে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন গঠন করা হয়। যার মূল বার্তা ছিল- বিশ্ববিদ্যালয়ে চিন্তার স্বাধীনতা ও মুক্ত-বুদ্ধি চর্চার পরিবেশ সৃষ্টি করা। আওয়ামী লীগ যখনই সরকার গঠন করেছে তখনই জাতির পিতার শিক্ষা দর্শনের আলোকে দেশের শিক্ষা খাতের উন্নয়নকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দিয়েছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা ১৯৯৬-২০০১ মেয়াদে ১২টি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, মেডিকেল কলেজ এবং ১৬টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়সহ অনেকগুলো বিজ্ঞান ও গবেষণা ইনস্টিটিউট প্রতিষ্ঠা করি।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, গত সাড়ে ১৫ বছরে আমরা দেশে উচ্চশিক্ষার সুযোগ ও গুণগত মান বৃদ্ধিতে ব্যাপক পদক্ষেপ গ্রহণ করেছি। ২০০৯ সাল থেকে এ পর্যন্ত আমরা ২৩টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় এবং ৫৪টি প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করেছি। ‘বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় আইন-২০১০’, ‘বাংলাদেশে উচ্চশিক্ষার কৌশলী পরিকল্পনা: ২০১৮-২০৩০’ সহ প্রয়োজনীয় নীতিমালা এবং কলেজ পর্যায়ের উচ্চশিক্ষার মানোন্নয়নে ২০২৩-২০৩১ মেয়াদি ন্যাশনাল স্ট্রাটেজিক প্ল্যান প্রণয়ন করেছি। আমরা বিদেশ থেকে মাস্টার্স ও পিএইচডি ডিগ্রি অর্জনের জন্য ‘প্রধানমন্ত্রী ফেলোশিপ’ প্রবর্তন করেছি।

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর মান নিয়ন্ত্রণের জন্য আমরা অ্যাক্রিডিটেশন কাউন্সিল এ্যাক্ট-২০১৬ পাস করেছি। বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর কারিগরি দক্ষতা বৃদ্ধি, দেশি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর সঙ্গে বিদেশি বিশ্ববিদ্যালয় ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের সংযোগ স্থাপনের লক্ষ্যে বাংলাদেশ রিসার্চ অ্যান্ড অ্যাডুকেশন নেটওয়ার্ক স্থাপন করা হয়েছে। এর ফলে দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর বিভিন্ন ফ্যাকাল্টির ছাত্র ও শিক্ষক আন্তর্জাতিক অ্যাকাডেমিক কমিউনিটি এবং তথ্য ভাণ্ডারের সঙ্গে সংযুক্ত হওয়ার সুযোগ পেয়েছে।

বাণীতে প্রধানমন্ত্রী বলেন, প্রযুক্তিনির্ভর শিক্ষা প্রসারের মাধ্যমে দেশপ্রেমে উজ্জীবিত ও চতুর্থ শিল্পবিপ্লবের সুবিধা আহরণে সক্ষম প্রজন্ম গড়ার লক্ষ্যে আমরা কাজ করে যাচ্ছি। আমাদের সরকার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা ও গবেষণার উন্নয়নে নানা উদ্যোগ গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করে যাচ্ছে। আমরা শিক্ষক, শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের আবাসিক সংকট নিরসনে হল ও ভবন নির্মাণ করেছি।

প্রধানমন্ত্রী উল্লেখ করেন, ২০০৯ সাল থেকে ধারাবাহিকভাবে শিক্ষা, গবেষণার উন্নয়ন ও সম্প্রসারণে নতুন নতুন বিভাগ, ইনস্টিটিউট ও গবেষণা কেন্দ্র খোলা হয়েছে। বর্তমানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৩টি অনুষদ, ১৩টি ইনস্টিটিউট, ৮৪টি বিভাগ, ৫৮টি ব্যুরো ও গবেষণা কেন্দ্র, ছাত্র-ছাত্রীদের ১৯টি আবাসিক হল, ৪টি হোস্টেল এবং ১৮৮টি উপাদানকল্প কলেজ ও ইনস্টিটিউট রয়েছে। এ বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত ছাত্র-ছাত্রীর সংখ্যা প্রায় ৪৪ হাজার ৮৯৫ জন এবং পাঠদান ও গবেষণায় নিয়োজিত রয়েছেন প্রায় এক হাজার ৯৮১ জন শিক্ষক। শেখ হাসিনা বলেন, অধিকতর উন্নত গবেষণার মাধ্যমে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ভবিষ্যতে যেকোনো সংকট উত্তরণে সক্রিয় ভূমিকা রাখবে এবং দ্রুত পরিবর্তনশীল বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে শিক্ষা-গবেষণা, বিজ্ঞান, প্রযুক্তিসহ জ্ঞানের সকল শাখায় এগিয়ে যাবে।

এই বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন প্রাক্তন শিক্ষার্থী হিসেবে তিনি আশা প্রকাশ করেন, জ্ঞান ও আলোর পথের অভিযাত্রায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় নতুন দিগন্ত তৈরি করবে। তিনি ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ১০৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী’ উপলক্ষ্যে আয়োজিত সব কর্মসূচির সার্বিক সাফল্য কামনা করেন।

এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরু
                                  

স্বাধীন বাংলা প্রতিবেদন:

এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরু হয়েছে। আজ রোববার সকাল ১০টা থেকে শুরু হওয়া ৯টি সাধারণ শিক্ষা বোর্ড, কারিগরি শিক্ষা বোর্ড ও মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের এইচএসসি/আলিম/এইচএসসি (বিএম/বিএমটি), এইচএসসি(ভোকেশনাল)/ডিপ্লোমা ইন কমার্স পরীক্ষায় মোট পরীক্ষার্থী ১৪ লাখ ৫০ হাজার ৭৯০ জন।

এবার মোট কেন্দ্র ২ হাজার ৭২৫ টি ও মোট শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ৯ হাজার ৪৬৩ টি। নয়টি সাধারণ শিক্ষা বোর্ডে, মোট পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ১১ লাখ ২৮ হাজার ২৮১ জন।

এরমধ্যে ছাত্র সংখা ৫ লাখ ৩৩ হাজার ৬৮০ জন এবং ছাত্রী সংখা ৫ লাখ ৯৪ হাজার ৬০১ জন। মোট কেন্দ্র ১ হাজার ৫৬৬ টি এবং মোট শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ৪ হাজার ৮৭০টি।

আলিম পরীক্ষায় এবার পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ৮৮ হাজার ৭৬ জন। এরমধ্যে ছাত্র ৪৭ হাজার ৫৯২ জন এবং ছাত্রী সংখা ৪০ হাজার ৪৮৪ জন। মোট কেন্দ্র ৪৫২ টি এবং মোট শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ২ হাজার ৬৮৫ টি।

এইচএসসি (বিএম/বিএমটি) এইচএসসি (ভোকেশনাল)/ডিপ্লোমা ইন কমার্স পরীক্ষা (কারিগরি) বোর্ডে চলতি বছরে মোট পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ২ লাখ ৩৪ হাজার ৪৩৩ জন। এরমধ্যে ছাত্র সংখ্যা ১ লাখ ৬৯ হাজার ৯ জন এবং ছাত্রী সংখ্যা ৬৫ হাজার ৪২৪ জন। মোট কেন্দ্র ৭০৭ টি এবং শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ১ হাজার ৯০৮ টি।

গতবছরের তুলনায় ২০২৪ সালে চলতি বছরে মোট পরীক্ষার্থীর সংখ্যা বেড়েছে ৯১ হাজার ৪৪৮ জন। মোট প্রতিষ্ঠান বেড়েছে ২৯৪ টি, মোট কেন্দ্র বেড়েছে ৬৭টি।

এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষার রুটিনে জানা যায়, সাধারণ শিক্ষা বোর্ডের তত্ত্বীয় পরীক্ষা আজ থেকে শুরু হয়ে ১১ আগস্ট শেষ হবে। ব্যবহারিক পরীক্ষা ১২ আগস্ট থেকে শুরু হয়ে ২১ আগস্ট শেষ হবে। মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের তত্ত্বীয় পরীক্ষা একইদিন শুরু হয়ে ১১ আগস্ট শেষ হবে। ব্যবহারিক পরীক্ষা ১২ আগস্ট হতে শুরু হয়ে ২১ আগস্ট শেষ হবে। কারিগরি বোর্ডে তত্ত্বীয় পরীক্ষা আজ শুরু হয়ে ১৮ জুলাই শেষ হবে। ব্যবহারিক পরীক্ষা ১৯ জুলাই হতে শুরু হয়ে ৪ আগস্ট শেষ হবে।

বিদেশে এবার এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা মোট ২৮১ টি কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত হবে। এসব কেন্দ্রের মধ্যে জেদ্দায় ৪৭টি, রিয়াদে ৪৩টি, ত্রিপলিতে ২টি, দোহায় ৬৩টি, আবুধাবীতে ৪৪টি, দুবাইয়ে ২২টি, বাহরাইনে ৩৪টি, সাহাম ওমানে ২৬টি।

এইচএসসি পরীক্ষা: শনিবার থেকে ৪৪ দিন কোচিং সেন্টার বন্ধ
                                  

স্বাধীন বাংলা প্রতিবেদন:

রোববার থেকে শুরু হচ্ছে এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষা। প্রশ্নফাঁস ও নকলমুক্ত পরীক্ষা নিশ্চিত করতে শনিবার (২৯ জুন) থেকে ১১ আগস্ট পর্যন্ত ৪৪ দিন দেশের কোচিং সেন্টার বন্ধ থাকবে। তবে বিসিএস পরীক্ষার প্রস্তুতি কেন্দ্রিক কোচিং সেন্টারগুলো খোলা রাখা যাবে।

গত ৫ জুন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষা উপলক্ষে জাতীয় মনিটরিং ও আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় কোচিং বন্ধের এ নির্দেশনা দেন শিক্ষামন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী।

ওইদিন ব্রিফিংয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, কোচিং সেন্টারগুলো থেকেই মূলত প্রশ্নফাঁসের গুজব ছড়িয়ে থাকে। এজন্য পরীক্ষার সময়ে কোচিং সেন্টারের কার্যক্রম বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছি আমরা। কেউ যদি নির্দেশনা না মানে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এদিকে, চলতি বছর ৯টি সাধারণ শিক্ষা বোর্ড, কারিগরি বোর্ড ও মাদরাসা বোর্ডের এইচএসসি, আলিম, এইচএসসি (বিএম/বিএমটি), এইচএসসি (ভোকেশনাল), ডিপ্লোমা ইন কমার্স পরীক্ষায় মোট পরীক্ষার্থী ১৪ লাখ ৫০ হাজার ৭৯০ জন। এরমধ্যে ছাত্র ৭ লাখ ৫০ হাজার ২৮১ এবং ছাত্রী ৭ লাখ ৫০৯ জন। এবার মোট কেন্দ্র দুই হাজার ৭২৫টি ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ৯ হাজার ৪৬৩টি।

অন্যদিকে বন্যা পরিস্থিতির কারণে সিলেট অঞ্চলের চারটি জেলার এইচএসসি, আলিম, এইচএসসি (বিএম/বিএমটি), এইচএসসি (ভোকেশনাল) পরীক্ষা ৮ জুলাই পর্যন্ত স্থগিত করা হয়েছে। আগামী ৯ জুলাই থেকে এসব জেলায় পূর্বঘোষিত সময়সূচি অনুযায়ী পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

স্থগিত পরীক্ষাগুলোর সময়সূচি পরবর্তীতে প্রকাশ করবে স্ব স্ব বোর্ড। একই সঙ্গে ৮ জুলাইয়ের পর আর কোনো পরীক্ষা স্থগিত করা হবে না বলেও জানিয়েছে সিলেট মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড।‡

বাংলাদেশে ধর্মীয় স্বাধীনতা নিয়ে মার্কিন প্রতিবেদন
                                  

স্বাধীন বাংলা ডেস্ক:

বাংলাদেশে ধর্মীয় স্বাধীনতা নিয়ে বার্ষিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তর। ২০২৩ সালের এ প্রতিবেদনে ধর্ম পালনের ক্ষেত্রে নানা বাধা ও বৈষম্যের দিক তুলে ধরা হয়েছে।

এতে বলা হয়েছে, বাংলাদেশের সংবিধানে ইসলামকে রাষ্ট্রীয় ধর্ম হিসেবে ঘোষণা করা হলেও ধর্মনিরপেক্ষতার নীতিকে সমুন্নত রাখা হয়েছে। নিষিদ্ধ করা হয়েছে ধর্মীয় বৈষম্য। বলা হয়েছে, সব ধর্মের মানুষের জন্য সমানাধিকার প্রতিষ্ঠার কথা। দেশটিতে বিভিন্ন ধর্মের জন্য রয়েছে আলাদা পারিবারিক আইন।

আহমদিয়া সম্প্রদায়ের নেতারা বলেছেন, আহমেদনগরে গত বছরের (২০২৩) মার্চে তাদের বার্ষিক সম্মেলনে শত শত লোক হামলা চালান। এ সময় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য ও অন্য সরকারি কর্মকর্তারা পাশে দাঁড়িয়ে ছিলেন। সহিংসতায় দুজনের মৃত্যু হয়, আহত হন অনেকে, আহমদিয়া সম্প্রদায়ের কয়েকশ বাড়িঘরে লুটতরাজ ও ভাঙচুর চালানো হয়। হামলা চালানো হয় আহমদিয়াদের একটি মসজিদ ও স্বাস্থ্যকেন্দ্রেও।

ওই ঘটনার পর পুলিশ কয়েক হাজার অজ্ঞাতনামা ব্যক্তির বিরুদ্ধে মামলা করে। গ্রেফতার করা হয় সহিংসতার কথিত উসকানিদাতারাসহ দুই শতাধিক ব্যক্তিকে। ধর্মীয় সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের নেতারা অব্যাহতভাবে বলেছেন, মুসলিম জনগোষ্ঠীর ‘ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হানার কারণে’ ধর্মীয় সংখ্যালঘু গোষ্ঠী, বিশেষ করে হিন্দুধর্মের লোকজনকে নিশানা করে সরকার প্রায়ই ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মতো আইনের প্রয়োগ করেছে।

অধিকাংশ ঘটনায় ফেসবুকে কথিত অবমাননাকর মন্তব্য করায় ধর্মীয় সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মানুষের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। যদিও প্রতিশোধমূলক সহিংসতার ঘটনার নেপথ্যে থাকা ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে তেমনটা নেওয়া হয়নি।

মুসলিম ধর্মীয় নেতারা বলেন, সরকার মসজিদে ইমাম নিয়োগ ও অপসারণে প্রভাব খাটিয়ে গেছে। দেশজুড়ে ইমামেরা তাদের খুতবায় কোন বিষয়বস্তু তুলে ধরবেন, এ বিষয়েও নির্দেশনা দিয়েছে সরকার।

গত সেপ্টেম্বর মাসে বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ ধর্মীয় সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের স্বার্থরক্ষায় সরকারের দেওয়া নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি পূরণ, জাতীয় সংখ্যালঘু কমিশন গঠন, সংখ্যালঘুদের নিরাপত্তায় বিশেষ আইন কার্যকর করা, সরকারি চাকরিতে তাদের জন্য কোটা সংরক্ষণের ব্যবস্থা ফিরিয়ে আনাসহ বিভিন্ন দাবিতে অনশন কর্মসূচি ঘোষণা করে।

এ কর্মসূচির প্রতিক্রিয়ায় সরকার অক্টোবরের মধ্যে একটি জাতীয় সংখ্যালঘু কমিশন গঠন ও ২০১৮ সালের নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি পূরণ করার ঘোষণা দেয়; কিন্তু বছর শেষ হওয়ার আগপর্যন্ত এসব বিষয়ে কোনো পদক্ষেপ নেয়নি সরকার।

বিবাহবহির্ভূত সম্পর্কে জড়ানোর অভিযোগে এক নারীকে বেত্রাঘাত ও পাথর নিক্ষেপের ফতোয়া দেওয়ায় গত বছরের এপ্রিলে একজন ইসলামি-বিশেষজ্ঞ ও তিনজন গ্রামপ্রধানের বিরুদ্ধে আইনভঙ্গের অভিযোগ আনা হয়। দেশে সহিংসতার ঘটনার ওপর নজরদারি করা সংগঠনগুলোর একটির হিসাব অনুযায়ী, গত বছরের জানুয়ারি থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত ধর্মীয় সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে ২২টি সহিংসতার ঘটনা ঘটেছে। এসব ঘটনায় ১ জন নিহত ও ৮১ জন আহত হয়েছেন।

মানবাধিকার নিয়ে কাজ করা বিভিন্ন বেসরকারি সংগঠন (এনজিও) ও কয়েকজন ধর্মীয় নেতা ইসলাম ও হিন্দুধর্ম থেকে খ্রিষ্টধর্মে ধর্মান্তরিত হওয়া ব্যক্তিদের হয়রানি, সামাজিকভাবে বিচ্ছিন্ন ও শারীরিক নির্যাতন করার অভিযোগ করেছেন।

বাংলাদেশের সংবিধানে ইসলামকে রাষ্ট্রীয় ধর্মের স্বীকৃতি দেওয়া হলেও হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিষ্ট ও অন্যান্য ধর্মের মানুষের জন্য সমমর্যাদা ও সমানাধিকারের নিশ্চয়তা দেওয়া হয়েছে।

ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হানে, এমন ‘উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ও ক্ষতিকর’ বক্তব্য এবং কর্মকাণ্ডের জন্য জরিমানা বা দুই বছর পর্যন্ত কারাদণ্ডের সাজা রাখা হয়েছে দণ্ডবিধিতে। তবে এ নিষিদ্ধ বিষয়বস্তুর ব্যাখ্যা দণ্ডবিধিতে নেই।

দেশে নির্দিষ্ট কোনো ব্লাসফেমি আইন না থাকলেও ইসলাম ধর্ম ক্ষুণ্নকারী কর্মকাণ্ডের জন্য সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে দণ্ডবিধির পাশাপাশি তথ্যপ্রযুক্তি আইন ও ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন ব্যবহার করে থাকে কর্তৃপক্ষ।

২০২১ সালে দুর্গাপূজার উৎসব চলাকালে হিন্দু সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে সহিংসতার ঘটনায় দায়ী ব্যক্তিদের যথাযথ সাজা দিতে ব্যর্থতার অভিযোগে সরকারের সমালোচনা করে আসছেন হিন্দু নেতারা। তবে তারা উল্লেখ করেন, ২০২৩ সালের দুর্গাপূজা সামনে রেখে সরকার অতিরিক্ত আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য মোতায়েন, ধর্মীয় সম্প্রীতি উৎসাহিত করতে আন্তধর্মীয় সংলাপ আয়োজনের মতো পদক্ষেপ নিয়েছে। সেবারের উৎসবে কোনো সাম্প্রদায়িক সহিংসতার খবর পাওয়া যায়নি।

গত বছরের ২৭ মার্চ রাজধানীর গুলশানে পবিত্র কোরআন শিক্ষার একটি কেন্দ্র থেকে পুলিশ ১৭ জনকে আটক করে। তারা পবিত্র রমজান মাসে নিয়মিত রাত্রিকালীন প্রার্থনায় অংশ নিয়েছিলেন। গণমাধ্যমের খবর অনুযায়ী, পরে আরও চারজনকে গ্রেফতার করা হয়। তাদের মধ্যে পরিবারের সদস্যরাও ছিলেন; যারা বন্দী স্বজনদের জন্য খাবার নিয়ে গিয়েছিলেন।

নারী-শিশুসহ আটক এসব ব্যক্তির বিষয়ে পুলিশ বলেছে, তারা জামায়াতে ইসলামীর সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ও সরকারের বিরুদ্ধে নাশকতার পরিকল্পনা করছিলেন। এ ঘটনায় দলটির ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারি জেনারেল বলেন, পুলিশ আটক ব্যক্তিদের কারও কারও বাসা থেকে বিস্ফোরক সামগ্রী উদ্ধারের দাবিও করেছে; যা হাস্যকর।

জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমসহ হাজার হাজার মসজিদ ইসলামিক ফাউন্ডেশনের আওতায় পরিচালিত হয়। এ ফাউন্ডেশন ধর্ম মন্ত্রণালয়ের অধীন। এসব মসজিদের ইমাম ও কর্মীর বেতন হয় সরকারি অর্থায়নে। ইসলামিক ফাউন্ডেশন এসব মসজিদের দেখভাল করে না; তা করে পরিচালনা কমিটিগুলো। এসব কমিটির নিয়ন্ত্রণে থাকেন ক্ষমতাসীন দলের স্থানীয় নেতা-কর্মী ও প্রশাসকেরা।

মসজিদের ইমামদের নিয়োগ ও অপসারণে থাকে সরকারের নিয়ন্ত্রণ। দেশজুড়ে ইমামদের খুতবা প্রদানের বিষয়েও নির্দেশনা দিয়ে থাকে সরকার। ধর্মীয় নেতারা বলেছেন, সব মসজিদের ইমামই সাধারণত সরকারি নীতির সঙ্গে সাংঘর্ষিক খুতবা এড়িয়ে চলেন।

গত অক্টোবরে দুই ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হয় এবং ঐক্য পরিষদ তাদের সদস্যদের ওপর হামলার ঘটনায় ৫০০ ব্যক্তির বিরুদ্ধে মামলা করে। এ সদস্যরা কুমিল্লায় আয়োজিত একটি বিক্ষোভে অংশ নিচ্ছিলেন। পরিষদ বলেছে, হিন্দু সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাদের আক্রমণাত্মক মন্তব্য, কুড়িগ্রামে একজন হিন্দু কবির ওপর হামলা ও ২০২১ সালে দুর্গাপূজায় কুমিল্লায় মন্দির ভাঙচুরের ঘটনার প্রতিবাদে তারা ওই বিক্ষোভ আয়োজন করেছিল। গণমাধ্যমের খবর অনুযায়ী, গ্রেফতার দুজন ও যাদের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়, তারা ক্ষমতাসীন দলের ছাত্র ও যুবসংগঠনের সদস্য।

ঢাকায় গত বছরের ১৯ জুন এক সংবাদ সম্মেলনে একটি নারী সংগঠন যেসব মুসলিম নারী নেকাব পরা পছন্দ করেন, তাদের জন্য জাতীয় পরিচয়পত্রে ছবির বিষয় ঐচ্ছিক রাখার ব্যাপারে সরকারের কাছে অনুরোধ জানায়। সংগঠনটি বলেছে, যেসব নারী নেকাব সরাতে অস্বীকার করেছেন, তাদের পরিচয়পত্র না দেওয়া মানবাধিকারের লঙ্ঘন।

সংগঠনটির আহ্বান ছিল, ওই নারীদের পরিচয় শনাক্তে আঙুলের ছাপ বা চোখের আইরিস স্ক্যান ব্যবহার করার। তা ছাড়া কর্তৃপক্ষ যদি তাঁদের মুখমণ্ডল দেখতে চায়, সে ক্ষেত্রে ঘরোয়া বৈঠকে নারী কর্মকর্তাদের দিয়ে তা যাচাই করা যেতে পারে।

ফ্রিডম হাউসের ‘ফ্রিডম ইন দ্য ওয়ার্ল্ড ২০২৩ রিপোর্টে’ বাংলাদেশ-সম্পর্কিত মূল্যায়নে বলা হয়, রাজনীতিতে ও সরকারি সংস্থায় ধর্মীয়, ক্ষুদ্র জাতিসত্তা ও অন্যান্য প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর প্রতিনিধিত্ব সীমিতই রয়ে গেছে।

গণমাধ্যমের খবর ও সরকারি তথ্য অনুযায়ী, গত বছরের জুনে বাংলাদেশ থেকে ১ লাখ ২২ হাজারের বেশি মুসল্লি পবিত্র হজ পালন করেন। তাদের বেশির ভাগই যান বেসরকারি এজেন্সিগুলোর মাধ্যমে। ধর্ম মন্ত্রণালয় পুরো প্রক্রিয়া তদারক করে।

স্থানীয় গণমাধ্যমগুলো জানায়, সরকারি বিমান সংস্থায় ভ্রমণসহ হজ প্যাকেজে এ অঞ্চলের অন্যান্য দেশের তুলনায় অনেক বেশি অর্থ আদায় করা হয়েছে। সমালোচনার মুখে ওই বছরের মার্চে ধর্ম মন্ত্রণালয় বিমান সংস্থাকে উড়োজাহাজের ভাড়া কমানোর নির্দেশনা দেয়। বিমান সংস্থা জানায়, ২০২৩ এর হজযাত্রীদের জন্য তারা সেটি করতে পারবে না।

এ অবস্থায় হজযাত্রীদের ওই বছর ৬ হাজার ৩০০ ডলারের (১১০ টাকা হিসেবে ৬ লাখ ৯৩ হাজার টাকা) মতো খরচ করতে হয়েছে। এটি এর আগের বছরের তুলনায় ১ হাজার ৪৫০ ডলারের মতো বেশি।

আজিজের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা নিয়ে আবারো মুখ খুললো পেন্টাগন
                                  

স্বাধীন বাংলা ডেস্ক:

জেনারেল আজিজের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা নিয়ে মুখ খুলেছে মার্কিন প্রতিরক্ষা দপ্তর পেন্টাগন। দপ্তরটি বলেছে, আজিজের বিরুদ্ধে এই নিষেধাজ্ঞা গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠান ও আইনের শাসনের প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের যে প্রতিশ্রুতি রয়েছে তা পুনঃনিশ্চিত করেছে। বুধবার পেন্টাগনের নিয়মিত প্রেস ব্রিফিংয়ে জেনারেল আজিজের নিষেধাজ্ঞার বিষয়ে পেন্টাগনের অভিমত ব্যক্ত করেছেন মার্কিন প্রতিরক্ষা বিভাগের সদরদপ্তরের মুখপাত্র মেজর জেনারেল প্যাট রাইডার।

মার্কিন প্রতিরক্ষা বিভাগের সদরদপ্তর মনে করে জেনারেল আজিজের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা গণতন্ত্র এবং আইনের শাসনের প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিশ্রুতির প্রতিফলন।

ব্রিফিংয়ে প্যাটের কাছে পেন্টাগন অ্যাক্রেডিটেড সংবাদদাতা মুশফিকুল ফজল আনসারী জানতে চান, পেন্টাগন কীভাবে বাংলাদেশের সাথে তার সামরিক ও নিরাপত্তা অংশীদারিত্ব নির্দেশ করছে। কারণ বাংলাদেশের সাবেক সেনাপ্রধান জেনারেল আজিজকে তার উল্লেখযোগ্য দুর্নীতিতে জড়িত থাকার অভিযোগে যুক্তরাষ্ট্র তার ওপর ভিসা নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে। এ ব্যাপারে পেন্টাগন কী ভাবছে আমি কী তা জানতে পারি?

জবাবে পেন্টাগনের মুখপাত্র মেজর জেনারেল প্যাট রাইডার বলেন, আপনি যেমনটা জানেন এবং আপনার প্রশ্নেও উল্লেখ করেছেন- ব্যাপক দুর্নীতিতে জড়িত থাকার দায়ে স্টেট ডিপার্টমেন্ট জেনারেল (আজিজ) আহমেদের ওপরে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে। গত মে মাসে এই নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে। এই নিষেধাজ্ঞা বাংলাদেশে গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠান এবং আইনের শাসনকে শক্তিশালী করার জন্য যুক্তরাষ্ট্রের যে প্রতিশ্রুতি রয়েছে সেটিকে পুনঃনিশ্চিত করছে এবং দুর্নীতি রোধে সেখানে (বাংলাদেশে) যেসব পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে সেগুলোকে সমর্থন করে বিভাগটি (পেন্টাগন)।

তিনি আরও বলেন, আমি এই বলে শেষ করতে চাই- বাংলাদেশের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের ঘনিষ্ট দ্বিপাক্ষিক প্রতিরক্ষা সম্পর্ক রয়েছে। অবাধ এবং মুক্ত ইন্দো-প্যাসিফিক অঞ্চল, সামুদ্রিক এবং আঞ্চলিক নিরাপত্তার মতো বিষয়গুলোতে দুই দেশের অভিন্ন স্বার্থ ও মুল্যবোধের ভিত্তিতে সেখানে অংশীদারিত্ব বিরাজমান রয়েছে।

জেনারেল আজিজের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা নিয়ে মুখ খুলেছে মার্কিন প্রতিরক্ষা দপ্তর পেন্টাগন। দপ্তরটি বলেছে, আজিজের বিরুদ্ধে এই নিষেধাজ্ঞা গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠান ও আইনের শাসনের প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের যে প্রতিশ্রুতি রয়েছে তা পুনঃনিশ্চিত করেছে। বুধবার পেন্টাগনের নিয়মিত প্রেস ব্রিফিংয়ে জেনারেল আজিজের নিষেধাজ্ঞার বিষয়ে পেন্টাগনের অভিমত ব্যক্ত করেছেন মার্কিন প্রতিরক্ষা বিভাগের সদরদপ্তরের মুখপাত্র মেজর জেনারেল প্যাট রাইডার।

দৈনিক ইত্তেফাকের সর্বশেষ খবর পেতে এড়ড়মষব ঘবংি অনুসরণ করুন
মার্কিন প্রতিরক্ষা বিভাগের সদরদপ্তর মনে করে জেনারেল আজিজের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা গণতন্ত্র এবং আইনের শাসনের প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিশ্রুতির প্রতিফলন।

ব্রিফিংয়ে প্যাটের কাছে পেন্টাগন অ্যাক্রেডিটেড সংবাদদাতা মুশফিকুল ফজল আনসারী জানতে চান, পেন্টাগন কীভাবে বাংলাদেশের সাথে তার সামরিক ও নিরাপত্তা অংশীদারিত্ব নির্দেশ করছে। কারণ বাংলাদেশের সাবেক সেনাপ্রধান জেনারেল আজিজকে তার উল্লেখযোগ্য দুর্নীতিতে জড়িত থাকার অভিযোগে যুক্তরাষ্ট্র তার ওপর ভিসা নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে। এ ব্যাপারে পেন্টাগন কী ভাবছে আমি কী তা জানতে পারি?

জবাবে পেন্টাগনের মুখপাত্র মেজর জেনারেল প্যাট রাইডার বলেন, আপনি যেমনটা জানেন এবং আপনার প্রশ্নেও উল্লেখ করেছেন– ব্যাপক দুর্নীতিতে জড়িত থাকার দায়ে স্টেট ডিপার্টমেন্ট জেনারেল (আজিজ) আহমেদের ওপরে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে। গত মে মাসে এই নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে। এই নিষেধাজ্ঞা বাংলাদেশে গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠান এবং আইনের শাসনকে শক্তিশালী করার জন্য যুক্তরাষ্ট্রের যে প্রতিশ্রুতি রয়েছে সেটিকে পুনঃনিশ্চিত করছে এবং দুর্নীতি রোধে সেখানে (বাংলাদেশে) যেসব পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে সেগুলোকে সমর্থন করে বিভাগটি (পেন্টাগন)।

তিনি আরও বলেন, আমি এই বলে শেষ করতে চাই– বাংলাদেশের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের ঘনিষ্ট দ্বিপাক্ষিক প্রতিরক্ষা সম্পর্ক রয়েছে। অবাধ এবং মুক্ত ইন্দো-প্যাসিফিক অঞ্চল, সামুদ্রিক এবং আঞ্চলিক নিরাপত্তার মতো বিষয়গুলোতে দুই দেশের অভিন্ন স্বার্থ ও মুল্যবোধের ভিত্তিতে সেখানে অংশীদারিত্ব বিরাজমান রয়েছে।

গত মে মাসের তৃতীয় সপ্তাহে বাংলাদেশের সাবেক সেনাপ্রধান জেনারেল আজিজের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে যুক্তরাষ্ট্র। দুর্নীতির সঙ্গে ব্যাপকভাবে জড়িত থাকার দায়ে তার বিরুদ্ধে এই নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়।

গত মে মাসের তৃতীয় সপ্তাহে বাংলাদেশের সাবেক সেনাপ্রধান জেনারেল আজিজের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে যুক্তরাষ্ট্র। দুর্নীতির সঙ্গে ব্যাপকভাবে জড়িত থাকার দায়ে তার বিরুদ্ধে এই নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়।

আইএমএফ’র ঋণের তৃতীয় কিস্তি অনুমোদন হতে পারে আজ
                                  

স্বাধীন বাংলা ডেস্ক:

আন্তর্জাতিক অর্থ তহবিলের (আইএমএফ) নির্বাহী পরিষদের বৈঠক বসছে আজ সোমবার। বাংলাদেশ সময় সোমবার (২৪ জুন) রাত সাড়ে ৯টায় যুক্তরাষ্ট্রের রাজধানী ওয়াশিংটনে আইএমএফ-এর সদর দপ্তরে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে।

বৈঠকে বাংলাদেশের অনুকূলে ঋণের তৃতীয় কিস্তির অর্থ ছাড়ের প্রস্তাবটি উত্থাপন হবে। এটি চূড়ান্ত অনুমোদন হলে পরবর্তী এক-দুদিনের মধ্যে অর্থ ছাড় হতে পারে।

প্রস্তাবটি ওই বৈঠকে অনুমোদন হতে পারে বলে আগেই জানিয়েছিল বাংলাদেশ সফর করে যাওয়া আইএমএফ মিশন।

ঋণের কিস্তির অর্থ ছাড়ের বিষয়ে আইএমএফ-এর দেওয়া শর্ত বাস্তবায়ন এবং অর্থনৈতিক সংস্কারের অগ্রগতি দেখতে ২৪ এপ্রিল ঢাকায় আসে সংস্থাটির একটি মিশন। তারা ৮ মে পর্যন্ত অবস্থান করে সরকারের বিভিন্ন সংস্থার সঙ্গে বৈঠক করে। এতে শর্ত বাস্তবায়নের অগ্রগতি ও ভবিষ্যৎ সংস্কার কার্যক্রম সম্পর্কে জানতে চায় তারা।

প্রতিনিধিদলটি ঢাকা ত্যাগের আগে এমন বার্তা দিয়ে যায়, শর্ত বাস্তবায়নের অগ্রগতিতে তারা খুশি। ঋণের তৃতীয় কিস্তির অর্থ ছাড়ের বিষয়ে তারা প্রতিবেদনে সুপারিশ করবেন। তারা আশা প্রকাশ করেন, নির্বাহী পরিষদ ঋণের অর্থ ছাড়ের প্রস্তাবটি অনুমোদন করবে।

বৈঠকে প্রস্তাবটি অনুমোদন হলে মঙ্গল বা বুধবার ঋণের অর্থ পাওয়া যাবে। এবার তৃতীয় কিস্তি বাবদ ১১৫ কোটি ২০ লাখ ডলার দেওয়ার প্রস্তাব করা হয়েছে। টাকার বড় ধরণের অবমূল্যায়নের কারণে কিস্তির অর্থও বেড়েছে।

এর আগে গত বছরের ৩১ জানুয়ারি আইএমএফ বাংলাদেশের অনুকূলে ৪৭০ কোটি ডলারের ঋণ প্রস্তাব অনুমোদন করে। এর মধ্যে দুটি কিস্তিতে ১১৬ কোটি ডলার ছাড় করা হয়েছে। এখন তৃতীয় কিস্তি বাবদ ১১৫ কোটি ডলার ছাড় করার পর্যায়ে রয়েছে।

ঋণের চতুর্থ কিস্তির অর্থ ছাড়ের বিষয়ে চলতি বছরের নভেম্বরের শেষদিকে আরও একটি মিশন ঢাকায় আসতে পারে। ডিসেম্বরে ঋণের চতুর্থ কিস্তির অর্থ ছাড় হওয়ার কথা রয়েছে।

শেখ হাসিনার সঙ্গে চুক্তি: মোদির ওপর ক্ষুব্ধ মমতা
                                  

স্বাধীন বাংলা ডেস্ক:

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দিল্লি সফরে শনিবার ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে বৈঠকে ১০টি বিষয়ে সমঝোতা স্মারক সইয়ের পাশাপাশি ফারাক্কা চুক্তির নবায়ন করা হয়েছে। এতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ওপর ক্ষেপেছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়। এটাকে ‘বাংলা বিক্রির পরিকল্পনা’ হিসেবে অভিহিত করে মমতার দল তৃণমূল কংগ্রেস বলেছে, রাজ্যের বুকে রাজ্যকে এড়িয়ে এবং স্বার্থ বিঘ্নিত হয় এমন কোনো কাজ করতে দেওয়া হবে না।

আনন্দবাজারের খবরে বলা হয়, তৃণমূল কংগ্রেসের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, ফারাক্কা-গঙ্গা চুক্তিতে রাজ্য সরকারও পক্ষ। কিন্তু নবায়ন করার বিষয়ে রাজ্য সরকারকে কিছুই জানানো হয়নি। যা অত্যন্ত খারাপ। পাশাপাশি বলা হয়েছে, এই চুক্তি বাবদ রাজ্য সরকারের যে পাওনা টাকা, তাও বকেয়া রয়েছে। গঙ্গার ড্রেজিংয়ের কাজ বন্ধ হয়ে গিয়েছে। যা বাংলায় বন্যা এবং ভাঙনের প্রাথমিক কারণ হয়ে উঠেছে।

১৯৯৬ সালে ভারত-বাংলাদেশের মধ্যে গঙ্গার পানি নিয়ে চুক্তি হয়। তাতে একাধিক রাজ্য সরকারও শরিক। যে চুক্তির মেয়াদ শেষ হবে ২০২৬ সালে। সে কথা স্মরণ করিয়ে দিয়ে তৃণমূল বলছে, ২০১৭ সালে বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমারও ফারাক্কার বাঁধের বিরোধিতা করেছিলেন। তিনি বলেছিলেন, বেড়িবাঁধ দিয়ে বন্যা নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছে না।

মালদহ, মুর্শিদাবাদ, নদিয়ার একাংশে গঙ্গাভাঙন নিয়ে ২০২২ সালে প্রধানমন্ত্রী মোদিকে চিঠি লিখেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেই চিঠির প্রসঙ্গ তুলে তৃণমূল বলেছে, দুই বছর আগে মমতাও বলেছিলেন, ফারাক্কা ব্যারেজের জন্যই বাংলার বিস্তীর্ণ এলাকাকে ভাঙনের মুখে পড়তে হচ্ছে। যার ফলে মানুষের ভিটেমাটি যেমন যাচ্ছে, তেমনই ক্ষতি হচ্ছে চাষেরও।

পশ্চিমবঙ্গের শাসক দলের পক্ষ থেকে খানিকটা হুঁশিয়ারির সুরেই তিস্তা পানিবণ্টন চুক্তির কথা স্মরণ করিয়ে দেওয়া হয়েছে। বলা হয়েছে, সংবিধান অনুযায়ী অন্য দেশের সঙ্গে কোনো বিষয়ে চুক্তি স্বাক্ষরিত করার অধিকার কেন্দ্রের রয়েছে। কিন্তু কেন্দ্রকে এটাও বুঝতে হবে, রাজ্য সরকার সহযোগিতা না করলে তিস্তা পানিবণ্টনের মতো চুক্তি থমকে থাকে। তিস্তা পানিবণ্টন নিয়ে রাজ্য সরকারের অবস্থানের পর কেন্দ্রও সম্মত হয়েছে, বাংলাকে এড়িয়ে গিয়ে তারা কিছু করবে না।

এদিকে ভারতের ১৮তম লোকসভা নির্বাচনের পর প্রথম অধিবেশন আগামীকাল সোমবার (২৪ জুন) শুরু হচ্ছে। এবার শক্তিশালী বিরোধী দলের আসনে বসতে যাচ্ছে কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন ইন্ডিয়া জোট। এই জোটের গুরুত্বপূর্ণ শরিক মমতার দল তৃণমূল কংগ্রেস। ২৯ জন এমপি নিয়ে দলটি এবার লোকসভায় যাচ্ছে। ফারাক্কা চুক্তি ইস্যুতে তারা সংসদে সরব হবেন বলে ইতোমধ্যে ইঙ্গিত দিয়েছেন। এই ইস্যুতে লোকসভা অধিবেশন শুরুতেই উত্তপ্ত হয়ে উঠতে পারে।

মোদির আমন্ত্রণে দিল্লির উদ্দেশে ঢাকা ছাড়লেন প্রধানমন্ত্রী
                                  

স্বাধীন বাংলা প্রতিবেদন:

২ দিনের রাষ্ট্রীয় সফরে ভারতের নয়াদিল্লির উদ্দেশে ঢাকা ছেড়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আমন্ত্রণে এ সফর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার

শুক্রবার দুপুর ২টায় প্রধানমন্ত্রী ও তার সফরসঙ্গীদের বহনকারী বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইট হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ত্যাগ করে।

প্রধানমন্ত্রীর উপপ্রেস সচিব এমএম ইমরুল কায়েস এ তথ্য নিশ্চিত করেন। গুরুত্বপূর্ণ এ দ্বিপক্ষীয় সফর উপলক্ষ্যে ২১ থেকে ২২ জুন ভারতে অবস্থান করবেন তিনি।

জানা গেছে, এ সফরে দুদেশের চমৎকার সম্পর্ক আরও দৃঢ় ও এগিয়ে নেওয়ার বার্তা থাকবে। সফরে গুরুত্ব পাবে অর্থনৈতিক সংকট উত্তরণে পারস্পরিক সহযোগিতা এবং আঞ্চলিক নিরাপত্তার বিষয়টি। পাশাপাশি আলোচনায় থাকবে ঋণ সহায়তা, সীমান্ত হত্যা ও তিস্তার পানি বণ্টন চুক্তির মতো অমীমাংসিত ইস্যুগুলো।

সফরকালে উভয় দেশের মধ্যে বিদ্যমান দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক আরও জোরদারে বেশ কিছু চুক্তি ও সমঝোতা স্মারক সই হবে। এছাড়া একটি সম্ভাব্য বাণিজ্য চুক্তি বিষয়ে আলোচনা হতে পারে।

২১ বাংলাদেশি হজযাত্রীর মৃত্যু, কাল থেকে ফিরতি ফ্লাইট শুরু
                                  

স্বাধীন বাংলা প্রতিবেদন:

সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী চলতি বছর হজে গিয়ে গত দু’দিনে সৌদি আরবে আরও তিন বাংলাদেশি হজযাত্রী মৃত্যুবরণ করেছেন। এ পর্যন্ত বাংলাদেশি মোট ২১ জন হজযাত্রী মারা গেলেন।

বুধবার (১৯ জুন) হজ পোর্টালে আইটি হেল্পডেস্কের প্রতিদিনের বুলেটিন থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

হজ শেষে বৃহস্পতিবার থেকে দেশে ফেরার ফ্লাইট শুরু হবে বলে ধর্ম মন্ত্রণালয় থেকে জানা গেছে।

মঙ্গলবার রাত ৩টা পর্যন্ত বুলেটিনের তথ্য অনুযায়ী, সৌদি আরবে মোট ২১ বাংলাদেশি হজযাত্রী মারা গেছেন। সর্বশেষ তোফাজ্জল হক (৭০) নামে একজন হজযাত্রী মারা গেছেন।


মারা যাওয়া হজযাত্রীদের মধ্যে পুরুষ ১৮ জন, নারী ৩ জন। মক্কায় ১৬ জন, মদিনায় ৪ জন ও জেদ্দায় একজন মারা গেছেন।


   Page 1 of 478
     জাতীয়
সিলেটে অবিবাহিতের সংখ্যা বেশি, রাজশাহীতে বেশি বিবাহিত: বিবিএস
.............................................................................................
আন্দোলনকারীদের নতুন কর্মসূচি আসছে সন্ধ্যায়
.............................................................................................
বিশিষ্ট লেখক আসমা আব্বাসী আর নেই
.............................................................................................
শিক্ষকদের সঙ্গে ওবায়দুল কাদেরের বৈঠক স্থগিত
.............................................................................................
প্রত্যয় স্কিম নিয়ে অর্থমন্ত্রণালয়ের বক্তব্য ‘নির্জলা অসত্য’: বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক নেটওয়ার্ক
.............................................................................................
এসএমই ফাউন্ডেশনের এমডি হলেন আনোয়ার চৌধুরী
.............................................................................................
শাহজালালে সাড়ে ৪ কোটি টাকার সোনা জব্দ
.............................................................................................
বাংলাদেশ সৃষ্টিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অবদান চিরস্মরণীয়: শেখ হাসিনা
.............................................................................................
এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরু
.............................................................................................
এইচএসসি পরীক্ষা: শনিবার থেকে ৪৪ দিন কোচিং সেন্টার বন্ধ
.............................................................................................
বাংলাদেশে ধর্মীয় স্বাধীনতা নিয়ে মার্কিন প্রতিবেদন
.............................................................................................
আজিজের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা নিয়ে আবারো মুখ খুললো পেন্টাগন
.............................................................................................
আইএমএফ’র ঋণের তৃতীয় কিস্তি অনুমোদন হতে পারে আজ
.............................................................................................
শেখ হাসিনার সঙ্গে চুক্তি: মোদির ওপর ক্ষুব্ধ মমতা
.............................................................................................
মোদির আমন্ত্রণে দিল্লির উদ্দেশে ঢাকা ছাড়লেন প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
২১ বাংলাদেশি হজযাত্রীর মৃত্যু, কাল থেকে ফিরতি ফ্লাইট শুরু
.............................................................................................
নতুন নিয়মে চলছে অফিস-ব্যাংক
.............................................................................................
ঈদের পর লোডশেডিং বাড়তে পারে
.............................................................................................
ঈদযাত্রায় সড়কে চাপ আছে, যানজট নেই: কাদের
.............................................................................................
আরও দুই বাংলাদেশি হজযাত্রীর মৃ ত্যু
.............................................................................................
চলতি মাসেই ঢাকা সফরে আসতে পারেন নরেন্দ্র মোদি
.............................................................................................
নতুন সেনাপ্রধান লেফটেন্যান্ট জেনারেল ওয়াকার-উজ-জামান
.............................................................................................
হাসিনা-মোদি বৈঠক সোমবার
.............................................................................................
৬০ উপজেলায় ভোটগ্রহণ চলছে
.............................................................................................
ঈদ যাত্রায় ট্রেনের অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু
.............................................................................................
এমপি আজিম হত্যা: লাশ গুমে জড়িত সিয়াম নেপালে আটক
.............................................................................................
বাংলাদেশ সংবাদপত্র শিল্প পরিষদের ১৪ দফা দাবি পেশ
.............................................................................................
শেখ হাসিনার সরকার সুষম ও টেকসই উন্নয়নে বিশ্বাসী: তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী
.............................................................................................
ঝিনাইদহের এমপি আনোয়ারুল আজিমের লাশ কলকাতা থেকে উদ্ধার
.............................................................................................
ঢাকায় এসেছেন অস্ট্রেলিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী
.............................................................................................
সাবেক সেনাপ্রধান আজিজের ওপর মার্কিন নিষেধাজ্ঞা
.............................................................................................
১১ হাজার বাংলাদেশিকে ফেরত পাঠাচ্ছে যুক্তরাজ্য
.............................................................................................
‘র‌্যাবের নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করছে না যুক্তরাষ্ট্র’
.............................................................................................
৫৩ ফ্লাইটে সৌদি পৌঁছেছেন ২১ হাজারের বেশি হজযাত্রী
.............................................................................................
৩ দিনের সফর শেষে ঢাকা ছাড়লেন ডোনাল্ড লু
.............................................................................................
সেই ‘এমভি আবদুল্লাহ’ পৌঁছেছে বাংলাদেশের জলসীমায়
.............................................................................................
বিশ্ব মুক্ত গণমাধ্যম দিবসে ইউনাইটেড প্রেস ক্লাবের সেমিনার অনুষ্ঠিত
.............................................................................................
১৩৯ উপজেলায় ভোটগ্রহণ চলছে
.............................................................................................
উপজেলা পরিষদ নির্বাচন: ৪১৮ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন
.............................................................................................
নির্বাচনী কেন্দ্রে প্রভাব বিস্তার করলে ফৌজদারী মামলা হবে: গাজীপুরের ডিসি
.............................................................................................
এবারের এসএসসি’র ফল ১২ মে
.............................................................................................
গাজীপুরে ২ ট্রেনের মুখোমুখি স ং ঘ র্ষ, ব্যাপক হতাহতের আশঙ্কা
.............................................................................................
আজ হাসপাতালে যাবেন খালেদা জিয়া
.............................................................................................
মে দিবসে মেহনতি মানুষদের প্রতি প্রধানমন্ত্রীর শুভেচ্ছা
.............................................................................................
কী ঘটেছিলো সেই ২৯ এপ্রিল ২০৯১ ?
.............................................................................................
ভ য়া ব হ তাপপ্রবাহ: হিট স্ট্রোকে একদিনে ১৭ জনের মৃত্যু
.............................................................................................
যুক্তরাষ্ট্রে দুর্বৃত্তের গুলিতে সিলেটের ইউসুফসহ ২ বাংলাদেশি নি হ ত
.............................................................................................
হিট অ্যালার্টের মেয়াদ বাড়ল আরও ৩ দিন
.............................................................................................
থাইল্যান্ডের উদ্দেশে ঢাকা ছাড়লেন প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
প্রচণ্ড গরমে ঢাকায় হবিগঞ্জের রিকশা চালকের মৃ ত্যু
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
    2015 @ All Right Reserved By dailyswadhinbangla.com

Developed By: Dynamic Solution IT